• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • বেকার ও সমীকরণ

    কুশান গুপ্ত
    বিভাগ : ব্লগ | ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ২২ বার পঠিত
  • 'বেকার'-এই শব্দটি আমাকে আজন্ম বিস্মিত করেছে।

    বাংলায় লেখাপড়া শিখে, এমনকী একাদশ শ্রেণীতে বিজ্ঞান বিভাগে পড়ে, সে কী বাংলায় পদার্থবিদ্যার বিদ্যা বালানীয় চর্চা! যেমন, 'ও বিন্দুর সাপেক্ষে ভ্রামক লইয়া পাই।' ভ্রামক কি রে? ভ্রম না ভ্রমণের কাছাকাছি? না, ভ্রামকের নিকটবর্তী শব্দ হলো দ্বন্দ্ব। মূল শব্দ দুটি হলো, যথাক্রমে মোমেন্ট ও কাপল। অর্থাৎ, মুহূর্ত এবং দম্পতি/যুগল ভাবলেই ল্যাঠা চুকে যায়। তা নয়, একটি তীর আঁকা ভেক্টরীয় বল এবং নির্দিষ্ট বিন্দু হইতে উল্লম্ব দূরত্বের নির্ণেয় আজব গুণফল, চিত্তরঞ্জন দাশগুপ্তের মতে, ভ্রামক। দত্ত পাল চৌধুরী বা ডিপিসির মতেও তাই। এমনকী এ বিষয়ে আমাদের পদার্থবিদ্যার মাস্টারমশাই বিষ্ণুবাবুও দ্বিমত পোষণ করেন নি। এ সেই প্লাস টু বা একাদশ-দ্বাদশকালীন সঙ্কটকাল, পা থেকে মাথা পর্যন্ত টলমল করে। সে এক অস্বস্তিকর আবেশ ভাইসকল, তড়িচ্চুম্বকীয়, চোখে আর ব্রেনে পিঙ্ক ফ্লয়েড লেগে যাচ্ছে সব নাদান কিশোরের, সকল ফ্রকপরিহিতা লীনা চন্দ্রভারকরের। একদিকে অবকলন সমাকলন, অন্যদিকে পর্যায় সারনী ও বেঞ্জিন বলয়। ফান্দে পড়িয়া বগা কান্দে রে! বগাকে দেখিয়া বগি...

    যাই হোক, বেকার শব্দটির সঙ্গে প্রথম পরিচয় দেওয়াল লিখন বা গ্রাফিত্তি দেখে। এটা যে একটা গুরুতর সমস্যা, তা বোঝা হয়ে গেছে ক্লাস ফোরেই। গভর্নমেন্ট শব্দটির না পারি বানান, না উচ্চারণ। কবীর সুমন তো বলেইছেন, গভর্মেন্টের থাকা উচিত উচ্চারণের ডিপার-ম্যান্ট। গরমেন্টই বেকার সমস্যার জন্য দায়ী। একথা, দেওয়াল দেখে, মিছিল দেখে, শ্লোগান শুনে, অভিজ্ঞতাহীন, বুঝে গেছি। বস্তুত কিসের জন্য এই কেন্দ্রীয় সরকার দায়ী নয়? তখন স্বৈরতন্ত্র ও স্বৈরাচারী শব্দদ্বয় খুব চালু ছিলো। মিছিলের টিপিক্যাল শ্লোগান ছিল আজকের চেয়ে অনেকাংশে জোরালো: স্বৈরতন্ত্রের বিরুদ্ধে, লড়তে হবে একসাথে।

    যখন ক্লাস ফোর কী ফাইভ তখন পাশের বাড়ির জমিরদা একটা কাজ পেলো। কীসের কাজ করো, জমিরদা? জমিরদা বললো, বেকারীতে। বেকারীতে কাজ মানে? ওই যেখানে পাউরুটি বিস্কুট তৈরি হয়। ফাঁপরে পড়ে গেলাম। মনে হলো বেকার সমস্যা দূর করে যে, তার নামই কৃষ্ণা বা কাবেরী বেকারী। কিংবা, এ হলো বেকারদের এক রকম পুনর্বাসনস্থল। এভাবেই মনকে বোঝালাম। মনেরে বোঝাও আজ সহজে। কেননা রবি ঠাকুর বলেছেন। মনে রাখতে হবে, আমাদের সময়ে, বাবাকে এসব প্রশ্ন করলে, ভারিক্কি গলায় ডেপোমি হচ্ছে বলে যে চোটপাট চলত, তাতে রিস্ক নিতে পারতাম না। মামা, কাকা বা জ্যাঠারাও কম রিস্কি ছিল না। আমার এক্ষেত্রে একমাত্র ভরসা ছিল ছোটমামা আর বাবলুদা। তা, ওদেরও লজ্জায় এসব জিজ্ঞেস করিনি, পাছে একেবারে আনাড়ি ভেবে বসে।

    অকস্মাৎ, মনে হয় সন ১৯৮৫ তে, কাগজের সুবাদে জানলাম বরিস বেকার নামে এক খেলোয়াড় উইম্বলডন জিতলেন। সেবারেই স্টেফি গ্রাফও আলোকিত হলেন। ভাবলাম, এতদিনে বেকারের একটা সদ্গতি হলো।সমস্যাপীড়িত বেকারও ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়ন হতে পারে তাহলে। এতদিনে তবে বেকারদের প্রতিনিধি, আসল বেকার, সকল চক্রান্ত ব্যর্থ করে জিতে গেল। প্রকৃত, বেকার যুবকদের একমাত্র সান্ত্বনা প্রেম, একথা বুঝতে অনেক দেরি, কারণ নচিকেতা তখন গোপনে সেই আশির দশকে কোনো এক গোকুলে বাড়িতেছেন। স্টেফির ব্যাপারটা পরের বছর লেখচিত্র আঁকার সময় টের পেলুম। অসিত নাগ স্যার গ্রাফ করাতেন। একদিকে এক্স অক্ষ ও অন্যদিকে ওয়াই অক্ষ এঁকে দুটি সরলরেখা যে সবুজ চেকচেক কাগজে ছেদ করে যায়, সেই কাগজকেই বলে গ্রাফ পেপার। তার আগেই সমীকরণ শব্দটির সঙ্গে পরিচয় ঘটে গেছে দুভাবে। প্রাথমিক ভাবে, পিতা ও পুত্রের বয়সঘটিত যে সামাজিক-গাণিতিক কেশব নাগীয় জঘন্য রসিকতা, তা এর মূলে, রুটে, বীজে, দ্বিঘাতে, সর্বত্র। পরীক্ষার হলে অংকের উত্তর আসছে বাবার বয়স ছয়, ছেলের ছত্রিশ। আরো আরো প্রভু( শ্রীনাগ) আরো আরো। এমনি করে, এমনি করেই আমায় মা আ আ রো। সমীকরণ ঘটিত দ্বিতীয় রসিকতাটি হলো আদ্যন্ত বাংলার, ঘেঁটে যাওয়া ব্যাকরণগত:
    সমীকরণের দুটি তাজা উদাহরণ:
    গল্প>গপ্প
    মহোৎসব>মোচ্ছব

    অষ্টম শ্রেণীতে ইংরেজিতে একশোতে একচল্লিশ পাওয়ার পরে নবমে বাধ্যত টিউটরের কাছে যাই। আমাদের শ্রদ্ধেয় মাস্টারমশাই দেড় ঘন্টা ইংরিজি ও আধ ঘন্টা বাংলা পড়াতেন। বাংলা মানে আদতে বাংলা ব্যাকরণ।

    মনে আছে, শাদা পাঞ্জাবি পাজামা পরিহিত স্যার একটি মোড়ায় বসে রয়েছেন। মেঝেতে মাদুরে বালক বালিকারা। স্যার বললেন লেখ: গল্প গ্রেটার দ্যান গপ্প ইকোয়াল টু সমীকরণ।

    পরেরটা অপিনিহিতি। সেটাতে বললেন, লেখ:

    আজি গ্রেটার দ্যান আইজ ইকোয়াল টু অপিনিহিতি।

    অতঃপর অভিশ্রুতি ও স্বরাগম। একই গঠনগত সমীকরণ মেনে।

    আজও গমগম করিতেছে স্যারের সেই মেঘমন্দ্র কন্ঠস্বর।
  • বিভাগ : ব্লগ | ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ২২ বার পঠিত
আরও পড়ুন
বলি! - Tridibesh Das
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • করোনা ভাইরাস

  • গুরুর মোবাইল অ্যাপ চান? খুব সহজ, অ্যাপ ডাউনলোড/ইনস্টল কিস্যু করার দরকার নেই । ফোনের ব্রাউজারে সাইট খুলুন, Add to Home Screen করুন, ইন্সট্রাকশন ফলো করুন, অ্যাপ-এর আইকন তৈরী হবে । খেয়াল রাখবেন, গুরুর মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করতে হলে গুরুতে লগইন করা বাঞ্ছনীয়।
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত