• হরিদাস পাল  ব্লগ

  • সরদার বেগম

    Sarit Chatterjee লেখকের গ্রাহক হোন
    ব্লগ | ১৪ মে ২০১৭ | ১৩৭ বার পঠিত
  • জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
  • সরদার বেগম

    ১৯৩৪ সাল। লুধিয়ানার এক আদালতে ১৩ বছরের একটা ছেলেকে জজসাহেব জিজ্ঞাসা করলেন, তুমি কার সঙ্গে থাকতে চাও আব্দুল হায়ি?
    ছেলেটা শুধু একবার ঘৃণার দৃষ্টিতে তাকাল তার পিতার দিকে, তারপর কাঠগড়ায় দাঁড়ানো অপরূপ সুন্দরী সরদার বেগমের ত্রস্ত চাহনির জবাবে দৃঢ় কণ্ঠে বলল, আমার মায়ের সঙ্গে।

    শুধু রূপের খাতিরে সরদার বেগমকে বিয়ে করেছিল লুধিয়ানা শহরের মাঝারিমাপের জমিদার ফজল মোহম্মদ। মদ্যপ, দুশ্চরিত্র, নৃশংস। কাশ্মিরের এক মধ্যবিত্ত পরিবারের এই মেয়েটার প্রথাগত শিক্ষা তেমন কিছু ছিল না। কিন্তু তা সত্ত্বেও একমাত্র সন্তানকে নিয়ে ঘর ছেড়ে বেরিয়ে এসেছিলেন তিনি, আদালতের শরণাপন্ন হয়েছিলেন বিবাহবিচ্ছেদের জন্য। কিন্তু অত সহজ ছিল না সেটা। ফজল মোহম্মদ ছেলের দখল দাবী করেছিল। ছ'বছর চলেছিল সেই মোকদ্দমা। অবশেষে সেই সন্তানের বিবৃতির ওপর ভরসা করে আদালত সরদার বেগমের হাতে তুলে দেয় তাকে মানুষ করার দায়িত্ব, মেনে নেয় এক মা'য়ের অধিকার। কিন্তু তার বদলে সেই মাকে ছেড়ে দিতে হয় ভরণপোষণের আর সম্পত্তির ন্যায্য অধিকার।

    অমানুষিক পরিশ্রম করে ছেলেকে মানুষ করছিলেন তিনি। একসময় লুধিয়ানা রেলস্টেশনের পাশে এক কুঁড়েঘরে থাকত মা আর ছেলে। ভালো ছাত্র ছিল আব্দুল। পাঠ্যক্রমের বাইরে উর্দু আর ফারসি শিখেছিল মৌলানা ফারাজ হরিয়ানবির কাছে। পরে, লাহোরে দয়াল সিং কলেজে পড়াশুনো করেছিল সে।

    ১৯৪৫ সালে তার প্রথম কবিতার বই, 'তলখিয়াঁ' ছাপা হয়। ১৯৪৬ সালে বাংলার মন্বন্তরের ওপর প্রকাশিত হয় তার কাব্যগ্রন্থ, 'কাহত্-এ-বংগাল'। তার শায়রির ধার সহ্য না করতে পেরে পাকিস্তান সরকার গ্রেপ্তারীর পরোয়ানা জারি করেছিল। দেশভাগের কয়েকমাস পর ভারতে ফিরে আসতে বাধ্য হয় আব্দুল।

    উর্দু ও হিন্দি কবিতার জগতে ওর খ্যাতি বাড়তে থাকে। একদিন ডাক আসে শচিনদেব বর্মনের কাছ থেকে। ১৯৫১ সালে শচিনদেবের সুর আর ওর শব্দমালায় সৃষ্টি হয় ছায়াছবি 'বাজি'। তার ক'বছর পর আসে 'পেয়াসা'। ভারতবর্ষে সেদিন এমন কেউ ছিল না যে এই বিস্ময়কর প্রতিভার নাম শোনেনি।
    ততদিনে অবশ্য আব্দুল হায়ি তার পিতৃদত্ত নাম ছেড়ে শুধু পোশাকী নামটাই ব্যবহার করতেন।
    সাহির লুধিয়ানবি।

    কবি লিখলেন, 'আগে ভি, জানে না তু, পিছে ভি, জানে না তু, যো ভি হ্যায়, বস য়হি ইক পল মে', গাইলেন আশা ভোঁসলে।
    লিখলেন, 'তু হিন্দু বনেগা না মুসলমান বনেগা, ইন্সান কি ঔলাদ হ্যায় ইন্সান বনেগা', গাইলেন মোহম্মদ রফি।
    লিখলেন, 'আল্লাহ তেরো নাম, ঈশ্বরও তেরো নাম', গাইলেন লতা মঙ্গেশকর।
    লিখলেন, 'মেরে দিল মে, আজ কেয়া হ্যায়, তু কহে তো ম্যায় বতা দুঁ', গাইলেন কিশোর কুমার।
    লিখলেন, 'অ্যায় মেরে জোহরাজঁবি', গাইলেন মান্না দে।

    বছরের পর বছর তিনি চমকে দিচ্ছিলেন সবাইকে তাঁর গান দিয়ে। দু'বার সর্বশ্রেষ্ট গীতিকারের পুরস্কার, পদ্মশ্রী পুরস্কার, এ সবই পান তিনি তাঁর কলমের জোরে।

    কিন্তু শৈশবের যন্ত্রণা তাঁর পিছু ছাড়েনি। বহু নারীর সান্নিধ্য পেয়েছিলেন, যেমন কবি অমৃতা প্রিতম, কণ্ঠশিল্পী সুধা মালহোত্রা, কিন্তু কোনদিন বিবাহ করেননি। অতিরিক্ত মদ্যপান করতেন, ভয়ঙ্কর রাগ ছিল।

    নিজের সম্বন্ধে তিনি বলতেন, আমি আর কবি হলাম কখন? শুধু তো সিনেমাতে গান লিখি। তাই বোধহয় লিখেছিলেন, 'ম্যায় পল দো পল কা শায়র হুঁ, পল দো পল মেরি কহানি হ্যায়, পল দো পল মেরি হস্তি হ্যায়, পল দো পল মেরি জওয়ানি হ্যায়' ...

    "मैं पल दो पल का शायर हूँ, पल दो पल मेरी कहानी है
    पल दो पल मेरी हस्ती है, पल दो पल मेरी जवानी है
    मुझसे पहले कितने शायर, आए और आकर चले गए,
    कुछ आहें भरकर लौट गए, कुछ नग़मे गाकर चले गए
    वो भी एक पल का किस्सा थे, मै भी एक पल का किस्सा हूँ
    कल तुमसे जुदा हो जाऊँगा, जो आज तुम्हारा हिस्सा हूँ"

    কিন্তু গল্পটা শুরু করেছিলাম সরদার বেগমকে নিয়ে। তাঁর কী হলো?
    শেষ জীবন পর্যন্ত ছেলের সঙ্গেই ছিলেন তিনি সাহিরের জুহুর বাংলোতে। অসম্ভব ভালোবাসতেন সাহিরকে। ওর কোনও বন্ধু এলেই অনুযোগ করতেন, 'পুত্তর, বহুৎ পীতা হ্যায় সাহির আজকল, মনা করো না!'

    ১৯৭৬ সালে মারা যান সরদার বেগম। অনেকের ধারণা মায়ের জন্যই কোনদিন বিয়ে করেনি সাহির। এক প্রখ্যাত অতিমানব তো 'ইডিপাস কম্প্লেক্স' বলে আখ্যাও দিয়েছিল এই সম্পর্ককে।

    চারবছর পর ১৯৮০ সালে মাত্র ৫৯ বছর বয়সে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে চিরবিদায় নিলেন সাহির।
    যদিও তাঁর অদ্ভুত কলম আগেই তাঁর ডেথ পোয়েমটি লিখে গেছিল ...

    "कल और आयेंगे नगमो की खिलती कलियाँ चुनने वाले,
    मुझसे बेहतर कहनेवाले,
    तुमसे बेहतर सुननेवाले;
    कल कोई उनको याद करे,
    क्यूँ कोई मुझको याद करे?
    मसरूफ ज़माना मेरे लिए क्यूँ
    वक़्त अपना बर्बाद करे?"

    মায়েদের তো জগত চিরকাল তাদের কৃতি সন্তানের মধ্যে দিয়েই চিনে এসেছে। তারা যে মায়ের জাত! সন্তানের পরিচয়েই তাদের পরিচয়।
    তাই এভাবেই মাতৃদিবসে এক মা'কে শ্রদ্ধা জানালাম।

    সরিৎ চট্টোপাধ্যায়
    ১৪০৫২০১৭
  • বিভাগ : ব্লগ | ১৪ মে ২০১৭ | ১৩৭ বার পঠিত
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • dc | 132.178.22.26 (*) | ১৫ মে ২০১৭ ০১:৪১59787
  • দারুন ভাল্লাগলো। লেখাটাও ভাল্লাগলো, আর ইয়ে কবিতাগুলোও ভাল্লাগলো।
  • San Gita | 53.251.173.6 (*) | ১৫ মে ২০১৭ ০১:৫৪59788
  • সাহির লুধিয়ানভি আমার খুব পছন্দের কবি।
  • সিকি | 158.168.96.23 (*) | ১৫ মে ২০১৭ ১১:০৭59786
  • বাঃ।
  • pi | 57.29.247.192 (*) | ১৬ মে ২০১৭ ০২:২৩59789
  • ভাল। কিন্তু ঐ যে লিখেছেন না,' মায়েদের তো জগত চিরকাল তাদের কৃতি সন্তানের মধ্যে দিয়েই চিনে এসেছে। তারা যে মায়ের জাত! সন্তানের পরিচয়েই তাদের পরিচয়।' , এবার একটু উল্টোটাও হোক ? মায়ের পরিচয়ে সন্তানের পরিচয় ? বা, যার যার নিজের কাজে নিজের পরিচয়ই তো আরো ভাল। কাছের কেউ ভাল কিছু করলে, তার আনন্দ তো অন্য জায়গায়, পরিচয় ছাড়াও সেটা আসে।
    আর এই যে সন্তানের মধ্যে দিয়েই মায়েদের নিজেকে তুলে ধরা, নিজের কিছু করার থাকলেও তা না করে, গুণ থাকলে তার ব্যবহার না করে, কখনো বাধ্য হয়ে, কখনো বাই চয়েজ, এটাকেই গ্লোরিফাই করা আর কতদিন চলবে ? বাবাদের জগত যখন সাধারণভাবে এভাবে গড়ে ওঠে না, তখন মায়েদেরটাই বা আর কতদিন ও কেন ?
  • PM | 52.110.172.151 (*) | ১৬ মে ২০১৭ ০৪:১৪59790
  • সোহা আলি কে লোকে শর্মিলা থাকুরের মেয়ে, সওলিকে তৃপ্তি মিত্রের মেয়ে, রইমা সেন সুচিত্রা সেনের মেয়ে মায় কোন্কোনা সেনকেও অপর্না সেনের মেয়ে বোলতেই অনেকে বেশি স্বচ্ছন্দ। ছেলে মেয়ে প্রতিভায় মা বাবা কে ছপিয়ে না গেলে মা বাবর নামেই পরিচিত হবে।।না হলে উল্টোটা।।
  • pi | 57.29.247.192 (*) | ১৬ মে ২০১৭ ০৪:১৮59791
  • এখানে ব্যতিক্রম না, 'মায়েদের তো জগত চিরকাল তাদের কৃতি সন্তানের মধ্যে দিয়েই চিনে এসেছে' , এই জেনেরালাইসড স্টেটমেন্টটা নিয়ে বলেছি।

    আর আপনি তো সেইসব সন্তানদের নাম করলেন যাদের লোকজন তাও চেনে, নাম করতে চাইলে সেরকম আরো নামও করা যায় , যেখানে সন্তান পরিচিতই নয়, আর জগতে কৃতী, পরিচিত মহিলা নেই, এমন তো নিশ্চয় না।
  • dc | 132.164.224.231 (*) | ১৬ মে ২০১৭ ০৪:৩০59792
  • সে তো কচির মা আর পুঁটির মেয়ে দেরও সবাই চেনে :p
  • de | 24.139.119.175 (*) | ১৬ মে ২০১৭ ০৬:০৮59793
  • ভারী ভালো লেখা -
  • পুপে | 131.241.184.237 (*) | ১৬ মে ২০১৭ ০৬:২৪59794
  • "যার যার নিজের কাজে নিজের পরিচয়ই তো আরো ভাল।" - একদম একমত পাইদি। সরদার বেগমের সন্তান খ্যাতিমান হয়েছেন, পুরস্কার পেয়েছেন - খুবই ভালো কথা। কিন্তু সন্তান যদি কালে কালে প্রখ্যাত না-ও হয়ে উঠতেন, তাতেও তখনকার দিনে তখনকার সমাজে অন্যায়ের প্রতিবাদ করে, "মানিয়ে" না নিয়ে, ঘর ছেড়ে বেরিয়ে এসে সিঙ্গল মাদার হয়ে জীবন-যাপন করার সিদ্ধান্ত নেওয়াটাই একটা বিরাট অ্যাচিভমেন্ট।
    সরিৎ, আপনাকে ধন্যবাদ এমন একজনের কথা তুলে ধরার জন্য। ভাল লাগলো।
  • Sarit Chatterjee | 132.177.136.63 (*) | ১৬ মে ২০১৭ ১২:১৩59795
  • pi
    লক্ষ্য করুন আমি কী লিখেছি।
    'তারা যে মায়ের জাত!'
    ওই বিস্ময়বোধক চিহ্নে এই ব্যাপারে আমার অভিমত বা বিদ্রূপটুকু লুকিয়ে আছে।
    সকলকে ধন্যবাদ লেখাটা পড়ার জন্য।
    সরিৎ
  • বিপ্লব রহমান | 340112.231.126712.74 (*) | ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ০২:৫১59796
  • সাহির লুধিয়ানভি সম্পর্কে জেনে ভাল লাগলো। লেখার ভেতরের হিন্দিটুকুর ভাবানুবাদ থাকলে আরো ভাল হতো। সেটুকু ধরতে পারলাম না।
  • শিবাংশু | 5645.249.2378.139 (*) | ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ০৭:২৮59797
  • বিপ্লবের জন্য,

    "....কবিতার আধফোটা কুঁড়িগুলি চয়ন করতে
    কাল অনেকেই আসবে
    আমার থেকে ভালো কথক
    তোমার থেকে ভালো শ্রোতা
    কাল কেউ তাদের মনে রাখবে
    কেনই বা মনে রাখবে আমায়
    ব্যস্ত জীবন কেন আমার জন্য
    অপচয় করবে নিজের সময়

    (আমি দু'এক মূহুর্তের কবি
    আমার কথা শুধু মূহুর্তের জন্য
    আমার অস্তিত্ব দু'এক মূহুর্তের
    আমার যৌবনও দু'এক মূহুর্ত...)
  • গবু | 2345.110.564512.109 (*) | ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ১১:৩৫59798
  • শিবাংশুর যুগলবন্দিতে একটা "ওয়াহ" রেখে গেলাম। সরিৎবাবুকেও অনেক ধন্যবাদ
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। বুদ্ধি করে প্রতিক্রিয়া দিন