• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • খোয়াব চোর

    Rumela Saha ফলো করুন
    গপ্পো | ১৩ জুলাই ২০২০ | ১৭১ বার পঠিত

  • তিরতির করে বয়ে চলে পদ্মা। সূর্যের শেষ আভার স্পর্শদোষে রক্তিম নদী। জলের আয়নায় নিজেকে মেলে দেয় সে। হাজার হাজার টুকরোয় ভেঙে যায় অবয়ব। অবয়ব না সে নিজে। এক একটা ভাঙা টুকরো থেকে জন্মায় খোয়াব। জুগনুর আলো হয়ে খোয়াবরা পাড়ি দেয় আসমানে। ওই যে সারা আসমান জুড়ে ঝিলমিল করে, ওগুলো খোয়াব ছাড়া আর কি… মনের গহীনে জন্ম নেওয়া এক একটা জমাট বাঁধা আলো।

    হাতে লেগে থাকা মাটিটা পদ্মায় জমা রাখে, আলতো ভাবে। এই মাটি দিয়েই একটু আগে ঢেকে এসেছে খোয়াব চোরকে। গুলিতে ঝাঁঝরা হওয়া বৃদ্ধ শরীরটাকে।

    ইরশাদ আলি বলত- খোয়াব সবাই দেখে কিন্তু খোয়াব নিয়ে বাঁচে ক’জন? ঘুম ভাঙলেই মিলিয়ে যাওয়া নয়, জীবনভর রাস্তা দেখানোই তো খোয়াব।

    স্কুল থেকে ফেরার পথে প্রায় বিকেলে সে দেখত, নদীর ধারে অশ্বত্থ গাছে ঠেস দিয়ে বসে থাকত মানুষটা, ঝুলিতে বাঁশি।

    লোকে বলত ইরশাদ বাঁশিওয়ালা।

    বলত- এটা তো বৃন্দাবন নয়, তুমি কার জন্য বাঁশি বাজাও।

    বিনম্র হেসে ইরশাদ পদ্মার ওপার দেখিয়ে বলত- ওর জন্য, বাঁশির ডাকে ওই তীর যদি কখনও এদিকে চইলা আসে।

    লোকে বলত- পাগল।

    চোখ দুটো নেচে উঠত ইরশাদের, বলত- আল্লার মেহেরবানি।

    সুরের টানে ইরশাদের পাশে গিয়ে বসত ধ্রুপদ। লোকটার সুরে জাদু ছিল।

    বলত- বাপজান তোমার নামটা বড় মিঠা, গলা আর মনটারে এমনি মিঠা রেখো।

    সে জানতে চাইত- তুমি আর কি করো বাঁশিওয়ালা?

    ছোট্ট ধ্রুপদের মাথায় মমতা মাখিয়ে ইরশাদ বলত- খোয়াব চুরি করি।

    -সে আবার কি!

    -এই যে পুরনো করবখানা। ওখানে যাঁরা মাটির নীচে শুয়ে থাকে, তাঁদের দেখা খোয়াব আসমানে জুগনু হয়ে জ্বলে। লাওয়ারিশ সেই খোয়াবগুলি চুরি করি।

    -কী ভাবে করো?

    -সে তো তোমায় বলা যাবে না।

    ধ্রুপদ আরও কোলের কাছে এসে বলে- বলো না, কাউকে বলব না।

    -ঠিক আছে, আমার এন্তেকালের পর আমার খোয়াবটা তুমি চুরি কোরো, কেমন।

    সময়ের তাগিদে সবই সরে সরে যায়। মুর্শিদাবাদ থেকে কলকাতা কতই বা দূর? আরও দূর পদ্মার এই দু’পার, মাঝ দিয়ে ৩ প্রজন্ম সময় বয়ে গেল, দূরত্ব কমল না। জলের দাগের মতো মিলিয়ে যাওয়া বাঁশিওয়ালা ধরা পড়ল চোর হয়ে। ২৭ বছর পর।

    সে রাতে গাঁয়ে কী হল্লা, বেড়াচোরকে ধরেছে গ্রামবাসী। সীমান্তবর্তী গাঁ হওয়ায় খেতের মাঝ বরাবর কাঁটাতার লাগানো। বেশ কয়েক মাস ধরেই জায়গায় জায়গায় গায়েব হয়ে যাচ্ছে সে বেড়া। চোর যে এটাও ছাড়ে না। রীতিমতো হাসির খোরাক। সেই বেড়াচোর ধরা পড়েছে। বাঁশের খুঁটিতে দু’হাত বাঁধা বৃদ্ধ বাঁশিওয়ালা। ধ্রুপদ কেঁপে ওঠে। গাঁয়ের গুণী প্রবাসী শিল্পীকে সবাই খুব মানে। নিজের দায়িত্বে ছাড়িয়ে আনে তাঁকে, বলে- কেন এমন করো বাঁশিওয়ালা?

    বিস্মৃতির কুয়াশা মাখা চোখে অপরিচয়ের ছায়া।

    -কী করো বেড়া চুরি করে?

    বৃদ্ধের চোখে সূর্যালোক ঝলসে ওঠে, বলে- গোর দি মাটিতে।

    -কেন?

    -ওই বেজান বেড়াটার জন্য কত চোখের পানি, কত ঘৃণা, কত যন্ত্রণা, কত যুদ্ধ। যার জান নাই তার লাগি কত জান যায়, আমি রাতের আন্ধারে বেড়াটারে খুইলা লই। যেহানে বেড়া নাই সেহানে দেশভাগ নাই। সব এক, কে কইবে কোনটা দেশ আর কোনটা বিদেশ?

    -কী লাভ, এতে বিপদ আছে।

    -লাভ… যে-বেড়া আমাগো অনুমতি লইয়া তৈরি হয় নাই তারে আমরা এত পাত্তা দিমু ক্যান?

    অনেক বুঝিয়েও নিরস্ত্র করতে পারেনি ধ্রুপদ। আবার ধরা পড়ে বাঁশিওয়ালা। তবে শরীরটা। বেড়া কাটার সময় সীমান্ত রক্ষীবাহিনীর গুলিতে ঝাঁঝরা শরীরটাকে মাটির চাদরে ঢেকে এসেছে সে।

    পদ্মাপারের অশ্বত্থ গাছের নীচে বসে আসমানের দিকে তাকায় ধ্রুপদ।
    তারায় গুঞ্জরিত আসমানে কোন খোয়াবটা বাঁশিওয়ালার? খোঁজে সে।

    গত ৬৮ বছরের লক্ষ লক্ষ খোয়াবের মধ্যে হাতড়ে চলে ধ্রুপদ। সব খোয়াবই তো এক রকম দেখতে, কোনটা চুরি করবে সে…

    'দেশ পত্রিকা'য় পূর্বে প্রকাশিত
    http://desh.co.in/storydetail/-/deshstory/articleId-49101
  • বিভাগ : গপ্পো | ১৩ জুলাই ২০২০ | ১৭১ বার পঠিত
আরও পড়ুন
ক্ষমা - Rumela Saha
আরও পড়ুন
আয়না - ন্যাড়া
আরও পড়ুন
খোপ - রৌহিন
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা

  • পাতা : 1
  • Nirmalya Nag | 103.77.137.88 | ১৪ জুলাই ২০২০ ২২:২৯95215
  • ভাল লাগল।

  • করোনা

  • পাতা : 1
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত