• বুলবুলভাজা  ধারাবাহিক  উপন্যাস  শনিবারবেলা

  • চার রঙের উপপাদ্য - দ্বিতীয় পর্ব

    ইন্দ্রাণী
    ধারাবাহিক | উপন্যাস | ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০৬৭ বার পঠিত
  • হেমন্ত-২


    পিট স্ট্রীটের ফুটপাথে দাঁড়িয়ে জেব্রা ক্রসিংএর ওপর আলোর রং বদলে যেতে দেখছিল পঙ্কজ । অফিস থেকে বেরোনোর পর এইখানে দাঁড়িয়ে কলকাতার কথা মনে পড়ে - ওর চোখের সামনে উঁচু উঁচু বাড়ির পিছনে সূর্য ডুবে যায়, রাশ আওয়ারে অফিস ফেরতা মানুষের দীর্ঘ ছায়া ফুটপাথে পড়ে , আলো কমে আসে এই সময় অথচ স্ট্রীট লাইট জ্বলতে দেরি আছে; গোধূলিতে সব মানুষের রং সবজেটে, মাথার দিকটা কমলা হলুদ- সবাইকে একলা আর সন্ত্রস্ত লাগে পঙ্কজের। কিওস্ক থেকে ভাজা মাংসের সুবাস বাতাসে ভাসতে থাকে , ক্রসিংএ লাল, হলুদ সবুজ আলো জ্বলে নেভে - সে আলোয় ট্যাক্সি, ট্রাক, বাস আর পথচারীর জট পাকায়, খুলে যায় আবার। স্ট্রীট লাইট জ্বলে উঠলে মানুষ আবার স্টীল গ্রে হয়ে যায় , তখন একটা মানুষের চারটে করে ছায়া। নিজের ছায়া দেখতে দেখতে বাড়ি যায় পঙ্কজ।

    আজ অবশ্য ভর দুপুর- পঙ্কজ হাফ ডে নিয়ে সুবিমলের বাড়ির দিকে চলেছে ; লিপি, সুবিমলের মেয়ে তিন্নির আজ পাঁচ হ'ল; ওদের অ্যাপার্টমেন্টেই ছোটো পার্টি। পঙ্কজ অফিস ফেরত খেলনার দোকানে ঢুকেছিল। সফ্ট টয়, বারবি ডল, রকিং হর্স, ট্রাইসাইকেল, লেগো- কী নেবে সে? স্মিতাকে একবার ফোন করে দেখবে? ঘড়ি দেখল পঙ্কজ তারপর স্মিতার সময় হিসেব করে মোবাইল ঢুকিয়ে নিল পকেটে। বনময়ূরের জন্য একটা সফ্ট টয় তুলল ট্রলিতে - কী করছে বনময়ূর এখন? একবার মনে হল- বাড়ি চলে যায়, বনময়ূর কত খুশি হবে!

    তারপর ট্রলি ঠেলতে ঠেলতে এগোলো আবার। সামনের আইলে ম্যাজিক সেট ফর কিডস- নানা ব্র্যান্ডের চৌকো বাক্স- ওয়ান ফিফটি ক্লাসিক ট্রিকস, হোকাস পোকাস কালেকশন, ম্যাজিক ইন স্ন্যাপ- খরগোশ, টুপি, তাস, জাদুকাঠি এই সব ছবি বাক্সের ওপর- মুখ ফিরিয়ে নিল পঙ্কজ। পরের আইলে পুতুলের গায়ে হাত বোলালো, লেগোর বাক্স তুলে নিল-

    একটু আগেই ঘন কালো পিচ রাস্তার ওপর দুপুরের রোদ ঠিকরে পড়ছিল অথচ এখন এই বেলা তিনটেয় রোদ মরে আসছে দ্রুত। দোকান থেকে বেরিয়ে পঙ্কজ দেখল, আকাশের উত্তর দিক থেকে ঘন কালো মেঘ দৌড়ে আসছে। একই দিক থেকে ধেয়ে আসছিল ডাউনের বাস। চৌমাথার মোড়ে কে আগে দাঁড়াবে মেঘ না বাস- মনে মনে বাজি রাখতে রাখতে সিগ্নাল লাল হওয়ার অপেক্ষা করতে লাগল পঙ্কজ । সেই সময় উল্টো দিক থেকে জোর হাওয়া উঠল- ধুলো, ভাজা সসেজের গন্ধ, টিউব রেল স্টেশনের চত্ত্বরের চিনে বৃদ্ধর ছড় টানা যন্ত্রের সুর শঙ্কুর মত পাক খেতে খেতে পঙ্কজকে ঘিরে নিল; মেঘের পাল টার্ন নিল সম্পূর্ণ বিপরীতে। বাসগুলো আচমকা ওয়াক ওভার পেয়ে সিগন্যালে পা ছেতরে দাঁড়িয়ে পড়ল। আর ম্যাজিক শব্দটা মুহূর্তে পঙ্কজের মনে ঢুকে তার শাখাপ্রশাখা ছড়াল; এই ক্রসিং থেকে যেমন একটা রাস্তা ডাউনে গিয়েছে, অন্যটা আপে; পঙ্কজের মগজের মধ্যে মুহূর্তে একটা রাস্তা বহু বছর আগের সাহেবগলিতে বাঁক নিয়ে ঢুকল।

    সুবিমলের অ্যাপার্টমেন্টের সামনের রাস্তায় গাড়ি পার্ক করছিল পঙ্কজ। রাস্তার দুধারে জ্যাকারাণ্ডা গাছ- সন্ধ্যের আকাশ ঘন নীল হয়েছে জ্যাকারান্ডার বেগুণী ফুলে- মেঘ কেটে গিয়ে মিটমিটে তারা ফুটছিল। এদিক ওদিক অ্যাপার্টমেন্টের জানলায় আলো - একটা লম্বা ক্রেন উত্তর দিকের আকাশে হেলান দিয়ে দাঁড়িয়ে; ওর মনে হল হুবহু এই রকম আকাশ, এই রকম একটা ক্রেন ও আগে কোথাও দেখেছে। কোথায়? ও মাথা চুলকালো তারপর পকেটে হাত ঢুকালো যেন স্মৃতিরা সব ছোটোবেলার মার্বেলের মত ওর পকেটেই আছে- পকেট হাতড়ালেই মার্বেলে মার্বেলে ঠোকাঠুকির আওয়াজ হবে আর ও হাতের তেলোয় তুলে আনবে সেই মার্বেলটা যার ভেতরে একটা বুদ্বুদের মধ্যে বেগুনী আকাশে হেলানো ক্রেন দাঁড়িয়ে আছে। একটা হাত পকেটে রেখেই দরজার ঘন্টা বাজালো পঙ্কজ। সুবিমলের ফ্ল্যাটের দরজার তলা দিয়ে দুধ উথলানোর গন্ধ আসছিল- সম্ভবত পায়েস রেঁধেছে।

    সুবিমলের বৌকে এক এক দিন এক এক রকম দেখতে লাগে পঙ্কজের- কোনোদিন চশমা পরা, কোনোদিন চশমাহীন, চশমার ফ্রেমের রং বদলে বদলে যায়, কোনোদিন কোঁকড়ানো খোলা চুল, আবার একদিন হর্স্টেল; ওর মনে হয়, রাস্তায় দেখলে চিনতে পারবে না যদি না লিপি নিজেই পঙ্কজের কাছে এসে হেসে কথা বলে ওঠে। লিপিকে নিয়ে পঙ্কজের একটা কৌতূহল আছে- মনে মনে ও যেন এক পরীক্ষা চালাচ্ছে লিপি র অজ্ঞাতে। দেখা হলে ডাটা কালেক্ট করে আর জমিয়ে রাখে- একদিন হিসেব করে দেখবে- এই দেশ মানুষকে কত দ্রুত বদলে দেয়। নিজেকে দিয়ে, স্মিতাকে দিয়ে পরীক্ষা চালানোর কথা যখন ভেবেছিল তখন অলরেডি দেরি হয়ে গিয়েছে। লিপিরা এই দেশে নতুন - একদম জিরো আওয়ার থেকে হিসেব রেখে যাচ্ছে পঙ্কজ। ওর নিজস্ব একটা ফোরকাস্ট করা আছে মানুষের বদলে যাওয়া নিয়ে- লিপি আমূল বদলে গেলেই সময়টা মিলিয়ে নেবে।

    আজ লিপির খোলা চুল, কপালে টিপ, একটাও ইংরিজি শব্দ নেই কথায় -"আসুন আসুন পঙ্কজদা, এত দেরি হল? "
    -সুবিমল বলেছিল, হুরী পরী কারা আসবে, পরী তো অন্ধকার হলেই আসে- তাই না? কে আসবে? সিন্ডারেলার ফেয়ারি গড মাদার?
    - এসে গেছে অনেকক্ষণ। টিংকার বেল। অল্পবয়সের পরী চাই এখনকার বাচ্চাদের। পাঁচ বছরের মেয়ে, তারও কত প্যাখনা-
    অনেকদিন পরে প্যাখনা কথাটা শুনল পঙ্কজ। এই দেশে শব্দটা সে শোনে নি- বস্তুত টানা বাংলা সুবিমলদের কাছে এলেই শুনতে পায়। আর ক' বছর যাক- লিপি, সুবিমল প্যাখনা কথাটাই ভুলে যাবে।

    বসবার ঘরের সিলিং, দেওয়াল বেলুনে স্ট্রীমারে ঢাকা। জনা পনেরো বাচ্চা পরীকে ঘিরে বসে। কার্পেটেও প্রচুর বেলুন , রঙীন কাগজের টুকরো। পরীর হাতে ম্যাজিক ওয়ান্ড, হাতে গলায় ফুলের গয়না। জুতো খুলতে খুলতে পঙ্কজের মনে হল প্লাস্টিকের ফুল। তিন্নি হাঁ করে পরীর রঙীন ডানা, বাহারি গোলাপী জামা দেখছে।

    গল্প বলছিল পরী। পঙ্কজ পাশ কাটিয়ে ভেতরের ঘরে ঢুকল -রাঘব, পরাশর, তপন, শান্তা, সুপ্রিয়া আর দোলন অনর্গল কথা বলে চলেছে; সুবিমল রান্নাঘরে- বিরিয়ানিতে ফাইনাল টাচ দিচ্ছে। লিপি এ ঘর ও ঘর করছিল- বাচ্চাদের সামনে মাফিনের ট্রে ধরছিল পরক্ষণেই রান্নাঘরে, তারপরেই বন্ধুদের কাছে হাসিমুখে পকৌড়া নিয়ে।

    শান্তা বলল- " কী পঙ্কজদা, স্মিতাদি কবে ফিরবে?অনেকদিন তো হয়ে গেল"
    পঙ্কজ এই প্রশ্নের সামনে অসহায় বোধ করত একদা, এখন একটা বর্ম ওর সঙ্গে থাকে, মুহূর্তের মধ্যে সেটা পরে নিতে হয়।
    -" স্মিতার জেঠিমার অবস্থা এখন তখন- কী করে আসে? আর তো কেউ নেই"
    -স্মিতার কাজিন কেউ নেই? জেঠিমার ছেলে মেয়ে ? আচ্ছা, লোক টোক রেখে দেওয়া যায় না? আয়া সেন্টার থেকে? প্যালিয়েটিভ কেয়ার টেয়ারের কনসেপ্টটাই নেই, নাকী?
    বর্মের ওপর শিরস্ত্রাণ পরে নেয় পঙ্কজ। তারপর ধনুকে তীর জোড়ে।
    - স্মিতা এসে গেলে তোমার সঙ্গে ফ্লার্ট করাই মাটি । হা হা হা
    শান্তার পরের প্রশ্ন হাসির দেওয়ালে ধাক্কা খেয়ে মাটিতে পড়ে গেলে লিপি পঙ্কজের হাতে গ্লাস ধরিয়ে গেল।

    বসার ঘরে পরীকে ঘিরে বাচ্চাদের নাচ শুরু হয়ে গিয়েছে। মুঠো মুঠো ফেয়ারি ডাস্ট ওড়াচ্ছিল পরী। হাততালি দিয়ে গাইছিল-"ইফ ইউ হ্যাপি অ্যান্ড ইউ নো"


  • লিপি ভিডিও করছিল; সুবিমল কিচেন থেকে বেরিয়ে দাঁড়ালো - মুখে তৃপ্তির হাসি। শান্তা, রাঘব মোবাইলে ছবি নিল। হাততালি দিল তালে তালে।

    টিংকার বেল জিনিসপত্র গুছিয়ে নিচ্ছিল। তিন্নি বলল- "উইল ইউ ফ্লাই ফ্রম দিস ব্যালকনি?"
    টিংকার বেল হেসে হেসে ললিপপ দিল-" উইল ফ্লাই ফ্রম দ্য পার্ক। "
    -হোয়াই?
    -তোমার ব্যালকনি থেকে উড়তে গেলে যে দেওয়ালে ধাক্কা খাব। পার্কের দিকটা ফাঁকা।
    পঙ্কজের গরম লাগছিল, সামান্য ক্লান্তও। কিছুক্ষণের জন্য বর্ম খোলার প্রয়োজন বোধ করছিল সে। বলল, "আমি আপনাকে পার্ক অবধি পৌঁছে দিচ্ছি। "
    "সো কাইন্ড অফ ইয়ু পঙ্কজদা। আমি বিরিয়ানিটা নামিয়ে ফেলি এই তালে।" সুবিমল আবার রান্নাঘরে ঢুকে গিয়েছিল।
    - না না আমি একলাই চলে যাব, টিংকার বেল বলল। ওর মুখ থেকে খিদের গন্ধ পেল পঙ্কজ।
    -খেয়ে যান কিছু । পরীরা কী খায়? লিপি?
    - পার্ক থেকে ফুলের মধু খেয়ে নেব।
    হাসতে হাসতে পরী রাস্তায় নেমে জ্যাকারান্ডার তলা দিয়ে হেঁটে গিয়েছিল- এক হাতে ম্যাজিক ওয়ান্ড, অন্য হাতে ভারি ব্যাগ। স্ট্রীটলাইটের নিচে লম্বা একটেরে ছায়া পড়ছিল পরীর। ব্যালকনিতে ভীড় করে বাচ্চারা-পরী একবার হাত নাড়ল ওয়ান্ডসমেত তারপর রাস্তার বাঁকে মিলিয়ে গেল।
    "আমি জানি, ও সত্যি পরী নয়। আমি জানি ও উড়তে পারে না। ও হেঁটে গেছে।" তিন্নি চেঁচিয়ে বলেছিল। লিপি একবার তিন্নির দিকে তাকাল তারপর সুবিমলের দিকে। ম্লান দেখাচ্ছিল লিপিকে । অকারণ গলা তুলে বলল-" খেতে দিয়ে দিই তোমাদের"।

    ডিনারের পরে কথা হচ্ছিল টুকটাক। সোফায় ঘুমিয়ে পড়েছিল তিন্নি। ওর বন্ধুরা ফিরে গেছে অনেকক্ষণ।
    " আজকালকার বাচ্চারা আর পরী , ম্যাজিক এইসবে বিশ্বাস করে না", সিংকে বাসন নামাতে নামাতে লিপি বলেছিল।
    সুবিমল সিগারেট ধরাল, " আচ্ছা পঙ্কজদা, সাহেবগলির সেই লোকটার কথা তোমার মনে আছে? খুব ফরসা, মোটা জুলফি? ম্যাজিক দেখাত নীলকমল না লালকমল নামে?"
    পঙ্কজ থমকাল। তারপর গলা খাঁকরে বলল, "নীলকমল।"
    - অনেক গুণ ছিল লোকটার। দারুণ বাঁশি বাজাত। চেহারায় একটা নায়ক নায়ক ভাব ছিল-যাত্রা টাত্রাও করত বোধ হয়। তাই না পঙ্কজদা? খুব ভালো ম্যাজিক দেখাত, বুঝলে লিপি... আমরা তখন স্কুলে, নীলকমলের বয়স কমই ছিল মনে হয়, এই পঁচিশ টচিশ- যাই হোক, বস্তার মধ্যে পুরে, পাথর টাথর বেঁধে ওকে পুকুরে ফেলে দিত ওর অ্যাসিস্ট্যান্ট- দু'মিনিটের মধ্যে উঠে আসত- সে কী হাততালি -
    " হুডিনির খেলা? পি সি সরকারও দেখিয়েছেন তো" শান্তা ঘড়ি দেখল।
    - আরে সে তো বড় বড় ম্যাজিশিয়ান। বড় বড় ব্যাপার। এ’ আমাদের পাড়ার জাদুকর- বস্তা, ইঁট, আর পাড়ার একটা ছেলে- স্রেফ এই নিয়ে রিস্কি খেলা দেখাত-
    "এখন কী করে? সিরিয়াল?" শান্তা হাসির ভঙ্গি করেছিল।
    - জানি না কী করে। আদৌ বেঁচে আছে কী না কে জানে। খুব অদ্ভূত ছিল লোকটা- মানে রহস্যময় টাইপ- পিন্টুকে নিয়ে কী একটা কান্ড হয়েছিল। মনে আছে?
    পঙ্কজ চুপ করে ছিল। উসখুস করল । জল খেলো। এবারে উঠতে হবে- কতক্ষণ একলা আছে বনময়ূর। সকালে বেরোনোর সময় আলো জ্বালিয়ে রেখে এসেছে বারান্দার।সুবিমল বকে যাচ্ছিল- কথায় পেয়েছে ওকে, "আরে তখন অনেক কথা শুনতাম। অত বুঝতাম না। একদিন হঠাৎ হাওয়া হয়ে গেল- পুলিশ ধরেছিল নাকী-"
    পঙ্কজ উঠে দাঁড়াল-" কদিন আগে সাহেবগলির কাছেই কোথাও একটা ব্লাস্ট হয়েছে। জানিস?
    - সে কী গো!
    - বোমা রাখা ছিল একটা গ্যারাজে-পার্টির ব্যাপার ট্যাপার হবে আর কী- কাল পরিতোষকে ফোন করেছিলাম- ও বলল। দুজন স্পট ডেড। কাগজেও বেরিয়েছে দেখলাম।
    - চেনা কেউ ?
    -পরিতোষ বলল, চেনেনা। কাগজে খুব বেশি ডিটেলস নেই। লোক্যাল বাজারে সব্জী নিয়ে বসত একজন, আর একজন সম্ভবত ভবঘুরে-
    একটা জন্মদিনের সন্ধ্যা যেভাবে শেষ হওয়ার কথা, দুটি মৃত্যু তাকে বদলে দিল। দু'জন অচেনা মানুষ মারা গিয়েছে- কেউ কেউ তবু বিষণ্ণ হয়, আলতো আঙুল বোলায় নিজের গালে , ঘুমন্ত সন্তানের গায়ে চাদর টানে, কেউ চুপ করে যায়, জল খায়, গলা খাঁকরায়।
    সব অতিথি ফিরে গেলে ক্লোজেট থেকে ভ্যাকুয়াম ক্লীনার বের করল লিপি- তারপর সুইচ অন করে ফেয়ারি ডাস্টের শেষ কুচিটুকুও তুলে নিল।


    ক্রমশঃ

    ছবি- ঈপ্সিতা পাল ভৌমিক
  • বিভাগ : ধারাবাহিক | ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০৬৭ বার পঠিত
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • | ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১১:০১497945
  • সেই পরী সেই খিদের গন্ধ। পরী আসবে পড়েই মনে হল মুখে খিদের গন্ধ  আর মিলেও গেল। 
  • বিদিশা দাশ | 2402:3a80:1964:1c1b:378:5634:1232:5476 | ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১২:১৩497947
  • জীবন সময়ের ক্লীনার দিয়ে ফেয়ারি ডাস্টের শেষ কুচিটুকু তুলে নেয়।পুরো লেখাটায় বৌদ্ধিক ঝিলিমিলি।
  • Prativa Sarker | ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১৭:৪১497965
  • লেখকের একটি ছোট গল্পের কথা খুব মনে পড়ছে। 
    কিস্তিগুলো খুব তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে যাচ্ছে ! 
  • ইন্দ্রাণী | ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১৮:১৩497967
  • এই টুপন্যাসের ফেরে শুক্রবার এলেই বুক ঢিপঢিপ করে যেন আমার কোনো সিনেমা রিলিজ করছে - আর পরপর ফ্লপ হলেই ...
    ফলে যা হয় চোখে কালো চশমা এঁটে হলের আশেপাশে ঘুরঘুর - ঘাপটি মোডে থেকে দর্শকের প্রতিক্রিয়া বুঝে নেওয়া-

    আপনারা পড়ুন। এই তো সবে শুরু হল-
    ভালো মন্দ দ্বিধা দ্বন্দ্ব জানাবেন হাত খুলে-
    আমি জানি, এখনও অনেক পথ হাঁটতে হবে লেখক হয়ে উঠতে গেলে-

    দ, প্রতিভার মত যাঁরা দীর্ঘদিন আমার টেখাসমূহ ফলো করেছেন, তাঁরা এমত অনেক সাদৃশ্য আবিষ্কার করবেন পরবর্তীতে, এই আখ্যানে।
    হয়তো সমালোচনাও হবে।

    আমার যেটা মনে হয়, লেখাদের, লাইনদের, অক্ষরদের যোগ্য জায়গা খুঁজে যেতে হয়। যেখানে তাদের রাখলাম, সে স্থান পছন্দ না হলে, আমি তাদের সরিয়ে নেব অন্যত্র। এক জায়গা থেকে অন্যখানে। পুরোনো লেখার সেই রকম কিছু অংশ এই টুপন্যাসে আসবে।
    তবে এই আখ্যান আলাদা। একেবারেই আলাদা।
    পাঠককে ঠকাবো না আমি।
  • বিপুল দাস | 117.201.124.11 | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১৪:২২498010
  • ক্রমশ একটা কৌতূহল শ্লথ গতিতে গুঁড়ি মেরে এগোচ্ছে।
  • শঙ্খ | 2402:3a80:a57:2b12:2b22:2b6b:2541:d6e3 | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৯:০৭498048
  • আছি। পড়ছি।
  • সিদ্ধার্থ ভট্টাচার্য | 45.123.219.91 | ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১৭:৫২498166
  • এই পর্বটিও খুব ভালো লাগলো...... 
  • কি আশ্চর্য | 52.87.17.77 | ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০২:৫৫498178
  • "একটু আগেই ঘন কালো পিচ রাস্তার ওপর দুপুরের রোদ ঠিকরে পড়ছিল অথচ এখন এই বেলা তিনটেয় রোদ মরে আসছে দ্রুত। দোকান থেকে বেরিয়ে পঙ্কজ দেখল, আকাশের উত্তর দিক থেকে ঘন কালো মেঘ দৌড়ে আসছে। একই দিক থেকে ধেয়ে আসছিল ডাউনের বাস। চৌমাথার মোড়ে কে আগে দাঁড়াবে মেঘ না বাস- মনে মনে বাজি রাখতে রাখতে সিগ্নাল লাল হওয়ার অপেক্ষা করতে লাগল পঙ্কজ । সেই সময় উল্টো দিক থেকে জোর হাওয়া উঠল- ধুলো, ভাজা সসেজের গন্ধ, টিউব রেল স্টেশনের চত্ত্বরের চিনে বৃদ্ধর ছড় টানা যন্ত্রের সুর শঙ্কুর মত পাক খেতে খেতে পঙ্কজকে ঘিরে নিল; মেঘের পাল টার্ন নিল সম্পূর্ণ বিপরীতে। বাসগুলো আচমকা ওয়াক ওভার পেয়ে সিগন্যালে পা ছেতরে দাঁড়িয়ে পড়ল। আর ম্যাজিক শব্দটা মুহূর্তে পঙ্কজের মনে ঢুকে তার শাখাপ্রশাখা ছড়াল; এই ক্রসিং থেকে যেমন একটা রাস্তা ডাউনে গিয়েছে, অন্যটা আপে; পঙ্কজের মগজের মধ্যে মুহূর্তে একটা রাস্তা বহু বছর আগের সাহেবগলিতে বাঁক নিয়ে ঢুকল।"
    আচ্ছা, এই ​​​​​​​জায়গাটা ​​​​​​​কেন ​​​​​​​কেন ​​​​​​​পেনসিল ​​​​​​​আর সর্বকর্মার ​​​​​​​অ্যাডভেন্চার ​​​​​​​মনে ​​​​​​​পড়াল? ​​​​​​​সে ​​​​​​​তো কত ​​​​​​​যুগান্তরের কথা আর কত অন্যরকম কালান্তরের গল্প  
     ​
  • তৃণা | 98.214.141.151 | ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৫:০৮498234
  • কাহিনি বীজ ফুঁড়ে কুঁড়ি মেলছে মাত্র। সময়ে পাঠক মন আলো করে পদ্ম হয়ে ফুটবে নিশ্চিত। মুগ্ধতা আর ভালোবাসা রেখে গেলাম দিদি❤
     
     
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ঠিক অথবা ভুল প্রতিক্রিয়া দিন