• মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • dd | 59.207.62.15 (*) | ০৯ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৪:৩৩61623
  • এটা খুব ইন্টেরেস্টিং তো।

    প্রায় ৪৫ বছর আগে যখন প্রথম চাকরীতে ঢুকি সে সময়ে আমার এক আম্রিগাবাসী মামা আমাকে একটা কেলকুলেটর দিয়েছিলেন - সেগুলো তখন LEDতে চলতো। কলকেতার ঐ হুমদো কোম্পানীর সব বড়ো সাহেবরা পর্যন্ত্য আমাকে ডেকে এনে হাঁ করে দেখতেন কেলকুলেটরের কেরামতি। বিজ্ঞানের/প্রযুক্তির অগ্রগতিতে সবাই চমকে গেছিলো।

    সেইখান থেকে এতো দ্রুত দুনিয়া পাল্টে গেলো যে এখন হাঁপ ধরে যায়।

    এই AI নিয়ে এরম আরো কিছু খবরা খবর থাকলে - স্বর্ণেন্দু বা যে কেউ লিখলে - খুব খুসী হব।
  • dc | 120.227.245.71 (*) | ০৯ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৪:৫৯61624
  • " কারণ, জ্ঞান আমার বিশ্বাসে, ক্লোসড সিস্টেম পদ্ধতিতে শেখা যায় না"

    এটা কি অ্যানথ্রোপোমরফিক স্টেটমেন্ট হয়ে গেল না? এই মহাবিশ্বে সব লার্নিং সিস্টেমকেই কি ওপেন সিস্টেমে বা এক্সপেরিয়েন্স থেকেই শিখতে হবে? একদমই নন-হিউম্যান লার্নিং সিস্টেম তো ছেড়েই দিলাম, মানুষের ডিজাইন করা কোন সিস্টেমও, যদি তার মধ্যে সেল্ফ-রিয়েলাইজেশান চলে আসে, নিজের মতো করে শিখতে পারে না? আর এমনও তো হতে পারে যে সেই শেখার ধরন একেবারেই নতুন কিছু হলো, এমন কোন পদ্ধতি যা মানুষ একেবারেই ভাবতে পারে না?
  • Rivu | 106.44.28.188 (*) | ০৯ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৫:৩৭61630
  • না না রোজকার ব্যাপার তো একেবারেই নয়। ভয়ানক সিগনিফিকেন্ট জাম্প। আমার শুধু ওপেন লার্নিং টার্মটায় অসুবিধে ছিল।
  • Ribhu | 106.44.28.188 (*) | ০৯ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৫:৪২61625
  • ওপেন সিস্টেম বলতে ঠিক কি বুঝিয়েছেন লেখক? মানে লার্নিং এলগোটা ডিফাইনড নয়? তা না হলে যেকোনো মেশিন লার্নিংই তো রিওয়ার্ড/ পানিশমেন্ট বেসড কোনো ভাবে। মানে বলতে চাইছি খেলাটায় জিৎ/ হার হলো কিনা সেইটা তো বলে দেওয়া হচ্ছে আর সেটা লার্নিং প্রসেস কে ড্রাইভ করছে।

    ডিসি কে, নিজের মতো করে মানুষ (শিশু ) কিভাবে শেখে, এটা আমার খুব ইন্টারেস্ট এর জায়গা, স্পেসিফিকালি ল্যাংগুয়েজ। মানে চমস্কির ইউনিভার্সাল গ্রামার থিওরি না মানলে, শেখাটা পানিশমেন্ট/রিওয়ার্ড বেসড। কোনো রেফারেন্স থাকলে দেবেন প্লিজ।
  • dc | 120.227.245.71 (*) | ০৯ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৫:৫৫61626
  • পানিশমেন্ট/রিওয়ার্ড মডেলের কথা তো পড়েছি। কিন্তু আমার মনে হচ্ছে স্বর্ণেন্দু বাবু যেটা লিখেছেন, সেটা বড্ডো বেশী হিউম্যান সেন্ট্রিক হয়ে গেছে। দেখা যাক, উনি কিছু রিপ্লাই দিলে আলোচনাটা আরেকটু এগনো যাবে। মেশিন লার্নিং এর ফিলোজফি নিয়ে এই মুহূর্তে ডগলাস হফস্ট্যাডটার এর কিছু লেখাপত্রর কথা মাথায় আসছে, নিশ্চয়ই পড়েছেন।
  • b | 135.20.82.164 (*) | ০৯ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৬:১৯61628
  • ওপেন সিস্টেম মানে বোধ হয় বাইরে থেকে ইন্সপিরেশন। বাথটাবে জল ছলকানো, টাকে আপেল পড়া এইসব আর কি।
  • T | 129.74.180.59 (*) | ০৯ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৬:১৯61627
  • রিভুকে ক। রিগ্রেট মিনিমাইজেশন :) এবং বিবিধ ট্রি ব্রাঞ্চ সার্চ। রেভোলিউশনারি নয়। আজকাল স্ট্র্যাটেজি বেসড গেম ডিজাইনে জনতা ইউজ কচ্চে।
    এ বাদে মেশিন লার্নিং বা এ আই এর ফিলোজফি নিয়ে আলোচনা চালানোই যায়।
  • sswarnendu | 41.164.232.149 (*) | ০৯ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৯:৫৪61629
  • "খেলাটায় জিৎ/ হার হলো কিনা সেইটা তো বলে দেওয়া হচ্ছে আর সেটা লার্নিং প্রসেস কে ড্রাইভ করছে।"

    সে তো বুঝলাম, কিন্তু নিজের সাথে খেলে!

    আমি ওপেন সিস্টেম/ ক্লোজড সিস্টেম বলতে সেটাই বলতে চেয়েছি। মানে আমি ও আমার প্রতিপক্ষ একই অবস্থায়, শুরুতে দুজনেইই শুধু দাবার নিয়ম জানি মাত্র। শুধু নিজের সাথে নিজে খেলে খেলে দাবার ৬০০ বছরের ওপেনিং থিওরি ফিগার আউট করে ফেলল, আমি মেশিন লার্নিং নিয়ে কিছুই জানি না বলতে গেলে। কিন্তু এখানের রিপ্লাইগুলো পড়ে যতটা রোজকার ব্যাপার মনে হচ্ছে সেরকম সম্ভবত নয় ব্যাপারটা। আমার বোঝার ভুল হতেই পারে, জনতা লিখুক। বুঝতে চাই।

    আমার দেওয়া লিঙ্ক এ পেপারটাও আছে। আমি সেইটা বিশেষ বুঝিনি, কিন্তু এখানে জনতা সেটা সম্ভবত সহজেই পড়ে বুঝতে পারবে।
  • sswarnendu | 41.164.232.149 (*) | ১০ ডিসেম্বর ২০১৭ ০২:১০61633
  • T,
    অনেক ধন্যবাদ। এই টীকাটা খুব উপকারে লাগল আমার পক্ষে। আমার ধারণা সাধারণভাবে আমার মত যারা মেশিন লার্নিং এর কিছুই জানে না কিন্তু সাধারণভাবে এই জিনিসগুলো নিয়ে উৎসাহী তাদেরও কাজে লাগবে।

    আপনি অনুমতি দিলে এই পোস্ট টা কি আমার ফেসবুক প্রোফাইলে এই নিয়ে একটা পাবলিক পোস্ট দিয়েছিলাম ( বস্তুত হুবহু সেইটার বয়ান-ই এখানে দিয়েছি, টই-এর শিরোনামটা এখানে যোগ করা ), তার তলায় কোট করতে চাই। আপনার তো নাম জানি না, তাই T বলেই দেব। নইলে আপনি অনুমতি করলে আপনার নামসহ ও আপনি ফেসবুকে থাকলে আপনাকে ট্যাগ করেও দিতে পারি।

    মানে অনেকেই পোস্টটায় উপকৃত হবে।
  • sswarnendu | 41.164.232.149 (*) | ১০ ডিসেম্বর ২০১৭ ০২:১৪61634
  • ওহ হ্যাঁ,
    আপনি নিজে ফেসবুকে থাকলে আপনি নিজেই কমেন্ট হিসেবে এইটা লিখে এলেও অবশ্যই চলবে।
    আমার পোস্ট এখানে
    https://www.facebook.com/sswarnendu/posts/1928506533832383
  • T | 129.74.180.59 (*) | ১০ ডিসেম্বর ২০১৭ ০২:১৯61635
  • হ্যাঁ হ্যাঁ নিশ্চয়ই। T নামেই দিয়ে দিন।
  • sswarnendu | 41.164.232.149 (*) | ১০ ডিসেম্বর ২০১৭ ০২:৩৬61636
  • অনেক ধন্যবাদ।
  • sswarnendu | 41.164.232.149 (*) | ১০ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৯:৪৫61631
  • জাম্পটা নিয়ে আর একটু বিশদে লিখুন না। মানে দাবার ইঞ্জিন নতুন কিছু না আদৌ, সেগুলোর মানুষকে এলেবেলে করে দেওয়াও নয়। কিন্তু তাদের 'ইভ্যালুয়েশন ফাংশন' এ মানুষের খানিক ভূমিকা আছে। মানে কিছু পজিশনাল কন্সিডারেশন সেগুলোর মধ্যে ইমপ্লিসিটলি আছে শুরু থেকেই। শুধুই ব্রুট ফোর্সে ক্যাল্কুলেট করেই কেল্লা ফতে করার উচ্চাশা বহুকাল মাটি নিয়েছিল, কারণ দাবার সার্চ ট্রি সেইটা করার পক্ষে বিরাট।

    তাই আমার কাছে এইটা ভীষণ ধাঁধার। কোন ওপেনিং ডাটাবেস নেই, এন্ডগেম টেবলবেস নেই, গেম ডাটাবেস নেই, মানুষের তৈরি ইভ্যালুয়েশন ফাংশন ও নেই। শুধুই নিজের সাথে নিজে খেলে খেলে শিখে ফেলছে, শুধু দাবার নিয়মটুকু জেনে আর একটা রিইনফোর্সমেন্ট লার্নিং অ্যাল্গো দিয়ে, আমার কাছে এইটা দার্শনিকভাবে ট্রু ক্রিয়েটিভিটির খুব কাছাকাছি।
  • T | 129.74.180.59 (*) | ১০ ডিসেম্বর ২০১৭ ১২:৫২61632
  • খুব স্বাভাবিক যে গেম ইঞ্জিন গুলো চেস সার্চ ট্রি এক্সহস্টিভলি সার্চ করবে না। কেনই বা করবে, ভোর হয়ে যাবে সেক্ষেত্রে। তো, ন্যাচারেলি লক্ষ্যটা এটাই থাকে যে কিভাবে সার্চ ট্রি ব্রাঞ্চ ইভ্যালুয়েশন কমানো যায় এবং খুব তাড়াতাড়ি অপটিমাম মুভ কষে বার করা যায়। এইটা মাথায় রেখে প্রথমে মিনিম্যাক্স অ্যালগোরিদম বার করা হয়। মিনিম্যাক্স অ্যালগোরিদমের উন্নততর ভার্সন হিসেবে পরে আসে আলফা-বিটা প্রুনিং অ্যালগোরিদম। আদতে গেম সার্চ ট্রির বিবিধ ডালপালা কিভাবে ছেঁটে ফেলা যায়, প্রুনিং তারই কৌশল। এইকাজে প্রতিটি ট্রি ব্রাঞ্চের প্রতিটি নোডে দুই পক্ষের পজিশনের উপর ভিত্তি করে একটি ইভ্যালুয়েশন ফাংশন বলে দিত এই নোডের এখন কি অবস্থা। এই ভ্যালু ব্যবহার করা হত আদতে অন্যান্য ব্রাঞ্চ বা ডালপালা ছাঁটতে। আমরা যেসব চেস প্রোগ্র্যাম খেলতুম, যথা আগেকার জিএনইউ চেস বা হালফিলের স্টকফিশ ইত্যাদি সবই এই আলফা বিটা প্রুনিং টেকনিক ব্যবহার করে। ধরা হয় এটিই সবচেয়ে ফাস্টেস্ট টেকনিক।
    কিন্তু এইটা ছাড়া আরেকটা পদ্ধতি আছে। সেটা হচ্ছে মন্টিকার্লো ট্রি সার্চ। এখানেও ট্রির ডালপালা ছাঁটা অন্যতম উদ্দেশ্য, কিন্তু সেটা কিভাবে করা হচ্ছে তার মধ্যে তফাত আছে। এইক্ষেত্রে যেটা হচ্ছে সেটা হ'ল, বিভিন্ন চাইল্ড নোডগুলোর মধ্যে কোনটাকে সিলেক্ট করে আরো গভীরে যাওয়া হবে, ফর মোর ডিপার অ্যানালিসিস, সেটা একটি নির্দিষ্ট সূত্রের উপর নির্ভর করে। যেকোনো সার্চ প্রবলেমের ক্ষেত্রে একটা মেজর ইস্যু হচ্ছে এক্সপ্লোরেশন ভার্সেস এক্সপ্লয়টেশন। মানে পরশপাথর খোঁজার ব্যাপারে বেশী বেশী জায়গায় খুঁজবেন না কোনো একটি জায়গায় বেশী কোরে খুঁজবেন, সেই ডিলেমা। তো, একটা হিউরিস্টিক রুল মেনে ট্রি এর চাইল্ড নোড গুলোর কোন টা ধরে এগোনো হবে সেটা ঠিক করা হয়। ফাইনাল আউটকাম মানে জিতলেন না হারলেন তার উপর ভিত্তি করে চাইল্ড নোডের ভ্যালু (কতগুলো ম্যাচ খেলে কতগুলোয় জিতলেন) আপডেটেড হতে থাকে। কোনো পজিশনাল সিচ্যুয়েশনের উপর নয়। ফলে এই সার্চের সুবিধে হচ্ছে যে এর কোনো ইভ্যালুয়েশন ফাংশন দরকার পড়ে না। জাস্ট গেম রুল গুলো বললেই হয়। পুরোনো টেকনিক। কিন্তু মন্টি কার্লো ক্যানো? কারণ এই ব্যাপারটা বারবার রিপিটেড হতে থাকে। প্রতিবার ট্রি নতুন নতুন গেম সিকোয়েন্স এবং আউটকাম খুঁজে পায়। যতক্ষণ না থামাচ্ছেন চলতেই থাকে। ইন জেনারেল এই কাজটা কিন্তু স্লো, মানে আলফা বিটা প্রুনিং এর তুলনায়।
    কিন্তু যদি এর মধ্যে 'হিউম্যান টাচ' দেওয়া যায়? মানে, এ তো বার বার বিভিন্ন গেম খেলে চলেছে। অর্থাৎ, কিছু ইনপুট (পজিশন) এবং আউটপুট (উইন/ড্র/লস) পাওয়া যাচ্ছে। যদি এইবার এদের মধ্যে একটা ফাংশন ফিট করানো যায়। যদি এই ফাংশনের প্যারামিটার গুলো প্রতিবার মন্টিকার্লো ইটারেশনের সাথে সাথে আপডেটেড হতে থাকে। ফলে একটা মুভ সিকোয়েন্স থেকে জেতার প্রবাবিলিটিও বেরিয়ে আসতে পারে। তাহলে যেটা হতে পারে সেটা হল মন্টিকার্লো ট্রি সার্চকে আরো ভালো শিকারী কুকুরে পরিণত করা যায়। সব চাইল্ড নোড ইভ্যালুয়েশনের দরকার নেই। যেটা জেতার প্রব্যাবিলিটি ম্যাক্সিমাম করছে সেই ব্রাঞ্চটাই নেওয়া যেতে পারে। এরপর ঐ নির্দিষ্ট জেতার প্রব্যাবিলিটি অনুযায়ী চাল দিয়ে এগিয়ে গেলেই হল।
    ঠিক এই কাজটাই এই পেপারে একটা ডিপ নিউরাল নেটওয়ার্ক দিয়ে করা হয়েচে। ডিপ লার্নিং প্রচুর ভেলকি দেখাচ্ছে, ফলে এরকম যে হবে সেটা এক্সপেক্টেড। আলফা জিরো তাই স্টকফিশকে হারাতে পেরেছে।
    কিন্তু এইবার মাথায় রাখতে হবে যে উল্টোপক্ষ অর্থাৎ স্টকফিশ কিন্তু তার চেস ওপেনিং ডেটাবেস ব্যবহার করেনি।
    এছাড়া আরেকটা ব্যাপার যেটা সেটা হল, চেস বা গো খেলায় উন্নততর প্রোগ্যামের আবিষ্কারকে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের পিনাকল বলে একটা প্রচার চলে। কিন্তু এটা মানতে অসুবিধে আছে। কারণ, খুব সামান্য কম্পিউটর ভিশনেই এখনো প্রচুর সমস্যা রয়ে গেছে, যার সমাধান এ আই এর বিবিধ অ্যাচিভমেন্টের জন্য নেসেসারি। তো, আমরা যেটা দেখতে পাচ্চি, যেটা হল বিভিন্ন সমস্যার কাস্টমাইজড সমাধান যা ঠিক ইন্টেলিজেন্স বলে বোধহয় বলা যায় না। সামগ্রিক ভাবে মানুষের বুদ্ধি ও চিন্তা ভাবনা করার ক্ষমতার তুলনীয় অর্থে এ.আই এখনো শিশুস্তরেই রয়ে গেছে। ফলে ঐ মানুষ অবশেষে দ্বিতীয় না ভাবাই ভালো।
  • rivu | 117.0.228.218 (*) | ১১ ডিসেম্বর ২০১৭ ০২:৫০61637
  • T যা লিখেছেন তার থেকে বেটার কিছু সংক্ষেপে লেখা সম্ভব ছিল না। পরে কখনো একটু বড়ো করে লেখার ইচ্ছে রইলো যতটুকু বুঝি। "তো, আমরা যেটা দেখতে পাচ্চি, যেটা হল বিভিন্ন সমস্যার কাস্টমাইজড সমাধান যা ঠিক ইন্টেলিজেন্স বলে বোধহয় বলা যায় না" এইটা ভীষণ সত্যি। এবং আমার মনে হয় এই জেনেরিক ইন্টেলিজেন্স এর প্রচেষ্টা থেকে বেরিয়ে এসে বেসিক কগ্নিশন (ভিসুয়াল, খুব স্বল্পমাত্রায় ল্যাঙ্গুয়েজ
    ) এর দিকে ফোকাস করা হয়েছে বলেই আপাতত এ আই এর এতো বার বাড়ন্ত। নরভিগ এর বই এ বোধ হয় এরকম একটা কথা ছিল যে এরোপ্লেন বানানোর জন্যে রাইট ব্রাদার্স পাখি কি ভাবে ওড়ে সেটা না ভেবে এরোডিনামিক্স এর ফিজিক্স এর উপরে ফোকাস করেছিলেন, তাই শেষ পর্যন্ত সেটা সম্ভব হয়।
  • Arghya Mukherjee | ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০১:৪৩97584
  • লেখাটা সুন্দর তবে মানুষ দ্বিতীয় এই কথাটা হয়তো ততটাও সত্যি নয় | দুটো উদাহরণ দিতে চাই : 


    ১ ) প্লাসকেট পাজল কিন্টু কোনো চেস ইঞ্জিন এখনো সমাধান করতে পারেনি, আলফা জিরো পেরেছে কিনা সেরকম কোনো খবর নেই | মানুষ কিন্তু পেরেছে 


    2) আলফা জিরো অনেকটা মানুষের মতো বিশ্লেষণ করে, ২০১৭ সালের এই সিরিজটাতেই কয়েকটা খুব স্পষ্ট উদাহরণ দেখা যায় যেখানে আলফা জিরো সরাসরি তাল বা নিমজোভিচের দেওয়া দান দিয়েছে 


    আমার মনে হয় মানুষের বিশ্লেষণী ক্ষমতা অনেকটাই বেশি এবং তার ধারেকাছেও যন্ত্র এখনো অব্দি এগোয়নি , যন্ত্র তাড়াতাড়ি প্রচুর গণনা নির্ভুল করতে পারে তাই হয়তো কিছুটা এগিয়ে 

  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লুকিয়ে না থেকে প্রতিক্রিয়া দিন