এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • হেদুয়ার ধারে - ৫৮ 

    Anjan Banerjee লেখকের গ্রাহক হোন
    ২৬ নভেম্বর ২০২৩ | ১৯২ বার পঠিত
  • প্রতিবিম্ব প্রায় পনের মিনিট ধরে হেদোর বেঞ্চে বসে আছে। সুমনার দেখা নেই। প্রতিবিম্ব বারবার এদিক ওদিক তাকাচ্ছে। মাঝে মাঝে খাতা খুলে নোটে চোখ বোলাচ্ছে। কিন্তু ঠিকমতো মন দিতে পারছে না। আরও পাঁচ মিনিট কাটল। প্রতিবিম্ব উসখুস করতে লাগল। ভাবল, আজ তো টাইম দেওয়া ছিল। সুমনার তো সময়ের নড়চড় হয় না। শরীর টরীর খারাপ হল না তো ... আজ কি কলেজে আসেনি? ওর মা আটকে দিল না তো কিংবা আর একটা বিয়ের সম্বন্ধ ...। এইরকম নানা সম্ভাবনার কথা মনে হতে লাগল।
    আরও মিনিট তিনেক পরে দেখল ডানদিক থেকে প্রায় ছুটতে ছুটতে সুমনা আসছে।
    এসে প্রতিবিম্বর পাশে বসে পড়ল।
    প্রতিবিম্ব বলল, ' কি হল ... এত এক্সাইটমেন্ট কিসের? '
    ----- ' না না ... এক্সাইটমেন্ট কিছু না ... অ্যাঙ্গজাইটি বলতে পার ... ওই কাবেরীর হাত থেকে মুক্তি পেলাম এতক্ষণে। ওঃ ... কিছুতেই ছাড়ে না। নানারকম বকবক করেই যাচ্ছে ওর সব পার্সোনাল প্রবলেম নিয়ে। একবার একে ধরছে, একবার ওকে ধরছে। আরে ... আমি তার কি করব? আমি বারবার বলছি একটা ফাইনাল ডিসিশান নিতে ... তা না খালি ... '
    ----- ' একে ধরছে, ওকে ধরছে মানে?
    ---- ' মানে বুঝতে পারছ না? দুটো ছেলের সঙ্গে খেলছে। একটা হল, ওই সেদিন যার সঙ্গে এখানে দেখলে দূর থেকে। তাকে এখন মনে ধরছে না। আর একজন আছে ... কফি হাউসের কে কবি একজন ... '
    ----- ' সে যাকগে ... তোমার তো ওসব নিয়ে মাথা ঘামাবার দরকার নেই ... রিল্যাক্স ... '
    ----- ' মাথা ঘামাতে বয়েই গেছে আমার। দেরি হল কেন জান? বলে যে, চল হেদোয় গিয়ে ঘুরি একটু ... তুই আর আমি হেদোয় ঘুরিনি অনেকদিন। শুনে তো আমার মাথায় বাজ পড়ল। কত কায়দা করে যে কাটাতে হল ওকে সে আর কি বলব। কিছুতেই ছাড়ে না ... অনেক আজেবাজে কথা বলে তারপর ওকে ক্লাসে পাঠাতে পারলাম অনেক কসরত করে। আমার হাতে আর মিনিট দশেক সময় আছে .... '
    ----- ' এ তো মাচ অ্যাডো অ্যাবাউট নাথিং। এত কসরত করার কি দরকার ছিল? ও হেদোয় এলে কি ক্ষতি হত? '
    ----- ' হেদোয় তুমি না থাকলে কোন ক্ষতি ছিল না। কিন্তু এখানে ঢুকলে তো তোমার সঙ্গে দেখা হয়ে যাবে ... '
    প্রতিবিম্ব সরল দৃষ্টিতে সুমনার মুখের দিকে চেয়ে রইল। বলল, ' তাতে কি হয়েছে? '
    ----- ' তাতে কি হয়েছে সেটা যদি তুমি বুঝতে তা'লে তো আমার কোন জ্বালাই ছিল না ... কি আর বলব ! '
    প্রতিবিম্ব সুমনার জ্বালা যন্ত্রণার গূঢ় রহস্য মোটেই অনুধাবন করতে পারল না। হেদোর পুকুরের দিকে তাকিয়ে বসে রইল।
    সুমনা বলল, ' এই যে শোন ... ভাবনা চিন্তা পরে কোর। আমার হাতে সময় নেই... ক্লাস শুরু হয়ে যাবে ... শুনছ কি? '
    ----- ' হ্যাঁ বল ... শুনছি। '
    ----- ' বলছি যে ... বাপি তোমাকে একবার দেখা করতে বলেছে ... কবে যাবে? '
    ----- ' হঠাৎ ! '
    ----- ' সে সব জানি না .... কি সব বলবে ... কবে যাবে? '
    ----- ' ঠিক আছে। কাল যাব তা'লে, সন্ধেবেলায় ... '
    ----- ' ঠিক আছে, তুমি দোতলায় উঠে দিবাকর কাকাকে বলবে, তা'লেই হবে। আমি বাপিকে বলে রাখব। এখন আসছি, ক্লাস আছে ... '

    পঞ্চমীর মা মহা ফ্যাসাদে পড়েছে। সে সাগর মন্ডলের সঙ্গে যোগাযোগের সূত্রে ইদানীং বেশ গুরুত্বপূর্ণ লোক হয়ে উঠেছে। মাঝে মাঝেই তার কাছে দু চারজন আসছে সাগরের সঙ্গে তাদের যোগাযোগ করিয়ে দেবার জন্য, তাদের সমস্যা সমাধানের উদ্দেশ্যে।
    যেমন মানিকতলার বংশীবাবু বাড়ি খুঁজে খুঁজে পদ্মার বাড়িতে এসে হাজির হলেন।
    যথেষ্ট সম্মানজনক সম্বোধনে তিনি বাইরে থেকে ডাকতে লাগলেন, ' পদ্মামাসি আছ নাকি .... পদ্মামাসি ... '
    পদ্মা তড়িঘড়ি বাইরে বেরিয়ে দেখল ধবধবে ধুতি পাঞ্জাবীর ওপর কালো কোট পরা খুব ফর্সা ভুঁড়িওয়ালা একটা লোক দাঁড়িয়ে আছে। মুখে মোটা পাকানো গোঁফ। দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে পান চিবোচ্ছে।
    পদ্মা বেরোতে সে ভদ্রলোক তাম্বুলরসে রঞ্জিত ঠোঁট ছড়িয়ে লাল রসে রাঙানো দাঁত বিকশিত করে একগাল হেসে হাতজোড় করে বলল,
    ' নমস্কার মাসীমা ... '।
    বোঝ কান্ড ! ঠ্যালার নাম বাবাজি ...। পদ্মার মতো অন্তত সাতজন 'মাসীমা' বংশীলালের বাড়ি কাজ করে। তাদের সকলকেই 'তুই' সম্বোধন করে লোহাপট্টির বংশীলাল রায়। ও পাড়ার মাড়োয়ারিকূলে একমাত্র বাঙালী ব্যবসায়ী।
    ----- ' .... আমার নাম বংশীলাল রায়। মাণিকতলায় বাড়ি .... '
    কথাটা শেষ হবার আগেই পঞ্চমীর মা বলল, ' এখানে না বাবু ... ওই মোড়ের বাঁদিকে যে সাইকেল সারানোর দোকানটা আছে, ওখানে ... পটলবাবু ... '
    ----- ' মানে? '
    ----' বাবু আপনি সাগর মন্ডলকে খুঁজছেন তো? ওই দোকানে পটলবাবু আছে ... ওর সঙ্গে কথা বলুন। ভাল লোক .... '

    ( চলবে )

    ********************************************
    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ভ্যাবাচ্যাকা না খেয়ে মতামত দিন