• বুলবুলভাজা  খবর  খবর্নয়

  • কুডানকুলাম থেকে - প্রথম কিস্তি

    মুথুভেল জানাকরাজন, সতীশ এবং জোসেফ জন সুন্দর-এর লাইভ রিপোর্ট লেখকের গ্রাহক হোন
    খবর | খবর্নয় | ১২ সেপ্টেম্বর ২০১২ | ৪৯৪ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • সোমবার ১০ সেপ্টেম্বর

    রাত ১০.০০। শুধু কাঁদানে গ্যাস নয়, গুলিও চলল পরমাণু বিরোধী আন্দোলনকারীদের ওপর। থুথুকুড়ি-র মানাপাদু গ্রামে পুলিশ অ্যান্থনি সামি নামের এক প্রতিবাদী মৎস্যজীবীকে পেটে গুলি চালিয়ে মেরে ফেলেছে। অসমর্থিত সূত্রে জানা যাচ্ছে, একজন বাচ্চা মেয়ে মারা গেছে পদদলিত হয়ে। একবছর আগে আন্দোলন শুরু হওয়ার পর এই প্রথম পুলিশ আন্দোলনের কেন্দ্রস্থল ইদিনথাকারাই গ্রামে ঢোকে এবং প্রতিটি বাড়িতে গিয়ে তল্লাসী চালায় উদয়কুমার এবং অন্যান্য নেতাদের খোঁজে। পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, যদি কারোর ঘরে উদয়কুমারদের পাওয়া যায়, সঙ্গে সঙ্গে তাদের গুলি করে মেরে ফেলা হবে। অসমর্থিত সূত্রে এও জানা যাচ্ছে, উদয়কুমারদেরকে লক্ষ্য করে পুলিশ গুলি চালিয়েছিল, কিন্তু মাথা নিচু করে নেওয়ার কারণে তারা বেঁচে যায়। সারা দক্ষিণ তামিলনাড়ু জুড়ে ইতিউতি প্রতিবাদের খবর শোনা যাচ্ছে, পরমাণু বিরোধী আন্দোলনের ওপর এই পুলিশি বর্বরতার বিরুদ্ধে। প্রায় ৫০ জন গুরুতর আহত বলে জানা যাচ্ছে। ইদিনথাকারাই চার্চের সামনে ১৪ জন অনশন শুরু করেছে বলে খবর। কুদানকুলামে সরকার সমস্ত ধরনের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়ার ফলে কুদানকুলাম থেকে সরাসরি খবর পাওয়া যাচ্ছে না।

    পশ্চিমবঙ্গ থেকে ‘পরমাণু বিদ্যুৎ বিরোধী প্রচার আন্দোলন’-এর পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী, তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী এবং মানবাধিকার কমিশনের কাছে ফ্যাক্স মারফত এই পুলিশি বর্বরতার নিন্দা করা হয়েছে। দিল্লিতে ধর্না অবস্থান হয়েছে এই বর্বরতার বিরুদ্ধে। আগামী কাল কেরালার বিভিন্ন জায়গায় প্রতিবাদ সভা হবে। বিকেলে ত্রিভান্দ্রাম প্রেস ক্লাবে কুদানকুলাম আন্দোলনের ওপর মানিলা মোহনের বানানো একটি ডকুমেন্টারি দেখানো হবে। উদ্বোধন করার কথা কেরালার বিক্ষুদ্ধ সিপিএম নেতা ভি এস অচ্যুতানন্দন-এর। সকালে ত্রিভান্দ্রাম সেক্রেটারিয়েটে প্রতিবাদ বিক্ষোভ হবে।

    নিচের ছবিতে জেভিয়ার আম্মা, মৎস্যজীবী পরিবারের পরমাণু বিরোধী আন্দোলনের কর্মী, তাঁকে আজ একাধিক পুরুষ পুলিশ ধরে নিয়ে যাচ্ছে। এই জেভিয়ার আম্মা কলকাতায় ৬ আগস্ট পরমাণু বিরোধী সেমিনারে বক্তব্য রেখেছিলেন। সেই বক্তব্য সরাসরি তামিল থেকে অনুবাদ করে প্রচার করা হয়েছিল সেখানে, তার হুবহু বেরিয়েছিল সংবাদমন্থনের পাতায় এবং ওয়েবসাইটে। সেই বক্তব্য পড়তে চাইলে এখানে ক্লিক করুন। অসমর্থিত সূত্রের খবর, আরেক মহিলা কর্মী মেলট্রেড-ও গ্রেফতার হয়েছেন। তিনিও কলকাতায় ওই সেমিনারে বক্তব্য রাখেন তামিল ভাষায়। তার ছবি এবং সেমিনারে বলা বয়ান-ও আছে ওই রিপোর্টে।

    অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি ভি আর কৃষ্ণ আয়ার একটি চিঠি লিখেছেন ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রীকে :

    আমি একটি চিঠি পেয়েছি ইদিনথাকারাই গ্রাম থেকে, যেখানে আপনার ‘কেন্দ্রীয় সামরিক বাহিনী’-কে পাঠানো হয়েছে সেখানকার শান্তিপূর্ণ পরমাণু-বিরোধী আন্দোলনকে ভাঙার জন্য। আমি অনেক দিন থেকেই বলে আসছি, পরমাণু প্রকল্প, তা সে ছোটোই হোক বা বড়ো, তা আমাদের জন্য সঠিক পথ নয়। ‘সৌরবিদ্যুৎ চাই, পরমাণু বিদ্যুৎ কখনও নয়’ — এটাই আমাদের কেরালা এবং তামিলনাড়ুর জন্য স্লোগান হওয়া উচিত। আপনি অতি দ্রুত শান্তিপূর্ণ আন্দোলন ভাঙতে যাওয়া সামরিক বাহিনী প্রত্যাহার করুন। কারণ, প্রতিরক্ষা বাহিনী মানুষকে সুরক্ষা দেওয়ার জন্য, গান্ধীবাদী সত্যাগ্রহ ভাঙার জন্য নয়। প্রিয় অ্যান্টনি, মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে আপনার কর্তব্য করুন, তাদের বিরুদ্ধে গিয়ে নয়।



    দুপুর ১২.৫০। পুলিশের অত্যাচার থেকে প্রাণ বাঁচাতে সমুদ্রে ঝাঁপ দিয়েছে মানুষ। আশেপাশের গ্রামের কিছু মানুষ নৌকায় করে এসে মহিলা ও শিশুদের নৌকায় তুলে নিয়েছে। ইদিনথাকারাই গ্রামে হিংসাত্মক পরিস্থিতির খবর মিলছে। মহিলা ও শিশুরা প্রাণ বাঁচাতে স্কুলে আশ্রয় নিচ্ছে বলে শোনা যাচ্ছে। এনডি টিভিতে সরাসরি ছবি দেখানো হচ্ছে। সেন্ট লুড্রেস চার্চের সামনে ২০০০ পুলিশ দাঁড়িয়ে আছে।

    সকাল ১১.৪৫। পুলিশ লাঠিচার্জ এবং কাঁদানে গ্যাসের শেল ছোঁড়া শুরু করেছে। লোকে দৌড়চ্ছে সমুদ্রের দিকে। উদয়কুমার এসএমএস করে জানিয়েছেন, প্রশাসন নৌবাহিনী নামিয়ে চড়াও হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে।


    একাধিক পুরুষ পুলিশের কবলে পরমাণু বিরোধী মৎস্যজীবী পরিবারের মহিলা জেভিয়ার আম্মা। ৬ আগস্ট কলকাতায় একটি সেমিনারে উনি বক্তব্য রেখে গেছেন।

    সকাল ১১.০০। প্রচুর পুলিশ গ্রামবাসীদের ‘দখল’-এর নাকের ডগায় দাঁড়িয়ে রয়েছে লাঠি হাতে। তার পেছনেই আছে কাঁদানে গ্যাসের পুলিশ বাহিনী। ওদিকে চেন্নাই-এর এনপিসিআইএল-এর অফিসের সামনে তথ্য অধিকার আন্দোলনের কর্মীরা জমায়েতের ডাক দিয়েছে বিকেল তিনটেয়। দিল্লীতে তামিলনাড়ু ভবনের সামনে বিকেল তিনটেয় বিক্ষোভ সমাবেশ।

    সকাল ৯.০০। সারারাত ধরে বালির ওপর খোলা আকাশের নিচে ঘুমিয়েছে হাজার হাজার মানুষ, শিশু ও মহিলা। কুদানকুলাম পরমাণু চুল্লির পূর্বদিকের দেওয়ালের অনতিদূরে সমুদ্রের ধারে। মাঝরাতে একবার একটা গুজব উঠেছিল, পুলিশ আন্দোলনের নেতৃত্বকে গ্রেফতার করে নিয়ে যাচ্ছে, কিন্তু তা সত্য নয়। আন্দোলনের নেতৃত্বের ওপর দেশদ্রোহিতা সহ কয়েকশ’ মামলা দায়ের করে রেখেছে প্রশাসন। মানুষ বুক দিয়ে আগলাচ্ছে তাদের।আন্দোলনকারীরা স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলতে রাজি নয়, তারা চায় মুখ্যমন্ত্রী এসে বলুক, আপাতত চুল্লিতে জ্বালানি ভরার কাজ বাতিল। তাছাড়া এখানকার আশেপাশের এলাকাতে গত এগারো মাস ধরে মানুষের চলাফেরায় নিষেধাজ্ঞা জারি করে রেখেছে পুলিশ। সেই নিষেধাজ্ঞাও তুলে নেওয়া হোক, যাতে সাধারণ মানুষ এখানে নির্ভয়ে আসতে পারে, অবস্থান আন্দোলনকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারে, তাদের খাবার জল ইত্যাদি দিতে পারে।

    আন্দোলনের নেতা উদয়কুমার ডায়ানিউকের প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন, সরকার অবিলম্বে এই সর্বনাশা পরমাণু চুল্লি প্রত্যাহার করুক। এখানে উপস্থিত পঁচিশ হাজার লোক তামিলনাড়ুর বিদ্যুৎ সমস্যা সমাধান করার জন্য সহযোগিতা করতে প্রস্তুত। প্রয়োজনে তারা নবীকরণযোগ্য শক্তি উৎপাদনের প্রকল্পের কাজে স্বেচ্ছাশ্রম দেবে, বিদ্যুৎ সংরক্ষণের পক্ষে সওয়াল করবে।



    রবিবার ৯ সেপ্টেম্বর

    রাত ১০.০০। কুদানকুলাম প্রকল্পের পূর্ব দিকের দেওয়ালের পাশে সমুদ্রের তীরে খোলা আকাশের নিচে রাত কাটাচ্ছে হাজার হাজার গ্রামবাসী, শিশু, বৃদ্ধ, বৃদ্ধা, মহিলা…। পুলিশ নেই। এলাকাটিতে জেনারেটর দিয়ে আলো দেওয়া হয়েছে। রাতের সামান্য খাবারের বন্দোবস্ত হয়েছে। কুদানকুলাম পরমাণু চুল্লি ‘দখল’ চলছে।

    সারা দিনের গরম হাওয়ার পর সন্ধ্যে নেমেছে। হাজার হাজার মানুষ সমুদ্রের ধারে বসে আছে, কেউ কেউ গেছে সারা দিনের খালি পেটের পর কিছু পেটে দিতে, এদিক ওদিক। প্রতিরোধে কিছুটা আলগা ভাব এসেছে। পুলিশ-ও কিছুটা হালকা, রুটিন কাজ করছে। আন্দোলনের নেতা উদয়কুমার বলেছেন,

    আমরা সমুদ্রের তীরে কুদানকুলাম পরমাণু চুল্লির দখল নিয়েছি। আমরা পেরেছি পুলিশকে এড়িয়ে, কোনও দুর্ঘটনা এড়িয়ে এতদূর চলে আসতে। আমরা সমুদ্রের ধারে দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে অনুরোধ করছি আমাদের সাথে কথা বলতে। অনুগ্রহ করে এখানে আমাদের দেখতে আসুন। আপনাকে আমাদের দরকার।





    সন্ধ্যে ৬.০০। কুদানকুলামের ব্যবসায়ীরা আন্দোলনের সমর্থনে দোকান বন্ধ করে রেখেছে। প্রায় চার হাজার কুদানকুলামবাসী কুদানকুলামের আর সি চার্চের সামনে জড়ো হয়েছে।

    বিকেল ৪.৪৫। পূর্ব দিকের দেওয়াল থেকে পুলিশবাহিনী কমিয়ে দিয়ে তাদের পরমাণু চুল্লির গেটের কাছে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। মনে হচ্ছে সরকার তার পুরনো নোংরা খেলাটাই খেলতে শুরু করছে —অহিংস প্রতিবাদ আন্দোলনকে পাত্তা না দেওয়া। আন্দোলনকে হিংসাত্মক হতে প্ররোচিত করা। কিন্তু শাসক এবং নয়াকুলীন সমাজ গান্ধীবাদী আদর্শ পরিত্যাগ করলেও ভারতবর্ষের গরীব মানুষ তা করেনি। তাই শান্তিপূর্ণভাবেই পরমাণু প্রতিরোধ চলবে।

    দুপুর ৪.০০। মিছিল ও জমায়েতের প্রচুর ছবি ডায়ানিউক ডট অর্গ থেকে। সংবাদসংস্থা পিটিআই সহ প্রায় সমস্ত জাতীয় সংবাদমাধ্যম কুদানকুলামের মানুষের এই পরমাণু বিরোধী ব্যাপক জমায়েতকে হয় খবর থেকে বাদ দিয়ে দিচ্ছে বা কমিয়ে দেখাচ্ছে। দি হিন্দু তাদের ওয়েবসাইটে আজকের মিছিলের কোনও সরাসরি আপডেট দিচ্ছে না। পিটিআই বলছে, এক হাজারের কিছু বেশি মানুষ জমায়েত হয়েছে।

    দুপুর ৩.১৫। কুদানকুলাম চুল্লির পূর্বদিকের দেওয়ালের কাছে অস্থায়ী তাঁবু বানাবার চেষ্টা করা হচ্ছে। দুপুরের খাবারের বন্দোবস্ত করারও চেষ্টা করা হচ্ছে। খারাপ আবহাওয়া সমস্ত চেষ্টাতেই বাধ সাধছে। পুলিশ বেশ কিছু গাড়ি জুটিয়ে এনেছে। গ্রেফতার করার তোরজোড় নাকি? মানুষ সতর্ক হচ্ছে।



    দুপুর ২.১৫। ঢেউ বাড়ছে, সঙ্গে বাড়ছে লোকসমাগম। খাবার জল দেওয়া হয়েছে মানুষকে। খাবারের প্যাকেট দেওয়ার কথা হচ্ছে। গরমে মানুষ একটু ছায়া খুঁজছে। শোনা যাচ্ছে, জেলাশাসক এসেছেন। তিনি উদয়কুমারকে খুঁজছেন তার সাথে কথা বলার জন্য। কিন্তু লোকে চাইছে, প্রশাসনিক কর্তারা সরাসরি মানুষের সাথে কথা বলুক।

    দুপুর ১.৩০। জোয়ার শুরু হয়েছে। আবহাওয়া একটু ভালো হওয়ার দিকে। কুদানকুলাম পরমাণু চুল্লির পূর্বদিকের দেওয়াল থেকে শুরু করে ইদিনথাকারাই-এর পশ্চিম দিকের থুনদিল পালাম পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে মানুষের ঢল। কুদানকুলামের গ্রামগুলি থেকে এখনও আসছে মানুষ। তিরুনেলভেলির পুলিশ সুপার ভিজয়েন্দ্র বিদারি মেগাফোনে কিছু একটা বলার চেষ্টা করছেন, কিন্তু কিছু শোনা যাচ্ছে না।



    সকাল ১২.৫০। প্রায় পঁচিশ হাজার মানুষ সমুদ্রের তীরে, পূর্ব দিকের দেওয়ালের থেকে ৫০ মিটার দূরে। তিন হাজার পুলিশ জায়গাটা পাহারা দিচ্ছে। কুদানকুলাম থেকে লোকে জমায়েত হতে শুরু করেছে। পুলিশ এখানে হাল ছেড়ে দিয়েছে, কুদানকুলামের মানুষকে আসতে সহায়তা করছে। কিন্তু খবর মিলছে, পেরিয়া থালাই গ্রাম থেকে ইদিনথাকারাই গ্রামে মিছিলে যোগ দিতে আসা কয়েক হাজার মানূষকে আটকে দিয়েছে পুলিশ। ফলে সেখানকার লোকে এখন তুতিকোরিনের পানি মায়া মাধা চার্চের সামনে অনশনে সামিল হয়েছে। তুতিকোরিনের মৎস্যজীবীরা ওখানে আগে থেকেই একটি অনশনে সামিল রয়েছেন।

    সকাল ১২.১৫। কুদানকুলাম পরমাণু চুল্লির পূর্ব দিকের দেওয়ালের গায়ে থাকা পুলিশ ব্যারিকেডের ১০০ ফুট দূরে দাঁড়িয়ে জনতা। উদয়কুমার তাদের বসে পড়তে বললেন সমুদ্রের তীরে।

    সকাল ১১.৪০। মিছিল এখন কুদানকুলাম পরমাণু চুল্লির পূর্ব দিকের দেওয়ালের থেকে কয়েকশ’ ফুট দূরে। উদয়কুমা, পুষ্পরায়নরা প্রথমে আছে। তারপর বাচ্চারা, মহিলারা, পুরুষেরা। এক পা সমুদ্রে দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে বিশাল জনতা। গরম আবহাওয়া।

    সকাল ৭ টার মধ্যেই আশেপাশের গ্রামগুলি থেকে সমুদ্রপথে নৌকায় করে হাজার পাঁচেক গ্রামবাসী চলে এসেছে ইদিনথাকারাই-এ। এখান থেকে কুদানকুলাম পরমাণু চুল্লির দিকে মিছিল শুরু হওয়ার কথা ন’টা নাগাদ। ইদিনথাকারাই এর সেন্ট লুর্ডস চার্চের কাছে জমা হয়েছে মানুষ। সকাল ন’টার সময় শুরু হওয়ার কথা ছিল মিছিল, শুরু হল বেলা এগারোটায়। তার আগে যুব কমিটিগুলি নিজেদের মধ্যে বসে নিল, কিভাবে এই মিছিল সুসংগঠিত ভাবে করা যায়, তা ঠিক করে নেওয়ার জন্য। তারপর চার্চে প্রার্থনার পর শুরু হল মিছিল। মিছিল শুরুর সময় বক্তব্য রাখলেন এস পি উদয়কুমার। প্রায় তিরিশ হাজার মানুষ চলতে শুরু করল পরমাণু চুল্লির দিকে। সেখানে যে কোনও দিন পরমাণূ জ্বালানি পুরে দেওয়া হতে পারে, শুরু হয়ে যেতে পারে পরমাণু বিদ্যুৎ উৎপাদন। আশেপাশের গ্রামগুলিকে তা ঠেলে দেবে এক অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে। তার প্রতিবাদে আজ কয়েক যুগ ধরে চলা পরমাণু বিরোধী লড়াই-এর ডাকেই আজকের এই মিছিল।

     

    http://www.dianuke.org থেকে
    ছবি অ্যান্টনি কেবিস্টন ফার্নান্ডো

    অনুবাদ সৌজন্য ঃ সংবাদ মন্থন

  • বিভাগ : খবর | ১২ সেপ্টেম্বর ২০১২ | ৪৯৪ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন গ্রাহক পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কল্লোল | 125.241.99.92 (*) | ১১ সেপ্টেম্বর ২০১২ ০২:০৪89452
  • তাহলে দেখা যচ্ছে, পবয়ের মতো হাজার হাজার "গাড়োল" তানা আর মপতেও আছে, যারা "উন্নয়ন" চায় না।
    কেশের দিদি ছাড়াই মপতে হলো। এখানেও হবে। দাদারা কি বলছে?
  • শ্রমণ | 127.194.227.185 (*) | ১১ সেপ্টেম্বর ২০১২ ০৬:৫১89453
  • যে দেশের প্রধানমন্ত্রীর একবছরে রোজগার কোটিতে বাড়ে সেখানে পরমানুকেন্দ্রের জন্য গুলিই তো চলবে। আর ঐ এক গল্প। বিদেশী স্বেচ্ছাসেবীদের মদত আছে। আছে তো? মানুষ মানুষের পাশে দাঁড়ায় বলেই ঐ ইউনাইটেড নেশন বলে একটা সংস্থা আছে। বিদেশী না তো কি দেশী সেটা? হিরোশিমা-নাগাসাকি দেখেও, এটা জেনেও যে সাম্প্রতিক পারমাণবিক দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে জাপানে কোম্পানির বছরের পর বছরের ইচ্ছাকৃত ঔদাসিন্য আর শিথিলতা দায়ী, ক্ষতিপূরণের ব্যাপারও অত্যন্ত নমিনাল করে দিয়ে একমাত্র ওয়ার্ল্ড ব্যাঙ্কের দালাল ছাড়া আর কেঊ এ নির্লজ্জতা দেখাবে না।ঐ প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরে গেলে ওনার জন্যও গর্বাচেভ বা বুশের ল্যাপডগ ব্লেয়ারের মত পুরস্কার অপেক্ষা করে আছে জানেন বলেই এত লির্লজ্জ হতে পারেন এই প্রধানমন্ত্রী। কেলেঙ্কারির পর কেলেঙ্কারিতে পরোক্ষে জড়িয়ে থেকে বলে যেতে পারেন আমি তো কিছুই জানি না বা করিনি বা বুঝিনা।
    আর জয়ললিতা! শ্রীলঙ্কার তামিলদের টাইগার দমনের নামে যখন কুচিকাটা করা হচ্ছিল তখন যার ট্যাঁ-ফোও শোনা যায়নি সেই মহিলা এখন জাতীয়বাদী হয়ে শ্রীলঙ্কার খেলাধুলোর টিম তাড়িয়ে হাততালি নিচ্ছেন। আর সেই হাততালির শব্দে ঢেকে দিতে চাইছেন এই গুলি চালনার বর্বরতা। নিজের দুর্নীতির সব হিসেব। এদের চোখের চামড়াও নেই আর!
    উন্নয়ন দরকার, তবে পরমাণুকেন্দ্রের না, দরকার কিছু জানোয়ারের মানুষ নামটার প্রতি সুবিচার করার উন্নয়ন! আরে ভাই মানুষ বললেই বা মানুষের মত দেখতে হলেই যদি মানুষ হয়ে যেত তাহলে কি আর মনুষত্ব বলে একটা কথা খামোখাই মানুষ বানাতো? বাকী জানোয়ারের চেয়ে মহৎ বললেই মহৎ কেউ হবে না, হয়ে দেখাতে হবে। নইলে মানুষ একটি জন্তুই শুধু তার বেশী কিছু না।
    ওই যে কমোডের মত সংসদকে দেখতে করার জন্য ত্রিবেদীমশাইকে গ্রেপ্তার করেছে না, ওঁকে বলতে ইচ্ছে করছে ভুল এঁকেছেন মশায়। ওখানে আসলে একটা আস্তাবল আছে। সেখানের থেকে বাছাই করা খচ্চর চড়ে বিদেশী সাম্রাজ্যবাদের প্রভুরা এদেশে বাণিজ্যে বেরোন। আস্তাবল আঁকুন। কমোডে প্রাতকৃত্য দিয়ে তবু সার হয়, কফির ক্ষেতে দেওয়া যায়, কিন্তু এই খচ্চরগুলোকে দিয়ে কিছুই হয় না জনতা নামের গাধার ভার বাড়ানো ছাড়া।
  • db | 125.253.55.105 (*) | ১১ সেপ্টেম্বর ২০১২ ১০:২২89451
  • এদের দিয়ে হবেনা। দিদি কয়েকদিনের জন্যে গিয়ে নেত্য করবে তবে হবে। সঙ্গে মেধাজি অনুরাধাজি এরাও থাকবেন।জানতে ইচ্ছে করছে আমাদের গান্ধী সায়েবের হাড়গুলো হিম হল কিনা ছবিগুলো দ্খে কি বলেন জানর ইচ্ছে রইল
  • pi | 127.194.6.91 (*) | ১২ সেপ্টেম্বর ২০১২ ০৮:৪৯89454
  • Tomorrow, 13 September, 6.00 pm, College Square, Kolkata : Gathering for an All India Demonstration in solidarity with the people of Koodankulam.
  • aranya | 154.160.226.53 (*) | ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১২ ০২:৩১89455
  • ২৫ হাজার মানুষ শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করেছে,
    ২৫ হাজার নিরস্ত্র মানুষ !!!

    প্রচণ্ড হতাশার মধ্যেও কোথাও যেন একটু আশাও জাগে - মনে হয় এত মানুষের এই আন্দোলন এই মুহূর্তে যদি ব্যর্থ-ও হয়, হয়ত ব্যর্থ-ই হবে, সুপ্রীম কোর্ট রায় দিয়েছে জ্বালানি ভরা চালিয়ে যেতে, তাও এর অভিঘাত থেকে যাবে।

    কোন আন্দোলন-ই বোধহয় পুরোপুরি ব্যর্থ হয় না।
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। সুচিন্তিত মতামত দিন