• হরিদাস পাল  সমোস্কিতি

  • রবিরশ্মিতে প্রচ্ছন্ন জ্যোতি:

    Lipikaa Ghosh লেখকের গ্রাহক হোন
    সমোস্কিতি | ০৪ মে ২০২১ | ১২০ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • রবি রশ্মিতে প্রচ্ছন্ন জ্যোতি :


     গীতিকার, সুরকার, নাট্যকার জ্যোতিরিন্দ্র নাথ ঠাকুর তাঁর বিচরণের সব ক্ষেত্রেই প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের মেলবন্ধন করিয়েছেন। রবীন্দ্রনাথের সঙ্গীত প্রতিভা বিকশিত হয়েছে তাঁরই সাহচর্যে। রবীন্দ্রনাথ তাঁর বারো বছরের বড় জ্যোতিদাদা সম্পর্কে বলেছেন – 


     “সাহিত্যের শিক্ষায়, ভাবের চর্চায় বাল্যকালে হইতে জ্যোতিদাদা আমার প্রধান সহায় ছিলেন। তিনি নিজে উৎসাহী এবং অন্যকে নিয়ে তাঁর আনন্দ। আমি অবাধে তাঁহার সঙ্গে ভাবের ও জ্ঞানের আলোচনায় প্রবৃত্ত হইতাম, তিনি বালক বলিয়া আমাকে অবজ্ঞা করিতেন না।“


     রবীন্দ্রনাথের দাদা জ্যোতিরিন্দ্র নাথ ঠাকুর ছিলেন স্বভাব -শিল্পী। তিনি যেমন সুগায়ক, গীতিকার ও সুরকার ছিলেন তেমনি হারমোনিয়াম, সেতার ও পিয়ানো বাজাতেন দক্ষতার সঙ্গে। সময়ের আগে প্রেসিডেন্সি কলেজের পাট চুকিয়ে ছিলেন সঙ্গীতপ্রিয়তার কারণে। বিষ্ণুচক্রবর্তী ও তৎকালীন বিখ্যাত গায়ক যদুভট্ট এর কাছে তালিম নেওয়ার পরও শ্রীকণ্ঠ সিংহ এবং মেজদাদা সত্যেন্দ্রনাথের তত্ত্বাবধানে সঙ্গীত চর্চা করতেন। শুধু তায় নয় যন্ত্র সঙ্গীতেও তাঁর আগ্রহ ছিল প্রবল। মুসলমান ওস্তাদের কাছে বেহালা আর দাদা দিজেন্দ্রনাথের কাছে পিয়ানো বাজান শিখেছিলেন। সঙ্গীতের সকল ধারাতেই তাঁর আগ্রহ ছিল। নিজেও শিখতেন আর অন্যদের উৎসাহ দিতেন। বাংলা গানের সুর নিয়েও নানা রকম পরীক্ষা নিরীক্ষা করতেন। তিনি বাংলা গানেও পাশ্চাত্য সুরের প্রবর্তন করেন। বিভিন্ন রাগের মিশ্রণে নতুন সুর তৈরি করতেন। তখন ঠাকুরবাড়িতে পিতা দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর ও রবিঠাকুরের সব ভাইয়েরা ব্রাহ্ম সঙ্গীত রচনা করতেন। জ্যোতিরিন্দ্র ঠাকুর ব্রাহ্ম সঙ্গীতের সঙ্গে সঙ্গে স্বদেশী গান উচ্চাঙ্গ ব্রহ্মসঙ্গীত, হাসির গান রচনা করেছিলেন আর কোনো কোনো গানে সুরও দিয়েছিলেন। ‘ঐ যে দেখা যায় আনন্দ ধাম অপূর্ব’ গানটিতে সিন্ধুবিজয় রাগ ব্যবহার করেন। ‘ কেন আনিলের গো এ ঘোর সংসারে’ গানটিতে সিন্ধুরা রাগ ব্যবহার করেন। ‘ তাহারা চরণ ছায়ে’ গানে কেদারা ও ‘অন্তরে ভজরে তালে’, ভুপালী রাগ ব্যবহার করেন। রবীন্দ্রনাথ বাল্মিকী প্রতিভায় ও কালমৃগয়া তে বেশ কিছু গানে তাঁর নির্দেশেই পাশ্চাত্য সুর আইরিশ মেলোডির সুর যোগ করেন। তিনি ইটালিয়ান সুরের সঙ্গে ঝিঁঝিট রাগ মিশিয়ে ইটালিয়ান ঝিঁঝিট নামে একটি নতুন সুর সৃষ্টি করেছিলেন। এই ধরনের আরও কয়েকটি নতুন সুর হল-আইরিশ বিলাবল, স্কচ কেদারা, স্কচ ভুপালী, স্প্যানিশ বাউল ইত্যাদি। 


    রবীন্দ্রনাথের প্রথম গান বাঁধার প্রেরণার উৎস ছিলেন জ্যোতিরিন্দ্র নাথ ঠাকুর একথা রবীন্দ্রনাথের কথা থেকেই জানা যায়। “এ সময়ে পিয়ানো বাজাইয়া জ্যোতিদাদা নূতন নূতন সুর তৈরি করায় মাতিয়াছিলেন। প্রত্যহই তাহার অঙ্গুলি নৃত্যের সঙ্গে সুর বর্ষণ হইতে থাকিত। আমি এবং অক্ষয়বাবু তাহার সেই সদ্য জাত সুর গুলিকে কথা দিয়া বাঁধিয়া রাখিবার চেষ্টায় ছিলাম। গান বাঁধিবার শিক্ষানবীশ এইরূপে আমার আয়ত্ব হইয়াছিল।“ সঙ্গীতের প্রচার ও প্রসারের কথা ভেবে তিনি ‘বীণাবাদিনী’ নামে একটি বাংলা সঙ্গীত পত্রিকা প্রবর্তন করেন। বর্তমানে আ কার মাত্রিক স্বরলিপি পদ্ধতির সংস্কার সাধন করেন তিনিই। এই পদ্ধতির জনক রাজা শৌরীন্দ্রমোহন। সঙ্গীতকে জনপ্রিয় করার জন্য ‘ভারত সঙ্গীত সমাজ’ গঠণ করেন। এ ধরনের আরও একধিক প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন যেমন –‘সঞ্জীবন সভা’, ‘বিদ্দ্বজন সমাগম’। 


    তিনি শুধু সঙ্গীত চর্চা আর সঙ্গীত পত্রিকা প্রবর্তন করেই সন্তুষ্ট থাকেননি। নানা দিকে তাঁর আগ্রহের সীমা ছিল না। তিনি ছিলেন সে যুগের বিখ্যাত নাট্যকার। ‘এমন কর্ম আর করব না’ নামে একটি নাটক লেখেন পরে যার নাম হয় অলীকবাবু। তাঁর বিখ্যাত নাটক সরোজিনী বাংলা নাট্যজগতে সাড়া জাগিয়েছিল। গীতিনাট্যগুলি খ্যাতিলাভের ক্ষেত্রে বিশেষ পিছিয়ে থাকেনি -অশ্রুমতি, ধ্যানভঙ্গ, স্বপ্নময়ী, বসন্ত লীলা, পূর্ণবসন্ত ইত্যাদি বেশ খ্যাতি লাভ করেছিল। জ্যোতিরিন্দ্র নাথ সম্বন্ধে অবনীন্দ্রনাথের উক্তি- 


    “তখন জ্যোতিকাকামশায় নাট্যজগতে অদ্বিতীয়, অপ্রতিহত প্রতাপ তাঁর। বইয়ের বাজার ছেয়ে গিয়েছিল তাঁর বইয়ে বইয়ে। জায়গায় জায়গায় তাঁর নাটক অভিনয় হত।“ 


     জোড়াসাঁকোর ঠাকুরবাড়িটি সাহিত্য ও সঙ্গীত জগতের বহুমূল্য রত্নে ভরপুর ছিল। রবি প্রতিভার হীরক ছটায় সবই ম্রিয়মান হয়েগেছে, জ্যোতিরিন্দ্র নাথ ও তার ব্যতিক্রম নয়। তবে বাংলা নাট্যসাহিত্য ও সঙ্গীতের জগতে তাঁর অবদান তাঁকে চিরস্মরণীয় করে রেখেছে।


     তথ্যসূত্র - রবীন্দ্রনৃত্যের রূপরেখা- শম্ভুনাথ ঘোষ ও অনিন্দিতা ঘোষ।

  • বিভাগ : সমোস্কিতি | ০৪ মে ২০২১ | ১২০ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন গ্রাহক পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
আরও পড়ুন
অমৃত  - Lipikaa Ghosh
আরও পড়ুন
মা  - Mousumi GhoshDas
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। পড়তে পড়তে প্রতিক্রিয়া দিন