• হরিদাস পাল  আলোচনা  সমাজ

  •  আয় তবে বেঁধে বেঁধে থাকি 

    Anirban M লেখকের গ্রাহক হোন
    আলোচনা | সমাজ | ১০ অক্টোবর ২০২০ | ৩৫৩ বার পঠিত
  • ৪/৫ (৪ জন)
  • জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
  • অংশুমান দাসের টুকরো টাকরা শান্তিনিকেতন নামে একটা বই হাতে এল, পড়লাম। লেখক আশি-নব্বই এর দশকে  ছাত্র ছিলেন শ্রীনিকেতনে, বিশ্বভারতীতে। লেখাটি সাবলীল, কিন্তু খুব অভিনব তা নয়। আমি যেহেতু কিছুদিন আগে পর্যন্তও প্রায় প্রতি সপ্তাহে শান্তিনিকেতন যেতাম, অনেক জায়গা তাই চেনা লাগছিল; মিলিয়ে নিচ্ছিলাম এখনকার ল্যান্ডস্কেপের সাথে, কিছু মিলছিল, কিছু মিলছিল না। কিন্তু যে অংশটা আমাকে সবচেয়ে আকর্ষণ করল এবং কিছুটা ভাবালো সেটা হল অংশুমানদের নাটকের দলের কথা, যার নাম ছিল সাঁকো। এটা ভাবালো কারণ আমাদের যৌবনে আমরা অনেকেই অনেক সঙ্ঘে ঢুকেছি যার বেশীর ভাগই ভেঙ্গে গেছে কয়েক দশকে (এমনকি কয়েক বছরেও)। কখনও সেটা লিটল ম্যাগাজিন, কখনও নাটকের দল, কখনো রাজনৈতিক সংগঠন। কিন্তু ঠিক কেন এই সঙ্ঘগমণ তা নিয়ে ভেবেছি অনেক। আপাতদৃষ্টিতে (এবং প্রস্তাবনায়) সঙ্ঘ সঠিক কবিতা, নাটক, বা মানবমুক্তির সঠিক পথের প্রতিশ্রুতি দেয়। যখন কেউ মেলে অন্যদের সাথে সেও নিশ্চয়ই বিশ্বাস করে সঠিক পথ এদিকেই। যদিও কিছুদিনের মধ্যে প্রায় সবাই বুঝতে শুরু করে সঠিক পথ এক আশ্চর্য মরিচীকা, দিগন্তরেখার মত যা শুধুই দূর থেকে দেখা যায় কিন্তু ছোঁয়া যায় না। তাহলে কি সঠিক পথের এই মরিচীকার আড়ালে  অন্য কিছু থাকে? সেই অন্যকিছু কি আসলে যূথবদ্ধতার স্বপ্ন যা সভ্যতার অগ্রগতির সাথে সাথে ক্রমবিলীয়মান? অংশুমান তাঁদের নাটকের দলের যে যাপনের কথা, হাতে হাত রেখে বেঁচে থাকার যে কথা লিখেছেন তাতে আমি সঠিক নাটকের সন্ধান ছাড়িয়ে সেই যূথবদ্ধতার যাপন চিহ্ন দেখছিলাম। এই যাপনচিহ্ন আমি দেখেছি আমার দেখা নব্বই ও তার পরের স্বপ্নসন্ধানী রাজনৈতিক সংগঠনের মধ্যে, লিটল ম্যাগাজিনে, নাটকের দলের মধ্যে। যূথবদ্ধ যাপনের টান আমি ব্যক্তিগতভাবে পাই নি কোনদিন, কিন্তু অনেক অনেক মানুষকে পেতে দেখেছি বা পড়েছি ষাট, সত্তরের লেখায়। কৃত্তিবাস, হাংরি কবিকুল -- আজকাল মনে হয় -- এই যূথবদ্ধতার টানেই মজেছিলেন কাব্যদর্শনের আদর্শের থেকেও যা অনেক শক্ত করে আমাদের বেঁধে রাখে। এই যৌথতার আকর্ষণ হয়তো আমাদের আদিম পূর্বপুরুষের জিনেই প্রোথিত ছিল, যা হয়ত যূথবদ্ধতার দিকে অমোঘ হাতছানি দেয়। কিন্তু শুধু জিন নয়, অংশুমানের লেখা পড়তে পড়তে মনে হচ্ছিল পঞ্চাশ, ষাট, সত্তরের সমাজ অনেক বেশী করে এই যৌথতাকে ধারণ করতে পারত, যা দু হাজারের পরের পৃথিবীতে আর সম্ভব নয়। প্রযুক্তি আরো বেশী বেশী করে একক যাপনকে সহনীয় করে তুলছে। বিলীয়মান যৌথযাপন নিয়ে আমার কোন আপশোষ নেই, একক বা যৌথযাপনের মধ্যে এ ভাল আর ও খারাপ এরকম কোন বিশ্বাসও নেই। আমি দেখি -- সাক্ষী বড়িলালের মত, দেখি আর বুঝি। বুঝি যে প্রযুক্তি পালটে দিচ্ছে আমাদের -- প্রতিদিন, পালটে যাচ্ছে যাপন আর যূথবদ্ধতার অমোঘ আকর্ষণ। সোশ্যাল মিডিয়া, অন্তত আমার বিচারে এই যৌথ যাপন থেকে অনেক দূরে, ঠিক বিপরীত। সোশ্যাল মিডিয়া আসলে অহং এর উদযাপন, নিজের প্রতিচ্ছবি ছুঁড়ে দেওয়া পৃথিবীর মুখে।

    এই ভাবনার সূত্র ধরেই মনে হয় আগেও কি যূথবদ্ধতার স্বপ্ন আদৌ ছিল? নাকি তাও আসলে অহং উদযাপণেরই প্রয়াস যা পরিস্থিতির প্রয়োজনে যূথবদ্ধতার হাত ধরেছিল? কিছু বছর আগেও, মানে আমাদের ছাত্রজীবনে, নব্বইয়ের শেষদিকে রবীন্দ্রসদন চত্বরে, বিকেল সন্ধের ভিড়ে জমা হতেন কবি-লেখকরা। এঁরা প্রায় সবাই লিটল ম্যাগাজিন বের করতেন, একে অপরের কবিতা পড়তেন, ছাপতেন। আমি এঁদের কাউকেই ব্যক্তিগত ভাবে চিনতাম না। কিন্তু এই যে দল এবং তার বসে থাকা,  সন্ধের রবীন্দ্রসদনে উপেক্ষা করা অসম্ভব ছিল। এই দল কী এখনও বসে? আমার ওই অঞ্চলে যাতায়াত খুব বেশী নেই আর। তবে ইদানীংকালে যে গেছি কয়েকবার সেভাবে কোন বড় দল চোখে পড়ে নি। তার কারণটা বোঝা খুব কঠিন নয়। এখন এধরণের অনেক আড্ডাই বসে ফেসবুকে, সেখানেই লেখার আদান-প্রদান হয়। আদান-প্রদান হয়ত আগের মতই আছে, কিন্তু তা সরে এসেছে ভার্চুয়ালের পরিসরে যেখানে অনেক বেশী গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে ব্যক্তিমানুষ। আমার আজকাল মনে হয় যূথবদ্ধতায় মানুষের যে যোগদান, তা কিন্তু অনেকটাই বাকিদের থেকে একধরণের স্বীকৃতি পাওয়ার ইচ্ছে সঞ্জাত। এখন আর সেই দায় আর নেই।  দলহীন এই পৃথিবীতে এখন অনেক অনেক বিচ্ছিন্ন মানুষ সামাজিক মাধ্যমে লাইক-শেয়ার ইত্যাদির মাধ্যমে সেই স্বীকৃতির ব্যবস্থা করে ফেলেছেন। আগে ব্যক্তি যখন দলে মিশত, তখন প্রাথমিক স্বীকৃতি আসত দলের। ব্যক্তি সদস্য সেই স্বীকৃতির পরোক্ষ ভাগ পেত। এখন কিন্তু স্বীকৃতি আসছে ব্যক্তিরই নামে। কারণ আগে বৃহত্তর সমাজের কাছে পৌঁছনর জন্য যে ব্যয় বহন করতে হত সেই ব্যয় একা কারো পক্ষে করা সম্ভব ছিল না। মানে ধরুন কোন পত্রিকা প্রকাশ, কবি সন্মেলনের আয়োজন বা নাটক করা এর কোনটাই ব্যক্তির পক্ষে সম্ভব ছিল না। এখন প্রযুক্তি এসে এই ব্যয়টাই কমিয়ে দিয়েছে। নিজের কবিতা অন্যকে শোনানোর জন্য আর পাঁচজন কবিকে জোগাড় করে কবি সন্মেলনের প্রয়োজন নেই আর। ফেসবুক লাইভে নিজে নিজেই সেটা করা সম্ভব। তাই মনে হয় যেটাকে সত্তরের দশকে যুথবদ্ধতার টান বলে মনে হয়েছিল, সেটাও হয়ত আসলে নিজের অহং উদযাপনেরই টান, অন্য কিছু নয়। তখন প্রযুক্তির কারণে এই উদযাপণের ব্যয় ছিল বেশী, তাই লোকে আরো আরো বেঁধে বেঁধে থাকার প্রয়াস নিত। এখন এই ব্যয় এসেছে কমে, তাই যৌথতাও ভেঙ্গে যাচ্ছে। এটাই কালের নিয়ম যেখানে প্রযুক্তি এসে পুরোন মূল্যবোধ ভেঙ্গে দেয়, নতুন মূল্যবোধ তৈরি করে। যেমন একসময় ছাপাখানা এসে জ্ঞানচর্চার সংস্কৃতিকে পালটে দিয়েছিল, আবার ইন্টারনেট এসে তা আরও পালটে গেল। এ নিয়ে আমার কোন দুঃখবোধ নেই। শুধু মনে হল, টুকরো টাকরা শান্তিনিকেতনের মত কোন লেখা আজকের কোন ছাত্র বা ছাত্রী আজ থেকে কুড়ি তিরিশ বছর পরে লিখবেন না বোধহয়।

  • বিভাগ : আলোচনা | ১০ অক্টোবর ২০২০ | ৩৫৩ বার পঠিত
  • ৪/৫ (৪ জন)
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • বিপ্লব রহমান | ১০ অক্টোবর ২০২০ ২১:০৩98239
  • এখন একজন মানুষ, আর একটি ফোন, আর বিচ্ছিন্ন চারপাশ। কেউ বলে না, কেউ চলে না, কেউ শোনে না!... 

    #

    লাইন স্পেসে ছোট ছোট প্যারায় লেখাটি প্রকাশ হলে চোখের আরাম হতো। আরও লিখুন 

  • π | ১১ অক্টোবর ২০২০ ১১:৫৫98265
  • সামাজিক মাধ্যমে দল নেই!! 

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ক্যাবাত বা দুচ্ছাই মতামত দিন