• হরিদাস পাল  ব্লগ

  • জয় শ্রীরাম

    Prativa Sarker লেখকের গ্রাহক হোন
    ব্লগ | ০৩ জুন ২০১৯ | ৯৯ বার পঠিত | জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
  • এখানে ঘরের চাল মাঝে মাঝে রাংতার তৈরি মনে হয়। কেননা ওগুলো নতুন টিনের তৈরি, আর প্রখর রোদে ঢেউখেলানো,কোঁচকানো রাংতার মত ঝকঝকে। পুরো ট্রেণরাস্তা জুড়ে সুপুরি গাছের ফাঁকে ফাঁকে উঁকি দেয় উত্তরবঙ্গের এইসব বসত, চালাঘর।

    কয়েকমাস আগেও, আর এখনও দেখি ঐ রাংতা ফুঁড়ে ওঠা সরু লম্বা বাঁশের ডগায় উজ্জ্বল কমলা পতাকা। সরু, ত্রিকোণ। ভেতরে লেখা জয় শ্রীরাম। অনেক বাড়িতে।

    এক সদ্য আলাপিনী, এতো শান্ত, কোমল, উত্তর বঙ্গের প্রকৃতির মতো, জানাল তার বাড়ির পাশে ময়নাঝোড়া, নখ দিয়ে আঁচড়ালেই মাটি চিরে সেখানে কুল কুল করে উঠে আসে সুপেয় জল। যেন কোন বড় কম্পানির সুস্বাদু মিনেরাল ওয়াটার। মুক্ত প্রকৃতি তাকে দুহাতে ঘিরে রেখেছে,
    তবে সমস্ত রোগে মেয়েটির আস্থা হনুমান চালিশায়। কারণ জ্যোতিষী বলেছেন, এই গ্রন্থ পাঠে শরীরের সব বিষ লুপ্ত হয়। আর হ্যাঁ, সঙ্গে অবশ্যই মঙ্গলবার করে নিরিমিষ খাবার।
    আশ্চর্য হয়ে ভাবি কারা এই জ্যোতিষীরা ? কোথা থেকে আমদানি হলো এদের? করলো কারা ?

    উত্তরবঙ্গের মানুষ ধর্মভীরু এবং বিশ্বাসী। অনুকূল চন্দ্র অনেক ঘরে পূজিত, যেকোন সৎ সঙ্গ সিটিংয়ে কমসে কম একশ জন পূজক। প্রত্যেক শুক্রবার বাধ্যতামূলক নিরিমিষ ভোজ্য। যারা অনুকূল-আদর্শ প্রচারের দায়িত্বপ্রাপ্ত ঋত্বিক তারা সপরিবারে নিরিমিষভোজী।

    এহ বাহ্য। তরাইয়ের মহীরুহের মতো দূর দূর গ্রামে শেকড় চারিয়ে দিয়েছে ব্রহ্মকুমারীরা। ভজনপূজন, ধ্যানের সঙ্গে সঙ্গে নিরিমিষ খাবার বিধান। প্রবল নিরামিষভোজী কুমারীরা অন্তস্থ ধ্যানের সঙ্গে সঙ্গে মাছমাংস ঘৃণা করতে শেখায়। যেন দেখলেই ওয়াক থু আসে। কলকাতায় বাঙুর এভিনিউতে এদের একটি সাদা রঙের বড় বাড়ি দেখেছি। এখন কোচবিহারেও রমরমিয়ে চলা এদের শাখা। মানুষ ধ্যান আর নিরামিষভোজনে সব বিষাদের মুক্তি খুঁজছে।

    হনুমান চালিশার লেখক তুলসীদাস প্রবল রামভক্ত হলেও সদানন্দ, কবিত্বগুণসম্পন্ন ছিলেন,ভালোমন্দের ভেদাভেদ জানতেন। আর পুরো জগতই তার কাছে ছিল রামসীতার প্রকাশ। সেখানে ধর্মভেদ, জাতিভেদের জায়গা ছিল না। এখন গেরস্থ বাড়ির মাথায় ওড়ে জয় শ্রীরাম লেখা পতাকা। রাস্তা দিয়ে বিজয় মিছিলে ড্রাম সিন্থেসাইজার নিয়ে জয় শ্রীরাম চিৎকারে সেকী হল্লা। যেন তুলসীদাসের প্রাণের আকুতি নয়, এ এক war cry, স্পর্ধাভরা রণহুংকার।

    অথচ একবছর আগেও কোচবিহার রাজপ্রাসাদের মিউজিয়ামে দেখে গেছি আদি নিবাসী কোচদের মাছ ধরবার কতো কতোরকম জাল, লৌহশলাকা, মাছ ফুঁড়ে ফেলবার ত্রিশুলাকৃতি অস্ত্র, স্থানীয় ভাষায় ট্যাটা। সেই মাছ রান্নার জন্য নানা ধরণের উনুন। সেই সংস্কৃতির উত্তরাধিকার হিসেবে প্রচন্ড ভোজনরসিক উত্তরবঙ্গীয়রা এই সেদিনও কবজি ডুবিয়ে মাছ মাংস খেতে অভ্যস্ত ছিলেন।

    রাজনীতি মানুষের খাদ্যাভ্যাস, ভাষা, সংস্কৃতি সবশুদ্ধ ধরে টানছে। কে জানে এর শেষ কোথায় ! উত্তরবঙ্গের সিধেসাধা জনগোষ্ঠীর এই মারাত্মক পরিবর্তনের মূলে যে অপশাসন, হনুমানের পেল্লায় মূর্তিস্থাপনে আর নানা উৎসবের হল্লায় সব ব্যর্থতা ঢেকে দেবার যে অপপ্রয়াস তার মূল্য আজ চোকাতে হচ্ছে, আরও কতোদিন হবে কে জানে !
  • বিভাগ : ব্লগ | ০৩ জুন ২০১৯ | ৯৯ বার পঠিত | | জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত