• বুলবুলভাজা  পড়াবই  প্রথম পাঠ

  • বীরসিংহের সিংহশিশু বিদ্যাসাগর বীর: পাঠ-প্রতিক্রিয়া (৭)

    রঞ্জন রায়
    পড়াবই | প্রথম পাঠ | ০১ আগস্ট ২০২১ | ৪০৩ বার পঠিত
  • ৯.০ হিন্দু আইন প্রণয়ন ও বিদ্যাসাগর

    আমাদের আলোচ্য বইটির দ্বিতীয় পর্বের বিষয় হল ‘সমাজসংস্কারক বিদ্যাসাগর’। তাতে লেখক নতুন তথ্যের দৌলতে বিদ্যাসাগরের উপরোক্ত বাঁধানো ছবিটির উপর নতুন আলো ফেলার দাবি করেছেন। রয়েছে হিন্দু কোড বিল প্রণয়ন, বহুবিবাহ এবং বিধবাবিবাহ আইনের আন্দোলন ইত্যাদির জেনেসিস এবং তাতে বিদ্যাসাগরের ভূমিকা নিয়ে আলোচনা।
    লেখক দেখিয়েছেন যে ইংরেজ আসার আগে মোগল আমলে ভারতে বিচারপদ্ধতি কী ছিল ও কলোনিয়াল শাসক তাতে কী কী পরিবর্তন করল। উনি বিস্তারিত আলোচনা করে দেখাতে চেয়েছেন যে ইংরেজের গ্রন্থিত হিন্দু আইন কতটুকু শাস্ত্র মেনে তৈরি হয়েছিল বা তার কোন অংশটুকু সাহেবরা নিজেদের স্বার্থে বিকৃত করেছে এবং তার ফলে মেয়েরা এবং বিধবারা তাদের প্রাচীন প্রথায় কতটুকু সম্পত্তির অধিকার ছিল জয়া হারিয়েছে। এবং সর্বশেষে এই আইন প্রণয়নে এবং তাঁর সংশোধনে ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যাসাগরের ভূমিকা ঠিক কী ছিল।
    খুব মূল্যবান আলোচনা সন্দেহ নেই।

    ৯.১ ‘জেন্টু ল’ ও হিন্দু আইন:

    প্রাক-ঔপনিবেশিক ফৌজদারি (ক্রিমিনাল) ও দেওয়ানি (সিভিল) বিচারব্যবস্থা কেমন ছিল?
    লেখক দেখাচ্ছেনঃ ফৌজদারি আদালতে অপরাধের মাত্রা অনুসারে শাস্তির বিষয়টি দেখভাল করতেন একজন কাজি, একজন মুফতি ও দু’জন মৌলবি।
    “অন্যদিকে দেওয়ানি আদালতে হিন্দু ও মুসলমান প্রজাদের উত্তরাধিকার, বিবাহ, জাতপাত এবং ধর্মসংক্রান্ত যাবতীয় বিবাদের নিষ্পত্তির জন্য, যথাক্রমে শাস্ত্রজ্ঞ পন্ডিত ও মৌলবিদের সাহায্য বা পরামর্শ নেওয়ার প্রথা প্রচলিত ছিল। তবে এ বিষয়ে কেবল আদালতের কাজিরাই চূড়ান্ত রায়দানের অধিকারী ছিলেন”। [1]

    প্রাক-ঔপনিবেশিক ফৌজদারি (ক্রিমিনাল) ও দেওয়ানি (সিভিল) বিচারব্যবস্থা কেমন ছিল?
    ১৭৬৫-৭২ দেওয়ানি আমলে বাংলার রাজস্ব আদায়ের ভারপ্রাপ্ত কর্মচারী মহম্মদ রেজা খাঁর বয়ান থেকে জানা যাচ্ছে – হিন্দু প্রজাদের উত্তরাধিকার, বিবাহ, জাতপাত ইত্যাদি সম্পর্কিত বিবাদের নিষ্পত্তির জন্য শাস্ত্রজ্ঞ পণ্ডিতদের পরামর্শ নেওয়ার প্রথা প্রচলিত ছিল। তাঁদের দ্বারা বিরোধের নিষ্পত্তি না হলে আদালতের ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে অভিযোগ করা হত। তাঁদের মতামতকেই চুড়ান্ত মান্য করা হত।
    এই পর্যন্ত ঠিক ছিল। কিন্তু এরপরে লেখকের কতগুলো বক্তব্য মনে হয় একটু ঘেঁটে গেছে। আইন নিয়ে চর্চার আগে দরকার এই বিষয়গুলো স্পষ্ট করে নেওয়া।

    ৯.১ প্রাক-ঔপনিবেশিক বঙ্গে হিন্দু-মুসলমানের অভিন্ন দেওয়ানি বিধি:

    পূর্বপক্ষ:
    ১ ‘ভারতবর্ষের হিন্দু ও মুসলমান ধর্মাবলম্বী মানুষদের জন্য আলাদাভাবে নির্দিষ্ট কোনও বিধিবদ্ধ আইন ছিল না’। সেই সময়ে হিন্দু-মুসলমান নির্বিশেষে স্থানীয় স্তরে যাবতীয় বিবাদ-বিসংবাদের নিষ্পত্তি হত, তাতে সন্তুষ্ট নাহলে কেউ আদালতে যেতে পারত। সেক্ষেত্রে হিন্দু-মুসলমান ব্যতিরেকে বাদী বা বিবাদী -দুপক্ষের জন্য একই আইন প্রযোজ্য ছিল।
    ২ ‘হিন্দু প্রজাদের উত্তরাধিকার, বিবাহ, জাতপাত ইত্যাদি সম্পর্কিত বিবাদের নিষ্পত্তির জন্য শাস্ত্রজ্ঞ পন্ডিতদের পরামর্শ নেওয়ার প্রথা প্রচলিত ছিল। তবে পণ্ডিতদের মতামতকে আইন হিসেবে বিবেচনা করা হত না’[3]
    ৩ পঞ্চদশ শতাব্দীর ভাষ্যকার রঘুনন্দন তাঁর “ব্যবহারতত্ত্বে” জানিয়েছেন-প্রচলিত সামাজিক রীতিনীতি শাস্ত্রীয় রীতিনীতির চেয়ে অধিক গুরুত্বপূর্ণ। স্থানীয় স্তরে বিবাদের মীমাংসা নাহলে লোকে রাজার শরণাপন্ন হবে। রাজা শাস্ত্র ও সামাজিক রীতিনীতি সম্পর্কে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেবেন। বিশেষজ্ঞ বাদী-বিবাদীকে প্রশ্ন করে মতামত দিলে রাজা চূড়ান্ত রায় ঘোষণা করবেন।
    ৪ ফলে প্রাক-ঔপনিবেশিক বিচারব্যবস্থায় যাবতীয় আইনি বিবাদের মীমাংসার বিষয়ে ব্রাহ্মণ অথবা শাস্ত্রজ্ঞ পন্ডিতরা নন, রাজাই ছিলেন চূড়ান্ত রায়দানের অধিকারী।
    ৫ ভারতবর্ষে বৃটিশ প্রশাসন নিজেদের স্বার্থপূরণের উদ্দেশ্যে প্রথম থেকেই প্রচলিত আইনব্যবস্থাটিকে সম্পূর্ণ নস্যাৎ করে হিন্দু ও মুসলমান সম্প্রদায়ের জন্যে দেওয়ানি আইন আলাদা করার সিদ্ধান্ত নেয়। [4]

    উত্তরপক্ষ:
    লেখকের উপরোক্ত বক্তব্যের সার-সংক্ষেপ করলে দাঁড়াবে—১) প্রাক -ঔপনিবেশিক বিচারব্যবস্থায় হিন্দু এবং মুসলমানের জন্যে পৃথক আইন ছিলনা। এসব বৃটিশদের কীর্তি। ২) সাধারণতঃ স্থানীয় স্তরে বিবাদের মীমাংসা হত শাস্ত্রজ্ঞদের বিধান মেনে। ৩) সন্তুষ্ট না হলে প্রাচীন কালে রাজা, পরবর্তী কালে কাজী শেষ রায় দিতেন। এটাই ইংরেজ আমলে ম্যাজিস্ট্রেট হবে।
    উপরোক্ত বক্তব্যে আমার আপত্তি কোথায়? আপত্তিটি ফৌজদারী ও দেওয়ানি বিধিকে গুলিয়ে ফেলায়।

    ফৌজদারি অপরাধ কী?
    নাগরিকের সম্পত্তি ও শারীরিক নিজতার উপর অপরাধ। এ হ’ল রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অপরাধ। ক’ যদি খ নামক ব্যক্তির সম্পত্তি চুরি করে বা বলপূর্বক কেড়ে নেয় বা আক্রমণ, অপহরণ ও হত্যার মাধ্যমে শারীরিক ক্ষতি করে তবে তা’হবে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ক’য়ের অপরাধ। মামলা হবে ‘স্টেট বনাম ক’। কারণ এতে রাষ্ট্রের আইন শৃংখলাকে চ্যালেঞ্জ করে বুড়ো আঙুল দেখানো হচ্ছে।
    এ’ব্যাপারে কখনই হিন্দু-মুসলমানের জন্যে আলাদা আইন ছিল না। না প্রাক ঔপনিবেশিক যুগে, না ইংরেজ রাজত্বে, না আজকের স্বাধীন ভারতবর্ষে।

    দেওয়ানি বিবাদ কী?
    ব্যক্তির সম্পত্তির অধিকার, উত্তরাধিকার, বাঁটোয়ারা, বিবাহপ্রথা, মৃতদেহ সংস্কার, ধর্মাচরণের বিধি, জাতপাত ইত্যাদি সামাজিক রীতিনীতি বা খাদ্যাখাদ্য সংস্কার জনিত বিবাদ, ব্যবসায় ও জীবিকা জনিত বিবাদ ইত্যাদি।
    এ’ হল ব্যক্তি বনাম ব্যক্তির বিবাদ। ক’ যদি খ’য়ের মোটরবাইক চুরি করে বা পিস্তল দেখিয়ে কেড়ে নেয় –সেটা হল ফৌজদারী মামলা। কিন্তু যদি বলে তুমি আমার কাছে গাড়িটি বন্ধক রেখে টাকা নিয়েছিলে। সময় পেরিয়ে গেছে , এবার তোমার বাইক আমার হয়ে গেল। এটা দেওয়ানি মামলা।
    কোন যুগে হিন্দু এবং মুসলমানের জন্য অভিন্ন দেওয়ানি আইন ছিল না। না প্রাক ঔপনিবেশিক যুগে, না ইংরেজ রাজত্বে, না স্বাধীন ভারতবর্ষে।
    কারণ, হিন্দুর বিয়ে হয় সপ্তপদী গমন করে, মুসলমানের বিয়ে হয় বর-বৌয়ের তিনবার সম্মতি নিয়ে নিকাহনামা লিখিয়ে তাতে সাক্ষীর দস্তখত করিয়ে। হিন্দুর হয় দাহ, মুসলমানের গোর। হিন্দুর বিয়েতে দেনমোহর নেই, বিবাহ বিচ্ছেদের নিয়ম নেই, মুসলমানের তিন তালাক আছে, আবার পুনর্বিবাহের নিয়ম আছে। হিন্দুর সম্পত্তির ভাগবাটোয়ারা হত মিতাক্ষরা বা দায়ভাগ মেনে। মুসলমানের সব হয় শরিয়ত মেনে।
    ব্যাপারটা হল সিভিল কোডের সঙ্গে বিশেষ সমুদায়ের আচার-ব্যবহার সংস্কৃতি সব মিশে আছে। লেখক কি বলতে চাইছেন প্রাক-ঔপনিবেশিক যুগে হিন্দু-মুসলমান সবার জন্যে একরকম ইউনিফর্ম সিভিল কোড ছিল? ইতিহাসের সাক্ষ্য, আমি যতদূর বুঝেছি, এর বিপরীত।
    ফলে, লেখকের বক্তব্যঃ কোম্পানির গভর্নর ওয়ারেন হেস্টিংসের একদল পন্ডিত ও মৌলবীকে দায়িত্ব দিয়ে তিনবছরের মধ্যে ধর্মশাস্ত্র, বিশেষ করে মনুসংহিতা ও শরিয়ত অনুসারে পৃথক ‘হিন্দু’ ও ‘মুসলমান’ আইন তৈরির জন্যে উদ্যম আসলে একটি ভ্রান্ত ধারণার ফসল। [5]

    ৯.২ মনুসংহিতা আদি হিন্দুদের জন্য আইন অথবা শুধু আচরণবিধি?

    এবার লেখক পেশ করলেন আরেকটি সিদ্ধান্ত যার সঙ্গে একমত হওয়া বেশ কঠিন। সেটা হল “যে ধর্মশাস্ত্রের উপর বৃটিশরা এত গুরুত্ব আরোপ করে তাকে ‘আইন’ -এ পর্যবসিত করে, সেই ধর্মশাস্ত্রগুলি কোনকালেই হিন্দুদের কাছে ‘আইন’ হিসেবে বিবেচিত হত না। এই গ্রন্থগুলি ছিল মূলতঃ তাদের ‘Code of Conduct’ বা আদর্শ আচরণবিধির দ্যোতক”।[6]

    পূর্বপক্ষ:
    ১ প্রখ্যাত স্কলার পি ভি কাণে বলেছেন যে ধর্মশাস্ত্রকাররা আসলে এমন আচরণবিধির কথা বলেছেন যা সমাজের সদস্য হিসেবে একজন ব্যক্তির ক্রিয়াকলাপকে নিয়ন্ত্রণ করে এবং তাকে মানব অস্তিত্বের চরম লক্ষ্যে ক্রমান্বয়ে পোঁছতে সক্ষম করে তোলে।
    ২ ‘মনুর মতে, সমস্ত বর্ণের কাছে ধর্মের সংক্ষেপিত রূপ হল -অহিংসা, সত্যবাদিতা, অন্যের সম্পদ অন্যায়ভাবে গ্রহণ না করা, পবিত্রতা ও ইন্দ্রিয়ের সংযম’।
    ৩ ‘অধিকন্তু ধর্মশাস্ত্রগুলি ‘অন্যায়’ কর্মকে অপরাধের পরিবর্তে ‘পাপ’ হিসেবে সংজ্ঞায়িত করেছিল এবং শাস্তি বা দন্ডদানের বদলে অনুতাপের প্রতীক হিসেবে কঠোর প্রায়শ্চিত্তের কথা বলেছিল[7]
    ৪ “এই গ্রন্থগুলি ছিল মূলতঃ তাদের ‘Code of Conduct’ বা আদর্শ আচরণবিধির দ্যোতক”, আইন নয়।

    উত্তরপক্ষ:
    ১ মনুসংহিতা আইন না আচরণবিধি সেটা ঠিক হবে কীভাবে?
    পন্ডিত কাণে বা মনু নিজে সংহিতার উদ্দেশ্য নিয়ে যেসব ভাল ভাল কথা বলেছেন তা দিয়ে? নাকি মনুসংহিতায় বাস্তবে কী আছে, কেবল আচরণবিধি নাকি দন্ডেরও প্রাবধান আছে সেটা দেখে? সে তো আমরাও অহরহ শুনছি -সব কা সাথ, সব কা বিকাশ, সব কা বিশ্বাস’!
    অহিংসার পূজারী মনুর সংহিতার ভেতরে হিংসা ভর্তি। প্রাণদন্ড, হাত-পা-আঙুল ও লিঙ্গচ্ছেদের বিধান রয়েছে যে!

    ২, ধর্মশাস্ত্রের বিভিন্ন আচরণবিধি, যেমন বিয়ের পদ্ধতি বা সম্পত্তির উত্তরাধিকারের নিয়ম –এগুলোই তো দেওয়ানি আইন। সেযুগে স্থানীয় বিবাদের সমাধান বা কনসিলিয়েশন শাস্ত্রে বর্ণিত বিধি মেনেই হত। সেজন্যেই বিবাহ, দাহ ও শ্রাদ্ধে শাস্ত্রজ্ঞ পন্ডিতের দরকার পড়ে। এবং ফাইনাল আর্বিটার বলুন বা অ্যাপেলেট কোর্ট হিসেবে রাজা অথবা কাজীর দল পন্ডিতের বা মৌলবীর শাস্ত্রব্যাখ্যা শুনেই তো শেষ রায় দিতেন। আইন আর কাকে বলে? রাজারা কিসের ভিত্তিতে ঠিক বা ভুল, উচিত বা অনুচিত ঠিক করতেন? অবশ্যই ধর্মশাস্ত্র মেনে।
    স্থানীয় স্তরে আজও দেওয়ানি মামলার সমাধান হয়, যেমন ‘লোক আদালত’। কিন্তু তার পেছনে রাষ্ট্রের অনুমোদন থাকে এবং তাতে অনেক সময় আইনের খুঁটিনাটির চেয়ে সামাজিক প্রথা ও ব্যবহারকে গুরুত্ব দেয়া হয়। আরবিট্রেশন অ্যাক্ট অনুযায়ী বিজনেসে বিবাদের সমাধান খোঁজা একটি আইনানুগ স্বীকৃত পদ্ধতি।

    প্রথা বা আচরণবিধি ও আইনের মধ্যে তফাৎ?
    আমার মতে যেটা অমান্য করলে শুধু পারিবারিক বা সামাজিক তিরস্কার জোটে বা পঞ্চায়েতের নিয়মে প্রায়শ্চিত্ত করতে হয় সেটা প্রথা বা আদর্শ আচরণবিধি। কিন্তু যে নিয়ম ভাঙলে প্রায়শ্চিত্ত নয়, দন্ড পেতে হয়, সামাজিক সংস্থার দন্ড বা রাজদন্ড (সরকারের প্রদত্ত শাস্তি) ঘাড়ে পড়ে সেটা অবশ্যই আইন। সেই অর্থে প্রায়শ্চিত্তের বিধান এবং রাজদন্ডের বিধান দুটোই মনুস্মৃতিতে আছে। কাজেই তার একটা অংশ অবশ্যই আইন।
    লেখক এ’ব্যাপারে যাঁকে অনুসরণ করছেন সেই ডঃ নন্দিনী ভট্টাচার্য পন্ডা প্রথা ও আচরণবিধির তফাৎ বোঝাতে অধ্যাপক ডেরেটকে উদ্ধৃত করেছেন।
    Derrett: Law is the body of rules(namely positive and negative injunctions, commands and prohibitions) which can be enforced by judicial actions.[8]

    অধ্যাপক ডেরেটের বক্তব্য ও আমার নিজস্ব প্রতীতির মধ্যে কোন মৌলিক তফাৎ আছে কি?
    আবার ডঃ নন্দিনী ধর্মশাস্ত্রে ‘ব্যবহার’এর দায়রা বোঝাতে গিয়ে বলছেন Any dispute involving debt, trust, deposit, breach of contract, Sale, Purchase----- boundaries, limits, ----- distribution of legacies--- could be tried under the vyavahara.[9] এগুলিই যে দেওয়ানি আইন বা সিভিল কোড, এ’নিয়ে কোন সন্দেহ আছে?

    ৩ গন্ডগোলটা হচ্ছে হাতীর লেজ বা শুঁড় নিয়ে। ধরুন, মনুসংহিতায় ১২টি অধ্যায়। এতে সৃষ্টিতত্ত্ব, পুরাণকথা, রাজার, ব্রাহ্মণের, নারী-পুরুষের আদর্শ আচরণবধি, যেমন আছে, তেমনই বিবাহ নিয়ে উচিত অনুচিত নিষেধ, মৃতের অন্তিম সংস্কার, সম্পত্তির উত্তরাধিকার রয়েছে। এমনকি ল অফ এভিডেন্স বা সাক্ষ্যদানের স্বীকৃত পদ্ধতিও রয়েছে। অর্থাৎ, ওতে সিভিল কোড, ট্রেসপাস অ্যাক্ট, গাঁয়ের বর্ডার ডিমার্কেশন, সিভিল প্রসিডিওর কোড, পেনাল কোড ও এভিডেন্স অ্যাক্ট, ট্যাক্সেশন কোড
    —সবই রয়েছে, অবশ্য সে যুগের হিসেবে।
    তাহলে মনুস্মৃতি আদর্শ আচার ব্যবহারের কোড , নাকি সিভিল ও ক্রিমিনাল কোড, এভিডেন্স অ্যাক্ট, ট্যাক্সেশন অ্যাক্ট? আগেই বলেছি,মনুস্মৃতিওর ১২টি অধ্যায় বিবিধ বিষয়ের সমাহার। তাতে পুরাণকথা, আদর্শ আচরণবিধি ও রাজধর্ম এবং সাক্ষ্য বিধি ও দন্ডবিধি সবই আছে। মুশকিল হচ্ছে মনুস্মৃতিকে শুধু পুরাণ, শুধু আচরণবিধি, শুধু পাপ-পুণ্য ও প্রায়শ্চিত্তের নিদান বা শুধু হিন্দুর আইন ধরে নেওয়ায়। হাতির শুঁড়ও রয়েছে, দাঁতও আছে—সবটা মিলেই হাতি। কিন্তু দাঁতের কাজ দাঁত করে, শুঁড়ের কাজ শুঁড় করে।

    ৪ মনুতে ‘অন্যায়’কে পাপ বলে ‘দন্ডের’ বদলে প্রায়শ্চিত্তের কথা বলা হয়েছে—এই কথাটা একতরফা। কিছু কার্যকে পাপ এবং “মহাপাতক” ও “গৌণপাতক” বলা হয়েছে এবং তার জন্যে প্রায়শ্চিত্ত করার বিধান আছে। কিন্তু তার চেয়ে বড় অংশে অন্যায়কে অন্যায় এবং তার জন্যে আর্থিক ও শারীরিক দন্ডের বিধান রয়েছে। এবং রাজ্য ও সমাজের রক্ষার জন্যে দন্ডদানে রাজাকে কঠোর হতে বলা হয়েছে।

    যেমন মনুস্মৃতির অষ্টম অধ্যায়ে (রাজধর্ম) শ্লোক নং ৫১ থেকে ৪১২ পর্য্যন্ত কেবল দণ্ড নির্ধারণ। নবম অধ্যায়ের শ্লোক ২২৪ থেকে ২৯৩ অব্দি ফের দন্ডের বিধান, এমনকি ক্ষুর দিয়ে টুকরো টুকরো করে দোষীকে কাটতে বলা হচ্ছে। (৯/২৯২)।

    ✜ স্পষ্টতঃ লেখক এখানে বিশিষ্ট গবেষক ডঃ নন্দিনী ভট্টাচার্য্য পন্ডার থিসিস “Appropriation and Invention of Tradition: The East India Company and Hindu Law in Early Colonial Bengal” এর বক্তব্য থেকে প্রভাবিত। উনি ধর্মশাস্ত্রের বিধান সম্বন্ধে বলছেন - They lacked the necessary coercive element, the essential component of the law. The sastras defined ‘wrong’ actions as sins rather than crimes, and they could at best impose strictures and penances as symbolic of repentance. [10]
    লেখকের লেখায় প্রায় তাঁর শব্দশঃ প্রতিধ্বনি, লেখক সেই ঋণ খোলাখুলি স্বীকারও করেছেন।
    ✜ ওঁর পান্ডিত্যের প্রতি পূর্ণ শ্রদ্ধা জানিয়েও আমি এই বিন্দুতে তীব্র অসহমত। নীচের শ্লোকগুলো খেয়াল করুন। এগুলো যদি coercive না হয় তাহলে আমার বলার কিছু নেই।

    পাপ ও প্রায়শ্চিত্তের কথা রয়েছে মাত্র একাদশ অধ্যায়ের শ্লোক নং ৪০ থেকে ২৬৩ পর্য্যন্ত। দেখাই যাচ্ছে—পাপ ও প্রায়শ্চিত্তের বিধান রয়েছে মাত্র একটি অধ্যায়ে ২২৩টি শ্লোকে। অথচ দন্ড, মূলতঃ রাজা কর্তৃক আর্থিক ও শারীরিক দন্ডের (অঙ্গচ্ছেদ থেকে মৃত্যুদন্ড পর্য্যন্ত) বিধান রয়েছে অষ্টম ও নবম দুটি অধ্যায়ের সম্মিলিত ভাবে ৪৩০টি শ্লোকে।

    এই দুটো শ্লোক খেয়াল করুন। রাজা কী শাস্তি দেবেনঃ

    • শূদ্র (হিংসাবশে) ব্রাহ্মণের চুলে, চিবুকে, পায়ে, দাড়িতে, ঘাড়ে বা অন্ডকোষে হাত দিলে নির্বিচারে তার হাত দুইটি কাটিয়ে দেবেন। (৮/২৮৩)।
    • শূদ্র দর্পভরে ব্রাহ্মণের গায়ে থুতু দিলে তার ঠোঁট, মূত্র নিক্ষেপ করলে তার লিঙ্গ , অধোবায়ু ত্যাগ করলে তার গুহ্যদেশ ছেদন করাবেন। (৮/২৮২)।

    কোথায় পাপ ও প্রায়শ্চিত্ত করতে বলা? সোজা শারীরিক দণ্ডদানের নির্দেশ।

    ৯.৪ জেন্টু ল, হিন্দু আইন এবং জ্যেষ্ঠ পুত্রের, বিধবার ও কন্যার সম্পত্তি হরণ
    আরও পড়ুন
    রণছোড় - Chayan Samaddar



    লেখক আমাদের একটি অজানা বা স্বল্পজ্ঞাত অথচ সংবেদনশীল বিষয়ের দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করে ধন্যবাদার্হ হয়েছেন। তাহল মনুস্মৃতিকে আশ্রয় করে প্রথমে হ্যালহেডের ‘’জেন্টু ল’ পরে উইলিয়ম জোন্স প্রণীত মনুসংহিতার অনুবাদে কীভাবে সম্পত্তিতে বড় ছেলে, বিধবা ও মেয়ের অধিকার গায়েব হয়ে গেল।
    ইংরেজ শাসকদের মতে হিন্দু ও মুসলমান শাস্ত্রগ্রন্থগুলোর থেকে (সংস্কৃত, আরবি-ফার্সি থেকে) অনুবাদের মাধ্যমে ইংরেজিতে হিন্দু ও মুসলমান কোড এর সংকলন আবশ্যক। তাতে ইংরেজ শাসকদের দেওয়ানি আদালতে কাজকর্ম পরিচালনায় সুবিধে হবে। নইলে ভাষার অনভিজ্ঞতার সুযোগ নিয়ে ধূর্ত লোকেরা বিচারককে বোকা বানাতে পারে।

    লেখক দেখাচ্ছেন যে ইতিমধ্যেই উইলিয়ম জোন্স তাঁর দু’বছরের সংস্কৃত জ্ঞানের অহংকারে আদালতে নিযুক্ত জজ পন্ডিতদের রায়কে উলটে দিচ্ছেন। ১৭৮৫ সালের ২৮শে সেপ্টেম্বর একটি চিঠিতে লিখছেনঃ
    I am proceeding slowly, but surely, in this retired place, in the study of Sanskrit; for I can no longer bear to be at the mercy of our pundits, who deal with Hindu Law as they please, and make it at reasonable rates when they cannot find it readymade.[11]

    এখানে লেখক শুধু শাসকের দম্ভ দেখছেন, কিন্তু আমি এই বিষয়ে বর্তমান বইটির পরবর্তী একটি অধ্যায় থেকে লেখকেরই উদ্ধৃত হুতোমের কমেন্ট তুলে দিচ্ছিঃ
    পাঠকগণ! এই উর্দি ও তকমাওয়ালা বিদ্যালঙ্কার, ন্যায়লঙ্কার, বিদ্যাভূষণ ও বিদ্যাবাচস্পতিদের দেখচেন, এঁরা বড় ফ্যালা যান না। এঁরা পয়সা পেলে না করেন হ্যান কর্মই নাই! ---- যত ভয়ানক দুষ্কর্ম এই দলের ভিতর থেকে বেরোবে, দায়মালী জেল তন্ন তন্ন কল্লেও তত পাবেন না।[12]

    জোন্স খুব আলাদা কিছু বলেছেন কি?

    কিন্তু লেখকের মতে হ্যালহেড ইত্যাদির “আইন প্রণয়ণের মূল উদ্দেশ্য ছিল—ক) বৃহৎ জমিদারদের সম্পত্তির উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত করা ও খ) তদানীন্তন বাংলার একাধিক মহিলা জমিদারদের সম্পত্তি সুকৌশলে হাতিয়ে নেওয়া। আমরা এখন লেখকের বক্তব্যটি বোঝার চেষ্টা করব।

    ৯.৪.১ বড়ছেলের অধিকারঃ
    পূর্বপক্ষঃ

    • পুৎ নামক নরক থেকে পিতাকে যে ত্রাণ করে সে পুত্র (৯/১৩৮) । তাই মনুসংহিতার ৯/১০৬তম শ্লোক অনুযায়ী প্রথম পুত্রের জন্মমাত্রই মানুষ পিতৃঋণমুক্ত হয়, অতএব জ্যেষ্ঠই পুত্র পদ বাচ্য, পরের ছেলেরা নয়। এই জন্যে শুধু বড় ছেলে সকল ধনসম্পদ পাওয়ার যোগ্য। এই ব্যাখ্যায় সমস্ত টীকাকার সহমত। কিন্তু হ্যালহেড প্রণীত আইনে বলা হলঃ if there are several sons, they all shall receive equal shares. [13]
    • ‘এভাবে প্রথমে আইনের সাহায্য নিয়ে পৈতৃক সম্পত্তির উত্তরাধিকার থেকে জ্যেষ্ঠপুত্রকে বঞ্চিত করা হয় এবং সেই সম্পত্তি সমস্ত পুত্রের মধ্যে সমান ভাগে ভাগ করে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। একই আইনে আরও বলা হয়, পুত্রের অনুপস্থিতিতে পৌত্রদের মধ্যে এবং পৌত্র না থাকলে প্রপৌত্রদের মধ্যে একইভাবে সম্পত্তিটি বিভক্ত করা উচিত’। [14] এরফলে বৃটিশদের বৃহৎ জমিদারিগুলো খন্ড খন্ড হয়ে দুর্বল হয় , আবার রাজস্ব বৃদ্ধিও হয়।

    উত্তরপক্ষঃ
    ব্যাপারটা এত সরল ও একমাত্রিক নয়। মনুসংহিতার মাত্র দুটি শ্লোক (৯/১০৫ এবং ১০৬) বলছে সমস্ত পৈতৃক ধন কেবল জ্যেষ্ঠ ভ্রাতাই গ্রহণ করবে। কিন্তু একটু পরেই অনেকগুলো শ্লোকে মনু উলটো গাইছেন।

    এই শ্লোকগুলো দেখুন:[15]
    • (সমগ্র সম্পত্তির) বিশ ভাগ জ্যেষ্ঠ ভ্রাতার প্রাপ্য। তার অর্ধেক মধ্যম ভ্রাতার, চতুর্থ ভাগ কনিষ্ঠের । ৯/১১২।
    • অন্য ভাইয়েরা মধ্যমের সমান ভাগ (চত্বারিংশভাগ) পাবে। ৯/১১৩
    • জ্যেষ্ঠ সকল ধনের শ্রেষ্ঠ ধন পাবেন; গবাদি পশুর দশটির মধ্যে একটি শ্রেষ্ঠ পশু জ্যেষ্ঠ পাবেন। ৯/১১৪।
    • এভাবে জ্যেষ্ঠ বিশ ভাগাদি নিলে পরে ভ্রাতৃগণের মধ্যে সম্পত্তি সমান অংশে বিভক্ত হবে। নানিলে এদের মধ্যে এভাবে ভাগ করা হবে। ৯/১১৬
    • জ্যেষ্ঠ পুত্র একটি অধিক অংশ (মোট দুইভাগ) গ্রহণ করবেন। তার পরের ভ্রাতা নেবে দেড়, বাকি ছোট ভাইয়েরা এক এক ভাগ। ৯/১১৭।
    • উৎকৃষ্ট পুত্রের অভাবে নিকৃষ্ট পুত্র সম্পত্তির অধিকারী ।একপ্রকার অনেক পুত্র থাকলে তারা সকলে সম্পত্তির সমান অধিকারী হবে।(৯/১৮৪)
    • আবার ব্রাহ্মণের যদি একাধিক বর্ণের স্ত্রী থাকে তাহলে সম্পত্তির তিন অংশ ব্রাহ্মণপুত্র, দুই অংশ ক্ষত্রিয়াপুত্র, দেড়ভাগ বৈশ্যাপুত্র ও এক ভাগ শূদ্রাপুত্র পাবে।(৯/১৫১)।
    • আবার সমগ্র সম্পত্তি দশভাগে ভাগ করে ব্রাহ্মণপুত্র চার, ক্ষত্রিয়াপুত্র তিন, বৈশ্যাপুত্র দুই ও এক ভাগ শূদ্রাপুত্র পাবে।(৯/১৫২ ও ১৫৩)।

    ভাগাভাগির কূটকচালির মধ্যে না গিয়ে এটুকুই বক্তব্য যে মনু শুধু একতরফা জ্যেষ্ঠপুত্রই সব পাবে এমন একটাই ফরমান দিয়ে যাননি। তাই লেখকের অভিযোগ-- সমস্ত ভাইদের মধ্যে ভাগাভাগির ফলে জমিদারি টুকরো হয়ে দুর্বল হবে, কলোনিয়াল প্রভূর সুবিধে হবে-- অনেকটা কাকতালীয় যুক্তির উপর দাঁড়িয়ে। কারণ, ভাইদের মধ্যে সম্পত্তির ভাগাভাগির প্রাবধান, এমনকি দৌহিত্র ও দৌহিত্রপুত্রের মধ্যে বাঁটোয়ারা সেই মনুর সময় থেকে চলে আসছে। স্থানাভাব ও অপ্রয়োজনীয় বোধে সেসব উল্লেখ করছি না।

    ৯.৪.২ ইংরেজের হস্তমলিন হিন্দু আইনে বিধবার ও কন্যাসন্তানের সম্পত্তি হরণঃ
    লেখকের বক্তব্যঃ ‘ধূর্ত ইংরেজরা আইনি আবডালের সাহায্যে সম্পত্তির উত্তরাধিকারের প্রসঙ্গটিকে ক্রমশঃ পুরুষতান্ত্রিক করে তোলে এবং সম্পত্তির উত্তরাধিকার থেকে নারীদের বঞ্চিত করতে শুরু করে’। [16] কী ভাবে? হ্যালহেডের জেন্টু ল’তে প্রাচীন ধর্মশাস্ত্রগুলোতে নারীদের ও বিধবাদের সম্পত্তির যে অধিকার দেওয়া হয়েছিল তা’ ছিনিয়ে নিয়ে।

    পূর্বপক্ষঃ
    লেখকের মতে তৎকালীন ইংল্যান্ডে মহিলাদের সম্পত্তির অধিকার ছিল না। ফলত কোম্পানির রাজস্ব আদায়ের কর্তারা বর্ধমানের রাণী, মহিষাদল, তমলুক, মেদিনীপুর এলাকার ‘একাধিক মহিলা জমিদারদের প্রশাসন পরিচালনার ক্ষেত্রে দাপট ও দক্ষতার বিষয়টিকে সন্তুষ্ট চিত্তে মেনে নিতে পারেননি। তাই আইনে বদল এনে ‘নারীদের সম্পত্তিগুলিকে পুরুষদের হস্তান্তর করার প্রক্রিয়া শুরু করে’।

    কীভাবে?
    • মিতাক্ষরা ও দায়ভাগ নামের ভারতীয় ধর্মশাস্ত্রের মূল দুটি শাখার প্রতি চূড়ান্ত ঔদাসীন্য দেখিয়ে। মিতাক্ষরা অনুযায়ী বিধবারা স্বামীর সম্পত্তির অংশ পেতেন না। কিন্তু বাংলা ও আসামে প্রচলিত দায়ভাগ অনুযায়ী বিধবারা স্বামীর সম্পত্তির অংশীদার। এছাড়া অবিবাহিতা কন্যারাও পিতৃসম্পত্তিতে পুত্রদের সঙ্গে সমান অংশীদার।
    • দায়ভাগ অনুযায়ী মৃত ব্যক্তির পুত্র, পৌত্র বা প্রপৌত্রের অবর্তমানে বিধবা স্ত্রী সেই সম্পত্তির অধিকারী হতেন। কিন্তু হ্যালহেড জেন্টু ল’তে কোত্থেকে একটি ‘দত্তক’ পুত্রের উপধারা ঢুকিয়ে দিয়ে বিধবার জায়গায় সেই দত্তক পুত্রের বংশাবতংশের অধিকার এনে ফেললেন!
    • মনুস্মৃতি বলছে -পিতা ও মাতা জীবিত থাকতে ছেলেরা সম্পত্তির ভাগ করতে পারেনা। উভয়ের তিরোধানের পরে পারবে। (৯/১০৪)। কিন্তু হ্যালহেডের আইনে বিধবা মাতা যদি ছেলেদের ভাগ করতে অনুমতি দেন তবেঁ তারা সেটা করতে পারে। তখন মা চাইলে ছেলেদের সমান একভাগ পেতে পারেন।
    • সবচেয়ে কুৎসিত কাজ হোল স্ত্রীধনের অপব্যাখ্যা। মনু অনুযায়ী স্ত্রীধন নারীরা আমৃত্যু তাঁদের নিজস্ব সম্পদরূপে রেখে দিতে পারতেন। মাতার মৃত্যুর পরেই তাঁর পুত্রকন্যারা সেই ধনের উত্তরাধিকারী হতে পারত। (৯/১১৪, ২০০)।
    • কিন্তু হ্যালহেড এরমধ্যে ভিক্টোরী মানসিকতার পিতৃতান্ত্রিক সতীত্বের কন্ডিশন জুড়ে দিলেনঃ WHATEVER woman be of a Disposition altogether malevolent or wanting in female Modesty, or careless of her Property, or unchaste, such Woman is incapable of possessing what has been specified to be a Woman’s Property. [17]

    উত্তরপক্ষঃ
    • মূল বক্তব্য সঠিক। অর্থাৎ মনুস্মৃতিতে বিধবা ও মেয়েদের যে সামান্য অধিকার ছিল তাও ভিক্টোরিয়ান প্রুডারির চোটে জেন্টু আইনে খর্ব করা হল।
    • কিন্তু এর জন্যে মনুস্মৃতিই যথেষ্ট। লেখক দেখিয়েছেন যে লেখকের বক্তব্যের সমর্থন মনুস্মৃতিতেই রয়েছে। মিতাক্ষরা ও দায়ভাগকে না টানলেও চলে। এরা আসলে সম্পত্তির উত্তরাধিকার বিষয়ে স্মৃতিশাস্ত্রের উপর ভাষ্য।
    • মিতাক্ষরা হল মূলতঃ যাজ্ঞবল্ক্য স্মৃতির উপর বিজ্ঞানেশ্বর রচিত ভাষ্য বা টীকা। আবার দায়ভাগ হোল বাংলার পন্ডিত জীমূতবাহনের ভাষ্য। মিতাক্ষরা হল বেশ গোঁড়া ব্যাখ্যা যদিও বঙ্গে ও আসামে কিঞ্চিৎ উদার দায়ভাগ চলে, বাদবাকি দেশে মিতাক্ষরা। যখন দেশের অধিকাংশ অংশে প্রচলিত মিতাক্ষরা ভাষ্যটিই বিধবা ও কন্যার সম্পত্তির ব্যাপারে উদার নয়, [18] তখন কলোনিয়াল পন্ডিতদের থেকে আর কী আশা করা যায়!
    • দুটোই যখন ভাষ্য, তখন ভারতের ‘প্রাচীনতম এবং সর্বাপেক্ষা প্রামাণ্য ধর্মশাস্ত্র’ [19] মনুস্মৃতির সঙ্গে মিলিয়ে দেখাই ভাল, যেমন লেখক স্বয়ং উপরে করেছেন।

    ✜ জেন্টু আইনের ফলে তৎকালীন মহিলা জমিদারদের ক্ষমতা খর্ব হয়েছিল?
    ফ্যাক্ট চেকঃ জেন্টু আইন পাশ হয় ১৭৭৬ সালে।
    • নাটোরের রাণীঃ অপুত্রক মহারাণী ভবানী(১৭১৬-১৮০২) স্বামীর মৃত্যুর পর ১৭৪৮ সালে জমিদারির দায়িত্ব নিয়ে দক্ষতার সঙ্গে বহুবছর পরিচালনা করে জেন্টু আইনের আগেই দত্তক পুত্রকে দায়িত্ব সঁপে দেন।
    • বর্ধমানের মহারাণীঃ ১৭৭০ সালে রাজা তিলকচাঁদ রায়ের মৃত্যু হলে মহারানী বিষ্টুদেবী ৬ বছরের শিশু তেজচাঁদ রায়ের তরফে তার সাবালকত্ব প্রাপ্তি পর্য্যন্ত রাজ্য পরিচালনা করেন।
    • মহিষাদলের রাণী জানকী দেবীঃ রাজা আনন্দলাল উপাধ্যায় অপুত্রক হওয়ায় রাণী জানকী দেবী মহিষাদল এস্টেট তাঁর ব্রিটিশ বিরোধিতা সত্ত্বেও ভালভাবে পরিচালনা করতে পেরেছিলেন।
    • রাণী রাসমণি ১৮৩৬ সালে স্বামী রাজচন্দ্র দাসের মৃত্যুর পর জানবাজারের এস্টেটের জমিদারি পরিচালনার ভার স্বহস্তে গ্রহণ করে ১৮৬১ সাল পর্য্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে পরিচালনা করেন। আইন কোন বাধা হয়নি। [20]

    অর্থাৎ, জেন্টু আইনের আগে বা পরে (রাণী রাসমণি) মহিলা জমিদারদের আইন দেখিয়ে রাজত্ব কেড়ে নেওয়া হয়েছিল বা বঞ্চিত করা হয়েছিল—এমন তথ্য পাচ্ছি না। আর প্রাচীন মনুস্মৃতিতে রাণীদের খুব একটা সম্মান দেওয়া হয়েছিল বা সম্পত্তিতে বিশেষ অধিকার দেওয়া হয়েছিল সেটা মনে হয় না। যা ছিল তা মার্জিনাল। অবশ্য সেটাও গেল।

    নীচের শ্লোকটি( আরও অনেক শ্লোকের মধ্যে) মনুসংহিতায় নারীর স্থানের ব্যাপারে ইশারা করছেঃ স্ত্রী,পুত্র ও দাস—এই তিনজনই ধনহীন থাকবে। এরা যদি কিছু উপার্জন করে তাহলে সেটা তাদের মালিকেরই সম্পত্তি হয়ে যাবে। (৮/৪১৬)।

    ৯.৫.১ পন্ডিতেরা কী করলেন?
    ন্যাথানিয়েল হ্যালহেড বাংলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ১১ জন সংস্কৃতজ্ঞ পন্ডিতকে নিযুক্ত করে মূলতঃ যাজ্ঞবল্ক্য ও মনুস্মৃতি এবং মিতাক্ষরা ও দায়ভাগ থেকে দেওয়ানি আইনের জন্য উপযুক্ত বিধানগুলি সংকলন করালেন। এই সংকলন গ্রন্থের নাম হোল “বিবাদার্ণবসেতু” । তারপর সেটার থেকে ফার্সিতে অনুবাদ হল। শেষে তার থেকে ইংরজিতে। ইংরেজি বইটির নাম হোল A Code of Gentoo Laws, or, Ordinations of the Pundits. প্রকাশিত হোল ১৭৭৬ সালে। কুড়ি বছর পরে উইলিয়ম জোন্স এর তত্ত্বাবধানে আরও পালিশ করা হবে এবং প্রকাশিত হবে হিন্দু আইনের উন্নত সংকলন –‘বিবাদভঙ্গার্ণব’।
    উদ্দেশ্য ছিল ইংরেজ বিচারপতিদের জন্যে আদালতে হিন্দুদের সম্পত্তি ও অন্যান্য দেওয়ানি মামলার বিচার করতে একটি রেডি রেকনার বা হ্যান্ডবুক তৈরি করা যাতে তাঁদের দেশি সংস্কৃতজ্ঞ পন্ডিতদের উপর একান্ত নির্ভরশীল না হতে হয়।
    এতসব আশকথা পাশকথা বলার উদ্দেশ্য যে কোম্পানির প্রতিনিধিদের উদ্যোগে হিন্দু আইন প্রণয়নের প্রেক্ষিতটুকু স্পষ্ট থাকলে আগামী কিস্তিতে বিদ্যাসাগরের বিধবাবিবাহ ও বহুবিবাহ নিয়ে আইন প্রণয়ণের ব্যাপারটি এবং লেখকের সমালোচনাটি বুঝতে সুবিধে হবে।

    ৯.৫.২ ডঃ নন্দিনী ভট্টাচার্য পন্ডার গুরুত্বপূর্ণ গবেষণাঃ
    উৎসাহী পাঠকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি একটি গুরুত্বপূর্ণ বইয়ের দিকে - Appropriation and Invention of Tradition: The East India Company and Hindu Law in Early Colonial Bengal। অক্সফোর্ড প্রেস থেকে অল্পদিন আগে প্রকাশিত বইটি উনি ওঁর প্রয়াত দুই অধ্যাপক বিমলকৃষ্ণ মতিলাল ও তপন রায়চৌধুরিকে উৎসর্গ করেছেন। বইটি ওঁর অক্সফোর্ডে গবেষণার ফসল।
    বইটি আপাততঃ অ্যামাজনে শুধু কিন্ডল ভার্সনে পাওয়া যাচ্ছে।

    গবেষণার বিষয় কীভাবে ধর্মশাস্ত্রকে কিছু নির্বাচিত অংশের ভিত্তিতে কলোনিয়াল শাসকেরা কিছু সংশোধনের মাধ্যমে সম্পত্তি ও উত্তরাধিকার এবং দেওয়ানি মামলার অন্য ইস্যুতে হ্যান্ডবুক গোছের বানিয়ে হিন্দু ল’ নামক কলোনিয়াল অ্যাক্ট তৈরি করল (হ্যালহেডের ‘এ কোড অফ জেন্টু ল’, কোলব্রুকের ‘ডাইজেস্ট অফ হিন্দু ল’জ, এবং পন্ডিতদের দিয়ে লিখিয়ে নেওয়া বিবাদর্ণবসেতু ও বিবাদভঙ্গর্ণব) যা তার সংশোধন ইত্যাদির মাধ্যমে আজও ভারতে প্রভাবশীল।
    বইটিতে ওঁর গবেষণার অভিমুখ হল এই কৃত্রিম ভাবে তৈরি হিন্দু ল’ বানানোর মাধ্যমে কীভাবে ধর্মশাস্ত্র চর্চার ও সময়ানুগ পরিবর্তনের ( মিতাক্ষরা, দায়ভাগ, স্মার্ত রঘুনন্দনের টীকা ইত্যাদি) যে পরম্পরা ছিল তার থেকে আমাদের ক্ষমতাচ্যুত ও অপ্রাসঙ্গিক করে দেওয়া হল। [21]
    “ My study examines inter alia how far the codification of the Hindu Law displaced Indian agencies”.
    এই বইটিতে উনি এডওয়ার্ড সইদের ওরিয়েন্টালিজম থেকে শুরু করে হবসব্যোম ও টেরেন্স রেঞ্জারের কলোনিয়াল শাসককুলের দ্বারা নিজেদের মত করে ‘ট্র্যাডিশন আবিষ্কার’ করার থিসিসকে [22] মান্যতা দিয়েছেন। প্রসঙ্গতঃ ওঁর গবেষণা অধ্যাপক টেরেন্সের অধীনে।
    নন্দিনী এখানে ‘কলোনিয়াল ডিস্কোর্স” বিতর্কে তাঁর বিপরীত মতের বেইলির [23] এবং ও’হ্যানলন, ওয়াশব্রুকের থিওরিকেও -- ঔপনিবেশিক শাসকেরা ভারতে খামচা মেরে আইন প্রণয়ন করেননি, বরং যত্ন করে ধর্মশাস্ত্রের ধারাটিকে মেনে তাকে সময়োপযোগী চেহারা দিয়েছেন- কাটাছেঁড়া করেছেন।

    বইটি এককথায় ‘ফ্যাসিনেটিং’!

    আমি খালি তাঁর এবং তাঁর অনুসরণে আলোচ্য বিদ্যাসাগরের পুনর্নির্মাণ সম্বন্ধিত বইটির লেখক দেবোত্তমের সঙ্গে একটি বিন্দুতে অসহমত যে ধর্মশাস্ত্র আচারবিধি এবং যার লঙ্ঘনে কেবল পাপের ভয় ও প্রায়শ্চিত্তের উপায় বলা আছে, নিয়ম ভাঙলে রাজা কর্তৃক দণ্ডবিধানের কথা বলা নেই।
    আবার বলছি, অষ্টম ও নবম অধ্যায়ে ৪০০র বেশি শ্লোকে রাজা কর্তৃক আর্থিক এবং শারীরিক দণ্ডবিধানের তথা সাক্ষ্যপদ্ধতির নির্দেশ স্পষ্ট করে দেওয়া হয়েছে। ফলে ওই অংশটুকু অবশ্যই দেওয়ানি এবং ফৌজদারি বিধি বা আইন।
    এই প্রেক্ষিতে আমরা বিধবাবিবাহের মারপ্যাঁচ ইত্যাদি এবং বিদ্যাসাগরের ভূমিকা নিয়ে পরের কিস্তিতে আলোচনা করব।

    (চলবে)




    [1] দেবোত্তম চক্রবর্তী; “বিদ্যাসাগর: নির্মাণ-বিনির্মাণ-পুনর্নির্মাণের আখ্যান”, পৃঃ ৪৩।
    [2] ঐ, পৃঃ ২০৬।
    [3] ঐ, পৃঃ ২০৬।
    [4] ঐ, পৃঃ ২০৭।
    [5] ঐ, পৃঃ ২০৮।
    [6] ঐ, পৃঃ ২০৮।
    [7] ঐ, পৃঃ ২০৯।
    [8] Derrett on Western notion of Law as quoted by Dr. Nandini Bhattacharya Panda, Appropriation and Invention of Tradition: The East India Company and Hindu Law in Early Colonial Bengal, Chap 1
    [9]Ibid, Chap. 1.
    [10]Appropriation and Invention of Tradition: The East India Company and Hindu Law in Early Colonial Bengal, Chap. 1 by Dr. Nandini Bhattacharya Panda
    [11] দেবোত্তম চক্রবর্তী; “বিদ্যাসাগর: নির্মাণ-বিনির্মাণ-পুনর্নির্মাণের আখ্যান”, পৃঃ ২১৯।
    [12] ঐ, পৃঃ ২৩১।
    [13]N B Halhed, A Code of Gentoo Laws, Chapter II, Sec. I, page 29.
    [14]
    [15] মনুসংহিতা, অনুবাদ ও টীকাঃ সুরেশচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়, আনন্দ, কলকাতা।
    [16] দেবোত্তম চক্রবর্তী; “বিদ্যাসাগর: নির্মাণ-বিনির্মাণ-পুনর্নির্মাণের আখ্যান”, পৃঃ ২১১।
    [17]N B Halhed, A Code of Gentoo Laws, Chapter II, Sec. III, page 29.
    [18]Appropriation and Invention of Tradition: The East India Company and Hindu Law in Early Colonial Bengal, Chap. 1 by Dr. Nandini Bhattacharya Panda
    [19] মনুসংহিতা, অনুবাদ ও টীকাঃ সুরেশচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়, আনন্দ, কলকাতার ভূমিকা।
    [20] উইকিপিডিয়া।
    [21]Appropriation and Invention of Tradition: The East India Company and Hindu Law in Early Colonial Bengal, Chap. 1 by Dr. Nandini Bhattacharya Panda
    [22]E Hobsbawm and Terence Ranger, The Invention of Tradition. 1987.
    [23] O’Hanlon and Washbrook, Histories in Transition. P. 115.


  • বিভাগ : পড়াবই | ০১ আগস্ট ২০২১ | ৪০৩ বার পঠিত
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • প্রতিভা | 115.96.142.44 | ০২ আগস্ট ২০২১ ২৩:৫৫496341
  • এতো বিস্তারিত লেখা পাওয়াই মুশকিল। লেখক সত্যি ধন্যবাদার্হ। 

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লাজুক না হয়ে প্রতিক্রিয়া দিন