• বুলবুলভাজা  ভ্রমণ  যুগান্তরের ঘূর্ণিপাকে  খাই দাই ঘুরি ফিরি

  • ডেভিড লিভিংস্টোনের খোঁজে

    হেনরি মর্টন স্ট্যানলে
    ভ্রমণ | যুগান্তরের ঘূর্ণিপাকে | ১৭ জুন ২০২১ | ৪২৭ বার পঠিত
  • ডেভিড লিভিংস্টোনআফ্রিকায় বেপাত্তা। কিংবদন্তি মানুষটির খোঁজে আফ্রিকা পৌঁছেছেন মার্কিন সাংবাদিক হেনরি মর্টন স্ট্যানলেজাঞ্জিবার থেকে শুরু হল আফ্রিকার গভীরে অভিযান। প্রথম লক্ষ্য বাগামোয়ো শহরে পৌঁছে পাক্কা দেড় মাস ধরে সেখান থেকে একে একে রওনা হলো অভিযানের মোট পাঁচটি কাফেলা। চলছে অভিযানের মূল কাহিনি। স্ট্যানলের সেই বিখ্যাত সফরনামা ‘হাও আই ফাউন্ড লিভিংস্টোন’। এই প্রথম বাংলায়। এই অধ্যায়ে মাটামবুরু নামের জনপদ পার করে বিহওয়ানা পৌঁছনোর কাহিনি। তরজমায় স্বাতী রায়




    আমরা আধুনিক মানচিত্রের সাহায্যে কিছুটা আন্দাজ করার চেষ্টা করছি হেনরি মর্টান স্ট্যানলে-র যাত্রাপথ। নইলে পাঠকের পক্ষে বোঝাই মুশকিল এইসব কাণ্ড ঘটছে কোথায়। কাজটা কঠিন। কারণ, এই পথে এমন অনেক জায়গার নাম রয়েছে যার আজ কোনো অস্তিত্বই নেই। পঞ্চম অধ্যায় অবধি ছিল চুন্যু (চুন্যো) নামক জনপদে পৌঁছোনোর কাহিনি। এবার শুরু হল চুন্যু থেকে পথচলা। এ কিস্তিতে আছে এমভূমি অঞ্চল পার করার বর্ণনা, এখানে বর্ণিত যা-কিছু ঘটছে সবই মানচিত্রে নীল দাগ দেওয়া পথের আশেপাশেই।— সম্পাদক



    ২৭ মে আমরা সানন্দে গা থেকে এমভূমির ধুলো ঝেড়ে ফেলে নিজেদের পথে হাঁটা দিলাম, সিধে পশ্চিমমুখো। আগের রাতে আমার পাঁচটা গাধা মারা গেছে, মারেঙ্গা এমকালির জলের প্রভাবে। এমভূমির শিবির ছেড়ে যাওয়ার আগে, তাদের দেহাবশেষ দেখতে গেলাম; তবে দেখলাম যে হায়েনার দল একদম সাফ করে দিয়েছে আর হাড়গুলোর দখল নিয়েছে সাদা-গলার কাকের বাহিনী।

    অসংখ্য গ্রামের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিলাম, ভাবছিলাম এই জায়গাটার পুরোটাই যেন একটা বিশাল শস্যক্ষেত্র, সেইসঙ্গে সাহেবকে একবার লোভী চোখে দেখে আনন্দ পাওয়ার জন্য রাস্তার ধারে দলে দলে অপেক্ষারত লোকদের গুনছিলাম—গোগোদের ওই জুলুমবাজিতে আর একটুও অবাক লাগছিল না! এটা স্পষ্ট যে একটা কাফেলার যাই কিছু মালপত্তর থাক না কেন, সেসব দখল করার জন্য হাত বাড়ানো ছাড়া তাদের আর কিছু করার নেই। যেসব লোকেরা নিজের শক্তি জেনেও তাকে ব্যবহার করে না তাদেরই আমার বেশি ভালো লাগতে শুরু করল। সেই লোকরাই বেশি ভালো যারা এটুকু বোঝার মতো বুদ্ধিমান যে কোনো জুলুম না করে কাফেলাকে এগিয়ে যেতে দেওয়াই তাদের পক্ষে মঙ্গল।

    এমভূমি ও মাটামবুরু, মানে পরের সুলতানের এলাকার, মধ্যে, গুণতিতে কম করেও পঁচিশটা গ্রাম পেলাম, রঙিন কাদাজমির উপর ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। এখানকার পরিবেশ আতিথ্যবিমুখ হলেও, বাগামোয়ো ছাড়ার পর থেকে আমরা যেসব এলাকা দেখেছি তাদের তুলনায় এখানে অনেক ভালো চাষ হয়।

    শেষ অবধি আমরা যখন আমাদের মাটামবুরুর শিবির-এলাকায় পৌঁছালাম, এমভূমির মতো একই দৃশ্য আমাদের জন্য অপেক্ষা করছিল, সেই একই কৌতুহলী লোকের দল, একই উৎসাহী মুখচোখ, সেই এক বিস্ময়ের প্রকাশ, সাহেবের পোশাক-আশাকে বা আচার আচরণে সেই একই হাসির হররা। আরবরা যেহেতু ‘ওয়াকোনোঙ্গো’ যাত্রী, প্রতিদিনই তাদের দেখা যায়, তাই ভোগান্তি পোহাতে হল শুধু আমাদেরই—আরবরা সে ঝামেলার থেকে সম্পূর্ণ রেহাই পেয়েছিল।

    মাটামবুরুর সুলতানের চেহারা দৈত্যের মতো আর মাইলোর কাঁধের সঙ্গে পাল্লা দেওয়া কাঁধের উপর শক্ত করে বসানো বিশাল মাথা। দেখা গেল তিনি অত্যন্ত যুক্তিসংগত মানুষ। এমভূমির সুলতানের মতন ততটা শক্তিশালী না, তবে তিনিও উগোগোর একটা বড়ো অংশের মালিক, প্রায় চল্লিশটা গ্রামের, চাইলে তিনিও এমভূমির সুলতানের মতোই আমার আরব সঙ্গীদের ব্যবসায়ী মনের উপর অত্যাচার করতে পারতেন। চার ডটি কাপড় প্রাথমিক নজরানা হিসেবে তাঁর কাছে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল, তাতে তিনি বললেন যে যদি আরবরা আর সাহেব তাঁকে আরও চার ডটি পাঠান তবে তিনি এটা নেবেন। তাঁর দাবিদাওয়া এতই যুক্তিসংগত ছিল যে খুব শীঘ্রই এই ছোট্ট ব্যাপারটার সকলের পক্ষেই সন্তুষ্টিজনক একটা নিষ্পত্তি হল; আর তার অল্প পরেই, শেখ হামেদের কিরণগোজি পরদিনের যাত্রার সংকেত ঘোষণা করলেন।

    শেখের নির্দেশে, জড়ো হওয়া সকল কাফেলার মানুষদের সামনে কিরণগোজি বক্তৃতা করতে উঠল। হাঁক পেড়ে উঠল, “শোনো, প্রভুর কথা শোনো। কান খুলে শোনো, কিরণগোজিরা শোনো! শোনো, উন্যাময়েজির ছেলেমেয়েরা! কাল আমাদের যাত্রা! রাস্তা আঁকাবাঁকা ও খারাপ! জঙ্গলে ভরা, আর তার মধ্যে অনেক গোগো লুকিয়ে থাকে! কুলিদের তারা বর্শা ছুড়ে মারে, আর যারা মুটুম্বা (কাপড়ের গাঁটরি) ও উশাঙ্গা (পুঁতির মালা) বয়ে নিয়ে যায় তাদের গলা কেটে দেয়! গোগোরা আমাদের শিবিরে এসেছিল, ওরা তোমাদের কাপড়ের গাঁটরিগুলো দেখেছে; আজ রাতে তারা জঙ্গলে গিয়ে অপেক্ষা করবে: উয়ান্যাম্বেজির লোকরা! ভালো করে খেয়াল করে চলবে! দল বেঁধে থাকবে, পিছিয়ে পড়বে না! কিরণগোজিরা ধীরে চলবে, যাতে দুর্বল, অসুস্থ এবং বাচ্চারা জোয়ানদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারে! পথে দু-বার বিশ্রাম নেবে! এসব প্রভুর কথা। শুনতে পেয়েছ সকলে? (একটা উচ্চস্বরে চিত্কার এল সবার থেকে, যার মানে হ্যাঁ) বুঝতে পেরেছ? (আবার সমস্বরে চিৎকার) তাহলে ব্যাস”, এই বলে বাক্যবাগীশ কিরণগোজি সেই অন্ধকার রাতের আড়ালে, নিজের খড়ের কুঁড়েতে বিশ্রাম নিতে গেল।





    আধুনিক মানচিত্রে বিহওয়ানা। এখানে দর্শিত ‘মাটামবুলু’-ই যে স্ট্যানলে-র ‘মাটামবুরু’ তা আন্দাজ করে নিতে অসুবিধা হয় না। বিহওয়ানা বর্তমানে একটি খ্রিশ্চান মিশন, তানজানিয়ার রাজধানী বিশাল দোদোমা শহরাঞ্চলের অন্তর্গত



    বিহওয়ানা, অর্থাৎ আমাদের পরবর্তী শিবিরের দিকে যাত্রাটি বন্ধুর ও দীর্ঘ, পথ চলেছে গঁদগাছ আর কাঁটাঝোপের টানা জঙ্গলের মধ্য দিয়ে, খাড়া পাহাড়ি পথ, অবশেষে চলেছে একটা তপ্ত সমতলের উপর দিয়ে, যেখানে যতই সূর্য মধ্যগগনের কাছে যাচ্ছে ততই তার তেজ বাড়ছে, যতক্ষণ না নির্জীব প্রকৃতির থেকে সবটুকু জীবনীশক্তি শুষে নিচ্ছে—একটা সাদা জ্বলজ্বলে দৃশ্য, ওই জ্বালার থেকে রেহাই পাওয়ার ব্যর্থ চেষ্টায় ক্লান্ত চোখের কাছে অসহ্য সে দৃশ্য। কয়েকটা বালিময় জলধারাও এই পথে পেরিয়ে এলাম, যাদের টানে অজস্র হাতির দল ছুটে আসে। এই নদীখাতগুলোর ঢাল দক্ষিণ-পূর্ব আর দক্ষিণ দিকে।

    এই উত্তপ্ত সমতলের মাঝখানে অবস্থিত বিহাওনার গ্রামগুলো সব প্রায় এক রকমের দেখতে—অত্যন্ত নীচু নীচু কুঁড়েঘর। এতই নীচু যে ওই বেলাগাম তাপে পুড়তে থাকা, লম্বা, রংজ্বলা ঘাসের মাথাও ছোঁয়নি। আমাদের শিবিরটা একটা বিশাল ঘেরা এলাকায়, সুলতানের বাড়ি থেকে প্রায় এক চতুর্থাংশ মাইল দূরে। শিবিরে পৌঁছানোর পরপরই তিনজন গোগো এল, আমার কাছে জানতে চাইল যে আমি রাস্তায় বউ-বাচ্চাসুদ্ধ কোনো গোগোকে দেখেছি কি না। খুবই সরলভাবে ‘হ্যাঁ’ বলতে যাচ্ছিলাম, তখন সতর্ক আর মনিবের স্বার্থবিষয়ে সদাসচেতন মাব্রুকি আমাকে উত্তর দিতে বারণ করল, চলিত রীতি অনুসারে গোগোরা তাহলে তাদের শেষ করে দেওয়ার দায় আমার উপর চাপাবে আর আমার থেকে ক্ষতিপূরণ চাইবে। আমার ঘাড়ে এমন দোষ চাপানোর চেষ্টা করাতে ক্ষুব্ধ হয়ে তাদের চাবুকপেটা করে শিবির থেকে তাড়ানোর জন্য যেই চাবুক তুলতে গেছি, মাব্রুকি সঘোষে আবার আমাকে সাবধান করল, কারণ প্রতিটি আঘাতের জন্য আমাকে তিন বা চার ডটি কাপড় দিতে হবে। নিজের রাগের ঝাল মেটানোর জন্য এত খেসারত দিতে অবশ্য আমি মোটেই রাজি ছিলাম না, অগত্যা বাধ্য হলাম রাগ গিলে ফেলতে আর ফলে গোগোরা শাস্তির হাত থেকে রেহাই পেল।



    দোদোমা অঞ্চলের যে প্রান্তরের বর্ণনা করেছেন স্ট্যানলে তার বর্তমান রূপ। এখন বিখ্যাত বন্যপশু-পর্যটনের জন্য



    এইখানে আমরা একদিন থামলাম, আমার পক্ষে সেটা এক বিরাট স্বস্তির ব্যাপার হল, যেহেতু আমি তখন প্রায় দু-সপ্তাহ ধরে থেকে থেকেই জ্বরে খুব ভুগছিলাম, এমনকি হাঁটার পরে প্রতি সন্ধ্যায় সবকিছু ডায়ারিতে লিখে রাখার যে অভ্যাসটা করেছিলাম, সেটা পর্যন্ত বন্ধ রাখতে হয়েছিল।

    প্রজারা যতই শত্রুভাবাপন্ন আর চুরি বা হত্যায় সদাপ্রস্তুত হোক না কেন, বিহাওনার সুলতান নজরানা হিসেবে তিন ডটি কাপড় পেয়েই খুশি। এই প্রধানের কাছ থেকে আমার চতুর্থ কাফেলার খবর পেলাম, সুলতানের বিতাড়িত প্রজাদের সঙ্গে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়ার জন্য তাদের আলাদা করে মনে আছে। আমার কয়েকজন কুলিকে রাস্তায় পাকড়িয়ে কাপড়ের গাঁটরি আর পুঁতির বোঝা নিয়ে পালানোর চেষ্টা করায় আমার সৈন্যরা দু-জনকে মেরে ফেলেছিল; ঠিক সময়ে হাজির হয়ে, সৈন্যরা নিশ্চিতভাবে লুঠেরাদের আটকে দিয়েছিল। সুলতান ভেবেছিলেন যে, সমস্ত কাফেলাই যদি আমার কাফেলার মতো সুরক্ষিত হত তবে পথে তাদের উপর লুঠতরাজের ঘটনা কম হত; এই বক্তব্যের সঙ্গে আমি আন্তরিকভাবে একমত।


    ক্রমশ...



    ১) খুব সম্ভবত স্ট্যানলে এখানে pied crow-র কথা বলছেন, যদিও উল্লেখ করেছেন white-necked crow বলে। আফ্রিকায় pied crow খুব সহজলভ্য। কিন্তু white-necked crow মূলত পাওয়া যায় ক্যারিবিয়ান অঞ্চলে।
    ২) মাইলো ৬০০ পূ র্বসাধারণাব্দের এক কুস্তিগির। ক্রোটনের লোক। অমানুষিক গায়ের জোরের অধিকারী এই লোকটি একটা পূর্ণাঙ্গ ষাঁড়কে কাঁধে নিয়ে পাহাড়ে চড়েছিলেন বলে কথিত।
    ৩) ক্যারাভানের গাইড বা পথপ্রদর্শককে কিরণগোজি বলে।

  • বিভাগ : ভ্রমণ | ১৭ জুন ২০২১ | ৪২৭ বার পঠিত
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা মনে চায় মতামত দিন