• হরিদাস পাল  আলোচনা  বিবিধ

  • এনকাউন্টার কারে কয়

    Prativa Sarker লেখকের গ্রাহক হোন
    আলোচনা | বিবিধ | ১০ জুলাই ২০২০ | ১৫৫৮ বার পঠিত | জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
  • সরকার না চাইলে যেমন দাঙ্গা হয়না, তেমনি রাষ্ট্র না চাইলে অপরাধী বা নিরপরাধী কেউ এনকাউন্টারে মরে না। এনকাউন্টারকে বাহবা দেয় যারা, তারা মব লিঞ্চারের সমগোত্রীয়। নিজের হাতে আইন তুলে নিতে চায়। তুচ্ছ করে দেশের সংবিধানকে, যেখানে একরকম আইনানুগ সুবিধে সবারই পাওনা একথা স্পষ্টাক্ষরে লেখা আছে।

    বিকাশ দুবেকে কোর্টে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে এসটিএফের শক্তপোক্ত গাড়িতে, এইরকম একটি জি নিউজ ভিডিও দেখছিলাম। আবহাওয়া ফিল্মিই ছিল বটে। আকাশে গাঢ় শ্লেটরঙের মেঘ। বেশ বৃষ্টির ছাঁট ক্যামেরার লেন্সের দিকেও ধেয়ে আসছে। গাড়িগুলো যাচ্ছে হাইওয়ে ধরে। সব আলোগুলো জ্বালানো। মোবাইলের ছোট পর্দায় তাদের দেখাচ্ছে যেন ছুটন্ত আলোর রেখার মতো। জানা গেল গ্যাংস্টার বিকাশ দুবেকে কোর্টে তোলার তাড়ায় এতো দ্রুতগামী তারা।

    হঠাৎ কয়েক মূহুর্ত বাদে ক্যামেরা জুম করল একটা কাত হয়ে পড়ে থাকা গাড়ির ওপর। ব্যাকগ্রাউন্ডে ভাষ্য বলে দিল এসটিএফের গাড়িটি দ্রুতগতি অথবা পেছল পথের কারণে পিছলে গেছে। এটা একটা এক্সিডেন্ট এবং ঐ এক্সিডেন্ট করা গাড়িটিতেই নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল বিকাশ দুবেকে। এক মূহুর্তের জন্য হলেও মনে হবে, আর কোন গাড়ি ওল্টালো না, বেছে বেছে এইটাই বা কেন !

    আরো আছে। কিছুক্ষণ পর এক প্রত্যক্ষদর্শীর জবান ভেসে এল, তিনিও কানপুরেই যাচ্ছিলেন। বললেন , পুলিশ সবাইকে ঐ জায়গা খালি করে দিতে জোরাজুরি করছিল। তার গাড়ি তাই এগিয়ে যেতে বাধ্য হয়, কিন্তু কিছুদূর যাবার পরই শুনতে পাওয়া যায় গুলির শব্দ। ক'বার ? তিনি খেয়াল করতে পারলেন না।

    এরপর ভেসে এল স্ট্রেচারে করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া একটি লম্বাচওড়া মৃতদেহের আবছা ছবি। কানের পর্দা ফাটিয়ে তখন জি নিউজের মহিলা ভাষ্যকারের উত্তেজিত কন্ঠ, এনকাউন্টারমে খতম বিকাশ দুবে। জি নিউজ পহেলা চ্যানেল হ্যায় যো ইয়ে এক্সক্লুসিভ নিউজ আপকে লিয়ে...

    এনকাউন্টারে অপরাধীদের নিকেশ করা নতুন কিছু নয়। কিন্তু এতো বেপরোয়াভাবে এবং এতো অল্প সময়ের ব্যবধানে এনকাউন্টার, মব লিঞ্চিং ইত্যাদি ঘটলে তা জনচক্ষুতে মান্যতা পেয়ে যায়। খুনীদের মাথায় পুষ্পবৃষ্টি করার জন্য জনতার হাত উশখুস করতে থাকে। আইন আদালত নিরর্থক হয়ে পড়ে। সংবিধান যে আইনের শাসনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে তার বদলে এই জঙ্গলের শাসনই কি তবে কাম্য !

    জঙ্গলের শাসনে কী হতে পারে এ রাজ্য তা দেখেছে। অগুন্তি নিরপরাধ তরুণের শবদেহ কাশিপুরে গঙ্গার ঘাট ছুঁয়ে নিরুদ্দেশ যাত্রা করেছিল, একথা অনেক মানুষ আজও মনে রেখেছেন। এমনিতেই প্রবল বর্ণবাদী জাতিবাদী এই রাষ্ট্রে ধর্ম ও জাতের ভিত্তিতে অপরাধীর তকমা লাগিয়ে দেওয়া হয়। ফাঁসির দড়ির প্রতীক্ষা যাদের, যারা কোনোরকম বিচার ছাড়াই জেল খেটে চলেছে, পুলিশি অত্যাচারের শিকার যারা, তাদের মধ্যে বেশির ভাগই হয় সংখ্যালঘু নয় দলিত। দারিদ্র আর ধর্ম এই দুই মিলে অপরাধের বিচারসভা বসালে আইনের আর দরকার কী !

    বিকাশ দুবে অবশ্য বর্ণশ্রেষ্ঠ, ব্রাহ্মণ। হিন্দুত্ববাদীরা তার পরিজনকে চাঁদা তুলে মামলা লড়ার টাকা পাঠাবে কিনা জানা নেই, তবে এর মধ্যেই তার ব্রহ্মতেজ নিয়ে সোশাল মিডিয়ায় অনেকেই নিঃসংশয়। কিন্তু গ্যাংস্টার বিকাশ দুবে, বিভিন্ন দলের রাজনৈতিক ছায়ায় থাকা ব্রাহ্মণ বিকাশ দুবে, ঘরে ঢুকে পঞ্চায়েত প্রধানকে গুলি করে মারা বিকাশ দুবে, মাথার ওপর ষাটখানা মামলা ঝুলে থাকা বিকাশ দুবেরও বিচার পাবার অধিকার ছিল সেকথা অস্বীকার করা অতি বিপজ্জনক। এরপর রাজনৈতিক মতভেদে সাধারণ ঘরের তরুণটিকে গুলি করে মেরে দিলে বিচার চাইতে পারব তো? রাষ্টের নিন্দা করতে পারব আর টি আই এক্টিভিস্টের গুলিবিদ্ধ দেহ পাওয়া গেলে ?

    বিচার ছাড়া এনকাউন্টার করা সন্ত্রাসমূলক কাজ। রাষ্ট্র আর সন্ত্রাসীর মধ্যে তফাত তবে কী? দুজনেই তো চোরাগোপ্তা গুলি চালায়। দুজনেই নিজের কাজকে মান্যতা দিতে মিথ্যার আশ্রয় নেয়। দুজনেই আইনকে এড়িয়ে চলে। দুজনের হাতেই বহু নিরপরাধের প্রাণ যায়। দুজনেরই একই লক্ষ - মানুষকে ভয় দেখানো।

    কিন্তু আমাদের রাষ্ট্র তো সন্ত্রাসবাদী রাষ্ট্র নয়। এটি একটি কল্যাণকামী গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা ক'রে যতো বেশিজনের পারা যায় কল্যাণ করাই এর উদ্দেশ্য। এই দেশের নাগরিক হিসেবে আমরা এনকাউন্টারকে বাহবা দিই কোন মুখে ? আমাদের টাকায় জেলে বসে বিরিয়ানি খাবে, এইধরণের লজিকই বা আসে কোন লজ্জায়। আমাদের টাকার সদব্যবহার হলে কী আর সান্ত্রী মন্ত্রীরা মস্ত মস্ত জেট বিমানে সারা পৃথিবী চষে বেড়াতে পারত ? না পরিযায়ী শ্রমিককে রাস্তায় ধুঁকে মরতে হতো? টাকার সদব্যবহার বা অসদব্যবহার নয়, নীতি ও আদর্শের ভিত্তিতে আইনের শাসনই একমাত্র কাম্য।

    যদি কথাগুলো না পছন্দ হয়, তবে রাতবিরেতে দরজায় কড়া নাড়ায় চমকে উঠবেন না। কেন, আমি কি অপরাধী, এই বলে বড়াই করবেন না। কাশ্মীরে হাজার হাজার এনকাউন্টারে মৃতের বেশির ভাগই অপরাধী ছিলেন না।

    এনকাউন্টার কারে কয় ? তার আর এক নাম, ধরে নিন, বুমেরাং। যে গতিতে ছুঁড়বেন, ঠিক সেই গতিতেই ফিরে আসবে।
  • বিভাগ : আলোচনা | ১০ জুলাই ২০২০ | ১৫৫৮ বার পঠিত | | জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • পাতা :
  • Prativa Sarker | ১১ জুলাই ২০২০ ২০:৪৮95126
  • ব্যক্তিগত আক্রমণ আপনিই করেছেন আমার কান্নাকাটি দেখিয়ে। আমি কেবল আমার অভিজ্ঞতা ব্যক্ত করেছি এইটা বলবার জন্য যে আপনার স্বাধীনতাকে সম্মান দেব বলে চুপ করে থাকি। তাই বলে কিছু দেখি না, বুঝি না এতটা বোকা ভাবার কোন কারণ নেই। এখানে ব্যক্তিগত আক্রমণ, খিল্লি ( কান্নাকাটি)  আপনিই করেছেন। এখন ভালোমানুষি করতে থাকুন যত পারেন। যেহেতু এটা ব্লগ, আপনার সব কথার উত্তর দেওয়া বাড়াবাড়ি হয়ে যাবে। এখানেই ইতি টানছি।

  • dc | 103.195.203.228 | ১১ জুলাই ২০২০ ২০:৫৮95127
  • মানুষের মিনিমাম সেন্সটুকু লোপাট হয়ে গেছে। তাজ্জব লাগে। জার্মানির ১৯৩০ সাল বোধায় ঠিক এরকমই ছিল।
  • কমরেড বুধো মায়াকভস্কি | 80.211.246.106 | ১২ জুলাই ২০২০ ০০:৩৮95142
  • আচ্ছা আমি কি আমার সেই ডায়লগ টা একবার ঝালিয়ে নিতে পারি এই সুযোগে ?

    Bikash has been paid by his own coin

     কেমন দিলাম ?

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • পাতা :
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত