• হরিদাস পাল  ব্লগ

  • আসল মিত্র-র কথা  

    Siddhartha Mukherjee লেখকের গ্রাহক হোন
    ব্লগ | ১৩ ডিসেম্বর ২০২০ | ১৭৮৬ বার পঠিত | ২ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • আসল মিত্র-র কথা


     -সিদ্ধার্থ মুখোপাধ্যায়


                    ★


    বাঙলা রসসাহিত্যের


    ভিয়েন সম্রাট শিবরাম তাঁর আত্মজীবনীর প্রথম খণ্ড ‘ঈশ্বর পৃথিবী ভালোবাসা’তে লিখেছেন, “পৃথিবীতে বড় বয়সের বন্ধু বলে কিছু হয় না। বন্ধু হয়, সেই ছোটবেলায় স্কুল কলেজে পড়বার সময়। তার পর হয় এনিমি বা নন-এনিমি। এই নন-এনিমি দেরই আমরা বন্ধু বলে ধরি।” তবে, প্রেমেন্দ্রের ব্যাপার আলাদা। শিবরাম প্রায়ই বলতেন, “প্রেমেনের মতো মিত্র হয় না।”


                  ★


    " প্রেমেন " ছিলেন তার অনেক দিনের মিতা। 


     সেই ১৯২১ সালে যখন তরুণ শিবরাম " বাড়ি থেকে পালিয়ে " র পান্ডুলিপি নিয়ে প্রকাশকের দুয়ারে দুয়ারে ঘুরছেন, এই প্রেমেন ই তাকে নিয়ে গিয়েছিলেন টাউনসেন্ড রোডে " রামধনু কার্যালয়ে" মনোরঞ্জন ভট্টাচার্য মশাইয়ের কাছে।  রামধনু পত্রিকাতেই ধারাবাহিক ভাবে প্রকাশিত হয় সেই লেখা।


                   ★


     শিবরাম চক্রবর্তী মশাই কিন্তু প্রথম দিকে ঘোরতর সিরিয়াস লেখক ছিলেন।এক্কেবারে রাজনৈতিক সাহিত্যকার।সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব ও কর্মযোগ বিশ্লেষন করে লেখা তার বই 


    " মস্কো বনাম পন্ডিচেরি "


     বই টিকে প্রামান্য সাহিত্য বলে অভিহিত করেছেন শ্রী রাহুল সংস্কৃত্যায়ন।


    শ্রমিক বিপ্লব ও ট্রেড ইউনিয়ন নিয়ে রচনা করেন দারুন এক নাটক...' যখন তারা কথা বলবে ' । (ঋত্বিক কুমার ঘটক এটি মঞ্চস্থ করেছিলেন) ।


    তরুন শিব্রামের এরপর মনোমালিন্য হয় শরৎ চন্দ্র চট্টোপাধ্যায় এবং শিশির কুমার ভাদুড়ির সঙ্গে 


    " ষোড়শী " নাটকের নাট্যরূপ এর ক্রেডিট নিয়ে। লেখকের সম্মান বা সম্মান দক্ষিণা কোনোটাই তরুন শিবরামের কপালে জোটেনি। এই ঘটনা ওনাকে বিশেষ ভাবে নাড়া দেয়। নার্ভাস ব্রেক ডাউনের দোরগোড়া থেকে তাকে ফিরিয়ে আনেন কয়েকজন শুভানুধ্যায়ী লেখক বন্ধু.... সতিকান্ত গুহ....সজনিকান্ত দাস... প্রেমেন্দ্র মিত্তির।


       এর সঙ্গে একটু গল্প আছে এবং সেটি না শুনিয়ে এই বাঙাল ছাড়বে না। 


              ★


     প্রাণের মিত্র শিবরাম এসেছেন প্রেমেনের ( ভিয়েন সম্রাট বলতেন -- পেমেন) কালিঘাটের  বাড়িতে।  শিবরাম তখন চলেছেন নিদারুণ মানসিক বিপর্যয়ের মধ্যে দিয়ে। শরৎচন্দ্র - শিশির ভাদুড়ী মশাইয়ের বিরুদ্ধে মোকদ্দমা করবেন ঠিক করেছেন..


    আর্থিক  অবস্থা তলানিতে...লেখায় মন নেই ! প্রেমেন - সতীকান্ত- অচিন্ত্যদের বলেন -- " কি লিখব ?  লেখার মতো কিছু পাই না তো ! 


    ' পাই ' না বলেই 


    'আনি ' কি ভাবে ? তাই 'টাকা' ও নাই !" 


    সেদিন বিকেলে চা আর প্রফুল্ল  ফুলুরি দিয়ে গেছেন শিবরামের 'বৌদিদি'। দুজনে গুছিয়ে বসেছেন।


     প্রেমেন বললেন -- " তুমি কাল -পরশু যেদিনই আসবে -- একটা গল্প লিখে আনবে। আনবেই।  চোখের সামনে যা পড়বে -- গরু- মোষ- ইঁট -পাথর -- তাই নিয়েই লিখবে।  


     লেখার  বিষয়ের অভাব নেই।


     পাবে, বুঝলে... পাবে ! " 


    মিত্রশ্রেষ্ঠকে অনুপ্রাণিত করতে সেই বিকেলে লিখেছিলেন এই অপূর্ব কবিতাটি। 


      চা আর ফুলুরির অনুপ্রেরণা শক্তি প্রমাণিত হয়েছিল আরো একবার। 


          ★


    পাবে  / প্রেমেন্দ্র মিত্র 


    "একদিন খুঁজে পাবে


     একে একে সব ক’জনাকে, 


     যে নামে থাকুক,


     ছত্রের মেলায় কিংবা


     পাকদণ্ডী চড়াই-এর পথে


     শুন্য-সিদ্ধি-ধ্যানস্থ তীর্থের।


     কেউ তারা চেনা নয়।


     তবু মনে হবে


     জীবনের বহু লেনদেন


     কবে থেকে হয়ে বুঝি আছে।


     কোন খাজাঞ্চির খাতা


     টুকে রেখে দিয়েছেও সব। 


     বারে বারে দেখা শুধু


     এ প্রাণের পরীক্ষা, উৎসব।


     একজন কোথায় মেলায়


     শুধু বুঝি রেজগি ভাঙায়। 


     পরিপূর্ণ হৃদয়ের দাম


     খুচরােয় খণ্ড খণ্ড করে


     তুলে দেয় হাতে।


     কিছু বা চলে না, কিছু


     ক্ষয়ে ক্ষয়ে হয় অপচয়।


     হৃদয় ভাঙাতে এসে


     নিয়ে যাবে সংশয় ও ভয়।


     বোঝা যে নেবেও তাকে


     হয়ত চটিতে কোনাে পাবে।


     পথ সে দেখাবে, 


     – নিশ্বাস – ফুরিয়ে – আসা


     বিরূপাক্ষ শিলারূঢ় পথে


     অরণ্য-নিষেধ তােলা।


     কখনাে বা ভুলে


     মেঘ-মায়া বিজড়িত


     অতর্কিত অতল খাড়াই।


     কে জানে কোথায় পাবে


     আর সে জনারে!


     এই সােজা সড়কেই যেতে পার ফেলে।


     একবার দুটি চোখ মেলে 


     কুতূহলে হয়ত চাবে সে। 


     তারপর ভিড় অগণন।


     চিনবে কি, চিনবে কি মন? "


              ★


    কয়েকদিন পরে... 


    কালিঘাটে আসার সময় রাস্তা পার হতে গিয়ে বিপত্তি... একটি বড়োসড়ো পাথরে হোঁচট লেগে শিবরামের এক্কেবারে রক্তারক্তি কান্ড।


    প্রেমেন্দ্র বাবু তো  ফার্স্ট এইড এর ব্যবস্থা করলেন কিন্তু শিবরামের মেজাজ ব্যাজার হয়ে রইল।এমন কি ফুলুরি তেও মন নেই যেন!


    নিজের মনে বিড়বিড় করে সেই পাথরটিকে গালমন্দ করেই চলেছেন।


    মিত্তির মশাই একসময় না পেরে বলেই উঠলেন..


    "আরে ওই পাথর টাকে বরং তুমি ছুঁড়ে মারো তো


    উল্টোদিকে..."


    একটু যেন দ্বিধা করলেন শিবরাম.. "কাকে ছুঁড়ে মারব?"


    "কেন আমাদের....!  পাঠক দের মারো।  লিখে ফেলো কিছু.... গল্পাঘাত করো দেখি ?"


    "পাথর নিয়ে গপ্পো লিখব ?"


    প্রেমেন্দ্র বাবুও ছাড়বার মিত্র নন.... "আরে এটা কালিঘাট ! পাথর দিয়ে কত কিছু করে খাচ্ছে লোকে... আর তুমি একটা গল্প লিখতে পারবে না?"


    শিবরাম বাবু চা - ফুলুরি শেষ করে মুক্তারাম বাবুর পথ ধরলেন। 


    কিছুদিন পরে প্রকাশিত হয় তার সেই অসাধারন রম্য সাহিত্য... " দেবতার জন্ম "।


    শিবরাম  যেন অমৃতের  সন্ধান পেলেন সেই রসের উৎসধারা "Pun" করে। রস.. উনি যাকে বলতেন Frank (ly) Ross.....


    বাঙ্গলা সাহিত্যের নতুন অধ্যায় শুরু হ'ল একটি গোলগাল কালোকোলো পাথরের জন্য। 


     শিবরাম আবার লেখা শুরু করলেন।


               ★


    সেই শিব্রাম চক্কোত্তির আজ জন্মদিন। 


    হর্ষবর্ধন- গোবর্ধন- ইতু- বিনি আর সেই রিনি কে নিয়ে যার সুখের ঘর সংসার আমার আপনার মনের মুক্তারামে।

  • বিভাগ : ব্লগ | ১৩ ডিসেম্বর ২০২০ | ১৭৮৬ বার পঠিত | ২ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন গ্রাহক পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • দীপঙ্কর চৌধুরী | 2402:3a80:aa6:1a27:f0cd:ad64:b7da:ffaf | ১৩ ডিসেম্বর ২০২০ ১৩:৫৪101076
  • শিব্রাম চকরবরতী মশায় বাঙ্গালাসাহিত্যের এক শ্রেষ্ঠ লেখক, এক অনন্য মানুষ, এক অপরিমেয় সাহিত্যগুরু, যাঁর প্রকৃত মূল্যায়ন ভবিষ্যৎ ভবিষ্যৎ প্রজন্ম এসে এসে করবে আরও আরও। তিনি কেবলমাত্র হাসির গল্পের লেখক হিসেবেই পরিচিতি পেলেন, এটা বেদনার।


    আর ওঁর সম্পর্কে যতটুকু জেনেছি পড়েছি তার সিংহভাগ একলব্যশিষ্য ডাঃ সিদ্ধার্থ মুখোপাধ্যায়ের অনবদ্য কলমে---এটা অবশ্যস্বীকার্য! 

  • Bhudeb Sengupta | ১৩ ডিসেম্বর ২০২০ ১৩:৫৬101077
  • মুক্তারামের শিবরাম, তক্তা রামের শিবরাম।কত শৈশবের সুন্দর দিন কাটিয়েছি হর্ষ বর্ধন গোবর্ধন বিনির গল্প পড়ে। আজ শিবরামের এই সুন্দর স্মৃতি চারণ পড়ে পুরানো সুখস্মৃতি গুলি সব  আবার মনে পড়ে গেল। ধন‍্যবাদ জানাই  লেখক কে

  • সুদেষ্ণা মৈত্র | 115.96.218.68 | ১৩ ডিসেম্বর ২০২০ ১৫:৩১101079
  • খুব ভালো লাগল

  • santosh banerjee | ১৩ ডিসেম্বর ২০২০ ২০:০৪101083
  • আমার সব চেয়ে প্রিয় লেখক , বাংলা ভাষা কে উনি যে ভাবে অস্ত্রোপচার করে সাহিত্য সৃষ্টি করেছেন  মনে তো  হয় না ধারে  কাছে কেউ আসতে পেরেছেন ( এ যাবৎ পর্যন্ত ) ! শব্দের কারিকুরি ..রস বোধ এবং তাকে সঠিক জায়গায় স্থাপিত করা।..শুধু হাস্য গল্পের লেখক হিসেবে নন সিরিয়াস রম্য রচনা কারী লেখক  ! শিবরাম চক্কোত্তির গপ্পো একবার  পড়তে শুরু করলে শেষ না করে ওঠে কার সাধ্যি ???প্রণাম ওনাকে !!সম্মান জানাই এই "দুয়ে দুয়ে দুধ " করা মানুষ টাকে !!!

  • Biswarup | 2402:3a80:aaf:50d6:0:65:e0be:6001 | ১৪ ডিসেম্বর ২০২০ ০৯:০২101093
  • এই সব তথ্য দেবার জন্য আপনাকে অনেক  ধন্যবাদ। প্লিজ কন্টিনিউ। 

  • GolGal | 113.21.77.20 | ১৯ ডিসেম্বর ২০২০ ২৩:১৬101183
  • শিব্রাম নাকি বাচ্চা ছেলেদের নুনু চটকে দিতেন ? কেউ জানেন এই নিয়ে কিছু? 

  • manimoy sengupta | ২৬ মার্চ ২০২১ ১৫:২৪104110
  • GolGal :  কেন?  পিএইচডি করবেন এ'বিষয়ে? 

  • dc | 122.174.104.150 | ২৬ মার্চ ২০২১ ১৫:৪১104111
  • শুধু শিব্রাম পড়ার জন্যই বাংলা ভাষা শিখে ফেলা যায়। 

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ক্যাবাত বা দুচ্ছাই মতামত দিন