• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • করোনাকালীন (পর্ব তিন)

    Anuradha Kunda
    আলোচনা : বিবিধ | ১৪ জুলাই ২০২০ | ১২৩ বার পঠিত

  • ত্বরিতগতিতে ছুটে যাচ্ছিল সারমেয়কুল। এদের একটা স্বভাব আছে। খাদ্যের সামান্য আভাস এবং আদরের সামান্যতম আভাস পেলেও এরা লেজ নাড়াতে নাড়াতে দৌড়ে আসে।যেন বহুদিনের পরিচয়। একেক জনের একেক রকম স্বভাব ।কেউ এসেই হামলে পড়ে খায়।কেউ কেউ এসে সলজ্জভাবে দূরে দাঁড়িয়ে থাকে।পেটে খিদে।অথচ আসে না।দূরে দাঁড়িয়ে লেজ নাড়াতে থাকে। এরা খেতে আসলে, সবলরা গর্জন করে তেড়ে আসে।দুর্বল ও স্বভাব লাজুকরা দূরে সরে যায় । কিছুতেই অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারে না।অনেকটা গার্ড দিয়ে খাওয়াতে হয় ওদের।এটি ঠিক মেটিং সিজন নয়।তবু স্বাভাবিক নিয়মে দুটি পুরুষ ও নারী কুকুর খাবার দেখেও দৌড়ে এল না।তারা সঙ্গমে লিপ্ত হয়ে দেখছিল বাকিদের হুড়োহুড়ি । অতুল ডাকছিল ওদের।দেবরূপ নিষেধ করলো।ডোন্ট ডিস্টার্ব । অতুল হেসে অন্যদিকে চলে গেল। টমাস হার্ডির একটা কবিতা পড়েছিল ওরা স্কুলে।ইন টাইম অব ব্রেকিং অব দ্য নেশনস। যুদ্ধে সব তছনছ হয়ে গেছে।ভেঙে গেছে দুর্গ, কীর্তিস্তম্ভ। শুধু কৃষি, আগুন ও প্রেম জেগে আছে। রাত প্রায় দশটা। লকডাউনের ফলে ছত্রপতি শিবাজি রোড সাধারণ দিনের তুলনায় আরো নির্জন। একেবারে নির্জন। প্রাণীমাত্রের বেসিক নিড মেটানোর একটা নির্ভেজাল আনন্দ থাকে।ছ'টি তরুণ এই ফাঁকা রাস্তায় সারমেয়গুলির সঙ্গে এক অপার্থিব আনন্দ যাপন করছিল।।ওরা লাফিয়ে উঠছিল গায়ে। গড়িয়ে পড়ছিল রাস্তায় । বড় নির্ভেজাল আনন্দে কোভিডকাল মুছে যাচ্ছিল ঐটুকু সময় থেকে।এর কোনো ডিজিটাল সাক্ষী নেই।মাথার ওপরে পরিচ্ছন্ন নীল আকাশ।অগণিত তারা।রাস্তার দুপাশে ঘননিবদ্ধ গাছপালা।সব মিলেমিশে একাকার।
    অনতিকাল পরে বাইকগুলি গর্জন করে ছুটে গেল পার্বতীহিলের দিকে । লকডাউন শুরু হয়েছে পর থেকে সবাই গৃহবন্দি, এই রাত্রিকালীন ছাড়টুকু বাদে। সবাই উন্মুখ ভেসে যেতে।কুকুরগুলি তাকিয়ে রইল অপসৃয়মান বাইকের দিকে।আগামীকালের প্রত্যাশায়। আপাতত পেট ভর্তি।
    পুনের কেন্দ্র থেকে পার্বতীহিল মাত্র সতেরোমিনিটের পথ।প্রাচীনতম হেরিটেজ।ওরা লাফিয়ে লাফিয়ে উঠছিল। একশোতিনটি সিঁড়ি।
    ওপরে উঠে হাঁপাচ্ছে যশবিন্দার। তাগড়া পাঞ্জাবী অথচ হাঁপাচ্ছে।রণি বসে পড়েছে। দেবরূপ সিঁড়ির শেষ ধাপে বসে। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে একুশশো ফিট ওপরে এই জায়গা থেকে , ওদের সামনে পুনের প্যানোর্যামিক ভিউ। প্রায় ঘুমন্ত।
    অবন কুলকার্নি নেট চেক করলো । নেই। আজ ভোরে মুম্বাইতে মারা গেছে ওদের মুম্বাই ব্র্যান্চের ম্যানেজার সুভাষ মেহতা।
    - পাপানে মানি ভেজা উসকে ফ্যামিলিকে লিয়ে।বডিতক নহি দেখনে পায়া।
    - কোন দেগা বডি? কোভিড কেসমে
    - অ্যান্ড হোয়াট ইজ ইওর ফাদার ডুইং অ্যাবাউট দ্য মাইগ্রান্ট লেবারস? ওয়াকিং ফোকস? পেয়িং ফর ওল অব দেম?
    অবনের মুখ লাল হয়ে গেছিল।লক আউট ডিক্লেয়ার হওয়া মাত্র পাপা সমস্ত শ্রমিকদের আধামাসের স্যালারি দিয়ে ডিসমিস করে দিয়েছে।ইট ইজ নট পসিবল টু পে ফর ওল অব দেম। বন্ধুরা জানে।তবু দীপক খোঁচালো। অবন কুলকার্নির বাবা ইনডাসট্রিয়ালিস্ট। বাট হি ইজ নট রেসপনসিবল ফর এভরি ড্যাম থিংগ দ্যাট হ্যাপেনস টু দ্য লেবারস ।অবন শ্রাগ করল।
    সামনে প্রায়ান্ধকার পুনে শহর এলিয়ে পড়ে আছে। কিছু আলো হীরকদ্যুতিতে ঠিকরে আসছে।
    দেবরূপ সিগারেট খায় না।এখন একটা ধরালো। অদিতির জন্য থাকে পকেটে।
    মাইগ্রান্ট লেবারস। পরিযায়ী শ্রমিক ।কম পয়সা দাও। বেশি খাটাও। কারণ ওরা লোকাল শ্রমিকদের মত ঘাড়তেঁড়া করতে সাহস পাবে না। অনেক নমনীয় । আন্ডারপেইড অ্যান্ড ওভারওয়র্কড। প্রান্তিক।যতদিন যাচ্ছে লেবার লেজিসলেশন ঝুলিয়ে দিচ্ছে।সব চলে যাচ্ছে ব্যবসা আর পুঁজির ফেভারে।
    পায়ে হাঁটছে।লক্ষ লক্ষ শ্রমিক।
    শস্তা। কন্ট্রোল্ড। ইউজ অ্যান্ড থ্রো। ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া যায় ।এরা কোনোদিন কোনো প্রতিবাদ করে না।প্রতিরোধ করে না।এমন একটা অন্তর্বর্তী অপ্রেসিভ স্ট্রাকচারে বড় হয় , যে প্রতিবাদ করতে পারে না। ওদের কাজ করিয়ে ছুঁড়ে ফেলা হবে।এটাই স্বাভাবিক ।
    ছ' টি যুবক পার্বতী হিলের সিঁড়ির ধাপে ধাপে বসে। মাথার ওপরে নক্ষত্র খচিত আকাশে কোনো কোভিডের ছায়াপথ দেখা যায় না।কিংবা হয়তো আছে।ওরা দেখতে পাচ্ছে না।
    দেবরূপ দেখছে।পয়দল বাড়িতে যাচ্ছে সব ।কেরলের চা বাগান থেকে।তামিলনাড়ুর কেমিক্যাল ইনডাসট্রিয়াল ফ্যাকট্রি থেকে।হিমাচলের রাস্তা তৈরি ছেড়ে শ্রমিকরা বাড়িতে ফিরছে।ঐতিহাসিক ভাবে শোষিত সংখ্যালঘুর দল।জনসংখ্যার পঁচিশ শতাংশ। শ্রমিকশ্রেণীর চল্লিশ শতাংশ।দলিত আর আদিবাসী। ব্যবহার করো।ছুঁড়ে ফেলে দাও।
    অবন বললো, ওদের একটা ইনভিজিবল ইকোনমি আছে দেশের বাড়িতে ।ঠিক সাপোর্ট পেয়ে যায় । ইভন ইন দ্য টাইম অব কোভিড।
    - ইয়া । দ্যাট ইজ দ্য সিলভার লাইনিং। কাঠ কুড়িয়ে, ধান বুনে, মাটি কুপিয়ে একটা সাপোর্ট সিস্টেম রাখে।অ্যান্ড ইট ইজ টেকন ফর গ্রান্টেড।
    - অ্যান্ড দ্য গভমেন্ট গোজ স্কট ফ্রি, সো ডু দ্য বিজনেস ম্যাগনেটস।
    অবনের রাগ হয়েছে। অবন, অতুলের বাবার ফ্যাক্ট্রিতেই কুকুরদের খাবার রান্না হয়।গ্যাসের পয়সা দিতে হয় না।

    আলো জ্বলে উঠল দেবরূপের ফোনে।
    মেসেজ ওয়াপে। অদিতি।
    - মকরন্দ'স ফাদার পাসড আওয়ে।
  • বিভাগ : আলোচনা | ১৪ জুলাই ২০২০ | ১২৩ বার পঠিত
আরও পড়ুন
আয়না - ন্যাড়া
আরও পড়ুন
#আমি - Jinat Rehena Islam
আরও পড়ুন
খোপ - রৌহিন
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা

  • করোনা

  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত