• বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়।
    বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে।
  • আমেরিকার কৃষ্ণাঙ্গ সাহিত্যের তিন প্রজন্ম

    বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত
    বিভাগ : আলোচনা | ০২ জুন ২০২০ | ৬০৭ বার পঠিত
  • কৃষ্ণাঙ্গ বিক্ষোভে আমেরিকা উত্তাল। রাজনৈতিক ভাবে, আমেরিকার বর্ণবাদের বিরুদ্ধে কৃষ্ণাঙ্গ মানুষের সম্মান অর্জন প্রচেষ্টা আজ এক নতুন বিস্ফোরক বাঁকে। রাজনৈতিক আলোচনা চলবে। এই প্রবন্ধটি তিন প্রজন্মের কৃষ্ণাঙ্গ লেখকদের লেখা প্রসংগে। নবারুণ ভট্টাচার্য্য প্রতিষ্ঠিত 'ভাষাবন্ধন' পত্রিকায় ২০১৭ র উৎসব সংখ্যায় ইতোমধ্যে প্রকাশিত। লেখক নিজেই অনুমতি যোগাড় করেছেন পুনঃপ্রকাশের। গুরুচন্ডালির পাতায় নানা দেশের সাহিত্য আলোচনা নতুন না হলেও প্রতিবারই তা একাংশ পাঠকের বিরক্তি উৎপাদন করেছে এবং অকারণ এক মিথ্যা দেশপ্রেমের আড়ালকে অবলম্বন করে বিতর্ক হয়েছে। তাতে অবশ্য বাংলা ও অন্যান্য ভাষার সাহিত্যের কিছুই এসে যায় না, লেখক এবং অপেক্ষাকৃত অনুত্তেজিত পাঠকেরা তাঁদের কাজ চালিয়ে যাবেন, সম্মান অর্জনের লড়াইয়ের সর্বজনীনতা এই সব মূর্খ-কূপমন্ডুকতার উর্ধে। লেখাটি বা তার মান অবশ্যই আলোচিত সাহিত্য মহত্ত্বের প্রতিনিধি হওয়ার দাবী করে না।

    ~~~~


    রালফ এলিসন, জেম্স বাল্ডউইন এবং সিস্টার সোলজা -- আমেরিকার উপন্যাসে কৃষ্ণাঙ্গ স্বরের তিন প্রজন্ম

    স্বল্প পরিচিত সংস্কৃতির বইপত্তর আলোচনার সময়ে, অনুরাগী পাঠকেরা একটা আলোচনায় মজা পান, এই বইয়ে কী করে এসে পৌছনো গেল। যাত্রা এবং যতি দুটো জিনিস নিয়েই আগ্রহ অসম্ভব না।। ব্যক্তিগত ভাবে বলতে পারি, কৃষ্ণাঙ্গ লেখক লেখিকাদের সঙ্গে আমার পরিচয় মূলতঃ আফ্রিকার উপনিবেশ এবং বর্ণবৈষম্য বিরোধী রাজনীতির সঙ্গে পরিচয়-এর হাত ধরে। আর গত শতাব্দীর ৭০ বা ৮০ র দশকের পাঁচটা এঁচোড়ে পাকা বাঙালী পোলিটিকাল অ্যানিমাল এর মত আমিও চিনুয়া আচেবে পড়ার ঢের আগে, আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেস এবং ম্যান্ডেলা সম্পর্কে জানতে গিয়ে মান্ডেলা, ওয়াল্টার সিসুলু আর স্টিভ বিকো এবং রবার্ট মুগাবে র রাজনৈতিক লেখার সঙ্গে অল্প পরিচিত হই। তার পরে চিনুয়া আচেবে দুর্দান্ত লাগলেও, ওলে সোয়াইন্কা সুবিধে করতে পারি নি, নাটক গুলো দেখা হয় নি বলে। অপর দিকে আমার ইংল্যান্ড ফ্রান্স আমেরিকার কৃষ্ণাংগ লেখক লেখিকাদের একেবারেই পড়া হয় নি, একেবারে হালে শুরু করেছি মাত্র। অতএব এই লেখাটি সংক্ষিপ্ত রাখার চেষ্টা করব।

    ২০০১-২০০২ সাল নাগাদ, আমার হাতে প্রথমে আসে গ্যারি ইয়াং বলে এক সাংবাদিকের লেখা। অসম্ভব সংবেদনশীল সব লেখা বা বক্তৃতা। ইরাক যুদ্ধ প্রসঙ্গ, সরকারে নীতি, সমাজিক সমস্যা নিয়ে সাংবাদিকতার লেখা। ভদ্রলোক গার্ডিয়ান পত্রিকায় লিখতেন। এর কিছুদিন বাদে আমি জেমস বাল্ডউইন কে আবিষ্কার করি। জেমস বাল্ডউইন সম্পর্কে আমার আগ্রহ প্রচন্ড বেড়ে গেছিল এটা জানার পরে যে ইনি ফ্রান্সে বেশ কিছুটা সময় কাটাচ্ছেন। এবং প্রখ্যাত উপন্যাস, 'গিওভানি'জ রুম' পড়ার পরেই দুটো জিনিস মাথায় ঘুরতে থাকে, আগে পরের কিছু কৃষ্ণাঙ্গ লেখকদের অন্তত অল্প কিছু লেখা পড়তে হবে। তো সেই উদ্যোগের ফল ই আজকের আলোচ্য।

    আজকের আলোচনার জন্য বেছে নিয়েছি তিনজন লেখককে, রালফ এলিসন (১৯১৩ - ১৯৯৪), এঁর প্রখ্যাততম উপন্যাস 'ইনভিসিবল' কেই মোটামুটি ভিত্তি করা হবে, এর পরে বালডউইন (১৯২৪-১৯৮৭), এঁকে কোনভাবে কোন পংক্তিতে ফেলাই মুশকিল, অসামান্য প্রতিভাবান আমেরিকার সাহিত্যজগতের সর্বকালের অন্যতম শ্রেষ্ঠ নক্ষত্রের পুরো কাজ এবং নানা না-কাজ, এই আলোচনায় ধরা মুশকিল, তবু তাঁর সময়্টাকে আমরা ধরার চেষ্টা করব, কাজের অসম্ভব বৈচিত্র, একদিকে বর্ণবৈষম্যের প্রতিক্রিয়ায় উন্মাদের মত ক্রোধ, অন্য দিকে আশ্চর্য্য নরম সমকমী প্রেমের কাহিনীর রচয়িতা, আমেরিকার বৌদ্ধিক ঐতিহ্য সংক্রান্ত বিচিত্র বিষয় নিয়ে লেখা বিংশ শতকের অন্যতম শ্রেষ্ঠ প্রবন্ধ গুলিও ওঁরই রচনা। এবং শেষে, সিস্টার সোল্জা (১৯৬৪-) নামক একজন অসম্ভব জনপ্রিয় একেবারে হালের ৯০ এর দশকের লেখিকাকে নিয়ে সামান্য আলোকপাত করার চেষ্টা করবো। তিনজন তিনটে সময়ের প্রতিনিধি শুধু না, বিচিত্র প্রজ্ঞার অধিকারে, এবং বর্ণবৈষম্যের সর্বগ্রাসী বিচিত্র ইতিহাসের কি রকম ধরণের বাঁকগুলিতে এঁরা উপস্থিত হয়েছিলেন, সেটা একটু ধরার চেষ্টা করবো।

    ১৯৫২ য় প্রকাশিত হওয়ার পরেই অসম্ভব সাড়া ফেলে দেওয়া উপন্যাসটি সম্পর্কে, স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে রাফ এলিসন পরে প্যারিস রিভিউকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, ১৯৩২ নাগাদ উনি এলিয়ট এর ওয়েস্টল্যান্ড পড়েন। এবং ওঁর মনে হতে থাকে, আমেরিকার কৃষ্ণাঙ্গদের হাত থেকে এরকম লেখা বেরোচ্ছে না কেন। ব্যক্তি সম্ভাবনার বিকাশ যে বর্ণবৈষম্যের ঐ দমবন্ধ পরিস্থিতিতে অসম্ভব, সেইটেই যেন এই উপন্যাসের মূল দিক। দক্ষিণাঞ্চলের পৃথগিকৃত সামাজিক জীবন থেকে পালাচ্ছে একটি লেখাপড়ায় ভালো কিশোর বা সদ্য যুবক, এবং এসে পড়ছে হার্লেম অঞ্চলের বিক্ষুব্ধ মানুষের মধ্যে যেখানে বীভৎস জাতি দাঙ্গা হচ্ছে। দক্ষিনাঞ্চলের জীবনটা তার এমন, যেন সে অদৃশ্য, তার কৃষ্ণাঙ্গ অস্তিত্ত্বই যেন নাগরিক সমাজ নামক প্রতিষ্ঠান অস্বীকার করে।

    আমার কাছে যে পেঙ্গুইন মডার্ন ক্লাসিক্স সংস্করণটি রয়েছে, তাতে ভুমিকা লিখে দিয়েছেন জন কালাহান, আর স্বয়ং এলিসন এর লেখা ১৯৮১ র একটি সংস্করণের ভূমিকাটিও রয়েছে। ১৯৫২ তে কেন হই চই পড়ে গেছিল এলিসন এর এই উপন্যাস নিয়ে, বুঝতে গেলে অতি সংক্ষেপে যেটা বোঝা দরকার, সোভিয়েত ব্যবস্থাকে বার বার বর্জন করার কথা বলার পরেও, আমেরিকার যা অবস্থা তখন চলছিলো, তাতে বর্ণবাদের বীভৎস প্রভাব এবং রক্তক্ষয় ইত্যাদি বার বারই দেশবাসীর একটা বড় অংশের সামনেই আমেরিকার শাসনব্যবস্থা সম্পর্কে প্রশ্ন তুলে দিচ্ছিল। ১৯৫২ তে মনে রাখতে হবে, ৫০ বা ৬০ এর দশকের সম্মিলিত বা ব্যক্তিগত প্রতিবাদগুলি বা সে প্রেক্ষিতে নেওয়া আইনি ব্যবস্থা গুলি কিন্তু তখন ও জমাট বাঁধে নি। অতএব সম্মিলিত কৃষ্ণাঙ্গ অস্তিত্ত্ব বিপদের মুখে ছিল এবং ব্যক্তিগত কৃষ্ণাঙ্গ মানুষের পক্ষে মানুষ হিসেবে পরিপূর্ণ আত্মপ্রকাশ করাই অসম্ভব ছিল। দক্ষিন অঞ্চলের অত্যাচার থেকে উত্তর আমেরিকার বড় বড় শহরে চলে আসছিলেন কৃষ্ণাঙ্গ পরিবারগুলি, স্রেফ ভাগ্য সন্ধানে, আমেরিকার নতুন সবল শিল্প অর্থনীতি যদি তাঁদের কিছুটা জায়গা দেয়। এরকম একটা সময়ে রাল্ফ এলিসন প্রায় ৮ বছরের অক্লান্ত পরিশ্রমে এই উপন্যাসটি দাঁড় করাচ্ছেন, যেখানে এক সদ্য কৃষ্ণাঙ্গ যুবক একটা খোঁজে নেমেছে, প্রকৃত আমেরিকার নভেলের খোঁজে, প্রকৃত আমেরিকার ভাষার খোঁজে, আমেরিকার কয়েকশো বছরের ঐতিহাসিক বা নাম গোত্রহীন মানুষের সঙ্গে তার দেখা হচ্ছে, কিন্তু সে চলেছে।

    তার যাত্রা শুরু হচ্ছে, এক ভালো ছাত্রের কলেজ এবং নিজের শহর থেকে বেরিয়ে এসে নিজের ভাষার, সংস্কৃতির জন্য জায়গা খোঁজার সেই যাত্রায়, সে শেষে একজন পেশাদারী বক্তা হয়ে উঠছে, কিন্তু তার পরে আস্তে আস্তে সে চুপ করে গিয়ে লিখতে চাইছে। বুঝতে পারছে, আমেরিকার নিজস্ব জাতি বা রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের সমাহার হিসেবে আত্মপ্রকাশের যে প্রক্রিয়া তার থেকে এই ব্যক্তিগত যাত্রা খুব আলাদা হতে পারে না, অন্তত যদি আমেরিকা নিজেকে প্রকৃত ভাবে চিনতে আগ্রহী থাকে, কৃষ্ণাঙ্গ মানুষকে বাদ দিয়ে তার ভবিষ্যৎ গড়ার চেষ্টা থেকে সে বিরত থাকে। এলিসন কোথাও একটা ঊনবিংশ শতকীয় জাতির এবং জাতীয় রাষ্ট্রের বিবর্তনের সঙ্গে উপন্যাস জিনিসটার গড়ে ওঠাটাকে এক জায়্গায় করে দেখেছিলেন, মোবি ডিক এবং হাক ফিন তাঁর প্রিয় উপন্যাস ছিল। এবং খুব সহজেই বোঝা যায়, ১৯৫২ য় এসে আমেরিকার কালো দের নিজেদের বর্ণপরিচয় এবং নিজস্ব ভাষা প্রবর্তন ও নিজেদেরই করে নিতে হছিল।

    এলিসন নিজে ব্লুজ সংগীত কে বলেছিলেন, "an impulse to keep painful details and episodes of a brutal experience alive in one's aching consciousness, to finger its jagged grain, and to transcend it, not by the consolation of philosophy, but by squeezing from it a near tragic, near comic lyricism"। এলিসন-এর বন্ধু অ্যালবার্ট মারে, এই কালাহানকৃত ভূমিকাটিতেই খবর পাচ্ছি, এলিসনের লেখাকে বলেছিলেন "par excellence, the literary expression of blues, it was as if Ellison had taken an everyday twelve bar blues tune, (by a man from down South sitting in a manhole up north in New York singing and signifying about how he got there) and scored it for full orchestra"

    এর পরে আমরা জেমস বালডউইন প্রসঙ্গে আসবো। বাল্ডউইন প্রসঙ্গের সমস্যা অনেক। প্রধানত প্রাবন্ধিক, কিন্তু হাতে গোণা কয়েকটি যে উপন্যাস লিখেছেন, তাতেই অমরত্ত্বে স্থিত। আরো বড় সমস্যা রয়েছে, বালডউইন সমকামী পুরুষ ছিলেন এবং কৃষ্ণাঙ্গ ছিলেন, সেই অভিজ্ঞতার তীব্র প্রান্তিকতা তাঁর বিশ্লেষণকে, বিষয় নির্বাচনকে পরিচালিত করেছে, অথচ বৃহদর্থে রাজনৈতিক অবস্থানের বাইরেও, চেতনার সুক্ষ্মতম অনুরণনের ধ্বনিও তাঁর লেখাকে বিশিষ্ট করেছে। সত্যি বলছি, যখন প্রথম বার “গিওভানি'জ রুম” পড়ি, কিছু কিছু জায়গায় প্রথম কৈশোরের প্রথম ভালোলাগা কবিতা পাঠের অনুভূতিতে ফিরে গেছিলাম। আবার কোথাও, গভীর প্রেমে কঠিন আঘাত পাওয়ার পরে, ঘনিষ্ঠ মানুষের মৃত্যুর খবর এলে, যেরকম দিশেহারা লাগে, অন্ধকারকে অতল বলে মনে হয়, সে অনুভূতিও ফিরে এসেছিল। আশ্চর্য্য কাব্যিক মায়া রয়েছে তাঁর গদ্যে, অথচ যখন চান, তখন ক্রোধ, হতাশা কিম্বা স্থানভেদে রসময় হর্ষ প্রকাশে ন্যুনতম কুন্ঠা বোধ করেন না।

    সত্যি এঁর মাপের লেখককে কেন যে একটি প্রবন্ধে তাও আবার কয়েকটি অনুচ্ছেদে ধরার চেষ্টা করতে গেলাম নিজেই নিশ্চিত নই। শুধু মনে হয়েছিল, যে অসংখ্য এবং অসহ্য বৈপরীত্যগুলি রয়েছে তাঁর জীবনে এবং রচনায়, যে বিরাটত্ত্ব রয়েছে, তার একটা দূরবীনের এক ঝলকও কি প্রকাশ করতে পারবো না? চোখ ধাঁধিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা সত্যিই কম না।

    ‘গিওভানি'জ রুম’ গল্পটা এই যে, একজন অনামী আমেরিকান যুবক, এক ইতালিয়ান লোকের প্রেমে পড়ছে পঞ্চাশের দশকের প্যারিসে, ১৯৪৮ থেকে ১৯৫৭ সাল অব্দি প্যারিসে ছিলেন বালডউইন, এবার সেই প্রেমের চাপান উতোরই গল্পের মূল বিষয়, কিন্তু পড়তে গিয়ে প্রথম যেটা খটকা লাগবে, ভাষ্যকার কিন্তু সমকামী বর্ণ-অস্পষ্ট পুরুষ এবং প্রবাসী আমেরিকান, কারণ গল্পটার ভৌগোলিক/স্থানিক প্রেক্ষিত হল প্যারিস এবং ফ্রান্স। মনে হবে ভাষ্যকার আশ্চর্য্য একা, কিন্তু নিউ ইয়র্ক হার্লেমের কৈশোর তার পিছু ছাড়েনি, কৃষ্ণাঙ্গ হয়েও গ্রীনিচ ভিলেজ বা প্যারিসের লেখক শিল্পী বুদ্ধিজীবিদের বোহেমিয়ান জীবনে তিনি স্বচ্ছন্দ, অথচ কতটা সহজে একাত্মীকৃত তা পরিষ্কার না। কখনো মনে হবে, তাঁর বাইবেলময়, প্রচারক হিসেবে কাজ করার প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা, তাঁকে যতটা প্রভাবিত করেছে, তার থেকে কি অন্যান্য আমেরিকান মহত্তম লেখকদের তিনি যে অসম্ভব যত্ন সহকারে পাঠ করেছিলেন, তাঁদের দ্বারা কম প্রভাবিত হয়েছিলেন? হেনরি জেম্স সম্পর্কে তাঁর আলোচনা বিশ্ববরেণ্য সাহিত্য আলোচনার মধ্যে পড়ে। মাঝে মাঝে সত্যিই মনে হবে, যদি আমেরিকার ইতিহাসের ঐ বছরগুলির কৃষ্ণাঙ্গ না হতেন, সমকামী না হতেন, তাহলে কি শুধুই সুন্দরের পূজারী একজন লেখকেকে পেতাম আমরা? যদিও মনে সন্দেহ না রাখাই ভালো, যে তাহলেও একজন বিশ্ববরেণ্য শিল্পী কেই পেতাম আমরা।

    অনেক সমালোচকই মনে করেন, তাঁর আশ্চর্য্য অপমানবোধ, এবং নানা অন্তর্দ্বন্দ তাঁকে লেখক হিসেবে নিঃশেষ করে দিয়েছিল। আমাদের দেশেই বা কত সম্ভাবনাময় আদিবাসী, মুসলমান, কাশ্মীরি, মনিপুরী, দলিত শিল্পী লেখকের প্রতিভা আমাদেরই রাষ্ট্র এবং সমাজের জন্য বিকশিত হতে পারছে না কে যানে। কিন্তু, অনেক লেখার মধ্যে অনেক অসম্পূর্ণতা থাকা সত্ত্বেও, যতদিন পৃথিবীতে ভাষা সাহিত্য ধর্ম থাকবে ততদিন বিদ্বেষের ইতিহাসে নিমজ্জিত আমেরিকার ইতিহাস সম্পর্কে শিক্ষা নিতে গেলে আমাদের জেমস বালডউইন কে পড়তেই হবে।

    অবশেষে আসি সিস্টার সোলজা-এর রচনা প্রসঙ্গে। ভাষাবন্ধনের পাঠকরা আমায় মার্জনা করবেন, কৃষ্ণাঙ্গদের সাহিত্যে ব্যক্তিগত পাঠক হিসেবে আমার একেবারেই প্রাথমিক শিক্ষানবিশি চলছে, সিস্টার সোল্জার একটিই উপন্যাস আমি পড়ে উঠেছি, তাও ট্রিলজির একটা প্রথম ভাগ। কিন্তু এই আলোচনা যদি বইগুলি সম্পর্কে হাতে গোণা কয়েকজনকেও গবেষণা করায়, তবে কিঞ্চিত উদ্দেশ্য সাধন হয়। সিস্টার সোলজার লেখার সঙ্গে আমার পরিচয় ঘটে একটু বিচিত্র ভাবে। আমায় মাঝে মাঝে ভারত থেকে আমেরিকায় যে শহরে কাজে আসতে হয়, সেখানে একদিন বাসে, অন্তত চেহারায় অতি দরিদ্র এক মহিলার হাতে এই বইটা আমি দেখি, এক ক্লান্ত বিকেলে। উঁকি মেরে লেখিকার নাম দেখে ভাবি, ঠিক আছে, এঁর নাম কখনো শুনিনি, পড়ে দেখি, এবং তার পরে তথ্যের একটা বিস্ফোরণে যোগাড় করে ফেলি বিখ্যাততম কাজ গুলির একটা। "মিডনাইট, আ গ্যাংস্টার নভেল"।

    সিস্টার সোলজা জন্মেছিলেন লিজা উইলিয়ামসন নাম নিয়ে, একেবারে ৯০ এর দশকের অল্পবয়সী লেখক, একাধারে রাপার, রাজনৈতিক সংগঠক, চিত্র প্রযোজক ইত্যাদি। ক্যালিফোর্নিয়ায় রডনি কিং কান্ডে ইনি হঠাৎই একটা ক্রুদ্ধ মন্তব্য করে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন। রডনি কিং এর ঘটনা আপনাদের স্মরণে আছে কিনা জানি না, সারা পৃথিবীর কাগজে হই চই হয়েছিল, ১৯৯২ নাগাদ, একটা ফুটেজ প্রকাশিত হয়ে পড়ে, তাতে দেখা যায়, ৪ জন শ্বেতাংগ পুলিশ অফিসার এক কৃষ্ণাঙ্গ রডনি কিং কে প্রবল প্রহার করছে, এই ফুটেজ প্রচার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দাবানলের মত রায়ট হয়ে লস এঞ্জেলেস শহরে এবং অন্যত্রও কিছুটা ছাড়িয়ে পড়ে। কালো মানুষদের উপরে পুলিশের প্রাতিষ্ঠানিক অত্যাচার দীর্ঘ দিন বার বার প্রমাণিত হয়েছে, এবং বিভিন্ন শহর আর স্টেট গুলির পুলিশ বিভাগের প্রধানরা, নিরাপত্তা আর বাহিনীর মনোবলের স্বার্থে তাকে অবজ্ঞা করেছেন, এ মানে দীর্ঘদিন ধরে চলছে, আজকের ব্ল্যাক লাইভ্স ম্যাটার আন্দোলন প্রমাণ করে এই অনাচার এখনো শেষ হয় নি। তো ১৯৯২ তে, সিস্টার সোলজা মন্তব্য করে বসেন, যার সারবত্তা হল, প্রতি সপ্তাহেই তো কালোরা কালোদের খুন করে নানা অপরাধে, এক সপ্তাহ দেখি কালোরা একটু সাদাদের শিক্ষা দিক। এর পরে বিল ক্লিন্টন, তখন সম্ভবত তিনি নির্বাচনে ডেমোক্রাট পার্টির প্রার্থী, রামধনু কোয়ালিশন-এর উদ্যোক্তা জেসি জ্যাকসনের সভায় তীব্র প্রতিবাদ করে বলেন, এই ধরণের বক্তব্য গ্রহণযোগ্য না, রাজনৈতিক জনপ্রিয়তার বাধ্যবাধকতাতেই বলেন, আমরা এই ধরণের মানুষের সমর্থন চাই না ইত্যাদি। (উক্তি নয়)। তার পরে প্রচুর হই হই হয়, সিস্টার সোলজা বলেন যে তাঁকে প্রেক্ষিত বাদ দিয়ে উদ্ধৃত করা হয়েছে ইত্যাদি। তো তথ্য বিস্ফোরণএর পরে স্বাভাবিক ভাবেই, বইটি না পড়ে আর উপায় ছিল না।

    সিভিল রাইট্স আন্দোলন আলোচনার প্রসঙ্গেই শুধু না, ঐতিহাসিক ভাবে আমেরিকার কৃষ্ণাঙ্গ অভিজ্ঞতার যে পর্যায়গুলো করা হয়, তাতে স্থিতধি তন্ন্বিষ্ঠ উচ্চারণ, একাকী প্রার্থনা অথবা প্রতিজ্ঞা, অথবা কখনো জীবন মৃত্যুর বিপদ উপেক্ষা করে মুক্তির আশায় উন্মত্ত দৌড়, প্রবল ধংসের ক্রোধ, প্রতিশোধস্পৃহা, এক ধরণের নিজস্ব উচ্ছাস, তাতে কে শামিল হল খেয়াল না রাখা - এরকম নানা পর্যায়ে অনেকে দেখেন।। একদিকে যেমন জ্যাজ ব্লুজ তৈরী হচ্ছে সঙ্গীতে, পাশাপাশি চার্চের ধর্মীয় বৃন্দসঙ্গীত যখন রাজনৈতিক ভাবে উই শ্যাল ওভারকাম হয়ে উঠছে, এবং আস্তে আস্তে স্বাধীনতার আত্মসম্মানের দরজা খুলছে একটা স্তরে, প্রতিভার কিছু স্বীকৃতি আসছে, আবার ভোগবাদের নেশা দ্রব্যের তাড়নায় আত্মবিস্মৃত গানও হচ্ছে। কালোদেরই। এক ধরণের আলোচনা পদ্ধতিতে, কৃষ্ণাঙ্গ অভিজ্ঞতার বিবর্তনের পাশাপাশি রেখে কৃষ্ণাঙ্গ সংগীতের ইতিহাস পর্যালোচনা করা হয়। এই হিসেবে দেখলে রাপ বা হিপ হপ সঙ্গীত সেই সময়েই, সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠছে, যখন কয়েকটা ঘটনা ঘটছে, কৃষ্ণাঙ্গ জ্যাজ, ব্লুজ, গসপেল, ক্যালিপসো বা রেগে রাজনৈতিক সঙ্গীতের দিকপালেরা খানিকটা রেকর্ড কোম্পানীর ব্যবসায়ে জড়িয়ে যা্ছেন, সেটা কোথাও সমান্তরাল কোথাও মূল ধারায় অন্তর্ভুক্ত অর্থনীতি। কিন্তু ঘেটোর অপরাধের জগত, আইনের আর বেআইনির গন্ডীর এপারে ওপারে অনায়াস যাতায়াতের যে জীবন, তার প্রতিফলন গানে আসতে শুরু করছে। এই গানের তীব্র সারকাজম, তীব্র অথচ রসিক হতাশা, দেওয়ালের গ্রাফিতির মত অদৃশ্য হাতে রাতারাতি আমেরিকার শহর গুলির কালোদের পাড়ায় পাড়ায় ছড়িয়ে পড়ছে। নানা ধরণের ড্রাম মেশিন সস্তাতেও পাওয়া যাচ্ছে এই সময়ে, এবং টার্নটেবিল রেকর্ড আঙুল দিয়ে ঘষে ঘষে বা তার গতি টাকে হাত দিয়ে কমিয়ে বাড়িয়ে, এক ধরণের ঈষৎ কর্কষ কিন্তু তীব্র ছন্দের আকর্ষণ সম্পন্ন আবহ তৈরী হচ্ছে। প্রথম রেকর্ড করছেন 'সুগারহিল গ্যাং' নামে একটা দল, মূলত এরা নিউ ইয়র্ক এর।

    আইনী বা প্রাতিষ্ঠানিক স্বীকৃতি আর সামাজিক স্বীকৃতির মাঝে দোলাচালের জীবন, আর অন্যদিকে শিক্ষার অভাব, অসংখ্য সামাজিক বিষয়, দারিদ্র্য অথবা হঠাৎ প্রতিযোগিতা করে ধনী হওয়ার আকাঙ্খা বা কখনো কখনো তার একটা সাফল্য, অথবা ক্রোধ বা বিশ্বাস বা শুধুই কমিউনিটি চর্চায় ব্যাপৃত জীবন, যেখানে প্রতিদিন প্রতিনিয়ত সম্মান অর্জন করাটাই যেখানে এখনো অনেকের পিছু ছাড়ে না, সেখানে এরকম সঙ্গীত তৈরী হওয়া আশ্চর্য্য না। আবার এরই মধ্যে মূল ধারায় সম্মান সূচক প্রত্যাবর্তনের গানও রয়েছে। একই আঙ্গিকে, যাঁরা একেবারে হালের ব্ল্যাক-আইড-পিজ শুনেছেন, তাঁরা বুঝতে পারবেন।

    তো এই ধরণের গানের, আবৃত্তির, সঙ্গীতের যে জগতটা, সেটা আনতে চাইছেন উপন্যাসে সিস্টার সোলজা, ভাষায়, সিচুয়েশনের প্রয়োগে। কিন্তু একটা জায়গায় আমার অসম্ভব খটকা লাগছে, অজ্ঞানতা তার মূল কারণ হতে পারে। আমি বুঝতে পারছি না, কেন, কী কারণে, আমেরিকান কৃষ্ণাঙ্গ না, এক আফ্রিকার প্রায় রাজপুত্রকে যেন এনে ফেলছেন নিউ ইয়র্ক এর রাস্তায় গলিতে, তার প্রায় অশরীরি চলাফেরা নায়কোচিত প্রায় অপরাধের জগতের একটা জীবন রচনা করছেন। নায়ক চরিত্রে।

    আমেরিকা, জামাইকা, ব্রিটেন সর্বত্র কৃষ্ণাঙ্গদের সাংস্কৃতিক উচ্চারণের একটা ঐতিহাসিক পর্যায় ছিল আফ্রিকার উৎস খোঁজা। কলোনির, ক্রীতদাস প্রথার ইতিহাসকে অতিক্রম করার উচ্চাশা, শুধু মাত্র নিজেদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের খোঁজে। কবি ল্যাংস্টন হিউজ সমকালীন আধুনিকতাকে প্রতীকি ভাবে বর্জন করে আফ্রিকায় ফিরে যেতে চেয়েছিলেন, শোনা যায় নিজের সমস্ত বই আটালান্টিকে ফেলে দিয়েছিলেন। মার্লে বা তাঁর সমসাময়িকরা একাধিকবার আফ্রিকান মাতৃভূমির একটা ডাকের কথা বলেছেন, অনুভব করেছেন। কিন্তু এই সাংস্কৃতিক খোঁজ জীবনযাপনে, আর রাজনৈতিক সংগ্রামে বেশি দূর কাজে লাগানো যায়নি বলেই আবার ভূমিপুত্র হিসেবেই সমনাগরিকত্ত্বের দাবীকেই প্রধান করেছেন। যদি একেবারে সমসাময়িক রাপ গায়ক লেমার-এর সম্প্রতি রোলিং স্টোন পত্রিকায় বেরোনো সাক্ষাৎকারটি পড়েন, বোঝা যাবে, নিজেদের মাটিতেই রয়েছেন, অন্য কোনখানে মানস ভ্রমণের প্রয়োজন অনুভব করছেন না, এবং সর্বান্তকরণে সমর্থন করছেন, সম্মান অর্জনের লড়াই। তো এই প্রেক্ষিতে আমার বার বার মনে হছিল, এই আশচর্য্য প্রাণবন্ত উপন্যাসে, এই পিছুটান কেন, তাহলে কি সঙ্গীত যেটা পারছে, উপন্যাস সেটায় ব্যর্থ হচ্ছে? রাল্ফ এলিসনের তৈরী করা আমেরিকান নভেলে কৃষ্ণাঙ্গ স্বর এনে তাকে প্রকৃত আমেরিকান করে তোলার স্বপ্নটা স্বপ্নই থেকে যাচ্ছে? বিশুদ্ধতার খোঁজ কেন করতে হচ্ছে সিস্টার সোলজাকে, এই অসামান্য উপন্যাসটি পড়ার পরেও তার উত্তর আমি এখনো পাইনি, আরো পড়া ছাড়া গতি নেই।

  • বিভাগ : আলোচনা | ০২ জুন ২০২০ | ৬০৭ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • ar | 71.174.88.163 | ০৩ জুন ২০২০ ০৫:২৯93909
  • অসম্ভব ভাল হয়েছে!!!!!

    কিন্তু বোঝা গেল না জেমস বল্ডউইন (আগস্ট ২, ১৯২৪ ডিসেম্বর ১, ১৯৮৭) আর রাল্ফ এলিসন (মার্চ ১, ১৯১৪ এপ্রিল ১৬, ১৯৯৪) কেন দুই ভিন্ন প্রজন্মের লেখক। ইন্ডিভিসিবল ম্যান (৫২'-৫৩') আর নোটস ওফ অ্যা নেটিভ সন (৫৪'-৫৫') তো সমসাময়িক।
    sistah souljah (!!) মোমেন্টস মনে হয় অনেকদিন হল সাদারা হাইজ্যাক করে নিয়েছেন।

    এরপর লেখকের কাছে আরো বড়সড় কিছু লেখার দাবী জানাচ্ছি।

    ১। ইউরোপের শ্বেতাঙ্গ সাহিত্যের তিন দশক বা শতাব্দী। তিনভাগেঃ- শ্বেতাঙ্গ ইংরাজী, শ্বেতাঙ্গ ফরাসি, বেশ বড় করে, আর শ্বেতাঙ্গ স্পেনীয় সাহিত্য।

    কৃষ্ণাঙ্গ সাহিত্যের মতন শ্বেতাঙ্গ সাহিত্যেরও উৎস সন্ধান করতে চাই।ঃ))
  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 49.37.15.64 | ০৩ জুন ২০২০ ০৮:৩৬93912
  • সঙ্গত প্রশ্ন।
    রালফ এলিসন এর লেখা এবং বালডউইন এর লেখার ধরণ একেবারেই আলাদা, এলিসন যেখানে 'আমেরিকান নভেল' বস্তুটার খোঁজ করছেন, এবং একটা কৃষ্ঞাংগ দৃষ্টিভংগী থেকে , দক্ষিন থেকে আসা মাইগ্রেশন এর মত , চেনা এবং চলা র চরইবতি টাই তাঁর পর্যবেক্ষনের পাথেয়, দইতীয় বিশঅযুদ্ধ পূর্ববর্তী সেন্সিবিলিটি ই বেশি পেয়েছি, আমার পড়ার মধ্যে, বালডউইন সেখানে একেবারেই শহুরে, এবং সত্যি কথা বলতে কি অসম্ভব স্টাইলিশ। অনেক বেশি ব্যক্তিগত মডার্নিস্ট বুদ্ধিজীবি, এবং আষর্য্য ভাবে পরষ্পর বিরোধী বালডউইন কে আমরা পাচ্ছি, একজন যিনি আমেরিকান কৃষ্ঞাংগ হিসেবেই, নিজের সংস্কৃতির , পরিচয় ইত্যাদির একটা রুটের খোঁজ করছেন, আরেকজন প্রাবন্ধিক সাহিত্য সমালোচক বাল্ডউইন , যিনি একেবারেই ক্লাসিক ডিসইন্টারেস্টেড এনকোয়ারি করছেন, আমেরিকান সাহিত্য ও সংস্কৃতি, তার ইউরোপীয় সূত্র তে, আরেকজন নিজের যৌনতা সম্পর্কে কখনো স্বচ্ছন্দ কক্খনো প্রচন্ড অন্তর্মুখী এবং অসামান্য স্টাইলিশ একজন আন্তর্জাতিক (ইউরোপীয়) মডার্নিস্ট যিনি তাঁর বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে ক্রোধ, ধর্মাচরন, প্রিচিং এর জীবন, আমেরিকান কালচারাল কমেন্টেটর এর জীবন থেকে অনেক দূরে, নানা ধরণের ন্যারেটিভে , যাপনে, পাঠে সর্বদা নিরীক্ষার পক্ষে। এই বিশঅযুদ্ধ পরবর্তী সেন্সিবিলিটি, এই ডিসটিন্কটিভনেস গুলোর জন্য, বৈশিষ্ট গুলো র জন্য প্রজন্মান্তর এর ধারণা আমার কাছে খুব অসআভাবিক মনে হয় নি,

    " ))"

    এটা সম্ভবত রসিকতা। আমেরিকার সাহিত্যে কৃষ্ঙাম্গ শএতাংগ অভিবাসী, হিস্পানিক ইত্যাদি ভাগ না থাকলে হয়তো ভালৈ হত, কিন্তু তাদের দেশ ও দেশের ইতিহাস যেরকম , সাহিত্য ও সেরকম। অনেক সমস্যা সত্ত্বেও বিংশ শতকে সোশাল মোবিলিটি
    থাকার কারণে নানা লেখা হয়েছে। কৃষ্ঙ্গ সাহিত্য ক্যাটিগোরি গুলি মূলতঃ স্লেভারি , সেগ্রিগেশন, নর্থওয়ার্ড মাইগ্রেশন, আফ্রিকান রুট খোঁজা , আবার ধনতান্ত্রিক দেশের সামাজিক 'সমস্যা' হিসেবে বাঁচার অভিজ্ঞতা এগুলির বিশিষ্টতা, তাঁদের লেখা লিখি কে অনন্য করেছে। ইউরোপে ক্যাটিগোরি গুলো ন্যাশনালিজম এর নিগড়ে রয়েছে, প্রশ্ন, ক্রমাগত ফ্র‌্যাগমেনটেশন সত্তএও, সেইটেই তার ইতিহাস ইউরোপে অভিবাসী সাহিত্য খুব কম দানা বেঁধেছে, ব্রিটিশ এশিয়ান ব্ল্যাক ছাড়া আর তেমন পরিচয় নেই, আর স্পেনে পোর্তুগালে বসে লেখেন এরকম প্রচুর লাতিন আমেরিকান লেখক লেখিকা আছেন, তাবে তাঁদের তো ব্যাপারই আলাদা, তাঁরাঅ দেশ গুলোকে আলাদা মনেই করেন না, ভাষাই দেশ। অতএব বিষয় গুলি তুলনীয় না।
    আগ্রহ প্রকাশের জন্য ধন্যবাদ জানাই।
    বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত
  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 49.37.15.64 | ০৩ জুন ২০২০ ০৮:৪৩93914
  • **ব্রিটিশ এসিয়ান বা ব্ল্যাক রাইটিং ছাড়া আমার বিশেষ পরিচয় নেই। আফ্রিকান ওয়েস্ট কোস্ট বা আরব নর্থ আফ্রিকার প্রচুর লোক ফরাসী তে লেখেন অবশ্য এইটা বলতে ভুলে গেলাম, এঁদের মধ্যে উসমানে সেম্বেনে, তায়েব সালিহ , অচিয়ী মবেম্বে ইত্যাদি, এঁদের কথা আগে আমরা গুরুচন্ডালি তে আলোচনা করেছি।
    তাও মূল বিষয়টা হল
    " কৃষ্ণাঙ্গ সাহিত্যের মতন শ্বেতাঙ্গ সাহিত্যেরও উৎস সন্ধান করতে চাই।ঃ))"
    এটা আপনি যেভাবে বলছেন, সম্ভব বিশেষ না, কারণ ইউরোপে
    ন্যাশনালিজম এবং কলোনিয়াল পাস্ট এগুলি ই মূল ক্যাটিগোরি।

    বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত
  • Kushan | 103.87.141.7 | ০৩ জুন ২০২০ ১৪:৫৪93929
  • চমৎকার লেখা। সাহিত্যের সঙ্গে সামাজিক ও রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট ভালোভাবে উঠে এসেছে। সমষ্টি ও ব্যক্তির যোগাযোগ ও বিচ্ছিন্নতার জায়গাটাও সুন্দর আলোচিত।

    কিন্তু, একটা অতৃপ্তি রয়ে গেল।

    পারলে একটুখানি টনি মরিসন বা মায়া এঞ্জেলোর দিকেও, ভবিষ্যতে, আলো ফেলুন।
  • সিএস | 2405:201:8803:be1f:11bf:7b5c:6e87:c828 | ০৪ জুন ২০২০ ০১:০৩93965
  • এই লেখাটা পড়ে চেস্টর হাইমসের বইটা পড়ে ফেলার ইচ্ছে হল। একটি আছে, আরো কিছু নেটে পাওয়া যায়, মিসৌরিতে জন্ম, জেল খেটেছিলেন, প্রথম উপন্যাসে সমকামী এলিমেন্ট ছিল যার জন্য দীর্ঘদিন সেটি প্রকাশিত হয়নি, বালডউইন - এলিসনের সমসাময়িক, আফ্রিকান- আমেরিকান এক্সপেরিয়েন্স লেখায় ছড়িয়ে আছে, পঞ্চাশের দশক থেকে প্যারিসের বাসিন্দা, সে দেশের সাহিত্য সংক্রান্ত সর্বোচ্চ পুরস্কার পেয়েছিলেন। নিজের আর কালো মানুষদের কথা যেমন লেখায় এসেছে, অন্যদিকে সবচেয়ে বিখ্যাত হয়েছিলেন মনে হয় হার্লেম ডিটেকটিভ সিরিজের জন্য যেখানে নিউ ইয়র্ক পুলিসের দুই ব্ল্যাক আমেরিকান পুলিস অফিসার প্রধান চরিত্র। কালো মানুষ এবং গোয়েন্দা সেরকম তো তখন লেখায় উঠে আসেনি, পরেও বিশেষ কিছু হয়েছে বলে জানা নেই, তিরিশ চল্লিশের দশকের আমেরিকান হার্ড বয়েল্ড ডিটেকটিভ ফিকশনের ছাপ হয়ত ছিল এবং সেসবের সাথে ঐ সিরিজের একাধিক উপন্যাসগুলি ছিল রাস্তার গল্প, স্ট্রীট এক্সপেরিয়েন্স এবং সেই সূত্রে কালো মানুষের দৈনন্দিন। তিরিশ চল্লিশের দশক থেকেই ইউরোপ আর আমেরিকায় ডিটেকটিভ গল্পকে ড্রয়িং রুম থেকে বার করে রাস্তায় নামিয়ে আনার যে চেষ্টা শুরু হয়েছিল সেসবের সাথেও মিলিয়ে পড়া যায়।
  • বোদাগু | 2402:3a80:aaf:1c01:70a1:5aff:f72f:3416 | ০৪ জুন ২০২০ ০৯:৩৬93984
  • হ্যাঁ, রস ডোনাল্ড না কি যেন একটা এই স্ট্রীট জনার ডিটেটটিভ নভেল আমি পড়েছি, আর কিছু ই মনে নেই কিন্তু কোন প্রিটেনশন এমনকি সিভিলিটির বালাই ছিল না।
  • ar | 71.174.88.163 | ০৮ জুন ২০২০ ০২:২৪94105
  • @বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত

    উত্তর দিতে আমার দেরী হয় গেল।
    আপনার উত্তরের জন্য অনেক ধন্যবাদ। এলিসন এবং বল্ডউইন প্রসঙ্গে আপনার বক্তব্যটা বুঝলাম।

    দাবীর অংশটা রসিকতার আঙ্গিকে হলেও রসিকতা নয়।
    আমার মতে এই ২০২০ তে দাঁড়িয়ে "কৃষ্ণাঙ্গ সাহিত্যের" মতন নির্মাণ (ব্ল্যাক ওর আফ্রিকান অ্যামেরিক্যান লিটারেচার) আদতে একটি রেসিস্ট নির্মাণ। [আপনাকে বলছি না, আপনি জঁর টা অনুবাদ করেছেন মাত্র]। সাহিত্য প্রতীকী হতে পারে, প্রতিবাদী হতে পারে, অনুপ্রেরণাদায়ী হতে পারে, কিন্তু কৃষ্ণাঙ্গ কেন? [ডি-সেগ্রিগেশনের ৫০ বছর পরে, who decides??] যদি কৃষ্ণাঙ্গ সাহিত্য হতে পারে তাহলে শ্বেতাঙ্গ সাহিত্য নয় কেন?? নাকি কৃষ্ণাঙ্গ সাহিত্যের পরিমন্ডলের বাইরে (দাসত্ব, মুক্তি, উত্তরাভিযান এবং তৎসহ সংগ্রাম ইত্যাদির) সবই আলাদা ও সাহিত্য। অর্থাৎ মিল্টন, ওয়ার্ডসওয়ার্থ, রবার্ট বার্ন্স, ইটস, থেকে শুরু করে আমাদের সবার প্রিয় , কাফকা, দেরিদা আর ফুঁকোর লেখাপত্র, কবিতা, উপন্যাস বা দর্শন, হল সাহিত্য (সাধারণ টার্মে), কিন্তু এম এল কে, টনি মরিসন, মায়া এঞ্জেলো থেকে এখনকার ইব্রাম কেন্ডি, এদের লেখালেখি হল কৃষ্ণাঙ্গ সাহিত্য। (অর্থাৎ ব্যাক ওর অ্যাফ্রিক্যান অ্যামেরিক্যান লিটারেচার ভার্সাস লিটারেচারে ভেদাভেদ)। অ্যাফ্রিক্যান--অ্যামেরিক্যান (হিস্ট্রি এন্ড কালচার) স্টাডিস আর অ্যাফ্রিক্যান--অ্যামেরিক্যান লিটারেচার স্টাডি কিন্তু এক নয়। মাঝে মাঝে (মেইন স্ট্রীমে) গুলিয়ে দেওয়ার প্রবনতা দেখা যায়। আবার দেখুন, আইরিশ-অ্যামেরিক্যান জেমস প্যাটার্সন যখন অ্যালেক্স ক্রস লেখেন তখন তা সাহিত্য (মেইন স্ট্রীম), কিন্তু অ্যাফ্রিক্যান--অ্যামেরিকান পউলিন হোপকিনস বা রুডল্ফ ফিশার এর ডিটেকটিভ নভেল হয়ে যায় কৃষ্ণাঙ্গ সাহিত্য!! যদি অ্যাফ্রিক্যান--অ্যামেরিক্যান মানুষের সামাজিক শোষণ বা অবদমনের বিরুদ্ধে লেখালেখিগুলোকে কৃষ্ণাঙ্গ সাহিত্যের ধারা বলি, তাহলে তার বিপ্রতীপে, সেই অবদমনের সমর্থনে লেখাগুলোকে কেন শ্বেতাঙ্গ লেখা/সাহিত্য বলা যাবে না? আর সামাজিক অবদমন বা শোষণ তো পৃথিবীর ইতিহাসের সাথে অঙ্গাঙ্গীভাবে যুক্ত।

    তো, আমার দাবীটা এই সূত্র ধরেই ছিল!!
    এখন প্রশ্ন হল, শ্বেতাঙ্গ লেখালেখি/সাহিত্য কোথায় খুঁজে পাওয়া যাবে??!!
    আপনি আরও লিখুন। আমরা ঋদ্ধ হই।
    শুভেচ্ছা,
  • ar | 71.174.88.163 | ১০ জুন ২০২০ ০৭:৩৮94185
  • An offshoot of critical race theory, theorists of critical whiteness studies seek to examine the construction and moral implications of whiteness, in order to reveal and deconstruct its assumed links to white privilege and white supremacy.

    https://en.wikipedia.org/wiki/Whiteness_studies
  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 2405:201:8802:c7b5:a0e0:d978:ef52:f4a9 | ১০ জুন ২০২০ ১৫:২৪94200
  • দেখুন এই ঘন ঘন ঋদ্ধ হবেন না:---)))))))) এখানে প্রচুর লেখাপড়া জানা লোকজন আছেন তারা ল্যাদ, অন্য ব্যস্ততা ইত্যাদি নানা কারণে বকর বকর করা পসন্দ করেন না। আমার লেখা ও পড়া দুইটাই একেবারে রাবীন্দ্রিক 'পড়াপড়া খেলা' টাইটস। তবে আমি যা যতটুক করি পুরোটাই সংগঠিত রাজনীতি করার সাবস্টিটিউট হিসেবে করি:-))) তাই আমার কোন মৌনী শাখা নাই:--))) আপনি লেখাটা পড়ে উৎসাহ দিয়েছেন ধন্যবাদ।
    ঠিকই বলেছেন, তবে সাহিত্যে র ক্যাটিগোরি গুলি প্রায়শঃ রাজনীতির বিশেষত কনফ্লিক্ট এর ডেরিভেটিভ। তাই টোনি মরিসন, ল্যাঙ্সটন হিউজ, আ্যণ্জেলু, বাল্ডউইন, আমেরিকার দাদূর ভাগ্য এরা আমেরিকান, এরা যেকোনো ক্যাটিগোরির ঊর্ধে হলেও তাঁদের বর্ণ তাদের অভিজ্ঞতা কে যাকে বলে সিরিয়াসলি ঋদ্ধ করেছে। রেজিনাল্ড বি হান্টার বলে একজন কমেডিয়ান, আয়ারল্যান্ড কে একবার বলেছিলেন আফ্রিকা অফ দ্যা হোয়াইট পিপল, দিস ইজ হোয়ার দে মেক দেয়:---))) কিন্তু আইরিশ লেখকরা ধর্ম, ঐতিহৃ, কলোনী, অভিবাসন, মডার্নিটি নিয়ে বেশি ভেবেছেন।
    সদর্থে ইউনিক শ্বেতাঙ্গ এক্সপেরিয়েন্স বলতে পারেন দক্ষিণ আফ্রিকার সাদা সাহিত্যিক দের, লিবেরাল, লেফ্ট, এ এন সি সবাইকেই। কারণ তাঽদের লেখায় নেলসন ম্যান্ডেলা র মুক্তির আগে ও পরে দুটো পর্যায় তেই, ওখানকার আপারথাইড এর ভায়োলেন্স টা ওনাদের কে সত্যিই একা করেছে। পরিবারের মধ্যে শত্রু করেছে, ভূমিপুত্র কখনো ই করেনি, এটা আপনি গর্ডিমার আর কোয়েটজি দুজনের মধ্যেই একদম আলাদা ভাবে পাবেন। আর একজনকে বলতে পারেন একটু ন্যাশনালিস্ট বাউন্ডারির মধ্যে ও একটু ইউনিকলি শ্বেতাঙ্গ। হুলেবেক, ফ্রান্স, আমার পোষায় না কিন্তু নেড়ে দেখতে পারেন, একটা বিচিত্র ভাঙনের খবর পাবেন।
  • অর্জুন | 223.223.150.198 | ১০ জুন ২০২০ ১৫:৩১94201
  • পড়ব । 

  • সিএস | 2405:201:8803:be1f:39c5:6c3e:12e2:abc8 | ১০ জুন ২০২০ ১৭:৫১94204
  • হুলেবেক - এই শতাব্দীর প্রথম দশ-্পনেরো বছরে যাকে ফেনোমেনা বলে মনে করা হয়েছে - ফ্রান্সের সমাজে যেদিকেই তাকান সেদিকেই তাকিয়ে যেন মনে করেছেন, না কিস্যু হচ্ছে না, বলে লিবারেলিজমকে আঁচড়ে দেওয়া থেকে শুরু করে সব কিছুকে সন্দেহর চোখে দেখতে দেখতে ইসলামের সমালোচক, গ্লোবালাইজেশনেরও সমালোচক, ফরাসী রাজনীতিরও সমালোচক।। অদ্ভুত ভাবে হুলেবেকের উপন্যাসে মধ্যে যা গল্প হিসেবে ছিল তা যেন বইগুলি বেরোবার পরে বাস্তবেও ঘটে গেছিল; বোধ করি গত বিশ বছরে ফ্রান্সে সমাজ - রাজনীতিতে যে তর্কগুলো ছিল সেগুলো এঁর লেখায় ফেটে বেরিয়েছে। লক্ষ্য করে দেখুন, ফুটে বেরিয়েছে লিখিনি, ফেটে বেরিয়েছে লিখেছি, প্রথম মেজর বইটির নামের মধ্যে (Atomized) যা যেন ছিল, ফাটলগুলো থেকে তৈরী হওয়া খণ্ড-বিখণ্ডগুলি।
  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 49.37.9.98 | ১০ জুন ২০২০ ১৯:১৯94205
  • রাইট , আটোমাইজড, অলমোস্ট‌ লা পেনের উত্থানের প্রেডিকশন মাইরি, আমি অবশ্য প্রথম উত্থানের সময় পড়েছি যেবার সেই ২০০২ এর ওয়ার্ল্ড কাপে ফ্রান্স বাজে খেলল, আর লা পেন বলল যে আসলি ফ্রেঞ্চরা খেললে এ জিনিস হত না, অথচ সেটা ৯৮ এর সেই রামধনুর লে ব্লিউ সেলিব্রেশনের প্যারিস ভেসে যাওয়ার মাত্র চার বছর পর। এক আলজেরিয়ান ইমিগ্রান্ট এর ম্যাজিকের চার বছর পর। তারপরে সারকোজির এমারজেন্স । ফ্রেঞ্চ লেফট এর বৃহদাংশ অবশ্য বরাবরই তাদের ঔপনিবেশিক অতীতের সঙ্গে রিকন্সাইল্ড , কিন্তু ঐ সাদা নিম্নমধ্যবিত্ত জীবনের একটা সেন্স অফ লস যে তার রোয়াব আর থাকছে না, এটা আমার বিচিত্র লেগেছিল, চ্যানেল ফোর একবার একটা ডকু করেছিল লাস্ট হোয়াইট ম্যান, কন্ট্রোভার্সি করার জন্যই করেছিল আর বিশেষ উদ্দেশ্য ছিলনা, কিন্তু ঐ ডিস আফেকশন টাকে ভদ্রলোক ধরেছিল অবশ্য সাংঘাতিক মিসোজিনি আর টাইম ওয়ার্পটা সরাসরি ফল্স‌ ভিক্টিমহুড, পোসায় নি বেশিক্ষন,‌খুব হ ই‌হ ই হয়েছিল , হ ওয়ার স্টাইলিস্টিক কারণ ও ছিল কিন্তু এমনকি ধরো নুট হামসুনের একাকি পুরুষ এর ক্রমশঃ অবসাদের অতল যাত্রার কোন তুলনা হয়না, এটাকে নিহিলিজম বলে বেচার অনেক সমস্যাও আছে।
  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 49.37.9.98 | ১০ জুন ২০২০ ১৯:১৯94206
  • রাইট , আটোমাইজড, অলমোস্ট‌ লা পেনের উত্থানের প্রেডিকশন মাইরি, আমি অবশ্য প্রথম উত্থানের সময় পড়েছি যেবার সেই ২০০২ এর ওয়ার্ল্ড কাপে ফ্রান্স বাজে খেলল, আর লা পেন বলল যে আসলি ফ্রেঞ্চরা খেললে এ জিনিস হত না, অথচ সেটা ৯৮ এর সেই রামধনুর লে ব্লিউ সেলিব্রেশনের প্যারিস ভেসে যাওয়ার মাত্র চার বছর পর। এক আলজেরিয়ান ইমিগ্রান্ট এর ম্যাজিকের চার বছর পর। তারপরে সারকোজির এমারজেন্স । ফ্রেঞ্চ লেফট এর বৃহদাংশ অবশ্য বরাবরই তাদের ঔপনিবেশিক অতীতের সঙ্গে রিকন্সাইল্ড , কিন্তু ঐ সাদা নিম্নমধ্যবিত্ত জীবনের একটা সেন্স অফ লস যে তার রোয়াব আর থাকছে না, এটা আমার বিচিত্র লেগেছিল, চ্যানেল ফোর একবার একটা ডকু করেছিল লাস্ট হোয়াইট ম্যান, কন্ট্রোভার্সি করার জন্যই করেছিল আর বিশেষ উদ্দেশ্য ছিলনা, কিন্তু ঐ ডিস আফেকশন টাকে ভদ্রলোক ধরেছিল অবশ্য সাংঘাতিক মিসোজিনি আর টাইম ওয়ার্পটা সরাসরি ফল্স‌ ভিক্টিমহুড, পোসায় নি বেশিক্ষন,‌খুব হ ই‌হ ই হয়েছিল , হ ওয়ার স্টাইলিস্টিক কারণ ও ছিল কিন্তু এমনকি ধরো নুট হামসুনের একাকি পুরুষ এর ক্রমশঃ অবসাদের অতল যাত্রার কোন তুলনা হয়না, এটাকে নিহিলিজম বলে বেচার অনেক সমস্যাও আছে।
  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত