এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • হেদুয়ার ধারে - ১৮

    Anjan Banerjee লেখকের গ্রাহক হোন
    ০১ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ৪২৪ বার পঠিত
  • বাসন্তীদেবী খানিকক্ষণ গুম হয়ে বসে রইলেন। তারপর দৃঢ়স্বরে তার রায় ঘোষণা করলেন ----
    ' অসম্ভব ... কক্ষনো না .... এ আমি কখনও হতে দেব না ... কানাই, ওদের সঙ্গে আর যোগাযোগ করার দরকার নেই ... '
    ----- ' আচ্ছা ঠিক আছে মেজদি .... কিন্তু আমারটা ... মানে ... '
    ----- ' ও ... ঠিক আছে। তোমার দক্ষিণা নিয়ে চিন্তা কোর না ... ওটা আমি মিটিয়ে দেব'খন ... '
    কানাই লাজুক মুখে চুপ করে বসে থাকে। দোষটা যেন তারই। কি মুশ্কিল ...

    বিভূতিবাবুর ঘরে একটা মিটিং মতো হল। অনিমেষরা তিনবন্ধু আর বিভূতিবাবু। হ্যাঁ ... কাশী বোস লেনের অসিত ঘোষাল ছিল। ওকে ডাকা হয়েছিল। নাটক টাটকের ব্যাপারে ওর নাকি পূর্ব অভিজ্ঞতা আছে।

    অসিত যখন সিঁড়ি দিয়ে ওপরে উঠতে আরম্ভ করেছে শ্রীলেখা একতলার ঘরের দরজার পর্দা সরিয়ে মুখটা বাড়াল। চকিতে অসিতের সঙ্গে চোখাচোখি হল। শ্রীলেখার ঠোঁটে ঝিলিক খেলে গেল। অসিতও চোখের ইশারায় কিছু বার্তা দিল। এক পলকের ঘটনা। ব্যাপারটা অনিমেষের চোখ এড়াল না, কিন্তু সে আপাতত ব্যাপারটা দেখেও দেখল না। ওরা ওপরে উঠে বিভূতিবাবুর ঘরে গিয়ে ঢুকল। বিভূতিবাবু পরম উৎসাহে দরজা বন্ধ করে দিলেন রুদ্ধদ্বার আলোচনা করার জন্য।
    তার অর্ধাঙ্গিনী মুখ বেঁকিয়ে বললেন, ' বুড়ো বয়সে ভীমরতি .... যাত্রার অধিকারী হচ্ছেন ! শিং ভেঙে বাছুরের দলে .... হুঁ : ... '

    বিভূতিবাবু বললেন, ' অসিত তোমার কি মত ? মানে, যদিও পাড়ারই ব্যাপার, তবু জিনিসটা যাতে বেশ উপভোগ্য হয় সেরকম চাইছি বুঝলে ... '
    অসিত বেশ আতান্তরে পড়ে গেল। তার কোন ধারণা ছিল না যে সে কোন ব্যাপারে এত গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হয়ে উঠতে পারে। এখানে ওখানে টুকটাক অভিনয়ের অভিজ্ঞতা তার হয়েছে ঠিকই, কিন্তু সেটা এমন পর্যায়ের নয় যে সে পরামর্শ দাতা হতে পারে। যাই হোক সে বলল, ' আগে নাটকটা ঠিক করতে হবে ... তারপর রিহার্সাল। পাড়ার নাটক খুব ভাল হলেও চল্লিশ পঁয়তাল্লিশ মিনিটের বেশি কেউ দেখবে না। সেরকম নাটকই বাছতে হবে ...'
    উৎপল বলল, ' অসিতদা ... রবীন্দ্রনাথের ছুটি গল্পটার নাট্যরূপ দিয়ে নামানো যায় না ? '
    ------ ' সেটা তো খুবই ভাল হয়। তবে ওটা বেশ টাফ হয়ে যাবে। বরং বিন্দুর ছেলে বা রামের সুমতি ধরণের কিছু করলে সুবিধে হবে মনে হয় ... '
    উৎপল বলল, ' তা হয়ত হয় ... কিন্তু অত ফিমেল ক্যারেক্টার কে করবে ? মেরে কেটে হয়ত এক দেড়খানা ফিমেল ক্যারেক্টার জোগাড় হতে পারে... '
    বিভূতিবাবু উসখুস করছিলেন। তিনি বললেন, ' কোন ঐতিহাসিক নাটক করলে হয় না। যেমন শচীন সেনগুপ্তর সিরাজদৌল্লা কিংবা ধর ওই .... '
    উৎপল বাধা দিয়ে বলল, ' সেখানেও তো একই সমস্যা .... নারী চরিত্র আছে। বরং লক্ষ্মণের শক্তিশেল করা যেতে পারে ... '
    অসিত এতে সায় দিল না। বলল, ' না না .... ওটা একদম বাচ্চাদের। ঠিক জমবে না। একটু সিরিয়াস কিছু না হলে দর্শক ঠিক নেয় না। করা যখন হচ্ছে ভালভাবেই করা উচিত... '
    ----- ' তা'লে কোনটা সিলেক্ট করা যায়। মন্মথ রায়ের কোন নাটক ... ', উৎপল বলল।
    ------ ' না না .... ওসব চলবে না। সরীসৃপ বলে একটা নাটক আছে। কার যেন লেখা ... নেতাজী সুভাষ ইনস্টিটিউটে একবার দেখেছিলাম। মনকে খুব নাড়া দিয়েছিল। আমার জানা একটা গ্রুপ ওটা করেছিল। নাটকটা আমি জোগাড় করার চেষ্টা করতে পারি। ফিমেল ক্যারেক্টার আছে, তবে তাদের ডায়লগ বাদ দেওয়া যায়। শুধু অ্যাপিয়ার করলেই হবে ... ', অসিত বেশ বিজ্ঞ নাট্যকর্মীর ভঙ্গীতে বলল।
    বিভূতিবাবু বললেন, ' তা নাটকটা কি নিয়ে অসিত ?'
    ----- ' ওই ... আশ্রয়হীন কিছু মানুষ একটা ভাঙাচোরা পরিত্যক্ত বাড়িতে এসে আশ্রয় নিয়েছে। সেখানে তাদের মধ্যে একটা সম্পর্ক গড়ে উঠল।তাদের হাসি কান্না, সুখ দুঃখ ...। লাস্টে, জায়গাটার যে মালিক সে এসে ওদের ওখান থেকে তাড়িয়ে দেয়, ঠিক যেমন কোন জায়গা থেকে আগাছা এবং ওখানে বাসা বাঁধা সরীসৃপদের ঝেঁটিয়ে ফেলে দেয় সেই রকম। ওরা সবাই মিলে আবার চলল নতুন কোন আশ্রয়ের সন্ধানে। দারুণ করেছিল ওরা ... '
    নাটকের আখ্যান শুনে সকলেই মুগ্ধ হল। বিভূতিবাবুর মুখ দিয়ে বেরিয়ে এল, ' বাহ্ .... '।
    সমীরণ এতক্ষণ নির্বাক বসেছিল। সেও বলল, ' এটা করলেই তো হয় .... '
    পাড়ার সামান্য শখের নাটকের প্রস্তুতিপর্বের আলোচনা অকস্মাৎ সিরিয়াস দিকে মোড় নিল।

    শেষ পর্যন্ত, সরীসৃপ-ই ঠিক হল এবং বিভূতিবাবুর ইচ্ছানুসারে তার ঘরেই রিহার্সাল হবে বলে ঠিক হল। অসিতই মোটামুটি পরিচালনার ভার নিল। কিন্তু নাটকের কুশীলব ঠিক করা একটা সমস্যার ব্যাপার।
    অসিত বলল, ' ঠিক আছে ... আমি স্ক্রিপ্টটা জোগাড় করছি। তোমরা লোক দেখ অ্যাকটিং-এর ... তবে পুজোর আগে নামানো যাবে বলে মনে হয় না। করলে ভালভাবে করাই ভাল ... যাতে লোকে আর একটা নাটক করতে বলে ... '
    বিভূতিবাবু পরম উৎসাহে বললেন, ' বিলক্ষণ বিলক্ষণ ... '
    এরপর আরও প্রায় আধঘন্টা গেল। নাটকের সম্ভাব্য অভিনেতাদের একটা প্রাথমিক লিস্ট বানানো হল অনেক ভেবেচিন্তে। তালিকা চূড়ান্ত হবে স্ক্রিপ্ট হাতে পাবার পর। দরজা খোলার পর দলবল ঘর থেকে বেরল।
    বিভূতিবাবুর সহধর্মিনী ভ্রু কুঁচকে, বিদ্রুপে বেঁকা মতো মুখে ওদের দিকে তাকিয়ে রইলেন।
    সিঁড়ি দিয়ে নীচের তলায় পৌঁছনোর মুখে শ্রীলেখা আবার পর্দার ফাঁকে এসে দাঁড়াল। এক পলকের বৈদ্যুতিক দৃষ্টি বিনিময় হল অসিত ঘোষালের সঙ্গে।

    অমিতাভ স্নেহাংশু সুনির্মলদের পত্রিকা শেষ পর্যন্ত বেরিয়ে গেল। নাম নৈঋৎ।
    সুপ্রীতি একদিন কাবেরীদের বাড়িতে গিয়ে ম্যাগাজিনের এক কপি দিয়ে এল।
    ------ ' অমিতাভদের ম্যাগাজিন বেরিয়েছে জানিস তো ... তোকে এক কপি দিতে বলেছে ...'
    সুপ্রীতি ঝোলা থেকে একটা ম্যাগাজিন বার করে কাবেরীকে দিল। বলল, ' তুই তো কানেকশন অফ করে দিলি। যাক, তুই যা ভাল বুঝিস ... এটা তো ঠিকই, সব জিনিস সবার জন্য নয় ... '।
    সুপ্রীতি কি একটা খোঁচা দিল ? কাবেরী কোন উত্তর না দিয়ে ম্যাগাজিনটা নেড়েচেড়ে দেখতে লাগল। সুন্দর ছিমছাম প্রচ্ছদ। ঘিয়ে রঙের কাগজের ওপর নানারঙের নারী পুরুষের ভাঙাচোরা মুখের কোলাজ।
    সম্পাদকীয় এবং নামধাম সংক্রান্ত পাতাগুলো অতিক্রম করে প্রথম পাতায় পৌঁছে একটা ছোট্ট কবিতা দেখতে পেল।

    ছায়ানট
    *******
    আজমল ইসলাম

    ওপার হতে ভরা গাঙের
    ঢেউ লাগে এপারে
    ছায়ানটের ছায়ায় ঢাকে
    দুপারের দোকানপাট গাছের মাথা কারখানার চোঙা।
    জল নিয়ে যায় শত কথা কত ব্যথা,
    স্মৃতি ছলছল নৌকোয়।
    ক্ষতির গোছা লাভের তোড়া ভেসে যায় কলকল পলাতকা।

    হলুদ দুপুর, নরম ভোর, ভরা সন্ধে
    মায়ের আঁচলে বাঁধা মেঠো বকুল গন্ধ,
    বৈঠা বায় উদাসীন
    উজানে পিছানে,
    দিন যায় ..... আবার আসে।

    জীবন মাঝি কোন আঁধার পারে
    গুনছে প্রহর স্রোতের ধারে
    অকুল মাঝির ঘাটে
    কে বা জানে।

    কাবেরী আপনমনেই বলল, কি সুন্দর ...। ছায়ানট তো একটা রাগের নাম। গোধূলিবেলার একটা সুর যেন নদীর স্রোতের মতো বয়ে গেল।
    সে হঠাৎ বলল, ' প্রীতি ওরা কফি হাউসে আবার কবে আসবে ? '
    ----- ' কালই যাবে বলে শুনেছিলাম। কেন তুই যাবি নাকি ? '
    -----' সেইরকমই ভাবছি .... '
    ----- ' হঠাৎ ? '
    ----- ' এই এমনি ... টাইম পাস ... তাছাড়া অমিতাভ সেনের সঙ্গেও দেখা হবে ... ', অকপটে বলল কাবেরী। তার এই মত পরিবর্তনটা কবিতার প্রভাবে হল বলে মনে হয় না।

    ( চলবে )
    ********************************************
    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লড়াকু প্রতিক্রিয়া দিন