• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • উটের পাকস্থলী

    Soumit Deb
    বিভাগ : ব্লগ | ৩০ আগস্ট ২০১৬ | ৪৮ বার পঠিত
  • বর্তমানে গোয়েন্দাকাল চলছে। একের পর এক ছবি হচ্চে। ডিরেক্টর ওয়াইস বদলে যাচ্ছে সত্যান্বেষীদের অ্যাটায়ার, স্যাটায়ার বা তুখোড় রাফটাফানিসম। রোম্যান্টিকও বটে। কিন্তু কাল বড় বিচিত্র বস্তু। সেই নিয়মেই কয়েকবছর বাদে উঠে যাবে রজনী সেন রোডের বাড়িখানার কপিরাইট। সব্বাই লাইসেন্সপ্রাপ্ত হবেন থার্টি টু কোল্টের। সেই অদূর ভবিষ্যতের কিছু ছবির নাম ও গল্প ক্যামন হতে পারে সেইটে নিয়ে, জাস্ট ভাঁট বকতে বকতে কয়েকটা কাল্পনিক সিদ্ধান্তে আসা গ্যাছে। ইহার সহিত বাস্তবের কোনো মিল ছিলোনা,নেই, থাকবেও না। তা সত্ত্বেও কেউ কোনো মিল খুঁজে পেলে তাতে আমার, আমার বাবার, আমাদের পাড়ার টোটো চালকের কারোরই কিচ্ছু করবার নেই।



    "মগন, মোহন অ্যান্ড মোর"

    আর কিছু থাকুক না থাকুক সংলাপ হবে অসম্ভব স্মার্ট-ডবলমিনিংওয়ালা-মজাদার-শুনতেভালো। যেমন

    মগন- আমি তবে কুনো রেসপনসিবিলিটি নিতে পারবোনা মিস্টার মিত্তির, এ আমি বুলে দিলাম

    মোহন- যা ব্বাবা, ডিভোর্সি বাবার মত কথা বলছেন ক্যানো?

    ফে- মোক্ষম

    ছবিতে লালমোহন বাবু উনিশকুড়ি প্রেমের গল্প লেখেন। ক্যানো কিশোর সাহিত্য বলা হয়, কিশোর-কিশোরী সাহিত্য বলা হয়না, তাই নিয়ে মুখ খোলেন। কিউপিড ছদ্মনামে। তাই তার ভয়ের ভেতরেও একটা স্মার্টনেস থাকবে। গল্পটা হবে ছিন্নমস্তার অভিশাপ, বোসপুকুরে খুনখারাপি, নেপোলিয়ানের চিঠি ও স্বরচিত একটি গল্প অবলম্বনে। কারন ওই তিন গল্প মিলিয়ে দিতে পারলে যে কোনো তিন সুন্দরীকে তিনটে ইম্পর্টেন্ট চরিত্রে কাস্ট করতে কোনো অসুবিধে হবেনা।

    সিনেমায় চারটে গান থাকবে। একটায় কলকাতার বিষন্নতা, একটায় বারাসাতের জানলা, একটায় তিন নারীর একাকিত্ব, একটা টাইটেল ট্র‍্যাক।



    "মিত্র Vs মিটার"

    চিত্রনাট্য অবশ্যই টিনতোরেত্তোর যীশু অবলম্বনে লেখা হবে যাতে "ধর্ম" নিয়ে সেই ডায়ালগখানা আবার ব্যবহার করা যায়। কারন কে না জানে থ্রি ইস দা চার্ম। চিত্রনাট্যে বিলেত থেকে আসলি দাবীদার যার সাথে লিভ ইন করেন তিনি লাহাবাড়িতে খুঁজে পাবেন নিজের রুট। ক্লাইম্যাক্স হবে টেরিটি বাজারে। শীতকালের সকালে। সবচাইতে বেশি হিট করবে পার্কস্ট্রিটের কোনো পাব-এ টিটকিরি সুলভ আমন্ত্রনের উত্তরে উকুলেলে ভাঁজিয়ে গেয়ে দেওয়া ফেলুদার লেননগীতি। শেষে গল্প বেশ কয়েকবছর এগিয়ে যাবে। তোপসে আলটিমেটলি ওর গার্লফ্রেন্ডকেই বিয়ে করেছে। ফেলুদা গেলাস হাতে তাদের ঝগড়া সামলাচ্ছেন। লালমোহনের কোনো খোঁজ নেই।

    বেশ অনেককটা গান থাকবে। কলকাতা নিয়ে, তোপসে আর তার গার্লফ্রেণ্ডের বিচ্ছেদ নিয়ে, কলকাতা নিয়ে, রহস্যের বিষাদ নিয়ে, কলকাতা নিয়ে, টাইটেল, কলকাতা নিয়ে ইত্যাদি।



    "খোঁজেনা সে খোঁজেনা"

    যেহেতু অ্যাডাপ্টেশন, সুতরাং শুধুমাত্র ক্যারেক্টারগুলো ধার নেওয়াটাই শ্রেয়। গল্প হবে সুপারহিট তামিল থ্রিলার অবলম্বনে। মেগাস্টার ফেলুদা, সুপারস্টার লালমোহন, স্টার তোপসে। মারকাটারি অ্যাকশন, তুখোড় সেট, দুদ্দাড় লোকেশন, জমাটি ক্লাইম্যাক্স। ছটা গান। তিনটে নায়িকা। দুরন্ত বোম্বে রির্টান ভিলেন। বাইকের ভুমিকায়
    সেরা কোনো কোম্পানী। সবচাইতে বেশি হিট করবে টাইটেল ট্র‍্যাক খানা

    লে পচা লে দেখে যা ঠাঁট
    ছয় ফুটে মন লুটি টোটাল উল্লাট

    চোর পালালেই বুদ্ধি খোলে
    পেছনে হাতকড়াও দোলে
    ধরবে শুধু দাদাই জানে
    মুন্নি থেকে সিলু

    দাদার মাথায় মেশিন আছে, বারুদ মাখা ঘিলু
    দাদা মাথায় মেশিন আছে, বারুদ মাখা ঘিলু

    (কোরাস)

    মগওওওওওও, মগজাস্ত্র



    "দাদা ক্যানো গোয়েন্দা"

    এক কিংবদন্তীর হাত ধরে ফিরবেন আরেক কিংবদন্তী। গল্প অবশ্যই গোলাপী মুক্তা রহস্য। সিনেমার স্বার্থে সেটা হাল্কা বদলে যাবে। গোটাটাই ইণ্ডোর শুট। নাহলে ম্যাজিশিয়ান সেট ডিসাইনার শুধু পর্দা বদলে এই করে দেবেন গ্রাম আর এই কলকাতা। ক্লাইম্যাক্সে জনতার হাত থেকে উদ্ধার করে মগনলালকে পুলিশের হাতে তুলে দেবে ফেলুদা। একটু আগেই যে আকাশ থেকে সাদা অ্যাম্বাসাডার ঝরছিলো সেখান থেকেই শুরু হবে পুষ্পবৃষ্টি। স্লো মোশনে হেঁটে বেরিয়ে যাবে ফেলুদা অ্যান্ড কোং।

    গান থাকবে তবে সেগুলো হিট করবে একমাত্র মফঃস্বলে। ফলে বেশিরভাগ মানুষই তার কথা জানতে পারবেনা।



    "খোঁজ কাহিনী"

    অ্যাডাপটেসশন অ্যাট ইটস বেস্ট। ফেলুদাকে এই ভাবে আর কখনও সেলিব্রেট করা হয়নি বলে মিডিয়া দাবী জানাবে। স্মার্টেস্ট তোপসে এভার। উইটি লালমোহন। ফেলুদা, শুধু তাকিয়ে, হেঁটে, তুখোড় সংলাপ উচ্চারনেই রহস্যের আগাপাছতলা উদ্ধার করতে পারেন। বুদ্ধি খাটানোর দরকার পড়বে এমন কেস কই? সব্বাই নতুন করে চিনবেন ত্রয়িকে। এ ছবিতে সব্বাই, সমস্ত কিছু স্মার্ট। তুখোড় সিনেম্যাটোগ্রাফি। সিনেমা রিলিসের আগে ট্রেলার-গানে সোশাল তল্লাট ভাইরালে কুপোকাত। অনেক কিছু শেখা যাবে, অনেক নাম জানা যাবে, অনেক সিনেমা,জায়গা, বই ইত্যাদি প্রভৃতির কোটেশনে ছয়লাপ হয়ে থাকবে দু-ঘন্টা। হল থেকে বেরোনোর পর মনে হবে যা জানতাম ভুল জানতাম। সমস্ত কিছু শিখলাম আবার করে।

    সমস্ত গান হিট। সবকটা। তাই এই নিয়ে কথা বলা বৃথা



    "আশ্চর্য ব-দ্বীপ" ( তিন জন না, ট্রাইয়েঙ্গেল! নামেও পাঞ্চ)

    বাংলা সিনেমার ইতিহাসে প্রথম ডার্ক কমেডি থ্রিলার। গল্প ছিন্নমস্তার অভিশাপ। গোটা ছবি জুড়ে শুধু পাঞ্চলাইন আর পাঞ্চলাইন। বাঘের ভূমিকায় সার্কাসম। শেষে দেখা যাবে মহীতোষ সিংহ রায় আসলে বাঘ। তখন সব্বাই বলবে এতো অন্য গল্প! কিন্ত্ সেখানে একটা দুরন্ত জোক থাকায় কেউ কিচ্চু মনে করবে না। গান থাকবে। যেটা পরে টাংটুইস্টার হিসেবে পাড়া কুইজে জিজ্ঞেস করা হবে।

    পুনঃ যারা খিস্তোবেন ভাবছেন তাদের প্রতি লিবেদন । আমি হলে গিয়ে বাংলা সিনেমা দেখি। প্রতিবার। এবং দেখবোও।
  • বিভাগ : ব্লগ | ৩০ আগস্ট ২০১৬ | ৪৮ বার পঠিত
আরও পড়ুন
Lookআচুপি - Soumit Deb
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • dd | 116.51.225.107 (*) | ৩০ আগস্ট ২০১৬ ০৪:৩৪55777
  • হাত্তালি হাত্তালি।

    এটি ভাইরাল হোক।
  • pi | 24.139.209.3 (*) | ৩০ আগস্ট ২০১৬ ০৪:৩৬55778
  • :D
  • kihobejene | 22.208.161.99 (*) | ৩০ আগস্ট ২০১৬ ০৭:০১55779
  • darun dilen dada; tobe amar mone hocche ei lekhate "apni" "apnar babar" ebong "apnar parar toto chaloker" haath aache

    on a serious note: kobe theke feludar copyright uthe jaache janen?
  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত