এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • হরিদাস পাল  আলোচনা  রাজনীতি

  • সিপিআইএমের নির্বাচনী ব্যর্থতাঃ যে কথা বলা হয় নি

    Sandipan Majumder লেখকের গ্রাহক হোন
    আলোচনা | রাজনীতি | ১৮ জুন ২০২৪ | ৫৫৯ বার পঠিত
  • লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল বেরোনোর পর  বোঝা গেছে এই ভোট হয়েছে বিজেপি / নো বিজেপি এই বাইনারি থেকে। এই রাজ্যে ইণ্ডিয়া জোটের কোনো চিহ্ন ছিল না।  সিপিআইএম কে তৃতীয় পরিসর থেকেই লড়তে হত। কারণ মমতা বন্দোপাধ্যায়  প্রাথমিকভাবে কংগ্রেসকে দুটি আসন ছাড়ার কথা বললেও সিপিআইএমের নাম, স্বাভাবিকভাবেই  করেন নি। ফলে সিপিআইএমের নেতৃত্বের  সামনে বিকল্প ছিল একটি আসনেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা না করা যে পথে তাঁরা হাঁটেন নি।  তবে সিপিআইএম একা নয়, দোর্দণ্ডপ্রতাপ অনেক দল যারা এনডিএ এবং  ইন্ডিয়া, কোনো জোটেই ছিল না, তারা কেউ একটি আসনও পায় নি। এই তালিকায় আছে তামিলনাড়ুতে এআইএডিএমকে, ওড়িশায় বিজু জনতা দল, তেলেঙ্গানায় কে চন্দ্রশেখর রাওয়ের ভারত রাষ্ট্র সমিতি, উত্তরপ্রদেশে মায়াবতীর বহুজন সমাজ পার্টি, হরিয়ানায় দুষ্যন্ত চৌটালার দল। ফলে তৃতীয় পরিসরের জায়গা এবারের ভোটে ছিল না।

    অতঃপর পশ্চিমবঙ্গে সিপিআইএমের কী করণীয়? সিপিআইএমএল, লিবারেশনের সম্পাদক দীপংকর ভট্টাচার্যর সাক্ষাৎকার বিভিন্ন নিউজ পোর্টালে পাওয়া যাচ্ছে। দীপংকরবাবুর বক্তব্য হল, তৃণমূল ও বিজেপিকে সমার্থক করে বিজেমূল তত্ত্ব মানুষ নেয় নি। সিপিআইএমকে বিজেপিকে প্রধান শত্রু ঠাউরে তার বিরুদ্ধে আক্রমণের সিংহভাগ চালিত করতে হবে। এখন পর্যন্ত এর বাইরে আর কোনো নিদান শুনতে পাই নি। কথাটা হল দীপংকরবাবুর কথাটা ঠিক না ভুল?
     
    যে কোনো ন্যূনতম রাজনৈতিক বোধ সম্পন্ন মানুষই বুঝতে পারবেন কথাটিতে ভুল কিছু নেই। একটি আঞ্চলিক দল, তা যতই দুর্নীতিগ্রস্ত হোক বা যতই স্বৈরতন্ত্রী -- একেবারে দেশের সামাজিক সংহতি এবং সাংবিধানিক মূল্যবোধকে বিনষ্ট করতে বদ্ধপরিকর একটি ফ্যাসিস্টপ্রতিম দলের বিপদ অনেক বেশি – দেশের সাধারণ মানুষ, সংখ্যালঘু, শ্রমিক, কৃষক এবং ধর্মনিরপেক্ষ শক্তির কাছে। সিপিআইএমের সর্বোচ্চ নেতৃত্ব সেটা বোঝেন। কিন্তু নিচের দিকে সবাই কতটা বোঝেন সন্দেহ আছে। আমি জেলাস্তরের নেতাকেও বলতে শুনেছি – তৃণমূলকে পরাস্ত না করলে বিজেপিকে হারানো যাবে না। তার আগে তিনি ঘন্টাখানেক ধরে বিজেপির বিপদ নিয়ে বুঝিয়েছেন, বোঝান নি যে এমন নয়। কিন্তু তারপরই তার এই বিভ্রান্তিকর সিদ্ধান্ত । রণকৌশলের দিক থেকেও তা ভুল।  কারণ এই ভোট প্রমাণ করেছে আরেকবার, সিপিআইএমের হিন্দু ভোট কেটে বিজেপিতে যা গেছে তা না ফেরা পর্যন্ত সিপিআইএম শক্তিশালী হবে না।  এই ভোটের যে অংশ সাম্প্রদায়িক কারণে বিজেপির মতাদর্শের ভক্ত হয়ে গেছে তা আর ফিরবে না কারণ বিজেপির ভাববলয়ে  মুসলিম বিরোধিতা যতটা থাকে, বামপন্থার বিরোধিতা তার চেয়ে কম কিছু থাকে না। কিন্তু  বাকি আরো হাজার একটা কারণে, তৃণমূলের বিরোধিতার কারণে শক্ত প্রতিপক্ষের খোঁজে যে ভোট বিজেপিতে গেছে, সেই ভোট ফিরতে পারে যদি ভোটারদের বিশ্বাস করানো যায় যে এই রাজ্যে বিজেপি কোনোদিনই ক্ষমতায় আসবে না, বিশেষত ২০২১ এবং ২০২৪ সালের ভোট সেই তত্ত্বেই সীলমোহর  দিয়েছে।
     
    তাহলে দীপংকরবাবুর নিদান মত বিজেপি বিরোধিতা বাড়িয়ে গেলে, বিজেপি এবং তৃণমূলের বিরোধিতার অনুপাত ৬০:৪০ বা ৮০:২০ করলেই সিপিআইএমের নির্বাচনী সাফল্য আসবে? আদৌ নয়। ভোটের পাটিগণিত অন্য কথা বলে। বামপন্থীরা বিজেপির যত সমালোচনাই করুন না কেন যতদিন কেন্দ্রে বিজেপি আছে এবং সংখ্যালঘুদের সন্ত্রস্ত রাখার আয়োজন আছে ততদিন এই রাজ্যের সংখ্যালঘুরা তৃণমূল কংগ্রেসকেই আঁকড়ে ধরবেন সাম্প্রদায়িকতার প্রশ্নে নিরাপত্তার জন্য। হয়ত, এই সময় বামফ্রন্ট সরকার ক্ষমতায় থাকলে তাঁরা  বামফ্রন্টকেই ভোট দিতেন  একই কারণে। এটা কোনো দোষের ব্যাপার নয়, এটা রাজনৈতিক কাণ্ডজ্ঞানেরই পরিচায়ক। তাই বামপন্থীদের এই রাজ্যে সাফল্য পেতে গেলে আগে কেন্দ্রে বিজেপি সরকারের পতনের জন্য সচেষ্ট হতে হবে। তার জন্য ধৈর্য ধরে অপেক্ষা করতে হবে। তাই বলে সঙ্গত কারণে রাজ্য সরকারের বিরোধিতার পরিসরটি ছাড়লে চলবে না। তাহলে সেটি বিজেপির হাতে চলে যাবে। অর্থাৎ সিপিআইএম তথা বাম দলকে আগে নিজের সমর্থকদের যে ভোট চলে গেছে বিজেপির দিকে তা ফেরাতে হবে। তারজন্য তৃণমূল সরকারের বিরোধিতার পথ থেকে সরে আসার দরকার নেই। শুধু, সেই ভোটারদের কাছে পূর্বোক্ত নেতার ফরমুলাটাকে উলটো করে হাজির করতে হবে – এই রাজ্যে তৃণমূলকে হঠাতে হলে কেন্দ্রে বিজেপিকে হটাতে হবে। অর্থাৎ বামপন্থীদের প্রাথমিক দায়িত্ব কেন্দ্র থেকে বিজেপিকে হটানো।

    কিন্তু এতেই কি চিঁড়ে ভিজবে? একটা বামপন্থী দলের কাজ কি হতে পারে শুধু ফ্যাসিবাদের বিরোধিতা করা (যদিও আপাতত সেটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ )।  সেটা করার জন্য তো বামপন্থী হওয়ারও দরকার পড়ে না, লিবারাল বুর্জোয়া হওয়াই যথেষ্ট। বস্তুত, ভারতের জাতীয় কংগ্রেস দলের মধ্যে গান্ধীবাদী বা নেহেরুবাদী ঐতিহ্যের যতটুকু  টিঁকে আছে, সেটাকে আঁকড়ে ধরেই তাই কংগ্রেসের নেতৃত্বে সর্বভারতীয় স্তরে লড়াইটা চলছে।

    সিপিআইএম কি বামপন্থাকে অনুসরণ করে চলেছে আদৌ? এখানে যদিও একটা স্ববিরোধিতা আছে সিপিআইএমের। দেখা গেছে, সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে তার যে ঘোষিত নীতি তাতে স্পষ্ট বামপন্থী অভিমুখ থাকে। কিন্তু ভারতের কোনো অঙ্গরাজ্যে শাসনক্ষমতায় দীর্ঘদিন থাকলে সেই অভিমুখ থাকে না। আমাদের রাজ্যে আমরা গত বাম রাজত্বে এই অভিমুখ পরিবর্তন বিশেষভাবে দেখেছিলাম ১৯৯৬ সালে নতুন শিল্প নীতি গ্রহণের পর থেকে। অপারেশন সানশাইন, রাজারহাট, উত্তরবঙ্গে চাঁদমণি হাউজিং এস্টেট --- লক্ষণ পরিষ্কার হচ্ছিল। অবশেষে সিঙ্গুর আর নন্দীগ্রামের পর বাংলার কৃষক সমাজও সিদ্ধান্ত নিল -- এ পার্টি আমাদের আর নয়। শহরের  প্রান্তিক মানুষের, গ্রামের কৃষকের এই পারসেপশান ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। তারা যাকে নিজের পার্টি ভাববে সেটাই বামপন্থী পার্টি। নয়ত, নিজেরা ঘোষণা করলেও পার্টি বামপন্থী হয় না। আসলে বাম নেতৃত্ব বুঝে ফেলেছিলেন, যে এই অঙ্গরাজ্যে ক্ষমতা দখল করে যেটুকু রিলিফ দেওয়ার সেটা দেওয়া হয়ে গেছে। এরপর কাঁচা মার্কসবাদীদের মত  "সামন্ততন্ত্রের চেয়ে পুঁজিবাদ ভালো — তাহলে নগরায়ন ও ভারী শিল্পের পথে হাঁটা যাক" -- এইরকমই ভেবেছিলেন বোধহয়। তাদের সামনে  অনুসরণীয় ছিল দেং জিয়াও পিং এর চীন। একবার সত্তর দশকের গোড়ায়  চীনকে অক্ষম অনুকরণ করতে গিয়ে চারুবাবু, সরোজ দত্তরা ডুবেছিলেন। এইবার আরেকবার, যদিও এটা  উলটো পথের যাত্রা — চীনকে অনুকরণ করতে গিয়ে বুদ্ধবাবু, নিরুপম সেনরা ডুবলেন। একবার ভাবা যাক, ১৯৯৬ থেকে ২০১১ পর্যন্ত গরীব মানুষদের কোনোভাবে কী বোঝার ছিল যে এখানে একটা বামপন্থী সরকার চলছে? তাদের বোঝারই বা কী দায়? বরং সিঙ্গুর,নন্দীগ্রাম  উত্তর পর্বে তারা প্রশাসনিক পঙ্গুত্বই দেখেছে সরকার চালনায়। কাজেই এখন যখন তারা বিভিন্ন সামাজিক প্রকল্পে উপকৃত হচ্ছে (যেটা বুর্জোয়া ব্যবস্থায় সিপিএমের অংশগ্রহণের যুক্তি ছিল) তখন সেটা যারা দিচ্ছে তাকেই নিজেদের প্রতিনিধি ভাবছে। শুধু এই রাজ্যে নয়, বিভিন্ন রাজ্যে। আবার বি জেপি যে ভোটটা পেয়েছে সেখানেও তাদের প্রবর্তিত সামাজিক প্রকল্পগুলির অবদান যে নেই তা নয়।

    এবার ভেবে দেখা যাক এই রাজ্যের ভোটে সিপিআইএমের মূল ইস্যু কি ছিল। বিজেপি বিরোধিতার প্রশ্নটি সরিয়ে রাখলে সেটা অবশ্যই রাজ্য সরকারের দুর্নীতি। অবশ্যই ভয়ংকর দুর্নীতি হয়েছে এবং তার বিরুদ্ধে কথা বলতেই হবে। কিন্তু বোঝা গেল এটা মধ্যবিত্তের ইস্যু। শ্রমিক, কৃষকদের ইস্যু কি ছিল আমরা বলতে পারব না। অন্তত সেটা প্রচারে দেখা যায় নি। এমন নয় যে  বর্তমানে সিপিআইএমে  যারা নিচুতলার সদস্য বা সমর্থক তারা শ্রমিক, কৃষকের কথা ভাবেন না বা নিজেরা মধ্যবিত্ত বলে শুধু মধ্যবিত্ত শ্রেণীরই স্বার্থরক্ষা করতে চান। দীপংকরবাবু সর্বভারতীয় প্রেক্ষিতে সিপিআইএমকে যথাযোগ্য মর্যাদায় বামদল হিসেবে স্বীকৃতি  দিচ্ছেন। অমরা রাম রাজস্থানে কৃষক আন্দোলন করেই জিতেছেন। কিন্তু এই রাজ্যে সিপিআইএমের  কর্মসূচী ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার অনেক আগেই শ্রেণী দৃষ্টিভঙ্গী থেকে বিচ্যুত হয়েছে।

    এটা ঠিক যে দলের শক্তি দুর্বল হলে মধ্যবিত্ত নগরকেন্দ্রিক ইস্যু নিয়ে শহরে আন্দোলন করে প্রাসঙ্গিক থাকা যায়। এই মুহূর্তে সিপিআইএমের বুথভিত্তিক সংগঠন ততটা সবল নয় যে গ্রামে গ্রামে কৃষকের সমস্যা নিয়ে  আন্দোলন করা যায়। কিন্তু সবার আগে কর্মসূচীকে শ্রেণীরাজনীতির ভিত্তিতে, প্রান্তিক মানুষের স্বার্থে পুনর্নিমাণ করা দরকার। বামপন্থী দলকে আমরা ‘Party with a difference’ বলি সদস্যদের বা নেতাদের সততার জন্য শুধু নয় (সততা তো অবশ্যই থাকতে হবে), বলি তার শ্রেণী দৃষ্টিভঙ্গীর জন্য। তাই আন্দোলন শহরে আপাতত কেন্দ্রীভূত হলেও ক্ষতি নেই,  যদি সঠিক ইস্যু নির্বাচন করা যায় তার অনুরণন গ্রামেও উঠবে। দিল্লীর কৃষক আন্দোলন আমাদের সেটা দেখিয়েছে। তাই অগ্রাধিকার হোক শ্রেণী রাজনীতি। তখন কোনটা কেন্দ্রীয়  সরকারের বিরুদ্ধে আর কোনটা রাজ্য সরকারের — আনুপাতিক সেই হিসেব কষার দরকার পড়বে না। 

    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • আলোচনা | ১৮ জুন ২০২৪ | ৫৫৯ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • অসিতবরণ বিশ্বাস | 2401:4900:7431:9365:c3eb:74a0:8b83:5246 | ১৮ জুন ২০২৪ ২৩:২৪533433
  • পশ্চিমবঙ্গের ভোট ব্যবস্থা একেবারেই অন্যরকম।
  • কৌতুহলী | 103.249.39.163 | ১৯ জুন ২০২৪ ০১:৩৮533439
  • বামপন্থীরা বিজেপির যত সমালোচনাই করুন না কেন যতদিন কেন্দ্রে বিজেপি আছে এবং সংখ্যালঘুদের সন্ত্রস্ত রাখার আয়োজন আছে ততদিন এই রাজ্যের সংখ্যালঘুরা তৃণমূল কংগ্রেসকেই আঁকড়ে ধরবেন সাম্প্রদায়িকতার প্রশ্নে নিরাপত্তার জন্য।
     
    আপনি যেটা লিখেছেন, সেটার উল্টোদিকটাও কিন্তু বিপজ্জনক। মনে করুন, কেন্দ্র থেকে বিজেপি সরে ইন্ডিয়া জোট ক্ষমতায় এল। তখন তো কেন্দ্র রাজ্য দুটোর প্রতিষ্ঠান বিরোধী হাওয়াই রাজ্য বিজেপির পালে লাগবে। আর শুধু সংখ্যালঘুদের ভোটে তৃণমূল জিতছে এমন তো নয় ! সংখ্যালঘু ৩০-৩৩% মত, আর তৃণমূল পাচ্ছে ৪৫-৪৬%। এমনকি সংখ্যালঘুরা যে এককাট্টাভাবে তৃনমূলকে দিচ্ছে, সেটাও না, তাহলে মালদা দক্ষিণে কংগ্রেস জিতত না, রানীনগর বিধানসভায় সিপিএম লিড নিত না।
  • Sandipan Majumder | ১৯ জুন ২০২৪ ০৬:৩২533450
  • @কৌতুহলী 
     শুধু প্রতিষ্ঠান  বিরোধী  হাওয়াতে বিজেপি  কোনোদিনই এই রাজ্যে জিতবে না যেখানে  ৩০ শতাংশ সংখালঘু ভোটারকে বাইরে রেখে তাদের হিসেব শুরু হয়।
    মালদা দক্ষিণ লোকসভা বা রানিনগর বিধানসভায় কংগ্রেস  বা বাম বেশি ভোট পেলেও সারা রাজ্যের সাধারণ  প্রবণতায় সংখ্যালঘু ভোট তৃণমূলের  দিকেই গেছে। এটা  কৌশলী ভোট হিসেবেই দেখছি,সাম্প্রদায়িক  ভোট নয়। অতীতে  মালদহ এবং মুর্শিদাবাদের  ভোটাররা প্রমাণ করেছিলেন  যে তাঁরা  ঝাঁকের কইয়ের মত একদিকেই ভোট দেন না। তাঁদের ভোট বাম,কংগ্রেস,তৃণমূল -- বিভিন্ন দিকে পড়ত। কিন্তু  বিজেপি দশ বছর রাজত্ব করার পর পরিস্থিতি  অনেকটাই পালটে গেছে। নয়তো  গুজরাট  থেকে উড়ে আসা ইউসুফ  পাঠানের কাছে অধীর চৌধুরী  পরাজিত  হতেন না। পরিস্থিতির এই বদল কেও নজর রাখতে হবে।
  • Sandipan Majumder | ১৯ জুন ২০২৪ ০৬:৩৬533451
  • আর শুধু সংখ্যালঘুদের ভোটে তৃণমূল  জিতছে এরকম আমি বলি নি। কোনো দলের পক্ষেই পশ্চিমবঙ্গে  শুধু একটি  সম্প্রদায়ের  ভোট পেয়ে জেতা সম্ভব নয়। আমি সামাজিক প্রকল্পের কথা,শ্রেণী রাজনীতির কথা সেই কারণেই বলেছি।
  • কৌতুহলী | 103.249.39.163 | ১৯ জুন ২০২৪ ১১:১৫533473
  • @সন্দীপনবাবু
    একদম, সামাজিক প্রকল্প ও শ্রেণী রাজনীতি নিয়ে আপনি যা বলেছেন, তা নিয়ে ১০০% একমত। 
     
    কিন্তু আপনি যেটা বলছেন, শুধু প্রতিষ্ঠান বিরোধী হাওয়ায় বিজেপি জিতবে না, এখানেই আমার সংশয় আছে, আর আমার আশঙ্কার কারণও এখানেই। কারণগুলো বলছি একে একে। ১) হিন্দু ভোটও নেহাত কম নয় অন্তত আর ৩-৪% ভোট যদি বিজেপি নিজের দিকে টেনে নেয়, তাহলেই জিতে যাবে। আর যদি নাও জিততে পারে, বিধানসভায় ১১০-২০ আসন পেলেই নেতা ভাঙ্গিয়ে সরকার গড়বে। সংখ্যালঘু ভোট ছাড়াই জিতবে। ২) মেদিনীপুরের বেশ কিছু পকেটে সংখ্যালঘুরাও বিজেপিকে ভোট দিচ্ছে। এখন সেটা আতঙ্কে, নাকি তৃণমূলের ওপর বীতশ্রদ্ধার থেকে, তা জানি না। ৩) তৃণমূল মূলত সামাজিক প্রকল্পের ওপর দাঁড়িয়ে আছে কিন্তু সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার দিয়ে বড়জোর একটা বা দুটো ভোট পার করা যায়। কিন্তু তারপর বিজেপি যদি আরও বেটার কোন প্রকল্পের প্রতিশ্রতি দেয়, তাহলে মানুষ সেদিকেই ঝুকবে না কি? 
     
    মোট কথা এগুলো আমার আশঙ্কা। সিপিএমের স্ট্র্যাটেজি নিয়ে আপনি যা বলেছেন, তা নিয়ে মোটের ওপর সহমত, সে ব্যাপারে আমার কোন বক্তব্য নেই।
  • Sandipan Majumder | ১৯ জুন ২০২৪ ১৩:৩২533487
  • @কৌতুহলী
    আপনাকে অনেক ধন্যবাদ সুচিন্তিত মতামতের জন্য। এই আশা আর আশঙ্কাগুলোকে গুরুত্ব দিয়ে এই সংক্রান্ত বিতর্ক চলুক। পরিস্থিতির ডগমামুক্ত মূল্যায়ন দরকার।
  • dc | 49.207.198.66 | ২০ জুন ২০২৪ ০৬:৪৯533521
  • এই লেখাটা ভালো লাগলো। আমারও মনে হয় পবতে সিপিএম এর উচিত আগে নিজেদের বিরোধী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা উচিত। এখন যেহেতু বিজেপি প্রধান বিরোধী দল হয়ে উঠেছে, তাই প্রধানত বিজেপির বিরুদ্ধে যাওয়া উচিত। সব রাজ্যেই একটা দল ক্ষমতায় থাকে আর একটা প্রধান বিরোধী দল থাকে, রাজ্যের মানুষ পরের ভোটে বিরোধী দলকে ক্ষমতায় আনে। পবতেও সিপিএম যদি নিজেদের বিশ্বাসযোগ্য প্রধান বিরোধী শক্তি হিসেবে তুলে ধরতে পারে তাহলে লোকে পরের ভোটে তিনোদের বদলে সিপিএমকেই ক্ষমতায় আনবে। 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ঝপাঝপ প্রতিক্রিয়া দিন