• বুলবুলভাজা  খবর  খবর্নয়

  • কোভিডে বাবার মৃত্যু এবং

    ঊর্মিমালা লেখকের গ্রাহক হোন
    খবর | খবর্নয় | ২১ জুলাই ২০২০ | ১৪০৭ বার পঠিত
  • জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
  • গত শুক্রবার বাবা মারা গেছেন। মেডিকেল কলেজ নন-কোভিড দের জন্য বন্ধ করে দেওয়ায় বাবার চিকিৎসাও বন্ধ ছিল। গরীবের তো অ্যাপোলো নেই৷

    ৪ দিন হস্পিটালে ভর্তি ছিল বাবা। কিন্তু তাতে রোগের চিকিৎসার উপযুক্ত পরিকাঠামো ছিলো না। ভেন্টিলেশনের পেশেন্টের ব্লাড টেস্টের রিপোর্ট বেসরকারি ল্যাব থেকে যতদিনে আসার কথা তার আগেই পেশেন্ট মারা যাচ্ছে।

    রাত ১২ টায় একটা হস্পিটাল পেশেন্টকে বের করে দিতে চায় ভেন্টিলেশন নেই বলে। না, কোনোরকম ব্যবস্থা করে দিতেও তারা চায়নি। অবশেষে ৫ ঘন্টা টানাপোড়েনে ভর্তির ব্যবস্থা হয় অন্য হস্পিটালে।

    করোনা টেস্টের রিপোর্ট আসেনি বলে গুরুতর অসুস্থ রোগীর চিকিৎসা করতে নারাজ কোভিড, নন-কোভিড দু ধরনের হস্পিটালই। ৩ নং ধরনের হাস্পাতালটা তো বানানো নেই। আর চিকিৎসা করবেই বা কোথায়? ১০ হাজার রোগীর জন্য ৫-৬ টা ভেন্টিলেশন। ১০-১২ টা ccu বেড।

    সহযোগিতার বদলে অসহযোগিতা এখন নিয়ম। আক্রমণ গালিগালাজ সবই। এমনকি করোনা আক্রান্ত বা করোনা সাস্পেক্টেড রোগীর মৃত্যু হলে বাকিরা বেঁচে যাবে - একথা মৃত্যুপথযাত্রী রোগীর স্ত্রী -মেয়েকে বলতে কেউ ছাড়েনি।

    অসামাজিক এই জীবেদের মুখের উপর বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে মৃত্যুভয় উপেক্ষা করে যারা দিন রাত পাশে রইলো তাদের মেরুদণ্ড যে বিক্রি হয়নি তার প্রমাণ আগেই বহুবার পেয়েছি। যারা সামাজিক চাপ উপেক্ষা করে সবটা দিয়ে সহযোগিতা করলো, বাড়ির গেটে খাবার রেখে যাওয়া থেকে ফোন করে বিভিন্ন ব্যবস্থা করে দেওয়া; অন্য মতাদর্শের রাজনৈতিক দলের হয়েও যারা প্রতিবেশি, বন্ধু হয়ে পাশে রইলো তাদের মনে থাকবে। সমাজ তো এমনই হওয়ার কথা ছিল। রাজনৈতিক কথাটি জোর দিয়ে বললাম কারণ পাশে যারা সবটা দিয়ে থেকেছেন তারা প্রায় প্রত্যেকেই কোনো না কোনো রাজনীতি করেন; নইলে সোসাল ওয়ার্ক।

    ৪ দিন মারাত্মক মানসিক চাপ আক্রমণে কেটেছে। আজ বিডিও এসেছিলেন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসের জোগান দিতে। সহযোগিতা করবেন কথা দিয়ে গেছেন। প্রতিবেশিরাও সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন। আশা কর্মীরা অসুস্থতার দিন থেকেই সব রকমের চেষ্টা করে যাচ্ছেন সাহায্যের। অনেকেই এই পরিস্থিতিতে অনেক দূরে থাকে বলে না আসতে পারার আক্ষেপ করছে।

    সময়ে আসলে বন্ধু আত্মীয় পরিজন চেনা যায়।

    বন্ধুরা অনেকে ফোন করছিস। এত ফোন ধরার মতো মানসিক অবস্থা নেই। দেখা হবে মহামারী শেষে। সাবধানে থাকিস।

    সকলের জন্য যে সমাজটা নয় তা আরও একবার নিজের জীবন দিয়ে বুঝলাম। যদিও পাশে থাকার মতো অনেকগুলি হাত এখনো, এখনো আছে। তাই এখনও মানুষ স্বপ্ন দেখতে পারে।

    স্বাস্থ্য এখনো সকলের নয়। কাল কোভিড বা নন-কোভিডে অসুস্থ হলে আমাদের ট্রিটমেন্ট কিকরে হবে জানা নেই। সমাজের মানসিক স্বাস্থ্যও রেড এলার্টে। তাই লড়াইটা এখনো শেষ নয়। অনেক বাকি।

    এত জঘন্য পরিস্থিতির মধ্যেও দুটি খবর পেলাম। সেও লড়াইয়ের ই খবর। ইন্টারনেটহীন-আড়ম্বরহীন- বঞ্চনার লাল দাগের অঞ্চলগুলির মধ্যে রানী শাবানারা নিজের জেদে আর তাদেরই মতো জেদী হাল না ছাড়া বন্ধুর মতো গৃহশিক্ষকের সাহায্যে উচ্চমাধ্যমিকে ৯০% পেয়েছে।এই পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠলে প্রীতিলতার বইটা ওদের নিশ্চই দিতে যাবো।

    মেডিকেলের ডাক্তাররা শুধু "ডাক্তার" না হয়ে দায়িত্বশীল নাগরিকের পরিচয় দিয়ে আন্দোলন জিতে নন- কোভিড রোগীদের জন্য ও হস্পিটালটা খুলতে পেরেছে। এটা আরও কয়েকমাস আগে হলে বাবার চিকিৎসা বন্ধ করতে হতোনা।

    পূর্বাশার থ্যালাসেমিয়া পরীক্ষা লকডাউনের জেরে এখনো আটকে আছে।

    সবশেষে একটাই কথা বলার ঘুন ধরে যাওয়া ব্যবস্থা যেমন থাকে, তার পাল্টা সংগ্রামও পাশাপাশিই থাকে। মানুষ স্বার্থপর যেমন সত্যি, মানুষ মানুষের জন্য এখনও উদ্বিগ্ন হয়- এটাও সত্যি। বাবা যে যথার্থ চিকিৎসা পায়নি পরিকাঠামোর অভাবে এ যেমন সত্যি, যারা চেষ্টা করে গেলেন তা দেওয়ার, এবং এখনো চেষ্টা করছেন আমাদের সহযোগিতা করার তারাও সত্যিই।

    আশা রাখবো এই নতুন পরিস্থিতিতে, সমস্ত মানুষের যথার্থ চিকিৎসা এবং খাদ্যের সুরক্ষার জন্য সবকটি সরকারের যা যা করণীয় তা তারা করার ধক রাখবে।

  • বিভাগ : খবর | ২১ জুলাই ২০২০ | ১৪০৭ বার পঠিত
আরও পড়ুন
ফিরে এসো - Skd Nath
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Prativa Sarker | ২১ জুলাই ২০২০ ১২:২০95395
  • কী মর্মান্তিক ! 

  • | ২১ জুলাই ২০২০ ১৪:১৯95402
  • অমানুষ হওয়াটা এতই সহজ এতই মেনস্ট্রীম যে লোকে আজকাল আর ন্যুনতম অনুভুতির তোয়াক্কাও করে না।
  • i | 59.102.67.212 | ২১ জুলাই ২০২০ ১৪:৫২95403
  • কী বলব আপনাকে ঊর্মিমালা!
    লিখলে যদি যন্ত্রণা এতটুকু লাঘব হয়, লেখা থামাবেন না। লিখতে থাকুন।
  • Sekhar Sengupta | ২২ জুলাই ২০২০ ১১:৫৩95418
  • লেখাটা পড়ে আঁতকে উঠছি। সুড়ঙ্গের শেষে আলো কি আদৌ দেখতে পাব? 

  • π | ২৩ জুলাই ২০২০ ১৯:২৬95447
  • কিছু আর বলার নেই। ঊর্মির আজকের পোস্ট।
    খবরটা পরে রইল।

    "সহযোগিতার লিস্ট টা বিডিও একা নয়৷ অনেকে। এবং অনেকে। অসহযোগিতার লিস্ট টাও অনেক লম্বা। তাতেও শুধু সাধারণ মানুষ নয়, প্রশাসন ও সিস্টেমও পরে।

    দুয়ারে দুয়ারে ঘুরেও যারা প্রিয়জনকে বাঁচাতে পারছিনা; " বেসরকারি হলে পরিষেবা ভালো হবে", " মন্দির মসজিদ হওয়াটা জাতির স্বার্থে ভীষণ দরকার" এসব বলা খুনি মানসিকতার মানুষদের দিকে করুণা ছুঁড়ে দিচ্ছি।

    "আমাদের এলাকায় হস্পিটাল হতে দেবোনা", 'পাশের বাড়ি করোনা এসে গেছে, ফ্রেন্ডস আর বাঁচবোনা", " মৃতদেহ ব্ল্যাকহোলে ভ্যানিশ করে দিন, পোড়াতে কবর দিতে দেবোনা" - এই চেনা কথা গুলো যারা চিনতে পারছে তাদের জন্যও রইলো একরাশ সমবেদনা।

    কাল আপনারও দিন আসবে।

    পার্থক্য একটাই। আপনার যখন মানুষের পাশে দাঁড়ানোর কথা ছিল দাঁড়াননি। কিন্তু আপনার পাশে দাঁড়াবো। ব্যক্তি ধরে ধরে না পারলেও আপনার ভাগের পাওনার লড়াইটা, সকলের জন্য স্বাস্থ্য শিক্ষা খাদ্য বাসস্থানের লড়াইটা এত অনিশ্চয়তার মধ্যে দাঁড়িয়েও ছাড়বোনা। কথা দিচ্ছি। সামাজিক বোধ এবং দায়িত্ব। "

    এবং চিন্তা করবেন না। কুসংস্কারগ্রস্ত হিংসাত্মক ঝামেলা পাকানো শেষে নিশ্চিন্তে ঘুমোতে যান। আজ আপনার শত বাধার মধ্যেও যারা আমাদের মতো দুর্ঘটনাগ্রস্ত মানুষের সাথে থাকছেন। কাল আপনার বিপদেও তারাই থাকবেন।

    আপনারা আমাদের জীবন অতিষ্ঠ করে তোলার চেষ্টা করতে থাকুন। আমি আমরা সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে রাখলাম।
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। হাত মক্সো করতে মতামত দিন