এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • হেদুয়ার ধারে - ১১৪ 

    Anjan Banerjee লেখকের গ্রাহক হোন
    ২৮ মার্চ ২০২৪ | ১৩৩ বার পঠিত
  • এর মধ্যে শ্রীলেখা কায়দা কৌশল করে চিঠিটা অসিতের হাতে গুঁজে দিতে পারল। ভাগ্যক্রমে আজকে ফাঁকায় পেয়ে গেল অসিতকে রিহার্সালের জন্য ওপরে ওঠার সময়।
    অসিত বলল, ' কি এটা ? '
    ---- ' পরে পড়ে নিও ' বলে ধড়ফড় করতে করতে সরে গেল ঘরের ভিতর।
    অসিত ভাঁজ করা কাগজের টুকরোটা প্যান্টের পকেটে রেখে সিঁড়ি দিয়ে ওপরে উঠতে উঠতে ভাবতে লাগল, এ আবার কিরে বাবা ... এতদিন বাদে আবার নতুন ক'রে চোতা ধরানো কি জন্য ! কি কেস কে জানে। সে ভাবল, যাক এখন তো 'শেষরক্ষা' হোক ... এসব চিঠিচাপাটি পরে পড়া যাবে। ভাঁজ করা কাগজটা প্যান্টের পকেটেই রইল। আসলে প্রাপ্তি ঘটে যাওয়ার পর এসব সম্পর্কে তেমন কৌতূহল বা রোমাঞ্চ বিশেষ কিছু থাকে না, অন্তত ছেলেদের দিক থেকে। সবাই যে দায়িত্বজ্ঞানশূন্য হয়, তা না। অসিত এই অবশ্যই দায়িত্ববান শ্রেণীতে পড়ে। তবে, মেয়েদের ব্যাপারটা আলাদা, বিশেষ করে শ্রীলেখার বয়সী মেয়েদের। সামান্য বাড়াবাড়ি কোন ফুলঝুরি ফুলকি চলার রাস্তায় এসে পড়লে তারা দুর্ভাবনা আর আশঙ্কায় কাঁটা হয়ে যায়। কারণে বা অকারণে একটা অস্বস্তির বুদ্বুদ উঠতে থাকে মনের ভিতর অবিরত।
    শ্রীলেখা চিঠিটা নির্জন সন্ধ্যার সিঁড়িতে কোনরকমে অসিতের হাতে গুঁজে দিয়ে ঘরে এসে বিছানায় উপুড় হয়ে পড়েছে। ব্যাপারটা অঞ্জলির চোখ এড়াল না এবং সে অবশ্যই কিছু একটা আন্দাজ করল।
    অসিত কিন্তু ওপরে গিয়ে নাটকের রিহার্সালে ঢুকে গেল পুরোপুরি। চিঠিটার কথা বেমালুম ভুলে গেল।
    রিহার্সালের শেষে অসিত যখন সদলবলে নীচে নামছে জন্মেজয়বাবুর পরিবার সমেত তখন শ্রীলেখা একবার অতি সন্তর্পণে তাদের ঘরের দরজার মুখে এসে দাঁড়াল। এক ফাঁকে দুজনের চোখাচোখি হ'ল। অসিত হাত উল্টে পাল্টে ইশারায় কিছু নির্বাক বার্তা পাঠাল, যার মানে হল --- এখনও পড়িনি ... পড়ে নেব ... চিন্তা নেই...
    শ্রীলেখা ঘরের ভিতর ঢুকে গেল। অসিতের ইশারাবার্তায় আশ্বস্ত হল কিনা ঠিক বোঝা গেল না। অঞ্জলি রান্নাঘরে ব্যস্ত আছে। ভাগ্যিস এসব কিছু তার চোখে পড়ল না।
    অসিত কিন্তু রাস্তায় বেরিয়ে চিঠিটার কথা বেমালুম ভুলে গেল। রাত প্রায় বারোটার সময় ঘুম ঘুম আসছে, নাটকের নানান দৃশ্যপট মাথার মধ্যে ঘুরছে, এমন সময়ে হঠাৎ শ্রীলেখার দেওয়া ভাঁজ করা কাগজটার কথা মনে পড়ে গেল। সে তড়াং করে বিছানা থেকে লাফিয়ে উঠল। ভাবল, এই রে ... সেটা পকেটে আছে তো ঠিকঠাক ... কোথাও পড়ে টড়ে যায়নি তো ...। আলো জ্বালিয়ে প্যান্টের পকেট হাতড়ে কাগজটা বার করল। তাড়াতাড়ি কাগজের ভাঁজ খুলে ফেলল। আর কেউ নেই। ঘরে সে একাই শোয়।
    কাগজটা প'ড়ে তার তো চক্ষু চড়কগাছ।
    ওতে যা লেখা আছে তা এরকম ----
    " মা কদিন ধরে খুব ঝামেলা করছে। কাল রাতে বাবার সঙ্গে খুব ঝগড়া করছিল। মা তোমাকে একদম পছন্দ করছে না কদিন ধরে। তোমার সঙ্গে মিশতে দেবে না মনে হয়। বোধহয় সেদিন কিছু দেখে ফেলেছে। অনেক বারণ করলাম, শুনলে না তুমি। চল আমরা পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করি। তাছাড়া উপায় কি। তেমন কিছু হলে আমি আত্মহত্যা করব এটা জেনে রেখ "
    অসিত কাগজটা ভাঁজ করে আবার প্যান্টের পকেটে ঢুকিয়ে রাখল। তারপর আলো নিভিয়ে শুয়ে পড়ল। মনে মনে ভাবল, পাগল যে কতরকমের হয় ...

    সেদিন সাগর আর রাত্রি একসঙ্গে বেরল বটতলা থানার থেকে। সাগর একটু ইতস্তত করছিল। তার চমকের আবেশ, মানে যাকে বলে হ্যাংওভার এখনও কাটেনি। কিন্তু কালীবাবু ঠেলেঠুলে সাগরকে রাত্রির সঙ্গে পাঠালেন।
    ---- ' আরে যান যান ... একটু আগায়ে দ্যান ... ম্যাডামের একটা প্রেস্টিজ আসে না ... কি বলে, একটা মিনিমাম ডেকোরাম তো মেনটেন করেন ... '
    রাত্রি কোন কথা না বলে কালীবাবুর কথা শুনে মুখে হাত চাপা দিয়ে হাসল। সাগর তখনও বসে আছে দেখে রাত্রি সটান বলল, ' নিন নিন অনেক হয়েছে ... এবার চলুন তো ...অনেক কাজ পড়ে আছে ... '
    সাগর মন্ডল এমনিতেই এখনও ঘটনা পরম্পরার ঘোর কাটিয়ে উঠতে পারেনি তার ওপর এই মধুর তিরস্কার তাকে একেবারে অবশ করে দিল। সে উঠব উঠব করছে, এমন সময়ে কালীবাবু রাত্রির দিকে তাকিয়ে বলে উঠলেন, ' এইডা কিন্তু ঠিক করলেন না ... '
    রাত্রি অবাক চোখে তাকিয়ে বলল, 'কেন কি হল ?'
    ----- ' এইবার আপনি ছাইড়্যা তুমিতে আসেন ... এখন আর কি ? আপনি আজ্ঞে বলা ছাড়েন এবার ... '
    রাত্রি হেসে বলল, ' ও ... হোঃ হো ... হাঃ হাঃ হাঃ ... বুঝতে পারলাম ... কিন্তু একহাতে তো তালি বাজে না স্যার ... '
    কালীবাবু এবার কড়া দৃষ্টিতে সাগরের দিকে তাকিয়ে বললেন, ' আমি দুইজনেরেই কইত্যাসি ... নো পার্সিয়ালিটি ... যান এবার ভাগেন তো দুইজনে, অনেক হইসে ... আর হ্যাঁ ... নিখিল স্যারের লগে দেখা করার ডেটটা ফিক্স কইরা ফেলেন ... একসঙ্গেই যাব ... '

    বাইরে বেরিয়ে এসে সাগর বলল, ' এবার কোনদিকে ? '
    রাত্রির এবার আর ভুল হল না। সে বলল, ' সে বলল, ' তুমি যেদিকে বলবে ... '

    ( চলবে )

    ********************************************
    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। মন শক্ত করে প্রতিক্রিয়া দিন