• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • লং মার্চ: : রোড টু রামপাল

    Biplob Rahman
    বিভাগ : ব্লগ | ০৬ অক্টোবর ২০১৩ | ৩৮ বার পঠিত
  • 'উন্নয়ন, উন্নয়ন, উন্নয়ন না ছাই,
    রামপালে কাপ্তাই লেকের
    কান্না শুনতে পাই...'

    চলেছে লং মার্চ। ২৪ সেপ্টেম্বর সকাল ১১টায় প্রেসক্লাবে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ শেষে শুরু হলো ছাত্র-জনতার বিশাল বহরের রামপাল অভিমুখে যাত্রা। সুন্দরবন রক্ষার দৃঢ় প্রত্যয় সকলের চোখে-মুখে। মাথার ওপরে গনগনে সূর্য। খর রোদ, ভ্যাপসা গরম।

    লং মার্চের পুরো যাত্রা পথের তথ্য সংবাদ কাভারের জন্য আমি চলেছি বহরের সঙ্গে। প্রেসক্লাবে একে-তাকে ফোন, খোঁজাখুজি করেও মিডিয়ার গাড়িটি খুঁজে পাইনি। পরে জেনেছি, লং মার্চের মিডিয়া টিমের গাড়িটি শ্যামলীতে আটকা পড়েছে।

    আমার তখন দিশেহারা অবস্থা। দু-দুটি ভাড়ি ব্যাগ নিয়ে আগুন গরমের ভেতর আমার পক্ষে হেঁটে যাওয়া সম্ভব নয়। তথ্য সংবাদ সংগ্রহ ও লেখার জন্য শাররীক সুস্থ্যতা এবং বেশ খানিকটা মস্তিস্কের শীতলতা একান্ত জরুরি। কারণ লেখালেখির কাজটি পরিশ্রমের।

    আমার ব্যাগ দুটির ওজনও বেশ। একটিতে আট-দশদিনের কাপড়-চোপড় [৪০০ কিমি দীর্ঘ ৫ দিনের লং মার্চ শেষে সুন্দরবন দেখার ইচ্ছে]; আরেকটিতে আমার নেটবুক ও টুকিটাকি। বুদ্ধি করে জাতীয় কমিটির একটি ব্যানার লাগানো পিক-আপে কাপড়ের ব্যাগটি তুলে দেই। সেটিতে স্বেচ্ছাসেবী বেশ কয়েকজন মাইক লাগিয়ে অবিরাম শ্লোগান দিচ্ছেন। সেখানের পরিচিত একটি মুখ আমাকে সাহস জোগায়। নাম বিস্তৃত মেয়েটি বলে, ভাইয়া, আপনি চিন্তা করবেন না। যখনই চাইবেন, তখনই আপনার ব্যাগ পেয়ে যাবেন।

    প্রেসক্লাব থেকে লং মার্চের যাত্রা শুরু হয়ে যায়। বিভৎস তাপদাহ উপেক্ষা করে ছাত্র-জনতার বিশাল মিছিল ঢাকার পথে এগিয়ে চলেছে। অবিরাম শ্লোগান: চলো রে চলো/ লং মার্চ, লং মার্চ/ ঢাকা থেকে সুন্দরবন/ লং মার্চ, লং মার্চ...ইত্যাদি। এরই মধ্যে ঘেমেনেয়ে একাকার। মিছিল শাহবাগ হয়ে এলিফ্যান্ট রোড হয়ে সায়েন্স ল্যাবরেটরি পৌঁছালে আমি একটি অগ্রবর্তী বাহিনীকে পাই। তারা ‘উদীচী’র ব্যানারে ছাদ খোলা একটি পিক আপ ভ্যানে লং মার্চের সমর্থনে গান গাইতে গাইতে চলেছে। আমি পিক আপটিতে ওঠার জন্য মরিয়া হয়ে ছুট লাগাই। কোন কারণে গাড়িটির গতি খানিকটা মন্থর হলে সেটি আমার জন্য সহায়ক হয়। গাড়ির কাছাকাছি পৌঁছাতেই সেখান থেকে সাংস্কৃতিক দলের কর্মীরা হাত বাড়িয়ে আমাকে টেনে তোলেন। ...

    অপরিচিত একদল ছেলে-মেয়ের মধ্যে এসে পড়ায় নিজেকে খানিকটা রবাহুত বলে মনে হয়। গুটিশুটি মেরে এক কোনে বসে পড়ি। ব্যাগ থেকে একটি টুপি বের করে মাথা বাঁচানোর চেষ্টা করি। লোহার পাটাতন আগুনের মতো গরম হয়ে উঠেছে ততোক্ষণে। পুরো শরীর ঘামে ভিজে একসা। ব্যাগ থেকে পানির বোতল বের করে ছোট্ট একটি চুমুক দিতে না দিতেই আশেপাশের ছেলেমেয়েরা হাত বাড়ায়। মুহূর্তেই পুরো বোতল খালি। লং মার্চের বহর ততোক্ষণে আসদ গেট পৌঁছেছে। বহরের একটি অংশ ততোক্ষণে মানিক মিয়া এভিনিউ ধরে যাত্রা শুরু করেছে। আরেকটি অংশ আমাদের পিক আপটিকে অনুসরণ করে।

    আমার জড়তা পিক আপ ভ্যানের গানের দলটিই কাটাতে সাহায্য করে। একে একে কচি মুখগুলো আমার সঙ্গে পরিচিত হয়ে। সিরাজগঞ্জের স্মরণ নামে একটি ছেলের কথা মনে পড়ছে। এসএসসি পড়ুয়া ছেলেটির গানের পাশাপাশি নাটকের ঝোঁক। বাড়িতে নাটকের ওয়ার্কশপের নাম করে বেরিয়ে পড়েছে লং মার্চের বহরে। দলনেত্রী প্রীতির কথায় জানা গেল, এটি তার পঞ্চম লং মার্চ। মাঝ বয়সী বাসদের একজন সার্বক্ষণিক কর্মী বললেন, জাতীয় কমিটির সাত-সাতটি লং মার্চে চট্টগ্রাম থেকে এসে যোগ দিয়েছেন তিনি। পুরো যাত্রা পথে নানান রাজনৈতিক কথা, আলাপচারিতায় তিনি যথেষ্ট সঙ্গ দিয়েছেন আমাকে। নোটপত্র ঘেঁটেও তার নামটি কিছুতেই উদ্ধার করতে পারছি না বলে তার কাছে মনে মনে ক্ষমা প্রার্থণা করা ছাড়া উপায়কি।

    আমি বিস্ময়ের সঙ্গে লক্ষ্য করি, গুমট গরম, পানি শুন্যতা, ছোট্ট পিক আপে গাদাগাদি করে ওঠা একদল সাংস্কৃতিক কর্মী -- তাদের কোন কিছু নিয়ে কোন অভিযোগ নেই। তারা প্রত্যেকেই হাসি-ঠাট্টা করতে করতে যুথবদ্ধতায় গেয়ে চলেন একের পর এক সদ্য লেখা গান। কেউ ঢোল, কেউ বা হারমোনিয়াম বা বাঁশিতে সঙ্গত করেন। মাঝে মাঝে শ্লোগানও দেয় দলটি। কোথাও ভীড় দেখলে তারা পিক আপটি থামিয়ে লিফলেট বিলি করেন। মাইকে বর্ণনা করেন লং মার্চের যৌক্তিকতা।

    এরই মাঝে বন্ধু বরেষু, গণ সংহতির জোনায়েদ সাকী, ফিরোজ আহমেদ, আবুল হাসান রুবেলসহ বেশ কয়েকজন টেলিফোনে আমার খোঁজ খবর নেন। বলা ভালো, তাদের উৎসাহেই আমার লং মার্চের বহরে যোগ দেওয়া। শ্রদ্ধেয় আনু মুহাম্মদ ভাই তো বটেই। ...

    ‘উদীচী’র গানের দলটি আমাকে প্রেরণা জোগায়। মনে পড়ে যায়, ২৫ বছর আগে আমিও আগুন ঝরা দিনগুলোতে লিড শ্লোগানার হিসেবে নেতৃত্ব দিয়েছি নব্বইয়ের ছাত্র-গণ অভ্যুত্থানে। সে এক রূপকথার দিন। আমার ভেতর থেকে একে একে গরম ইত্যাদি নিয়ে অভিযোগসমূহে উবে যেতে থাকে। নিজেকে বোঝাই, বিপ্লব তোমার নাম। জেলখানা থেকে সাবেক নকশাল নেতা পিতা আজিজ মেহের রেখেছেন এই নাম। তুমি পারবে, পারবেই। ...

    গাড়িটি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় পৌঁছাতেই আমি টুক করে নেমে পড়ি। আমার জানা ছিল, সেখানে খাবার বিরতি। অর্থাৎ বেশ খানিকটা অবসর। আমি একটি ট্যাপ থেকে হাতমুখ ধুয়ে পানির বোতলটি আবার ভরে নিয়ে ওরস্যালাইন গুলে খাই। খানিকটা বিশ্রামের পর ব্যাগ থেকে নেটবুক টেনে নিয়ে নিশব্দে অভ্যস্ত হাতে দ্রুত টাইপ করতে থাকি। অনলাইন ভার্সনের জন্য একটি তাজা খবর মেইল করি।

    এরপর ভীড়ের ভেতর এলোমেলো ঘুরতে ঘুরতে আবিস্কার করি সাংবাদিক সহকর্মী মলয় সাহাকে। পুরো যাত্রাপথে মলয় দা’ই হয়ে ওঠে আমার সিনিয়র বন্ধু ও সহচর।...


    সংযুক্ত: ঢাকা-রামপাল লং মার্চ নিয়ে এই লেখকের কয়েকটি প্রতিবেদন পড়া যাবে নীচের লিংকগুলোতে।
    ‘সুন্দরবন ঘোষণা’য় শেষ হলো লংমার্চ ১১ অক্টোবরের মধ্যে প্রকল্প বাতিল, নইলে প্রতিরোধ ..
    fb.me/1QXnlQTP6
    পিছু হটল প্রশাসন, লংমার্চ রামপাল যাচ্ছে সুন্দরবন রক্ষার স্বার্থে রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ… fb.me/1nIb3ShJE
    রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র: লংমার্চ রামপালে ঢুকতে দেবে না প্রশাসন
    … fb.me/1xg1A24aE
    UPDATE: #LongMarch reached at Jessor; #SaveSundarban #SaveBangladesh fb.me/6pg0B4VdQ
    রামপাল অভিমুখী লংমার্চকে পথে পথে সংবর্ধনা আ. লীগের পাল্টা কর্মসূচি সংঘর্ষের আশঙ্কা …
    fb.me/1IEBzJdl2
    সুন্দরবন আমাদের বাঁচায়। আসুন, সুন্দরবন রক্ষা করে আমরা তার ঋণ শোধ করি।…
    fb.me/Kn9nkm8Q

    লং মার্চের সংগে সংহতি জানানোয় আপনাদের সাধুবাদ।

    জানিয়ে রাখি, ২৪-২৮ সেপ্টেম্বর ঢাকা-রামপাল ৪০০ কিমি দীর্ঘ লং মার্চ শান্তিপূর্ণভাবে শেষ হয়েছে।

    লং মার্চের মধ্যেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জ্বালানি উপদেষ্টা ড. তৌফিক ২২ অক্টোবর রামপাল বিদ্যুত কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের ঔদ্ধত্ব দেখান। লং মার্চকারীরা বলছেন, জনমতের বিপরীতে এই বিদ্যুত কেন্দ্র বাতিল করা না হলে শুধু প্রস্তরটিই থাকবে, বিদ্যুত কেন্দ্র হবে না, বরং সরকারের ভিত্তিই নড়ে যাবে।

    ২৮ মার্চ লং মার্চের শেষ দিনে রামপালে অনুষ্ঠিত জনসভায় ‘সুন্দরবন ঘোষণা’য় ওই বিদ্যুত কেন্দ্র বাতিলে ১১ অক্টোবর সরকারকে আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছে।

    এ অবস্থায় তড়িঘড়ি করে কোনো পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই গত ৫ অক্টোবর বাংলাদেশ ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী রিমোট টিপে রামপাল বিদ্যুত কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করে।

    [ পড়ুন : “বিভিন্ন মহলের সমালোচনার মধ্যেই শনিবার বাগেরহাটের রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের ভিত্তিফলক উন্মোচন হচ্ছে। শনিবার কুষ্টিয়ার ভেড়ামাড়ায় ভারত থেকে বিদ্যুৎ আমদানির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এই ভিত্তিফলক উন্মোচন করা করা হবে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ সচিব মনোয়ার ইসলাম। বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, “ভোড়ামারায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপস্থিত থেকে এবং ভারত থেকে প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মৈত্রী সুপার থারমাল পাওয়ার প্রকল্পের ভিত্তিফলক উন্মোচন করবেন।” http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article681335.bdnews]

    ওইদিন ঘটনার প্রতিবাদে ঢাকা, বাগেরহাট, রামপালসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ-সমাবেশ হয়েছে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে: সরকার ভয় পেয়েছে।

    লং মার্চ শেষ হয়েছে। সুন্দরবন রক্ষার আন্দোলন শেষ হয়ে যায়নি। শিগগিরই পরবর্তী নতুন কর্মসূচি আসছে বলে জেনেছি।

    সবাইকে ধন্যবাদ। চলুক।
    সংযুক্ত: রামপাল বিদ্যুতকেন্দ্র নিয়ে প্রভু-স্বার্থ রক্ষার জনবিরোধী সরকারি বুলির বিরুদ্ধে সহ ব্লগার কল্লোল মোস্তফা লিখেছেন একটি যুক্তযুক্ত দরকারি নোট। শাবাশ কল্লোল।

    [http://opinion.bdnews24.com/bangla/2013/10/07/%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%AE%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%B2-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%AD%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A6%BF%E0%A6%95%E0%A6%B0-%E2%80%98%E0%A6%95%E0%A6%BF/]

    ওই বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মানকারী সংস্থা এনটিপিসি ভারতে অনুরূপ বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মান করতে গিয়ে একই রকমভাবে প্রবল গণআন্দোলনের মুখে পড়েছে। এ নিয়ে সেদেশে মামলাও হয়েছে।

    লং মার্চের একটি শ্লোগান মনে পড়ছে:

    ”নিজের দেশে পারো না/ আমাগো দেশে আইছো ক্যান?”

    শ্লোগানে নিহিত প্রশ্নটির জবাব খোঁজা জরুরি। চলুক।
  • বিভাগ : ব্লগ | ০৬ অক্টোবর ২০১৩ | ৩৮ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • π | 79.204.169.146 (*) | ০৬ অক্টোবর ২০১৩ ০৩:২৩46902
  • সুন্দরবনের জন্য এরকম লংমার্চ এপারেও চাই।
  • সংহারক | 138.141.230.116 (*) | ০৬ অক্টোবর ২০১৩ ১১:১২46903
  • এই প্রথম রামপাল নিয়ে একটা ভালো লেখা পড়লাম। আপনাদের লংমার্চের সাফল্য কামনা করি।
  • Biplob Rahman | 190.234.212.49 (*) | ২১ অক্টোবর ২০১৩ ১১:৩৩46904
  • @ π , @ সংহারক,

    ব্যস্ততার কারণে খানিকটা দেরিতে বলছি। আপনাদের বিনীত পাঠ ও প্রতিক্রিয়ার জন্য সাধুবাদ জানাই।

    সুন্দরবন রক্ষার লং মার্চ এখন ছড়িয়ে পড়েছে ওপারেও। আগামী ২৪ অক্টোবরই জর্জ ভবন, মৌলালী থেকে শুরু হচ্ছে আরেকটি লং মার্চ। এ সংক্রান্ত একটি ফেবু ইভেন্ট থেকে জানা যাচ্ছে:

    "Meet The Rampal Long March Team - 24th October - George Bhavan 1.30 PM

    Thursday, October 24, 2013
    Time1:30pm until 4:30pm in UTC+05:30
    Where
    George Bhavan, Moulali
    Description
    Background
    =========
    We started talking about Rampal TPP a few weeks back. At that point of time, we were trying to get some solidarity support in online signature campaign. We tried to submit the deputation on 27th September as a mark of token solidarity from Indian citizen. The result is known to all and documented here. NTPC did not accept it. We started a blog to take the campaign further.

    At the same time, away from this development, NCBD team led by Prof. Anu Mohammed were trying to build a solidarity bridge with India for last two years. As a result of that initiative, today the Bangladesh team has a living relationship with people in Jharkhand and Delhi.

    However, back here at Kolkata, we are not part of that initiative yet. While fighting for nature, probably nature has connected us; the Kolkata people to be connected with that spirit.

    A Bangladesh NCBD delegation planned earlier visiting Kolkata on 24th October and we want to utilize the chance to the maximum possible extent to connect the struggles of two Bengals.

    The Activists Meet At 1.30 PM at George Bhavan, Moulail, Kolkata
    =======================================
    We welcome all the individual political, social and environmental activists and groups to come forward for a live face to face meet with the Bangladesh delegation team. We want to hear the stories of Phulbari long march and Rampal long march from them. They want to hear the stories of our struggle at Nandigram, Lalgarh, Sunderbans and Nonadanga. Time is short and there are many constraints but we still hope people from the ground to come up and share their stories which possibly could never be heard in Big Media.

    The objective of this session is to start a process. A process that brings struggles of two Bengals close to each other. I welcome all of you to come forward and enrich the session with your analysis, inputs and thoughts for this.

    We hope that this discourse will create an effective platform for joint movement between WB and BD for Rampal to save Sunderbans."

    সবাইকে অনেক ধন্যবাদ। চলুক।
  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত