• বুলবুলভাজা  খ্যাঁটন  খানাবন্দনা  খাই দাই ঘুরি ফিরি

  • চাষার ভোজন দর্শন – ৬ষ্ঠ

    সুকান্ত ঘোষ
    খ্যাঁটন | খানাবন্দনা | ০৫ আগস্ট ২০২১ | ১০৬৪ বার পঠিত | রেটিং ৫ (২ জন)

  • পামকিন স্যুপ

    সামনে যে স্যুপটা নামিয়ে দিয়ে গেল সেটা দেখে বউকে বললাম, “এতদিনে বুঝতে পারছি যে আমাদের জমির চুন লাগানো পচা কুমড়োগুলো কিনে নিয়ে গিয়ে গৌরাঙ্গকাকা কী করত”!

    বউ দেখলাম প্রথমে কিছু না বলে নিজের মনেই মাথা নাড়ালো কিছুক্ষণ। এটা হচ্ছে গিভ-আপ এর সিম্বল, গোদা বাংলায় যাকে বলে “একে নিয়ে আর পারা যায় না”, আর বাগধারায় হিসেব করলে “ঢেঁকি স্বর্গে গেলেও ধান ভানে”। এর পর প্রশ্ন এল – “গৌরাঙ্গকাকু কে”?


    এই পামকিন স্যুপটা বাচ্ছা ছেলের পাতলা পায়খানার মত হলুদ দেখতে হলেও খেতে দারুণ ছিল

    আমি মহা উৎসাহে বলতে শুরু করলাম – “আরে তোমার মনে নেই – ওই যে কুমড়ো পাইকের গৌরাঙ্গ কাকু গো! চোট খেয়ে দাগি হয়ে যাওয়া কুমড়োগুলো যেগুলো কেউ কিনতে চাইত না আর ঠাকুমা বসে বসে চুন লাগাতো – সেই কুমড়ো একমাত্র কিনত গৌরাঙ্গ-কাকু। আজ বুঝতে পারলাম সেই পচা কুমড়ো নির্ঘাত বিদেশে পাচার করত এমন স্যুপ বানাবার জন্য”।

    “এই রোমান্টিক সেট-আপে ডিনার করতে এসে তোমার পচা কুমড়োর কথা মনে আসছে! ধন্য চাষা মাইরি”।

    আমি আর কী বলি – সেদিন গেছি ব্রুনাই দেশের এম্পায়ার হোটেলে রাতে ডিনার করতে। এম্পায়ার হোটেলের ব্যাপারই আলাদা – শুধু নামে নয়, সত্যিকারের রাজকীয় ব্যাপার এখানে। আর শুধু তো হোটেল নয়, তার সঙ্গে বিশাল গলফ কোর্স, সিনেমা হল, বোলিং-এর জায়গা, বিশাল কনভোকেশন হল, এই সব মিলিয়ে হয়ে উঠেছে এম্পায়ার হোটেল অ্যান্ড কান্ট্রি ক্লাব।

    এম্পায়ার হোটেল এবং কান্ট্রি ক্লাব মিলিয়ে মোট জায়গা ১৪৫ একর (৪৩৫ বিঘা)! সেই হোটেলের রুম সংখ্যা ৫২০ মতন। ডিলাক্স রুম, বিশাল বিশাল ভিলা ছাড়াও আছে ৬৬৫ বর্গ মিটার জুড়ে ‘এম্পায়ার সুইট’।, একদম পেন্টহাউসের সুইটে আছে প্রাইভেট সুইমিং পুল, সওনা এমনকি পুল রুমে মুভি প্রোজেক্টার পর্যন্ত।


    এম্পায়ার হোটেলের ধারে সাউথ-চায়না সি-তে নেমে আসছে সন্ধ্যা

    তো আমরা মাঝে মাঝে গিয়ে থাকতাম এই হোটেলে – আর অনেক সময় না থাকলেও রাতে ডিনার করতে যেতাম। এখানে ডিনারের একটা অন্যতম আকর্ষণ ছিল ‘পানতাই রেস্টুরান্ট’ যেখানে প্রত্যেক শনিবার সি-ফুড বাফে পাওয়া যেত। একদম মারকাটারি হিট সে জিনিস। পানতাই রেস্টুরান্ট একদম সমুদ্রের ধারে - তবে এত বড় হোটেলে কেবল একটা রেস্টুরান্ট থাকবে এমন তো নয়! এই পানতাই রেস্টুরান্ট ছাড়াও এদের বিখ্যাত ছিল একটা জাপানি, একটা চিনা এবং একটা ইতালিয়ান রেস্টুরান্ট।

    আজ যে দিনের গল্প করছি সেদিন এমনিই ডিনার করতে গিয়েছিলাম – এই হোটেলের পাশে সমুদ্রের বিকেল হয়ে ওঠে বড় মোহময়। তার উপর আবার সেইদিন ছিল পূর্ণিমা – ঘুরতে ঘুরতে বেশ রাত হয়ে এল – সমুদ্রের ধারে বসে থাকতে এত চমৎকার লাগছিল যে উঠতে ইচ্ছে করছিল না। কিন্তু ওদিকে আবার বাড়ি ফিরতে হবে।


    এম্পায়ার হোটেলের ধারে সাউথ-চায়না সি-তে নেমে আসছে সন্ধ্যা
    - উঠেছে পূর্ণিমার চাঁদ

    সেদিন উইকএন্ড ছিল না তাই ভিড় কম, রেস্টুরান্টে রিসার্ভেশনের চাপ নেই। অমৃতাকে জিজ্ঞেস করলাম, তাহলে কোন রেস্টুরান্টে খাবে আজকে? পানতাই রেস্টুরান্টেই তো খাই বেশির ভাগ সময়ে। এবার অন্য কিছু ট্রাই করা যাক – চাইনিজ, জাপানিজ আর ইতালিয়ানের মধ্যে যে কোনটা বেছে নেবে, আমি বুঝতেই পারছিলাম।

    মেন বিল্ডিং-এ ইতালিয়ান রেস্টুরান্ট ‘স্প্যাগেতিনি’-র সামনে এলাম। বাইরে থেকে দেখে অমৃতাকে বললাম, “দ্যাখো তোমাকে রেস্টুরান্টে খেতে যাবার ব্যাপারে যে ট্রেনিং দিয়েছি, সেই হিসেব মত এখানে ঢোকা উচিত নয়”।

    বউ অবাক – “রেস্টুরান্টের ব্যাপারে আবার কী ট্রেনিং দিলে আমায় তুমি?”
    -কেন আমি বলি নি তোমায় যে রেস্টুরান্ট খোলার অনেক পরেও ফাঁকা থাকে, সেখানে নৈব নৈব চ
    -খাবার দেখলেই তোমার মাথার ঠিক থাকে না! কী ট্রেনিং দেবে? রোমান্টিক ডিনারে গিয়ে তোমার যাবতীয় রোমান্স খাবারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকে!




    এম্পায়ার হোটেলের 'স্প্যাগাতিনি' নামে ইতালিয়ান রেস্টুরান্ট

    আমি আর কি বলি, নিখাদ সত্যি বলেছে বউ – তাই একটু মুচকি হাসি দিলাম হালকা মাথা নিচু করে। কথা না বাড়িয়ে ভিতরে গিয়ে বসাই ঠিক করলাম। ভিতরে ঢুকে দেখতে পেলাম কোণের দিকে মধ্যবয়স্ক আর এক কাপল। সেই দেখে অমৃতার খুব ফুর্তি –

    -বললাম না এটা খুব ফেমাস রেস্টুরান্ট?
    -সে তো বুঝতেই পারছি, চল্লিশটা টেবিলের মধ্যে আমাদের নিয়ে দুটো টেবিল ভর্তি!
    -আহা, আজ উইক-এন্ড নয় বলে বেশি লোক নেই দেখছ না!

    কথা কোন দিকে গড়াচ্ছে বুঝতে পেরে চুপ করে দিলাম – আবার এখানে উইক-এন্ডে আসার প্ল্যান হচ্ছে!
    যাই হোক, খাবারের অর্ডার দেওয়া হল। আগে যেমন বলেছি এম্পায়ার হোটেলের ব্যাপার স্যাপার আলাদা – রুপোর প্লেটিং এবং অনেক সময় রুপোর কাটলারি ব্যবহার করে এরা – বিশেষভাবে এম্পায়ার হোটেলের জন্যই বানানো ।


    এটা কি স্যালাড হয়েছে? এ তো মুলো আর বাঁধাকপি কুচিয়ে দিয়েছে মনে হচ্ছে

    প্রথম কোর্সে এল সেই বিখ্যাত হলুদ পামকিন স্যুপ -
    -আমাকে তো পচা কুমড়োর স্যুপ দিয়েছে পরিষ্কার, আর তোমার ওটা স্যালাড হয়েছে? এ তো মূলো আর বাঁধাকপি কুচিয়ে দিয়েছে মনে হচ্ছে
    -তুমি মুলো কোথায় দেখলে, তাছাড়া দেখছো না এক্সপেনসিভ ব্লু চিজ ছড়িয়েছে! আর তাছাড়া তোমারটা শুধু পামকিন স্যুপ তো নয়, ওই তো একটা প্রন উঁকি মারছে দেখতে পারছি
    -আর প্রন! বুঝতে পারছ না, সামনের সমুদ্র থেকে ধরে এনে ভেজে দিয়েছে!

    আর কথা না বাড়িয়ে স্যুপ-এ মনোযোগ দিলাম। আবার বউয়ের উক্তি –
    -একটু আস্তে ঝোল টানো! যা শব্দ করে স্যুপ টানছ, কেমন সব তাকিয়ে দেখছে এদিকে ওয়েটার-ওয়েট্রেস গুলো
    -দেখতে চাইলে দেখতে দাও! কাজ তো কিছু নেই দেখছি, দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে বোর হচ্ছিল, যদি আমাকে দেখে ওদের সময়টা কেটে যায় তোমার সমস্যা কী?

    বউ নিজের খাবারে মন দিল – স্টার্টার শেষে এল মেন কোর্স। অমৃতা নিয়েছিল রোস্টেড চিকেন টাইপের কিছু – রেস্টুরান্টের দাবি ছিল সেটা নাকি বেবি চিকেন! সাথে কিছু গার্লিক পট্যাটো, রকেট স্যালাডের ছিটে, রোজমেরি, ফ্যানেল ইত্যাদি। আমার ছিল গ্রিলড স্টেকের মত কিছু একটা – হালকা সস, আলুভাতের সঙ্গে।


    ডেজার্টে ছিল পিস্তাসিও বিস্কিটের সাথে স্পেশাল আইসক্রিম, লেমন পাই এবং টার্ট ইত্যাদি।


    খাবার নিয়ে কমপ্লেন করার কিছু ছিল না – একদম ঝক্কাস খাবার। এমনকি পামকিন স্যুপটা বাচ্ছা ছেলের পাতলা পায়খানার মত হলুদ দেখতে হলেও খেতে দারুণ ছিল। আর ডেসার্টের কথা কী বলব – নিমেষে উড়িয়ে দিলাম। এবার টুক করে প্লেট থেকে কাঁটা-চামচটা সরিয়ে চারপাশটা দেখে নিলাম। আশে পাশে কেউ নেই দেখে মুখটা সবে প্লেটের কাছে নামিয়ে আনব ভাবছি প্লেটটা চাটব বলে, অমৃতা আমার ধান্দা বুঝতে পেরে হাঁই-হাঁই করে উঠল – “মান সম্মান ডোবাবে নাকি”?

    নিচের ছবিতে ডেসার্টের প্লেটে যে ঝোলটুকু পড়ে আছে সেটা বউ সেদিন বাধা দিয়েছিল বলেই!



  • বিভাগ : খ্যাঁটন | ০৫ আগস্ট ২০২১ | ১০৬৪ বার পঠিত | রেটিং ৫ (২ জন)
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Amit | 193.116.77.177 | ০৫ আগস্ট ২০২১ ১৬:৫১496464
  • এই হোটেল টাতে মাত্তর একবার ই যেতে পেরেছিলাম। তারপরেই ব্রুনেই থেকে পাততাড়ি গুটোনোর ডাক এসে গেলো। জব্বর আলিশান জায়গা মাইরি। 

  • শিবাংশু | ০৫ আগস্ট ২০২১ ২০:৩৫496470
  • জীয়ো, 


    মেয়েটাকে হেব্বি পরেশান করেছো তুমি ...

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লাজুক না হয়ে মতামত দিন