এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • গল্পবায়োগ্রাফি

    ইন্দ্রাণী লেখকের গ্রাহক হোন
    ২৬ আগস্ট ২০২৩ | ৪১৫ বার পঠিত | রেটিং ৫ (২ জন)
  • গল্পবায়োগ্রাফি
    সব্যসাচী সরকার
    কবিতা আশ্রম
    দামঃ ৩৭৫ টাকা

    মণিপুর থেকে সাংবাদিক শ্রী সব্যসাচী সরকারের সরাসরি প্রতিবেদন সদ্যই পড়েছি। 'গল্পবায়োগ্রাফি' তাঁর প্রথম গল্পগ্রন্থ। বইয়ের গল্পগুলি ১৯৯৪ থেকে ২০১৬র মধ্যবর্তী সময়ে লেখা। 

    প্রথম গল্প 'নীরবপুর' যেখানে গাড়ি ঘোড়ার আওয়াজ নেই, হাসি কান্নার কোনো শব্দ নেই, শব্দহীন রিকশা চলাচল করে, মানুষজন এ ওর দিকে তাকিয়ে হাসে - তাতেই  যেন সব বলা হয়ে যায়। পাখির ডাক, পায়ের শব্দ শোনা যায়। গল্পের শেষে  হিয়া র জোরে হাসির শব্দ শুনি, হাত নেড়ে নীরবপুর থেকে বিদায় জানায় কথককে। পাঠকের ধন্দ লাগে - কথক কি মৃতজনের  সঙ্গে দেখা করে ফিরছে না কি এ আদতে হৃদয়পুর, নিজের সঙ্গেই কিছু সময় কাটিয়ে ফিরে আসছে কথক? এই ধন্দ বজায় থাকে 'মোহ' গল্পের ত্রিভুবন ও ব্রজগোপালের কথোপকথনে যেখানে রিক্শাওলা ত্রিভুবন ঘরের ভেতরে এক ঘর তৈরি করে, আর কেউ সে ঘরে আসতে যেতে পারবে না। ত্রিভুবন, তার স্ত্রী আর ব্রজগোপাল যেন আবার ঢুকে পড়ে 'শ্যাম্পেনের যুগীদর্শনে', ভিন্ননামে ভিন্নবেশে অবশ্যই, যেখানে শ্যাম্পেনদা কুপি জ্বালিয়ে নেতাজী মূর্তির কাছে স্ত্রী মায়ার ফিরে আসার অপেক্ষা নিয়ে পাহারায় বসে, যাতে কেউ সেখানে যুগী র মূর্তি বসাতে না পারে। 'আর্ট গ্যালারি' গল্পে যেই মুহূর্তে পাঠকের মনে হচ্ছে,  আঙ্গিকের লম্বা ছায়া ভাবকে গ্রাস করে নিচ্ছে ঠিক তখনই, আশ্চর্য লাইন লেখা হচ্ছে আখ্যানে - "বর্ষার পরে যে রোদ কলকাতার আকাশে প্রাণ এনে দেয়, সেই আলোতে জলবিন্দু দুটোকে কোনো শিশুর চোখের মতো মনে হচ্ছিল... শৈলী আঙুল দিয়ে পিষে ফেলল জলবিন্দু, যাতে কেউ না দেখতে পায়।""কল্পতরু উপাখ্যানে" রেলস্টেশন হওয়ার গুজব ঘিরে মানুষের ছোটো ছোটো  আশা আকাঙ্খা। অবিনাশ নামটি ঘুরে ফিরে আসে "সংশয়, সমীপেষু" তে, "প্রবহ মুহূর্তগুলি", "বিশুদ্ধ বিস্ময়", "পীতরহস্য', " নিয়তির স্বভাবচরিত্র' আখ্যানগুলিতে  যে বস্তুত একলা মরণশীল সাধারণ মানুষ যার সমস্ত প্রার্থনায় এবং স্তবে আকাঙ্খা মিশে থাকে।

    এই সংকলনের প্রতিটি গল্পের সমাপ্তি  অনন্য - শ্লেষে বিষাদে  অথবা আনন্দে।  ধরুন "সাদা খুনের কাহিনী"র সমাপ্তিতে তে যেমন আদর্শবাদী মৃত যুবকের বিপরীতে পলাতক অথবা মুখ গুঁজে থাকা মানুষটি বলে ওঠে - "আমি শুধু একটা জিনিষ পেয়েছি। ভাবছি, দান করে যাব কাউকে। একপাটি বাঁধানো দাঁত। মানুষের জন্য। সে দাঁতটা দিয়ে যাব যাতে কেউ আখ চেবানোর মতো করে ব্যবস্থাটাকে চিবিয়ে দেয়। একবার অন্তত।"

    এই বইতে কোনো ভূমিকা নেই, কোনো সূচিপত্র নেই, পাঠককে হাত ধরে গল্পের  কাছে পৌঁছে দেওয়া নেই, যেন এক অচেনা বাড়ির বন্ধ দরজায় কড়া নেড়ে আশা ও আশঙ্কা নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা।  ক্রমশ বুঝতে পারি, কড়া নাড়ার প্রয়োজনই ছিল না, মৃদু করাঘাতেই দরজা খুলে যাচ্ছে, উৎসর্গের পৃষ্ঠা উল্টোতেই গল্প নিজেই এসে হাত ধরছে পাঠকের, চিনিয়ে দিচ্ছে বাড়ির আনাচ কানাচ "শ্যাওলালাঞ্ছিত জানলা", দরজা বাগান ছাদ - সেই সব জানলা দিয়ে কানে আসছে 'শিল কাটাও', কুকুরের ডাক, ছাদ থেকে দেখা যাচ্ছে দূরের রেলগাড়ি, বস্তির আগুন, "কঙ্কালের হাড়ের মতো ভোরের রং"।
    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • | ২৬ আগস্ট ২০২৩ ১৪:০৫522962
  • ইন্টারেস্টিং
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লড়াকু প্রতিক্রিয়া দিন