এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • বুলবুলভাজা  আলোচনা  রাজনীতি

  • ভারতীয়তার আড়ালে ফিরছে পরাধীন আমলের কালা কানুন

    নরেশ জানা
    আলোচনা | রাজনীতি | ০১ জুলাই ২০২৪ | ১০৮৯ বার পঠিত | রেটিং ৪ (১ জন)


  • এক

    প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর এটা স্পষ্টতই বোঝা যাচ্ছিল যে ঔপনিবেশিক শাসনের বাঁধন ক্রমশ আলগা হতে শুরু করেছে। পরাধীন দেশগুলোতে জাতীয় মুক্তি সংগ্রামের প্রেক্ষাপট তৈরী হচ্ছে। যে কোন উপায়ে স্বাধীনতা চাই এমন উদগ্র কামনা জেঁকে বসছে পাশ্চাত্য কর্তৃক শাসিত জনগণের মধ্যে। শিক্ষিত কিংবা অক্ষর জ্ঞানহীন মানুষ, আবাল বৃদ্ধ নরনারী তাঁদের দুর্দশার জন্য ঔপনিবেশিক শাসকদের দায়ী করছেন। পরাধীন ভারতও তার ব্যতিক্রম ছিলনা। বিংশ শতকের গোড়াতেই ভারতের স্বাধীনতা অর্জন সম্পর্কে দুটি ধারা প্রবল হতে থাকে এবং প্রায় সমান্তরাল গতিতে অহিংস ও সহিংস আন্দোলন চলতে থাকে। ১৯১৮ প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শেষ হওয়ার পর মানুষের দুর্গতি আরও চরমে ওঠে। যুদ্ধের যাবতীয় ব্যয়ভার ঔপনিবেশিক দেশগুলোর ঘাড়ে চেপে বসে ফলে মানুষের অবস্থা অসহনীয় হয়ে ওঠে। ১৯১৭ সালেই বিহারের চম্পারনে গান্ধীজি সত্যাগ্রহ শুরু করেছেন নীল চাষিদের নিয়ে।১৯১৯ তিনি সমর্থন জানালেন খিলাফত আন্দোলনকে।

    এই পরিস্থিতিতে তাবৎ গণ আন্দোলন দমন করতে ১৯১৯ খ্রিষ্টাব্দের ১৮ই মার্চ ব্রিটিশ সরকার এক সন্ত্রাসবাদ বিরোধী এবং দমনমূলক আইন আনল। যা কুখ্যাত 'রাউলাট আইন' নামে পরিচিত। এই আইনে জনগণের স্বাধীনতা ও অধিকার হরণ করা হল। সরকার বিরোধী যে-কোনো প্রচারকার্যকে দন্ডনীয় অপরাধ বলে চিহ্নিত করা হয় এবং কোনো রকম সাক্ষ প্রমাণ ছাড়াই যে-কোনো সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে বিনা পরোয়ানায় ও বিনাবিচারে গ্রেফতার ও যতদিন খুশি আটক রাখার অবাধ ক্ষমতা ও ঘরবাড়ি তল্লাসির অধিকার সরকারকে দেওয়া হয়। এই আইনের মাধ্যমে ভারতীয়দের ন্যায়বিচার লাভের অধিকার সম্পূর্ণভাবে কেড়ে নেওয়া হয়েছিল। যে কারণে রাওলাট আইনকে কালো আইন বলে পরিচিত হল। এই আইনের বিরুদ্ধে জনমত গঠন করার উদ্দেশ্যে ১৯১৯ খ্রিষ্টাব্দে ৩০শে মার্চ এবং ৬ই এপ্রিল গান্ধিজির ডাকে দেশব্যাপী বিক্ষোভ হরতাল পালিত হয়। দেশজুড়ে বিভিন্ন জায়গায় জনসভা অনুষ্ঠিত হতে শুরু করে। আইন প্রয়োগের এক মাসও পূর্ণ হলনা, ১৩ এপ্রিল, ১৯১৯ পাঞ্জাবের অমৃতসরের জালিয়ানওয়ালাবাগে রাওলাট আইনের বিরোধিতায় উপস্থিত হয়েছিলেন ১০ হাজার মানুষ। বৃটিশ সেনাপতি জেনারেল ডায়ার সমবেত জনগণকে কোন রকমের আগাম সতর্কতা না দিয়েই জনতার ওপর তাঁর সেনাবাহিনীকে নির্বিচার গুলিবর্ষণের নির্দেশ দেন। সরকারি হিসেবে দেড় হাজার আর বেসরকারি হিসেবে অন্তত আড়াই হাজার নারী পুরুষ শিশু নিহত হন।

    ইতিহাস বলছে, ১৯১১ সালে জুলাই মাসে বৃটিশ বিরোধী কার্যকলাপে অভিযুক্ত হয়ে সেলুলার জেলে দীপান্তরিত হন দক্ষিণপন্থী হিন্দুত্ববাদী ভাবনার জনক বিনায়ক দামোদর সাভারকার। আগষ্ট মাসেই তিনি নিজের কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা ভিক্ষা করে প্রথম চিঠি দিয়ে ফেলেছেন। এরপর ১৯১২, ১৯১৩, ১৯১৪ সেই একই চিঠি। তারপর ১৯১৫, ১৯১৬,১৯১৭। সব চিঠির বয়ান মোটামুটি একই রকম। দয়া করে সরকার যদি তাঁকে মুক্তি দেয় তবে জীবনে স্বাধীনতা আন্দোলনের ধারে কাছে যাবেন না। ৬ নম্বর চিঠিতে সাভারকার যেন বলছেন, হুজুর আমার মাঈ-বাপ। বলছেন, “অন্যভাবে যা পাওয়া যেতে পারে, সেই তুলনায় আমাকে জেলে আটকিয়ে রাখলে কিছুই পাওয়া যাবে না। শক্তিশালীর পক্ষেই একমাত্র ক্ষমাশীল হওয়া সম্ভব। কাজেই অনুতপ্ত সন্তান পিতৃতুল্য সরকারের দরজা ছাড়া আর কোথায় ফিরে যাবে। মহামান্য হুজুর অনুগ্রহ করে বিষয়টি বিবেচনা করবেন এই আশা রইল।”

    ১৯২০ সালে অর্থাৎ জালিওনাবাগ গণহত্যার পরের বছর সাভারকার তাঁর সপ্তম ক্ষমা প্রার্থনার চিঠিতে বৃটিশ সরকারের কাছে মুক্তি ভিক্ষার যে আবেদন করেছিলেন, তাতে বললেন "সংবিধান মেনে রাজনৈতিক কার্যকলাপ চালাতে তিনি রাজি আছেন এবং দীর্ঘ সময়ের জন্য রাজনৈতিক কোন কার্যক্রমে তিনি জড়িত থাকবেন না" কথা রেখেছিলেন সাভরকার। বৃটিশ কারাগার থেকে বেরিয়ে আর কোনদিন বৃটিশ বিরোধী আন্দোলন করেননি বরং বিপ্লবীদের বিরুদ্ধে নিজের কাজ করে গেছেন।

    ১ লা জুলাই ২০২৪, সোমবার থেকেই ভারতে চালু হচ্ছে নতুন তিনটি আইন ব্যবস্থা। উঠে যাচ্ছে ইন্ডিয়ান পেনাল কোড, আইপিসি(ভারতীয় দন্ডবিধি) এবং ফৌজদারি কার্যবিধি বা সিআরপিসি। সেই প্রসঙ্গে কিছু আলোকপাত করার জন্য উপক্রমণিকায় ওই টুকু শৈব গীতের প্রয়োজন ছিল কারণ ২০২৩ সালের সংসদের শীতকালীন অধিবেশন ১৪৬ জন সাংসদকে সাসপেন্ড করে ওই তিনটি আইন পাশ করিয়ে নিয়েছিল দ্বিতীয় নরেন্দ্র মোদী সরকার। আর সেই প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেছিলেন ১৬০ বছরের পুরোনো বৃটিশ আইনকে সরিয়ে নতুন আইন ব্যবস্থা প্রনয়ণ করছেন তাঁরা। অর্থাৎ শুরু থেকেই এমন একটা ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে যেন এতদিন আমরা বৃটিশের তৈরী করা আইন ব্যবস্থার অধীনে ছিলাম আর এখন আমরা পুরোপুরি নতুন কোন ভারতীয় আইনের আওতায় চলে যাচ্ছি। আসলে এখানেও খুব কৌশলে ভারতীয় কড়ায় ভারতীয় তেলে পুরানো আইনকেই সদ্য বানানো ‘তেলে ভাজা’ বলে বিক্রির চেষ্টা করা হচ্ছে যা শুধু বাসিই নয়, পচাও বটে।

    যে সাভারকার বৃটিশ সরকার আমাদের মাঈ-বাপ বলে তাদের আইনের আওতায় সমস্ত ভারতীয়দের থাকা উচিত বলে মনে করেছিলেন, যিনি কুখ্যাত রাওলাট আইন ও জালিওনাবাগ গণহত্যা নিয়ে কোনদিন একটা শব্দ উচ্চারণ করেননি তাঁর উত্তরসূরিরা ভারতবাসীকে এমন কোন আইন উপহার দিতে পারেনা যা জনগণের মুক্ত চিন্তা, প্রগতি ভাবনা, মানবাধিকার, অগ্রণী জীবন যাপনের অধিকার রক্ষার পথ কে প্রশস্ত করবে। মোদীশাহীর দশ বছরে তা পদে পদে প্রমাণিত হয়েছে। ১লা জুলাই ২০২৪ থেকে যে নতুন তিনটি আইন ব্যবস্থা চালু হতে চলেছে সেই ভারতীয় ন্যায় সংহিতা, ভারতীয় নাগরিক সুরক্ষা সংহিতা এবং ভারতীয় সাক্ষ্য আইন আদতে মোদী শাহীর দশ বছরের শাসনের অভিজ্ঞতার নিরীখে তৈরী যা কিনা স্বৈরতন্ত্র বিরোধী জনমত দমনের প্রচেষ্টা ঠিক যেমনটা বৃটিশরা তাদের শাসনকালের শেষার্ধে রাওলাট আইন প্রবর্তনের মধ্যে দিয়ে করতে চেয়েছিল। যার মূল কথা হল, এমন একটি পুলিশি ব্যবস্থা কায়েম কর যেখানে পুলিশ তার হাতে থাকা সর্বাধুনিক শক্তিশালী প্রযুক্তি ও হাতিয়ারকে আইনি পদ্ধতিতে জনগণের বিরুদ্ধে ব্যবহার করবে। এই পর্বের আলোচনায় আপাতত আমরা নতুন ভাবে তৈরি করা এই পুলিশি ব্যবস্থার প্রক্রিয়াতেই মনোনিবেশ করছি।

    প্রথম কথা এতদিন আমরা বৃটিশ আমলে তৈরি হওয়া একটা আইনি ব্যবস্থার অধীনে ছিলাম এই ধারণাটা ভুল। কারণ স্বাধীন ভারতে বিভিন্ন আইনসভা বিভিন্ন সময় আইপিসি কিংবা সিআরপিসিতে বিভিন্ন সংশোধনী এনেছে, সময়োপযোগী করার চেষ্টা করা হয়েছে। তার সবটাই ভালো ছিল এমন নয় কিন্তু বৃটিশ ব্যবস্থারই পুরো আইপিসি কিংবা বিআরটিসি মেনে আমরা গত ১৬০ বছর ধরে চলে আসছি আরএসএসের এই ন্যারেটিভটা বিভ্রান্তি ছড়ানোর লক্ষ্যেই। যদিও তারা নিজেরা এবং তাদের সহযোগী সংগঠন তা শ্যামাপ্রসাদের হিন্দু মহাসভা কিংবা আরএসএসের হেডগেওয়ার বৃটিশ কালাকানুনের বিরুদ্ধে টুঁ শব্দ করেনি। সাভারকারের কথা আগেই বলেছি।

    স্বাধীন ভারতে সবচেয়ে কালো সময় ছিল জরুরি অবস্থা। সারা দেশ যখন জরুরি অবস্থার মিসা কিংবা ডিআইএসআইআরের মত আইনের বিরুদ্ধে সোচ্চার তখন তৎকালীন আরএসএস প্রধান বালাসাহেব দেওরস পুনের ইয়েরাওয়াদা জেল থেকে মুক্তি ভিক্ষা করে জরুরি অবস্থাকে সমর্থন করে ইন্দিরা গান্ধীকে একাধিক চিঠি দেন। শুধু তাই নয়, তিনি বলেন, আরএসএস কে জয়প্রকাশ নারায়ণের থেকে বিচ্ছিন্ন করে তাঁরা ইন্দিরা গান্ধীর ২০ দফা কর্মসূচি বাস্তবায়নে কাজ করে যাবেন। অটল বিহারী বাজপেয়ী সহ ৩০ জন আর এস এস নেতা জেল থেকে মুক্তির বিনিময়ে জরুরি অবস্থাকে সমর্থন করবেন বলে জানিয়েছিলেন। সুতরাং আজকের বিজেপি ভারতীয়দের জন্য উক্ত তিন আইন বিধিমালার মধ্যে দিয়ে কোন নতুন যুগের সূচনা করছেন না।

    যে কথা বলছিলাম, স্বাধীন ভারত বৃটিশের তৈরি আইনবিধি মেনে চলছিল এই ধারণাটা ভুল কারণ আমাদের আইনবিধি আমাদেরই পণ্ডিতদের তৈরি করা সংবিধানের অধীন। ভারতের বিচার বিভাগ কোনও আইনকে তখনই আইনের মর্যাদা দেন যখন তা সংবিধান অনুমোদন করে। শুধু মাত্র সংখ্যাগরিষ্ঠতার জোরে কোনও আইন পাশ করিয়ে নেওয়া যায়না। যে কারণে নরেন্দ্র মোদীর ‘নির্বাচনী বণ্ড’ আইন করে পাশ করানোর পরও বিচার বিভাগ তা অসাংবিধানিক বলে বাতিল করে দিয়েছে। সুতরাং বৃটিশ ভারতে তৈরি হয়েও আইপিসি কিংবা সিআরপিসিকে সংবিধানের আওতায় এসে ভারতীয় হতে হয়েছে তবেই তা কার্যকর ছিল।

    দুই

    এবার আমরা দেখে নেই কিভাবে চালু হতে যাওয়া নতুন আইন বিধিতে পুলিশ রাজ কায়েম করা হয়েছে। একটা উদাহরণ নেওয়া যাক, ভারতীয় সংবিধানের নাগরিকদের মৌলিক অধিকার হিসেবে বাক স্বাধীনতা, সভা, সমিতির অধিকার দেওয়া হয়েছে। সরকারের সমালোচনা করার অধিকার রয়েছে। এই দিকে নজর রেখে সুপ্রিম কোর্ট বারবার ‘রাষ্ট্রদ্রোহ’ আইন বাতিল করতে বলেছে। সুপ্রিম কোর্ট স্পষ্ট বলেছেন, সরকারের বিরোধিতা মানে রাষ্ট্রের বিরোধিতা নয়। পুরানো আইন অর্থাৎ আইপিসি ১২৪(এ) ধারায় স্থগিতাদেশ দিয়ে সুপ্রিম কোর্ট বলেছেন কাউকে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলায় অভিযুক্ত করা যাবেনা। কিন্তু নতুন আইন অর্থাৎ ভারতীয় ন্যায় সংহিতার ১৫০ ও ১৫২ ধারায় কৌশলে রাষ্ট্রদ্রোহ ফিরিয়ে আনা হয়েছে। এই নতুন সংজ্ঞায় বলা হয়েছে, যদি কেউ বা কারা ইচ্ছাকৃতভাবে বা জেনেশুনে বক্তব্যে অথবা লিখিত, বা সাংকেতিক চিহ্ন দ্বারা, বা দৃশ্যমান উপস্থাপনা দ্বারা, বা বৈদ্যুতিন যোগাযোগ দ্বারা, অথবা আর্থিক উপায় ব্যবহার করে বা অন্যভাবে উত্তেজিত বা উত্তেজিত করার চেষ্টা করে যাতে বিচ্ছিন্নতা বা সশস্ত্র বিদ্রোহ বা নাশকতামূলক কার্যকলাপ, বা কেউ যদি বিচ্ছিন্নতাবাদী কার্যকলাপে উৎসাহিত করে যার দ্বারা ভারতের সার্বভৌমত্ব বা একতা বা অখণ্ডতাকে বিপন্ন হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয় তবে তা উক্ত ধারায় শাস্তি যোগ্য অপরাধ বলে বিবেচিত হবে। এক্ষেত্রে শাস্তির যেখানে আগে নূন্যতম ৩ বছর থেকে বাড়িয়ে সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন ছিল তা নতুন আইনে নূন্যতম ৭ বছর থেকে যাবজ্জীবন করা হয়েছে।

    এখন প্রশ্ন হল, 'বিধ্বংসী কার্যকলাপ' বা 'বিচ্ছিন্নতাবাদী কার্যকলাপ' কাকে বলা হবে? কোন কাজ বা কোন বক্তব্য বিচ্ছিন্নতাবাদী কার্যকলাপ তৈরি করতে উৎসাহ দেবে, কিসের ভিত্তিতে মূল্যায়ন করা হবে যে একজনের কার্যকলাপ, বক্তব্য, পোস্ট ভারতের সার্বভৌমত্ব বা একতা বা অখণ্ডতাকে বিপন্ন করছে? এর কোন সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা, সংজ্ঞা এই আইনে নেই। ফলে এই ধরনের অস্পষ্ট এক বিস্তৃত ভাসা ভাসা কথামালায় আইনের অপব্যবহার ঝুঁকি থেকে যাচ্ছে অথবা ইচ্ছা করে রাখা হচ্ছে। ভারতের মতো একটি বিস্তীর্ণ, বৈচিত্র্যময় দেশে, বিভিন্ন জাতি এবং সম্প্রদায় ও গোষ্ঠীর অভাব অভিযোগকে বিচ্ছিন্নতাবাদী প্রবণতা বা কার্যকলাপে উৎসাহ দেওয়া হচ্ছে বলে বোঝানো যেতে পারে। আইন প্রনেতাদের দাবি আইপিসি আইপিসি ১২৪ (এ) তে 'ভারতের সার্বভৌমত্ব, বা একতা বা অখণ্ডতা' বলে তবুও কিছুটা সুস্পষ্ট ধারণা দেওয়া হয়েছিল কিন্তু এখন অর্থাৎ ১৫২ ভারতীয় আইন সংহিতা রাষ্ট্রের জন্য ধ্বংসাত্মক বা বিচ্ছিন্নতাবাদী কার্যকলাপ, ভারতের সার্বভৌমত্ব, ঐক্য এবং অখণ্ডতাকে বিপন্ন করার অনুভূতিকে উৎসাহিত করা ইত্যাদি বলে রাষ্ট্রের জন্য এমন একটি বিস্তৃত অস্পষ্ট পরিসর তৈরি করেছে যেখানে যে কাউকে এই আইনে বেঁধে ফেলা যায়।

    ধরা যাক ভারতের দক্ষিণের লোকেরা এই বলে প্রতিবাদ জানাতে শুরু করল যে একই পরিমাণ কর দেওয়া স্বত্ত্বেও তারা উত্তরের বাসিন্দদের কম সুযোগ সুবিধার অধিকারী কিংবা সরকার সেখানে পর্যাপ্ত উন্নয়ন করছেনা। তাঁরা উত্তরের মানুষদের দ্বারা বৈষম্যের শিকার। অথবা কোন আদিবাসী গোষ্ঠী এই বলে অভিযোগ করল যে তাঁরা সংরক্ষণের সুবিধার ক্ষেত্রে বৈষম্যের শিকার হচ্ছে, শিক্ষাগত কোটা বা উন্নয়নে তাঁরা বঞ্চিত হচ্ছেন সেক্ষেত্রে তাঁদের বিরুদ্ধে বিচ্ছিন্নতাবাদী অনুভূতিতে উৎসাহ দেওয়ার জন্য মামলা করা যেতে পারে। সব মিলিয়ে এটা স্পষ্ট হয়ে যায় যে এই ধারার সুস্পষ্ট লক্ষ্য হল গণতান্ত্রিক এবং অহিংস প্রতিবাদ, আন্দোলন এবং রাষ্ট্রীয় সংস্থা এবং সরকারগুলির নীতি ও কর্মসূচির বিরুদ্ধে নাগরিকদের প্রচারণাকে অপরাধীকরণের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক কণ্ঠকে স্তব্ধ করে দেওয়া। গণতান্ত্রিক দাবী এবং ভিন্নমত ও বিরুদ্ধতার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রকে আইনি অস্ত্র যোগান দেওয়া।

    তিন

    ২০২২ সালে মধ্যপ্রদেশ হাইকোর্টের বিচারপতি রোহিত আর্য আরও একবার উচ্চারণ করলেন, পুলিশ হল সংগঠিত গুন্ডা বাহিনী! বারবার আমরা পুলিশি অত্যাচারে সাধারণ মানুষের মৃত্যু দেখে আসছি। লক আপে পিটিয়ে মারার ঘটনা আকছার ঘটে এ দেশে। বিচার বিভাগ যথেষ্ট তৎপর হওয়া সত্ত্বেও এর খুব একটা সুরাহা হয়নি। নতুন আইনে পুলিশি অত্যাচারের সম্ভাবনা কয়েকশ গুণ বাড়িয়ে পুলিশকে ব্যাপক ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। আইপিসিতে পুলিশি হেফাজতে অভিযুক্তকে সর্বাধিক ১৫ দিন রাখার ক্ষমতা দেওয়া হয়েছিল ভারতীয় আইন সংহিতায় ৬০ থেকে ৯০ দিন সেই ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। নতুন আইনের ১৮৭(৩) ধারায় বলা হয়েছে জামিনের শর্ত পূরণ করলেও অভিযুক্তকে গ্রেফতারের পর থেকে ৯০ দিন পুলিশ নিজস্ব হেফাজতে রাখতে পারবে। গ্রেফতার করার ক্ষেত্রেও তাই। ১৭২ ধারায় পুলিশ যাকে ইচ্ছা গ্রেফতার করতে পারে তার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতির প্রয়োজন নেই। ১৭৩(৩) ধারায় বলা হয়েছে শুধুমাত্র অভিযোগের ভিত্তিতে এফআইআর দায়ের করা যাবেনা। তিন থেকে সাত বছরের সাজা হতে পারে এমন অভিযোগের ক্ষেত্রে আগে প্রাথমিক তদন্ত করে তারপর এফআইআর করতে হবে। অর্থাৎ পুরোটাই পুলিশের ইচ্ছাধীন। বিচার চেয়ে অভিযোগ দায়ের করার পর সাধারণ মানুষকে পুলিশের ইচ্ছার ওপর নির্ভর করতে হবে যে সেটি আদালতে যাবে কিনা!

    আমরা জানি যে স্বাধীনতা আন্দোলনের সময় থেকে অনশন কর্মসূচি অহিংস আন্দোলনের একটা বড় অংশ ছিল। এই কিছুদিন আগে পর্যন্ত শর্মিলা চানু কিংবা সোনম ওয়াংচুকের অনশন সারা ভারতের নজর কেড়েছিল। নতুন আইনে অনশনকে অপরাধ যোগ্য বলা হয়েছে এবং পুলিশকে ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে এর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করার। ভারতীয় ন্যায় সংহিতার ২২৬ ধারায় বলা হয়েছে, "আইনসম্মত ক্ষমতা প্রয়োগে বাধ্য বা বাধা দিতে আত্মহত্যা করার চেষ্টা" ভারতের দণ্ডবিধিতে প্রবর্তিত একটি নতুন বিধান। এই নতুন বিধানটি নাগরিক প্রতিবাদের একটি রূপ হিসাবে উপবাস করার চেষ্টা করে এমন কাউকে অপরাধী প্রমাণ করতে পারলে অভিযুক্তকে এক বছরের সাধারণ কারাদণ্ড বা জরিমানা অথবা বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত করা যাবে। অর্থাৎ অহিংস পদ্ধতিতে গণতান্ত্রিক প্রতিবাদকে অপরাধ হিসেবে পরিধান করে অপরাধীকরণ করে শাস্তিমূলক ব্যবস্থার আইনি রক্ষা কবচ নিচ্ছে রাষ্ট্র। যদিও এর বাইরে আরও অনেক বিষয় রয়ে গেল যা বিস্তারিত আলোচনার দাবি করে কিন্তু এই সংক্ষিপ্ত পরিসরে এটা বুঝতে অসুবিধা হয়না যে সব মিলিয়ে আইন নিজেই নিপীড়নের একটা হাতিয়ার হয়ে উঠছে এই নতুন প্রক্রিয়ায় এবং মানুষের পরাধীন হয়ে থাকাকে বৈধতা প্রদান করছে। একটা গণতান্ত্রিক খোলস তৈরি করার আড়ালে গণতন্ত্রের প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলো মুছে ফেলার পাকাপোক্ত ব্যবস্থা করা হচ্ছে। রাষ্ট্র চাইছে নিপীড়নকে শক্তিশালী বৈধ অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করতে।


    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক।
  • আলোচনা | ০১ জুলাই ২০২৪ | ১০৮৯ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • aranya | 2601:84:4600:5410:1893:74da:2c0b:299d | ০১ জুলাই ২০২৪ ০৩:৪২533989
  • ভয়াবহ 
  • অরিন | 202.36.179.109 | ০১ জুলাই ২০২৪ ০৭:৪৩533993
  • ১৯২২ সালে রাওলট অ্যাক্ট প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।
    অতএব, এ কালা আইন আপাতভাবে স্বাধীন ভারতেরই।
  • | 2a0b:f4c2:1::1 | ০১ জুলাই ২০২৪ ০৮:১৪533994
  • সাভারকর কি বারীন ঘোষদের মত শুধু ক্ষমাই চেয়েছিলেন নাকি উপেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়ের মত অন্য বিপ্লবীদের নাম ফাঁস করে দিয়েছিলেন? সকলেই কি মুক্তির পর ১৪ বছর নজরবন্দি ছিলেন?
  • | ০১ জুলাই ২০২৪ ২০:৫৯534033
  • এটা থাক এখানে। বেশ গোছানো বক্তব্য। 
     
  • guru | 103.151.156.17 | ০১ জুলাই ২০২৪ ২২:১৭534035
  • @নরেশ জানা
     
    খুব সহজ ভাবে ভীষণ প্রাসঙ্গিক একটা সাবজেক্ট প্রেজেন্ট করেছেন। অনেক ধন্যবাদ। কিন্তু আমার বক্তব্য হলো যে উপমহাদেশ মূলতঃ একটা কলোনিয়াল সিস্টেম, এটি কোনো অর্গানিক রাজনৈতিক আন্দোলনের ফলে গঠিত হয়নি, কলোনিয়াল মাস্টারদের স্কুলে পড়া কিছু মানুষ কলোনিয়াল মাস্টারদের অনুকরণেই একটা সিস্টেম তৈরী করে নিয়েছে।কাজেই এধরণের সিস্টেমে এইধরণের কালা কানুন আসবেই সেটা নতুন কিছুই নয়। আমার প্রশ্ন হচ্ছে ৪০০ পার করতে না পেরেও সাহস আসছে কোথা থেকে এখন এসব কালা কানুন নিয়ে আসবার ? কি বলেন আপনি ?
  • যোষিতা | ০২ জুলাই ২০২৪ ০৩:৩৭534043
  • ন্যায় সংহিতা আইনের ধারাগুলো কেথায় পাওয়া যাবে? 
    আগে নিজে পড়ে দেখতে চাই। পরের মুখের ঝাল খাবার আগে কাগে কান নিয়ে গেল বলে কাগের পেছনে না দৌড়ে মূল বইটা পড়ে দেখতে চাই।
  • Naresh Jana | ০২ জুলাই ২০২৪ ১৩:২৫534057
  • আইনটা পাশ করিয়ে নেওয়া হয়েছিল ২০২৩-এর শীতকালীন অধিবেশনে। তখন মোদীর দ্বিতীয় জামানা। ওই সময় ১৪৬ জন সাংসদকে লোকসভা ও রাজ্যসভা থেকে বহিস্কার করে একতরফা আইন পাশ করিয়ে নেওয়া হয়।@guru
  • Sudipta Acharyya | ০২ জুলাই ২০২৪ ১৩:৩৮534061
  • ধন্যবাদ বিষয়টা সহজ করে তুলে ধরার জন্য।
  • Argha Bagchi | ০২ জুলাই ২০২৪ ১৩:৫২534062
  • নরেশদাদা বেশ ভাল হয়েছে। কিন্তু আরো একটু সময় দিয়ে আরো পরিষ্কার করে কিস্তিতে কিস্তিতে একটা একটা ধারা নিয়ে না লিখলে আমার মত আহাম্মক-শিরোমণির মগজে সুড়সুড়ি জাগে না।
     
    বানরেন্দ্রর ন্যায় সং হিতার্থে যে কিছু করে না, তা আর নতুন কথা কি। তবে কে সি নাগও পাটীগণিত কষে বলতে পারবেন না, মাত্র ছয় মাসে কতজন ন্যায়াধিকারিক একত্রে বসে বা না বসে দিনেরাতে কয়ঘন্টা কাজ (ctrl+c ctrl+v) করে বা না করে এই নতুন ন্যায়-অবতার ত্রয়ী প্রসব করেছেন, যার প্রসব-বেদনা আগামী অনির্দিষ্টকালের জন্য ভারতীয়দের সহনশীলতার প্রতিনিয়ত পরীক্ষা নিতে থাকবে।
  • রবি রায় | 2402:3a80:196f:e4f7:878:5634:1232:5476 | ০৮ জুলাই ২০২৪ ০০:২৫534366
  • গুরুত্বপূর্ণ এবং সময়োপযোগী একটি প্রতিবেদন 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লাজুক না হয়ে মতামত দিন