• বুলবুলভাজা  ভ্রমণ  যুগান্তরের ঘূর্ণিপাকে  খাই দাই ঘুরি ফিরি

  • ডেভিড লিভিংস্টোনের খোঁজে

    হেনরি মর্টন স্ট্যানলে
    ভ্রমণ | যুগান্তরের ঘূর্ণিপাকে | ০৪ মার্চ ২০২১ | ৬১৩ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • ডেভিড লিভিংস্টোনআফ্রিকায় বেপাত্তা। কিংবদন্তি মানুষটির খোঁজে আফ্রিকা পৌঁছেছেন মার্কিন সাংবাদিক হেনরি মর্টন স্ট্যানলেজাঞ্জিবার থেকে শুরু হল আফ্রিকার গভীরে অভিযান। প্রথম লক্ষ্য বাগামোয়ো শহরে পৌঁছে পাক্কা দেড় মাস ধরে সেখান থেকে একে একে রওনা হলো অভিযানের মোট পাঁচটি কাফেলা। চলছে অভিযানের মূল কাহিনি। স্ট্যানলের সেই বিখ্যাত সফরনামা ‘হাও আই ফাউন্ড লিভিংস্টোন’। এই প্রথম বাংলায়। এ কিস্তিতে উঙ্গেরেঙ্গেরি নদী পার হয়ে মিকেসেহে নামের একটি গ্রামের অভিমুখে যাত্রার কথা। তরজমায় স্বাতী রায়


    চতুর্থ অধ্যায়: উকড়ে, উকামি ও উদয়ের মধ্যে দিয়ে উসেগুহহা-র উদ্দেশে যাত্রা (পূর্বপ্রকাশিত অংশের পর)

    রাতের আগেই ওয়াংওয়ানার একটি ছোটো কাফেলা এসে পৌঁছাল। তাদের সঙ্গে জাঞ্জিবারের দয়ালু আমেরিকান রাষ্ট্রদূতের লেখা একটা দীর্ঘ চিঠি আর এক তাড়া পুরোনো হেরাল্ড সংবাদপত্র এসে পৌঁছাল। কাগজের তাড়ায় ফেব্রুয়ারির চার তারিখ অবধি কাগজ ছিল। কংগ্রেস ও নিউইয়র্কের আইনসভার কাজকর্ম বা আমেরিকার চমকপ্রদ অপরাধের উদ্‌ঘাটন ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ের নানান মুখরোচক খবর পেলাম। তার মধ্যে প্রেসিডেন্ট গ্রান্টের দ্বিতীয় ‘লেভি’ বা আপ্যায়ন অনুষ্ঠানেরও বিবরণও ছিল। এই উল্লেখযোগ্য অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া মহিলাদের সাজগোজের এক দুরূহ বাগাড়ম্বরপূর্ণ বর্ণনা জেনকিন্‌স দিয়েছিলেন—মিসেস অমুকের মনমাতানো ধূসর কোঁকড়া চুলে কেমন ভাবে ল্যাভেন্ডার রং-এর উটপাখির পালক দোল দিচ্ছিল; দৃপ্ত-ব্যক্তিত্বের মিসেস তমুকের অপূর্ব সজ্জা কেমন হিরের দ্যুতিতে আরও দীপ্তিমান হয়ে উঠেছিল; অন্য কোনো এক মিসেস কী সুন্দর একটা টুকটুকে লাল রঙের সাটিনের ঝালর দেওয়া ওভারস্কার্ট পরেছিলেন; রাজকীয় বেগুনি রঙের সাটিনের পোশাক পরিহিতা মিসেস ক হেঁটে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাঁর হিরের গহনার থেকে কেমন আলো ঝলকাচ্ছিল; গভীর পুরুষালি গলা ও একজোড়া ধূসর সন্ধানী দৃষ্টির অধিকারী আমাদের প্রেসিডেন্ট তাঁর দ্বিতীয় দরবারের উপলক্ষ্যে জড়ো হওয়া মান্যগণ্য মানুষদের সেবায় কেমন আত্মোৎসর্গ করেছিলেন—এইরকম চড়াদাগের তোষামুদে খবরাখবর।



    হোয়াইট হাউসে ‘প্রেসিডেন্ট’স্‌ লেভি’। ছবি সৌজন্য: লাইব্রেরি অফ কংগ্রেস


    এইসব মজাদার খবরের থেকে চোখ তুলে দেখি যে আমার তাঁবুর দরজায় একদল কৃষ্ণকায় কিসেমো-কন্যা ভিড় জমিয়েছে। এতক্ষণ ধরে লম্বা কাগজের পাতায় মুখ গুঁজে আমি কী করছি সেই রহস্য উদ্‌ঘাটনের বৃথা চেষ্টায় মগ্ন তারা। বন্ধুবর জেনকিন্‌স যা বর্ণনা করেছিলেন আর আমার চোখের সামনে যে ঘোর বাস্তব দৃশ্য— দুয়ের মধ্যে এতই প্রবল তফাত যে ওই সুসজ্জিতা মহিলারা যে আসলে কেমন দেখতে সেটা মনে করতেই রীতিমতো স্মৃতিশক্তির জোর লাগল। একদিকে একরাশ ঝকঝকে সোনালি চুলওয়ালা সুন্দরী, যার চোখের ঔজ্জ্বল্য হিরের দ্যুতির সঙ্গে পাল্লা দেয়। আর অন্যদিকে আমার দরবারে উপস্থিত হওয়া মেয়েদের একজন— স্বাভাবিক ঔজ্জ্বল্য আর নগ্নতার সৌন্দর্যে ভাস্বর—বারো-তেরো বছরের নারীত্বের দরজায় পা দেওয়া পুষ্টদেহ কৃষ্ণকলি; মাথা-বোঝাই মোরগঝুঁটির মতো পশমি চুল, দু-বছরের পুরোনো কাপড়ের আড়াল থেকে উঁকি দিচ্ছে প্রয়োজনাতিরিক্ত, উপচে-পড়া দেহসুষমা, প্রতি হাতে-পায়ে তিন পাউন্ড পিতলের তারের গয়না, গলা ঘিরে লহরে লহরে পুঁতির মালা। দু-দল মেয়ের মধ্যে তফাত ঠিক কোন্‌খানে? তবে বাস্তবিকই জেনকিন্‌সের মতো পটু লোক যেখানে খবর দেওয়ার জন্য থাকেন, সেই প্রেসিডেন্টের দরবারের সঙ্গে কি আর আমার দরবারের তুলনা হয়!

    ১২ তারিখে কাফেলা মুসৌদি পৌঁছেছিল, উঙ্গেরেঙ্গেরি নদীর তীরে। আমাদের অসীম ধৈর্যবান গাধাগুলোর কপাল ভালো, এই পদযাত্রাতে জঙ্গলের বিরক্তিকর ঝামেলাগুলো আর ঘটেনি। আমাদের জন্যও সুখের বিষয়, সবসময় আর পোঁটলা-পুঁটলির দিকে নজর রাখতে হচ্ছিল না। তা ছাড়া রাতের আগে শিবিরে পৌঁছাতে পারব কিনা সে দুশ্চিন্তার হাত থেকেও রেহাই পেলাম। আমাদের সুস্থ গাধাদের পিঠে একবার বোঁচকাগুলো চাপিয়ে দেওয়া হল, তারপরে তারা শিবিরের দিকে হাঁটা দিল—রাস্তাটা খুবই ভালো—আর একবারও কোনো কিছু পিঠের থেকে পড়ল না, অধৈর্য হয়ে চেঁচানোর দরকার হল না—রাতের আগেই তারা শিবিরে পৌঁছে গেল।

    উন্যানয়েম্বে যাওয়ার রাস্তা যদি গোটাটাই এরকম হত, তাহলে তো এই যাত্রাকে রবিবারের ছুটিতে স্টাটেন দ্বীপে ঘুরতে যাওয়া বা ঘোড়ার গাড়ি চেপে সেন্ট্রাল পার্কে বেড়াতে যাওয়ার মতো আরামের ব্যাপার বলেই ভাবা যেত। নুড়ি-বিছানো পথ, পুকুর ও হ্রদ, জাদুঘর, জাফরিকাটা কুঞ্জবন, কিওস্ক, ইউনিফর্ম-পরা পুলিশ ও সুসজ্জিত দর্শনার্থীদের বাদ দিয়ে সেন্ট্রাল পার্ক কল্পনা করতে পারেন? সংক্ষেপে বললে, পূর্ণবিকশিত সভ্যতার ছাপটুকু সেন্ট্রাল পার্কের গা থেকে মুছে ফেলে দিয়ে, কেবল মন-খুশি-করা লন আর উঁচু-নীচু জমি—কোথাও হালকা ঢালু, কোথাও আবার উপরদিকে উঠতে উঠতে হারিয়ে গেছে উপবনে—নিউইয়র্ক পার্কের এমন একটা ছবি যদি ভাবতে পারেন, তবে সে ছবির সঙ্গে কিসেমো ছাড়ার পরে আমাদের চোখের সামনে এদেশের যে ছবি ফুটে উঠল, তার ভারী মিল। চমৎকার বন্য প্রকৃতি, অসংখ্য ফুল এবং বিভিন্ন সুবাসিত গুল্মের গন্ধে ভরা, যার মধ্যে আমি বুনো ভুঁই-তুলসি (sage), নীল (indigo) গাছ ইত্যাদি চিনতে পারলাম। মাইল বিশেক দূরে, উদো এবং উকামির সীমানা বরাবর অবস্থিত কিরা ও তার সঙ্গী গিরিদলের পায়ের কাছটিতে গিয়ে এই অপরূপ দৃশ্যটি শেষ হয়েছে। দূরের পাহাড়ের সারির পটভূমিকায় উন্মুক্ত সমতল প্রান্তর, টুকরো টুকরো জঙ্গল এবং ঢালু তৃণভূমির অপরূপ দৃশ্য এক অসামান্য ছবি তৈরি করেছে। নীল পাহাড়ের সৌন্দর্য আর মাহাত্ম্য ছবিটিকে যেন সম্পূর্ণ করে তুলেছে।

    উঙ্গেরেঙ্গেরি নদীর উপত্যকার যত কাছে যাচ্ছি, ততই দেখি লালমাটির উপরে গ্র্যানাইটের গোল মাথা আর ঝলমলে কোয়ার্টজের টুকরো বেরিয়ে আছে। পাহাড়ের ঢাল পাথরে ভরা। ঢাল বেয়ে নেমে এসে দেখি আমাদের চারপাশে উঙ্গেরেঙ্গেরি নদীর কালো পলির প্রলেপ, মাঠ-ভরা আখ, মাতামা, ভারতীয় ভুট্টা, সিমলা আলু, বাগান উপচে পড়ছে সবজি, বেগুন ও শসা গাছে। উঙ্গেরেঙ্গেরির তীরে খুব ভালো কলা হয়, আর কলাঝোপের মাথার উপর দিয়ে সত্তর ফুট বা আরও বেশি উপরে মাথা তুলে আছে রাজকীয় এমপারামুসি। পারস্যের চিনার গাছের সৌন্দর্যের সঙ্গে পাল্লা দেয় সে। এই এলাকার সৌন্দর্য আবিসিনিয়ার সমতলের তুল্য। প্রথম শ্রেণির রণতরির প্রধান মাস্তুল যেমন সটান, সুন্দর হয়, তেমনই সোজা, চোখ-জুড়ানো এই গাছের দেহ, ক্রমশ ছড়িয়ে পড়া পাতার টোপরটি ঘনত্বে আর উজ্জ্বল সবুজ রঙের দৌলতে আর দশটা গাছের থেকে আলাদা। আরও অনেক রকমের বড়ো গাছও ছিল। তাদের সুদূর প্রসারিত শাখা সরু, খরস্রোতা নদীটিকে জড়িয়ে ধরেছিল। উপত্যকার নীচু জায়গাতে ও নদীর পাশের অঞ্চলগুলি বিশালাকার ঘাসের কচি বন আর নলখাগড়ার ঝোপে ভরা।

    অন্য গ্রামগুলোর তুলনায় মুসৌদি খানিকটা উঁচুতে অবস্থিত। ফলে আশেপাশের শতখানেক বা তারও বেশি গ্রামকে মুসৌদির লোকেরা বেশ অবজ্ঞার চোখেই দেখে। উকুয়েরের একদম পশ্চিমে এই গ্রামটা। উঙ্গেরেঙ্গেরির পশ্চিম তীরে ওয়াকামির রাজত্ব শুরু। মুসৌদিতে একদিন থামতে হল কারণ এখানকার লোকেরা এতই গরিব যে আমাদের দরকার মতো খাদ্য জোগাড় করে উঠতে পারিনি। আমাদের ঠিক আগেই অনেকগুলো কাফেলা এসেছিল—আগামী দিনগুলির রসদ তারা এখান থেকেই সংগ্রহ করেছে। এত উর্বর, জনাকীর্ণ উপত্যকাতেও ফলে খাদ্যশস্যের এমন আকাল দেখা দিয়েছে।



    ১৪ তারিখে আমরা উঙ্গেরেঙ্গেরি নদী পেরোলাম। এখানে নদীটা উপত্যকার দক্ষিণ প্রান্ত অবধি দক্ষিণবাহিনী, তারপর বাঁক ঘুরে পুবমুখো হয়ে চলেছে কিসেমো পর্যন্ত। হাঁটুজল, মাত্র বিশ গজ চওড়া। নদী পেরানোর পরে, আবার মাইলখানেক উপত্যকা—ভয়ানক আর্দ্র মাটি আর সার দিয়ে ঘাসের জঙ্গল। এরপর এমপারামুসি, তেঁতুল, চিরহরিৎ ঝাউ, বাবলা ও ফুটন্ত মিমোসার জঙ্গলের মধ্য দিয়ে পথটি উপর দিকে উঠতে শুরু করল। দু-ঘণ্টা উপরে ওঠার পরে, সর্বোচ্চ চুড়োয় পৌঁছালাম। নীচে জঙ্গলে ঢাকা উপত্যকা আর দূরের সদ্য ছেড়ে আসা কিসেমোর পাহাড় শ্রেণি পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে। কয়েকশো ফুট নীচে নামতেই একটা গভীর, শুকনো, বালুকাময় খাতে এসে পৌঁছালাম, এই নালাখাত পেরিয়ে ওপারে আবার যতটা নেমে এসেছি ততটাই ফের উঠতে হবে। চারপাশে আবার একই রকম দৃশ্যের মধ্যে দিয়ে পথচলা, যতক্ষণ না আমরা জলের পাশে একটা বেড়া-ঘেরা গ্রাম দেখতে পেলাম। সেখানে কী সুন্দর ঘাসের কুঁড়ে রয়েছে, সদ্য নির্মিত—সঙ্গে সঙ্গে একরাতের আশ্রয় হিসেবে জায়গাটা দখল করলাম। টানাগাড়িটা খুবই ঝামেলা করছে; এমনকি আমাদের শক্তিশালী গাধাগুলোও যারা কিনা সহজেই ১৯৬ পাউন্ডের উপর ওজন বইছিল, তারাও মাত্র ২২৫ পাউন্ড ওজনের বোঝা সমেত গাড়িটা আর টানতে পারছে না।

    ১৫ই ভোরবেলায় আমরা শিবির গুটিয়ে মিকেসেহের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করলাম।


    (ক্রমশ... পরের কিস্তি পড়ুন পরের বৃহস্পতিবার)


    ১) আরব বণিকদের আফ্রিকান সহচরদের বংশধররা ব্যাবসা করতে আফ্রিকার অন্তঃপুরে যাওয়া শুরু করে ১৮০০ সাল নাগাদ। অভ্যন্তরের উপজাতিদের সঙ্গে নিজেদের তুলনা করে এরা নিজেদের ওয়াংয়ানা বা স্বাধীন মানুষ (ফ্রি ম্যান) বা (বেশি) সভ্য মানুষ বলত।
    ২) কনিফার গোত্রের ইয়োলোউড গাছ।



    গ্রাফিক্স: স্মিতা দাশগুপ্ত
  • বিভাগ : ভ্রমণ | ০৪ মার্চ ২০২১ | ৬১৩ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • বাইরে দূরে | ০৪ মার্চ ২০২১ ১৬:৫৯103161
  • আমার অভিজ্ঞতায় অনেক নাম বদলে গেছে। ধরুন এখন যদি কেউ এই অনচলে সট্যানলির পদ চিনহ ধরে ( মোরোগোরো অসাধারন - অবশ্যই দেখার মত ) যান তাদের সুবিধারথে বরতমান নামের তালিকা ফুটনোটে দিতে পারেন। যেমন সট্যানলি যাকে উনগেরেনগেরি বলেছেন সেটা এনগেরেনগে নামে পরিচিত। একটা ছোট খাট জনপদ। অথবা একেবারে শেষে সেই তালিকা দিতে পারেন। 

  • স্বাতী রায় | 117.194.34.218 | ০৬ মার্চ ২০২১ ০১:৩০103189
  • ভালো আইডিয়া। মাথায় রাখব। ধন্যবাদ। 

  • ar | 96.230.106.154 | ০৭ মার্চ ২০২১ ০৭:০১103211
  • প্রেসিডেনসিয়াল লেভীর ছবিটা তো পিয়ার্সের (ফ্যাঙ্কলিন পিয়ার্সঃ ১৮৫৩-১৮৫৭) লেভীর। ঊলেসিস গ্র্যান্টের (Ulysses S Grantঃ ১৮৬৯-১৮৭৭) আলোচনার সাথে পিয়ার্সের লেভীর ছবি জুড়ে দেওয়াটা একটু আজব লাগল।
    ["একটা ভালো লেখাকে অহেতুক exotic করার চাপ না নেওয়াই ভালো" : প্রাচীন অরণ্য প্রবাদ!]

  • বাইরে দূরে | ০৯ মার্চ ২০২১ ১৬:৪৪103340
  • স্ট্যানলির কল্পনা শক্তি অসাধারণ ছিল। যুদ্ধ ক্ষেত্রে না গিয়েই তার দুর্ধর্ষ বর্ননা দেবার ক্ষমতা রাখতেন এতেই তো বেনেট সাহেব চমৎকৃত হয়ে যান। আর এটা তো প্রমাণিত সত্য যে তাঁর ডায়েরীর ৮ ও ৯ নভেম্বরের পাতা কখনো খুঁজে পাওয়া যায় নি অথচ ১০ তারিখ তিনি ডক্টর লিভিংস্টোনের মুখো হয়েছেন . আরেকটা কথা - আফ্রিকাকে কালো মহাদেশ নামটি তিনিই প্রথম দিয়েছেন ( থ্রু দি ডার্ক কন্টিনেন্ট ) সে নাম রয়ে গেলো। 

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। কল্পনাতীত মতামত দিন