• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • 'হুমায়ুন আহমেদ জনপ্রিয়তায় শরতের চেয়ে বড়, মেরিটে নিমাইয়ের সমান'

    বিপ্লব রহমান
    অপর বাংলা | ২০ জুলাই ২০২০ | ৮৬২ বার পঠিত


  • নয়ের দশকে বাংলাদেশে ছাত্র-গণঅভ্যুত্থানে জেনারেল এরশাদ সরকারের পতন একটি ঐতিহাসিক ঘটনা। সেই রক্তাক্ত আন্দোলনের শ্লোগানার, কমরেডের লাশ ও লিটল ম্যাগের ভুত মাথার ভেতর বয়ে বেড়ানোর কালে সাংবাদিকতার প্রথম পাঠে মুখোমুখি হওয়ার সৌভাগ্য হয়েছিল কয়েক গুণীজনের। তারা ছিলেন প্রজন্ম একাত্তরের নায়ক।

    এতো বছর পরে এই নিদানকালে অনলাইনে খুঁজে পাওয়া গেছে চণ্ডালের নেওয়া মহতি লেখক, চিন্তক আহমদ ছফার একটি কথোপকথন। “আমার লেখা অনুবাদ করার সময় এসে গেছে” শিরোনামে এটি ১৯৯৩ সালের ডিসেম্বরে সাপ্তাহিক “প্রিয় প্রজন্মে”, পরে “আহমদ ছফার সাক্ষাৎকারসমগ্র” গ্রন্থে (সম্পাদনা নূরল আনোয়ার, খান ব্রাদার্স অ্যান্ড কোম্পানি, ২০০৯) স্থান করে নেয়, ছফা রচনাবলীতেও এটি সংযুক্ত। বলা ভাল, এ যেন বাঘবন্দী খেলা!


    ধূসর অতীতের ঘষা কাঁচের ভেতর দিয়ে যেন দেখা যায়, সেই সময়ের টুকরো দৃশ্য। আহমদ ছফার ঢাকার পরিবাগের বাসার ছোট্ট ড্রয়িং রুমে ধুমায়িত রং চায়ের কাপ হাতে রেকর্ডবন্দী হতে থাকে কথোপকথন। একটি সাঁওতাল ছেলে চা-জলখাবার বেড়ে দেয়। ছফা ভাই তাকে নিজের ছেলে বলে পরিচয় করিয়ে দেন। তার এক ঠাকুর্দা তেভাগা আন্দোলনে শহীদ হয়েছিলেন


    কথোপকথনটুকু দুদফায় নিতে হয়েছিল। লুঙ্গি-স্যান্ডো গেজ্ঞি পরা ঘরোয়া মুডের ছফা ভাইয়ের বুদ্ধিদীপ্ত উজ্জ্বল চোখ মনে পড়ে। এক হাফ-সাংবাদিককে দেওয়া ছফা ভাইয়ের চট্টগ্রামের উচ্চারণ মিশ্রিত কন্ঠস্বর যেন এখনো ভেসে আসছে।…



    বিপ্লব রহমান : আপনি খেলালেখির জগতে কিভাবে…?


    আহমদ ছফা : খুব মজার ঘটনা। ছোট বেলায় আমাদের গ্রামে আমার চাইতে একটু বড় একটি ছেলের কবিতা কাজজে ছাপা হয়। তখন জিন্নাহ সাহেব (মোহাম্মাদ আলী জিন্নাহ, অখণ্ড পাকিস্তানের জনক) সবেমাত্র মারা গিয়েছেন। আমার বাবা তখন ডেকে বললেন, তুই কী এমন কবিতা লিখতে পারি না? আমি বললাম, খুব পারি।


    তারপর আমি লিখলাম “রামচন্দ্রের পিতৃভক্তি“ বলে একটি পদ্য, দুটি লাইন এখনো মনে আছে, “যে জন পিতামাতার প্রতি নাহি করে ভকতি/পরকালে হবে তার নরকে বসতি”…দ্যাট ওয়াজ দ্য বিগিনিং, জিন্নার মৃত্যু আমাকে তখন আহত করেনি।


    তারপর ক্লাস এইট অবধি কবিতা-টবিতা লিখেছি। ক্লাস নাইনে পড়ি…তখন বোধহয় আমি কম্যুনিস্ট পার্টির লোকজনের সঙ্গে মিশে গেলাম। আমার ধারণা হল, সাহিত্য করা এখন আমার কাজ না। আমার কাজ হচ্ছে একটা বিপ্লব করা। তারপর ইউনিভার্সিটিতে এসে আবার লিখতে শুরু করি।


    বিপ্লব : প্রথম দিকে কী শুধুই কবিতা লিখতেন, না উপন্যাসও?


    ছফা : এইট-নাইন পর্যন্ত আমি কবিতাই লিখেছি। সেভেনটির দিকে আমার প্রথম উপন্যাস বের হয়।


    বিপ্লব : তার নাম কী?


    ছফা : “সূর্য তুমি সাথী”— সেটা আমি চ্যালেঞ্জ করে লিখি। তখন আমাদের একটা ফিল্ম সোসাইটি জাতীয় প্রতিষ্ঠান ছিল। এক বন্ধু ছিল জামাল খান, ওয়ান অব দ্য মোস্ট ব্রিলিয়ান্ট বয়, সে আমাদের বললো, মানিক বন্দোপধ্যায়ের “পদ্মা নদীর মাঝি”র মতো উপন্যাস লেখা যায় কিনা—আমাদের এই ঢাকায়?


    তখন “সংবাদ” (পূর্ব পাকিস্তান ও বাংলাদেশ আমলের প্রগতিশীল শীর্ষস্থানীয় দৈনিক পত্রিকা, এখন এটি বিলুপ্তপ্রায়) এর যে সাহিত্য সাময়িকী—সেটি খুব রিচ ছিল। রনেশ দাসগুপ্ত এটা চালাতেন। চ্যালেঞ্জটা ছিল ১০০ টাকার—তখন ১০০ টাকা কিন্তু অনেক টাকা। আমাদের যদি কেউ লিখে এটা “সংবাদে” ছাপতে পারে, সে টাকাটা পাবে।


    “সূর্য তুমি সাথী”র প্রথম কিস্তি আমি তখন “সংবাদে” ছাপতে দিলাম এবং সেটা ঠিকই সেখানে ছাপা হল।


    বিপ্লব : ’৭৫ এর জানুয়ারিতে আপনি মুজিবী (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান, বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রনায়ক) দুঃশাসনের বিরুদ্ধে “জল্লাদ সময়” নামে একটি কবিতার বই লেখেন। সেই বইয়ের “২৫শে বৈশাখ” কবিতায় আপনি লিখেছেন, “আমার কবিতা হয়ে উঠুক বল্লমের ফলা।” পরবর্তীতে কী তাই হয়েছিল?


    ছফা : পরবর্তীতে আমি আরো একটি কবিতার বই লিখেছি, “দুঃখের দিনের দোহা”, সেখানেও বল্লমের ফলার মত একটি কবিতা আছে। তাছাড়া একটি “একটি প্রবীণ বটের কাছে প্রার্থণা” বলে একটা কবিতা লিখেছি। সেটা অবশ্যই আমার ওয়ান অব দ্য বেস্ট বই।


    বিপ্লব : সেটা কতো সালে?


    ছফা : এটা বেরিয়েছে বোধহয় সেভেন্টি সেভেনে। তারপর তো “ফাউস্ট” বের করলাম।


    বিপ্লব : “ওঙ্কার” – এর মতো একটি কালজয়ী উপন্যাস আপনি লিখেছেন, যেখানে আমরা দেখি যে, ক্ষুদ্র পরিসরে বিশাল ক্যানভাসের সহাবস্থান, এ ধরণের উপন্যাস আর লিখছেন না, বা আপনার বইগুলো পুনর্মূদ্রনের উদ্যোগ নিচ্ছেন না কেন?


    ছফা : এর কারণ হিসেবে বলা যায়, আমার জীবন বেশ খানিকটা এলোমেলো। তবে আমি কিন্তু “ওঙ্কার” এর পরে আরো তিনটি উপন্যাস লিখেছি। বিষয় গৌরবে এগুলো “ওঙ্কার” এর মতো না হলেও “ওঙ্কার’ এর চেয়ে আরো সিরিয়াস লেখা।


    তাছাড়া বাংলাদেশের উত্থান নিয়ে আরেকটি উপন্যাস আমি লিখেছি, সেটার নাম হচ্ছে “অলাতচক্র”। লেখাটা “নিপুন” পত্রিকার ঈদ সংখ্যায় খানিকটা ছাপা হয়েছে। বইটা প্রায় পুরোটাই ছাপা হয়ে গেছে “মুক্তধারা” থেকে। শুধু লাস্ট ত্রিশ পাতা লেখা বাকি। ওই ত্রিশ পাতা আমি লিখতে পারছি না। কী লিখবো আমি জানি না। প্রতি সপ্তায় চিত্তরজ্ঞনবাবু (চিত্তরঞ্জন সাহা, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, এক সময়ের শীর্ষ প্রকাশনী “পুঁথিঘর” ও  “মুক্তধারা”র প্রতিষ্ঠাতা) আমাকে তাগাদা দেন। কিন্তু লেখা আর হয়ে ওঠে না।


    আর আমার সব বই যে পাওয়া যায় না, তা কিন্তু নয়। হয়তো আপনি বলতে পারেন, আমার অনেক বই পাওয়া যায় না। ভাবছি, এগুলো আবার প্রকাশের উদ্যোগ নেব।


    বিপ্লব : “ফাউস্ট” অনুবাদের পর দেশে-বিদেশে আপনি কী ধরনের সন্মান এবং সন্মানী পেয়েছেন, তা কি আমাদের বলা যাবে?


    ছফা : ওয়েল। লেখকরা সকলে দেশের কথা বলতে গিয়ে দেশের নিন্দা করে। কিন্তু সন্মানী যদি নাও পাই, তবু দেশের নিন্দা করতে আমার খুব কষ্ট হয়। তারপরেও সত্য যদি বলতে হয়, তাহলে বলতে হয় যে, “ফাউস্ট” অনুবাদ করার পর আমার দেশের বন্ধু-বান্ধব কাউকে আমি ম্যানাসক্রিপ্টটাও শোনাতে পারিনি। তার কারণ তাদের সময় এতো কম, কিন্তু উচ্চতা এতো বেশী যে, তারা সেটা ধারণ করতে পারে না। অর্থাৎ তাদের সে ধরনের সংবেদনশীলতাই নেই।


    ছাপার ব্যাপারটা যখন আসল, তখন আমি বাংলা একাডেমিতে ছাপতে দিলাম। ওরা প্রায় পাঁচ হাজার টাকা দিয়ে বইটা ছাপতে রাজি হল না। তারপর জার্মান অ্যামবেসি আমাকে যথেষ্ট ফিন্যান্স করেছে। ওরা তারপর আমাকে প্রায় দুই লাখ টাকা দিয়েছে।


    কবির চৌধুরী বইটা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা করেছেন। তারপরে বইটা নিয়ে এখানে কোনো আলোচনা-সমালোচনা হয়নি। সে জন্য আমার কোনো দুঃখ নেই। কেননা, এ ধরনের কাজের আলোচনা-সমালোচনা করার জন্য এ দেশে তেমন কেউ আছেন বলে আমার মনে হয় না। দেশের রেডিও-টিভিতে আমি কখনো যাইনি।


    বিপ্লব : আপনি ভবিষ্যতে এ ধরনের অনুবাদের কাজ আরো করবেন কী?


    ছফা : না, এতে আমার কষ্ট হয়। আমি পৃথিবীতে গ্যেটের অনুবাদক হিসেবে পরিচিতি পেতে চাই না। আমার নিজের লেখাতেই আমার আসল পরিচয়।


    বিপ্লব : গ্যেটে ছাড়া অন্য কোনো লেখক?


    ছফা : অন্য কোনো লেখকের লেখাও আমি অনুবাদ করতে চাই না। কেননা আমার লেখাই এখন অনুবাদ করার সময় এসে গেছে।


    বিপ্লব : আপনি কী কখনো কলাম লিখতেন?


    ছফা : একসময়ে লিখেছি। এখন ইচ্ছে করে না। “কাগজ” এ (”সাপ্তাহিক খবরের কাগজ”) একবার একটা প্রতিক্রিয়া লিখতে হয়েছিল। কিছুদিন আগে লিখতাম “উত্তরণ” এ।


    বিপ্লব : “উত্তরণ” প্রসঙ্গে কিছু বলবেন?


    ছফা : “উত্তরণ” আমরা বের করেছিলাম—অর্থাভাবে এটা বন্ধ হয়ে যায়। এখন টাকা-পয়সা নেই, “উত্তরণ” আবার বের করার কথা চিন্তা করছি। কবে বের করতে পারবো জানি না।


    আমি বুঝতে পারি না, যে দেশ একটা সাহিত্য পত্রিকা বের করতে পারে না, সে দেশে “রাষ্ট্র”, “সমাজ” এগুলোর কোনো অর্থ হয়? হাজার হাজার পত্রিকা বের হচ্ছে, এগুলো ছুঁয়ে দেখতে ঘেন্না করে, বর্ণমালার এতো অপচয়, কাগজের এতো অপচয়!


    বিপ্লব : আপনি কী লেখালেখির বিষয়টিতে পরিমানের চেয়ে গুণকে বেশী প্রাধান্য দেন?


    ছফা : আমি পরিমান বা সংখ্যাকে প্রাধান্য দেই না। যেমন, বঙ্কিমচন্দ্রের উপন্যাসের সংখ্যা মাত্র কয়েকটা, কিন্তু সুনীল গাঙ্গুলীর প্রায় চারশ’। অথচ বাংলা সাহিত্যে বঙ্কিমবাবুকে কেউ অতিক্রম করতে পেরেছেন?


    লেখকের প্রধান দায়িত্ব হচ্ছে মেধাবী রচনা লেখা। লেখকের যদি লেখার প্রতি কমিটমেন্ট না থাকে… আমাদের দেশে এক ধরনের লেখক আছে, যারা সমাজ সমাজ বলে চিল্লায়, বাট দে আর নট কমিটেড। লেখার মধ্যে রুচি এবং মানুষের গভীর ক্ষুধা এগুলো তুলে ধরতে হবে।


    বিপ্লব : ভারতে যেমন “দেশ”সহ আরো নানান স্ট্যাবলিশমেন্টের পক্ষের পত্রিকা বিরোধী লিটল ম্যাগাজিন গ্রুপগুলো আন্দোলন করছে, এ দেশেও তেমনি স্ট্যাবলিশমেন্ট বিরোধী ধারার আন্দোলন গড়ে তোলাও লেখকের দায়িত্ব, তা কী আপনি মনে করেন?


    ছফা : প্যারালাল সাহিত্য অবশ্যই সৃষ্টি করতে হবে। বাংলা একাডেমি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, রেডিও, টেলিভিশন (বাংলাদেশ বেতার ও বিটিভি, দুইই সরকারি, তখনো বেসরকারি রেডিও-টিভি চ্যানেল হয়নি)– সব মিলিয়ে এমন একটা দুষ্টচক্র তৈরি করেছে… ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যিনি চাকরি করেন, সেই ব্যক্তিই আবার বাংলা একাডেমি থেকে বই লেখেন, ইত্তেফাকে লেখেন, দৈনিক বাংলায় লেখেন (সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত দৈনিক, সাবেক নাম “দৈনিক পাকিস্তান”, বিংশ শতাব্দির শুরুতে বিলুপ্ত), রেডিও-টিভিতে যান। এটা একটা দুষ্টচক্র। অথচ দেখা যাবে যে এরা হয়তো শতকরা পাঁচভাগ লোক। এরাই শিল্প-সাহিত্যকে কন্ট্রোল করছেন, যে কোনো গভর্নমেন্ট আসছে – এদের অবস্থা কিন্তু নড়ে না। এ জন্যই এর প্যারালাল ধারা তৈরি করা দরকার।


    বিপ্লব : আপনি কী আপনার ব্যক্তিগত দর্শন, রাজনৈতিক দর্শন আমাদের বলবেন?


    ছফা : হ্যাঁ, নিজের ব্যক্তিগত দর্শন বলতে আমি বুঝি মানুষকে ভালবাসা। আর রাজনৈতিক দর্শন? রাজনৈতিক দর্শন হচ্ছে, ম্যাকসিমাম মানুষ যেন তার সবটুকু অধিকার উপভোগ করতে পারে।


    বিপ্লব : উপযোগবাদ?


    ছফা : উপযোগবাদ ঠিক না। সেখানে মানুষ যেন উপভোগ করতে পারে, প্রয়োগ করতে পারে তার সবকিছু।


    বিপ্লব : কমিউনিস্ট পার্টি বা কৃষক সমিতির সাথে আপনার বিচ্ছিন্নতা হলো কীভাবে?


    ছফা : সিক্সটি সেভেন-এইটের পরেও কমিউনিস্টদের সাথে আমার যোগাযোগ ছিল। পরবর্তীতে কমিউনিজমের প্রতি আমি আস্থা হারিয়ে ফেলি। কমিউনিস্ট পার্টি সে সময় যে ধরনের আনুগত্যের দাবি করে, সেটা আমার কাছে মানবতার অবমাননা বলে মনে হয়েছে। তাছাড়া আমার নেচারও সে রকম না। এমএন রায়ের বই পড়ে আমার আনুগত্য চলে যায়। তার আগে মাও সেতুঙের কোটেশন অনুবাদ করেছি।


    বিপ্লব : সেটা পিকিং থেকে ছাপা হয়েছিল?


    ছফা : না, না – পিকিংঅলারা আমারটাই চুরি করে ছেপেছে। এই তো হচ্ছে অবস্থা। কমিউনিজম মানুষকে নতুনভাবে দাসত্ব করতে শেখায়। কিন্তু তারপরেও মার্কস পৃথিবীতে একজন মহান ব্যক্তি হিসেবে থেকে যাবেন। সামন্ততন্ত্রের চেয়ে উন্নত কোনো বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে আগে সমাজতন্ত্রকে দেখানো হতো। কিন্তু পৃথিবী এখন আরেকটা অরবিটে চলে গেছে—পৃথিবী এখন আরেকটা কক্ষের মধ্যে ঢুকে গেছে। উন্নত দেশগুলোর সঙ্গে সেই দেশগুলোকে কিভাবে তুলনা করা যাবে – সেটা এখনো সেট করা হয়নি।


    বিপ্লব : কিন্তু শ্রেণীবৈষম্য, শ্রেণী সংগ্রামের তত্ত্ব?


    ছফা : একদম বাজে।


    বিপ্লব : তরুণ কবি-সাহিত্যিকদের লেখা পড়েন?


    ছফা : হ্যাঁ, পড়ি।


    বিপ্লব : এদের মধ্যে প্রতিভাবান কাউকে চোখে পড়ে?


    ছফা : সাজ্জাদ শরিফ না কি নাম – একে খুব মেধাবী বলে মনে হয়।


    বিপ্লব : এদের প্রতি কোনো উপদেশ?


    ছফা : (মাথা দিয়ে না-সূচক উত্তর দান)।


    বিপ্লব : শিল্প-সাহিত্যাঙ্গনে প্রগতির ভেকধারী ভক্তদের আপনি কিভাবে চিহ্নিত বা উৎখাত করতে চান?


    ছফা : ভেক ধরলে আপনা-আপনি উৎখাত হয়ে যাবে।


    বিপ্লব : কিন্তু মুখোশ উন্মোচন না করলে কী কিছু করা যাবে?


    ছফা : এগুলো আমি করতে পারবো না, সে জন্য অন্যলোক আছে।


    বিপ্লব : আপনি প্রতিভাবান, কিন্তু পলায়নবাদী, আত্মকেন্দ্রিক এবং অস্তিত্ববাদী একজন লেখক – মন্তব্য করুন।


    ছফা : না, আমি তা নই। পলায়নবাদী লেখক হলে শেখ মুজিবকে চ্যালেঞ্জ করে লিখতে পারতাম না। আইয়ুব খানের (জেনারেল মোহাম্মাদ আইয়ুব খান, ১৯৫৮ সালে ক্যু করে অখণ্ড পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি হন) সময় লেখক শিবির (বাংলাদেশে লেখক শিবির, সাংস্কৃতিক সংগঠন, এখন প্রায় বিলুপ্ত) করতে পারতাম না। ’৭৫ এর পর উমর সাহেব (বদরুদ্দিন উমর, বাম তাত্বিক ও লেখক) এবং শরীফ সাহেব (প্রয়াত ড. আহমদ শরীফ, বাংলাদেশের প্রধান সারির বুদ্ধিজীবী, প্রবান্ধিক, পন্ডিত ) এটাকে হাইজ্যাক করেন। তারা সেখানে লেখকদের কোনো অবস্থান রাখেন নি।


    বিপ্লব : হুমায়ুন আহমেদ তার একটা সাক্ষাৎকারে বলেছেন যে, আপনারা কয়েক বন্ধু নাকি একবার প্রতিজ্ঞা করেছিলেন যে, লেখার জন্য জীবনকে উৎসর্গ করবেন?


    ছফা : হুমায়ুন কথাটা কিভাবে বলেছে জানি না। তবে সে অনেক সময় অনেক কথা কল্পনা করে বলে। বলতে ভাল লাগে, এ জন্য বলে। তারপরেও দেশের সাহিত্যের জন্য বার বার জন্মালে বার বার মরতে রাজি আছি।


    বিপ্লব : আমরা জানি যে, শিল্পী এসএম সুলতানকে প্রধানত আপনিই বাংলাদেশে পরিচিতি করিয়েছিলেন এবং বিভিন্ন সময় আপনি তাকে সাহায্য সহযোগিতা, বন্ধুত্ব ইত্যাদি দিয়েছেন। তো এসএম সুলতানের শিল্পকর্ম এবং ব্যক্তি সুলতানকে আপনি কিভাবে মূল্যায়ন করেন?


    ছফা : ওয়েল। সুলতানের সঙ্গে চারিত্রিকভাবে আমার দূরত্ব অনেক। তবু আমি ফিল করি, সুলতান অন্তত একশ বছরের মধ্যে ওয়ান অব দ্য টপ। তিনজন বাঙালি আছেন এখন পৃথিবীতে, যারা খুব বেশী বিখ্যাত। তারা হচ্ছেন – সত্যজিৎ রায়, রবিশঙ্কর এবং এসএম সুলতান।


    বিপ্লব : আমরা জানি যে, আপনি গানও লেখেন। এ প্রসঙ্গে কিছু বলবেন কী?


    ছফা : আমার ধারণা, বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ গীতিকারদের মধ্যে আমার একটা জায়গা হবে।


    বিপ্লব : একটু আগেই আপনি বলেছেন যে, আপনার বই অনুবাদ করার সময় এসে গেছে এবং শিল্পী জগতে আপনার একটা ভাল জায়গা হবে বলে আপনি মনে করেন। এই পরিপ্রেক্ষিতে আমরা বলছি যে, আপনি আসলে সুপিরিয়টি কমপ্লেক্সে ভুগছেন। মন্তব্য করুন।


    ছফা : আমার কোনো কমপ্লেক্স নেই। তাছাড়া আমার বই তো অনুবাদ হচ্ছেও। সে জন্য অবশ্য গর্ব করার কিছু নেই।


    বিপ্লব : বাংলাদেশের রাজনীতির ভবিষ্যত কী?


    ছফা : এই জাতির মধ্যে অনেক ভাঙচুর হবে, তারপর হয়তো মানুষ মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে।


    বিপ্লব : শোষণমূলক ব্যবস্থার কী উচ্ছেদ হবে?


    ছফা : শোষণমূলক ব্যবস্থা বলতে আমাদের রাজনীতিবিদরা যেভাবে দেখেন, আমি সেভাবে দেখি না।


    বিপ্লব : কিভাবে দেখেন?


    ছফা : কিভাবে দেখি তা বলার জন্য আমি একটা অর্থনীতির বই লিখেছি। বইটার নামও আমি এখন পর্যন্ত দেইনি। “উন্নয়নের অর্থনীতি” নামে দুই-একটি কিস্তি বোধহয় দুই-একটা কাগজে ছাপা হয়ে থাকবে। সেখানে আমি বলেছি, বাংলাদেশের প্রধানত দুটি সমস্যা – এক. এটা একটা দরিদ্র দেশ, দুই. এর অর্থনীতি অনুন্নত। এই সমস্যাগুলোর সমাধান করতে পারলে বাংলাদেশকে উন্নত রাষ্ট্রে পরিবর্তন করা যাবে।


    বিপ্লব : সেটা কী বর্তমান রাষ্ট্রের উচ্ছেদ বা আমূল পরিবর্তন ছাড়া সম্ভব?


    ছফা : রাষ্ট্রের উচ্ছেদ, শুনতে ভাল, কিন্তু সেটা এনার্কিজম হবে।


    বিপ্লব : রাষ্ট্র ব্যবস্থার উচ্ছেদের কথা কার্ল মার্কস বলেছেন। মার্কস একজন এনার্কিস্ট ছিলেন?


    ছফা : মার্কসের কথা বলেই এটা মানতে হবে – এমন কোনো কথা আছে। মার্কস ইজ নট এ প্রফেট। মার্কস নৈরাজ্যবাদী ছিলেন না। মার্কসের কমিউনিস্ট কান্ট্রি সর্বহারার রাষ্ট্রে পরিনত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সে দেশগুলো ভাঙল স্টেটের সঙ্গে প্রলেতারিয়েতের দ্বন্দ্বে।


    বিপ্লব : মার্কস, এঙ্গেলস, লেনিন, স্ট্যালিন, মাও সেতুং তো বিপ্লববাদী ছিলেন?


    ছফা : মার্কস-এঙ্গেলস বিপ্লববাদী ছিলেন, লেনিন বিপ্লব করেছেন। কিন্তু স্ট্যালিন বিপ্লববাদী ছিলেন না। বিপ্লব অনেক সত্যিকে বিকশিত করে। স্ট্যালিন ছিলেন বিপ্লবের সবচেয়ে অজ্ঞ, সবচেয়ে নিষ্ঠুর, সবচেয়ে ফ্যাসিস্ট।


    বিপ্লব : আপনি আসলে সর্বহারা বিপ্লবকে ভয় পান। মন্তব্য করুন।


    ছফা : সর্বহারা বিপ্লবকে ভয় পাওয়ার কী আছে? তাছাড়া এখানে বিপ্লবটা করছে কে? বিপ্লবের কথা বলেন আপনার মতো কিছু শহুরেরা – যারা জীবনে হয়তো গ্রামকে চোখেও দেখেননি।



    সাক্ষাৎকার গ্রহণের প্রথম পর্ব এখানেই শেষ। চলে আসার উদ্যোগ নিতেই শেলফ থেকে থান ইট সমান একটি ইংরেজী বই (স্ট্যালিন প্রসঙ্গে জনৈক গবেষকের লেখা, নাম বিস্তৃত হওয়ায় বই বা লেথকের নাম উল্লেখ করা গেল না) বের করে পড়ার জন্য ধার দিতে চাইলেন ছফা। “ইংরেজীতে দুর্বল” এই কথা বলে শেষে পার পাওয়া গেল।


    এরপর সাক্ষাৎকার গ্রহণের দ্বিতীয় পর্ব। একই ঘরে, এমনকি ধুমায়িত আদা চায়ের পেয়ালাসহ। সহজ ভঙ্গিতে পুনরায় কথামালা শুরু।…


    বিপ্লব : আপনি পলায়নবাদী নন—এই প্রসঙ্গে আপনি এক পর্যায়ে বলেছেন যে, বদরুদ্দিন উমর ও ড. আহমদ শরীফ পরবর্তীতে লেখক শিবিরকে হাইজ্যাক করেন – এই পয়েন্টটা একটু পরিস্কার করে বলবেন?


    ছফা : আসলে লেখক শিবির আমরা যখন করি – এটা পাকিস্তান আমলে…তখন উমর সাহেব একটা চিঠি লিখেছিলেন “দৈনিক পাকিস্তানে” লেখক শিবির প্রতিষ্ঠার বিরুদ্ধে। এটা বোধহয় ১৯৭১ সালের জানুয়ারির দিকে…না, ফেব্রুয়ারিতে। পরে যখন সেভেন্টি ওয়ানে তার ভূমিকাটা স্পষ্ট ছিল না।


    বিপ্লব : তাদের ব্যক্তিস্বার্থ কী ছিল?


    ছফা : ব্যক্তিস্বার্থ আর কিছু না, সর্দারী করা। আর উমর সাহেবরা লেখক শিবির নাম দিয়ে যে প্রতিষ্ঠানটা এতকাল দাঁড় করিয়েছেন, ওতে না হয় লেখক, না হয় পলিটিশিয়ান সৃষ্টি। এটা এক ধরনের উমর সাহেবের ভ্যানেটি রক্ষা। উগ্র অহমিকা।


    বিপ্লব : আপনার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরি চলে যাওয়ার পয়েন্টটা?


    ছফা : চাকরি চলে যায়, আমি স্কলারশিপ ছেড়ে দিয়েছি। প্রথমে আমি বাংলা একাডেমিতে ছিলাম। ওখানে মাযহারুল ইসলাম ছিলেন ডিরেক্টার। উনি কলকাতা থেকে অনেক টাকা-পয়সা চুরি করেছিলেন। আমরা তখন কলকাতার একটি কাগজে এর প্রতিবাদ করি। আমি একা নই, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অজয় রায় (প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক, জঙ্গি হামলায় নিহত মুক্তমনা লেখক অভিজিৎ রায়ের বাবা) – ওনারাও ছিলেন। তারপর তিনি যখন ডিরেক্টর হয়ে আসেন, গবেষণার জন্য বিলেত যাওয়ার প্রয়োজন ছিল। তিনি প্রতিহিংসা বশত কিছু গ্রান্ট দিতে অস্বীকার করেন। এর এক পর্যায়ে পত্রিকাতে তার সঙ্গে আমার মস্ত বিতর্ক হয় এবং উমর সাহেবও অংশগ্রহণ করেন সেই বিতর্কে।


    বিপ্লব : আপনার পক্ষে?


    ছফা : হ্যাঁ। তারপর…


    বিপ্লব : বদরুদ্দীন উমর তাহলে কেন আপনার পক্ষ নিলেন?


    ছফা : এটা ’৭২ সালের ঘটনা। তারপরে…


    বিপ্লব : তাহলে তার পরের ভূমিকা স্ববিরোধী ছিল?


    ছফা :  স্ববিরোধিতা অনেকের মত উমরের থাকাও বিচিত্র নয়। কিন্তু তিনি বড় মাপের মানুষ। সামনে তার দৃষ্টান্ত না থাকলে আমরা আসতে পারতাম না। গোঁয়ার একগুঁয়ে অহমিকাসম্পন্ন লোক, সাহিত্য-সংস্কৃতি বিশেষ বোঝেন না।


    বিপ্লব : বাংলাদেশে জনপ্রিয় লেখক কাদের বলে আপনি মনে করেন?


    ছফা : জনপ্রিয় লেখক হচ্ছেন হুমায়ুন আহমেদ।


    বিপ্লব : বাংলাদেশে জনপ্রিয়তার দিক থেকে হুমায়ুন আহমেদ হচ্ছেন এ যুগের শরৎচন্দ্র। আপনি কী এই বক্তব্যের সঙ্গে একমত?



    ছফা : জনপ্রিয়তার দিক থেকে দেখতে গেলে হুমায়ুন শরৎচন্দ্রের চাইতে বড়। মেরিটের দিক থেকে দেখতে গেলে হুমায়ুন নিমাই ভট্টাচার্যের সমান। আর হুমায়ুনের প্রশ্নটা হচ্ছে – হি ইজ রাইটিং ফর বাজার।


    বিপ্লব : অর্থই এখানে মূল?


    ছফা : আমার তো মনে হয় না এখানে অন্যকোন উদ্দেশ্য আছে। হুমায়ুন সম্পর্কে বলতে আমার কষ্ট হয়। হি ইজ পার্টলি মাই ক্রিয়েশন। তারপরেও এগুলোকে পুত্রজ্ঞানে দেখাই ভাল।


    বিপ্লব : বাংলাদেশে বর্তমানে কোনো লেখকের লেখা কী ভবিষ্যতে ক্লাসিক হিসেবে চিহ্নিত হবে বলে আপনি মনে করেন?


    ছফা : একটা লেখা ক্লাসিক হিসেবে চিহ্নিত হবে বলে আমি মনে করি। সেটা হলো আমার লেখা “ওঙ্কার”।


    বিপ্লব : আর আখতারুজ্জমান ইলিয়াসের “চিলেকোঠার সেপাই”?


    ছফা : লেখাটা আমি পড়েছি। অসাধারণ গ্রন্থ। আমার একটা নালিশ আছে, এর ভাষাটা খুব নিরস।


    বিপ্লব : বর্তমানে এপার বাংলা-ওপার বাংলায় এমন কী কোনো লেখক আছেন, যাদের লেখা ভবিষ্যতে ক্লাসিক হবে বলে আপনি মনে করেন?


    ছফা : হয়তো কেউ মৈত্রেয় দেবীর “ন’ হন্যতে”র কথা বলবেন। লেখাটা খুব ইম্পর্টেন্ট।


    বিপ্লব : মহাশ্বেতা দেবীর “হাজার চুরাশির মা” বা “চোট্টি মুণ্ডা ও তার তীর” বা “অগ্নিগর্ভ” নয় কেন?


    ছফা : মহাশ্বেতা দেবীর উপর আমার খুব ক্রোধ আছে।


    বিপ্লব : কিভাবে? উনি তো স্ট্যাবলিশমেন্টের পক্ষের কোনো পত্রিকাতে লেখেন না। …


    ছফা : সেটা জানি। তার সঙ্গে আমার ব্যক্তিগতভাবে আলাপ আছে। মহাশ্বেতা দেবীর লেখায় সমাজের কতগুলো অংশ সম্পর্কে শানিত নালিশ আছে। লেখার ভেতরে কতগুলো কোয়ালিটি দরকার। মহাশ্বেতা দেবীর লেখায় তা নেই।


    বিপ্লব : আর এপার বাংলায়?


    ছফা : সিক্টিজের দিকে রাজিয়া খানের একটা লেখা “বটতলার উপখ্যান” ভাল লেগেছিল।


    বিপ্লব : আপনি কী তসলিমা নাসরিনের কবিতা পড়েছেন?


    ছফা : মাঝে মাঝে পড়েছি। তার সম্পর্কে আমি কোনো কমেন্ট করবো না।


    বিপ্লব : আমরা বলতে চাচ্ছিলাম, তার কবিতার গতিমুখ?


    ছফা : তার কবিতা খুবই গতিমান।


    বিপ্লব : কিন্তু তার কবিতার গতিমুখ কোনদিকে?


    ছফা : আমি বলতে পারবো না। বোঝা খুব মুশকিল। তবে তার কবিতা বেশ স্বচ্ছন্দ। বেশ ঝরঝরে। এটুকু বলা যায়।


    বিপ্লব : কোনো কোনো লিটল ম্যাগাজিন গ্রুপ মনে করে যে, তসলিমা নাসরিন যৌনতা লেখায় খুব খোলাখুলি নিয়ে আসেন। একারণে তরুণদের মাঝে তার বই বেশী চলে। আপনি কী এই ধারণায় একমত?


    ছফা : তরুণদের মাঝে অনেক কারণেই বই চলে। একটা মেয়ে সাহস করে কিছু বলছে তো? এ জন্য তাকে আমরা অভিনন্দন জানাই।


    বিপ্লব : তার কলামগুলো পড়ে আপনার কী মনে হয় যে, তসলিমা নাসরিন যতটা না বেশী সমাজ-বিদ্বেষী, তারচেয়ে বেশী পুরুষ-বিদ্বেষী?


    ছফা : আমার মনে হয় সে কিছুটা পাগল প্রকৃতির। ক্রেজি।


    বিপ্লব : আপনি “সাপ্তাহিক খবরের কাগজে” ফরহাদ মজহারের একটি লেখার উপরে একবার প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছিলেন। এই প্রতিক্রিয়ার পরিপ্রেক্ষিতটা কী ছিল?


    ছফা : ফরহাদ মজহার বলেছিল, কিছু কিছু এনজিও আছে যারা মার্কসবাদকে সাপোর্ট করে। কিন্তু প্রব্লেম যেটা হচ্ছে, এনজিওর সাথে মার্কসবাদকে গুলিয়ে ফেলা। এটা একটা বাজে কাজ। এনজিও মার্কসবাদকে কখনো সাপোর্ট করতে আসে না। কেউ যদি অভাবে পড়ে এই কাজ (এনজিও) করে, তাহলে আমার কোনো আপত্তি নেই। আমাকে করতে হচ্ছে, কিন্তু এগুলোকে থিয়োরাইজ করা, ফিলোসফাইজ করা অপরাধ।


    বিপ্লব : ফরহাদ মজহার এ ধরনের “অপরাধ” কেন করে চলেছেন?


    ছফা : ফরহাদ অনেক বেশী জানে, সে জন্য তার বিভ্রান্ত হওয়ার ক্ষমতাও যথেষ্ট। অসাধারণ মেধাবী, আমার ব্যক্তিগত বন্ধু, সে যদি শুধু গান গাইতো, ও দিয়ে বেঁচে থাকতে পারতো।


    বিপ্লব : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাম্প্রতিক সন্ত্রাস (ছাত্রলীগ-ছাত্রদল, শেখ হাসিনার আওয়ামী লীগ ও খালেদা জিয়ার বিএনপি সমর্থিত দুই ছাত্র সংগঠন) সম্পর্কে আপনার প্রতিক্রিয়া কী?


    ছফা : আমার মনে হয়েছে, আমার মাকে যদি কেউ আমার সামনে নেংটা করে রেইপ করতো, তাহলে আমি যে পরিমান কষ্ট পেতাম, বিশ্ববিদ্যালয়ের এই সন্ত্রাসের কারণে আমি সে পরিমান কষ্ট পেয়েছি। আমাদের মতো দরিদ্র দেশে যারা রাজনীতি করতে এসেছে, তারা অশিক্ষিত, আওয়ামী লীগ, বিএনপি – তারা আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে এভাবে সম্পূর্ণ ধ্বংস করে দিচ্ছে। যতটুকু ক্ষতি হয়েছে, এ জন্য জাতিকে ৫০ বছর ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। পলেটিক্যাল পার্টিগুলোর কর্ম নয় সন্ত্রাস বন্ধ করা। সাধারণ ছাত্র, যারা এরশাদকে তাড়িয়েছে, তারা যদি একত্র হয়ে সন্ত্রাসকে বর্জন করে, প্রতিহত করে, তাহলেই সন্ত্রাস দমন সম্ভব। সমাজের সর্বস্তরের লোক মিলে সন্ত্রাস দমন সম্ভব। সমাজের সর্বস্তরের লোক মিলে সন্ত্রাসকে অসম্ভব করে তোলা উচিৎ।


    বিপ্লব : তাহলে সন্ত্রাসী হিরোরা কেন অনেক ছাত্র সংসদে বিপুল ভোটে জয়ী হচ্ছে?


    ছফা : আগে এরকম ছিল, যারা যত ভাল ছিল, চরিত্রবান ছিল, তারা নেতা হত। এখন ইউনিভার্সিটি বা জাতীয় পর্যায়ে যে যতবড় খুনি, সে তত বড় নেতা। যেখানে সন্ত্রাস থাকে, সেখানে ডেমোক্রেটিক প্রিন্সিপাল থাকে না।


    বিপ্লব : সূত্রটা তাহলে কী এরকম: ভয় হইতে ভক্তির উদ্ভব?


    ছফা : পাড়ায় যদি এবটা গুণ্ডা ছেলে থাকে এবং এক বিধবা মহিলার যদি চার মেয়ে থাকে, তাহলে একটাকে তার সাথে বিয়ে দিয়ে আর তিনটাকে রক্ষা করে। নৈতিক সমর্থন না থাকলে, পাঁচশ ছেলেও যদি একাট্টা হয়ে সন্ত্রাসীদের তাড়া করে, হাসিনা বা খালেদার বাবার সাধ্য নাই সন্ত্রাস করে। তারা এই শিল্পকর্মগুলো তো গত ১০ বছর ধরে করে যাচ্ছে।


    বিপ্লব : আপনার কাছে আমাদের শেষ প্রশ্ন, আপনি কেন লেখেন?


    ছফা : আমি সাধারণত তিনটি কারণে লিখি। মানুষের কল্যাণ করার উদ্দেশ্য যদি থাকে, তখন লিখি। যদি আর্টিস্টিক কিছু সৃষ্টি করার উদ্দেশ্য থাকে, তখন লিখি। আর যখন কোনো কিছু প্রতিবাদ করার ইচ্ছা থাকে, তখন লিখি।



    সাক্ষাৎকার পর্ব এখানেই শেষ। সাক্ষাৎকারের দ্বিতীয় পর্বের শুরুতে “আপনারা সাক্ষাৎকারের জন্য বারবার আমাকে বিরক্ত করেন, আপনাদের তো এরপর আমাকে সন্মানী দিতে হবে” – এ কথা রসিকতা করেন আহমদ ছফা। সাক্ষাৎকার দেওয়ার জন্য আমাদের পক্ষ থেকে এরপর ধন্যবাদ জানানো হয়। জবাবে তার জন্য এক কপি পত্রিকার সৌজন্য সংখ্যা পৌঁছে দেওয়ার কামনা।…



    পুনশ্চ : লক্ষ্যনীয়, অকপট ছফা এই আলাপচারিতায় যাদের তীব্র সমালোচনার বানে বিদ্ধ করেছেন, তাদের মধ্যে উমর, শরীফ, হুমায়ুন, তসলিমা বা ফরহাদের মতো  বিশিষ্টজন রয়েছেন। তাদের অনেকেই তখন বেঁচে ছিলেন এবং ঢাকাতেই অবস্থান করছিলেন, লেখাটি নিয়ে সে সময় লেখক-শিল্পী মহলে জোর আলোচনাও হয়। কিন্তু কেউই ছফার বক্তব্যের এক অক্ষর প্রতিবাদ করার সাহস পাননি।  


    কারণ ছফার শক্তি হচ্ছে – নৈতিকতা ও জ্ঞান। তবে আপেক্ষিকতার তত্ত্বসহ সব কিছুই নাকি আপেক্ষিক। নিবেদন ইতি।

    --

    [দ্র. মস্তক টিকা ও পাদটিকা বাদে মূল কথোপকথন অবিকল আছে, চিত্র সংগৃহিত]   

  • বিভাগ : অপর বাংলা | ২০ জুলাই ২০২০ | ৮৬২ বার পঠিত
আরও পড়ুন
আয়না - ন্যাড়া
আরও পড়ুন
খোপ - রৌহিন
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা

  • পাতা : 1
  • r2h | 49.37.12.111 | ২০ জুলাই ২০২০ ১৩:৩১95360
  • "সেখানে আমি বলেছি, বাংলাদেশের প্রধানত দুটি সমস্যা – এক. এটা একটা দরিদ্র দেশ, দুই. এর অর্থনীতি অনুন্নত। এই সমস্যাগুলোর সমাধান করতে পারলে বাংলাদেশকে উন্নত রাষ্ট্রে পরিবর্তন করা যাবে।"

    সব্বোনাশ, কি অন্তর্দৃষ্টি। এই সাক্ষাৎকারের বক্তব্য নিয়ে যে কেউ কিছু লেখেননি তার কারন বোঝা যায়ঃ)

    সাক্ষাৎকারগ্রহণকারীর প্রশ্নগুলি পড়তে ভালো লাগলো, সুচিন্তিত, প্রস্তুত প্রশ্ন।
  • r2h | 49.37.12.111 | ২০ জুলাই ২০২০ ১৩:৪৬95362
  • ছবিটা আসছে না কেন?

  • Prativa Sarker | 182.66.148.229 | ২০ জুলাই ২০২০ ১৫:৫৮95364
  • খুবই অকপট প্রশ্নোত্তর। তসলিমা সম্পর্কে অনেক রেখেঢেকে বললেও এইটুকুও কেউ বলতে চান না। বিপ্লব রহমানের প্রশ্ন খুব সুচিন্তিত।

  • বিপ্লব রহমান | 37.111.198.146 | ২০ জুলাই ২০২০ ১৬:০১95365
  • r2h 

    ছবি এসেছে।  আপনার   বিনীত পাঠের জন্য ধন্যবাদ।      

  • বিপ্লব রহমান | 37.111.198.146 | ২০ জুলাই ২০২০ ১৬:০৮95366
  • প্রতিভা দি, 

    তোমার লেখা,  মন্তব্য সব সময়ই প্রেরণা দেয়।

    এই লেখাটির কথা প্রায় ভুলতেই বসেছিলাম। মনে হয় আরেক জীবনের কথা             

  • r2h | 49.37.12.111 | ২০ জুলাই ২০২০ ১৬:১৮95367
  • তসলিমার তো মোটের ওপর প্রশংসাই করলেনে দেখলাম, ক্রেজি বলেছেন সে তো প্রশ্রয়ের ভাষা।

    মানে তাতে আমার খেদ নেই, বরং ভালো লেগেছে। না হলে তসলিমার নিন্দা করা তো বড় লেখকদের প্রিয় বিনোদন ছিল। শুরুতে একটু পেট্রনাইজ করে তারপর নিন্দা করে ধুয়ে দেওয়া, এরকমই চল ছিল।

    (আচ্ছা, বিনীত পাঠ মানে কী? আমার তো বেশি বিনয় নেই, পড়াটা কী করে বিনীত হবে? পাঠের জন্যে বিনীত ধন্যবাদ? নাকি বিনীত পাঠ মানেও তাই? কাইন্ড রিগার্ডসের মত?)
  • r2h | 49.37.12.111 | ২০ জুলাই ২০২০ ১৬:১৯95368
  • হ্যাঁ, ছবিটা অ্যাডমিন অ্যাকসেস থেকে তুলে দেওয়া হয়েছে।

    কিন্তু ঐটা এলো না কেন বুঝলাম না, আপনি ঠিকমতই দিয়েছিলেন।
  • ইশরাত তানিয়া | 202.134.9.134 | ২১ জুলাই ২০২০ ০৭:৪৪95389
  • ছফার সাক্ষাৎকার পড়া মানে ভাবনার দিগন্ত উন্মোচন। প্রশ্নগুলো সুচিন্তিত হওয়ায় সাক্ষাৎকারটি তথ্যপূর্ণ  ও অন্তর্দৃষ্টিসম্পন্ন হয়েছে।ধন্যবাদ।  

  • বিপ্লব রহমান | 37.111.203.32 | ২১ জুলাই ২০২০ ০৮:০৯95391
  • r2h 

    মন্তব্যেই বিনয়ের প্রকাশ। আর লেখায় ছবি যোগ করার দিকদারি আপনিই  শিখিয়েছিলেন। সে জন্য আরেকবার ধন্যবাদ। 

    ইশরাত, 

    সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। অনেকদিন আপনার লেখা পড়ি না।                    

  • Sheikh Din Mohammad | 27.147.204.43 | ২১ জুলাই ২০২০ ১০:১৫95392
  • It is very painful to endure that a bright man like Ahmed Sofa was not allowed to go to England for research or to study.

  • বিপ্লব রহমান | 37.111.205.42 | ২৩ জুলাই ২০২০ ০৬:৫৮95434
  • শেখ দ্বীন মোহাম্মদ, 

    পাঠ ও মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।

    জীবদ্দশায় কখনোই ছফার মূল্যায়ন হয়নি।  কোনো শীর্ষ স্থানীয় প্রকাশনা তার বই ছাপেনি, বাংলা একাডেমির কথা ছফা নিজেই বলেছেন,  সরকারি-বেসকারি মহলেও নয়। আসলে অকপট ছফাকে ভেতরে ভেতরে অনেকে ভয় পেতেন বলে মনে হয়।       

    আর এখন বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে ছফাকে নিয়ে টানাহেঁচড়ায়  কী যে একটাঅবস্থা!              

  • রঞ্জন | 182.68.29.53 | ২৩ জুলাই ২০২০ ১২:২৪95441
  • @বিপ্লব রহমান,

                      আহমেদ ছফার উপন্যাস কি অনলাইনে কেনা যায় ?

                      তসলিমাকে  নিয়ে ওঁর বক্তব্যের " একটা মেয়ে সাহস করে কিছু বলছে তো? এ জন্য তাকে আমরা অভিনন্দন জানাই'" জন্যে কুর্নিশ। 

  • বিপ্লব রহমান | 37.111.205.42 | ২৩ জুলাই ২০২০ ১৭:০৬95444
  • রঞ্জন, 

    আগ্রহের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। 

    বাংলাদেশে ছফার সব বই ও রচনাবলী অনলাইনে পাওয়া যায়, তবে আমাজন এপারে এখনো চালু হয়নি, তাই ভারত বা অন্য দেশ থেকে সেসব কেনার সুযোগ নাই। 

    তবে আশার কথা ছফার অনেক বইই অনলাইনে বিনামূল্যে পাওয়া যায়।

    এরমধ্যে "ওংকার" উপন্যাসটির কথা ছফা নিজেই বলেছেন।  এরমধ্যে "গাভী বৃত্তান্ত" ও "বাংগালী মুসলমানের মন" বইদুটির কথা অনেকেই নানা ফোরামে বলেছেন।

    নীচের সুতোয় ছফার কিছু ইবুক বিনামূল্যে পড়া যাবে : 

    https://bn.bdebooks.com/genre/%E0%A6%86%E0%A6%B9%E0%A6%AE%E0%A6%A6-%E0%A6%9B%E0%A6%AB%E0%A6%BE/

                          

            

  • রঞ্জন | 122.162.253.236 | ২৪ জুলাই ২০২০ ১৯:১০95465
  • বিপ্লববাবু ও হুতোকে অনেক ধন্যবাদ। এক্ষুণি ওঁকার সহ পাঁচটা ডাউনলোড করেছি,

  • শিবাংশু | 115.187.33.93 | ২৪ জুলাই ২০২০ ২৩:০৭95466
  • স্বীকার করি, আহমেদ ছফার নামটিই শুধু শুনেছিলুম। তাঁর রচনার সঙ্গে পরিচয় ছিলো না। এই সাক্ষাৎকারটি থেকে যে ব্যাপারটি স্পর্শ করলো, সেটা তাঁর সাহস। এই রকম একটি মেধাকে বিপ্লব ভালো ভাবে কর্ষণ করতে পেরেছেন। এই বাংলাতেও 'প্রতিষ্ঠিত' লেখকদের প্রতি 'বিরূপ' মন্তব্য করার সাহস অনেক দেখিয়ে থাকেন। তার অনেক স্তরভেদ থাকে। প্রথম বয়সে কখনও সমীর রায়চৌধুরীর বয়ানে সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় বিষয়ক, কখনও সন্তোষকুমার ঘোষের বয়ানে নানা বাংলা মহীরুহ বিষয়ক 'বিরূপ' মন্তব্য নানা আড্ডায় সামনে বসে শুনেছি। তাঁদের প্ররোচিত করেছি আরও বলতে। তাঁরাও বলেছেন। সেগুলি তো লিটল পত্রিকায় যে ধরনের মতামত দেন বয়োকনিষ্ঠ সাহিত্য যশোপ্রার্থীরা, তার থেকে আলাদা।
    এই সব মন্তব্যের অনেক ক্ষেত্রেই সারবত্ত্বা থাকে। বদরুদ্দিন উমর স্কুল বয়সে আমাদের আইকন হয়ে উঠেছিলেন তাঁর বিদ্যাসাগর সংক্রান্ত বইটির সূত্রে। সেই মায়া অনেকটা রয়ে গেছে এখনও। আহমেদ ছফার এই মুহূর্তের রাজনৈতিক মননের সঙ্গে পুরোটা না হলেও নিজের মধ্যে তার প্রতিধ্বনি শুনতে পাই অনেকটাই।

    মুক্তিযুদ্ধের সময় মজহারুল ইসলাম এদেশে ছিলেন অনেক দিন। বেশ কয়েকবার জামশেদপুর এসেছিলেন। আমার পিতৃদেবের সঙ্গে একটা বন্ধুত্ব গড়ে উঠেছিলো। আমাদের বাড়িতেও এসেছেন। গান, আড্ডা হয়েছিলো অনেক। আমি তখন বালক।

    লিংকগুলির জন্য ধন্যবাদ। এবার ওঁর লেখা পড়ে বাকিটা ভাববো।
  • শিবাংশু | 115.187.33.93 | ২৪ জুলাই ২০২০ ২৩:১৩95467
  • বানানটা বোধ হয় 'মযহারুল'। মনে পড়ে তিনি এভাবেই লিখতেন। আর একটা কৌতুহল রয়ে গেলো। এখনও কি তসলিমার সাহিত্য বিষয়ক মতামত বা অবস্থানকে বাঙালির মেধার সূচক হিসেবে মানা হয়?
  • ar | 96.230.106.154 | ২৫ জুলাই ২০২০ ০৮:৫৯95470
  • "বাঙালি হচ্ছে খুব হতভাগ্য জাতি। সে দিয়েছে অনেক কিন্তু পেয়েছে খুব কম.....।"

    সূত্রঃ আহমেদ ছফার সাক্ষাৎকার।
    পরবাস ডট কম, শরৎ, ১৪০৬ বঙ্গাব্দ।

    https://www.parabaas.com/SHOROT3/LEKHA14/bSaxat14.html
  • বিপ্লব রহমান | 119.30.32.227 | ২৫ জুলাই ২০২০ ০৯:২১95471
  • r2h, রঞ্জন, শিবাংশু, ar, 

    মতামতের জন্য ধন্যবাদ। আগামীতেও সাথে থাকুন।   

    শিবাংশু, 

    এপারে বদরুদ্দীন উমর আর তেমন পড়া হয় না, বাম তাত্ত্বিকদের মধ্যে সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, আনু মুহাম্মদ প্রমুখ বরং অনেক পঠিত। 

    সম্ভবত উমরের লেখক শিবির ও  সিপিবি (এমএল) এর রাজনৈতিক-সাংস্কৃতিক বনসাই তাত্বিক মেরুকরণ  এর কারণ। তবু ভাষা আন্দোলন নিয়ে উমরের তিন খণ্ডের গবেষণার  জন্যই  বাংলাদেশ তাকে আজীবন মনে রাখবে। এছাড়া তার বেশকিছু লেখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।                               

  • শিবাংশু | 202.8.116.216 | ২৫ জুলাই ২০২০ ১৩:০২95478
  • @বিপ্লব,
    বদরুদ্দীন উমর ছিলেন একজন কৃষক। একটা সময় আমাদের মনে জমি তৈরি করে দিয়েছিলেন। সেখানে ফসল ফলিয়েছেন অনেকে। 'পুরানো সে নক্ষত্রের দিন শেষ হয়' তত্ত্ব অনুযায়ী তিনিও দৃষ্টির আড়ালে চলে গিয়েছেন হয়তো। রাজনৈতিক 'মেরুকরণ' একটি অছিলা মাত্র। আমাদের সন্তানদের প্রজন্মে এপারেও বিশেষ কেউ তাঁকে স্মরণ করে না।

    আমি হুমায়ুন আহমেদ কিছুই পড়িনি। মানে শুরু করেছিলুম এক-আধবার হয়তো বা, কিন্তু একেবারেই এগোতে পারিনি। নিমাইবাবু বা এক ব্যাগ লেখকদের জন্য ততোটা সময়ও দিতে পারিনি। ইশকুল জীবনেও। নিজের মুদ্রাদোষ দুষ্ট মানুষ পেলে আহ্লাদ হয় ।
  • বিপ্লব রহমান | 37.111.204.112 | ২৫ জুলাই ২০২০ ১৪:৪০95485
  • শিবাংশু, 

    আবারও আপনার মতামত পেয়ে ভাল লাগলো। 

    নয়ের দশকে চণ্ডালের  রাজনৈতিক স্কুলিং উমর দিয়েই শুরু। জেনারেল এরশাদ বিরোধী রক্তাক্ত ছাত্র-গণঅভ্যুত্থানের পর বাম বুর্জোয়া তাত্ত্বিক উমরের কথিত রাষ্ট্রবিপ্লবের তত্ত্বে   মোহভঙ্গ  হতে সময় লাগেনি। সে সময় থেকেই প্রজন্ম একাত্তরে উমরের চিন্তাধারা বাতিল হতে হতে তিনি একাই ছয়ের দশকের দুর্গবন্দী হয়ে গেছেন।  

    বয়সের কারণে অনেক বছর তিনি কিছু লেখেন না, আবেদন হারানোয় তার বইপত্র আর পুনর্মূদ্রণও হয় না।

    তবে আগেই বলেছি,  ভাষা আন্দোলনসহ বেশকিছু গবেষণাগ্রন্থের বাংলাদেশ উমরকে আজীবন মনে রাখবে।            

  • করোনা

  • পাতা : 1
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত