এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • হেদুয়ার ধারে -- ১২৫

    Anjan Banerjee লেখকের গ্রাহক হোন
    ২৬ এপ্রিল ২০২৪ | ১৩০ বার পঠিত
  • সন্ধে সাড়ে সাতটা নাগাদ দিবাকর সুমনার পড়ার ঘরে ঢুকে বলল, ' ফুচা ... তোকে কে একজন ডাকছে ... বাইরে দাঁড়িয়ে আছে। সাগর মন্ডল না কি একটা নাম বলল ... '
    সুমনা হুড়মুড় করে নীচে নেমে এসে দেখল হাতে একটা খাম নিয়ে গেটের বাইরে সাগর দাঁড়িয়ে আছে।
    ----- ' আরে ... আসুন আসুন ... '
    সাগর ভিতরে ঢুকল না। ওখান থেকেই বলল, ' এই ... একটা কেস ছিল ... অলোকেন্দু মিত্রের সঙ্গে একটু কথা বলতাম ... '
    ----- ' ও আচ্ছা আচ্ছা ... আসুন আসুন ... '
    সাগরকে নিয়ে দোতলায় উঠে ডানদিকে ঘুরে অলোকেন্দুবাবুর পাশে মক্কেলদের বসার ঘরে নিয়ে গিয়ে বলল, ' দু মিনিট বসুন, আমি বলছি ... '
    বসবার ঘর এই মুহুর্তে একদম ফাঁকা। সাগর বসল। সুমনা ফ্যান খুলে দিয়ে চেম্বারের দিকে চলে গেল।
    অলোকেন্দুবাবু এক মক্কেলের সঙ্গে কথা বলছিলেন। সুমনা ঘরে না ঢুকে দরজার মুখে দাঁড়িয়ে রইল।
    অলোকেন্দুবাবু কথা থামিয়ে সুমনার দিকে তাকালেন।
    ----- ' কিছু বলবি ? '
    ----- ' সুমনা ঘরে ঢুকে অলোকেন্দুবাবুর পাশে গিয়ে দাঁড়াল। মাথা ঝুঁকিয়ে নীচু গলায় তার বাবার প্রায় কানে কানে কি বলল। সামনে বসা মক্কেল শিষ্টতাসূচক ভঙ্গীতে অন্যদিকে মুখ ঘুরিয়ে রইল।

    সুমনা বেরিয়ে এসে সাগরকে গিয়ে বলল, ' পাঁচ মিনিট ... আমি এক্ষুণি আসছি ... ', বলে সেখান থেকে চলে গেল।

    মিনিট পাঁচেক পরে মক্কেল ভদ্রলোক বেরিয়ে গেলেন। সুমনা ফিরে এসে বলল, ' আসুন দাদা ... '

    অলোকেন্দুবাবু বললেন, ' নমস্কার, আসুন ... আসুন ... বসুন ... '
    সাগর অলোকেন্দুবাবুর উল্টোদিকের চেয়ারে বসল।
    সুমনা বলল, ' দাদা আপনারা কথা বলুন। আমি একটু পরে আসছি ... '
    সুমনা ঘর থেকে বেরিয়ে গেল।
    অলোকেন্দুবাবু সাগরের দিকে চুপচাপ তাকিয়ে বসে রইলেন।
    তারপর বললেন, ' সুমনাদের আপনি কিভাবে রেসকিউ করেছিলেন সব শুনেছি। আমি আপনার নাম শুনেছি অনেক কিন্তু এই প্রথম স্বচক্ষে দেখলাম আপনাকে। ওসব কথা পরে হবে। আগে আপনার কেসটা শুনি ... '
    সাগর হাতের লেফাফাটা বাড়িয়ে ধরল অলোকেন্দুবাবুর দিকে।

    সব শুনে এবং উকিলের চিঠিতে চোখ বুলিয়ে অলোকেন্দুবাবু বললেন, ' ঠিক আছে অসুবিধে হবে না ... ছকে বাঁধা ফরম্যাট। ওদের অ্যাড্রেসটা... আচ্ছা ... এই যে ... পেয়েছি ... রিপ্লাইটা তৈরি করে কালকের মধ্যে পাঠাব ওদের অ্যাড্রেসে। কিন্তু ওদের এগেনস্টে একটা এফ আই আর করে রাখার দরকার ছিল বারুইপুরে লোকাল থানায়। সেটা তো করা হয়নি। আর এখন কেই বা করবে। যাকগে এখানকার বটতলা থানায় করে রাখা যেতে পারে। যদি দরকার হয় আমি যেতে পারি মেয়ের গার্ডিয়ানের সঙ্গে। এফ আই আর টা কেসটাকে স্ট্রং সাপোর্ট দেবে। আজ তো আর হবে না। কাল সকালে যদি থানায় যাওয়া যায় ... বেশিক্ষণ লাগবে না ... '
    এই সময়ে সাগর বলল, ' আপনাকে থানায় যেতে হবে না স্যার ... ওটা আমিই করে নিতে পারব। আপনি শুধু বয়ানটা রেডি করে দিন .... '
    ------ ' আচ্ছা ঠিক আছে। আপনি যখন আছেন অসুবিধে হবার কথাই নয়। আমি ভুলেই গিয়েছিলাম। আচ্ছা আমি লিখে দিচ্ছি। যদিও এসব লিখে নিয়ে যাওয়ার কোন দরকার নেই। ওরা আপনাদের কাছ থেকে কমপ্লেন্টটা শুনে নিজেদের মতো করে নোট রেজিস্টার করে নেবে। তবু থানার সুবিধের জন্য একটা পিটিশন লিখে নিয়ে যাওয়া ভাল। মানে, প্লেনটিফ চৈতালি পাল(সরকার)- এর সঙ্গে কি কি দৈহিক এবং মানসিক টর্চার হয়েছে সেটা ডিটেলে লিখতে হবে। আমাদের কমন লইয়ার কাস্টম অনুযায়ী অনেকটা বাড়িয়ে লিখতে হবে। মানে, রেপ না হলেও বলতে হবে রেপ হয়েছে, অন্তত অ্যাটেম্পট টু রেপ হয়েছে ... এরকম আর কি ... এটা, ফর এগজাম্পল বললাম, বুঝতে পারছেন তো ...।
    ---- ' হ্যাঁ হ্যাঁ .... বুঝতে পেরেছি। জানি এগুলো। এই সব লাইনেই তো ঘোরাঘুরি ... হাঃ হাঃ ... '
    ----- ' তাছাড়া উপায় কি ? কাউকে না কাউকে তো জঞ্জাল সাফাইয়ের জন্য হাতে ঝাঁটা ধরতেই হবে ... '
    ----- ' তাই তো ... আর একটা কথা জানতে ইচ্ছে করছে ...
    ----- ' কি ? '
    ----- ' আপনি আপনার জবাবি চিঠিতে কি লিখবেন ? '
    ----- ' হ্যাঁ, এটা একটা সঙ্গত প্রশ্ন। আমি লিখব যে, আমার মক্কেলের অভিযোগ, সে শ্বশুরবাড়িতে থাকাকালীন নানারকম দৈহিক, মানসিক, এমনকি প্রাণসংশয়জনিত অত্যাচার এবং নারী সম্মানহানিকর কর্মে বাধ্য করার প্রচেষ্টার সম্মুখীন হয়েছে তার জন্য তাদের বিরুদ্ধে কেন বধুনির্যাতনের ফৌজদারি ধারা লাগু হবে না, সবার আগে সে প্রশ্নের জবাব পেলে,তারপর আপনাদের বক্তব্য এবং দাবির বিষয়বস্তু নিয়ে আইনসঙ্গত আলোচনা করা যেতে পারে। সাতদিনের মধ্যে এ চিঠির জবাব না পেলে আমার মক্কেলের বক্তব্য ও দাবি যথাযথ বলে বিবেচিত হবে এবং ভারতীয় ফৌজদারি আইনের নির্দিষ্ট ধারা অনুযায়ী আপনার মক্কেলের বিরুদ্ধে আইনি মামলা শুরু করা হবে ... '
    সাগর একদৃষ্টে অলোকেন্দুবাবুর মুখের দিকে তাকিয়ে তার কথা শুনছিল।
    সে বলল, ' বুঝতে পারলাম। কিন্তু স্যার ... চৈতালির ওপর টর্চার ফর্চারের ব্যাপারগুলো প্রমাণ করা হবে কি করে ... '
    ----- ওহ ইয়েস ... ইটস এ ভেরি পার্টিনেন্ট কোয়েশ্চেন। না প্যালপ্যাবল বা প্রাইমা ফেসি এভিডেন্স কিছু নেই। কিন্তু আই পি সি-র অনেক ধারাই রয়েছে যা সম্পূর্ণভাবে মেয়েদের পক্ষে। শুধু তাদের জবানবন্দিই কেসটাকে তাদের ফেভারে নিয়ে আসার পক্ষে যথেষ্ট। '
    সাগর বলল, ' হমম্ ... বুঝলাম ... '
    একটুখানি ভেবে নিয়ে সাগর বলল, ' স্যার যদি কিছু মনে না করেন, একটা কথা জিজ্ঞাসা করব ?'
    অলোকেন্দুবাবু সাগরের দিকে প্রশ্নসূচক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছেন।
    সাগর বলল, ' না, তেমন কিছু না ... বলছি যে আপনি কি ক্রিমিনাল কেসও করেন ? '
    ----- ' ও, এই কথা। হ্যাঁ, ক্রিমিনাল, সিভিল দুটোই করি ... ও ব্যাপারে চিন্তা করবেন না। আমার ট্র্যাক রেকর্ড আমার লাইনে সবাই জানে। '
    এই সময়ে সুমনা ঘরে এসে ঢুকল।
    এসে বলল, ' হয়েছে ? '
    সাগর বলল, ' হ্যাঁ ... সে তো হয়েছে ... কিন্তু অভয় তো গরীব মানুষ... তাই... যদি ... '
    সুমনা বলে উঠল, ' আপনাকে ওসব নিয়ে ভাবতে কেউ বলেছে ? যদি বলে থাকে ... বলুন একবার ...'
    অলোকেন্দুবাবু ভীত ভঙ্গীতে বললেন, ' ওরে বাবা... কার বুকের অত বড় পাটা আছে ? আমি কিন্তু কিছু বলিনি সাগরবাবু .... '

    সঞ্চারী সেদিন রাত্তিরে অমলের ঘরে ঢুকে বলল, ' দাদাভাই রাত্রির সঙ্গে তোর কিছু কথা হয়েছে ? '
    ----- ' হ্যাঁ, মানে... সেদিন রাস্তায় দেখা হয়েছিল ... শ্যামবাজার ট্রামডিপোর ওখানে ... আমি আসছিলাম ওখান দিয়ে ... ', অমল থতমত খেয়ে বলল।
    ---- ' ও আচ্ছা ... ও নাকি তোকে কোথায় নিয়ে যাবে ... প্রফেসর নিখিল ব্যানার্জী বলে একজনের কথা বলছিল ... '
    ----- ' হ্যাঁ ... সেদিন বলছিল ... কি একটা অর্গানাইজেশন... '
    ----- ' হ্যাঁ ... সেটাই ... যাই হোক, কাল সন্ধে সাড়ে ছটা নাগাদ তোকে দাঁড়াতে বলেছে। '
    অমলের মনের সরোবরে টুপ করে একটা বটফল খসে পড়ল জলের ধার থেকে। জলের আকুল বৃত্ত ছড়িয়ে পড়ছে মৃদু তরঙ্গ এঁকে। অমল চুপ করে রইল, কি বলবে ভেবে না পেয়ে।
    একটু পরে তরঙ্গ থিতু হতে সে বলল, ' কোথায় ? '
    ----- ' বিবেকানন্দ রোডের মোড়ে। আমাকেও বলছিল যেতে ... আমি রাজি হইনি। দূর ... কি সব ... আমার ওসব ভাল লাগে না। রাত্রির এগুলো বড্ড বাড়াবাড়ি ... সব ব্যাপারে নাক গলানো চাই। তুই যদি না যেতে চাস তো বল, আমি কাল ইউনিভার্সিটিতে বলে দেব ওকে ... '
    অমলের বুক ধড়ফড় করে উঠল। সে তাড়াতাড়ি বলে উঠল, ' না না... ব্যাপারটা ইন্ট্রেস্টিং মনে হচ্ছে ... যাব যাব ... '
    ----- ' ঠিক আছে, আমি তা'লে ওকে সেই কথাই বলে দেব ... বিবেকানন্দ রোডের মোড়ে ... '
    ----- ' হুঁ হুঁ ... '
    অমল ভাবল, ভাগ্যবিধাতা বলে যদি কেউ থাকে
    তাকে অজস্র ধন্যবাদ যে সঞ্চারী নিখিলবাবুর ওখানে যেতে রাজি হয়নি।
    কাল সন্ধে আসতে এখনও প্রায় চব্বিশ ঘন্টা বাকি। কিন্তু সে স্বপ্নদোলায় দুলতে লাগল এখন থেকেই। পরে কি হয় কে জানে।

    ( চলবে )

    ********************************************
    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ঝপাঝপ মতামত দিন