ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • হরিদাস পাল  ধারাবাহিক  বিবিধ

  • দূরে কোথায় - ২ 

    হীরেন সিংহরায় লেখকের গ্রাহক হোন
    ধারাবাহিক | বিবিধ | ১৫ মার্চ ২০২২ | ৮৮১ বার পঠিত | রেটিং ৫ (২ জন)
  • যুদ্ধ এসেছে দুয়ারে 

    কয়েক বছর আগে গল্পচ্ছলে মায়াকে বলেছিলাম কোনো  দেশের জাতীয় সঙ্গীত শুরু হয় তার গৌরব আর  গরিমার গাথা দিয়ে। কিন্তু আমি এমন একটি জাতীয় সঙ্গীত চিনি যার প্রথম পঙক্তি বহন করে এক গভীর বিষণ্ণতা – 

    "এখনো পোল্যান্ড হারিয়ে যায় নি "।

    গত সপ্তাহে  কলকাতা বই মেলায় স্টল থেকে স্টলে ঘুরে বেড়াচ্ছি।  এমন সময়ে মায়ার মেসেজ এলো। 

    “বাবা, একটা তথ্য খুঁজে পেয়েছি - কেবল তুমি তার কদর করবে। মনে আছে,  অনেকদিন আগে তুমি আমাকে বলেছিলে পোল্যান্ড যুগে যুগে বিভাজিত, বড়ো দুঃখী দেশ। তাদের  জাতীয় সঙ্গীত শুরু  হয় "এখনো পোল্যান্ড হারিয়ে যায় নি"  এই লাইনটি দিয়ে। আমি এক্ষুনি দেখলাম ইউক্রেনের জাতীয় গাথা শুরু হয় প্রায় একই বেদনার সুরে – 

    "ইউক্রেনের স্বাধীনতা এখনো হারিয়ে যায়নি , ইউক্রেন হারায়নি তার শৌর্য"

    পরবর্তী মেসেজে মায়া লিখেছে , "পোল্যান্ড, ইউক্রেন সমেত সকল  স্লাভিক ও বলকানের দেশগুলির গানে ও গাথায় সেই একই বিষণ্ণতার ছায়া আছে।  রোমানিয়ার জাতীয় সঙ্গীত শুরু হয় "জাগো দেশবাসী, এই প্রাণঘাতী নিদ্রা হতে জাগো"। গত কয়েকশ বছর ধরে কখনও অটোমান, রাশিয়ান অথবা হাবসবুরগ সাম্রাজ্য শাসন করেছে বালটিক থেকে কৃষ্ণ সাগর অবধি বিস্তৃত ভূখণ্ড। স্বাধীনতা তাদের কাছে অনেক দূরের স্বপ্ন থেকে গেছে।"



    সারের হার্টউড হাউস থেকে এ লেভেলে  পদার্থ বিদ্যা,  রসায়ন ও মনস্তত্ব অধ্যয়ন করার পরে হলওয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক নিয়ে পড়ছে মায়া। তার এইরূপ বিষয় পরিবর্তনের জন্য রোদিকা আমাকে দায়ী করে – আমার কাছে সারা দুনিয়ার ইতিহাস ভূগোল রাজনীতির বাজে গল্প শুনতে শুনতে মায়ার এই মতিভ্রম হয়েছে। তার ক্যারিয়ার গোল্লায় গেলো।

    এস্টোনিয়া থেকে ইউক্রেন, মলডোভা অবধি পাঁচটি দেশ ছিল সোভিয়েত ইউনিয়নের অংশ। তাদের সীমানা ছাড়ালেই শুরু  রাশিয়ান প্রভাবিত পূর্ব ইউরোপের ছয়টি দেশ, যাদের প্রতিটি পদক্ষেপ মস্কো দ্বারা নির্ধারিত হয়েছে পঞ্চাশ বছর যাবত। 

    দূরের রণবাদ্য নয়।

    এই যুদ্ধ প্রতি মুহূর্তে ছুঁয়ে যাচ্ছে আমাদের  পরিবারকে এবং  পূর্ব ইউরোপের অনেক বন্ধুজনকে। আমার রোমানিয়ান  স্ত্রীর কাছে সোভিয়েত ইউনিয়নের শাসনকালটা  গল্পে পড়া কাহিনি নয়।  মাখনের জন্য দীর্ঘ লাইন। কাঠের টুল পেতে হোম ওয়ার্ক করেছে সেখানে।  যে কোনো বিরোধী মতামতের মানুষকে পাড়া থেকে অদৃশ্য হয়ে যেতে দেখেছে নিয়মিত। অত্যন্ত গোপনে রেডিও ফ্রি ইউরোপ শুনেছে বাবার পাশে বসে। চাউসেস্কু শহর ভ্রমণে বেরুলে লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে পতাকা নেড়েছে।  সেটাই নিয়ম ছিলো।

    বালটিক অঞ্চলের সঙ্গে আমার  যোগাযোগ অনেকদিনের (আমার নতুন বই উত্তরের আলোয় অচেনা ইউরোপে বইতে তার দীর্ঘ ব্যাখ্যান আছে)। সেখান থেকে যা খবর পাই নিত্যিদিন তা একান্ত শঙ্কার। এস্টোনিয়া ও লাটভিয়াতে রাশিয়ান দূতাবাস সে সব দেশে বসবাসকারী রাশিয়ানদের জানাচ্ছে – তোমরা শিগগির এ সব দেশ পরিত্যাগ করো।  স্থানীয় জনসাধারণ তোমাদের শত্রু তোমাদের জীবন  বিপন্ন। এইরূপ শঙ্কা জাগলেই গৃহযুদ্ধ শুরু হতে পারে। সেটা থামাতে পারে একমাত্র বড়ো ভাই, রাশিয়া। 

    ছোট দেশ এস্টোনিয়া। মাত্র তেরো লক্ষ মানুষের বাস, তার মধ্যে ২৬% রাশিয়ান।  ১৯৪৪ সালে দেশটা দখল করার পর থেকে নিয়মিত ভাবে ষ্টালিন  সে দেশে এবং গোটা বালটিকে রাশিয়ান সাপ্লাই করেছেন। তাদের অনেকের আজও আছে কেবল মাত্র রাশিয়ান পাসপোর্ট।  লাটভিয়াতে রাশিয়ানের সংখ্যা ২৫.৪%। এঁদের মধ্যে বেশির ভাগ মানুষ এস্টোনিয়ান বা লাটভিয়ান ভাষা শেখার কোন প্রয়াস করেন নি।  হাসপাতালের ডাক্তাররা বেশির ভাগ রাশিয়ান।  চিকিৎসিত হতে গেলে রাশিয়ান জানা বাঞ্ছনীয় একথা আমাকে রিগার লারিসা বলেছিল অনেকদিন আগেই। পালদিয়েস (ধন্যবাদ) ছাড়া আর কোন লাটভিয়ান শব্দ সে ব্যবহার করতে শেখেনি। 

    এস্টোনিয়ার তারতুতে (সে বিশ্ব বিদ্যালয়কে বালটিকের  অক্সফোর্ড বলা হয়!) থাকে আমার পরিচিতা ক্রিসটা পিসুকে। সে ভালো রাশিয়ান জানে।  শিখতে  হয়েছিল সেকালে।   হাসপাতালের প্রতীক্ষালয়ে  বসে থাকার সময়ে সম্প্রতি সে শোনে দুজন রাশিয়ান রুগীর আলোচনা – একজন আরেকজনকে বলছেন, পুতিনের উচিত ছিল আরও অনেক আগেই ইউক্রেন দখল করা।  আণবিক বোমার সাহায্য নিতেই বা বাধা কি? অন্যজন জবাবে বলেন, আশা করি বাকি সোভিয়েত ইউনিয়ন আবার এক পতাকার তলায় আসবে। 

    রাশিয়ার সঙ্গে লাটভিয়ার দু শো কিলো মিটার ব্যাপী সীমান্ত।  টেরেহোভা ক্রসিং থেকে রাজধানী রিগা তিনশ কিলো মিটার মাত্র। রাস্তা নিতান্ত সমতল। লাটভিয়ার বিশালতম টিলার উচ্চতা তিনশ মিটার।  

    যে কোনো  জাতীয়তাবাদী রোমানিয়ান মনে করে মলডোভা প্রকৃতপক্ষে রোমানিয়ার অংশ,  রাশিয়ানরা ছিনিয়ে নিয়েছে। সে কথাটা উড়িয়ে দেওয়া যায় না। মলডোভার ধর্ম অর্থোডক্স,  পতাকার রঙ একই,  দেশের ভাষা রোমানিয়ান। লন্ডনের রেস্তোরাঁয় এক মলডোভান ওয়েট্রেসের সঙ্গে কিঞ্চিৎ রোমানিয়ানে বাক্যালাপ করায় সে বালিকা দ্যাশের লোক পেয়েছে ভেবে নিতান্ত অভিভূত হয়ে পড়ে। 

    মলডোভাতে রোদিকার দূর সম্পর্কিত মানুষ বাস করেন। তাদের  ভীতি আজ প্রবল। ইউক্রেন আর মলডোভার মাঝে আছে একটি বিতর্কিত অঞ্চল, খানিকটা বাফার জোনের মতন,  ট্রানসনিস্ত্রিয়া, জনসংখ্যা তিন লক্ষ।  তাদের সম্প্রীতি রাশিয়ানদের প্রতি। ইউক্রেনের ওডেসা যদি রাশিয়ানরা দখল করে, মলডোভা বড়জোর দু ঘণ্টার রাস্তা। সন্ত্রস্ত মলডোভা ইউরোপীয় ইউনিয়নে যোগদানের আবেদন জানিয়েছে। দানিউবের ব-দ্বীপ সেখানে সীমান্ত নির্ণীত করে দুই দেশের মাঝে। বেজায় মশা দেখেছি সেখানে যা সুন্দরবনে দেখিনি। ইউক্রেনের কিছু শরণার্থী সেই পথে নিরাপদ দেশ রোমানিয়া আসছেন। 

    পূর্ব পোল্যান্ডের বিলগড়াইতে আমার এক পরিচিতা, মালগোরজাতা, থাকে।  ভূগোলের শিক্ষিকা। সম্প্রতি তাকে প্রিজনার অফ জিওগ্রাফি বইটি উপহার দিয়েছি – তখন তো জানি না সেটা  নিয়তির পরিহাস হয়ে দাঁড়াবে। তার বাড়ি  থেকে ইউক্রেনের লভিভ (পোলিশে লভভ, আমি  লেমবারগ নামে বেশি চিনি - এককালে ইদিশ ভাষার কেন্দ্র। ইহুদি  রসিকতায় অনেকবার তার নামের উল্লেখ করেছি)  একশ বিশ কিলো মিটার। মালগোরজাতা লিখেছে আতঙ্কে ঘুম নেই। এখান অবধি রাশিয়ানদের পৌঁছুতে ঘণ্টা দেড়েক লাগবে বড়জোর।  ইতিমধ্যে রাশিয়ান মিসাইল তাদের ধারে কাছে অগ্নিকান্ড ঘটিয়েছে। 
     
    পূর্ব ইউরোপে যাদের বয়েস আজ চল্লিশের বেশি তাদের মনে আছে যে সোভিয়েত ইউনিয়নকে,  তারই  পদধ্বনি শুনছেন তাঁরা প্রতিদিন। 

    দূর দিগন্তের অশনি সঙ্কেত নয়। 

    যুদ্ধ আমাদের দুয়ারে। 

     ১৫ মার্চ, ২০২২ 
  • ধারাবাহিক | ১৫ মার্চ ২০২২ | ৮৮১ বার পঠিত
  • আরও পড়ুন
    নাইটো - একক
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • hu | 129.1.127.109 | ১৫ মার্চ ২০২২ ২১:৩৯504909
  • পূর্বতন সোভিয়েত দেশগুলোর কোনো একটায় জন্ম এবং জাতিগত ভাবে রুশি নয় এমন একটা মানুষকেও আমি আজ পর্যন্ত দেখলাম না যার সোভিয়েত ইউনিয়ন নিয়ে কিছুমাত্র মোহ আছে।
  • Abhyu | 198.137.20.25 | ১৫ মার্চ ২০২২ ২১:৫১504910
  • হুচি, আমাদের এক ছাত্রী আছে, ফ্রেশম্যান, সবে বেলারুশ থেকে এসেছে - সেন্ট পিটার্সবার্গ বলতে অজ্ঞান। খুবই রুশভক্ত মনে হয়। এখানে পাবলিক লাইব্রেরীতে তারকোভস্কি পাওয়া যায় শুনে জানতে চাইল রাশিয়ান ভাষার বই পাওয়া যাবে কিনা :)
  • hu | 129.1.127.109 | ১৫ মার্চ ২০২২ ২২:২২504913
  • বেলারুশের কাউকে চিনি না। তবে রুশ সাহিত্যের প্রতি ভালোবাসা মনে হয় সর্বজনীন। ইংরিজি সাহিত্যের প্রতি ভালোবাসা যেমন ইংরেজপ্রীতির সাথে সমর্থক নয়।
  • | ১৬ মার্চ ২০২২ ০০:০৭504916
  • হীরেনবাবুর সাথে চাক্ষুষ আলাপ হওয়াটা বইমেলার একটা চমৎকার ঘটনা। 
     
    এই লেখটাও খুবই ভাল লাগছে।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যুদ্ধ চেয়ে প্রতিক্রিয়া দিন