এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • বুলবুলভাজা  ধারাবাহিক  বিবিধ  খাই দাই ঘুরি ফিরি

  • ভ্রান্তিপর্বত শান্তিতীর্থ

    নন্দিনী সেনগুপ্ত
    ধারাবাহিক | বিবিধ | ২৬ এপ্রিল ২০২৪ | ৬১৬ বার পঠিত | রেটিং ৫ (১ জন)


  • এই মুহূর্তে বার বার একটা নাম শোনা যাচ্ছে। সোনাম ওয়াংচুক। অনেকেই হয়তো বলবেন যে লাদাখ নিয়ে নতুন রাজনীতির আবর্ত তৈরি হচ্ছে এই নামটিকে ঘিরে। কিন্তু যে আন্দোলন শুরু হয়েছে, সেটা সফল হলে এবং বিভিন্ন জায়গায় আরও কয়েক দশক আগে শুরু হলে হিমালয়ের প্রকৃতি কিছুটা হলেও বাঁচত।

    হিমালয়ের সামগ্রিক ভূ-প্রকৃতি তথা বাস্তুতন্ত্র এক সূক্ষ্ম ভারসাম্যের সুতোয় ঝুলছে বহুযুগ ধরেই। যদি লাদাখের উদাহরণ ধরি, সেখানে কিছুদিন আগেও সেখানে বসবাসরত জনজাতিদের জীবিকা ছিল মূলত অল্প স্বল্প চাষাবাদ এবং গবাদি পশুপালন ইত্যাদি। ট্যুরিজম খুব জনপ্রিয় ছিল না ব্যাপক অর্থে। কারণ কঠিন আবহাওয়া। এই আবহাওয়ার কারণেই চাষাবাদ এবং পশুচারণের জন্য প্রয়োজনীয় জমি খুব বেশি নয় লাদাখে। মাটির সবুজ অংশ বেশি নয়। স্নো লাইন শুরু হওয়া মাত্র সেখানে আর গাছপালা জন্মাবে না। অর্থাৎ যেটুকু সবুজ অংশ রয়েছে, সেখানেই করতে হবে চাষাবাদ এবং পশুচারণ। আবার এই অঞ্চলে স্নো-লেপার্ড যদি হ্রাস পায়, সেটার প্রভাব বাস্তুতন্ত্রে পড়বে। তাহলে গবাদি পশু অতিরিক্ত বেড়ে যাবে এবং তারা চারণভূমির সব সবুজ খেয়ে শেষ করে দেবে। এই সবুজ তৃণভূমির প্রতিটি তৃণখণ্ড, প্রতিটি গাছের শিকড় আবার পাহাড়ের মাটির ঢালের স্থিতিশীলতা ঠিকঠাক ধরে রাখবার জন্য ভীষণ জরুরি। অর্থাৎ এই অঞ্চলের পরিবেশ ও বাস্তুতন্ত্রের ভারসাম্যের এই সূক্ষ্ম সুতোটা ছিঁড়ে গেলে এই ভূ-প্রকৃতির ধ্বংস অনিবার্য। জনঘনত্বের তুলনায় এই ভূমিসম্পদ লাদাখের ক্ষেত্রে খুব বেশি এমন বলা যাবে না। কারণ ভূমির মধ্যে একটা বড় অংশ সবুজ নয়। এবার সবুজ জমির একটা অংশ যদি শক্তি উৎপাদনের জন্য সোলার প্যানেল দিয়ে ঢেকে দেওয়া হয়, সেই উন্নয়ন কিন্তু জনজাতির জন্য অর্থহীন। অনেকেই বলবেন যে সোলার প্যানেল তো পরিবেশবান্ধব শক্তির আকর। জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করলে নদী যেভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়, এক্ষেত্রে অন্তত সেটা হবে না। আসলে উন্নয়ন বলতে সভ্য মানুষের মনে যে ধারণা রয়েছে, সেই ধারণার বশবর্তী হয়ে হিমালয়ের উন্নয়নে যদি মানুষ ব্রতী হয়, তিনি হিমালয়ের বিরাট ক্ষতি করে দেবেন। হিমালয়ের বাস্তুতন্ত্র এবং পরিবেশ সম্পর্কে ধারণা ছাড়াও বুঝতে হবে আঞ্চলিক মানুষ, জনজাতি তাদের প্রকৃত চাহিদা কী? উন্নয়নের ফলে যদি জনজাতির অস্তিত্বই ধীরে ধীরে বিলুপ্তির দিকে যায়, তাহলে সেই উন্নয়ন আসলে ঠিক কোন মানুষদের জন্য?

    অতীতে লাদাখে ট্যুরিজমের বাড়বাড়ন্ত ছিল না। হোটেল, গেস্ট হাউস ইত্যাদির সংখ্যা ছিল অপ্রতুল। ফলে জীবিকা হিসেবে ট্যুরিজমের উপরে স্থানীয় অধিবাসীদের নির্ভরতাও ছিল না। সময় বদলাচ্ছে। অনেক বেশি মানুষ টুরিস্ট হিসেবে ভিড় জমাচ্ছেন লাদাখে। প্রতিকূল আবহাওয়াতে জীবনের ঝুঁকি নিয়েও মানুষ চলে যাচ্ছেন বেড়াতে, ট্রেকিং করতে। ফলে টুরিস্টদের থাকবার উপযুক্ত হোটেল তৈরি হচ্ছে জোরকদমে। পাহাড়ের ঢালে বিল্ডিং বানানোর ঝুঁকি থাকেই ধসপ্রবণ, ভূমিকম্পপ্রবণ এলাকায়। সেসব ঝুঁকি উড়িয়ে কাজ চলছে। ট্যুরিস্ট আগমন বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে সেখানে ঘটছে অদ্ভুত কিছু সমস্যা। সবচেয়ে বড় সমস্যা হল জল।

    জলের সমস্যা লাদাখে নতুন নয়। লাদাখ শুষ্ক অঞ্চল; বলা হয় ‘শীতল মরু’। ২০১০ সালে কুলুম অঞ্চলে মেঘ ভাঙা বৃষ্টিতে ভয়াবহ বন্যা হয়। হিমবাহ-পুষ্ট নদীগুলি ফুলে ফেঁপে ভাসিয়ে দিয়েছিল গ্রাম। একদিন সরে গেল বন্যার জল। কিন্তু হিমবাহ অনেকটা সরে গেছে পিছনে। নদীগুলি শুকিয়ে যাচ্ছে। অবধারিত ফল খরা। ২০১২ সাল থেকেই দলে দলে মানুষ বেরিয়ে যেতে থাকে গ্রাম থেকে। জল ছাড়া মানুষ কী ভাবে বাঁচবে? ভারতের ভূ-বিজ্ঞান মন্ত্রকের তথ্য অনুযায়ী এই অঞ্চলে, অর্থাৎ হিন্দুকুশ হিমালয়ে, বছরে প্রায় ১৫ মিটার করে হিমবাহ গলে গলে পিছিয়ে যাচ্ছে। আপার কুলুম সম্পূর্ণ পরিত্যক্ত। কোনো মানুষ সেখানে থাকে না। লোয়ার কুলুমে কয়েকঘর এখনও আছে। অল্পস্বল্প যে ফোরাতগুলো জীবিত আছে এখনও, সেই ফোরাত বা ঝর্নার জলে তারা তাদের দৈনন্দিন চাহিদা পূরণ করে। কিন্তু সেটা কতদিন তারা করতে পারবে, সেই বিষয়ে সন্দেহ আছে। এত সমস্যার মধ্যেও কিছুই কি আশার কথা নেই? আছে। ২০২২ সালে লাদাখবাসীরা সোনম ওয়াংচুকের দেখানো পথে কৃত্রিম হিমবাহ নির্মাণ করতে সক্ষম হয়। তবে সে কাজ অত্যন্ত পরিশ্রমসাধ্য। নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষার লড়াইতে তারা সে কাজ করেছিল। কিন্তু এমন অবস্থায় সেই অঞ্চলে ট্যুরিস্ট বেড়ে যাবার অর্থ হল সেখানে জনসংখ্যার চাপ বেড়ে যাওয়া। এই ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার জন্য প্রয়োজনীয় যথেষ্ট জল লাদাখে পাওয়া মুশকিল। ট্যুরিস্টদের সঠিক পরিষেবা দিতে হলে স্বাভাবিক কারণেই সেখানকার অধিবাসীদের জন্য বরাদ্দ জলে টান পড়বে। সেখানকার অধিবাসীরা সেইজন্য খোলা মনে সব সময় ট্যুরিস্টদের স্বাগত জানাবেন, এমনটি না ভাবাই ভালো।

    লাদাখের আরেকটি যে সমস্যা বড় আকার ধারণ করতে চলেছে, তা হল দূষণ। অতীতে রাস্তা থাকলেও খুব বেশি গাড়ির আনাগোনা ছিল না। সীমান্ত সুরক্ষার জন্য সেনাবাহিনীর গাড়ির যাতায়াত ছিল সেই পথে। এখন জায়গায় জায়গায় সেই পথ চওড়া করা হচ্ছে। বাড়ছে ট্যুরিস্টদের গাড়ির আনাগোনা। দূষণহীন যে ঝকঝকে আকাশ দেখা যেত লাদাখে, সেই নীলের গায়ে কি লাগছে ধূসরতা? হ্যাঁ, সেটা খুবই স্বাভাবিক। গাড়ির সংখ্যা বাড়লে সেই গাড়ির ধোঁয়া থেকে বাতাস দূষিত হবেই।

    এছাড়া যে সমস্যা লাদাখে বিশাল আকার ধারণ করছে, তা হল বর্জ্য। সুদূর অতীতে লাদাখের জনজাতি বর্জ্য রিসাইকেল করে ফেলত। অর্থাৎ প্রায় বর্জ্যবিহীন জীবন যাপন করত। আবহাওয়ার কারণে, জলের অপ্রতুলতার কারণে তাদের বর্জ্য সামলানোর পদ্ধতি ছিল সম্পূর্ণ আলাদা। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ট্যুরিস্ট বেড়েছে। পাল্লা দিয়ে বর্জ্য বেড়েছে। এই বিপুল পরিমাণ বর্জ্য সামলানোর পরিকাঠামো লাদাখে নেই বললেই চলে। গ্রীষ্মে ট্যুরিস্ট সিজনে অস্বাভাবিক বেড়ে যায় প্লাস্টিক বর্জ্য। সারা পৃথিবীর মানুষ এসে ভিড় জমাচ্ছে। জল খেয়ে যে খালি বোতলটা ট্যুরিস্ট জঞ্জালের বাক্সে ফেলে দিয়ে যাচ্ছেন, সেই একটা বোতলও যে হিমালয়ের পরিবেশ দূষণের জন্য দায়ী, এই বোধ কবে জাগ্রত হবে সভ্য মানুষের মনে? আসলে মানুষ নিজের কাঁধ থেকে দায় ঝেড়ে ফেলে বলে যে সরকার কেন সিস্টেম তৈরি করেনি বর্জ্য সামলানোর জন্য? একটা সিস্টেম গড়ে উঠতেও সময় লাগে এবং সেই সিস্টেম তো মানুষের দ্বারাই তৈরি। অলীক জাদুকাঠি লাগানো কোনো যন্ত্র এসে সব বর্জ্য ছুমন্তরে উড়িয়ে রাতারাতি হাওয়া করে দিতে পারবে না। শুধু তো পাহাড় নয়, পৃথিবীর যে প্রান্তেই মানুষ থাকুক না কেন, দূষণ নিয়ন্ত্রণে নিজস্ব দায় সে এড়িয়ে যেতে পারে না।

    তাহলে কি হিমালয়ের পরিবেশ বাঁচানোর জন্য সব উন্নয়ন বন্ধ করে দিতে হবে? না, সেটাও সঠিক কথা নয়। আসলে চটজলদি উন্নয়নের মোহের ফাঁদ এড়িয়ে চলতে হবে। যে উন্নয়ন হিমালয়ের প্রকৃতিকে নষ্ট করবে না, অথচ মানুষের জীবনের মান ভালো করবে, এমন সমাধান খুঁজে বের করা জরুরি। প্রকৃতির হাত ধরতে হবে। রাজনীতির কারবারীদের মধ্যে চটজলদি কিছু করে দেখানোর নেশা থাকে, যাতে মানুষকে রাতারাতি প্রভাবিত করা যায়। সেও যে একরকম চালাকি, তাতে সন্দেহ নেই। হিমালয়ের প্রকৃতিতে এমন চালাকির কোনো জায়গা নেই। ফলে রাজনীতির পন্থা যেমনই হোক, তা যদি হিমালয়ের প্রকৃতি এবং চাহিদা বুঝে চলতে না পারে, সেই পথও বেশিদিন সুগম থাকবে না।



    ক্রমশ
    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক।
  • ধারাবাহিক | ২৬ এপ্রিল ২০২৪ | ৬১৬ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Prativa Sarker | ২৭ এপ্রিল ২০২৪ ২০:১০531091
  • চলুক। খুব আগ্রহ নিয়ে পড়ছি।
  • Naresh Jana | ২৮ এপ্রিল ২০২৪ ১৬:১৪531139
  • বেশ লাগছে। অন্য ভাবে দেখা এই লাদাখ আমাদেরও ভাবতে সাহায্য করছে। এগিয়ে চলুক।
  • জয়ন্ত ঘোষ | 45.249.164.146 | ২৮ এপ্রিল ২০২৪ ২০:২৫531155
  • ভালো বিশ্লেষণ, তবে চিন্তাশীল লেখিয়েরা সমাধান সূত্র নিয়ে আরো কিছু সময় দেবেন এটাই বাঞ্ছনীয়। 
  • জয়ন্ত ভট্টাচার্য | 117.245.56.38 | ২৯ এপ্রিল ২০২৪ ০৯:৪০531183
  • চমৎকার লেখা! 
  • অমিতাভ চক্রবর্ত্তী | ২৯ এপ্রিল ২০২৪ ২৩:০৯531228
  • পড়ছি, ভাল লাগছে।
     
    সমস্যাগুলো একরৈখিক নয় এবং অনেক সময় পরস্পর বিপ্রতীপ। একটির একরকম সমাধান অন্য আরেকটির কোন সমাধানকে কঠিন করে তোলে। পরিস্থিতি আসলেই জটিল।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খেলতে খেলতে মতামত দিন