• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • হে সখা, মম হৃদয়ে রহো

    কল্পর্ষি বন্দ্যোপাধ্যায়
    বিভাগ : গপ্পো | ১৫ জুন ২০২০ | ৭১৪ বার পঠিত
  • গ্রাম । কিন্তু তা বলে গন্ডগ্রাম নয় । গ্রামে স্কুল আছে । সরকারি স্বাস্থ্য কেন্দ্র আছে । তারে করে ঘরে ঘরে কেবল কোম্পানির পৌঁছে দেওয়া আনন্দ স্ফূর্তি আছে । তবে সবাইকার পাকা বাড়ি নেই । সবাইকার জন্য পাকা শৌচাগার নেই । কিন্তু উদ্যোগ আছে । দেয়াল লিখন আছে । ঘরেতে একটি পায়খানা বানান , মা -বোনেদের ইজ্জত বাঁচান এমন দেয়াল লিখনের পাশেই গোলাভরা ধান আছে, আবার আলুচাষির আত্মহত্যা -ও আছে । আর আছে একজন ডাক্তার বাবু । ৮৪ বছর তার বয়েস । চোখে ভালো দেখেন এমনটা স্পষ্ট করে বলা যাবে না । দেখতে ভালো করে পারেন না বলেই হয়তো চোখ বুঁজেই থাকেন । চোখ বুঁজেই রোগীর হৃদপিন্ডর ধুকপুকুনি শোনেন । প্রায় চোখ বন্ধ করেই রোগীর বিধান লিখে দেন । রোগীরা ভালো হয়ে যায় । ফি মাত্র তিরিশ টাকা । কেউ দেয় । কেউ দেয় না । যারা দেয় না ,তাদের কেউ কেউ একটা লাউ, বা একটু কলমি শাক বা পুকুরে ধরা ছোট মাছ দিয়ে যায় । ডাক্তার বাবু পাশে রেখে দেন । ডাক্তার বাবুর রোজগারে তেমন মতি গতি নেই । হলেও হয় আবার না হলেও। ডাক্তারবাবুর বই পড়ার শখ । এখন চোখের দৃষ্টি ক্রমে ক্ষীন হয়ে আসছে । তার মধ্যেও কষ্ট করে আবার পড়ার চেষ্টা করছেন - The Light Of The Modern world । কিন্তু দু -দন্ড কি শান্ত হয়ে বসার অবকাশ আছে । রোজ প্রায় একশ রোগী । ডাক্তার বাবুর রোগীর বাছ বিচার নেই । মানুষ ছাড়াও জীবনে চিকিৎসা করেছেন অন্যান্য জীব জন্তুর । যেমন গন্ডার । যেমন হনুমান ।
    - ও ডাক্তার বাবু গন্ডারের সামনে গেলেন কি করে । ভয় করলো না ?
    - আরে বাপু না । গন্ডারটা তখন চোরা শিকারীদের তৈরি গর্তে পরে বেকাবু । অভুক্ত । কিন্তু চামড়া যা মোটা তাতে সেলাইন দিতে আমাকে পায়ের কাছে ছেনী মেরে বর্ম ভাঙ্গতে হয়েছিল , না হলে সেলাইন দেব কি করে !
    হনুমানের চিকিৎসাতো নিজে চোখেই আমি দেখলাম । একটা নয়, চার চারটে । কোথা থেকে মানুষের বিষ মেশানো খাবার খেয়ে এসেছে তারা । এখন তাদের চিকিৎসা চলছে । রোগী দেখার ফাঁকে ফাঁকে সেলাইন দিচ্ছেন । Atropin ইনজেকশন দিচ্ছেন ।

    সেই কোন সকালে একটু মুড়ি খেয়ে রুগী দেখা শুরু করেছেন , তাই ভালো মানুষের বউ একটু লাল চা নামিয়ে রেখে যান। ভালোমানুষের বউ কথাটাই লিখলাম । নামতো জানি না । আমরা গেছি ওষুধ বেচতে । ডাক্তারবাবু বললেন এরাই আমার আপনজন । বউ সেই কবে মারা গেছে । সমবয়সী তো । তাই যাওয়ার সময় হয়েই গিয়েছিল । দুই মেয়ের কবেই বিয়ে দিয়েছি । দুই জামাই ডাক্তার । আমি আসলে অনিকেত ।
    এই ৮৪ বছরের মানুষটির শব্দ ব্যবহার লক্ষ্য করি । এসেছি ,একদিন চলে যাব বলে । কিন্তু তার আগে " The flag must fly high.... আমার কথা নয়। দুইপুরুষের ছবি বিশ্বাসের ডায়ালগ এটা । তোমাদের এই ছবি দেখার কথা নয় । এখন আর সে ভাবে পারিনা বুঝলে । ডায়াবিটিস । চোখে কম দেখি । হার্ট খারাপ । বলেছে স্টেন্ট লাগাতে হবে । মরে যাব একদিন । মরে যেতে আমার ভয় করে না । ডাক্তারি পড়েছি বলে মনে হয়, নিজের মতো করে সমাজকে কিছু ফিরিয়ে দিয়ে যাব । তাই এই সব ।

    জীবনের অ্যাচিভমেন্ট বলতে একবার নেহেরুকে খুব সামনে থেকে কাঁদতে দেখেছিলাম । মঞ্চে হেমন্ত তখন শুধু সা পা টিপে গাইছেন -

    হে সখা, মম হৃদয়ে রহো।
    সংসারে সব কাজে ধ্যানে জ্ঞানে হৃদয়ে রহো ॥
    নাথ, তুমি এসো ধীরে সুখ-দুখ-হাসি-নয়ননীরে,
    লহো আমার জীবন ঘিরে--
    সংসারে সব কাজে ধ্যানে জ্ঞানে হৃদয়ে রহো ॥

    একে একে রুগী দেখার ফাঁকে আরো আরো রবীন্দ্রনাথ স্মৃতিধার্য হয় তাঁর ।

    আমাদের অনেক কিছু জানা হয় না । যেমন ডাক্তারবাবুর আসল বাড়ি কোথায় ? কেন নিজের মেয়েদের কাছে থাকেন না তিনি? তবু না জিগ্যেস করে পারি না ...
    - আচ্ছা ,ডাক্তারবাবু ,এই যে মানুষের সেবায় আপনার একটা গোটা জীবন ,এর প্রেরণা কোথা থেকে পেলেন ?
    - বই বই ..যারা লিখেছিলেন সেই সব বই, আমি কিছুটা তাই ।.বই -ই তো আমার জীবন . ছাপার অক্ষরকে এত সত্যি মনে হয় .....

    এরপর চুপ করে যেতে হয় । ওষুধ বেচতে এসেছি আমরা । তবু এই সব বড় মানুষের সামনে বসলে নিজেকে অনেক স্নিগ্ধ লাগে । ঘর জুড়ে শুধু বই আর বই । পিছনে সারদা মা -র বিরাট ফটো । ১৮ অক্টোবর ২০১৪ সালে ইনস্টিটিউট অফ পালমোকেয়ার এন্ড রিসার্চ দিয়েছে হিউমানিটেরিয়ান সার্ভিস অ্যাওয়ার্ড । আরো অনেক অনেক ভালোবাসা পেয়েছেন জীবনে । পেয়েছেন মানপত্র । কিন্তু রয়ে গিয়েছে বেদনা বোধ । আর একটা একতারা রয়েছে । সারদা -মা এর ছবির সামনে । কোনো এক রুগীর উপহার ।

    আমাদের ক্ষিদে পায় । শহরে ফিরে যেতে হবে আমাদের । কিন্তু তার আগে এই আমরা যারা বাহ্যে ছাড়া জীবনে আর কিছু ত্যাগ করিনি তাদের সকলের হয়ে আমি তাকে মনে মনে প্রনাম করি । ইনি ডাক্তার শীতল ব্যানার্জি , ১৯৫১-র ব্যাচ । কলকাতা মেডিকেল কলেজ ।
  • বিভাগ : গপ্পো | ১৫ জুন ২০২০ | ৭১৪ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • aranya | 162.115.44.104 | ১৫ জুন ২০২০ ০৫:০২94338
  • বাঃ
  • বিপ্লব রহমান | 103.231.160.130 | ১৫ জুন ২০২০ ০৬:২২94340
  • ডাক্তার শীতল বাবুরা আছেন বলেই দুনিয়া এখনো টিকে আছে।  অশেষ প্রণাম 

    লেখায় তার একটি ছবি  দিলে সোনায় সোহাগা হতো       

  • | 2600:8801:1b80:1d07:b40c:4637:321e:eb9 | ১৫ জুন ২০২০ ০৭:৪৫94342
  • চমৎকার

  • শিবাংশু | 103.77.138.224 | ১৬ জুন ২০২০ ২১:১৭94369
  • বাহ, একজন 'মানুষে'র গল্প ...
  • একলহমা | 2600:1700:3690:6070:2dd6:fe2c:f06c:1184 | ১৮ জুন ২০২০ ১২:২৮94430
  • অপূর্ব 

  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত