• বুলবুলভাজা  আলোচনা  সমাজ  সিরিয়াস৯

  • সম্পাদনা কিংবা ম্যাগি বানানোর রেসিপি

    সুস্নাত চৌধুরী
    আলোচনা | সমাজ | ২৪ নভেম্বর ২০২০ | ১০৮২ বার পঠিত | ৫ জন)
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • ক-চ-ট-ত-প ইত্যাদিরা যখন লেখক-লেখিকা এবং সংবাদকর্মী, অর্থাৎ বাংলা ভাষার অক্ষরকর্মী, তখন ভাষাটার হাল যে খারাপ হয়ে পড়েছে, সে নিয়ে সন্দেহ নেই। সোশাল মিডিয়া থেকে লেখক-লেখিকা উঠে আসা খুব গণতান্ত্রিক একটা পরিসর তৈরি করেছিল বটে, কিন্তু তার কু-দিকটা শুরুতে তত চোখে পড়েনি। মুশকিল হল বান আসায়। বানের জলে এত কাদা মাটি মিশে থাকে, যে তা থেকে দুধটুকু বেছে নেবার কাজ যদি বা সম্ভব হয়, তখন ত-থ-দ-ধ-ন ইত্যাদিরা ফেটে পড়েন, তাঁরা বানের জলে মিশে থাকা পলিমাটিকে কেবল কর্ষণযোগ্য হিসেেবই দেখতে পান, তা যে জল এবং জনজীবনকে  অস্বাস্থ্যকর করে তোলে তা খেয়াল রাখবার মত মনন এঁদের হয় ছিল না, নতুবা লুপ্ত। এ পরিস্থিতিতে সম্পাদনার কাজটি ক্রমশ হয়ে উঠেছে  কেবল সংগ্রাহকের বা বড়জোর শৃঙ্খলারক্ষাকারীর। গত বিশ বছর সময়কালে লেখালিখি, তা সে যে প্রকরণেই হোক, তাতে বাংলা ভাষার বিকার ক্রমবর্ধনশীল। সম্পাদনার বিষয়টি ঠিক কীভাবে দেখা উচিত, সে নিয়ে সিরিয়াস৯-র এবারের বিশেষ সংখ্যা। এবারের সংখ্যায় বাংলা সংবাদমাধ্যমের সম্পাদনা নিয়ে লিখলেন তাপস দাশ, ইংরেজি সংবাদমাধ্যমের বাঙালি সম্পাদক বিষয়ে কি-বোর্ড ধরলেন প্রতীক, বই সম্পাদনা নিয়ে লিখেছেন সৌম্যেন পাল, এবং লিটল ম্যাগাজিন সম্পাদনা নিয়ে মতামত লিপিবদ্ধ করলেন সুস্নাত চৌধুরী

    ‘সম্পাদনা’-র ইংরাজি প্রতিশব্দ কী? এডিটিং। ‘ভালো সম্পাদনা’-র তরজমা? ওসিডি। অবসেসিভ-কম্পালসিভ ডিসঅর্ডার। ভালো সম্পাদক মাত্রেই খুঁতখুতে হবেন। সূচিবায়ুগ্রস্ত, শুচিবায়ুগ্রস্তও। লেখকের হাড়-মাস তিনি কালি করে দেবেন। মুদ্রণকর্মীরা তাঁকে প্রকাশ্যে গাল পাড়বেন ও আড়ালে সমীহ করবেন, ভালোবাসবেন। ভালো সম্পাদনা মানে মোটেই শনিবার বিকেলে আকাদেমি আর রবিবার সকালে উল্টোডাঙার ছবি ফেসবুকে পোস্ট করা নয়। ঠিক যেমন, ভালো লেখক মানেই সেলেব্রিটির পাশে দাঁড়িয়ে ‘ওয়ান্টেড’ ঢঙে বুকের কাছে বই ধরে ফোটো তুলে তা ইনস্টায় সাঁটানো নয়। এগুলি মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজি হতে পারে, কিন্তু যথাযথ সম্পাদনার সঙ্গে এই খেলো সংস্কৃতির যোগ কমই।

    লিটল ম্যাগাজিন সম্পাদকের সব থেকে বড়ো পুঁজি মর্যাদাবোধ। অকৃত্রিম স্পর্ধা। রেলা। এবং একইসঙ্গে সন্দেহপ্রবণতা। কখনো কখনো নিজের প্রতি অবিশ্বাসও। এই চোরা অবিশ্বাসই তাকে ফাঁপা ওভার-কনফিডেন্সের হাত থেকে বাঁচাবে। যাবতীয় সহজ শব্দের বানানের মতো সে নিজেকেও যাচাই করে নেবে। ভেতরে ভেতরে চ্যালেঞ্জ করবে। লিটল ম্যাগাজিন সম্পাদকের আসল লড়াই নিজের সঙ্গে নিজের। সেখানে লেখক আছেন। পাঠক আছেন। মুদ্রণকর্মীরা তো আছেনই। ঘাপটি মেরে বাজারও আছে বিলক্ষণ। কিন্তু পত্রিকা যেদিন প্রেসে যাবে, তার আগের রাতটিতে আর কেউ নেই। সম্পাদক একা। একা, নিজের মুখোমুখি।

    আরও পড়ুন, বাংলা সংবাদমাধ্যমে সম্পাদনার হাল নিয়ে তাপস দাশের লেখা

    প্রকৃত সম্পাদক হলে, এই দার্শনিক ঘোর বেশিক্ষণ টিকবে না। খানিক সময়ের মধ্যেই নির্ঘাত তিনি দুটো আকাঁড়া ভুল খুঁজে পাবেন, রাতের ঘুম ছুটবে ও পরদিন সকালে খোদ তিনিই ছুটবেন সেগুলি সংশোধনের আশায়। কপাল ভালো থাকলে সংশোধন হবে, সঙ্গে কিছু খিস্তিও জুটতে পারে। তিনি ইগনোর করবেন, ও সদম্ভে এগিয়ে যাবেন মুদ্রণযন্ত্রের দিকে। তারপর ঠিক কী কী হবে, কোথাকার ভূত এসে কোথায় খেল দেখাবে, তা স্বয়ং আল্লা-ঈশ্বরেরও অবগতির বাইরে! কেবল দু-তিন জন পাঠক কাগজ বেরোনোর অব্যবহিত পরেই সেসব আঙুল চালিয়ে তুলে আনবেন। নিজের ভুল জেনে সম্পাদক যুগপৎ লজ্জিত ও ধন্য হবেন। কারণ এমন প্রগাঢ় পাঠকের কাছে সমালোচিত হওয়াই তাঁর কাজের প্রধানতম ডিভিডেন্ড।

    কিন্তু যা দেখা যাচ্ছে, এই সময় কেবল এবং কেবলমাত্র ভালো কাজ হওয়ারই সময়। এখনকার সব সিনেমাই যেমন মহৎ, তেমন সব কবিতাও। সব বই। সব প্রচ্ছদ। সব পত্রিকার স-অ-ব ক-টি সংখ্যাও। কেউই আজ আর কোনো কিছু খারাপ করে না। কেউই আজ আর কোনো কিছুকে খারাপ বলতে চায় না। এই প্রবণতা অংশত ভদ্রতা বটে, বাকিটা খারাপ কাজ চিনতে না পারার অদক্ষতা। সর্বদা এই ভালো শোনার অভ্যেস থেকে বেরোতে চাওয়া একজন সম্পাদকের জন্য খুব জরুরি। কঠিন কাজ। সবাই পারে না। তাই সব সম্পাদকও সম্পাদক হয়ে ওঠেন না।

    পড়ুন, ইংরেজি সংবাদমাধ্যমের বাঙালি সম্পাদক নিয়ে প্রতীকের লেখা

    নন্দন চত্বরের লিটল ম্যাগাজিন মেলায় একবার দেখেছিলাম, ২০১২-১৩ নাগাদ, বেশ কয়েক জন সম্পাদক ছোট্ট মাঠে গোল হয়ে ঘুরে ঘুরে মিছিল করছেন তাঁরা কবিতা পাঠের লিস্টিতে ঠাঁই পাননি বলে। সেদিন থেকেই আমার লিটল ম্যাগাজিন সম্পাদনা ব্যাপারটা বেশ কিউট লাগতে শুরু করে! তার পরেও অবশ্য অনেককে দেখেছি, তাঁর পত্রিকাকে পুরস্কৃত করা হোক, এই মর্মে বছর বছর বাংলা আকাদেমিতে দরখাস্ত করতে। অনেক প্রতিষ্ঠানবিরোধীকেও দেখেছি চাঁদনি মেট্রো থেকে এসক্যালেটর চেপে রাজপথে উঠে আসতে, দৈনিকে প্রকাশিত দেড় লাইনের রিভিউ গ্রুপে গ্রুপে নিরন্তর পোস্ট করে যেতে। আমাদের লিটল ম্যাগাজিন সম্পাদনা যে ক্রমেই কাঁঠালের আমসত্ত্ব হয়ে উঠছে, তা বুঝতে এরপর আর বিশেষ সমস্যা হয়নি।

    অর্থাৎ, আসুন্দরবনশিলিগুড়ি অনেক ক্ষেত্রে হয়তো ওই মর্যাদাবোধরই অভাব ঘটেছে। রেলা কিঞ্চিৎ কম পড়িয়াছে। লিটল ম্যাগাজিন সম্পাদকের আচরণে সবজান্তা ভাব রয়েছে অটুট, কিন্তু প্রকৃত প্রস্তাবে যাকে বলে আত্মবিশ্বাস, তা উবে গিয়েছে। একটু বড়ো করে ভাবলে বলতে হয়, সে তো উবে যাওয়ারই কথা ছিল। যে-ভাষায় সম্পাদনা নিয়ে বিন্দুমাত্র চর্চাই নেই, কোনো ইতিহাস প্রায় ডকুমেন্টেড করছি না এখনও, কেবল খালাসিটোলায় মদ খাওয়ার কিংবদন্তি যেখানে মহত্তম হয়ে ঘুরে বেড়ায় সর্বক্ষণ, সেখানে যথার্থ সম্পাদনা হবে কী করে? অন্তত ঠিক বানানটুকু লেখার যোগ্যতাও যেখানে অধিকাংশ প্রকাশক বা সম্পাদকের নেই, সেই ভাষায় সম্পাদনা বিষয়টি হাস্যরসের উদ্রেক করে। এতদিনেও ঠিকঠাক কোনো ম্যানুয়াল তৈরি করা গেল না পশ্চিমবঙ্গে, ভাষা-প্রযুক্তি বিষয়টি শিশি-বোতল হয়ে রয়ে গেল, এখানে সম্পাদনা নিয়ে বাতচিত করে লাভ কী!

    পড়তে থাকুন, বই সম্পাদনা নিয়ে সৌম্যেন পালের লেখা

    ফলে যা হল, আমরা পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম জোগাড়ে হয়ে উঠলাম। হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সিলেবাস-ছাঁকা একঘেঁয়ে, নয়তো পারম্পর্যহীন উৎপটাং বিষয়ে বিশেষ সংখ্যা নামতে লাগল। তেমন তেমন মৃত্যুর জন্য শকুনের মতো অপেক্ষায় থাকতে লাগল কোনো পত্রিকা, কেওড়াতলা থেকে সংখ্যা প্রকাশের উদগ্র বাসনায়। সময়ের সঙ্গে কমতে লাগল লিটল ম্যাগাজিনের সিরিয়াস পরীক্ষানিরীক্ষার প্রবণতা, ঝুঁকি নেওয়ার সাহস। সেই জায়গা নিল সারবস্তুহীন আলগা চমকে সস্তা বাজিমাতের চেষ্টা। প্রি-প্রোডাকশন বা সম্পাদকের নিক্তিমাপা পূর্বপরিকল্পনার ব্যাপারটি একেবারে না থাকার ফয়সালা যেন প্রায় হয়েই গেল। ফ্রম আলপিন টু আল কায়দা – বিবিধ বিষয়ে প্রবন্ধ ফাঁদতে ঘুরে-ফিরে আসতে লাগল সম্পাদকের পছন্দের তালিকায় থাকা একই নাম। ফলে অধিকারীভেদ রইল না, বই কিংবা উইকি-টোকা রচনায় মৌলিকতা পৌঁছোল তলানিতে। লেখক-সম্পাদক ভাই-ভাই হয়ে উঠল আর বিনা বাক্যব্যয়ে লেখা আসামাত্রই চলে গেল কম্পোজে, সামান্যতম কাটাছেঁড়া ছাড়াই। কফির টেবিলে তুফান উঠল না, উঁকি দিয়ে গেল না সারস্বত মতান্তরের লেশমাত্র। কেবল অধ্যাপকের চাঁদমারি হয়ে প্রচ্ছদে আইএসএসএন আর ভিতরে আমাদের নাম ছাপা হতে থাকল ঈষৎ বড়ো পয়েন্টে, সম্পাদক হিসেবে। সব শেষে, ঘটনাচক্রে ভুল-ত্রুটি কেউ ধরিয়ে দিলে হয় অজুহাত খোঁজা হল, নয়তো তকমা দিয়ে দেওয়া গেল – ও ব্যাটা ধরতেই পারেনি, অশিক্ষিত!

    এই হল মূল কথা। অর্থাৎ, আমরা নিজস্বতা থেকে টলে গিয়েছি ঢের আগে। আমার নিজস্বতা কী, তা কি নিজের কাছেও কখনো জানতে চেয়েছি? আরও একটি নতুন কাগজ কেন আমি বার করব, সে প্রশ্ন কি করেছি নিজেকে? কীভাবে গড়ে উঠবে আমার পত্রিকার স্বতন্ত্র চরিত্র, তা নিয়ে মনে-মগজে কতটা ঘাম ঝরিয়েছি? শুধু বিষয়বস্তুর প্রতি নজর দেওয়া নয়, তার যথাযথ বিন্যাস ও মুদ্রণ প্রক্রিয়াও যে অত্যন্ত জরুরি কাজ এবং সেটি লিটল ম্যাগাজিন সম্পাদনারই অপরিহার্য অংশ, তা কি বিবেচনার মধ্যে রেখেছি? কী করব, কেন করব, কীভাবে করব – এই অনিবার্য প্রশ্নগুলির প্রতি কতটা ফোকাসড থেকেছি আমরা সম্পাদকেরা? সবচেয়ে বড়ো কথা, সম্পাদনা বিষয়টিও যে এককভাবে গুরুত্ব দাবি করে, প্রয়োজন পড়ে সম্পাদকের স্বশিক্ষা ও নিরন্তর চর্চার – তা এই গড় বাংলা বাজার কতটুকু বুঝতে চেয়েছে? আর এইসবের সঙ্গে আজ যোগ দিয়েছে আধুনিক প্রযুক্তি। তার ভালোটুকু না নিয়ে কালোটুকু নেওয়ার জন্যই যেন বেঁচে থাকার এই প্রতিযোগিতা। লিটল ম্যাগাজিন আজ শিখে গিয়েছে পনেরো দিনে ঢাউস সংখ্যা নামাতে। পনেরো মিনিটের তাৎক্ষণিক প্রয়াসে ছেপে নিতে তার টেবিলের সামনে ঝোলানো ফ্লেক্সটি। এই আপাত সুবিধে তাকে দিয়েছে প্রযুক্তি। এবং ধীরে ধীরে তার থেকে কেড়ে নিয়েছে নিষ্ঠা, যত্ন ইত্যাদি ভারী শব্দগুলি। উৎকৃষ্ট ‘প্রোডাক্ট’ উৎপাদন করতে গেলে যে উপযুক্ত সময়ও দিতে হয়, এই ধারণা হারিয়ে যেতে বসেছে। তার ম্যাগি চাই। দু-মিনিটে। চাই ফেভিকুইক। চুটকি মে চিপকায়।

    ১৯৮৭ সালে সন্দীপ দত্ত একটি পাতলা বই প্রকাশ করেছিলেন। ‘প্রসঙ্গ লিটল ম্যাগাজিন’। এই বইয়ে সপ্তম অধ্যায়ের শিরোনাম ছিল: ‘লিটল ম্যাগাজিনের সম্পাদক কে হবেন?’ অংশটি শুরুর কয়েক লাইন পড়া যাক। “লিটল ম্যাগাজিন শব্দটি অহরহ উচ্চারণ হচ্ছে। সমস্ত মুদ্রিত আইটেমকে পিনবদ্ধ ক’রে তার ওপর সেঁটে দেওয়া হচ্ছে লিটল ম্যাগাজিন লেবেল। আর এখানেই ঘটে যাচ্ছে বিভ্রান্তি। সব কাগজই যেমন লিটল ম্যাগাজিন নয়, আরো পরিষ্কার করে বলা যেতে পারে, লিটল ম্যাগাজিন হয়ে ওঠে না, তেমনি ঐ সব কাগজে সম্পাদকের পাশে একটি বোল্ড টাইপে ছাপা নাম চিহ্নিত হয়ে যাচ্ছে ‘সম্পাদক’ হিসেবে, তা অনেক সময়ই যথার্থ নয়।” লক্ষ করা দরকার এই কথা বলা হচ্ছে বছর ত্রিশ-পঁয়ত্রিশ আগে। অর্থাৎ, অতীত মাত্রেই তা সোনায় মোড়া ছিল আর নতুন সময়ে এসেই এই অধঃপাতের শুরু, এমন মনে করারও কোনো কারণ নেই। শতাংশের হিসেবে হয়তো কম, তবু এখনও বাংলার নানা প্রান্তে প্রকাশিত বহু লিটল ম্যাগাজিনে এমন ঢের কাজকর্ম হয়, যা বিস্মিত করে। শিলিগুড়ি থেকে পুরুলিয়া, চন্দননগর থেকে বনগাঁ এই প্রয়াসে সদা তৎপর। কখনো তার সঙ্গে এসে মেশে ভিনরাজ্য। কখনো ঢাকা-চট্টগ্রাম-রাজশাহি। বাংলাদেশের লিটল ম্যাগাজিন চর্চার প্রকৃতি ও বাস্তবতা হয়তো কিছু আলাদা। তবু পাঠক হিসেবে আজও মুগ্ধ করে অনেক পত্রিকায় সম্পাদনার গুণমান। সিনিয়রদের কথা বলছি না, সমসাময়িকদের মধ্যেই দেখেছি, সম্পাদনার বিভিন্ন ক্ষেত্রে সেলিম মল্লিক (অস্ট্রিক), সঞ্জীব মুখোপাধ্যায় (বাহা), শ্রীকুমার চট্টোপাধ্যায় (কোমল গান্ধার) কিংবা সৈকত মুখোপাধ্যায়ের (হরপ্পা) মতো সম্পাদকদের চর্চা ও দক্ষতা ঈর্ষণীয়। এমন আরও অনেকের নামই হয়তো এখানে রাখা যেতে পারে। তুলে আনা যেতে পারে পৃথ্বী বসু (দশমিক) কিংবা গৌরবকেতন লাহিড়ীর (আচমন) মতো অতি তরুণ সম্পাদকদের দৃষ্টান্ত। কিন্তু তাতে বাস্তব চিত্রটি বদলাবে না। কারণ সম্পাদনার মূল রাস্তা ছেড়ে আমরা সামগ্রিকভাবে অনেক দিনই বিপথগামী হয়েছি। দৈন্য ও আদেখলাপনার বিজ্ঞাপন হয়ে উঠেছে বাংলা লিটল ম্যাগাজিনের একটা বড়ো অংশ।

    সন্দীপ দত্তের বইটিতে পূর্বোক্ত উদ্ধৃতাংশের খানিক পরেই বলা হচ্ছে – “সম্পাদকের প্রথম কাজই হলো একটি পত্রিকাকে উদ্দেশ্যবাহী ক’রে জনমানসে প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করা। এর জন্যে তার মেধা ও শ্রম, কল্পনা ও বোধ, যুক্তি ও প্রক্রিয়া চালিত হবে তার কাগজকে কেন্দ্র ক’রে। কাগজকে ‘কাজ’-এ পরিণত করতে হবে। সুতরাং সম্পাদকের নিজস্ব যোগ্যতা চাই-ই। যে কেউই সম্পাদক হ’তে পারেন না – এই সত্যটার দিকেই তর্জনী সঙ্কেত করতে চাইছি।” খাঁটি কথা। অন্তত আমার নিজের অপরিমেয় ভুল-ত্রুটি আর অযোগ্যতার দিকে তাকালেই এ-কথার যাথার্থ্য টের পাই। তবে কি না, এই বই এখন আর ছাপা হয় না। দীর্ঘদিন আউট অব প্রিন্ট। স্বাভাবিক।



    গ্রাফিক্স- মনোনীতা কাঁড়ার
  • বিভাগ : আলোচনা | ২৪ নভেম্বর ২০২০ | ১০৮২ বার পঠিত | ৫ জন)
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Damayanti Dasgupta | ২৪ নভেম্বর ২০২০ ১৪:৫১100600
  • সহমত। অন্য একটি কথা বলি, ওয়েব মাধ্যমেও এখন প্রচুর লিটল ম্যাগাজিন হয়েছে। বিক্রি বাটা না থাকলেও পাঠকের কাছে সৎ থাকার ব্যাপারটা কিন্তু সব ক্ষেত্রেই সমান। সম্পাদকের দায়িত্ব সততই কঠিন।

  • দেবীপ্রসাদ ঘোষ | 2402:3a80:1963:8377:278:5634:1232:5476 | ২৪ নভেম্বর ২০২০ ১৮:২৬100606
  • '' কাজ'' মনে করবার পর , কতগুলো যন্ত্র সমস্যা থাকে।একেকটা ফন্ট বহু মেসিন গ্রহণ করে না। বানান ঠিক করার পর , বহু বর্ণ পড়ে যায় । তখন কী করা !

  • শ্রুত্যানন্দ | 103.70.46.85 | ২৪ নভেম্বর ২০২০ ২০:৫৪100620
  • সম্পাদকের ডিভিডেন্ডটি নির্ভুলভাবে চিনিয়ে দিয়েছেন লেখক। হায়,তায় আজকের সম্পাদকের মন ভরে কি? গুরুত্বপূর্ণ ক'জন লিটল সম্পাদকের কথা মনে করিয়ে দিয়েছেন লেখক। তাঁর বিবেচনা নির্ভুল। গৌরবকেতন,সঞ্জীব বা সৈকতবাবুর কাজ যে হুল্লোড়ের বাজারে ঠিকই চোখ টেনে নেয়,আর তার পরেও কোন অলীকের পেছনে সম্পাদকরা ছুটে বেড়ান কে জানে!

  • মানস চক্রবর্তী | 202.142.67.23 | ২৫ নভেম্বর ২০২০ ১০:৩৮100630
  • কেন আর একটি লিটিল ম্যাগাজিন সম্পাদক জানেন নিশ্চিত। কিন্তু যা জানি তাইই বলতে হবে কে দিব্যি দিয়েছে? হিডন এজেন্ডা ওয়ালা পত্রিকাদের নিয়ে এত চাপ নাও কেন? 

  • Rajarshi Raychaudhuri | ১৭ ডিসেম্বর ২০২০ ০৬:০০101138
  • শতং ভাবো, মা বদ।


    শতং বদ, মা লিখো! 


    এরপর রবি ঠাকুরের গানের ভান্ডারী শ্রদ্ধেয় দিনেন্দ্রনাথ ঠাকুর মশাই যোগ করতেন, "শতং লিখো, মা ছাপো!"


    আজকাল বোধহয়, "শতং ছাপো, মা পোস্ট করো!"

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। সুচিন্তিত প্রতিক্রিয়া দিন