• হরিদাস পাল  ব্লগ

  • এক্সপেরিমেন্ট: রিদ্‌ম জিরো

    Mani Sankar Biswas লেখকের গ্রাহক হোন
    ব্লগ | ০৬ নভেম্বর ২০২০ | ৬৯৬ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • আমাদের অল্পবয়সে, আমরা প্রথম 'জীবনমুখী গান' শুনেছিলাম। ওই গানগুলি যদি 'জীবনমুখী' হয় তবে এই পোস্টটি ইভল-মুখী।

    এতক্ষণে অনেকেই বুঝেছেন, মানুষ যে আসলে সমাজ-সন্ত্রস্ত একপ্রকারের জন্তু, এই পোস্টে আবার সে কথাই বলতে চাইছি।

     ১৯৭৪ সালে একজন পারফর্মেন্স আর্টিস্ট হিসেবে মারিনা আব্রামোভিচ এই এক্সপেরিমেন্ট-টি করেছিলেন। কী  পারফর্মেন্স? নিজেকে 'বস্তু'-ভাবে উপস্থাপিত করা। উনি টেবিলের উপর ৭২ টি জিনিশ ছড়িয়ে রেখেছিলেন এবং ছয় ঘণ্টা একটা ঘরের মধ্যে জড়বস্তুর মতো স্থির দাঁড়িয়ে থেকে দেখতে চেয়েছিলেন, যে বা যারা এই প্রদর্শনী দেখতে এসেছে তারা ঠিক কীভাবে টেবিলে রাখা জিনিশগুলি তার উপর ব্যবহার করে।

     

    ঠিক এই শব্দগুলি সম্বলিত একটি নোটিশ বোর্ড নিয়ে আব্রামোভিচ ঘরের মাঝখানে দাঁড়িয়েছিলেন:

     

    "টেবিলে ৭২ টি অবজেক্ট রয়েছে, এগুলি যে ভাবে ইচ্ছে আমার উপর ব্যবহার করা যেতে পারে।"

     

    পারফর্মেন্স:

    আমি বস্তু (Object) আমার উপর যা কিছু করা হবে, সে সবকিছুর দায়ভার আমার।

    সময়কাল: ৬ ঘণ্টা (রাত ৮-টা থেকে ২-টো)

     পরের ছয় ঘণ্টার মধ্যে যা যা ঘটেছিল খুব কম করে বলতে গেলেও বলতে হয় ভয়াবহ, বীভৎস।

     প্রথম যখন শুরু হয়েছিল, তখন স্রেফ সামান্য তামাশার মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। কেউ মারিনা-কে হাল্কা ঠেলে ঘুরিয়ে দিয়েছে। কেউ-বা হাত ধরে সামান্য টেনেছে। আর হ্যাঁ, কেউ কেউ তাকে কিছুটা অন্তরঙ্গভাবে স্পর্শ করেছে।

     কিন্তু তৃতীয় ঘন্টায়, তার সমস্ত কাপড় রেজার ব্লেড দিয়ে কাটা হয়েছিল। চতুর্থ ঘণ্টায় ঐ একই ব্লেড তার মসৃণ ত্বক চিরতে শুরু করে। শুরু হয় যৌন নির্যাতন। তিনি এই পারফর্মেন্সটার প্রতি এতটাই দায়বদ্ধ ও প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ছিলেন যে, তিনি ঠিকই করে নিয়েছিলেন ধর্ষণ বা হত্যার চেষ্টা হলেও, প্রতিরোধ করবেন না।

     শেষ দু'ঘণ্টার অবস্থা আরও খারাপ হয়েছিল। আব্রামোভিচ, পরে বলেছিলেন,  “I felt raped, they cut off the clothes, they stuck me with thorns of rose in the stomach, aimed the gun to my head, another came apart.”

     ছয় ঘণ্টা শেষ হলে, আব্রামোভিচ যখন দর্শক বা জনতার মধ্যে হাঁটতে শুরু করলেন, কেউ আর তার মুখের দিকে তাকাচ্ছিল না। যারা তাকে এতক্ষণ ধরে কষ্ট দিয়েছে, নির্যাতন করেছে, আব্রামোভিচ লক্ষ্য করলেন যে তারা যেন সবাই তাকে এড়িয়ে যেতে চাইছে। এতক্ষণ যা যা হয়েছে, ওই ঘরের ভিতর যারা তাকে নির্যাতন ক'রে প্রভূত মজা পেয়েছে, সেই তারাই যেন মুহূর্তে সব ভুলে গেছে (বা ভুলে যেতে চাইছে)।

     যদি না-ও চাই, আব্রামোভিচের এই পারফর্মেন্স, মানুষের মনুষ্যত্ব সম্পর্কে একটি ভয়ানক সত্য উদঘাটন করে।

     এই এক্সপেরিমেন্ট দেখায়, যে যখন শাস্তির ভয় অনুপস্থিত থাকে, অনুকূল পরিস্থিতিতে একজন মানুষ কত সহজে আরেকজনকে আঘাত করতে পারে।

    এই এক্সপেরিমেন্ট দেখায়, যে উপযুক্ত পরিবেশ পরিস্থিতি তৈরি পেলে, সংখ্যাগরিষ্ঠ ‘সাধারণ’ মানুষ প্রকৃতই হিংস্র হয়ে উঠতে পারে। উদাহরণ: মব লিঞ্চিং বা ভার্চুয়াল মব লিঞ্চিং

     তো এই পরীক্ষাটি প্রমাণ করে যে মানুষের অন্তর্নিহিত প্রকৃতিটি, প্রকৃতই জন্তুর। মানুষের যে অন্যায় আচরণ করে না, তা মূলত দুটি কারণে

     ১। সামাজিক নিন্দা বা লোকলজ্জার ভয়

    ২। আইনি শাস্তির ভয়

    যখন এই দুই ধরণের ভয় অনুপস্থিত থাকে, সামাজিকভাবে সৎ মানুষটিই সবচেয়ে নিন্দনীয় কাজটি করে ফেলতে পারে।

    তাই সমাজ যখন একজন দুর্নীতিগ্রস্ত মানুষকে যথেষ্ট নিন্দা করে না, বরং তার ব্যক্তি-মহিমা বা ক্ষমতার গুণগান করতে শুরু করে, যা ভারতীয় সমাজ-রাজনীতিতে আকছার ঘটে ও ঘটছে

    তখন সাধারণ মানুষের কাছে ওই দুর্নীতি বা অসততার দিকটি ক্রমশ লঘু হতে থাকে এবং ব্যক্তি-মানুষ নিজেও ক্রমশ ওই একইভাবে, তার নিজের নিজের মাপের দুর্নীতির সিঁড়িতে পা রাখে কোনো অপরাধ-বোধ ছাড়াই।

  • বিভাগ : ব্লগ | ০৬ নভেম্বর ২০২০ | ৬৯৬ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন গ্রাহক পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
আরও পড়ুন
গল্প - moulik majumder
আরও পড়ুন
গল্প - moulik majumder
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লুকিয়ে না থেকে মতামত দিন