• হরিদাস পাল  ভ্রমণ  দেখেছি পথে যেতে

  • দার্জিলিং ব্লুজ - পর্ব ৪। ৮ই মার্চ, ২০২১

    রৌহিন লেখকের গ্রাহক হোন
    ভ্রমণ | দেখেছি পথে যেতে | ০৯ এপ্রিল ২০২১ | ৩১৯ বার পঠিত | ১ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • মিস্টি মাইন্টেইনস
    _________________
    সকাল দশটায় বেরোনো - তার আগে হোটেলেই ব্রেকফাস্ট। আজ ডাইনিং হলে। মেঘ ইতিমধ্যে প্রায় সব কর্মীদের সঙ্গেই ভাব জমিয়ে ফেলেছে, মাঝে মাঝেই গিয়ে আড্ডা মেরে আসছে। খেয়েদেয়ে বাইরে বেরোতে দেখি ঠান্ডা বেশ কম আজ, বাইরে বেশ ঝলমলে, যদিও কাঞ্চনজঙ্ঘার দেখা নেই। ওদিকটা একই রকম - মেঘাচ্ছন্ন। টাইগার হিল যাবার কোন মানেই হত না। বিকাশবাবু হাজির যথাসময়ে গাড়ি নিয়ে - রাজভবনের সামনেই। পটাপট উঠে পড়লাম। গাড়ি চলল আগের দিনের রাস্তা ধরেই। চিড়িয়াখানা ডাইনে রেখে নীচে নেমে আরেকটু এগিয়ে আবার ডাইনে এক কঠিন খাড়া বাঁক - রোপওয়ে স্টেশন। টিকিটের লম্বা লাইন - কাউন্টার তখনো খোলেনি। লোকজন বলল সাড়ে দশটায় খুলবে - আদতে খুলল এগারোটারও মিনিট পাঁচেক পরে। তারপর টিকিট কেটে আবার কেবল কারে ওঠার লাইন - সে প্রতীক্ষা আরো দীর্ঘ। অবশেষে আমাদের পালা এল - আমরা তিনজন, আর উল্টোদিকে এক নবদম্পতি - রাজস্থানি। মেয়েটি ছটফটে, বকবক করতে পারে প্রচুর, ছেলেটি যথারীতি শাইনিং চাড্ডি (হাসি কান্নার ইমোজি)।
    তবে শুরুতেই এসব বোঝার সময় ছিল না - ব্যাপারটা ভয়ঙ্কর হবে কিনা এই নিয়ে জনতা যথেষ্ট টেনশনে ছিল। আমার নিজের হালকা ভার্টিগো আছে, তাই আমিও খুব একটা কনফিডেন্ট ছিলাম না। তবে একটু পথ যেতেই বোঝা গেল, ভয়ের কোন ব্যাপার নেই - বরং ওপর থেকে নীচের যে বার্ডস আই ভিউ, সে এক অনন্য অভিজ্ঞতা। প্রথমে জঙ্গল, তারপর চা বাগানের মাথার ওপর দিয়ে ঈগলের মত উড়ে যাওয়া, দূরে অনেক নীচে আঁকাবাঁকা সাপের মত রাস্তা, ছোট ছোট পুতুলের মত কর্মরত কামিনরা, আর মাঝে মাঝে জানলায় মেঘেদের উঁকিঝুঁকি।
    অনেকটা নেমে নেক্সট স্টেশনে থামল কেবল কার। আমরা নেমে পাশের চা বাগানে ঘোরাঘুরি। ছবিছাবা। তারপর আবার অন্য একটা কেবল কার ধরে আবার ওপরে। আবার গাড়ি - পরের স্পট তেনজিং রক। এখানে দেখার কিছু নেই - রক ক্লাইম্বিং শেখানো হচ্ছে। মেঘের একটু ইচ্ছে ছিল বটে, কিন্তু যথেষ্ট সাহস করে উঠতে পারল না মনে হয়। আমরা ফুচকা খেলাম। তারপর ধা। পরবর্তী স্পট জাপানীজ পীস প্যাগোডা। আবার সেই ম্যালের রাস্তা ধরে জলাপাহাড়ের দিকে - তবে এবার একটু অন্য রাস্তা। এদিক দিয়েও জলাপাহাড় যাওয়া যায় বটে।
    পীস প্যাগোডায় ঢোকার আগে একটা সাধারণ দর্শন বৌদ্ধ মন্দির - এমনিতে দর্শনার্থীদের জন্য ব্যবস্থা আছে কিন্তু করোনাকালে অনেককিছুর মত এটিও আপাতত স্থগিত। গেটের ঠিক বাইরে ফায়ারবলের লালবাহার। এটিকে বাঁয়ে রেখে এগিয়ে গেলে পাহাড়ের গায়ে সাদা রঙের সেই প্যাগোডা - অনেকটা ধবলগিরির মতই। সামনে অনেকটা চত্বর - আর তিন ধাপে উঠেছে প্যাগোডার মূল প্রাঙ্গনে। পুরোটাই জাপানি টাকায় বানানো, লামারাও প্রায় সবাই জাপানি, এবং শোনা গেল, যাচাই করতে পারিনি, এরা নাকি জাপানি ছাড়া অন্য ভাষায় ইন্টেরাক্ট করেন না। হতে পারে। এই পীস প্যাগোডাটিতে আমি খুব একটা মৌলিকতা কিছু পাইনি - তবে আশেপাশের পরিবেশ তো অসাধারণ। পাইনের বনে ঘেরা পাহাড়চূড়ায় একটা শুভ্র প্যাগোডা তার পারিপার্শ্বিকের গুণেই কিছুটা সম্ভ্রম আদায় করে নেয় বই কি। জাপানিদের সৌন্দর্যবোধও সন্দেহাতীত।
     
    যাই হোক, এবার আবার নামতে নামতে হিলকার্ট রোড। আমাদের সফরসঙ্গী কুয়াশা ততক্ষণে আবার ধরে ফেলেছে আমাদের। ডালি মনাস্ট্রিকে বাঁয়ে রেখে, অ্যাঁকাব্যাঁকা সেই রাস্তা ধরে আবার ঘুমের দিকে - গন্তব্য বাতাসিয়া লুপ। আমাদের ছোটবেলার বাতাসিয়া লুপের সাথে তো বটেই, ২০০৫ এর সাথেও অনেক ফারাক। এটা এখন পুরোপুরি ট্যুরিস্ট স্পট। তার ভাল দিক হল, জায়গাটা অনেক সাজানো গোছানো এবং পরিষ্কার। একদিকে কয়েকজন দূরবীনে দার্জিলিং শহর দেখাচ্ছেন, মাথাপিছু ৪০ টাকা। আমরা থাকতে থাকতেই একটা টয় ট্রেন এসে দাঁড়াল। কিছুক্ষণ থাকল, তারপর ভোঁ বাজিয়ে লুপ করে চলে গেল ঘুমের দিকে। কিছু মানুষ স্থানীয় পোষাকে ছবি তুলছেন। এদিক ওদিক কেয়ারি করা বাগান - ফুলের, গাছের, ক্যাকটাসের।
    খারাপ দিক বলতে একটাই - সেটাও তর্কসাপেক্ষ বটে, এত কৃত্রিমতায় প্রকৃতির আসল রূপটা ধরা পড়ে না। কিন্তু সে বোধ হয় এসব হবার আগেও পড়ত না। প্রকৃতির মাঝে একখণ্ড পার্কের দরকার আছে কি নেই, তা তর্কসাপেক্ষ। কিন্তু এই পার্ক যদি কিছু মানুষের রুজির ব্যবস্থা করতে পারে, তাহলে থাক। সব কৃত্রিমই কিছু অশ্লীল নয়। আমার মোটের ওপর ভালই লাগল এইসব পরিবর্তন।
    লাঞ্চ এখানেই করব বলে নীচে নেমে একটা জুৎসই রেস্তরাঁ খুঁজছিলাম, মেঘের চোখে পড়ে গেল "সান্টা বান্টা ধাবা"। সান্টা বান্টার যেসব গল্প শুনেছি, তাতে খুব একটা ভরসা পাচ্ছিলাম না, কিন্তু মেঘ ইনসিস্ট করল। কোথাও একটা ঢুকে পড়া দরকার ছিল, কারণ আমাদের সফরসঙ্গী তখন হাওয়ার সঙ্গে জুটে রীতিমত হাড় কাঁপাচ্ছিল। কাজেই তিনজনে তড়িঘড়ি ঢুকে পড়লাম সেই সান্টা বান্টারই খপ্পরে। বিকাশবাবু এলেন না - বললেন এখানে পার্কিং এর সমস্যা, তাছাড়া উনি আগেই খেয়ে নিয়েছেন নাকি। অগত্যা।
    ভিতরে ঢুকে এক ঝলকে মন্দ লাগল না - কাঠের দেওয়াল, মেঝে - গাছের গুঁড়ির টেবিল। জানলার বাইরে পাহাড়ের ঢাল - কুয়াশায় ঢাকা। জানলার পাশেই একটা টেবিলও পাওয়া গেল। মেঘের ভাত, আমাদের রুটি, চিকেন ভর্তা, মাশরুম কারি। কিন্তু কার্যত মাশরুম কারি আর চিকেন ভর্তা দেখতেও একরকম, খেতেও। এবং কোনটাই ঠিক মাশরুম কারি বা চিকেন ভর্তার মত খেতে নয় (কান্নার ইমোজি)। মেঘের অবশ্য তাতে বিশেষ কিছু যায় আসে না, সে দিব্যি খুশী।
    যাই হোক লাঞ্চ সেরে আবার বেরোনো গেল। এবার রকি আইল্যান্ডের দিকে। আভা আর্ট গ্যালারির একটু আগে থেকে বাঁ দিকে (দার্জিলিং এর দিকে মুখ করলে) নেমে গেছে - একদম খাড়াই ঢাল। সুভা কাকীমা () আর রাণাদের বাড়িটার পাশ দিয়েই রাস্তা। আমাদের ছোটবেলায় এই স্পটটা ছিল না, তবে ২০০৫ এ এসে দেখে গেছিলাম। খাড়া নামতে নামতে পথে অরেঞ্জ ভ্যালি টি এস্টেট। এখানে গাড়ি একটু দাঁড়াল - ম্যান্ডেটরি পারচেজ - ফার্স্ট ফ্লাশ দার্জিলিং টি। তারপর আবার হুড়হুড় করে প্রায় গড়িয়ে নেমে যাওয়া রকি আইল্যান্ডের দিকে।
    শেষ পর্যটক আমরাই - তারপরে টিকিট দেওয়া বন্ধ করে দিল। পাহাড়ের গা বেয়ে পাথর ফাটিয়ে নেমে আসা ঝরণা আর তাকে কেন্দ্র করে সাজানো বাগান। ঝরণার বিভিন্ন উচ্চতায় ছোট ছোট সাঁকো, খোয়া বাঁধানো রাস্তা, বড় বড় গাছের ছায়া। একটু নীচের দিকে একটা বড় পুল মত তৈরি হয়েছে। আর এই টিকেটেড এরিয়ার বাইরে, একটু নীচের দিকেে জলের মাঝখানে সিমেন্ট দিয়ে বাঁধানো একটা ঢাউস পদ্ম - পুরো জায়গাটার অ্যাবোমিনেশন। এটা আমার একেবারেই অপ্রয়োজনীয় মনে হয়েছে। ঘুরে টুরে এসে দেখি মিষ্টি দেখতে একটি নেপালি মেয়ে চায়ের দোকান বন্ধ করার তোড়জোর করছে। আমাদের সে লাস্ট কাস্টমার হিসাবে দু কাপ ভারি সুন্দর চা খাওয়াল, সঙ্গে বিস্কুট।
    ফেরার পথে ম্যালের আগে ট্যাক্সি স্ট্যান্ডেই নেমে গেলাম। হাঁটতে হাঁটতে আবার গ্লিনারিজ। মেঘের আরেক প্রস্থ ঘোড়সওয়ারির ইচ্ছে ছিল, কিন্তু সোমবার ঘোড়াদের ছুটি থাকে। গ্লিনারিজে আজ শুধু মাফিন, পেস্ট্রি আর দুটো বড় কেক কেনা হল - একটা প্লেন, একটা ফ্রুট অ্যান্ড নাট। তারপর বেরিয়ে হাঁটতে হাঁটতে একটু ঘোরাঘুরি, কিউরিয়ো শপগুলোয় হানা দিয়ে কিছু ছোটখাটো জিনিষ নেওয়া, ম্যালের দুধারের কাপড়ের দোকান। কিন্তু সেরা অবশ্যই মহাকাল মন্দিরের রাস্তার ফুটের বাজার। সেসব সারতে সারতে, হাঁটতে হাঁটতে হোটেল। ম্যাল থেকে আমাদের হোটেল অবধি হেঁটে যাওয়ার এই রাস্তাটা বেশ রহস্যগল্পের প্লটের মত। ডানদিকে খাদ আর বাঁদিকে পাহাড় - দুইই খাড়া, জঙ্গলে ঢাকা। বাঁদরেরা স্বচ্ছন্দ, কুকুরেরাও, আমাদের দু-পেয়েদের একটু গা শিরিশির তো করেই। অনেক নীচে দেখা যায় গুরুং বস্তি, লেবং রেসকোর্স, আঁকাবাঁকা ফিতের মত রাস্তা। সন্ধ্যে হলে অজস্র আলোর ফুটকি।
    রুমে আজ হুইস্কির বদলে কফি আর কেক নিয়ে বসা গেল। গ্লেনারিজ এর এই কেক এর তুলনায় আসে একমাত্র নাহুম'স। এই দুটোর মধ্যে একটাকে বাছতে বললে অবশ্য আমি বিপদে পড়ব। ছোটবেলার দোহাই দিয়ে গ্লেনারিজকেই বাছব হয়তো। দার্জিলিং এ অদ্যই শেষ রজনী - তাই সবারই একটু মন খারাপ।

  • বিভাগ : ভ্রমণ | ০৯ এপ্রিল ২০২১ | ৩১৯ বার পঠিত | ১ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন গ্রাহক পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Anindita Roy Saha | ০৯ এপ্রিল ২০২১ ১৬:৫৫104558
  • আবার ফেবুমার্কা নিজেদের ছবি!

  • বিপ্লব রহমান | ১০ এপ্রিল ২০২১ ০৭:০৪104579
  • এইবারেরটাও সুন্দর, সাবলীল হয়েছে। এই বেলপাকা গরমে দার্জিলিং হিমের গল্প একটুও খারাপ লাগছে না।


    কিন্তু খুব বাংলিশের ছড়াছড়িতে মাঝে মধ্যে হোঁচট খাই। আর সত্যিই ফেসবুকিয় আত্মছবি  কিছু কমালে আরও ভাল হতো!  


    তবে প্রাকৃতিক দৃশ্যের ছবিগুলো একদম প্রাণহরা। ইশ, কবে যে একবার রোপওয়ে থেকে পাহাড় দেখবো! হিংসিত ইমো =

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। কল্পনাতীত মতামত দিন