• মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • পাতা :
  • santosh banerjee | ২৬ জানুয়ারি ২০২১ ১৯:৪৪102069
  • ।।ইয়হে আজাদী ......ঝুটা হায় !!!অনেক দিন আগে শোনা স্লোগান ।..আজ আরো সত্যি হলো !!যারা এই স্লোগান কে "বিপথগামী "বলে চিহ্নিত করেছিলো , যারা ""য়ে আজাদী সাচ্চা হায় "ভেবে এর পর মেরুদণ্ড টাকে বন্ধক রেখে গণতন্ত্র চর্চা করতে শুরু করলো , বা এখনো করছে ।..তাদের বলি ।..ইতিহাস কথা বলে ।..ইতিহাস ধোকা দেয় না ।..এতো শুরু ।।.দাবানল ছড়ালো বলে।.. !!! 

  • Syed Masir | ২৬ জানুয়ারি ২০২১ ২২:০৭102071
  • একটা অদ্ভুত অন্ধকার সময়ের মধ্যে দিয়ে আমরা ভারতীয়রা চলছি। সমস্ত ভারতীয় আজ বোধহয় বাইনারি মেথডের ওপর বিশ্বাস করতে আরম্ভ করেছে। কৃষি বিলের বিরোধিতা করলে তুমি বেইমান আর বিরোধিতা না করলে তুমি ভারতীয়। আজ কৃষকদের এই মহা মিছিল লালকেল্লার উপর তাদের কিছু পতাকা টাঙানোর দেখে নতুন করে বাঁচতে ইচ্ছা করছে। বলতে ইচ্ছা করছে এস ভাঙ্গনের জয়গান গাই।

  • Amit Sengupta | ২৬ জানুয়ারি ২০২১ ২২:২৪102072
  • আপনাদের পাঞ্জাবের বন্ধুদের থেকে একটু ভাল করে খোঁজ নিন। তাদের কাছ থেকে পাচ্ছি ..... 


    This is most dangerous conspiracy and machination the Government has done , to sabotage the Farmers’ protests.


    A faction of farmers, who are not part of 'Sanyukt Kisan Morcha' of 40 Farmer Unions, announce yesterday evening that they won’t follow the Tractor Parade Route decided between the Government and Sanyukt Kisan Morcha . And that they will do their separate parade.


    Deep Sidhu appears yesterday night at a stage and gives  a provocative speech promoting separatism to sabotage farmer protests.


    Sanyukt Kisan Morcha had decided to start their parade at 11 am today.  But that faction of farmers (not part of Sanyukt Kisan Morcha) actually start their protests at 8 am today . And police puts DTC buses and other vehicles in their way- so that the ‘Public Property’ can be damaged conveniently and captured on Camera.


    Whole media is showing this faction of farmers- which is not part of 40 Farmer Unions, negotiating with Government.


    And this faction of farmers lead by Deep Sidhu, get access to Red Fort Building !!!  On Republic Day !!!!! Shouldnt the Home Minister resign? Can you imagine, this can happen without the involvement of Agencies?


    And then a religious flag is tied on a pole in Red Fort!!! To prove that all the farmers are Khalistan Supporters !!! A narrative Government is trying so hard to push from the very beginning.


    And then farmers of Sanyukt Kisan Morcha , of all 40 Kisan Unions,  start their Tractor Parade- On the route agreed between them and Government. A very peaceful Tractor Parade is going. I was watching Live on the Channel of Sanyukt Kisan Morcha. People of Delhi were showering flowers on them.


    Not a single National Channel Covered these leaders- not any one of these leaders who were present in all rounds of negotiation with Ministers. Instead they are asking again n again, where are the leaders now?


    And then internet is blocked so that the live from the Sanyukt Kisan Morcha’s channel is stopped !!! And farmers in the protests are cut off from the rest of country!!!


    Never thought Govt will stoop this low. They are more naïve than I imagined. They are in a real big trouble now !!! 


    God save our country !!!


    আরো পাচ্ছি 


    Yes and Deep Sidhu was in BJP and right hand of sunny Deol in the election . Kissan leaders Deep Sidhu nu staze ton door rakhdyan sun


    It's very sad and unfortunate . Esse cheej da dar se jo ho gai 

  • Ranjan Roy | ২৬ জানুয়ারি ২০২১ ২৩:১৫102077
  • কিছুটা ভিন্নমত পোষণ করছি।


    লালকেল্লায় তোলা পতাকাটি আদৌ কৃষক আন্দোলনের পতাকা নয় , ওটি শিখদের ধার্মিক পতাকা -- নিশান-এ-সাহিব!   হলুদ পৃষ্ঠভূমিতে গাঢ় নীল দিয়ে কৃপাণ ও বর্শার প্রতীক আঁকা পতাকাটি সমস্ত গুরুদ্বারায় ওড়ে। কোলকাতাতেও। কৃষকদের বড় অংশের পতাকা ও পাগড়ির রঙ সবুজ।


     আমার ব্যক্তিগত অভিমত এর ফলে আগামী ১লা ফেব্রুয়ারি বাজেট অধিবেশনে আন্দোলনরত কৃষকদের প্রস্তাবিত সংসদ  অভিযান  শুধু কঠিন নয় , প্রায় অসম্ভব হয়ে উঠবে।


    সংযুক্ত কিসান আন্দোলনের নেতৃবৃন্দ, এমনকি যোগেন্দ্র যাদব, এই ঘটনার সঙ্গে মূল আন্দোলনের সম্পর্ক অস্বীকার করেছেন। এঁরা এসবের মধ্যে আন্দোলনের ক্ষতি করার কিছু বাইরের তত্ত্বের হাত দেখছেন। আমার ধারণা এতে খালিস্তানি তত্ত্বের অনুপ্রবেশ গোছের সরকারি প্রচার জনমানসে বিশ্বাসনীয় হয়ে উঠবে। আমার আশঙ্কা ভুল প্রমাণিত হলে যারপরনাই খুশি হব।

  • ষড়যন্ত্র? | 2409:4065:e05:a8c7:25fc:383e:f021:797d | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ০০:০৮102079
  • From Om Thanvi - ex editor of Jansatta:


    This is most dangerous conspiracy and machination the Government has done , to sabotage the Farmers’ protests.


    A faction of farmers, who are not part of 'Sanyukt Kisan Morcha' of 40 Farmer Unions, announce yesterday evening that they won’t follow the Tractor Parade Route decided between the Government and Sanyukt Kisan Morcha . And that they will do their separate parade.


    Deep Sidhu appears yesterday night at a stage and gives  a provocative speech promoting separatism to sabotage farmer protests.


    Sanyukt Kisan Morcha had decided to start their parade at 11 am today.  But that faction of farmers (not part of Sanyukt Kisan Morcha) actually start their protests at 8 am today . And police puts DTC buses and other vehicles in their way- so that the ‘Public Property’ can be damaged conveniently and captured on Camera.


    Whole media is showing this faction of farmers- which is not part of 40 Farmer Unions, negotiating with Government.


    And this faction of farmers led by Deep Sidhu, get access to Red Fort Building ! On Republic Day !!!!! Shouldnt the Home Minister resign? Can you imagine, this can happen without the involvement of Agencies?


    And then a religious flag is tied on a pole in Red Fort. To prove that all the farmers are Khalistan Supporters !!! A narrative that the Government is trying so hard to push from the very beginning.


    And then farmers of Sanyukt Kisan Morcha , of all 40 Kisan Unions,  start their Tractor Parade- On the route agreed between them and Government. A very peaceful Tractor Parade is going. I was watching Live on the Channel of Sanyukt Kisan Morcha. People of Delhi were showering flowers on them.


    Not a single National Channel Covered these leaders- not any one of these leaders who were present in all rounds of negotiation with Ministers. Instead they are asking again n again, where are the leaders now?


    And then internet is blocked so that the live from the Sanyukt Kisan Morcha’s channel is stopped !!! And farmers in the protests are cut off from the rest of country!!!


    Never thought Govt will stoop this low. They are more naïve than I imagined. They are in a real big trouble now !!! 


    God save our country !!!

  • | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ০০:২১102081
  • ওয়েল রঞ্জনদা যোগেন্দ্র যাদভজে বিশেষ পাত্তা না দেয়াই ভাল।  বেশ শেডি কার্য্যকলাপ। আন্দোলন হলেই নিজেকে তার নেতা প্রমাণ করতে ব্যস্ত হয়ে যায়। এবারে আগেও আগেও কিসানদের মুখপাত্র হবার চেষ্টা করেছে এবং ওঁরা দেন নি। 


    আর বিশ্বের কোন গণ আন্দোলন একেবারে নিয়ম্মাফিক পথে হয়েছে বলে শুনি নি। 


    আর চাড্ডিরা মুগল সম্রাট শাহজাহানের বানানো লালকেল্লার স্যাঙটিটি নিয়ে বক্কা দিচ্ছে দেখেই কুল্কুলিয়ে হাসি পাচ্ছে।  এই পতাকাই গালওয়ানেও উড়ানো হয়েছিল তখন এরাই ধেইধেই করে নেচেছিল।

  • অম্লান বদন | 2001:67c:2608::1 | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ০৪:৩২102092
  • এটা কি সমস্ত ভারতের কৃষকদের মিছিল? নাকি পাঞ্জাব/হরিয়ানা প্রদেশের কৃষকদের মিছিল? এতদিন ধরে প্রতিবাদ হতে চলল তবু অন্য রাজ্যের কৃষকরা নেই কেন? তারা কি দিল্লি থেকে দূরে থাকেন বলে? তাহলে তারা তাদের কাছাকাছি সরকারি দপ্তরে গিয়ে প্রতিবাদ করছেন না কেন? কেন্দ্রীয় সরকারের কৃষি নীতির ফলে যদি রিলায়েন্স/আদানি-দের মতন বিগ কর্পোরেট  লাভবান হয় এবং মিডলম্যানদের আধিপত্য কমে যায়, তাহলে দেশ জুড়ে মিডলম্যানদের প্রতিবাদ হবার কথা - সেটাই বা হচ্ছে না কেন? অন্য রাজ্যগুলোতে কি রাজ্য সরকার কৃষিপণ্য বিক্রির ব্যাপারে চাষীকে গ্যারান্টি দেয় তাই তারা এই প্রতিবাদে সামিল হচ্ছে না? পশ্চিমবঙ্গের চাষীদের ওপর কি নতুন কৃষি বিল কোনো খারাপ প্রভাব ফেলে না?  

  • Ranjan Roy | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ০৭:৩৯102095
  • অমিতবাবু, 


    আমি গুরগাঁওয়ে বসে যা জেনেছি তা আপনার সংগে 100% মিলছে। আন্দোলনের নেতৃত্ব দুটো আলাদা মঞ্চে বিভক্ত।  বড়টি সংযুক্ত কিসান মোর্চা। ছোটটি নিজেদের বিপ্লবী জোশ দেখাতে গিয়ে সরকারের হাতে খেলেছে।


    এই প্রথম কিসান আন্দোলন ব্যাকফুটে। এখান থেকে সম্মানজনক সমাধানের মধ্য দিয়ে আন্দোলনকে বাঁচানো সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। 


    হয়ত এবার 18 মাস আইন স্থগিত রাখার ফর্মূলা মেনে নিতে হবে।


    আমি ভুল প্রমাণিত হলে সবচেয়ে খুশি হব।


    @অম্লান বদন 


    আপনার প্রশ্নগুলো খুব প্রাসঙ্গিক। একটু বেলায় লিখছি।

  • Du | 47.184.54.67 | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ০৮:১৪102096
  • কি এমন অন্যায় হল ঐখানে পতাকা উড়িয়ে ? আলাদা পোলেই তো উড়িয়েছে । এত্দিন ধরে যারা ignore করছিল এখন negative publicity করছে । তাতে কি ? 

  • dc | 2405:201:e010:504f:e149:70e5:a5f1:2014 | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ০৮:৪৬102097
  • এটা রেড হেরিং অপারেশান কিনা জানিনা, তবে কৃষকদের ইউনিউয়ন কিন্তু ট্রাক্টর মিছিল স্থগিত করছেন। কিছু একটা চাল দেওয়া হয়েছে বলেই মনে হচ্ছে। আমার মনে হয় লাল কেল্লা ইত্যাদি নিয়ে কবিতা না লিখে কৃষকরা নিজেরা কি বলছেন সেটা শোনা উচিত। ওনাদেরই ঠিক করতে দেওয়া উচিত ওরা কোন পথে আন্দোলন এগিয়ে নিয়ে যেতে চান। 


    https://www.news18.com/news/india/republic-day-violence-live-updates-red-fort-farmers-protest-singhu-pm-narendra-modi-tikri-delhi-police-metro-shut-3343898.html


    Farmer leaders, who have been spearheading the protest at Delhi’s border points to demand a repeal of the farm laws, dissociated themselves from the protests. The Samyukta Kisan Morcha, an umbrella body of 41 farmer unions, formally called off the tractor parade and appealed to farmers to return to their respective protest sites. The Morcha also alleged that some “antisocial elements” had infiltrated their otherwise peaceful movement. In a statement, it also condemned and regretted the "undesirable" and "unacceptable" events as the parade turned violent after several groups of farmers deviated from the pre-decided route for the march.

  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 49.37.3.134 | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ১১:২৯102099
  • অম্লান বদনের কোন প্রশ্ন গুলোর কোন যুক্তি ই নেই। বোকা বোকা কথা। এবং বিজেপি র সমর্থনে বলা। এবং সিপিএম সমর্থক এর জবানী তে বলার চেষ্টা করা হয়েছে, যাতে সিপিএম সমর্থক দের তৃণমূল এর প্রতি ক্রোধ কে বিজেপির কাজে লাগানো যায়। ডাইগ্রেসন টাই ইন্টেন্ট।  প্রতিটি ই রাজ্নৈতিক বক্তব্য। রঞ্জন দা নেকুপুসু টা কেন করছেন উনি বলতে পারবেন।  একটু কম করলে আন্দোলনের উপকার হয়। 


    ক - এটা কি সমস্ত ভারতের কৃষকদের মিছিল? ---- নাকি পাঞ্জাব/হরিয়ানা প্রদেশের কৃষকদের মিছিল? এতদিন ধরে প্রতিবাদ হতে চলল তবু অন্য রাজ্যের কৃষকরা নেই কেন? তারা কি দিল্লি থেকে দূরে থাকেন বলে? তাহলে তারা তাদের কাছাকাছি সরকারি দপ্তরে গিয়ে প্রতিবাদ করছেন না কেন? 


    -- এমন একটা ​নেকুপুসু ​​​​​​ভাব ​​​​​​​, ​​​​​​​যেন ​​​​​​​সারা ​​​​​​​ভারতের ​​​​​​​কৃষকেরা এই ​​​​​​​মিছিলটিতে দিল্লী তে শামিল হলে বিজেপি সরকার ভীষণ মাথা পেতে নিত।  পাঞ্জাব ​​​​​​​হরিয়ানা ​​​​​​​তে ​​​​​​​এম ​​​​​​​এস ​​​​​​​পি ​​​​​​​সিস্টেম ​​​​​​​চলে। ​​​​​​​দিল্লীর ​​​​​​​কাছে ​​​​​​​প্রতিবাদ ​​​​​​​হচ্ছে। ​​​​​​​উত্তর ​​​​​​​প্রদেশ, ​​​​​​​রাজস্থান ​​​​​​​এর ​​​​​​​কৃষক ​​​​​​​রাও ​​​​​​​আছে। ​​​​​​​মহা ​​​​​​​রাষ্ট্রে, ​​​​​​​কেরালা ​​​​​​​তে ​​​​​​​প্রতিবাদ ​​​​​​​হচ্ছে। ​​​​​​​পশ্চিম ​​​​​​​বঙ্গে ​​​​​​​তৃণমূল ​​​​​​​সমর্থনে ​​​​​​​প্রতিবাদ ​​​​​​​হয়েছে, ​​​​​​​সিপিএম ​​​​​​​সমর্থনে ​​​​​​​রাজ্য ​​​​​​​সরকারের ​​​​২০১৪ ​​​আইনের বিরুদ্ধে এবং ​​​​​​​এই কৃষি ​​​​​​​বিল ​​​​​​​গুলো ​​​​​​​নিয়ে ​​​​​​​প্রচুর ​​​​​​​মিছিল ​​​​​​​হচ্ছে। ​​​​​​​সিপিএম ​​​​​​​এর ​​​​​​​কৃষক ​​​​​​​সভা, ​​​​​​​এক ​​​​​​​মাসের ​​​​​​​উপর ধরে ​​​​​​​জাঠা ​​​​​​​করছে, ​​​​​​বাংলা ​মেডিয়াতে ​​​​​​​তার রিফ্লেকশন ​​​​​​​কম, ​​​​​​​কারণ ​​​​​​​রাজনৈতিক। গত ​​​​​​​এক ​​​​​​​মাসের ​​​​​​​গণশক্তি ​​​​​​​পড় যেতে পারে। অন্ধ্র ​​​​​​​, কর্ণাটকে সংঘবদ্ধ আন্দোলন হয়েছে। মহারাষ্ট্রে ছোটো চাষী রা আলাদা করে বিবৃতি দিয়ে মিছিল করেচ্চে কেন তারা এই আন্দোলনে থাকচ্চে। নাসিক থেকে বম্বেতে মিছিল হয়েছে, কেরালা / মহা থেকে লোক দিল্লী তেও এসেছে।  এই প্রশ্নটা আরো ই ন্যাকা ন্যাকা কারণ তামিল নাডু থেকে জখন কৃষক রা খালি গায়ে অবস্থান করেছিল বছর তিনেক আগে, তখনো তাদের কথা কেউ শোনে নি। বড় আন্দোলনের নেচার টাই হল, সবাই এক সঙ্গে থাকবে না, একেক সময় একেক জন একেক এলাকায় অর্গানাইজড হবে। কেউ কোন সেন্ট্রাল কম্যান্ড মেনে চলছেনা।


    কেন্দ্রীয় সরকারের কৃষি নীতির ফলে যদি রিলায়েন্স/আদানি-দের মতন বিগ কর্পোরেট  লাভবান হয় এবং মিডলম্যানদের আধিপত্য কমে যায়, তাহলে দেশ জুড়ে মিডলম্যানদের প্রতিবাদ হবার কথা - সেটাই বা হচ্ছে না কেন? অন্য রাজ্যগুলোতে কি রাজ্য সরকার কৃষিপণ্য বিক্রির ব্যাপারে চাষীকে গ্যারান্টি দেয় তাই তারা এই প্রতিবাদে সামিল হচ্ছে না? পশ্চিমবঙ্গের চাষীদের ওপর কি নতুন কৃষি বিল কোনো খারাপ প্রভাব ফেলে না? 


    -- পাঞ্জাবে, হরিয়ানা তে এই অন্দোলনে নানা ধরণের "আড়তি" / "আড়ত daar" রা আছে, খাপের লোকেরাও আছে। তারা কৃষপণ্যের ব্যাবসাও করে, চাষ ও করে। এম এস পি r দ্বারা লাভবান , তাই সেটা চলে যাক চায় না।   কর্পোরেট প্রোকিওরঅমেন্ট এও এরা আছে, ব্যাপকতর হলে ও থাকবে এবং পিডিএস দুর্বলতর হলেও এরা সারা দেশেই প্রোকোরমেন্টের কাজ করে যাবে। বিগ রিটেলে er যে মূল দাবী, "সরাসরি"  ফারম প্রোডিউসার এর কাছে তারা জিনিস কেনে, সেটা সম্পূর্ণ ভাওতা। 


    বায়ার্স মার্কেট ঈশ্বরের ন্যায় বিরাজমান, এবং এই জন্যেই যেখানে যে কৃষক পারছেন, নিজেদের ন্যুনতম দাম পাবার অধিকার রক্ষায় সচেষ্ট হচ্ছেন। 


    পশ্চিম বঙ্গে সিপিএম এবং কংগ্রেস এর মদতে যে সব প্রতিবাদ হচ্ছে, সেটা একাধারে ২০১৪ র রাজ্য আইন , আর এখন কার কৃষি আইন তিনটে আর বিদ্যুত আইনের বিরোধিতা করছে। 


    চালাকি কম করলে ভালো হয়। 


    পশ্চিমবঙ্গে প্রোকিওরমেন্ট ওয়ার্কফ্লো টা মোটের উপরে এরকম। প্রতি পদে সরকারী অনীহা এবং আর্বিট্রারিনেস প্রকাশিত , সাদ্ধারণ ভাবে সারা দেশের প্রোকইয়োর মেন্ট এ এই সমস্যা আছে, এক কেরালা তে সারা দেশের থেকে বেশি গ্রেন প্রাইস ঘোষণা করা হয় এবং দেওয়া হয়। 

  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 2402:3a80:a4d:e4e1:ecf1:df58:47c8:372d | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ১১:৩০102100

  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 49.37.3.134 | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ১১:৩৭102101
  • লাল এলিপ্স দিয়ে মার্ক করা যায়গা গুলি সরকারি আর্বিট্রারিনেস বোঝানোর জন্য দেওয়া হয়েছে। বাকি সমস্ত প্রক্রিয়াটি তেই উৎপাদক, এবং উৎঅপাদকের কাছে কাজ করা কৃষি শ্রমিক নানা ধরণের অসুবিধে তে রয়েছে। শ্রমের তো ছেড়েই দিন, উৎপাদনের মূল্য পাওয়াই কঠিন। বলা বাহুল্য সরকার নিয়ন্ত্রিত বা এপিএমসি নিয়ন্ত্রিত সরকারী প্রোকিয়োরমেন্ট যতটুকু নিশ্চয়তা দেয়, সেটা ছাড়তে ছোটো বড় কৃষক রাজি হবেন না, অতএব যে সব অতি চালাক এই বিভাজন আনছেন, তাঁদের অন্য রাজনৈতিক উদ্দেশ্য রয়েছে।

  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 49.37.3.134 | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ১১:৪৪102102
  • আর্বিট্রারিনেস এর আরো জায়গা আছে, এখন যেমন পশ্চিমবঙ্গে অনেক জায়গায়, ২০১৯ এ যারা নাম লিখিয়েছিলেন, তাঁদের ফসল কেনা চলছে, সুতোরাং সিজনাল প্রাইস ঘোষণা ও পারচেজের নীতি ও ইম্প্লিমেন্টেশন আসমান জমিন। এবং এই সমস্যা অন্যত্র নেই, এরকম কোন ডেটা আমার চোখে অন্তত পড়ে নি। এপি এম্সি যেখানে আছে, সেখানে আড়তদার ও প্রোডিউসার er কমন স্বার্থ হল, সিজনাল চাপ টা বজায় রাখা, তাই সেখানে কম সমস্যা থাকতেই পারে। ঘটা করে অ্যাপ মান্ডি র মারকেন্টাইল এফিসিয়েন্সি বাড়ানোর চেষ্টা বিজেপি ই প্রথম দিকে করেছে। এখন তার ২০১৯ e জেতার ওভারকন্ফিডেন্সের চোটে এই সব আইন আনা।

  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 49.37.3.134 | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ১১:৪৯102104
  • এমন একটা সরল গোলগাল ভাব সকলের যেন বড় আন্দোলনের মধ্যে নানা ধরণের দৃষ্টিভংগী থেকে সমবেত হওয়া লোকজন এই প্রথম ভারতে ও পৃথিবীতে দেখা গেল। 

  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 2402:3a80:a4d:e4e1:9b8c:cfae:e9b:afc1 | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ১৩:৫০102106
  • প্রতিভা দি, বিভিন্ন ভাটের উত্তর দিতে গিয়ে একটু লম্বা পোস্ট হয়ে গেছে আপনার মূল প্রবন্ধ টির থেকে দৃষ্টি সরানোর কোন উদ্দেশ্য ছিল না। জানানোর জন্য ফোন ও করেছিলাম। বাচালতা হয়ে থাকলে মাফ করবেন।

  • পশ্চিম বঙ্গের প্রতিবাদে র একটি উদাহরণ, বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 2402:3a80:a4d:e4e1:9b8c:cfae:e9b:afc1 | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ১৩:৫৯102107
  • Ranjan Roy | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ১৪:৪৮102108
  • হরিয়ানায় মানেসরে মারুতি কারখানার আন্দোলন মনে পড়ে? বেকায়দায় পরা মালিকপক্ষ একটা সুযোগ খুঁজছিল কীভাবে একটি জেনুইন মজবুত ট্রেড ইউনিয়ন আন্দো্লনকে  'ল এন্ড অর্ডার' সমস্যায় বদলে দিয়ে ইউনিয়ন ও আন্দোলনের কোমর ভেঙ্গে দেওয়া যায়।


     একটি উগ্র বা কিছু এজেন্ট প্রোভোকেচারকে উস্কে দিয়ে ফ্যাক্টরিতে তান্ডব চালানো হল। একজন মাঝারি মাপের অফিসার মারা গেলেন। ব্যস, পুলিশ দশগুণ হিংসা ছড়ালো। নেতাদের এবং বহু মজদুরদের গ্রেফতার ও কোয়ার্টার খালি করার ব্যবস্থা হল। অনেকে বাধ্য হল পালিয়ে যেতে। আজ অবস্থা আগের থেকে ভালো নয়, কিন্তু সেই ইউনিয়ন?


    এখানেও সেই বহু পরিচিত ছক।


    চল্লিশটি ইউনিয়নের সংযুক্ত পরিচালনায় সরকার পিছু হঠছিল। সারা ভারতে কাগজ, মিডিয়া আলোচনা করছিল -- ভারতে বর্তমান কৃষি সংকট ও আইনগুলো নিয়ে। সমস্ত রাজনৈতিক দল বাধ্য হয়েছিল কৃষি আইনের প্রশ্নে নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করতে। এতদিন কেউ বিশেষ মাথা ঘামায়নি।


    আন্দোলনের লক্ষ্য বা শ্লোগান আদৌ লালকেল্লায় পতাকা তোলা কেন, ওখানে যাওয়াও ছিলনা। কথা ছিল সরকারের ট্যাংক মিসাইল রকেটের প্যারালাল  কৃষকরা ট্র্যাক্টর প্যারেড করে শক্তি প্রদর্শন করবে। এবং আগামী ১ ফেব্রুয়ারি সংসদে বাজেট অধিবেশনের সময় ওখানে ধর্না দেবে। এটার রণনীতি স্পষ্ট । 


    তারপর কে বা কাহারা এটাকে ডাইভার্ট করল ক্রমশঃ প্রকাশ পাচ্ছে।


    দ্বিতীয়তঃ মোটাভাই সুযোগ পেয়ে গেছেন। ২০০ ওয়ারেন্ট জারি হয়েছে। আজকে যারা এনডিটিভি দেখতে চান, দেখে নেবেন কীভাবে লালকেল্লার ভেতরে লাইট এন্ড সাউন্ডের সরঞ্জাম , ক্যাশ কাউন্টার, বিভিন্ন যন্ত্রপাতি, গাড়ি একের পর এক ভাঙচুর হয়েছে। একজন কৃষক নিহত হয়েছেন, লাঠি খেয়ে বা গুলিতে নয়।


    প্রশ্ন হচ্ছে সাধারণ মানুষের পারসেপশনের। কোন লড়াই শুধু অগ্রণী সচেতন বাহিনীর জোরে জেতা যায়না। দরকার মাঝে যারা আছেন তাদের কোন শিবির নিজেদের দিকে টানতে পারছে তার উপর। এই মুহুর্তে হিন্দি বলয়ে  কালকের ঘটনায় মধ্যবিত্তরা উল্লসিত হবার মত কিছু দেখতে পারছেন না।


    এবার নেতারা ১ তারিখ সংসদ অভিযানে যেতে পারবেন? নাকি গ্রেফতারি এড়ানো ও জামিন যোগাড়ে ব্যস্ত হবেন? আর পুলিশ দিল্লিতে সংসদের ধারে কাছে যেতে পারমিশন দেবে? নেতাদের অথরিটি এবং কৃষকদের উপর নিয়ন্ত্রণ আজ প্রশ্নের মুখে।


    করোনা ও দাঙ্গার অজুহাতে শাহীনবাগের শিবির তুলতে বাধ্য করা হয়েছিল। এবার চাষিদের ৬০ দিনের অমন কষ্ট সহ্য করে দৃঢ় আন্দোলন কি কনফিউশনে শেষ হবে?


    আমি আর একটা মারুতি আন্দোলনের পরিণতির ভয় পাচ্ছি।

  • Prativa Sarker | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ১৬:১৫102110
  • না না বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত, এ-ই আলোচনা থেকে আমিও খুব লাভবান হচ্ছি। লেখাটা খুবই তাৎক্ষণিক, মন্তব্যগুলো ভেবেচিন্তে করা। আমার কাছে এগুলোর মূল্য অনেক বেশি। 


    ফোন করেছিলেন?  আমার ফোনগুলো অকেজো হয়ে পড়ে আছে। খুব দুঃখিত। 

  • Amit Sengupta | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ২০:৫০102111
  • @রঞ্জন রায় 


    যা আশঙ্কা করেছিলেন কৃষকদের ১লা ফেব্রুয়ারী সংসদ অভিযান পরিত্যক্ত। 

  • Ranjan Roy | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ২১:০৮102112
  • অমিতবাবু,


    এটা সবে শুরু।


    রাকেশ টিকেইত থেকে বেশ ক'জন নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা। লালকেল্লার ভেতরে ঢুকে তাণ্ডব, ভাঙচুরকে প্রায় পার্লামেন্ট অ্যাটাকের পর্যায় দেখিয়ে সবার বিরুদ্ধে এন এস  এ লাগানো হবে। কোন বিচার হবে না। চল্লিশ ইউনিয়নের সংহতি ভাঙতে শুরু করেছে। জনতার সমর্থন সেই বালাকোটের মত ঘুরছে।


     ঠান্ডা মাথায় খেলা ফাঁদে নেতারা পা দিলেন। আগের দিনই ইন্টেলিজেন্স খবর ছড়িয়েছিল যে বাইরের থেকে লোক এসে রিপাবলিক ডে'তে ভাঙচুর করবে। এখন এটাকেই সেই ষড়যন্ত্র হিসেবে দেখানো হবে।


    আসলে শেষ সময়ে পুলিশের হটাৎ অনুমতিটাই  ট্র্যাপ। কখনই ২৫০০০ ট্র্যাক্টর এবং সঙ্গের কয়েকলক্ষ লোককে কন্ট্রোল করা যায়না। উইথ আল গুড ইন্টেনশন নেতারা পুরনো ফাঁদে পা দিলেন। এখন সরকার আগের কন্সেশনটুকুও দেবেনা। বলবে আপনাদের নেতৃত্ব কৃষকেরা  মানেনা সেটা প্রমাণিত। ক্যান আপনাদের সঙ্গে এগ্রিমেন্ট করব?


    মনটা খারাপ হয়ে গেল।


    @অম্লানবদন,


     টই দেখুন। জবাব দিয়েছি।

  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 49.37.3.134 | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ২২:২৫102115
  • "প্রশ্ন হচ্ছে সাধারণ মানুষের পারসেপশনের। কোন লড়াই শুধু অগ্রণী সচেতন বাহিনীর জোরে জেতা যায়না। দরকার মাঝে যারা আছেন তাদের কোন শিবির নিজেদের দিকে টানতে পারছে তার উপর। এই মুহুর্তে হিন্দি বলয়ে  কালকের ঘটনায় মধ্যবিত্তরা উল্লসিত হবার মত কিছু দেখতে পারছেন না।"


    টেকো বুড়ো, এমন্কি যদি ধরে নি, আপনি বিশাল সার্ভে করে কথাগুলি বলছেন, আপনার সংগে আমার কোন ঝগড়া নেই। কিন্তু মধ্যবিত্ত কবে কৃষকের সংগে থেকেছে? রেয়ার। না থাকলে কি আসে যায়? দের কে যে গালাগাল খেতে হচ্ছে সেটা কতটা যুক্তি যুক্ত। প্রথমে আপনার ভুল তথ্য গুলি ধরি। 


    - মানেসর এর শ্রমিক দের ঘটনা টার সংগে এটার কোন মিল নেই। সেখানে একটা কারখানার ঘটনা, এখানে গোটা সেক্টর টা আফেকটেড। অমিল এতো বেশি যে এই কথাটা আপনার মাথায় এলো কি করে মাইরি সেটাই চিন্তার। ঘটনার আগে মানেসর শুধু না, শ্রমিক আন্দোলন নিয়ে, এমনকি শান্তিপূর্ণ শ্রমিক আন্দোলন নিয়ে হিন্দি বলয়ের মধ্যবিত্ত খুব গদগদ ছিলেন কোন এভিডেন্স আছে? লোকে মাইরি ওয়ার্কিং ক্লাস শব্দটায় আপত্তি থাকায়, কমন ম্যান শব্দটা তৈরী করে ফেললো ইংরেজি মেডিয়াতে, আর আপনি সমবেদনা খুঁজছেন। কৃষক শ্রমিক রা নিজেদের লড়াই নিজেরাই লড়ছে ও লড়বে। এবং যে স্থইর্য্য  পরিচয় তারা দিয়ে চলেছে বছরে পর বছর  সেটা না দিলেই বেশি ভালো হত। 


    -- "একজন কৃষক নিহত হয়েছেন, লাঠি খেয়ে বা গুলিতে নয়।" ট্রাকটর চালাছিল কেউ একটা ​​​​​​​জোরে , ​​​​​​​এটা ​​​​​​​তার অ্যাকসিডেন্ট। ​​​​​​​অকারণ ​​​​​​​স্পেকুলেট ​​​​​​​করবেন ​​​​​​​না। 


    -- রাজ্নৈতিক দলের পাল্টি খেতে সময় লাগে না। এটা কোন কথাই না, তারা এতদিনে অবস্থান স্পষ্ট করেছে বলে ভবিষ্যতে পাল্টি খাবে না। তৃণমূল রেগুলার পাল্টি খায় এই বিষয়ে। ২০১৪ র আইন পড়ে দেখুন। বড় আন্দোলনে এটা হবেই, বিভিন্ন এজেন্ডা নিয়ে লোকে আসবে। বিজেপি ই বলে এম এস পি r কোন ক্ষতি হবে না, পিডিএস এর কোন ক্ষতি হবে না, বলে এসেনশিয়াল কমোডিটি অ্যাক্ট e বদল আনে, মধ্যপ্রদেশে ইনফ্রাস্ট্রাকচারে বদল আনে। আপনি রাজ্যস্তরে এই আইন কাজে লাগার সুবিধে করে দেবার জন্য কি কি কাজ আগে থেকে হয়ে চলেছে, তার উপরে কতদূর ফ্যাক্ট চেকিং করেছেন? কৃষক দের ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিয়ন আর কিছু বামপন্থী ইউজুয়াল সাসপেক্ট ন্যাশনাল এজেন্ডায় থাকতে পেরেছে এটা কম আচিভমেন্ট কিসু না, কিস্যু করতে পারবে না কেস দিয়ে, এর কোমর ভাঙা পরিযায়ী শ্রমিক আর আর্বান মুসলমান না, যাদের কোন বড় বা ন্যাশনাল অরগানাইজেশন ই নেই।   এই এত খালস পতাকা নিয়ে উত্তেজনা, শাহীন বাগে তেরংগা ছাড়া কিছু ছিল না, তাতে কেস দেওয়া আটকেছে? 


    -- "এবার নেতারা ১ তারিখ সংসদ অভিযানে যেতে পারবেন? নাকি গ্রেফতারি এড়ানো ও জামিন যোগাড়ে ব্যস্ত হবেন? আর পুলিশ দিল্লিতে সংসদের ধারে কাছে যেতে পারমিশন দেবে? নেতাদের অথরিটি এবং কৃষকদের উপর নিয়ন্ত্রণ আজ প্রশ্নের মুখে।"


    আপনার ​​​​​​​ধারণা ​​​​​​​পার্লামেন্ট অভিযানের ​​​​​​​পারমিসন ​​​​​​​পাওয়া ​​​​​​​যেত ​​​​​​​খ্ব সহজে? জীবনে পেত না, এখন হয়তো বাঞ্চাল হয়ে যাবে। ম্যাক্স ​​​​​​​প্রতিনিধি ​​​​​​​পেত। ​​​​​​​৬০ ​​​​​​​দিন ​​​​​​​ধরে ​​​​​​​লোক ​​​​​​​গুলো ​​​​​​​বর্ডারে ​​​​​​​ঠান্ডায় ​​​​​​​রাত ​​​​​​​জেগে ​​​​​​​বসে। ​​​​​​​ভাটের ​​​​​​​কমিটি ​​​​​​​ছাড়া ​​​​​​​দেশের আইনি প্রতিষ্ঠান ​​​​​​​তাদের ​​​​​​​কি ​​​​​​​দিয়েছে? সরকার একটা অফার করেছে দেড় বছর রদ করার, সেটা কে সিনসিয়ার মনে না করার যথেষ্ট কারণ আছে, কারণ সেটা ২৬ এ জানুয়ারির অল্প কদিন আগে দেওয়া। 


    যৌথ নেতৃত্তএ আন্দোলন চলছে। বড় ​​​​​​​আন্দোলন, ​​​​​​​এসব ​​​​​​​হবে। ​​​​​​​হ্যাঁ ​​​​​​​সাধারণ ​​​​​​​কৃষক ​​​​​​​যার জমি র ​​​​​​​লড়াই e নেমেছেন, ​​​​​​​তাঁরা ​​​​​​​খানিকTaa ভয় পাবেন, ঐ ​​​​​​​জন্যেই ​​​​​​​কমিটি ​​​​​​​ডিফেনসিভ ​​​​​​​আপনার ​​​​​​​মত, ​​​​​​​কিন্তু ​​​​​​​ঘটনা ​​​​​​​হল, ​​​​​​​দুটি ​​​​​​​জিনিস হাস্যকরঃ 


    - জে হিন্দু ন্যাশনালিস্ট গণ কথায় কথায় শৌর্য্য দেখায়, শিখ শৌর্য্যের ইতিহাসকে , মধ্যযুগীয় হিন্দু শৌর্য্যের ইতিহাসের মুসলমান বিরোধী ভূমিকার এক্সটেনসন হিসেবে দেখে, তারা এত শান্তিকামী কবে হল? আপনি মনে করেন, পোলিটিকাল লিডারশিপ ট্রাকটর শহরে ঢুকতে না দিতে বললে মিছিলের রুটের পারমিসন পাওয়া যেত? পুলিশ বস দের জিগ্যাসা না করে কাজ করে না। 


    - যে পুলিশ এর আগে ব্যারিকেড করেছে, কাঁদানে গ্যাস ওয়াটারক্যানন সব ই ছুঁড়েছে, স্টেট কানেকটর রোড যেখানে পেরেছে বন্ধ করেছে, শহরে ঢুকতে দেবেনা বলে , লোক গুলো ৬০ দিন বসে না থাকলে, ঠান্ডায়, ওরা ২৬ জানুয়ারি রিঙ্গ রোড পারমিসন দিতো? তাছারা এমন অনেক এনক্লোজার আছে, যেখানে রিং রোড এ ঢুকতে গেলে শহরের ভেতর দিয়ে কিছুটা যেতে হবে, সেখানেও অনেক জায়গায় ব্যারিকেড ছিল।আসল ঘটনাটা হল, কতজন লোক মিছিলে আসবে, কারো কোন ধারণা ছিল না। 


    -- কার কার বিরুদ্ধে কি কি কেস হবে সে ব্যাপারে স্পেকুলেট করে কি করবেন, এটুকু জানুন, কোনো অবস্থাতেই এটা আটকানো যেত না, হয় দিল্লীতে নয় নিজের রাজ্যে নেতারা কেস খেত। পাঞ্জাবে র পুলিশ কো অপারেট না করলে হরিয়ানা আর দিল্লী পুলিশ কে দিয়ে দেওয়াত। পাঞ্জাবের পুলিশ আবার আকালি নেতাদের মুর্খের মত কেস দিতেও পারে। কিন্তু আন্দোলন এটাতে সম্পূর্ণ বন্ধ করা গেলে খুব ই আশ্চর্য্য হব। বড় নতুন প্লাটফর্ম , ভাঙাভাঙি হবে, নতুন প্লাটফর্ম ও হতে পারে। 


    -- দিল্লী শহরে ঢুকতে দেওয়া টা ট্র‌্যাপ ইত্যাদি রেট্রোস্পেকটিভলি বলাই যায়, কিন্তু আমি লিখে দিতে পারি, একটাও ঘটনা না ঘটলেও নেতাদের আইসোলেট করা, ইউনিয়নে r মধ্যে মতবির্ধ কে ওসকানো, কেস দেওয়া কিছুই আটকাতো না। 


    -- এমন ভাবে বলা হচ্ছে যেন কৃষক রা সত্যিকারের ভালোমাউষ গরীব হলে তাদের কথা খুব মেনে নেওয়া হত। 

  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 49.37.3.134 | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ২২:৩৪102116
  • আরেকটা কথা, কিসান ইউনিয়ন এর সংগে চুক্তি র প্রশ্ন নেই, কিছু ডকুমেন্ট আদান প্রদান হতে পারে, আন্দোলন, দাবী সংক্রান্ত, কারণ রিপ্রেজেন্টেশন টা খুব শান্তিপূর্ণ আন্দোলন থাকার সময়েও, বরাবরি সরকার কনটেস্ট করেছে। আন্দোলন থেকে আজ যারা উইথ্ড্র করেছে, তারা স্টেটমেন্ট দিতে পারবে, যে আইন রিপিল না হলেও, আইন ইম্প্লিএমেন্ট হলেও  তারা চুপ করে বসে থাকবে, যদি দিতে পারে, তাহলে তারাই সমস্যা, বাকিরা না। 


    চৌতালার নাতি রিসাইন ও করেছে। 

  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 49.37.3.134 | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ২২:৪৩102117
  • এত লোক মরে গেলো ঠান্ডায়, আত্মহত্যা করে, তাতে কথা নেই, ভুল ভাল এখন নেকুপনা। বেসিক ঘটনা হল, একটা বড় অংশের কৃষক চাইছেনা বর্ডারে বসে থাকতে। শহরের ভিতরে থাকতে চায়। তাতে মনে করছে মানুষ কে বেশি বলতে পারবে। যে শহরের লোকেরা ফুল দিয়ে এদের কে ডাকলো, শহরে ঢোকার সময়ে, তারা একদিনে অ্যান্টাগোনাইজ করে যাবে ব্যাপক অংশে? কতটা সার্ভে করেছেন আপনি? 


  • সৌর | 103.73.34.24 | ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ২৩:৩৫102121
  • আন্দোলন হয়েছে। তাতে ছোটখাটো সমস্যা আসবে, এসেছে। লাখ লাখ লোকের মিছিল যে সব জায়গায় সামলানো যাবে না সেটা আন্দলনের নেতারা ও জানতো। সমস্যা সেখানে না, সমস্যার হলো এখন নেতাদের আস্তে আস্তে পিছিয়ে যাওয়া। তারা নিশ্চই ভাবেনি যে সরকার অনায়াসে তাদের ট্রাক্টর নিয়ে মিছিল করে ফুটেজ খেতে দেবে। স্যাবতেজ করবে বা চেষ্টা করবে সেটা না জানা থাকলে ওই নেতৃত্বের কোনো মূল্য নেই। যারা এদ্দিন ধরে এতগুলো লোককে একত্র করে রাখতে পারল তারা এত বোকা ভাবার কোনো কারণ নেই। তারা জানতো এটা হবে, এতে পাত্তা না দিয়ে ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা তাঁদের ছকে রাখা আছে নিশ্চই। তবে এতে করে এই সরকারের দমননীতি বেশ ভালোভাবে স্পষ্ট হলো। দীপ সিন্ধু র উপরে কোনো fir না করা তাও তো নজরে পড়ছে। খালিস্তানী চিন্তার লোক স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের নাকের ডগায় বসে, তাদের ভোটপ্রার্থী র হয়ে কাজ করে গেছে, আর সরকার তাকে তল্লাই দিয়ে গেছে এটাও বহু মানুষের নজর এড়িয়ে যায় নি।

  • Vishal Verma | ২৮ জানুয়ারি ২০২১ ০১:১৫102126
  • আমি আপনার একজন নতুন পাঠক । আমায় উদ্বুদ্ধ করলেন আপনার লেখনীর মাধ্যমে।

  • অম্লান বদন | 2a0b:f4c2::1 | ২৮ জানুয়ারি ২০২১ ০১:৪৭102128
  • উত্তরগুলো -


    এটা কি সমস্ত ভারতের কৃষকদের মিছিল?
    -- না

    নাকি পাঞ্জাব/হরিয়ানা প্রদেশের কৃষকদের মিছিল?
    -- হ্যাঁ, প্রধানত পাঞ্জাব ও হরিয়ানার কৃষকরা

    এতদিন ধরে প্রতিবাদ হতে চলল তবু অন্য রাজ্যের কৃষকরা নেই কেন?
    -- তার কারণ এই বিলের প্রভাব সব রাজ্যের চাষীদের ওপর সমান নয়। যেমন, ২০১৯-২০২০ সালে পাঞ্জাবে ১১৮ লাখ টন চাল উৎপাদন হয়েছে ও তর মধ্যে প্রায় ১০৮ লাখ টন কিনে নিয়েছে এফসিআই (মিনিমাম সাপোর্ট দামে), ওই একই বছরে পশ্চিমবঙ্গে ১৫৬ লাখ টন চাল উৎপন্ন হয়েছে তার মধ্যে এফসিআই কিনেছে মাত্র ১৬ লাখ টন। সুতরাং, মিনিমাম সাপোর্ট প্রাইস উঠে গেলে, পাঞ্জাবের চাষীদের ওপর তার প্রভাব সাংঘাতিক, পশ্চিমবঙ্গের চাষীদের ওপর তত নয়। এফসিআই যে খাদ্যশস্য কেনে এবং মজুত করে তার প্রায় ৯৭% কেনে পাঁচটি রাজ্য থেকে। ঐ ৫ রাজ্যের মধ্যে আছে তেলেঙ্গনা, তেলেঙ্গনায় টন প্রতি চাল উৎপাদন খরচ পাঞ্জাবের থেকে বেশি, এফসিআই কে মিনিমাম প্রাইসে চাল বিক্রি করে চাষীদের লস হয়, তাই তেলেঙ্গনার চাষীরা এফসিআই এর ওপর নির্ভর করে না, একেবারে অবিক্রিত স্টক থাকলে তখন এফসিআই-কে বেচে, মিনিমাম প্রাইস তুলে দিলে তেলেঙ্গনার চাষীদের ওপর প্রভাব পাঞ্জাব বা হরিয়ানার থেকে কম।

    কেন্দ্রীয় সরকারের কৃষি নীতির ফলে যদি রিলায়েন্স/আদানি-দের মতন বিগ কর্পোরেট লাভবান হয় এবং মিডলম্যানদের আধিপত্য কমে যায়, তাহলে দেশ জুড়ে মিডলম্যানদের প্রতিবাদ হবার কথা - সেটাই বা হচ্ছে না কেন?
    -- মিডলম্যানেরা এখন দুটি কাজ করেন - খাদ্য শস্য মজুত ও বিপণন। বড় গ্রোসারি চেইন এলেও তাদেরকেও মিডলম্যানদের দিয়েই শস্য সংগ্রহ করতে হবে। একমাত্র সরকারের (এফসিআই) এই  পরিকাঠামো আছে রেল পরিবহন, এফসিআই গুদাম ও রেশনিং বিপণন ব্যবস্থা মিলিয়ে। অন্য কোনো পরিকাঠামো নেই, বানানো সহজ নয়। মিডলম্যানদের জীবিকা চলে যাওয়ার বাস্তব সম্ভাবনা কম। কেন্দ্রীয় সরকারের প্রচার মাধ্যম একটানা ভুল প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে যে নতুন বিলের ফলে চাষীরা সরাসরি বিগ কর্পকে বেচবে।

    অন্য রাজ্যগুলোতে কি রাজ্য সরকার কৃষিপণ্য বিক্রির ব্যাপারে চাষীকে গ্যারান্টি দেয় তাই তারা এই প্রতিবাদে সামিল হচ্ছে না?
    -- গভর্নমেন্ট সাবসিডি দুভাবে দেয় - শস্য উৎপাদনের সময়, আর উৎপাদনের পরে। খাদ্যশস্য তৈরি করতে যা যা উপাদান লাগে, যেমন জল, রাসায়নিক সার, শস্যদানা, বিদ্যুৎ... এগুলো ভর্তুকি দিয়ে কম দামে দেওয়া, আর, উৎপাদিত শস্য বিক্রি না হলে সেগুলি কিনে ফেলা। দুই ক্ষেত্রেই ভারতের বিভিন্ন রাজ্য সরকার ভর্তুকি দেন - কম বেশি আছে। যেমন, তেলেঙ্গনায় জলের খুব আকাল, ওখানকার রাজ্য সরকার বাঁধ বানিয়ে জল আটকে সেই জল প্রায় বিনামূল্যে চাষীদের দেয়

    কৃষি বিল নিয়ে গভীর সমস্যা এর পিছ্নে কি আছে তাই নিয়ে - সরকার কি পিডিএস (পাবলিক ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম), এফসিআই, রেশন সিস্টেম, ফার্মিং এ ভর্তুকি - এই পুরো সিস্টেমটা তুলে দিতে চাইছে ?

  • পাতা :
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খারাপ-ভাল মতামত দিন