• বুলবুলভাজা  আলোচনা  রাজনীতি  সিরিয়াস৯

  • ক্যাব কিংবা ক্যাআ: বাঙালির শক্তিশেল

    তপোধীর ভট্টাচার্য
    আলোচনা | রাজনীতি | ৩১ মার্চ ২০২১ | ৯৫৭ বার পঠিত | রেটিং ৫ (১ জন)
  • সিএএ নির্বাচনী প্রচারে ইস্যু হয়ে ওঠেনি তেমনভাবে, অন্তত শাহিনবাগ বা পার্ক সার্কাস পরবর্তী কালে যেমনটা হওয়ার কথা ছিল। আসামেও কি এত রক্তক্ষয়ের পর বিধানসভা ভোটে সিএএ এনআরসি তত গুরুত্বপূর্ণ জায়গা পেল প্রচারে! কিন্তু নাগরিকত্ব জ্বলন্ত ইস্যু। এই ভারতে। ফলে এবারের সিরিয়াস৯ এই নিয়েই। তপোধীর ভট্টাচার্য লিখেছেন আসামের পরিস্থিতি নিয়ে, তাতিন বিশ্বাস লিখেছেন তামিলনাড়ুর সিএএ ইস্যুর পর্যালোচনা এবং কপিলকৃষ্ণ ঠাকুর লিখেছেন নাগরিকত্ব নিয়ে বাঙালির প্রতি ভারত সরকারের মনোভাব সম্পর্কে।

    যে প্রসঙ্গ নিয়ে লিখছি নিশ্চয় তা আসামের বাঙালিদের শায়েস্তা করার জন্য মুখ্যত পরিকল্পিত। কোটি কোটি টাকা দিয়ে ফ্যাসিবাদী রাষ্ট্র যেসব বাজনাদারদের বিভিন্ন চ্যানেলে, বিষক্রিয়ায় দক্ষ আইটি সেলে সেলে, গোয়েন্দা দপ্তরগুলিতে পুষে চলেছে, তাদের সমবেত শিবারবে সত্যমিথ্যা একাকার। একটা গোড়ার কথা স্পষ্ট হওয়া দরকার: হিন্দু-হিন্দি-হিন্দুস্থান নীতির মন্থনে একেবারে প্রথম সারিতে রয়েছে মহাতিমিঙ্গিল গুজরাতী পুঁজির দুই প্রধান মনসবদার। এদের নির্লজ্জতা ও হিংস্রতার পরিণামে দেশ জুড়ে সাম্প্রদায়িক ঘৃণা ও বিদ্বেষের সুনামি সভ্যতা ও সংস্কৃতির খিলানগুলি ভাঙে ফেলেছে। এদের প্রধানতম শ্ত্রু বাঙালি, অথচ নিজেদের ভাষা-অস্তিত্ব-সংস্কৃতি-নাগরিক অধিকার লুণ্ঠিত হতে দেখেও আমরা অন্তরে-বাহিরে অন্ধ। কোনো খাঁটি বাঙালি কখনও তার জাতির ঘৃণ্যতম শত্রুর পদলেহন করতে পারে না। নাগরিক পঞ্জি, ক্যাব (ক্যাআ) যে শুধুমাত্র আসামের বাঙালিদের সর্বনাশ করেই ক্ষান্ত হবে না, পশ্চিমবঙ্গের নানা বর্গের বাংলাভাষীদেরও চূড়ান্ত সর্বনাশ করবে—সেই সচেতনতা নেই।

    নাগরিক পঞ্জির নীল নকশা আসামে পরীক্ষিত হচ্ছে। আপাতত মনে হচ্ছে, ধূর্ত ও প্রতারক শাসক এক পা এগিয়ে তিন পা পিছিয়ে গেছে। কিন্তু এ কেবল তাদের রণকৌশল অনুযায়ী সাময়িক ভাবে পিছুহটা মাত্র; আসলে তাও কথার কথা। পেছনে ওরা যায়নি; চিতাবাঘের ক্ষিপ্রতা ও কেউটে সাপের অমোঘতা নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ার জন্য প্রস্তুতির উপযোগী বিরাম নিয়েছে মাত্র। আসামের ক্ষেত্রে হিন্দি-অসমিয়া প্রভুত্ববাদী আঁতাতজনিত হিন্দুত্বকে তুরুপের তাস করেছে। ঐতিহাসিক কিছু বাধ্যবাধকতায় পূর্ববঙ্গ উৎসজাত বাঙলাভাষীরা আসামে সামূহিক হীনম্মন্যতার সহজ শিকার। তাই নাগরিক পঞ্জির নামে তাদের বৈধ ভারতীয়তার অধিকার ছিনিয়ে নিয়ে দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিকে রূপান্তরিত করলেও কেউ হচ্ছেন ময়ূরপুচ্ছধারী কাক, কেউ বা স্বতঃপ্রণোদিত ট্রয়ের ঘোড়া। শাসকবর্গ যে এদের স্বজাতিদ্রোহ ও নিরবচ্ছিন্ন ভৃত্যবৃত্তি সত্ত্বেও বিশ্বাস করে না, বছরের পর বছর এমনকি দশকের পর দশক অতিবাহিত হলেও এই নির্মম সত্য এদের মগজে ঢোকে না। তাই আসাম চুক্তি রূপায়ণ—নাগরিক পঞ্জি নবায়ন—ডি ভোটার—ক্যাব (ক্যাআ)—৬ নং ধারা বাস্তবায়ন ইত্যাদির মুষল-প্রহারে দেশের সংবিধানের মৌলিক নীতিকে নস্যাৎ করলেও ময়ূরপুচ্ছধারী কাকদের কিছুই যায় আসে না।


  • এই যে কথাগুলি লিখলাম, সমস্তই সম্ভবত দিবালোকের মতো স্পষ্ট এবং বহুবার উচ্চারিত। সমস্যা এখানেই যে আমরা অনেকেই স্বয়ংনির্বাচিত কূপমণ্ডূকতায় আক্রান্ত। নিজেদের আলাদা আলাদা কুয়োয় (রাজ্যের পরিসর, নির্দিষ্ট ভৌগোলিক অঞ্চল, ধর্মগোষ্ঠী, হিন্দুদের ক্ষেত্রে বর্ণাশ্রমভিত্তিক ক্ষুদ্র গোষ্ঠী, উপভাষিক পরিচিতি, বিভ্রান্তি-লালিত রাজনৈতিক দল, উপদল ইত্যাদি) আবদ্ধ থেকে ইতিহাস-নৃতত্ত্ব-সংস্কৃতি-বিজ্ঞানবুদ্ধিকে অনুসরণ করার কোনো তাগিদই দেখাই না। ফলে আবহমান ভারত হিন্দুস্থানে রূপান্তরিত হলেও সে খবর রাখি না; তার ওপর বৈদ্যুতিন গণমাধ্যমের মগজধোলাইয়ের প্রচারে সর্বস্ব-অপহরণকারী শাসকের দানবিক ও পৈশাচিক চরিত্র সম্পর্কে অবহিত হওয়ার বদলে তাদের অবতার বলে বন্দনা করি। তাই তাদের নিশ্ছিদ্র মিথ্যাচার ও বিদ্বেষের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে না তুলে ক্যাব (ক্যাআ)-এর মতো জনবিরোধী আসুরিক অত্যাচারের স্বরূপ বুঝতে দেরি করে ফেলি। প্রকৃতপক্ষে এখনও কি সামগ্রিক পরিস্থিতির নিরিখে এর স্বরূপ বোঝার আদৌ কোনো চেষ্টা করছি? অথচ এই মূল কথাটি দ্বর্থ্যহীন ভাষায় সমবেত উচ্চারণে বাংলাভাষীদের জানানো আবশ্যিক ছিল; অবিভক্ত ভারতবর্ষে যাঁরা নাগরিক এবং অবাঞ্ছিত ও আরোপিত দেশভাগের ফলে অবিভক্ত ভারতবর্ষের এক অঞ্চল থেকে অন্য অঞ্চলে কিংবা ধর্মান্ধ সমাজ ও প্রশাসনের (প্রকাশ্য বা প্রচ্ছন্ন) যোগসাজশে বর্তমান খণ্ডিত ভারতে পরিব্রজন করতে বাধ্য হয়েছেন, তাঁদের সবাইয়ের প্রকৃতপক্ষে ভারতের আদিবাসিন্দা বা ভূমিপুত্র হিসেবে পরিগণিত হওয়া উচিত। বস্তুত অবিভক্ত ভারতবর্ষের বর্তমান সন্ততিরা খণ্ডিত ভারতের আসামে-পশ্চিমবঙ্গের-ত্রিপুরায় এবং অন্য কোনো প্রদেশে—যেখানে বাস করুন না কেন, তাঁরা সবাই ভূমিপুত্র এবং তাঁদের সংবিধানসম্মত অধিকারগুলি শুধুমাত্র অন্ধ জাতিবিদ্বেষ ও আক্রোশবশত কেড়ে নিতে চাইলে তা মানবাধিকার লঙ্ঘনের নগ্ন দৃষ্টান্ত হিসাবে গণ্য।

    অতএব আসামে ও পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা নির্বাচনের ‘কৌশল’ হিসেবে নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি), ক্যাআ ইত্যাদি নিয়ে জাতিবিদ্বেষ-সর্বস্ব রাষ্ট্রনায়কেরা আপাতত কোনো কথা না বললেও কোভিদ অতিমারির দ্বিতীয় তরঙ্গ প্রতিরোধের অজুহাত সহ ওই দুটি স্থগিত ব্রহ্মাস্ত্র-প্রয়োগ সম্পর্কে জনগণের মনোযোগ শিথিল করা চলবে না। আর আসামের পরিস্থিতি সম্পর্কে বিশেষ ভাবে উল্লেখ করা দরকার যে অসমিয়াভাষী জনগণকে আসাম চুক্তির ৬ নং ধারা বাস্তবায়নের মাধ্যমে সাংবিধানিক আইনগত প্রশাসনিক সুরক্ষা দেওয়ার নামে শর্মা কমিটি যে শক্তিশেল প্রয়োগের ক্ষেত্র প্রস্তুত করেছে, তাতে গাঁওপঞ্চায়েত হেকে জেলা পরিষদ, পুরসভা, বিধানসভা, লোকসভা, রাজ্যসভা পর্যন্ত অসমিয়া ভূমিপুত্রদের জন্য ১০০% সংরক্ষণ নিশ্চিত হবে। সমস্ত সরকারি ও বেসরকারি ক্ষেত্রে ১০০% জীবিকা তাদের জন্য সংরক্ষিত হবে। এ ছাড়া হরিশঙ্কর ব্রহ্ম কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী সমস্ত জমি কেনাবেচার অধিকার অসমিয়া ভূমিপুত্রদের জন্য ১০০% সংরক্ষণ করা হবে। তো, ভারতীয় গণতন্ত্র ও সংবিধানকে ধূলিসাৎ করে আসাম সরকার বাঙালিদের ‘তিন নম্বর ছাগলছানা’ করার সব আয়োজন সম্পূর্ণ করে ফেলেছে। ক্যাআ-র নামে বাঙালিদের জন্য কী নিশ্ছিদ্র চক্রব্যূহ তৈরি হয়েছে, সেই খবর কি সত্যিই রাখি আমরা?
    নির্বাচন নামক প্রহসন আসবে এবং যাবে। কিন্তু হিন্দি-হিন্দু-হিন্দুস্থান নীতির গিলোটিনে বাঙালি জাতির মুণ্ডপাত অব্যাহত থাকবে। দেশ বলতে থাকবে শুধু ফাঁপা মানচিত্র যার সার্বিক দখল নিয়ে চলেছে আদানি-আম্বানিদের গৃহভৃত্য বিজেপি সরকার। এই সরকারের লাগাম যাদের হাতের মুঠোয়, তাদের চক্ষুলজ্জা নেই, বিবেক নেই, ইতিহাসবোধ নেই। বাঙালি ওদের বিচারে উইপোকা, ঘুসপেটিয়া। ক্যাআ-কে বুঝে নিতে হবে সেই নিরিখে। সীমিত পরিসরে শুধু একথাই লিখব: দেশভাগ কারা কেন করেছিল, এই প্রশ্নটা আবার উত্থাপিত হোক। খোদ পশ্চিমবঙ্গে সেই বিন্দুতে শুরু হয়েছিল বাঙালি-সত্তার পাতালযাত্রা। গত সাত বছরে দেশ জুড়ে বাঙালি হারিয়েছে তার অস্তিত্বের অভিজ্ঞান। আসামে ক্যাআ, এনআরসি ইত্যাদি পরীক্ষাগারের অব্যর্থ দাওয়াই। যতদিন ভারতবর্ষ ছিল, তা বাঙালিরও অন্বিষ্ট ছিল। কিন্তু বিদ্বেষের বিষে আচ্ছন্ন ‘হিন্দুস্থান’? তা কি আদৌ বাঙালির?

  • বিভাগ : আলোচনা | ৩১ মার্চ ২০২১ | ৯৫৭ বার পঠিত | রেটিং ৫ (১ জন)
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • santosh banerjee | ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১৪:৪৫498442
  • সদ্য , এক মহানায়ক বলেছেন আসাম নাকি কাশ্মীর হতে পারে বা চলেছে ...এই জাতীয়। তা ঐ মহামানব বলুন তো আসামের বেশিরভাগ হিন্দুর নাম বিদেশি খাতায় উঠলো কেন ? আর তিনি আরো বলুন তো, স্বর্গীয় তরুণ গগৈ র ছত্র ছায়ায় থাকার সময় মুসলিম পার্টির সঙ্গে আঁতাত করেছিল কে ? এইসব নেতারাই ঐ ধর্মের নামে রাজনীতি করে দেশটাকে জাহান্নামের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে পারেন। এই হচ্ছে বিজেপি নামক ফ্যাসিসট দলের রাজনীতি।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান



CAA, NRC, CAB, Citizenship, Motua, Indian citizenship, SHahinbagh, Park Circus, Assam NRC, CAA Protest, Tamilnadu CAA, Seriously Gururchandali
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খেলতে খেলতে মতামত দিন