• বুলবুলভাজা  ধারাবাহিক  বিবিধ  শনিবারবেলা

  • ইহুদি রসিকতা (২)

    হীরেন সিংহরায়
    ধারাবাহিক | বিবিধ | ২৩ এপ্রিল ২০২১ | ৩১২ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • প্রথম পর্ব | দ্বিতীয় পর্ব | তৃতীয় পর্ব

    প্রায় এক দশকের জার্মান প্রবাস কালে ইহুদি রঙ্গ রসিকতার সঙ্গে আমার পরিচিতি ছিল ক্ষীণ। সেটা ওই দক্ষিণের ব্যাভেরিয়া বা উত্তরের ফ্রিসল্যান্ডের অধিবাসীদের নিয়ে চালু রসিকতার চেয়ে অন্য রকম কিছু ছিল না। কিছু মজার গল্প, স্থানীয় রঙ মেশানো। কিছুটা ভাঁড়ামো। আকাশে বিদ্যুৎ চমকালে ফ্রিসল্যান্ডের মানুষ হাসে কেন? তারা মনে করে তাদের ছবি তোলা হচ্ছে। ব্যাভেরিয়ানদের আলাদা জাতি বলে মনে করে বাকি দেশটা। ব্যাভেরিয়ানরা সেই বাকি দেশকে প্রাশিয়া বলে অভিহিত করে নানান ভাষায় গালমন্দ করে। মিউনিকের আলিয়ান্তস ষ্টেডিয়ামে বায়ার্ন –মিউনিক বনাম হামবুর্গের খেলা দেখার সৌভাগ্য হয়েছে এককালে। ব্যাভেরিয়া বনাম প্রাশিয়া। দু পক্ষের শব্দ চয়ন ও তার বিন্যাস স্মরণীয় হয়ে আছে ।

    আমার জার্মানির দিনগুলিতে ইহুদি রসিকতা শুনেছি। তার সবটাই জার্মান ভাষায়। ইদিশ নামক একটা ভাষা আছে বলে শুনেছিলাম। তার সঙ্গে জার্মান ভাষার নিকটতম আত্মীয়তা যে স্থাপিত হয়েছে এক হাজার বছর আগে, সে তথ্য আমার সম্পূর্ণ অজানা ছিল। লন্ডনের ইহুদি পাড়ায় বাসা বাঁধার পরেও নয়।

    ১৯৮৫ সালে আমি লন্ডনে এসেছি। সিটি ব্যাঙ্কে কাজ করি। একদিন পূর্ব লন্ডনে গেছি খদ্দেরের খোঁজে। হাতে অনেকটা সময়। ট্যাক্সি নয় টিউব ধরে স্ত্রান্দে আমাদের অফিসে ফিরব। হোয়াইট চ্যাপেলে কমার্শিয়াল রোড ধরে হাঁটছি, পুরনো লন্ডন ডকের কাছাকাছি । দেড়শ দুশ বছর আগে এই জলপথে মানুষ লন্ডন আসতেন। হিথরো তখন অনেক দূরের কল্পনায়। রাইট ভ্রাতৃদ্বয় সবে হাওয়ায় প্লেনের মডেল ওড়াচ্ছেন।

    ডক এলাকায় অভ্যাগত বিদেশির প্রথম পদার্পণ। অল্প পয়সায় ছোট ঘরে মাথা গোঁজা, নতুন জীবন যাত্রার চেষ্টা শুরু। এখান থেকেই অভিবাসনকারীরা ক্রমশ ছড়িয়ে পড়েছেন সারা দেশে। নিউ ইয়র্কের এলিস আইল্যান্ড এর সমতুল্য। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে লন্ডন ব্লিতসের (১৯৪০) সময়ে ডকল্যান্ড সম্যক বিধ্বস্ত হয়। তার মেরামতি বা পুনর্নির্মাণ হয়েছে মাত্র বছর চল্লিশেক আগে, সেটি জলের সীমানা ঘেঁষে। আশেপাশের পথে কিছু লাল ইটের বাড়ি বেঁচে গেছে, সংখ্যায় খুবই কম।সেগুলোকে হয়ত কালজয়ী আখ্যা দেওয়া যায় ।

    অজস্র দোকান। বেশির ভাগ জামা কাপড়, সংসারের প্রয়োজনের জিনিসের। গত কয়েক দশকে অনেক মানুষ এসেছেন বাংলাদেশ থেকে, পূর্ব লন্ডন তাঁদের প্রথম ঠিকানা - যেমন ছিল এককালে ইহুদিদের। নানান সাইনবোর্ডে বাংলায় দোকানের নাম লেখা। একটা উঁচু লাল ইটের বাড়ি বাঁ দিকে চোখ পড়ল। তার মাথাটা ত্রিকোণাকৃতি, যাকে গেবল বলে। যুদ্ধে বিজিত হয়নি। তবে বহু বছরের অবহেলায় অযত্নে বিবর্ণ! তার দেওয়ালে, উঁচুর দিকে যেন ইটে কালো রঙে লেখা আছে জুইশ থিয়েটার। সে নাট্যশালা হয়ত বহুদিন যাবৎ বন্ধ । রাস্তার লেভেলে তিনটে আর্চ – এককালে হয়ত টিকিট ঘর ছিল। এখন সেগুলোকে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে যাতে ভারসাম্য হারিয়ে বাড়িটি ভেঙে না পড়ে। এই সব রাস্তায় বাড়ি জমির দাম কম। এখনো কোন ডেভেলপারের আগ্রহ সঞ্চার করেনি বলে একশ বছরের স্মৃতি নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে কারো অপেক্ষায় ।

    হাতে সময় আর মনের ভেতরে অপ্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করার দুর্মদ অভিলাষ। আরেকটু কাছে গেলাম। মাঝের আর্চটির দু পাশে কিছু লেখা আছে। ডান দিকে সম্ভবত হিব্রু (কেন না সেটি দুর্বোধ্য!) বাঁ দিকে রোমান অক্ষরে কয়েকটা শব্দ। সেটা ইংরেজি নয়, মনে হল জার্মান। পড়বার চেষ্টা করলাম। কথাগুলো পড়তে পারি। চেনা মনে হয় কিন্তু অর্থ উদ্ধার করা গেল না। কৌতূহল বাড়ল। কিছুটা বুঝি পুরোটা নয়। এ কোন ভাষা? সে আমলে ফোন ক্যামেরা ছিল না যে ছবি তুলে রাখব। পথ চলতি জনতাকে জিগ্যেস করার কোন মানে হয় না। অলডগেট স্টেশন এসে টিউব পাওয়া গেল। সদ্য আহরিত শব্দ গুলো আমার ব্যাংকের নোটবইতে যতটুকু মনে পড়ল লিখে রাখলাম।

    জার্মানি ছেড়ে ইস্তক মনে হত ভাষার সঙ্গে সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন হচ্ছে। সে আমলে লন্ডনের স্যাটেলাইটে জার্মান টেলিভিশন পাওয়া যেত না। অফিস থেকে জার্মান সরকারের লাইব্রেরীতে গেছি, কেনসিংটনে। সেখানে পত্র পত্রিকা মেলে, বসে পড়ার জন্য। তারপর একদিন আবিষ্কার করলাম আমাদের গোলডারস গ্রিনের বাড়ির কাছেই বারনেট কাউন্সিলের লাইব্রেরি, সেখানে জার্মান বই রাখে। এখানেই আমি মূল ভাষায় হেসে, কাফকা ইত্যাদি পড়েছি।

    একজন বয়স্ক অধ্যক্ষ ছিলেন। আমার নির্বাচিত বইগুলি কাউন্টারে রেখে যখন ছাপ মারছেন কোনও কর্মী, তিনি পাশ থেকে আমার নানান বিচিত্র বিষয়ে বই নেওয়ার ব্যাপারটা সকৌতুকে লক্ষ্য করতেন। একদিন একসঙ্গে ছটি বই নিচ্ছি দেখে বললেন আপনি কি কাজ থেকে অবসর নিয়েছেন?(তখন আমার বয়েস ৩৬) । এত বই পড়বার সময় কোথা থেকে পান?

    ব্যস্ত নেই দেখে তাঁকে একদিন ধরলাম।

    “একটা কথা জিগ্যেস করতে পারি? আপনি কি এই ভাষাটা চেনেন?” এই বলে আমার হাতের প্রায় অপাঠ্য হরফে লেখা একটি কাগজ তাঁর দিকে বাড়িয়ে দিলাম। সেখানে লেখা আছে “গুট টাক ইম বেটাগে”।

    চশমার ফাঁক দিয়ে চোখ তুলে আমার দিকে হাসিমুখে তাকালেন ।
    “কোথায় পেলেন”
    ঘটনাটা বললাম।

    “ওটা এককালে ইহুদি থিয়েটার ছিল। সে তো পঞ্চাশ বছর আগে বন্ধ হয়ে গেছে।”

    “সেটা অনুমান করতে পারি! তবে কী, এই শব্দগুলো একটু চেনা মনে হচ্ছে, কিন্তু মাথায় ঠিক ঢুকছে না। তাই আপনাকে জিগ্যেস করছি।”

    “কোন ভাষার সঙ্গে মিল খুঁজে পাচ্ছেন? জার্মান?” আমি নিয়মিত জার্মান বই নিতাম । কাজেই তিনি সে সম্পর্কে অবহিত ছিলেন।

    “আজ্ঞে হ্যাঁ। ডাচ সুইডিশ ডেনিশ নরওয়েজিয়ানের সঙ্গে জার্মান মেলে। কিন্তু এই শব্দগুলো তাদের সঙ্গেও ঠিক মিলছে না।খটকায় পড়ে গেলাম”।

    লাইব্রেরিয়ান পাশের আর একজনকে ডাকলেন কাউন্টার সামলানোর জন্য।

    “আসুন আমার সঙ্গে”।

    নিয়ে গেলেন একটি অফিস ঘরে। চারিদিকে স্তূপাকৃতি বই। নাম নম্বর দিয়ে ক্যাটালগে গ্রন্থিত হবার অপেক্ষায় আছে। একটা মাত্র জানলা। তার পাশে একটা ছোট্ট টেবিল আর দুটো চেয়ার। বাইরে একটা ম্যাগনোলিয়া গাছ। ফুলে ভরে আছে। বসন্ত জাগ্রত গোলডারস গ্রিনে।

    ১৮ শতকের শেষ পর্বে নাপলেওঁ মিশর অভিযানে আসেন শুধু সেনাবাহিনী নিয়ে নয় । সঙ্গে আনেন ১৬৭ জন বৈজ্ঞানিক ভাষাবিদ গণিতজ্ঞ । ইংরেজ হাওয়ারড কারটার মহা নিদ্রায় নিদ্রিত ফারাওদের সমাধি লুণ্ঠন করেছিলেন। নাপলেওঁ দু বছরের ভেতরে সে সময়কার মিশরের সঙ্গে বাকি পৃথিবীর পরিচয় করান। কিন্তু মুশকিল হল ভাষাটা নিয়ে । হায়ারোগ্লিফিক কোন পরিচিত ভাষার সঙ্গে মেলে না। ওই আঁকি বুকি কাটা অক্ষর কি অচেনা থেকে যাবে মানুষের কাছে? যেমন থেকেছে মোহানজোদরো?

    ১৭৯৯ সালের ১৯ জুলাই মিশরের রাশিদ গ্রামে পিয়ের বুশা নামক এক ফরাসি মাটিতে পোঁতা একটি শিলালিপি উদ্ধার করেন। এমনধারা পাথরের ছড়াছড়ি মিশরে। কিন্তু পিয়ের লক্ষ করলেন এখানে পাশা পাশি তিন স্তরে কোন ভাষ্য লিখিত হয়েছে। হয়ত তিনটে আলাদা ভাষায়। তার একটি গ্রিক। হঠাৎ আলোর ঝলকানি। তবু সময় লাগে। দুই দশক বাদে জন ফ্রানসোয়া শামপিলিওঁ হায়ারোগ্লিফিকে লুকনো মিশর রহস্যের সমাধান করলেন। ১৮২১। নাপলেওঁ তখন সেন্ট হেলেনায় বন্দি। তিনি কি সে খবর পেয়েছিলেন?

    প্রায় তিরিশ বছর আগে গোলডারস গ্রিন লাইব্রেরিতে রবিবার সকালে এক সহৃদয় ইহুদি লাইব্রেরিয়ান আমার কাছে মিশরের সেই রোসেটা শিলালিপির মত আরেকটা ভাষার জানলা খুলে দিলেন। পরিচয় করিয়ে দিলেন যার সঙ্গে তার নাম ইদিশ। জার্মানের নিকটতম আত্মীয়। শুধু একটাই অসুবিধে। এটি লেখা হয় হিব্রু লিপিতে, ডান দিক থেকে বাঁ দিকে। তবে তিনি (আজ আর নাম মনে নেই বলে দুঃখিত) বললেন “যে লেখাটা আপনি দেখেছেন তার অর্থ ‘দিন হোক মঙ্গলময়’। এটি একটি বাক্যের অংশ। পুরো কথাটা হল যিনি এই প্রার্থনার বইটি সিনাগগে নিয়ে আসবেন তাঁর দিনটি হোক মঙ্গলময়। ১৩ শতকের একটি হিব্রু প্রার্থনা বইতে প্রথম পাওয়া যায়। আপনি এখানে চিনেছেন প্রথম দুটো শব্দ গুট টাক। আপনার মনে হয়েছে চেনা শব্দ, এটা জার্মান। গুট টাক পড়ে ভেবেছেন হওয়া উচিত ছিল গুটেন টাগ!”

    আমি বললাম “তাহলে ওই থিয়েটারের ডান দিকের আর্চে হিব্রু হরফে একই কথা লেখা ছিল?”

    লাইব্রেরিয়ান বললেন, “ঠিক তাই। এক পাশে হিব্রুতে, অন্য দিকে রোমান অক্ষরে। ভাষাটা ইদিশ।” হতাশ হয়ে বললাম “এ বয়সে আমার আর হিব্রু অক্ষর পরিচয় করা হয়ে উঠবে না! সেখানেই আটকে যাব!”

    “ইদিশ হিব্রু হরফে লেখা হয়। সেটা আপনার পক্ষে বিষম বাধা। তবে আপনি রোমান হরফেও অনেক কিছু পড়ার বস্তু পাবেন। জার্মান যখন জানেন, মাঝে সাঝে আটকালেও পার পেয়ে যাবেন। আর একটা কথা । আমাদের এই লাইব্রেরিতে ইদিশ শেখার ক্যাসেট আছে। সেটা কানে শোনার ব্যাপার। নিয়ে যান। চোখ বন্ধ করে শুনুন! ইদিশে গল্প গুজব! সেখানে আপনি হিব্রু হরফের ধন্দে পড়বেন না। সত্তর শতাংশ শব্দ আপনার যে চেনা! তবে আপনার মনে হবে নিতান্ত অশিক্ষিত লোকের মুখে জার্মান শুনছেন”।

    অনেক ধন্যবাদ দিয়ে বিদায় নেবার জন্য যখন উঠে দাঁড়ালাম, আমার দিকে তাকিয়ে বললেন, “ইদিশ ভাষাভাষীর সংখ্যা পৃথিবীতে কম। এই গোলডারস গ্রিনের পথে ঘাটে কিছু বয়স্কদের মুখে শুনবেন, কান খাড়া করে রাখলে। সবচেয়ে বেশি ইদিশ শোনা যায় ইসরায়েলে নয়, নিউ ইয়র্কের ব্রুকলিনে। পরিচয় যখন হল আশা করি ইদিশ ভাষাটার চর্চা করবেন! আমি নিজে ইহুদি বলে বলছি না। মন দেবেন ইহুদি রসিকতাতে। প্রায় সমস্ত ইদিশ রসিকতা জার্মানে পড়তে পারবেন। ইংরেজিতেও। তবে জার্মানে সেটা বেশি খোলে, এ দুটো ভাষার গভীর আত্মীয়তার কারণে।গভীর সমুদ্রে নিমজ্জিত হবেন। এর থেকে মুক্তি নেই !”





    গ্রাফিক্স: মনোনীতা কাঁড়ার
    প্রথম পর্ব | দ্বিতীয় পর্ব | তৃতীয় পর্ব
  • বিভাগ : ধারাবাহিক | ২৩ এপ্রিল ২০২১ | ৩১২ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
আরও পড়ুন
কাগজ  - Sudipta Ray
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Kalpana Sarkar | ২৫ এপ্রিল ২০২১ ১৪:২৮105155
  • খুব ভালো লাগলো I 

  • নাসের আলি | 2409:4061:585:8490:ea4f:7647:3955:2a65 | ২৫ এপ্রিল ২০২১ ১৫:২০105160
  • সমৃদ্ধ হলাম l জানতে পারলাম যুগে ভাষার বিবর্তন কি ভাবে ঘটে চলেছে l 

  • শান্তা সান‍্যাল (ভাদুড়ী) | 2409:4060:96:a165::2475:b8a0 | ২৬ এপ্রিল ২০২১ ০৮:৪৫105192
  • অসাধারণ। তথ্য পরিপূর্ণ লেখা; গল্পের ছলে পরিবেশনার গুণে এক নিঃশ্বাসে পড়ে ফেলা যায়।সমৃদ্ধ হলাম তো বটেই,  সাহিত্য পাঠের নির্ভেজাল আনন্দ‌‌‌ও পেলাম।

  • শান্তা সান‍্যাল (ভাদুড়ী) | 2409:4060:96:a165::2475:b8a0 | ২৬ এপ্রিল ২০২১ ০৮:৪৫105191
  • অসাধারণ। তথ্য পরিপূর্ণ লেখা; গল্পের ছলে পরিবেশনার গুণে এক নিঃশ্বাসে পড়ে ফেলা যায়।সমৃদ্ধ হলাম তো বটেই,  সাহিত্য পাঠের নির্ভেজাল আনন্দ‌‌‌ও পেলাম।

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খেলতে খেলতে মতামত দিন