• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • প্রাণহীন এক টুকরো পৃথিবী --তপন কুমার গঙ্গোপাধ্যায়

    বকলমে
    বিভাগ : আলোচনা | ০১ মার্চ ২০২০ | ২২৬ বার পঠিত

  • এই পৃথিবীর বৈচিত্রের কোন শেষ নেই , কত বিষম পরিবেশ আছে ; যে পরিবেশ আমাদের পরিচিত পৃথিবী থেকে কতটা আলাদা , পরিচিত প্রাণের পরিবেশের কতটা বিরুদ্ধ ৷ কোন জায়গা সাগরের দুই থেকে পাঁচ কিলোমিটার তলায় , সেখানে ভূ-ত্বকের ফাটল থেকে ঝলকে ঝলকে বেরিয়ে আসছে লাভা , মিশছে সাগরের জলের সঙ্গে ; তৈরি করছে কালো-ধোঁয়ার চিমনির শহর ৷ কোথাওবা সাগরের জল বিক্রিয়া করছে আদিম শিলার সঙ্গে , তৈরি করছে সাপবাজির ছাই-এর মতো সার্পেন্টাইন খনিজ ; সেখানকার পরিবেশ ক্ষারিয় ৷ তবু প্রাণের বিকাশ হয়েছে , এই পরিবেশেই তারা শিখে নিয়েছে জীবন ধারণের উপযুক্ত শক্তি উৎপাদন করে বেঁচে থাকতে ৷


    মরুভূমির বিরূপ পরিবেশে অল্প বৃষ্টি পেলেই সেখানকার ঝোঁপ , লতা , গুল্ম ফুলে ফুলে ভরিয়ে দেয় প্রান্তরের পর প্রান্তর ৷  মেরু-প্রদেশের শীতলতম হিমবাহের ভেতর কিভাবে জেগে থাকে প্রাণ কোটি কোটি বছর ধরে ৷ আলাস্কার সমুদ্রের খাঁড়িতে জীবনের জোয়ার আসে ঋতুর পরিবর্তনে যখন সাগরের বুকের ভেতর পৌঁছে যায় সূর্য্যের আলো , বসে যায় প্রকৃতির মহাভোজ ৷ কালাহারির বুক যখন ভাসিয়ে দেয় ওকাভাঙ্গো নদীর জল , সেখানে তৈরি হয় জীববৈচিত্রের এক টুকরো স্বর্গ ; সে স্বর্গ ভঙ্গুর , তবু প্রত্যেক বছর চলে জীবনের এই খেলা ৷ টাপুই-এর হাজার মিটার ওপরের পাহাড়ের ছাতে বাস করে একদল আমাদের অপিরিচিত প্রাণীরা , পাখিরা ৷ আমাজনের ফুটন্ত নদীর অববাহিকার পাড়ে পাড়ে সংসার পেতেছে অণু-জীবের দল ৷


    আমাদের পৃথিবীর কোনায় কোনায় সংসার পেতে জীবনের ধারা বয়ে নিয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণ ৷ তবে , এই পৃথিবীরই একটা জায়গা আছে যেখানে প্রাণের কোন চিহ্ন খুঁজে পাচ্ছেন না বিজ্ঞানীরা ৷ জায়গাটা যে পৃথিবীর কোন এক কোনায় তাও নয় , প্রায় বুকের কাছে ; মানে বিষুবরেখার কাছাকছি ইথিওপিয়ার ডালোলে ৷ পূর্ব আফ্রিকার ‘আফার ত্রিভুজ’ ; এলাকাটা ‘গ্রেট রিফট উপত্যকার’ একটা অংশ ৷ পশ্চিমে ইথিওপিয়ার সমতল আর পাহাড়ি এলাকা , উত্তর-পূর্বে ডানকালির নিচু অঞ্চল ( ইথিওপিয়া আর লোহিত সাগরের মাঝে ), দক্ষিণে সোমালির সমতল আর পাহাড় ৷ এখানকার প্রধান নদীর নাম আওয়াস; তবে বছরের বেশিরভাগ সময় শুকনোই থাকে ৷ এ নদী শেষ হয় একগুচ্ছ নোনাজলের হ্রদে ৷ আফার ত্রিভুজের উত্তরের এই অংশের নাম ডানকালি নিচু এলাকার জলা ( Dankali Depression ) ৷    


     সূর্য্য এখানকার ফুটিফাটা মাটিকে আরও গরম করে দেয় , খালি চোখে চারধারে ভাসতে থাকে শুধু মায়াময় মরিচিকার প্রেত নৃত্য ৷ শুকনো হাওয়া আর ধুলোতে আর্দ্রতা শুষে নেবে আপনার চোখ আর গলা ৷ এই অঞ্চল পৃথিবীর সবচেয়ে উষ্ণ অঞ্চলের মধ্যে অন্যতমদের দলে পড়ে ৷ এখানকার গড় বার্ষিক উষ্ণতা ৩৪.৪˚ সেন্টিগ্রেড ৷ বছরে বৃষ্টির পরিমাণ ১০০ থেকে ২০০ মিলিমিটার মাত্র৷ আর , এই এলাকা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪১০ ফুট তলায় , পৃথিবীর সবচেয়ে নিচু এলাকা ৷ ডানকালির জলার সীমানায় আছে এরিত্রিয়া , জিবুতি আর ইথিওপিয়ার আফার অঞ্চল ৷ এলাকাটা পূর্বআফ্রিকার বিখ্যাত রিফট উপত্যকার একটা অংশ ৷


    আপনি যদি পায়ে হেঁটে ঘোরেন এখানে , মনে হবে আপনি আমাদের পরিচিত পৃথিবীতে হাঁটছেন না ; হাঁটছেন অন্য কোন গ্রহে ৷ চারদিকে বুড়বুড়ি কাটছে আশেপাশে জেগে থাকা আগ্নেগিরির লাভা , নানা রঙের হাইড্রোথারমাল ( জলতাপবাহী ) ক্ষেত্র ৷ এটাই শেষ নয় , এই এলাকার তলার ভূ-ত্বক তিনটে গভীর ফাটল ধরে এখানকার ভূভাগ বছরে ১ থেকে ২ সেন্টিমিটার করে দূরে সরে যাচ্ছে ; ঠিক যেমনটা হয়েছিল কোটি কোটি বছর আগে , যখন ভারতবর্ষ আফ্রিকা ছেড়ে এসে মিশেছিল এশিয়ায় ৷ এখানকার গতিপ্রকৃতি দেখে বিজ্ঞানীরা মনে করছেন , আজ থেকে ১০ বা ২০ লক্ষ বছর পরে ভাগ হয়ে যাবে আফ্রিকা ; এখান দিয়ে বয়ে চলবে লোহিত সাগর ৷ ডুবে যাবে এই অদ্ভুত প্রান্তর ৷ গড়ে উঠবে নতুন সাগর , নতুন মহাদেশ বা কোন বড় দ্বিপ৷ তাই আজ এখানকার এই ফাটল , উষ্ণ-প্রস্রবণ আর গরম-ঝর্ণার ভেতর থেকে গলন্ত লাভার আলোয় রাতের আকাশ এখানে লাল হয়ে থাকে ৷


    পৃথিবীর ভূতাত্বিক ইতিহাসে অনকবার স্থলভাগ ভেঙে গিয়ে তৈরি হয়েছে নতুন নতুন মহাদেশ ৷ আগে স্থলভাগ ছিল একটাই ; সেটা ভেঙে তৈরি হয়েছিল ‘নতুন পৃথিবী’ বা আমেরিকা আর আন্টারটিকা ৷ আফ্রিকা ভেঙে ভারত চলে এসেছিল এশিয়ায় , আবার আমেরিকা ছিঁড়ে ব্রিটেন চলে এসেছিল ইউরোপে ৷ এইরকমই আরও একটা মহাদেশ ভাঙার কাজ চলছে ডালোলের ফাটলগুলোতে ; বলছে অনেক দূরের ভবিষ্যতের এক অন্য ভুগোলের রূপরেখা ৷


    চিরদিন কিন্তু এলাকাটা চিরকাল এরকম ছিল না ৷ ১৯৭৪ সালে ডোনাল্ড জনসন আর তাঁর দল এখান থেকেই খুঁজে পেয়েছিলেন মানুষের প্রায় ৩০ লক্ষ বছর আগের এক পূর্বসূরির প্রায় পুরো কঙ্কাল , যার নাম রাখা হয়েছে লুসি ৷ এ ছাড়াও আদিম মানবের বেশ কছু জীবাস্ম খুঁজে পাওয়া গেছে এখান থেকেই ৷ অনেক বিজ্ঞানীই মনে করেন মানুষের আদি শৈশবের অন্যতম ধাত্রীভূমি ছিল এই ডানকালির জলা ৷ তখন এ অঞ্চলে ছিল জঙ্গল আর তৃণভূমি ৷


    গত বছর ( ২০১৯ ), আগের গবেষণাকে নস্যাত করে একদল বিজ্ঞানী এই এলাকার নোনজলের জলাগুলো তন্ন তন্ন করে খুঁজে দেখেছেন ৷  এ জায়গা তীব্র অ্যাসিডিক , কোথাও কোথাও নোন জলের pH মাপলে মান আসে শূন্যেরও তলায় ৷ শীতকালেও দিনের উষ্ণতা উঠে যায় ৪৫˚ সেন্টিগ্রেডের আশেপাশে ৷ ডালোলের এইসব ভয়ঙ্কর গরম , নোনতা , অম্ল জল যা ছড়িয়ে আছে সমস্ত আগ্নেয়ফাটল জুড়ে ; যেখানে প্রাণের চিহ্নমাত্র নেই ৷ অণুজীবও ( microorganism ) বাস করে না এইসব এলাকায় ৷


    ডালোল ভূতাপ প্রভাবিত ক্ষেত্রের তথ্যগুলো পরপর এভাবে বলা যায় :


         ১ ) ডালোল একটা স্থলজ জলতাপবাহী মণ্ডল যেটা পূর্ব আফ্রিকার ইথিওপিয়ায় অবস্থিত ৷


         ২) এলাকাটি , তার বৃহত্তর পারিপার্শক নিয়ে পৃথিবীর উষ্ণতম এবং শুষ্কতম অঞ্চলের মধ্যে অন্যতম ৷ দিনের তাপমান এখানে শীতকলেও ৪৫˚ সেন্টিগ্রেডের ওপর  চলে যায় ৷


         ৩) এই এলকাটি এতটাই অম্ল বা অ্যাসিডিক যে কখনো কখনো pH ঋনাত্মক মান দেখায় , যদিও মাপের মাপদন্ডটা শুরু হয়েছে ০ থেকে ৷


          ৪) ডালোলের ভূ-তাপবাহী ক্ষেত্র বিখ্যাত তার অদ্ভুত রঙ আর খনিজের বিচিত্র আলপনার জন্যে ৷


          ৫) ডালোলের ক্ষেত্রটি অবস্থিত একটা ভীষণ লবনাক্ত , আগ্নেয় ফাটলের ওপর ৷


           ৬) অম্ল রস বেরিয়ে আসছে এখানকার ভূ-তাপবাহী ক্ষেত্র থেকে ; সেটা বেরোচ্ছে উষ্ণ, লবনাক্ত আর ভীষণরকম অ্যাসিডিক প্রস্রবনগুলো থেকে ৷


           ৭) পৃথিবীর বসবাসঅযোগ্য এলাকাগুলোতে চলছে ক্রমাগত তীব্র জলতাপীয় কার্যকলাপ চলছে ৷


           ৮) ডালোল পৃথিবীর সবচেয়ে নিচু ক্ষেত্র , সাগরপৃষ্ঠ থেকে ৪১০ ফুট তলায় এর অবস্থান ৷


     তাঁরা , তাঁদের আবিস্কার প্রকাশ করেছেন নেচার ইকলজি এন্ড এভলিউশনের পাতায় নভেম্বর ২০১৯ ৷


    বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন যে তাঁরা আগের যে কোন সমীক্ষার চেয়ে অনেক অনেক বেশি নমুনা সংগ্রহ করেছেন ৷ নমুনা সংগ্রহের সময় ভালোভাবে যত্ন নিয়েছেন যাতে তাতে কোন বাইরের সংস্পর্শ না থাকে ৷ পরীক্ষার যন্ত্রগুলো সঠিক পদ্ধতিতে ক্রমাঙ্কন বা ক্যালিব্রেট করেছেন ৷ পরীক্ষা প্রতিষ্ঠিত আর পূর্ব-প্রমাণিত পদ্ধতি ব্যবহার করেছেন ৷ তাঁরা দাবি করেছেন ডানকালি উপত্যকার এই আগ্নেয়-জলার তীব্র-অ্যসিডিক বা পাশের ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ পাশের জলায় কোনরকম জীবাণুর উপস্থিতি খুঁজে পাওয়া যায়নি ৷ যদিও জলার ঠিক পাশের শুকনো ডাঙার ছবিটা কিন্তু অন্য রকম ৷ সেখানে বাস করে এক প্রজাতির আর্কিয়া নামের অণুজীব , যাদের নোনা জায়গা খুব পছন্দ ৷


     গবেষকরা ব্যবহার করেছেন পরীক্ষার আধুনিকতম পদ্ধতিগুলো ৷ দেখা হয়েছে , সম্ভাব্য অণুজীবের জিনের গঠনের বিশ্লেষণ ৷ এখানকার জল নিয়ে অণুজীবের আসর বসানো বা কালচার করা হয়েছে ৷ আলাদা আলাদা করে এক একটা কোষ খোঁজার চেষ্টা করা হয়েছে ৷ নোনা জলের রাসায়নিক বিশ্লেষণ করা হয়েছে ৷ ইলেকট্রন মাইক্রোস্কোপ আর এক্স-রে বর্ণালি বিশ্লেষণ করা হয়েছে ৷ কোন অণুজীবের কোন উপস্থিতি খুঁজে পাওয়া যায়নি ৷


    প্রাথমকভাবে মনে হচ্ছিল এখানকার বালিসমৃদ্ধ খনিজ হয়ত অণুজীবের মত আচরণ করছে ; কিন্তু তাদের বিশ্লেষণ করে এটা পরিষ্কার বোঝা গেছে এগুলো জীবিত কোষ নয় ৷ হতে পারে আশে পাশের ডাঙা থেকে আর্কিয়া সে মিশেছে এই জলে ৷ তবে গবেষকদের মনে হয়েছে এখানকার খনিজ পদার্থের ধরণ বা গঠন এমনই যে তাদের জীবাণুর জীবাস্ম বলে মনে হয় , যদিও সেগুলো জীবিত কোষ নয় ৷  ডালোলের জলা আসলে জীবন সৃষ্টিতে বাধা দেয় , কারণ সেখানে আছে এক ধরণের ম্যাগনেসিয়াম লবণ যা জলের ভেতর বিভিন্ন রাসায়নিক বন্ধন তৈরি হতে বাধা দেয় ; এদের ক্যাওট্রপিকং সল্ট বলে ৷ এখানকার বিশেষ ধরণের লবণ , অম্ল জল আর উষ্ণতা , সব মিলিয়ে প্রাণ সৃষ্টি বা লালনের কোন পরিস্থিতিই এখানে এখন আর নেই ৷    


    পৃথিবীর অনেক বিরূপ পরিবেশ আছে , যেখানকার উষ্ণতা ডালোলের চেয়ে বেশি , অ্যাসিডিক বা লবণ সমৃদ্ধ ; সেখানে প্রাণের উপস্থিতির প্রমাণ থেকে অনেকে মনে করেন অন্য কোন গ্রহে , যার উষ্ণতা পৃথিবীর মতো , জল আছে , লবণ আছে , সেখানে জীবন থাকতে পারে ৷ ডালোলের জলা প্রমাণ করে এমনটা নাও হতে পারে ৷ অন্তত না হওয়ার একটা সম্ভাবনা থেকেই যাচ্ছে ৷


    ডালোলের জলা নিয়ে গবেষণা চলছে ৷ বিজ্ঞানিরা বুঝতে চাইছেন জীবন সৃষ্টির সবচেয়ে বিরুদ্ধ পরিবেশ কি হতে পারে ৷ তা থেকে হয়ত বোঝা যাবে সত্যি কিভাবে জীবনের সৃষ্টি হয়েছিল ৷ 

  • বিভাগ : আলোচনা | ০১ মার্চ ২০২০ | ২২৬ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • Ashani Sarkar | 162.158.167.53 | ০২ মার্চ ২০২০ ১১:৫০91199
  • ভাল লাগল। কমেন্ট পড়ে admin দের ভাল লাগুক।
  • π | 162.158.22.147 | ১৫ মার্চ ২০২০ ১২:৫৬91466
  • আরে ইন্টারেস্টিং লেখা, মিস করে গেছিলাম।

    ম্যাগনেসিয়ামের কোন লবণ কীভাবে কাজ করে বাধা সৃষ্টি করছে, একটু লিখবেন বিস্তারিত?
  • i | 108.162.250.74 | ১৫ মার্চ ২০২০ ১৩:২২91467
  • খুব ভালো লাগল। জানা ছিল না এত কিছু।

    পাই,
    ম্যাগনেসিয়াম ক্লোরাইড সম্ভবত । ডিন্যাচুরেশন করে দেয় আর কি।
    লেখক বিশদে লিখুন।
  • টপোটুপাই | 162.158.227.25 | ১৫ মার্চ ২০২০ ১৩:৫২91469
  • ভালো লাগলো। সবেতেই আফ্রিকা। আফ্রিকাতেই সব। codycross নামে একটা শব্দ জব্দ খেলতে গিয়ে এরকম নানা রকম জিনিস জানতে পারি। বেশ ক্যুইজ-সুখ হয়। লেখাটিও সেরকম সুখপাঠ্য। কয়েক টা প্রুফ চেকিং হলে সুখতর হত।
  • স্বাতী রায় | 162.158.227.55 | ১৫ মার্চ ২০২০ ১৬:২৮91471
  • ইন্টারেস্টিং। আচ্ছা Cavalazzi যে dna পেয়েছিলেন এখানে বলেছিলেন, সেটা কি তাহলে ভুল ছিল?
  • স্বাতী রায় | 162.158.227.55 | ১৫ মার্চ ২০২০ ১৬:২৮91472
  • ইন্টারেস্টিং। আচ্ছা Cavalazzi যে dna পেয়েছিলেন এখানে বলেছিলেন, সেটা কি তাহলে ভুল ছিল?
  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • গুরুর মোবাইল অ্যাপ চান? খুব সহজ, অ্যাপ ডাউনলোড/ইনস্টল কিস্যু করার দরকার নেই । ফোনের ব্রাউজারে সাইট খুলুন, Add to Home Screen করুন, ইন্সট্রাকশন ফলো করুন, অ্যাপ-এর আইকন তৈরী হবে । খেয়াল রাখবেন, গুরুর মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করতে হলে গুরুতে লগইন করা বাঞ্ছনীয়।
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত