• হরিদাস পাল  আলোচনা  বিবিধ

  • ওয়ার সিমেট্রি ও আমরা

    Muhammad Sadequzzaman Sharif লেখকের গ্রাহক হোন
    আলোচনা | বিবিধ | ২৯ জুলাই ২০২০ | ৩৯৫ বার পঠিত
  • জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
  • Commonwealth War Graves Commission নামে একটা সংস্থা আছে। এরা প্রথম ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় ব্রিটিশ যত সৈন্য নিহত হয়েছে তাদের প্রতি সম্মান জানানোর কাজ করে। বিভিন্ন জায়গায় যত কবর আছে যুদ্ধের সব গুলোর যত্ন নেওয়া, ইতিহাস তুলে রাখা এবং তাদের যেন কখনোই মানুষ ভুলে না যায় তা নিশ্চিত করা হচ্ছে এদের কাজ। CWGC একটা ওয়েব সাইট আছে, তাতে তারা বলছে পুরো দুনিয়ায় ২৩ হাজার স্থানে ওয়ার সিমেট্রি আছে আর তাতে শায়িত আছে ১.৭ মিলিয়ন নর নারী সৈনিক। এই সংস্থা ১৯১৭ সালে Imperial War Graves Commission নামে যাত্রা শুরু করে, ১৯৬৫ সালে নাম পরিবর্তন করে Commonwealth War Graves Commission হয়। কিন্তু কাজ একই আছে, এই দীর্ঘ দিন ধরে তারা নিজেদের বীরদের সম্মান দিয়ে আসছে। 


    বাংলাদেশে দুইটা বড় ওয়ার সিমেট্রি আছে। একটা কুমিল্লার ময়নামতিতে আরেকটা চট্টগ্রামে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় বার্মা বর্তমান মায়ানমার যুদ্ধে নিহত ৪৫ হাজার সৈন্যের স্মৃতি রক্ষার্থে মায়ানমার, আসাম, এবং বাংলাদেশের ৯টি রণ সমাধিক্ষেত্র তৈরি করা হয়েছে। ময়নামতি সমাধিক্ষেত্রে আছে ৭৩৬ টি কবর আর চট্টগ্রাম সমাধিক্ষেত্রে আছে ৭৫৫ টি কবর। অবিভক্ত ভারতবর্ষ ছাড়াও দুনিয়ার নানা দেশের নাগরিক এখানে শুয়ে আছে। যাদের নাম পরিচয় পাওয়া গেছে তাদের নাম পরিচিয় সহ সব কিছু দেওয়া আছে। যার যার ধর্মীয় পরিচয় অনুযায়ী নানান প্রতীক ব্যবহার করা হয়েছে। যার কবরে ক্রুশ দরকার সেখানে ক্রুশ দেওয়া আছে যার আরবি লেখা দরকার তার কবরে আরবি ব্যবহার করা হয়েছে। ময়নামতি সমাধিক্ষেত্রে ব্যতিক্রমী একটি কবর রয়েছে, যেখানে একসাথে ২৩টি কবর ফলক দিয়ে একটা স্থানকে ঘিরে রাখা হয়েছে। এই স্থানটি ছিল মূলত ২৩ জন বিমানসৈনিকের একটি গণকবর, যেখানে লেখা রয়েছে:










       

    " These plaques bear the names of twenty-three Airmen whose remains lie here in one grave"



     


    প্রতি বছর নভেম্বর মাসে মাসে সকল ধর্মের ধর্মগুরুদের সমন্বয়ে এখানে একটি বার্ষিক প্রার্থণাসভা অনুষ্ঠিত হয়। নানান জায়গা থেকে মানুষ আসে এই রণ সমাধিক্ষেত্রে। আসে সম্মান জানাতে, শ্রদ্ধা জানাতে।  দুইটা সমাধিক্ষেত্রই এত চমৎকার করে সাজানো রয়েছে যে যে কোন ব্যক্তি ঘুরে দেখলে তার ওই অজানা অচেনা বিদেশি সৈন্যের জন্য মন কেমন করে উঠবে, শ্রদ্ধায় নত হবে মাথা।  


    এবার একটু নজর ফেরাই আমাদের নিজের দিকে। আমরা আমাদের জন্য কী করেছি? আমরা কেন ৫০ বছর পার হওয়ার আগেই মুক্তিযুদ্ধ নামটা শুনলেই নাক সিটকাই? যেন মুক্তিযুদ্ধ না তো যেন কোন পাপ কাজের আলাপ করতেছি! যেটা আমাদের গর্বের বিষয় তা কীভাবে আমাদের এত অবহেলার হয়ে গেল? শয়েই কবে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ হয়েহে, শয়েই কবে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ হয়েছে, তাদের নিয়ে এখনো সিনেমা তৈরি হয়, হাজার হাজার গল্প উপন্যাস লেখা হয়, হচ্ছে। কেউ একবারের জন্যও মনে করে না আর কত, লেবু বেশি চিপলে তিতা হয়ে যায়? কেউ তাদেরকে একবারের জন্যও বলে না কেন? তাহলে আমাদের কেন প্রতি নিয়ত শুনতে হয় পুরানো কাসুন্দি ঘেঁটে লাভ কী? আর কত অতীত নিয়ে পরে থাকবে? 


    ২৩ জনের একটা গণ কবরকে কী চমৎকার করে সাজিয়ে রাখা হয়েছে। ২৩ জনের গণ কবর আমদের মনে হাহাকার তৈরি করে। আপনি কী জানেন দেশে এখন পর্যন্ত প্রাপ্ত গণ কবরের সংখ্যা কত? যা পাওয়া গেছে তার চেয়ে আরও অনেক এখনো আবিষ্কারের বাকি, তা আমি শত ভাগ নিশ্চয়তা দিয়ে আপানকে বলতে পারি। কিন্তু পাওয়া গেছে কত? ওয়ার ক্রাইম ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটি এখন পর্যন্ত  ৯৪২ টা বধ্যভূমি খুঁজে পেয়েছে। ত্রিশ লক্ষ শহীদের সংখ্যা নিয়ে যাদের আপত্তি তারা এই খবর জানে? তারা জানে চট্টগ্রামের পাহারতলির বধ্যভূমির একটা কবরে পাওয়া গেছে ১১০০ মানুষের খুলি!  ওই বধ্যভূমিতে গণ কবর আছে একশর উপরে! আমাদের কী করা উচিত? 


    আমাদের কী করা উচিত তা তো দূরের বিষয়,  আমরা প্রাণপণে চাচ্ছি এসব ভুলে যেতে! দিনের পর দিন আমাদেরকে বুঝানো হয় অনেক হইছে, আর কত? বাদ দাও এবার। আমরা বাদ দিতে পারি, আমরা CWGC এর কাজ দেখে মুগ্ধ হয়ে বলতে পারি ট্যাকা থাকলে কত ভঙ্গি দেখানো যায়, তারপর পাশ ফিরে শুয়ে আবার ঘুম দিতে পারি। কিন্তু জেনে রাখুন, আপনার আমার এই নির্লিপ্ততা আগামী প্রজন্ম ক্ষমা করবে না। আমাদের এবং আমাদের আগের পুরো প্রজন্মকে এর জন্য কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। ইতিহাস বিমুখতা গর্বের বিষয় নয়, লজ্জার, এই সত্য আমাদের বুঝতে হবে পরিষ্কার ভাবে। 

  • বিভাগ : আলোচনা | ২৯ জুলাই ২০২০ | ৩৯৫ বার পঠিত
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • dc | 103.195.203.155 | ২৯ জুলাই ২০২০ ১২:২৫95652
  • সিমেট্রি না লিখে সেমেটারি লিখলে বোধায় একটু সুবিধে হয়।
  • Muhammad Sadequzzaman Sharif | ২৯ জুলাই ২০২০ ১৮:৫৩95659
  • জিনিস তো একই, সম্ভবত আমেরিকান আর ব্রিটিশ উচ্চারণের তফাত। 

  • | ২৯ জুলাই ২০২০ ১৯:৪৩95660
  • 'সিমেট্রি' ব্রিটিশ ব আমেরিকান কেউই বলে না। আম্রিকানরা সেমেঠেরি বলে আর ব্রিটিশরা সেমেটরি বলে।

    সিমেট্রি হল Symmetry যার মানে অন্য।
  • একক | ২৯ জুলাই ২০২০ ২০:২৭95661
  • খি খান্ড ! ম্যাথেম্যাটিকাল মডেলিং নিয়ে লেকা ভেবে পড়তে এসেছিলুম :|

    যাক , তবু এমনিতেও পড়া হলো | ভালোই | আম্মো চাই কবরেরা জেগে উঠুক , লাইক আ গৌস্ট ফ্রম দ্য টুম্ব ইত্যাদি এবং তাপ্পর একটা হুড়ুদ্দুর বদলার গপ্পো শুরু হোক !! তারপর আবার অনেক কবর | পুরো কয়লা কেস !
  • Muhammad Sadequzzaman Sharif | ২৯ জুলাই ২০২০ ২৩:৩৩95669
  • আমার কোন দোষ নাই, আমি যেমন দেখছি তেমন লেখছি। সমাধিক্ষেত্রের যে উইকি পেজ আছে সেখানেও একই রকম লেখা আছে। যত গুলো নিউজ আর্টিকেল পড়েছি, বই পড়েছি সব জায়গায় সিমেট্রিই লেখা আছে। আর সমাধিক্ষেত্রের সাইনবোর্ডের ছবি দিলাম, নিজেরাই দেখুন। https://ibb.co/jv1FYkJ

  • একক | ৩০ জুলাই ২০২০ ০০:৩১95670
  • সেমেট্রি , সেমেটারি - যদ্দুর জানি এই দুটো মান্য উচ্চারণ .

    সিমেট্রি ? দেখুন . আপনি সেমেট্রি লিখলে কেও বোধ হয় দোষ ধরতেন না . সি - লিকেচেন - ওটা আমি অন্তত শুনি নি | এবার ভাষার ব্যাপার হতেই পারে আমি জানিনা , সেই কারণেই তো ভুল হয়েছে | নো প্রব্লেম , পড়া হয়ে গ্যালো | জানাও হলো |
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ভালবেসে মতামত দিন