• বুলবুলভাজা  খ্যাঁটন  খানাবন্দনা  খাই দাই ঘুরি ফিরি

  • না, ইংরেজি ‘স্যুপ’ সংস্কৃত ‘সুপ’ থেকে আসেনি

    নীলাঞ্জন হাজরা
    খ্যাঁটন | খানাবন্দনা | ০৪ মার্চ ২০২১ | ৪৬৮ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • পঞ্চদশ ষোড়শ শতকের এক আশ্চর্য কুকবুক সুপশাস্ত্র। খিচুড়ির খোঁজে সেখানে আমাদের প্রবেশ করতেই হবে। কিন্তু তার আগে একটু সাঁতার ঘোর রহস্যময় সংস্কৃত শব্দ ‘সুপ’-এর সরোবরে। সত্যে ডুব দিয়ে কিছু মিথ ভাঙা দরকার। আর সেই সন্তরণেই আমরা পেয়ে যাই ভোজ কী হওয়া উচিত বাল্মীকি রামায়ণে তার আশ্চর্য সংজ্ঞানীলাঞ্জন হাজরা


    গত অধ্যায়ে আমরা শেষ করেছিলাম, এক আশ্চর্য মধ্যযুগীয় কেতাব সুপশাস্ত্র-র দুয়ারে এসে। লেখক তৃতীয় মঙ্গরস। কিন্তু এইখানে সে গ্রন্থে প্রবেশ না করে, খিচুড়ি রহস্য থেকে অল্পক্ষণের জন্য সরে যাওয়ার লোভ সম্বরণ আমার পক্ষে অসম্ভব—সুপের লোভ।

    সরে যাই সোজা বাল্মীকি রামায়ণে। বালকাণ্ড, দ্বিপঞ্চাশত ও ত্রিপঞ্চাশত স্বর্গ থেকে কিছু মণিমুক্ত। খেইটা এরকম— বিশ্বামিত্র ও তাঁর সেনা হাজির বশিষ্ঠমুনির আশ্রমে। মুনি তাঁদের আপ্যায়নে ভূরিভোজের আহ্বান জানান। রাজার কিন্তু কিন্তু ভাব, আপত্তি—একজন মুনির আশ্রমে এসে তাঁকে এভাবে চাপে ফেলা কি উচিত? কিন্তু মুনির জীবনে কোনো চাপ নেই, কারণ মুনির কাছে তো রয়েছে শবলা ওরফে কামধেনু, যাকে নির্দেশ দিলেই মেলে যা চাই। বোলাও ভূরিভোজ। সেই না দেখে বিশ্বামিত্র শবলাটি হাত করার ধান্দা ফাঁদেন। ভবি ভোলবার নয়। বশিষ্ঠ শুনিয়ে দেন কীভাবে এ গোরু যার যা ইপ্সা তাই পূর্ণ করে দিতে পারে। জমজমাট কাহিনি, আমরা ঢুকে পড়ি এই কিস্‌ সা গোয়ি-তে বাহান্ন পর্বের শেষ শ্লোক থেকে —

    যস্য যস্য যথাকামং ষড়্‌ রসেষ্যভিপুজিতম
    তৎসর্বং কামধূক দিব্যে অভিবর্ষ কৃতে মম।। (১-৫২-২২)
    রসোন্নানেন পানেন লেঝ্যচোষ্যেণ সংয়ুতম
    অন্নানাং নিচয়ং সর্বংসৃজস্ব শবলে ত্বর।। (১-৫২-২৩)
    ইক্ষুমধুস্তথা লাজান মৈরেয়াঞ্চ বরাসবান্‌
    পানানিচ মহার্হাণি ভক্ষাংচ্চোচ্চাবচাংস্তথা।। (১-৫৩-২)
    উষ্ণাদ্যস্যৌদনস্যাপি রাশয়ঃ পর্বতোপমাঃ
    মৃষ্টান্নানিচ সুপাশ্চ দধিকুল্যাস্তথৈব চ।। (১-৫৩-৩)
    নানাস্বাদূরসানাং চ খাণ্ডবানাং তথৈবচ
    ভোজনানি সুপূর্ণানি গৌড়ানি চ সহশ্রস্য।।


    আহা! এই তিন শ্লোকে বাল্মীকি রামায়ণকালীন—মানে ৩০০ পূর্বসাধারণাব্দর পরবর্তীকালে—ভোজনের কী অপূর্ব বিবরণ! শুধু বিবরণ নয়, সুআহার কী হওয়া উচিত যেন তার সংজ্ঞা। রামকৃষ্ণ মিশনে বিদ্যালাভের ফলে যেটুকু সংস্কৃত শিখতে বাধ্য হয়েছিলাম, তার বাইরে যে এ ভাষাটির আর কোনো চর্চা করিনি এ পরিতাপ আমার ঘোচার নয়। কাজেই এ অংশটা যে এখানে তুলে দিয়েছি বাংলা হরফে তা আসলে একটি নাগরি লিপির সংস্কৃত পাঠের অনুকরণে। আর তার একটা বিশেষ কারণ আছে। তাতে আসছি, তার আগে ঠিক এই শ্লোকগুলিরই পদ্যে ইংরেজি তরজমা দেখি। করেছেন খাস ইংরেজ র‍্যালফ টি এইচ গ্রিফিথ, যিনি ছিলেন বেনারস কলেজের অধ্যক্ষ—

    Each dainty cate, each goodly dish,
    Of six-fold taste as each may wish—
    All these, O cow of heavenly power,
    Rain down for me in copious shower:
    Viands and drink for tooth and lip,
    To eat, to suck, to quaff, to sip—
    Of these sufficient, and to spare,
    O plenty-giving cow, prepare…

    Honey she gave, and roasted grain,
    Mead sweet with flowers, and sugarcane.
    Each beverage of flavour rare,
    And food of every sort, were there:
    Hills of hot rice, and sweetened cakes,
    And curdled milk and soup in lakes.
    Vast beakers foaming to the brim
    With sugared drink prepared for him,
    And dainty sweetmeats, deftly made,
    Before the hermit's guests were laid.


    শব্দ ধরে ধরে দেখলে—ষড়্‌ রসেষ্যভিপুজিতম—ছয় রসের যে যা চায়, অভিবর্ষ কৃতে মম—আমার কৃতার্থে বর্ষণ করো, অন্নেন—খাদ্য (ইঙ্গিতে যা চিবাতে হয়, চর্ব্য), পানেন—যা পান করা যায়, লেঝ্যচোষ্যেণ—যা চাটা যায় ও চোষা যায়। ইক্ষুমধু, লাজান—সেঁকা শস্য (মুড়ি নয় তো? গদ্য তরজমায় হরিপ্রসাদ শাস্ত্রী অবশ্য বলছেন ‘ক্রাশ্‌ড বার্লি’), মৈরেয়াঞ্চ বরাসবান— সেরা পেয়ালায় মদ (গ্রিফিথ সাহেব কেন সলজ্জ ‘বেভারেজ’ বলেই ছেড়ে দিলেন? হিন্দি তরজমায় তো ডি পি শর্মা সাফ বলছেন ‘মদিরা’ আর হরিপ্রসাদ শাস্ত্রী বলছেন ‘ওয়াইন’!), পানানি—পেয়, ভক্ষাংচ্চোচ্চাবচাং—হরেক কিসিমের খানা, উষ্ণাদ্যস্যৌদনস্যাপি রাশয়ঃ পর্বতোপমাঃ—পর্বতপ্রমাণ গরম ভাত, মৃষ্ঠান্নানি—মিষ্টি পিঠে, দধি আর স্যুপের প্রপাত বা হ্রদ, খাণ্ডবানাং—মেঠাই, ভোজনানি—সুখাদ্যসকল, গৌড়ানি—গুড়, সহস্রশঃ—হাজারে হাজারে।

    রুদ্ধশ্বাস! ভূরিভোজে থাকবে চর্ব্যচোষ্যলেঝ্যপেয়—খাবার তরিকার দিক থেকে খানার চারপ্রকার। আবার বিশুদ্ধ রসের বিচারে—ষড়রস, ছয় রসের খানা—ফুটনোটে বলে দিচ্ছেন গ্রিফিথ: মিষ্টি, নোনতা, কটু, তেতো, টক এবং কষাটে (astringent), শাস্ত্রী শেষেরটা নিয়ে একটু দ্বিমত—দিচ্ছেন ‘acrid’, ঝাঁঝালো। ও আর ভালো কথা, এতক্ষণ নি’মতনামার আজগুবিপনায় আমাদের চোখ ছানাবড়া হচ্ছিল, কিন্তু রামায়ণকে টেক্কা দেয় কে?—গরম ভাতের পর্বত, স্যুপ আর দইয়ের প্রপাত, পরিবেশিত পদ হাজারে হাজারে (কোথায় লাগে মহামতি আকবর বাদশার একশো পদের দস্তরখওয়ান)!!



    শ্বেত কামধেনু। শিল্পী কে মুরলীধরণ। অ্যাক্রিলিক অন পেপার। ২০০১। সূত্র সাহাপিডিয়া


    কিন্তু আমরা এই অত্যাশ্চর্য বিবরণে প্রবেশ করেছিলাম সুপশাস্ত্র পাঠ মুলতুবি রেখে। তাই এই বিবরণিতে আমাদের কাছে একটি বিশেষ শব্দ বিশেষ আকর্ষণীয়—সুপাশ্চ। অর্থাৎ সুপও। এখন প্রশ্ন হল সংস্কৃত ‘সুপ’ কথাটার মানে কী? খতিয়ে দেখা দরকার। খতিয়ে দেখা দরকার এই কারণেই যে এ শব্দ যেমন মজাদার তেমনই রহস্যময়। সবার আগে তবে একটি প্রামাণ্য অভিধান খোলা যাক—মনিয়ার-উইলিয়াম্‌স সংস্কৃত ইংরেজি অভিধান:

    সুপ—Sauce, soup, broth (esp. prepared from split or ground peas with roots and salt) Lit. MBh. Lit. R. Lit. Suśr. A cook Lit. L. (f ([ī] ). g. [gaurādi] ) A vessel , pot , pan Lit. L. an arrow Lit. L.

    অর্থাৎ, বাংলায় যাকে বলব ঝোলের মতো তরল সিদ্ধ খাদ্যবস্তু (যা বিবিধ মটরের সঙ্গে মূলজাত তরকারি, যেমন সাদা মুলো, মিষ্টি আলু, কিছু কিছু কচু, গাজর আর নুন দিয়ে তৈরি করতে হয়)। কিংবা পাচক। মহাভারত, রামায়ণ, আয়ুর্বেদের সুশ্রুত সংহিতায় এর উল্লেখ আছে। ‘গৌরাদি’-র জটিলতায় আমরা ঢুকব না, ব্যকরণের বিচারে এক বিশেষ গোষ্ঠীর শব্দ। কিন্তু দেখছি সুপের মানে হতে পারে পাত্র, আবার তিরও!

    এবার প্রশ্ন হল এই সংস্কৃত ‘সুপ’ থেকেই কি ইংরেজদের সম্ভবত সবথেকে ব্যবহৃত খাদ্যটি এসেছে—Soup? অক্সফোর্ড অভিধানে তেমন মোটেই কোনো ইঙ্গিত নেই—Middle English from Old French soupe ‘sop, broth (poured on slices of bread)’, from late Latin suppa, of Germanic origin। বস্তুত কোনো প্রামাণ্য ইংরেজি অভিধানে বা ভাষাতত্ত্বের বইতে ইংরেজি Soup সংস্কৃত সুপ থেকে এসেছে এমনটা আমি অন্তত পাইনি। কিন্তু কী আশ্চর্য দুটি শব্দের একই উচ্চারণ একই মানে! কী করে হল? কেউ জানে না!

    তবে শুধু মহাভারত, রামায়ণ বা সুশ্রুতেই নয়, ‘সুপ’ কথাটি মিলবে মনুস্মৃতিতেও। আর সেটা আমাদের এই খিচুড়ির খোঁজে ভারী মজার এক মাত্রা যোগ করবে! শ্লোকটা এরকম—

    গুণাংশ্চসুপশাকাদ্যান্‌ পয়োদধিঘৃতংমধু
    বিন্যসেতপ্রয়তঃপূর্বমূমাবেবসমাহিত।।


    গঙ্গানাথ ঝা মহাশয়ের ইংরেজি তরজমার বাংলা করলে দাঁড়াবে—আনুষাঙ্গিক যা কিছু সুপ, শাক-তরকারি ইত্যাদি, দুধ, দধি, ঘি এবং মধু / অমল স্থিতধী চিত্তে তাহাকে মাটিতে স্থাপন করিতে হইবে। ভারী কৌতূহলের বিষয় এই যে, এরপরেই ঝা ‘সুপ’ কথাটিকে বিশেষভাবে ব্যাখ্যা করে বলে দিচ্ছেন—‘sūpa’ is a special preparation of Mudga and other grains cooked with rice, and called ‘barānna’। মুগ, অন্যান্য শস্য ও চাউল সহযোগে পাক করা খাদ্য। যার আর-এক নাম ‘বরান্ন’! এই ব্যাখ্যা যদি ঠিক হয়, তবে তো মনুস্মৃতির এ শ্লোকে খিচুড়ির গন্ধ প্রবল। কেবল মুশকিল হল, ‘বরান্ন’ শব্দটি আমি আর কোত্থাও খুঁজে পাইনি, আর যেহেতু ঝা এর কোনো সূত্র দেননি, আমি এই মনুস্মৃতির খিচুড়িটির ওপর একটি বড়ো-সড়ো প্রশ্নচিহ্ন দিয়ে রাখলাম। প্রসঙ্গত, হরিচরণেও এমন কোনো শব্দ নেই।

    কিন্তু এই ‘সুপ’ প্রসঙ্গে ইমনিয়ার-উইলিয়াম্‌স অভিধান বলছে ‘সুপশাস্ত্র’ নামের শাস্ত্রটির কথাও—‘Work on cookery’। কিন্তু সে ওয়ার্ক তৃতীয় মঙ্গরস-র নয় ভীমসেন বলে এক ব্যক্তির। তার আবার আর-এক নাম নাকি পাকশাস্ত্র। বহু খুঁজেও অবশ্য ভীমসেন নামের কারও কোনো সুপ বা পাক কোনোটিই আমি পাইনি। কাজেই এবার মানে মানে মঙ্গরস মহাশয়ের সুপশাস্ত্রে ফিরে যাওয়াই ভালো। সে এক অদ্ভুত অভিজ্ঞতা!


    (ক্রমশ… পরের কিস্তি আগামী বৃহস্পতিবার)


    ১) সূত্র — https://www.britannica.com/topic/Ramayana-Indian-epic
    ২) The RÁMÁYAN of VÁLMÍKI. Translated into English Verse by Ralph T. H. Griffith, M. A. Principal of the Benares College. London: Trübner& Co.Benares: E. J. Lazarus and Co.870-1874
    ৩) The Ramayana of Valmiki. Translated by Hariprasad Shastri. Vol I. Bala Kanda. Ayodhya Kanda. Shanti Sadan. London. 1952
    ৪) শ্রীমদ্‌বাল্মিকী-রামায়ণ। হিন্দি ভাষাণুবাদ সহিত। বালকাণ্ড-১। অনুবাদক চতুর্বেদী দ্বারকাপ্রসাদ শর্মা। প্রকাশক: রামনারায়ণ লাল পাবলিশার অওর বুক সেলর। এলাহাবাদ। ১৯২৭



    গ্রাফিক্স: স্মিতা দাশগুপ্ত
  • বিভাগ : খ্যাঁটন | ০৪ মার্চ ২০২১ | ৪৬৮ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • ar | 96.230.106.154 | ০৭ মার্চ ২০২১ ০৭:২৮103212
  • বরান্ন শব্দটা বিশ্বকোষে আছে তো! আমার পাড়ার লোককে এমন করে অবহেলা করবেন না!!
    "বরান্ন (ক্লী) : বরং অন্নং। ভর্জ্জিত ধান্য, দ্বিদলকৃত শ্রেষ্ঠান্ন। শমীধান উত্তমরূপে ভাজিয়া তাহার দাইল করিতে হয়, পরে উহা জলে উত্তমরূপে পাক করিয়া সুসিদ্ধ হইল তাহাকে বরান্ন কহে। (দ্রব্যগুণ সংগ্রহঃ চক্রপাণি দত্ত)।"                          [বিশ্বকোষ, সপ্তদশ ভাগ; ১৩১৩ বাঃ, নগেন্দ্রনাথ বসু, সঙ্কলিত ও প্রকাশিত]

    পুনশ্চঃ M. M-W. কিন্তু পরের (১৮৭২) সংস্করণে লিখেছেন, "সূপঃ cf. Old Germ, suf, sufan, saufjan; Old Norse, sup; Anglo-Sax, supan; (cf. = = confer, compare)"। ওল্ড নর্সে কিন্তু supa শব্দটা অছে, পান করা অর্থে।
     

  • aro | 42.110.159.94 | ০৭ মার্চ ২০২১ ১০:০৮103215
  • হ্যাঁ,বরান্ন বিশ্বকোষে আছে। 


    <a href="https://ibb.co/G3KBP4J"><img src=" alt="page546-1024px-djvu" border="0"></a>


    <a href="https://ibb.co/G3KBP4J"><img src=" alt="page546-1024px-djvu" border="0"></a>


    সংস্কৃতেও 'সুপ'  ছিল, জানানোর জন্য লেখককে ধন্যবাদ।


    কিন্তু প্রশ্ন থেকে গেল,  মূল প্রতিপাদ্য নিয়ে। ইংরেজি ‘স্যুপ’ সংস্কৃত ‘সুপ’ থেকে আসেনি, সেটি এই লেখায় কীরূপে প্রমাণিত হল ?    লেখক বলেছেন, 'বস্তুত কোনো প্রামাণ্য ইংরেজি অভিধানে বা ভাষাতত্ত্বের বইতে ইংরেজি Soup সংস্কৃত সুপ থেকে এসেছে এমনটা আমি অন্তত পাইনি।'  পুরো লেখায় এই নিয়ে দুইটি  বাক্য ,যে ইংরাজি অভিধানে পাওয়া যায়নি,তাই দিয়ে কীভাবে প্রমাণিত হয় ,যেখানে সংস্কৃত ইংরাজির আরেক প্রামাণ্য অভিধান লেখক নিজেই দিয়ে বলছেন,সেখানে দুটির মানে একই লেখা ?


    ইংরাজি থেকে সংস্কৃত বা ভাইসি ভার্সা হওয়ার সম্ভাবনা এতদ্বারা তো নাকচ করা যাচ্ছেনা। সংযোগ নাই থাকতে পারে,কিন্তু এই লেখা পড়ে সেই নিয়ে কোন সিদ্ধান্তে পৌঁছানো সম্ভব নয়। বরং এ আরো গবেষণা দাবি করে,সময়ক্রম,আরো রেফারেন্স ইত্যাদি মিলিয়ে।


    গৌণ কথা,  আনুষাঙ্গিক , ইপ্সা বানানগুলি পারলে সংশোধন করে দেবেন।

  • aro | 42.110.159.94 | ০৭ মার্চ ২০২১ ১০:৩৩103216
  • সুপ নিয়ে আগ্রহী হয়ে দেখতে গিয়ে একটি গ্রুপে এই আলোচনার সন্ধান পেলাম।  অনেক তথ্যসূত্র,অনেক খেই ধরানো আছে,এর থেকে আরো আলোচনা হতে পারে।  লেখায় এসব প্রসঙ্গ এলে,গবেষণা আরেকটু গভীরে গেলে ভাল লাগত , ভবিষ্যতে আসার আশায় রইলাম।


    Soup or सुप (google.com)

  • Nilanjan Hajra | 103.218.171.9 | ১১ মার্চ ২০২১ ১২:৩৯103491
  • @ ar / aro SOUP: আমি এ ক্ষেত্রে OXFORD-কেই প্রামাণ্য ধরেছি, তাই এই সিদ্ধান্ত।


    বরান্ন হদিশ দেওয়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা মনে চায় প্রতিক্রিয়া দিন