• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • গাজা-র প্রতিবাদ ঘিরে শোরগোল এবং মৌনতা বিষয়ক শেষ কিছু কথা

    Animesh Baidya
    বিভাগ : ব্লগ | ১৯ জুলাই ২০১৪ | ৬৩ বার পঠিত
  • এই তো কিছু দিন আগের কথা। পার্ক-স্ট্রিট ধর্ষণ কাণ্ডের পরের কথা। বিশিষ্ট নাট্যকার এবং এই মুহূর্তে তৃণমূল কংগ্রেস থেকে নির্বাচিত সাংসদ অর্পিতা ঘোষের ওই মন্তব্যটা মনে আছে আশা করি সকলের। তিনি সব ধর্ষণকে এক করে না দেখে তার প্রেক্ষিত দেখার কথা বলেছিলেন। সঙ্গে সঙ্গে তা নিয়ে অনেক হৈ-চৈ হয়েছিল। ক্ষোভে ফেটে পড়েছিলাম আমরা। কি ছিল আমাদের বক্তব্য? ধর্ষণ, ধর্ষণই। সে ক্ষেত্রে প্রেক্ষিতের প্রশ্ন আসাটাই নিরর্থক। এবং এই ঘটনার প্রতিবাদ করা যে কোনও মানুষেরই কর্তব্য। এখানে রাজনীতি খোঁজাটাও ঘৃণ্য। রাজনীতির পরিচয় দূরে সরিয়ে একজন মানুষ হিসেবেই প্রতিবাদ করা উচিত এই ঘটনার। তাই প্রতিবাদ না করে এই ঘটনায় প্রেক্ষিত খুঁজতে যাওয়াটা অমানবিক এবং ঘৃণ্য।

    ধর্ষণ যেমন ঘৃণ্য একটি ঘটনা, ঠিক তেমনই ঘৃণ্য নিরপরাধ মানুষকে হত্যা কিংবা তার উপরে নেমে আসা কোনও নির্যাতনের ঘটনাও। কিন্তু সে দিন অর্পিতা ঘোষের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সরব হওয়া লোকেরা অনেকেই আজ একেকজন অর্পিতা ঘোষ হয়ে উঠেছেন। দুর্ভাগ্যজনক হলেও এ কথা সত্যি। গাজায় ইসরায়েলের আক্রমণে নিরপরাধ মানুষের মৃত্যুর ঘটনায় একদল প্রতিবাদ না করে বরং এই মৃত্যুর প্রেক্ষিত নিয়ে আলোচনায় ব্যস্ত। মানে এই ঘটনার পিছনে হামাসের কতোটা দায় এবং কেন এই ঘটনা ঘটারই ছিল তার পক্ষে যুক্তি সাজাতে ব্যস্ত তারা। অর্পিতা ঘোষের মতোই প্রতিবাদ জানানোর থেকে প্রেক্ষিত খোঁজাটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ তাদের কাছে।

    আর উল্টো দিকে আছে আরেক দল। যারা প্রতি মুহূর্তে প্রশ্নের মুখে পড়ছেন যে, আজ গাজায় নিহত মানুষদের নিয়ে এত প্রতিবাদ করলেও বিভিন্ন দেশে ইসলামী মৌলবাদী ও সন্ত্রাসবাদীদের হাতে নিহত এতো এতো মানুষদের মৃত্যুতে তারা কেন বরাবরের নীরব। এবং অদ্ভুত ভাবে সেই মানবিকতার ধ্বজাধারীরাও সেই প্রেক্ষিতের গল্পই শোনাচ্ছেন। ওই মৌলবাদী এবং সন্ত্রাসবাদীদের হাতে নিহত এতো এতো মানুষের মৃত্যুতে প্রতিবাদ না জানিয়ে তারা বরং তাদের মৃত্যুর প্রেক্ষিত খুঁজে বেড়াচ্ছেন। ওই সন্ত্রাসবাদীরা কাদের হাতে সৃষ্ট, কারা রয়েছেন এই সবের পেছনে...ইত্যাদি ইত্যাদি। এখানেও সেই অর্পিতা ঘোষের মতোই নিরপরাধ মানুষের হত্যায় প্রতিবাদ জানানোর থেকেও তার প্রেক্ষিত খোঁজাটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ তাদের কাছে।

    কিন্তু দুটো ক্ষেত্রেই কিন্তু হত্যা হত্যাই। প্রতিবাদ করতে প্রেক্ষিতের প্রশ্নটাই নিরর্থক। রাজনীতির পরিচয় দূরে সরিয়ে একজন মানুষ হিসেবেই প্রতিবাদ করা উচিত যে কোনও হত্যার। তাই প্রতিবাদ না করে প্রেক্ষিত খুঁজতে যাওয়াটা অমানবিক এবং ঘৃণ্য।

    এবং যেটা বুঝলাম। অর্পিতা ঘোষরা একা নন। প্রেক্ষিত বদলালে হাজারো হাজারো অর্পিতা ঘোষের জন্ম হয় আমাদের মধ্যে থেকেই।

    শেষ কথা। যা চিরকাল বলব। সব হত্যাই ঘৃণ্য, সব হত্যাই প্রতিবাদযোগ্য। ধর্মের নামেই হোক বা রাষ্ট্রের নামে।
  • বিভাগ : ব্লগ | ১৯ জুলাই ২০১৪ | ৬৩ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1 | 2
  • সে | 203.108.233.65 (*) | ২৪ জুলাই ২০১৪ ০৭:৩৭74493
  • নাঃ কিছু লিখব না।
  • Animesh Baidya | 123.21.72.148 (*) | ২৪ জুলাই ২০১৪ ০৯:০৮74494
  • a x, আমার আপনার প্রতি অনেকগুলো প্রশ্ন ছিলো। সেগুলোর তো কোনও উত্তর পেলাম না আর। উত্তর পেলে ভালো লাগতো।
  • Animesh Baidya | 123.21.78.116 (*) | ২৪ জুলাই ২০১৪ ১২:১৪74483
  • আপনাকে একটু খেই ধরিয়ে দিই। এই আলোচনাটা যে পোস্টের সূত্রে উঠে এসেছে সেটা যদি আরও এক বার পরে নেন আপনি। কি ছিল সেখানে? আজকের গণপরিসরের আলোচনায় দু ধরনের মানুষদের নিয়ে কথা। যারা একই রকম ব্যবহার করছেন এবং একই ধরনের যুক্তি সাজাচ্ছেন। এমনটাও দাবি করছি না যে, শুধুমাত্র এই দুই ধরনের লোকেরাই শুধু কথা বলছে। এমন কোনও বাইনারির ধারনাও বলছি না। এবং সেই গণপরিসরের আলোচনায় ইসলামিক ও নন-ইসলামিক ভাগটা তৈরি হচ্ছে। আমি তাকে সংজ্ঞায়িত করছি না। শুধুমাত্র প্রবণতার কথা বলেছি। সেই আলোচনার শেষে আমার বক্তব্য কী ছিল? আমি মূলত কী বার্তা রাখতে চেয়েছিলাম?

    'শেষ কথা। যা চিরকাল বলব। সব হত্যাই ঘৃণ্য, সব হত্যাই প্রতিবাদযোগ্য। ধর্মের নামেই হোক বা রাষ্ট্রের নামে।'

    এখানে ঠিক কোথায় আমার বক্তব্যে প্রতিবাদের ক্ষেত্রে ইসলামিক ও নন-ইসলামিক বিভাজন খুঁজে পেলেন, একটু বুঝিয়ে দেবেন?

    আমিও যেমন কোনও বামপন্থীকে ইসলামী সন্ত্রাসবাদ নিয়ে প্রতিবাদ করতে দেখিনি, আপনিও তেমনি আজ অবধি কোনো ডানপন্থী কাউকে ভারতের কোনো রাস্তায় খ্রিস্চিয়ান মৌলবাদদের দ্বারা অ্যাবর্শন ক্লিনিক অ্যাটাক, খুন ইত্যাদির বিরুদ্ধে কোনো কথা বলতে দেখেননি। এবং আমরা যদি এই দুই না দেখাটা নতুন করে দেখার প্রত্যাশা করি সেখানে আপত্তির জায়গাটা কোথায় একটু বুঝিয়ে দেবেন?

    'বোকো হারামের কথা লোকে এত বলে অথচ ঐ অঞ্চলে নাইজেরিয়ান মিলিটারি কি করেছে সেটা কেউ বলেনা কেন?' এই লাইন এবং তার পরবর্তী ব্যাখ্যার সঙ্গে যারা গাজা নিয়ে প্রতিবাদ করতে চায় না তাদের যুক্তির খুব বেশি ফারাক আছে বলে মনে হয় আপনার? এর সব কিছু দ্বিগুণ সত্যি হলেও তা দিয়ে বোকো হারেমের হত্যালীলাকে সমর্থন করা যায়? কিংবা সেই হত্যালীলা নিয়ে প্রতিবাদহীন, নিন্দাহীন মৌনতাকে জাস্টিফাই করা যায়?

    'লিবেরাল ইসলামিক প্রোটেস্ট গ্রুপ গুলো মুছে দেওয়া চলছে। যত সেটা হবে, তত উগ্রপন্থী ইসলামিক গ্রুপ বাড়তেই থাকবে।' ভীষণ ভাবে বাস্তব। ভীষণ ভাবে সত্য। কিন্তু তাই বলে উগ্রপন্থী ইসলামিক গ্রুপের হাতে নিরীহ মানুষের হত্যার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে কিংবা নিন্দা জানাতে কোনও আদর্শগত বাধা তৈরি হয়? যদি একটু বুঝিয়ে বলেন।

    উগ্রপন্থী রাজনীতির লালন ও পালন করে পাশ্চাত্য ইম্পেরিয়ালিজম, এই অলঙ্ঘনীয় সত্যকে মেনে নিয়ে এবং সেই ইম্পেরিয়ালিজমের বিরুদ্ধে লড়াই করার সময়েও উগ্রপন্থী ধর্মীয় মৌলবাদের শিকার মানুষগুলোর দিকে সহানুভুতির বার্তা জানানো এবং গণহত্যার প্রতিবাদ করাতে কোনও আদর্শগত সমস্যা হয় কি?

    এই বার আসি শেয কথায়। এক দল লোক নন-ইসলামিক মৌলবাদীদের (বিশেষ করে বিজেপি ও হিন্দুত্ববাদ) বিরুদ্ধে কলম ধরছেন, প্রতিবাদ জানাচ্ছেন এবং ইসলামিক মৌলবাদী সন্ত্রাসবাদীদের সন্ত্রাসের ঘটনাগুলো নিয়ে গণপরিসরে চুপ থাকছেন। ফলত এই সন্ত্রাসবাদ এবং তার চালিকাশক্তি ইম্পেরিয়ালিজম, এই কথাগুলো বারবার না বলায় সেই রেটোরিক সৃষ্টিরও কোনও অবকাশ তৈরি করছেন না। ইম্পেরিয়ালিজমের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ক্ষেত্রে এই ঘটনাগুলির বারংবার উল্লেখ করে তার বিশ্লেষণ করে এক বিকল্প রেটোরিকের জন্ম দেওয়া এবং তা গণপরিসরে প্রচার করাটা কি ঘটনাগুলো নিয়ে নীরব থাকার চেয়ে অনেক বেশি যুক্তিযুক্ত নয়? নইলে কিন্তু ওই বুঝে হোক বা না বুঝে হোক, আত্মীকৃত হওয়ার সম্ভাবনা দিন দিন ক্রমশ বেড়েই চলবে। এবং তাতে সব থেকে বড় ক্ষতি হয়ে যাবে প্রগতিশীল বাম রাজনীতিরই। একমুখী মানবতাবাদী তকমা পেয়ে(যে তকমাটা লাগাতে সক্রিয় লোকের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে) আপনারাই আমজনতার কাছে ক্রমশ গ্রহণযোগ্যতা হারাবেন না তো? একটু ভেবে দেখবেন।

    সব হত্যাই ঘৃণ্য, সব হত্যাই প্রতিবাদযোগ্য। ধর্মের নামেই হোক বা রাষ্ট্রের নামে।'এই সহজ কথাটির সঙ্গে কোথাও দ্বিমতের অবকাশ আছে কি? প্রতিবাদের ক্ষেত্রে ইসলামিক ও নন-ইসলামিক বিভাজনকে তুলে দিয়ে সার্বিক ভাবে মৌলবাদ ও সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে লড়াই জারি রাখাতে আপত্তির অবকাশ আছে কি?
  • :-( | 131.241.218.132 (*) | ২৪ জুলাই ২০১৪ ১২:২৫74497
  • "পালা করে এক পক্ষ আরেক পক্ষতে খুঁচিয়েই চলে আর এক দল আরেক দলকে দোষারোপ করেই চলে।" - খুব সত্যি । আর যেটা যুগে যুগে দেশে দেশে হয় যে তথাকথিত নির্ভীক বিপ্লবী রা গেরিলা যুদ্ধের নামে নিরীহ অসহায় সাধারণ লোকেদের ঢাল বানায় , নিরীহ লোক রা না চাইলেও বিপ্লবের জন্যে বলিপ্রদত্ত শুধু মাত্র সেই বিপ্লবীদের রাজনৈতিক উচ্চাকাঙ্খার জন্যে ।
  • de | 190.149.51.68 (*) | ২৪ জুলাই ২০১৪ ১২:৪২74498
  • যেভাবে মাওবাদীরা সাধারণ লোক মারলে, পুলিশ মারলেও তাদের বিপ্লবী বলতেই হবে, নিন্দে করে টেররিস্ট বলা যাবে না, সেভাবেই হামাসকেও টেররিস্ট অর্গ্যানাইজেশন বলা বারণ! সাধারণ লোকের মৃত্যু? ওটুকু বিপ্লবের কোল্যাটারাল ড্যামেজ!
  • dc | 132.164.139.12 (*) | ২৫ জুলাই ২০১৪ ০১:১৮74518
  • "সব হত্যাই ঘৃণ্য, সব হত্যাই প্রতিবাদযোগ্য। ধর্মের নামেই হোক বা রাষ্ট্রের নামে।"

    এটা আমি সমর্থন করি। আর সেউ জন্যই কুনালের বক্তব্য ভুল মনে করি। যারা ইসরায়েল-প্যালেস্টাইন যুদ্ধের সব দায় ইসরায়েলের ঘাড়ে চাপাতে চাইছেন তারা ভুল করছেন, কারন ইসরায়েল আর হামাস দুপক্ষেরই দোষ আছে। দুপক্ষকেই সংযত করতে পারলে এই যুদ্ধ থামানো সম্ভব, নাতো বারবার সংঘর্ষ লেগেই থাকবে।
  • de | 190.149.51.68 (*) | ২৫ জুলাই ২০১৪ ০৫:২৩74519
  • এখানে ডিসি আর অনিমেষ যা লিখলেন - সেটাকেই সমর্থন করি। রক্তারক্তি, হানাহানি বন্ধ করতে হলে দুপক্ষকেই থামানো দরকার। একপক্ষকে তোল্লাই দেওয়া বন্ধ না হলে এ থামার নয়!
  • a x | 86.31.217.192 (*) | ২৬ জুলাই ২০১৪ ১১:০৩74520
  • অনিমেষ,

    এই কথাটা - "সব হত্যাই ঘৃণ্য, সব হত্যাই প্রতিবাদযোগ্য।" এটার অ্যাবসোলিউটলি কোনো মানে দাঁড়ায় না।

    প্রথমত, এটা আমার আপনার মরালিটির ব্যাপার না। এটা ইতিহাসে ক্ষমতা কার হাতে, কে কীভাবে ক্ষমতা নিচ্ছে, তার ব্যাপার। হ্যাঁ সব হত্যাই নিন্দনীয় এইসব বলে একটা বেশ আত্মতৃপ্তি কিছু পাওয়া যেতে পারে কিন্তু এটা বলা বেসিকালি স্ট্যাস ক্যুয়ো ডিম্যান্ড করা। একটি আদর্শ পৃথিবীতে হতে পারে, কিন্তু ধরুন আজ যদি দেখেন যে পাকিস্তান ভারত আক্রমণ করে, ভারতের সীমানা ঠেলতে ঠেলতে বিহার আর কেরালা দুটো জায়গায় নিয়ে গেছে, এবং সমস্ত নদীবাঁধ বন্ধ করে, জল বন্ধ করে বেসিকালি একটা জেলখানা বানিয়ে দিয়েছে ঐ দুটো জায়গাকে তখন মনে হয়না আর্মড রিট্যালিয়েশন নিয়ে কোনো আপত্তি থাকবে।

    আপনার কথা মত হলে কোথাও কোনোদিনও কোনো স্বাধীনতা আন্দোলন হতনা বৃটিশ সূর্য টলমল করত। দ

    দ্বিতীয়ত, এই বক্তব্য, আইনতও দাঁড়ায় নাঃ
    আদালতে গেলেও এই কথা বলা হয়না। সেখানেও ডিফেন্সিভ অফেন্স বলে একটা জিনিস আছে। ইন্টার্ন্যাশনাল ল' র তলাতেও দুটো শব্দ ব্যবহার হয় - jus ad bellum মানে কখন আক্রমণ জাস্টেফায়েড। আইন অনুযায়ী ইসরায়েলের অধিকার নেই আক্রমণের, কিন্তু প্যালেস্টাইনের আছে।

    তৃতীয়ত, এই দুই পক্ষই দোষী এই কথাটা, বলতে বাধ্য হচ্ছি অজ্ঞানতার ফসল। একটা হাতি যখন একটা ইঁদুরের ল্যাজে পা দেয়, তখন আপনি যদি বলেন, আমি বাপু নিরপেক্ষ, তখন ইঁদুরের সেটা খুব একটা পছন্দের হয়না। (আমি না, ডেসমন্ড টুটু বলে গেছেন) - যেখানে সিচুয়েশন অফ ইনজাস্টিস, সেখানে এই দুপক্ষই দোষী বলা মনে আপনি অপ্রেসরের দিকে।

    ২০০০ সাল থেকে এই কনফ্লিক্টে কে মেরেছে দেখা যাক। মাথায় রাখবেন, জনসংখ্যার দিক দিয়ে, ইসরায়েল দ্বিগুণের বেশি। অর্থাৎ এই গ্রফ পপুলেশন কন্ট্রোল করে তৈরি হলে হলুদ গুলো ডবল হত।

    এইবার দেখা যাক, ভৌগোলিক সীমা কীভাবে বদলেছে -

    এখনও দুপক্ষই দোষী? প্যালেস্টাইনের কোনো মেরিন ফোর্স, এয়ার ফোর্স এইসব নেই। ইসরায়েল ওয়ান অফ দ্য স্ট্রংগেস্ট নেশন্স। ইট হ্যাস দ্য ফোর্থ লর্গেস্ট মিলিটারি। এই মিলিটারি নিয়ে মাঝে মাঝেই আক্রমণ করে, যেটাকে নিজেরা বলে "মোইং দ্য গ্রাস" মানে আগাছা সাফ করার মত করে শিশু হত্যা করেই চলেছে। বলে বলে হাসপাতাল, স্কুল টার্গেট করছে। এখন চার্চ করছে। আজ অবধি যত সিজফায়ার চুক্তি হয়েছে, তার বেশিরভাগ ইসরায়েল ভেঙ্গেছে। এবং সব বার মিডিয়া রিপোর্টও করেনা সেগুলো।
  • a x | 86.31.217.192 (*) | ২৬ জুলাই ২০১৪ ১১:১৩74521
  • এই নতুন করে যে শুরু হল, সেটা বার বার বলা হচ্ছে কারণ, তিনজন ইসরায়েলি ছেলেকে হামাস খুন করেছে। এবং সব দিকেই এটা প্রচারিত হয়েছে, কোনো রকম প্রমাণ ছাড়া। হামাস ডিনাই করেছে।

    মজার হচ্ছে এর ঠিক মাস খানেক আগে ইসরায়েল দুটি প্যালেস্টেনিয়ান ছেলেকে খুন করে, তার একটির ভিডিও রেকর্ডিং ও পাব্লিক করে, সেটা নিয়ে কোথাও কিছুই শোনা যায়নি।

    আজ খবর বেরিয়েছে, ঐ তিনটি ছেলের মৃত্যুতে হামাসের কোনো হাত ছিলনা।

    http://electronicintifada.net/content/us-media-didnt-report-israeli-ceasefire-violation/7941

    ইসরায়েল প্যালেসটাইন কনফ্লিক্ট নিয়ে জানতে হলে খুব বেশি না শুধু চমস্কি আর ফিংকেলস্টাইন পড়লেই অনেক কিছু জানা যায়। দুজনেই জন্মসূত্রে ইহুদি কাজেই অ্যান্টি সেমিটিক দিক দিয়ে লিখছেন বলে ভাবার কারণ নেই। দীর্ঘ সময় ধরে এরা এই নিয়েই চর্চা করে চলেছেন। চমস্কির অসংখ্য ইউটিউব ভিডিও আছে এই বিষয়ে। কোনো কনজেকচার না, ডেটা ও ফ্যাক্ট বেসড।

    আর কুণাল তো দেখলাম আপনার ফ্রেন্ড লিস্টেই আছে, ঐ পোস্টটা নিশ্চয়ই আপনার নিউজফিডে এসেছিল। ওনাকেই কেন সরাসরি প্রশ্ন করলেন না ঠিক জানিনা। তবে অবশ্যই সেটা আপনার ব্যক্তিগত ব্যপার।
  • Animesh Baidya | 123.21.79.252 (*) | ২৭ জুলাই ২০১৪ ০৪:১৭74522
  • a x, প্রথমত, আপনার সঙ্গে আমার মত মিলতেই হবে এমন কোনও কথা নেই। সুতরাং, আমার কাছে ধর্মের নামে, রাষ্ট্রের নামে যে কোনও হত্যাই নিন্দনীয়। আপনার কাছে তার মধ্যে থেকে বাছাই করা কিছু নিন্দনীয়। সে আপনি তেমন করে ভাবতেই পারেন। আমি কেবল আমার মতামত জানাচ্ছি। আপনার না পছন্দ হতেই পারে।
    দ্বিতীয়ত, 'এটা আমার আপনার মরালিটির ব্যাপার না। এটা ইতিহাসে ক্ষমতা কার হাতে, কে কীভাবে ক্ষমতা নিচ্ছে, তার ব্যাপার।' আমার আপনার মরালিটির ব্যাপার না হলেও যা কিছু আমাদের ভাবায় সেখান থেকে আমাদের একটা রাজনৈতিক অবস্থান তৈরি হয়। 'সারভাইভাল অফ দ্য ফিটেস্ট' মেনে নিয়ে তাহলে তো চুপ করে থাকাটাই শ্রেয়।
    তৃতীয়ত, ব্রিটিশ সূর্য টলমল করা থেকে আশা করি পৃথিবীর ইতিহাসের শুরু নয়। ব্রিটিশ ঔপনিবেশিকতার পেছনেও রক্তাক্ত ইতিহাসের লম্বা পথ আছে। এবং আমি কিন্তু শুরু থেকেই গাজার প্রতিবাদের কোনও বিরোধিতা করছি না। আমি কেবল প্রতিবাদের সীমানা বিস্তৃত করতে বলেছি।
    চতুর্থত, আপনি যেমন আমাকে অভ্যাসবশত ইসলামিক আর নন-ইসলামিক সন্ত্রাস এই বাইনারির মধ্যে আটকে থাকা একজন মনে করেছিলেন ঠিক তেমনি অভ্যাসের বশে আমাকে আবার অন্য এক বাইনারির মধ্যে এ বার রাখছেন। কি সেই বাইনারি? হয় আমি গাজার প্রতিবাদের পক্ষে নইলে বিপক্ষে। এর বাইরের কোনও অবস্থান হতে পারে না। এবং তাই ভেবেই নানান রকম তথ্য দিলেন আমায়। না দাদা, আপনি ফের ভুল করছেন। আমি ঘোরতর ভাবে গাজা নিয়ে প্রতিবাদের পক্ষে। ইসরায়েলের ঘৃণ্য নৃশংসতা নিয়ে আমার এক বিন্দুও কোনও সংশয় নেই। আমি কেবল বলতে চেয়েছি, আজকের ভারতবর্ষে দাঁড়িয়ে সাম্প্রদায়িকতা এবং মৌলবাদ বিরোধী লড়াইটা ভীষণ ভাবে প্রয়োজন। এবং সেই লড়াইটা সার্বিক ভাবে প্রয়োজন। হিন্দু মৌলবাদের বিরুদ্ধে লড়াইটা সকলের কাছে আরও বেশি গ্রহণযোগ্য হবে তখনই যখন আমাদের লড়াইটা সিলেক্টিভ না হয়ে সার্বিক মৌলবাদের বিরোধী হয়ে উঠবে।
    দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি যে, 'এখনও দুপক্ষই দোষী?' এই প্রশ্নটা আমাকে শুনতে হচ্ছে। গোটা থ্রেড জুড়ে কোথাও আমি এক বারের জন্যও ইসরায়েলের আক্রমণের স্বপক্ষে কোনও যুক্তি দেইনি, কোনও ধরনের সমর্থন জানাইনি। ওই যে আপনি আসলে বাইনারি-গ্রস্ত। আপনার সঙ্গে সব কথায় প্রতিধ্বনি করছি না, সুতরাং আমি বিপক্ষ শিবিরে। আপনি যে হত্যায় চুপ থাকেন, আমি সেই হত্যার প্রসঙ্গ তুলেছি, ব্যাস, আমি ইসরায়েলপন্থী হয়ে গেলাম। আশা করি বাইনারির বাইরে ভাবতে শিখবেন।
    চমস্কি নিয়ে খুব সামান্য হলেও একটু-আধটু পড়াশোনা করেছি এবং তার বক্তব্যের সঙ্গে কোনও বিরোধ নেই। কিন্তু বিরোধটা আপনার সঙ্গে। ওই সম্পূর্ণ প্রতিধ্বনি করিনি, ওমনি আমি ইসরায়েলপন্থী হয়ে গেলাম, আপনার এই ভাবনার সঙ্গে আমার তুমুল বিরোধ আছে।
    এবং এই গোটা আলোচনায় যেটা সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সেটা নিয়ে একবারও আলোকপাত করলেন না। আপনার মতে চাড্ডিরা এক ধরনের রেটোরিক গণপরিসরে প্রতিষ্ঠিত করছেন এবং অনেকেই বুঝে হোক বা না বুঝে তা আত্মীকৃত করছেন। তার পরিপ্রেক্ষিতে আগের কমেন্টে লিখেছিলাম, 'এক দল লোক নন-ইসলামিক মৌলবাদীদের (বিশেষ করে বিজেপি ও হিন্দুত্ববাদ) বিরুদ্ধে কলম ধরছেন, প্রতিবাদ জানাচ্ছেন এবং ইসলামিক মৌলবাদী সন্ত্রাসবাদীদের সন্ত্রাসের ঘটনাগুলো নিয়ে গণপরিসরে চুপ থাকছেন। ফলত এই সন্ত্রাসবাদ এবং তার চালিকাশক্তি ইম্পেরিয়ালিজম, এই কথাগুলো বারবার না বলায় সেই রেটোরিক সৃষ্টিরও কোনও অবকাশ তৈরি করছেন না। ইম্পেরিয়ালিজমের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ক্ষেত্রে এই ঘটনাগুলির বারংবার উল্লেখ করে তার বিশ্লেষণ করে এক বিকল্প রেটোরিকের জন্ম দেওয়া এবং তা গণপরিসরে প্রচার করাটা কি ঘটনাগুলো নিয়ে নীরব থাকার চেয়ে অনেক বেশি যুক্তিযুক্ত নয়? নইলে কিন্তু ওই বুঝে হোক বা না বুঝে হোক, আত্মীকৃত হওয়ার সম্ভাবনা দিন দিন ক্রমশ বেড়েই চলবে। এবং তাতে সব থেকে বড় ক্ষতি হয়ে যাবে প্রগতিশীল বাম রাজনীতিরই। একমুখী মানবতাবাদী তকমা পেয়ে(যে তকমাটা লাগাতে সক্রিয় লোকের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে) আপনারাই আমজনতার কাছে ক্রমশ গ্রহণযোগ্যতা হারাবেন না তো? একটু ভেবে দেখবেন।' আমি বিশ্বাস করি আজকের ভারতের বাস্তবতায় এবং বামপন্থী রাজনীতির সাপেক্ষে এই অংশটা ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। যদি আলোকপাত করেন খুশি হবো।
    একদম শেষে বলছি, কুণাল বাবু আমার ফ্রেন্ডলিস্টে আছেন। ওনার তৈরি করা পেজ 'Kolkata Solidarity with Palestine, Against Israeli State Terrorism'-এ প্রশ্ন তুলেছিলাম ইসলামিক মৌলবাদী সন্ত্রাসবাদ নিয়ে আমরা কেন পথে নামি না। তার উত্তরে উনি রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের উল্লেখ করেছিলেন এবং সঙ্গে সঙ্গে বলেছিলেন, একটা ক্ষেত্রে প্রতিবাদ করলে যে অন্য সব ক্ষেত্রে প্রতিবাদ করতেই হবে এমন কোনও কথা নেই। এবং সেই সূত্রে তিনি বিজেপির তথাগত রায়ের উল্লেখ করে দেখিয়েছিলেন তিনি কোথাও সরব এবং কোথাও নীরব। উত্তরে বলেছিলাম, তথাগত রায়ের রাজনৈতিক বাধ্যবাধকতা আছে, সেই বাধ্যবাধকতা কি কুণাল বাবুদেরও আছে কি না। তার আর কোনও উত্তর পাইনি। এবং এই লেখাটি এবং এই সংক্রান্ত অন্য একাধিক লেখা আমি ফেসবুকে নিজের টাইমলাইনেও রেখেছি। ওনার নিউজফিডেও আশা করি তা এসেছিল। উনিও কোনও মতামত জানাতে আসেননি। হয়তো আপনার মতো উনিও এ ক্ষেত্রে বাইনারি-গ্রস্ত হয়ে আমাকে ইসরায়েলের সমর্থক ভেবেছেন। অন্যের ভাবনাকে নিয়ন্ত্রণ করার মতো ক্ষমতা এখনও আমার হয়ে ওঠেনি। অগত্যা.......
  • a x | 86.31.217.192 (*) | ২৭ জুলাই ২০১৪ ০৫:২০74523
  • অনিমেষ,

    আপনার এই প্রশ্নের উত্তর অর্থাৎ সোজা কথায় আগে যা লিখেছিলেন, যারা গাজা নিয়ে সরব, তারা বোকো হারাম নিয়ে নীরব কেন, এর উত্তর আগেই দিয়েছি। উত্তর আপনার পছন্দ হয়নি বলে বার বার একই প্রশ্ন কপি পেস্ট করলে তো আমার উত্তর বদলে যাবেনা ঃ-) তাও লিখছি। প্রথমত বোকো হারামের অত্যাচার আর ইজরায়েলের অত্যাচার কোনো স্কেলে, কোনো ভাবেই, কোয়ালেটিটভলি বা কোয়ান্টিটেভলি এক না। এই তুলনাটা একেবারেই গায়ের জোরে কিম্বা/এবং ইসরায়েল বিরোধি আন্দোলনের মুখ ঘোরানোর জন্য বলা। বোকো হারাম ইস বিয়ন্ড অল পলিটিক্স। বোকো হারামের মাথার ওপর সবার দাদা আম্রিকা নেই। বোকো হারামের কার্যকলাপের বিরোধিতা করলে বোকো হারামের একটি কেশাগ্রও হেলবে না। বোকো হারামকে থামাতে হলে বোকো হারাম তৈরি হওয়া থামাতে হবে। যারা ইজরায়েল বিরোধী আন্দোলনে আছেন, তারা সেটাতেও আছেন।

    যারা ইসরায়েল বিরোধী তারাই মোসুলে খ্রিশ্চিয়ান হত্যা নিয়ে নীরব এরকম তো না! এদের মধ্যেই অনেকে এর প্রতিবাদে অ্যাক্টিভলি সামিল।

    এছাড়া মনে হয় বামপন্থী আন্দোলন নিয়ে আপনি খুবই ভাবিত। ইসলামিক মৌলবাদী আক্রমণের প্রতিবাদ না করাতে বামপথী আন্দোলন গ্রহণযোগ্যতা হারাচ্ছে এরকম কিছু একটা বক্তব্য আপনার । প্রথমত এই ধারণটই অতীব ভুল। পাকিস্তানের বাম্পন্থীরাই তালিবানের ও ISISএর বিরুদ্ধে অ্যাক্টিভলি ভোকাল (ইন্সিডেন্টালি, ISISএর আল বাঘদদি আবার মোসাদের কাছ থেকে ট্রেনিং প্রাপ্ত) - কাজেই আপনার অভিযোগের বেসিসটাই ভুল। দ্বিতীয়ত, ডানপন্থী রাজনীতি ঠিক কীভাবে এই "নিরপেক্ষ" রাজনীতি প্র্যাক্টিস করে তাদের গ্রহণযোগ্যতা ক্রমেই বাড়িয়ে চলেছে যদি জানান।

    আর প্যালেস্টাইনকে UN সদস্য করার ভোটে ওভারওয়েল্মিংঅলি ইয়েস হয়। ইসরায়েল ওয়ান অফ দ্য মোস্ট হেটেড স্টেট আজকে। এই ভোটে আম্রিকার অ্যালাইদেরও কেউ কেউ ইয়েস বলে। আম্রিকা ফান্ডিং কাট করেছে এর ফলে কিন্তু এমনকি আম্রিকাতেও পাব্লিক ওপিনিয়ান প্যালেস্টাইনের দিকে। কাজেই গ্রহণযোগ্যতা, বামপন্থী রাজনীতি ইত্যাদি নিয়ে এই বিষয়ে অন্তত চিন্তিত হবার কারণ নেই।
  • a x | 86.31.217.192 (*) | ২৭ জুলাই ২০১৪ ০৬:০৯74524
  • http://www.thepeoplesvoice.org/TPV3/Voices.php/2014/07/20/a-zionist-general-s-son-shatters-the-myt

    On Wednesday, Gaza's health ministry, which keeps casualty figures, said 209 Palestinians had been killed and 1,560 were injured as the fighting continued for a ninth day. At least 39 children and 24 women were among the dead, officials said. In actuality, 80% of the killed and injured are civilians. Remember, there is no Israeli Iron Dome to protect Palestinian civilians and children ~ this is not war, it's genocide.
  • Animesh Baidya | 123.21.79.252 (*) | ২৭ জুলাই ২০১৪ ০৬:৪৮74525
  • a x, ঠিক যে কারণে আপনি হয়তো আমার উদ্দেশ্যে ওই নানান রকম লিঙ্ক পোস্ট করে প্রতিনিয়ত প্রমাণ করার চেষ্টা করছেন আমাকে বোঝাতে যে, ইসরায়েল ঠিক কতোটা খারাপ কাজ করছে। যেখানে শুরু থেকে বরাবর বলে আসছি যে ইসরায়েলের ঘৃণ্য নৃশংসতার ঘোরতর বিরোধিতা করি আমি। তার পরেও ওই নানান রকম লিঙ্ক এবং বক্তব্য কপি করে আমার উদ্দেশ্যে পাঠানো। মানে আসলে এটাই প্রমাণ করে গভীরে আপনার বিশ্বাস যে, আমি ইসরায়েলের সমর্থক। আপনি আপনার বিশ্বাসে অটুট থাকুন। বিশ্বাসে মেলায় বস্তু, তর্কে বস্তুবাদ।
    যেটা বুঝলাম, সরাসরি ইসলামি মৌলবাদ নিয়ে প্রতিবাদ করাতে আপনার আপত্তি আছে। বেশ, আপনার স্বাধীন পছন্দের বিষয়ে কোনও বক্তব্য নেই আমার।
    'বোকো হারাম ইস বিয়ন্ড অল পলিটিক্স।' বুঝলাম, মৌলবাদ ও সন্ত্রাসবাদের স্বতন্ত্র রাজনীতি হতে পারে তা আপনি বিশ্বাস করেন না।

    আমার বক্তব্যটা ছিল এ রাজ্যের এবং এ দেশের বামপন্থীদের নিয়ে। আপনি জানিয়ে দিলেন, 'পাকিস্তানের বাম্পন্থীরাই তালিবানের ও ISISএর বিরুদ্ধে অ্যাক্টিভলি ভোকাল (ইন্সিডেন্টালি, ISISএর আল বাঘদদি আবার মোসাদের কাছ থেকে ট্রেনিং প্রাপ্ত) - কাজেই আপনার অভিযোগের বেসিসটাই ভুল।' বুঝলাম আপনার বোধগম্যতা।

    'যারা ইসরায়েল বিরোধী তারাই মোসুলে খ্রিশ্চিয়ান হত্যা নিয়ে নীরব এরকম তো না! এদের মধ্যেই অনেকে এর প্রতিবাদে অ্যাক্টিভলি সামিল।' জেনে যার পরনাই খুশি হলাম। আরও খুশি হতাম যদি আমার ছোট পৃথিবীতে দেখা আমার চেনা বামপন্থী বন্ধুদের টাইমলাইনে কিংবা আমাদের চেনা পথে তার সামান্যতম নিদর্শন। নিশ্চয়ই আমার চোখে না পড়ার পিছনে আমার স্বল্পদৃষ্টি। তার জন্য ক্ষমা চাইছি।

    বিজেপি-র মতো ডানপন্থীরা নিরপেক্ষ রাজনীতি প্রাকটিস করে নিজেদের গ্রহণযোগ্যতা বাড়াচ্ছে না। তারা মৌলবাদের তাস খেলে সংখ্যাগুরুদের কাছে নিজেদের গ্রহণযোগ্যতা বাড়াচ্ছে। আমাদের দেশ আগামীতে হিন্দু রাষ্ট্র হবে এই স্বপ্নে অনেকেই উদ্বেল। সেকুলার কে ব্যাঙ্গ করে মুসলিম তোষণকারী 'sick-ular' তকমা দিচ্ছে। এবং তার প্রমাণ স্বরূপ তারা আপনাদের দৃষ্টান্তই দিচ্ছে যারা ইসলামি সন্ত্রাসবাদ নিয়ে নীরব থাকছে। আর এই বিজেপি ডানপন্থীদের প্রোপাগান্ডা বুঝতে একটু চোখ-কান খোলা রাখলেই যথেষ্ট।

    এই মুহূর্তে এ দেশে ও এ রাজ্যে বামপন্থা এবং বামপন্থী অবস্থান নিয়ে চিন্তিত হওয়ার যথেষ্ট কারণ আছে বলে মনে করলেও আপনার মতামত শোনার পরে বুঝলাম এই মুহূর্তে তার কোনও কারণ ও প্রয়োজন নেই। সুতরাং আপনার থেকে বিদায় নিলাম। ভালো থাকবেন। আপনার সময় নষ্ট করার জন্য ক্ষমা প্রার্থনীয়।
  • a x | 86.31.217.192 (*) | ২৭ জুলাই ২০১৪ ০৭:২০74526
  • এত বোঝাবুঝির মধ্যে এটাও বুঝে নিয়েছেন এই থ্রেডে আমার সব পোস্টই আপনার জন্য, এটাই মুশকিল।
    তো ডানপন্থীদের প্রোপাগান্ডাতে বামপন্থীরা সহায়তা করছে মুসলিম তোষণকারী হয়ে এই হল করোলারি, কিন্তু উল্টোটা হয়না কোনো অজানা কারণে। আবার ভারতের বদলে পাকিস্তান হলেই এই ইকুয়েশন একদম আর হোল্ড করছেনা। বেশ। মানে এটাই বারবার বলছেন, অথচ ইসলামিক ও নন-ইসলামিক বাইনারি বিভাজনও করছেন না। আবারও বেশ। মানে বুঝলাম আর কি।
  • Animesh Baidya | 123.21.79.242 (*) | ২৭ জুলাই ২০১৪ ০৯:০১74527
  • a x, এটা জেনে খুশি হলাম যে সব পোস্টই আমার জন্য নয়। ধন্যবাদ।
    এ দেশের সাপেক্ষে ডানপন্থী প্রোপাগান্ডাতে বামপন্থীরা 'মুসলিম তোষণকারী' হিসেবে সহায়তা করছে বলিনি। বলতে চেয়েছি ইসলামিক সন্ত্রাসবাদ নিয়ে তাদের নীরবতা বিজেপি-র প্রোপাগান্ডাকে আমজনতার কাছে গ্রহণযোগ্য করে তুলছে আরও বেশি করে। এটা আমার অনুভব। আপনি নাও মানতে পারেন। তাতে আমার কিছু করনীয় নেই।
    যদি পাকিস্তানে কিংবা বাংলাদেশে অ-ইসলামিক মৌলবাদী সন্ত্রাসবাদ নিয়ে সে দেশের বামপন্থীরা চুপ থাকতো এই ইকুয়েশনটা সেখানেও হোল্ড করতো। এ দেশের বাবরি মসজিদ ধ্বংস থেকে শুরু করে হিন্দু মৌলবাদী সন্ত্রাসবাদ নিয়েও সে দেশে বামপন্থীদের প্রতিবাদ হয়েছে এবং হয়। এবং যা যথোপযুক্ত। তারা কিন্তু সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী লড়াইয়ের পাশাপাশি মৌলবাদ বিরোধী লড়াই জারি রাখছেন। এবং সেটা সার্বিক মৌলবাদ বিরোধী। যে সার্বিকতা এখানে অন্তত আমার চোখে পড়ে না।
    ইসলামিক ও নন-ইসলামিক বাইনারি বিভাজনটা গণপরিসরে ভীষণ ভাবে প্রযোজ্য। তা চোখ কান খোলা রাখলেই বোঝা যায়। এই বিভাজনের উর্ধে উঠে সার্বিক মৌলবাদ ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করার পক্ষে এই অধমের অবস্থান। হ্যাঁ, অবশ্যই সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী লড়াইয়ের সঙ্গে সঙ্গে। এর পরে বাকিটা বোঝার দায়িত্ব আপনার।
  • Du | 230.225.0.38 (*) | ২৮ জুলাই ২০১৪ ০৬:০৫74528
  • অক্ষ, লেখা আর লিংকগুলোর জন্য ধন্যযোগ।
  • lal | 131.241.218.132 (*) | ২৮ জুলাই ২০১৪ ১১:৫৫74529
  • শুধু ইস্রায়েল কেন আমেরিকা কেও তো বয়কট করা উচিত ইস্রায়েল কে মদত দেয়া ও সমস্যা জিইয়ে রাখার জন্যে।আমেরিকাবাসী বলেই কি "সবার দাদা আমেরিকার" বিরুদ্ধে কোনো বক্তব্য নাই ?
  • Ranjan Roy | 24.96.139.129 (*) | ০১ আগস্ট ২০১৪ ০৬:২০74532
  • ধিক্কার জায়নিস্ট ইস্রায়েলি সরকারকে!
    ধিক্কার আম্রিগা-ব্রিটেন-ফ্রান্স আদি এর পেছনের এলিট তামাশবীনদের!
    ধিক্কার ভারত সরকারকে এই হিংস্র হামলার বিরুদ্ধে বিতর্ক/প্রস্তাবকে কূটনৈতিক সমস্যার বাহানায় চুপ করিয়ে দেওয়ায়।
  • dc | 133.201.214.228 (*) | ০২ আগস্ট ২০১৪ ০৬:১৭74533
  • ইসরায়েলি সরকার আর হামাসকে তীব্র ধিক্কার জানালাম। ইন্টারন্যাশনাল কমিউনিটির উচিত এই দুপক্ষকে অবিলম্বে নিরস্ত করা।
  • pi | 24.139.221.129 (*) | ২০ আগস্ট ২০১৪ ০৩:২৫74534
  • এটা এখানে থাক। মুসলিমদের কার্যকলাপের বিরুদ্ধে মুসলিমদেরই এই বিরোধিতা তো আমাদের সহজে চোখে পড়েনা।

    Press Statement: Indian Muslims Condemn the Brutal Atrocities by ISIS against Minorities in Iraq and Syria; denounce religious intolerance, persecution and violence in the name of Islam

    Indian Muslims are shocked and pained by the brutality and atrocities being perpetrated by the ISIS (Islamic State of Syria and Iraq) against Christians, Shias, Kurds, Yazidis and other minorities in the regions now under their control. We strongly condemn such barbarism which is against the teachings of Islam. We express our heart-felt sympathies and solidarity with the survivors of those whose near and dear ones have been mercilessly butchered, and the tens of thousands of Iraq’s minorities who have been dispossessed, forced to flee their homes and are now living in extremely difficult circumstances.
    The barbaric conduct of the ISIS is all the more reprehensible because its leader, Abu Bakr al-Baghdadi, proclaims to be the ‘Caliph’ of the entire Muslim world and his armed group are supposedly acting in the name of Islam. We welcome the fact that most religious leaders and Islamic scholars from across the world, including India, have debunked al-Baghdadi’s claim of being a Caliph.
    Alongside the ongoing tormenting of common citizens and persecution of religious and ethnic minorities in areas under their control, the ISIS has been enforcing its own intolerant, extremist, violent, distorted interpretation of Islam on Muslims who are also Sunnis. This too deserves to be condemned in the strongest possible words. We call upon Muslim religious leaders in India and elsewhere to add their voice to that of Muslim organisations and individuals who have already denounced al-Baghdadi and his ISIS for distorting Islam’s message for peace and for their barbaric conduct.
    The unspeakable atrocities and mass crimes against Iraq’s minorities are nothing short of ‘crimes against humanity’, ‘religious/ethnic cleansing’. We appeal to the United Nations to urgently intervene, create the circumstances where those forced to flee feel secure enough to return to their homes and cities with full honour and dignity, and hold the ISIS accountable for its heinous acts.
    While the ISIS must be held fully responsible for its unconscionable acts, the United States, Saudi Arabia, UAE, Kuwait etc. cannot escape their share of the blame in fuelling the flames. The worsening plight of Iraq’s Christians is but a legacy of America’s illegal, unwarranted and criminal invasion of Iraq in 2003 and its subsequent engineering of sectarian strife to divide the Iraqi resistance to the occupation.
    Dictator Saddam Hussain was no angel but under him the country’s 1.4 million Christians were free to practice their faith. Many occupied high government posts. It is ironic that the US is now bombing the very ISIS to which it had earlier provided training, arms and ammunition in an attempt to dislodge Syria's authoritarian President, Bashar al-Assad. For their own myopic ends, Saudi Arabia, UAE, Kuwait etc have been backing an array of radical Islamist outfits of which the ISIS -- a monster now seemingly out of control -- was an integral part.
    We urge a global condemnation of the ISIS and all its allies, overt or covert.

    Endorsed by:
    1. A.J. Jawad, Advocate, Chennai
    2. Aamir Edresy, President, Association of Muslim Professionals, Mumbai
    3. Abbas Shamael Rizvi, Cinematographer & Photographer, Delhi
    4. Abdul Mannan Prof, Gauhati University, Assam
    5. Abdul Salam Prof, President , Justice and Equity Demand Samiti, Assam
    6. Abusaleh Shariff Dr., Executive Director, US-India Policy Institute, Washington DC
    7. Akhtar Husain Akhtar Gen. Secretary, All India Momin Conference, Kanpur
    8. Amir Rizvi, Communication Designer, Mumbai
    9. Amjad Ali Dr., Assistant Professor, Jaunpur
    10. Arshad Ajmal, Social Activist, Patna
    11. Asad Ashraf, Social Activist, Delhi
    12. Asad Zaidi, Writer and Publisher, Delhi
    13. Asif Iqbal, Director, Dhanak, Delhi
    14. Asif Naqvi Professor, Aligarh
    15. Bader Sayeed, Advocate & Former Member Legislative Assembly Tamil Nadu
    16. Faizur Rehman, Islamic Forum for Promotion of Moderate Thought, Chennai
    17. Farhat Amin, BIRD Trust, Cuttack
    18. Farrukh Warris Dr., Educationist, Mumbai.
    19. Fazlur Rahman Dr, Principal, Govt Degree College, Moradabad
    20. Feroze Mithiborwala, Muslim Intellectual Forum, Mumbai.
    21. Hanif Lakdawala, Executive Director, Sanchetna, Ahmedabad
    22. Hasina Khan, Women Activist, Bombay
    23. Imanul Haque, Prof, Kolkata
    24. Iqbal Ahmad Niazi, Retired Professor Emeritus of Zoology, University of Rajasthan
    25. Irfan Engineer, Director, Centre for Study of Society and Secularism, Mumbai
    26. Ishaq Dr, Social Activist, Azamgarh
    27. Jameela Nishat, Shaheen Women's Resource Centre, Hyderabad.
    28. Javed Anand, Muslims for Secular Democracy, Mumbai
    29. Javed Malick Dr, Retired Academic, Delhi University, Delhi
    30. Juzar Bandukwala Dr., Retired Professor, Vadodara
    31. K.K. Mohammad, Senior Archaeologist, Hyderabad
    32. Kamal Faruqi, Former Chairman, Delhi Minority Commission
    33. Kamal Siddiqui, Businessman, Khushinagar, UP
    34. Kasim Sait, Businessman & Social Activist, Chennai
    35. Mairajuddin Ahmed Dr. , Former Cabinet Minister, UP
    36. Mazher Hassain, Social Activist, COVA, Hyderabad
    37. Md. Aftab Alam Dr., Assistant Professor, Delhi
    38. Mike Ghouse, President, World Muslim Congress, Dallas, Texas
    39. Mohd Aamir, Human Rights Activist, ANHAD., Delhi
    40. Mohammad Arif Dr,, Chairman, Centre for Harmony and Peace, Varanasi
    41. Mujataba Farooque, President, Welfare Party of India
    42. Mujib Kidwai, Marketing Management, Jeddah
    43. Mushirul Hasan, Prof. , Former Vice Chancellor, Jamia Millia Islamia, Delhi
    44. Nasiruddin Haider Khan, Journalist, Delhi
    45. Navaid Hamid, Movement for Empowerment of Muslim Indians (MOEMIN), Delhi
    46. Noorjehan Safia Niaz, Bhartiya Muslim Mahila Andolan, Mumbai
    47. Ovais Sultan Khan, Social Work Professional, Delhi
    48. Qurban Ali, Journalist, Delhi
    49. R Jeibunnisa, Manitham Trust, Tamil Nadu
    50. Rahima Khatun, NSKK, Kolkata
    51. Rubina Parveen, Social Activist, Varanasi
    52. S. Akhtar Ehtisham Dr, Academic, Delhi
    53. SM Hilal, Social Activist, Kanpur
    54. S Irfan Habib, Prof, Maulana Azad Chair, National University of Educational Planning and Administration, Delhi
    55. Safdar Khan, Former Chairman, Delhi State Minorities Commission, Delhi
    56. Sahir Raza, Independent Cinematographer, Mumbai
    57. Salar M.Khan, Lawyer, New Delhi
    58. Sania Hashmi, Director, Anhad Films, Delhi
    59. Sarah Hashmi, Actor, Mumbai
    60. Semeen Ali, PhD student, University of Delhi, New Delhi
    61. Shabana Azmi, Actor, Mumbai
    62. Shabnam Hashmi, Social Activist, ANHAD, Delhi
    63. Shahin Ansari, Social Activist, Saharanpur
    64. SMS Firdausi, Advocate, High Court, Allahabad
    65. Sohail Hashmi, Filmmaker, Delhi
    66. Syed Shahid Mahdi, Former Vice Chancellor, Jamia Millia Islamia, Delhi
    67. Syeda Hameed, Former Member, Planning Commission, Delhi
    68. Tanweer Fazal, Academic, Jawaharlal Nehru University, Delhi
    69. Tanveer Nasreen Prof, Academic, Bardman, WB
    70. Tariq Ashraf Dr, Academic, Delhi
    71. Wahad Ahmad, Social Activist, Bijnaur
    72. Waris Mazhari Dr., Department of Islamic Studies, Maulana Azad National Urdu University, Hyderabad
    73. Wizarat Rizvi, Academic, Delhi
    74. Zafarul-Islam Khan Dr., Delhi
    75. Zaheer Ahmad, Social Activist, Varanasi
    76. Zaheer Ahmed Sayeed Dr., Neurologist, Chennai
    77. Zaheeruddin Ali Khan, Editor, Siasat, Hyderabad
    78. Zahid S Kamal, Retired Govt Officer, Delhi
    79. Zakia Soman, Bharatiya Muslim Mahila Andolan, Gujarat
    80. Zamser Ali, Journalist, Gauhati, Assam, President, BTAD Citizen Rights Forum, General Secretary, Centre for Minority Studies, Research and Development, Assam
    81. Zeenat Shaukat Ali Dr. , Director General, The Wisdom Foundation (World Institute of Islamic Studies for Dialogue, Mediation, Gender-Justice and Peace), Mumbai
    82. Zoya Hasan Prof. , Former Member, National Minorities Commission, Delhi
  • aranya | 154.160.226.53 (*) | ২০ আগস্ট ২০১৪ ০৩:৩১74535
  • আইএস আইএস-এর সন্ত্রাস নিয়ে ভারতীয় মুসলিমরা প্রতিবাদ করছেন - ভাল খবর
  • Ranjan Roy | 24.98.85.155 (*) | ২১ আগস্ট ২০১৪ ০১:৩৫74537
  • ঠিক তাই।

    ---- মরিয়া প্রমাণ করিল যে সে--!
  • :-I | 69.93.241.142 (*) | ২১ আগস্ট ২০১৪ ০৯:৪৬74536
  • নাকি প্রতিবাদের মোড়কে অসহায়, বাধ্যতামূলক মুচলেকা? ওরা যে ভারতীয় নন, ওরা 'ভারতীয় মুসলিম'।
  • SJ_GW | 41.172.30.1 (*) | ২২ আগস্ট ২০১৪ ০২:০৮74538
  • এই লোকগুলো'র মধ্যে শিয়া কতগুলো কে জানে। আরে শিয়া রা যুদ্ধু করতে যেতে চাইছে এর সামান্য পোতিবাদ করবে না? ভারী আসচয্য মাইরি।

    http://indiatoday.intoday.in/story/over-6000-indian-shias-seek-visa-to-iraq/1/371155.html
  • | 24.97.229.129 (*) | ১৭ এপ্রিল ২০১৫ ০৪:৫৫74541
  • আহা যাঁরা দুপক্ষকেই সমানভাবে দোষী করছিলেন তাঁদের ভয়েস অনেকদিন আসে না।
    অগত্যা .........
    http://www.theguardian.com/world/2004/nov/24/israel?CMP=share_btn_tw
  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1 | 2
  • গুরুর মোবাইল অ্যাপ চান? খুব সহজ, অ্যাপ ডাউনলোড/ইনস্টল কিস্যু করার দরকার নেই । ফোনের ব্রাউজারে সাইট খুলুন, Add to Home Screen করুন, ইন্সট্রাকশন ফলো করুন, অ্যাপ-এর আইকন তৈরী হবে । খেয়াল রাখবেন, গুরুর মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করতে হলে গুরুতে লগইন করা বাঞ্ছনীয়।
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত