• বুলবুলভাজা  খ্যাঁটন  হেঁশেলে হুঁশিয়ার  খাই দাই ঘুরি ফিরি

  • ডিডি-র কিচাইন–৪

    ডিডি
    খ্যাঁটন | হেঁশেলে হুঁশিয়ার | ০৬ জানুয়ারি ২০২১ | ৫৫০ বার পঠিত | ১ জন)
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • অনেক হয়েছে ভায়া ন্যাকা-নস্টালজিয়া। ‘মায়ের রান্না’, মনে পড়তেই সে কী কান্না। আহা পিসির হাতের সেই চ্যবনপ্রাশ-ভাতে! তার চেয়ে বরং ছেড়ে সব ঢং রেঁধেই ফেলুন তুখোড় ‘পটাটাস মাতাদোর’। কিংবা ছেড়ে আজেবাজে কথা, রাঁধুন ‘চিকেন বনলতা’। ভয় নেই, বলেছি তো সেই কবেই, পড়বে না মোটে ঢিঢি—মিছে ঘাবড়াচ্ছে‌ন, রেসিপি বাতলাচ্ছেন স্বয়ং ডিডি


    খাওয়াদাওয়ার সাথে নস্টালজিয়ার একটা গভীর ও ব্যাপক আত্মীয়তা আছে। তবে আমি দীর্ঘদিন ধরে বিজ্ঞানসন্মত ও সেকুলার সমীক্ষা করে দেখেছি নস্টালজিয়ার যেমন একটা লোয়ার লিমিট (বছর কুড়ি) রাখা উচিত তেমনই আপার লিমিটও। না হলে পঞ্চাশোর্ধ্বে ক্রমশই ওটা টেনিদার মতন হয়ে যায়, আর ষাটের উপর পুরো ঘনাদা কেস। বিগত দিনের স্মৃতির মাছের সাইজ ক্রমশই বড়ো হতে থাকে, ফুলকপি তো সুগন্ধে রজনীগন্ধাকেও হার মানায়, টমেটোর লালত্ব আর গোলত্বের আর সীমা থাকে না—এইরকম কত কী। আবার আরও বেশি বয়সের হলে খাওয়াদাওয়ার কথা বলতে গেলে চোখদুটো জ্বলজ্বলিং কিন্তু অসাড়েই লালে-ঝোলে একশা। বলুন, গলায় বিব ঝুলিয়ে স্মৃতি রোমন্থনের কোনো মানে হয়?

    মায়ের রান্না বলতে গেলেই চোখের জলে ভেসে যান কতজনায়। অথচ দেখুন সুদূর অতীতে পিছন ফিরে দেখি বেশ কিছু বাড়িতে নানাবিধ খাবার খেয়ে যথেষ্ট বিতিকিশ্রি লেগেছিল। ডেফিনিটলি কিছু বাড়ির রান্নার তেমন সুবাদ কিছু ছিল না। পাড়ার এক মাসিমাকে চিনতাম তিনি তার ছেলেকে সকালে চ্যবনপ্রাশ দিয়ে পাঁউরুটি, স্কুলের টিপিনে মুড়ি আর চ্যবনপ্রাশ আর রাত্রিবেলা ভাত আর চ্যবনপ্রাশ দিতেন। অতি বাধ্য স্বামী আর ছেলে চেটেপুটে খেয়ে তারিফও করত, “বাঃ, আজকের ভাতটা বেশ ঝরঝরে হয়েছে, খুব টেস্টি।”

    এ ছাড়া সবার পরিবারেই ছিলেন অলৌকিক পিসিমারা। তাঁরা তো রাঁধুনে নন সাক্ষাৎ ম্যাজিশিয়ান। তাঁরা বাজারে যেতেন না। কিন্তু অম্লানবদনে দেরাজ, ভাঁড়ারঘর আর পিছনের বাগান হাটকে যে দু-একটা পাতা, ফল, ডাঁটাশাক—যা পেতেন তা দিয়েই, ওঃ সে কী রান্না। অমৃত মশাই অমৃত। এই গল্প কতবার শুনেছেন? আর কী সব উপকরণ ছিল পিসিদের হাতে। লইট্টা ফল, বরবটির বিচি, গাঁদাল পাতা আর বাসী মোয়া। সেসব দিয়েই হুলিয়ে রেঁধে দিতেন দারুণ সব পদ। এইসব কত যে রূপকথা। না বাবা, বেশি বলাও যাবে না। এখন তো পিসি-ভাইপোদেরই যুগ। শেষে কেস খেয়ে যাব।

    বয়সের ধর্মই যে ধীরে ধীরে টেস্ট বাড আর ঘ্রাণশক্তি ক্রমশই মিইয়ে আসে। তাই অল্পবয়সের খাবারের স্বাদ অনেক বেশি জমজমাট থাকে। স্মৃতিও তাই খুব ঝলমলে হয়।

    আর এখন হয়েছে, বয়স হলেই সবাই প্রায় কোনো না কোনো ডায়েট করে। চিনি না, নুন না, ঝাল নয়। মশলা বাদ, রেড মিট তো উরেঃ বাবা, দুধ খাব না, চিনেবাদামও না। কার্ব বাদ দিন, সোডিয়াম চাই না, Gluten (সেটা আবার কে রে বাবা?) থেকে দূরে থাকুন। মাখন, ঘি সব ঝুট হ্যায়। আর কতরকমের যে ডায়েট! হরিহরি। ভিগান, কেটো, মাইন্ড, টিএলসি। নাঃ, এর শেষ নেই। অস্পৃশ্য খাবারের এক দীর্ঘ মিছিল। সব কাটাকুটি করে হাতে থাকল কিছু পক্ষীভোগ্য শস্যদানা আর সজনেডাঁটা। ব্যাস। শেষ নাহি যে, শেষ কথা কে কবে? যেমন ধরুন ডিম। বছর দশেক আগে ফতোয়া চলে এল ডিম এক বিষমাত্র। লোকে পাগলের মতন এক ডিমত্যাগী জীবন শুরু করে দিল। “মাসে দেড়খানা ডিম অ্যালাউ করেছে ডাক্তারে”, এক বিষণ্ণ বন্ধু আমায় জানান, “সে-ও কুসুম বাদ দিয়ে।” “তো দেড়খানা কুসুম কী করিস?” আমি উৎকণ্ঠিত হই। “বউ ওগুনো মুখে মাখে, শসা আর গাজর দিয়ে চটকে।”

    তারপরে আবার শুনি ডিম এখন আবার জলচল হয়েছে। ওতে নাকি ইদানীং আর বিষক্রিয়া হয় না। দুন্দুভি আবার বেজে উঠেছে ডিমডিম রবে।



    ভালো কথা, ডিমের কথায় মনে পড়ল। দেখুন তো একবার চেষ্টা করে, ‘ঔফঅউম্লেত্তে’ বলতে পারবেন কি না? নাঃ, আমিও কখনও সামনাসামনি শুনিনি। তবে ডিমের ওমলেটের ওটাই নাকি ফরাসি নাম। ফরাসিরা খুবই খুঁত্খুঁতে রাঁধুনি। অমলেট আদৌ ওদের কাছে হেলাফেলার খাবার নয়। একটা রেস্তোরাঁ তো শুধু অমলেট রেঁধেই ভুবনবিখ্যাত হয়ে গেল। না, না, আমি আর বাংলা হরফে লিখবার চেষ্টাও করব না, রোমান হরফে নাম, ‘La Mere poulard’—একেবারে UNESCO Heritage পদক পাওয়া—যারা বিশদে জানতে চান তাঁরা নিজে নিজেই উইকি দেখে জেনে নিন। তবে আপনাদের বিশ্বাস নেই, হয়তো গিয়ে অলরেডি খেয়েও এসেছেন। সারা দুনিয়ার রাজাগজা, প্রেসিডেন্ট, মন্ত্রীমশাই ওই দোকানের অমলেট খেয়ে এসেছেন। সেই অমলেটের এমনই হম্বিতম্বি। পরিবেশনা (প্লেটিং মশাই, প্লেটিং) করবেন বিশাল চৌকো থালায়, তার এককোণে একটি করমচা ও একটুকরো ঝাউপাতা আর আর-এক কোণে টমেটোকে চাপ দিয়ে একটি হ্যাশট্যাগ বা জাস্ট তিনটে টিপ এঁকে দিলে তো কথাই নেই, ভারতীয় টাকায় তিনহাজার টাকা দাম স্বচ্ছন্দে হাঁকাবেন।

    রেসিপিটাও খুব সিক্রেট, তাও নেট ঘেঁটে দেখলাম বেশ কঠিন ব্যাপার। আর সেটা শুধু মালমশলার গুণেই নয়, রাঁধবার কৌশলও বিস্তর।

    তবে যদি পাতি সাহেবি অমলেট খেতে চান তো ডিম ফেটিয়ে প্যানে মাখন গলিয়ে মিনিট কয়েক মাঝারি আঁচে ঢাকা দিয়ে রাখুন। আর ডিমের মধ্যে দিয়ে দিন গ্রিলড মাশরুম, ক্রিস্প বেকন, হ্যামের টুকরো আর চিজ । আরে দাঁড়ান, কী ভাবছেন? ফ্রিজ থেকে ঝট করে পিজ্জা চিজ বার করে ঘেঁটে দেবেন? না মশাই। অমলেটের জন্য, শুধু অমলেটের জন্যই চিজ হচ্ছে Morbier, Gruyere বা Comte। আরও দু-একটা আছে। তবে দেশেই যদি থাকেন আর নিতান্ত নিরীহ ছাপোষা বন্ধু বা খুড়শ্বশুরকে ইম্প্রেস করতে চান তো স্রেফ মোজেরেল্লা দিয়ে দিন, আর লাস্ট যে পিৎজা বাড়িতে খেয়েছিলেন সেগুলোর সাথে যে মশলার প্যাকেট ছিল, সেগুলোও। দেখবেন সেই অমলেট বাটার মসল্লা খেয়ে তাদের চোখ দুটো দিস কাইন্ড অব বিগ হয়ে গেছে।

    বা নিছক দিশি এবং ঘরোয়া অমলেট খান। সাদা তেলে ডিম, লঙ্কাকুচি, টমেটোকুচি আর নিতান্ত সখ চাগলে রসুনকুচি দিয়ে ডিমের অমলেট। গোলমরিচ অবশ্যি দিবেন।

    বা মামলেট খান। ১০০% দিশি। নস্টালজিয়া যদি খুবই কামড়ায় তো মামলেটই প্রশস্ত পথ্য। জানি না এখনও পাওয়া যায় কি না। খুব ভিড়ভাট্টা ফুটপাথে রীতিমতন উনুন জ্বালিয়ে কড়াইতে ছ্যাঁকছোঁক মহাসংগীতের মধ্যে যথেচ্চ ভেজাল তেলে হাঁসের ডিম ফেটিয়ে, গুচ্ছের লঙ্কা আর প্যাঁজ আর একটা সিক্রেট মশলা থাকে—খেলেই কারেন্ট লাগবে—সেটা দিয়ে ফাটা চিনেমাটির প্লেটে সাজিয়ে দেবে। তার সাথে অ্যানোডাইজড টিনের চামচ, সে এমনই ললিত লবঙ্গলতা যে মামলেট কাটতে গেলেই বেঁকে যায়। তবে কাটতে পারলেই দেখবেন ভিতরটা লঙ্কায় সবুজ হয়ে আছে। ওঃ! সে কী স্বাদ। রাস্তার পেটরোগা লোকেরা লোলুপ তাকাবে, স্বাস্থ্যবাতিকের লোকেরা সভয়ে দূরে সরে যাবে, দু-একটা কুকুর খুব আহ্লাদি ভাবে কাছে ঘেঁষতে চাইবে, কিন্তু আপনি শেষ অ্যাটমটুকুও চেটেপুটে খেয়ে ফেলবেন। হায়, আজকে কোথা সেই মায়াঘেরা ফুটপাথ? সেই ডিজেলগন্ধী রান্নার তেল, সেই ধূলিবাতাস ও কোটি ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাসের ভ্রূপল্লবে ডাক দেওয়া ডিমেল হাওয়া?

    বা ধরুন আলু সেদ্দো? না, আপনাদের বিশ্বাস নেই। হয়তো বলবেন বেলজিয়ামের এক এক্সক্লুসিভ আলুসেদ্দোর দোকানের সংবাদ। বা ভেনিসে। অথবা বালতির মোড়ে।
    তাও ও, জেনে রাখুন সাহেবদের আলুসেদ্দোও হয় খুব যত্ন নিয়ে। খুব পছন্দের আলু ‘Yokon Gold’। প্রাক্‌-করোনা যুগে, আমাদের দেশেও পাওয়া যেত দু-একটা কেৎ-এর দোকানে। তার সাথে পারমেসিয়ান চিজ দিন, সাওয়ার ক্রিম, নানান হার্ব, এমনকি ব্লেন্ডারে ঢুকিয়ে একেবারে ফর্দাফাঁই করে একটা সাদাটে চাদরের মতন করে দিতে পারেন। যাকে বলে রেস্টুরেন্ট স্টাইল ম্যাশ্‌ড পটাটো। মাটির মানুষদের এই জিনিস খাওয়ালেই ধন্য ধন্য পড়ে যাবে।

    আসলে আলুসেদ্দো কোনোদিনই জাতে ওঠেনি। খেতে যতই ভালোবাসুন না কেন। জামাইষষ্ঠীতে কোনোদিন শুনেছেন মহামান্য অতিথিকে আলুভাতে দেওয়া হচ্ছে? বা শেষপাতে দুধভাত? সুঠাম অপিচ কুসুমকোমল চন্দ্রমুখী আলু সর্ষের তেল দিয়ে চটকে মেখে কাঁচালঙ্কা কুচিয়ে মায়াবী হাতে টেনিস বলের মতন গোল্লা পাকিয়ে দিলে, আপনারাই বলুন, কোন্‌ পাষণ্ড আছে যার চোখে জল আসবে না?

    সারা দুনিয়া দেখা পরিযায়ী এক প্রাজ্ঞকে ওই জিনিসই সাজিয়ে গুছিয়ে দিয়ে স্রেফ গুল মেরেদিলাম, ইটি একটি স্প্যানিশ রান্না, পটাটাস মাতাদোর। উনি খেয়ে খুশি হয়ে বললেন “মাস্টার্ড সস তো? বেশ হয়েছে। টেক্সচারও ফাইন। তবে ইটি বোধহয় সাউথ স্পেনের রেসিপি। একটা আন্দুলিসিয়ান টেনডেন্সি আছে।” আমিও হেঁ-হেঁ-হেঁ করে দিলাম।

    সে যাগ্গে। আপনেদের খিদে পায়নি এখনও? এবারে না হয় খান চিকেনের বনলতা।

    এটার একটা প্রেক্ষিত আছে। অতীতে রোবুবাবু আগে এই পাড়ায় গতায়াত করতেন, ইটি ওনারই পারিবারিক রেসিপি। তবে আদতে এটি ছিল মাটনের। আলু ফালু দিয়ে। কিন্তু আমি এই সরল গোলগাল রেসিপি ট্রাই করে দেখলাম এটির ব্যক্তিত্ব মুরগির সাথেই খোলে ভালো।

    মেরিনেড করুন প্যাঁজ আর কাঁচালঙ্কা বেটে, দই, লাল লঙ্কাগুঁড়ো, গোলমরিচ আর নুন।

    তারপরে তেজপাতা ফোড়োন দিয়ে দিন রসুনকুচি আর গুচ্ছের ছোটো এলাচ।

    এইবারে মুরগিটা দিয়ে ভাজুন জমিয়ে। এবার সেদ্দো করুন। ব্যাস। হয়ে গেল। বলেছিলাম না, এটি একটি সরল গোলগাল রেসিপি।

    আমি মাঝেমধ্যে নামানোর সময় একটু ফ্রেশ (মানে ফ্রিজের কোনায় খুঁজে পেলে) ক্রিমও দিয়ে দেই। তাতে একটু সখী সখী ভাব হয়ে ঠিকই, তবে রংটাও ফরসা হয়, অনেকেরই সেটাই ভালোলাগে। যেন পথভ্রান্ত এক স্যুপ। এলাচের সফেন সাগরে এক দিশাহারা মুরগির কাহিনি।




    গ্রাফিক্স: সায়ন কর ভৌমিক
    ভিতরের ছবি: মনোনীতা কাঁড়ার

  • বিভাগ : খ্যাঁটন | ০৬ জানুয়ারি ২০২১ | ৫৫০ বার পঠিত | ১ জন)
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • গবু | 223.223.143.35 | ০৭ জানুয়ারি ২০২১ ১৮:৩০101550
  • দুর্দান্তস্কি!


    ইয়ে ...পোস্ট রান্নার কোনো ছবি হতে পারে কি? 

  • Prativa Sarker | ০৭ জানুয়ারি ২০২১ ২০:৩২101551
  • চমৎকার তো !!! 

  • শিবাংশু | ০৭ জানুয়ারি ২০২১ ২১:৩৯101552
  • ডিডি মাঝে মাঝে  বৈকুণ্ঠ থেকে নেমে লর্ড বিষ্ণুর ক্ল্যাসিফায়েড  রেসিপি থেকে কিছু  ঝেড়ে দিয়ে আবার ফিরে যান।সবই দৈবী মায়া .... !! :-))

  • সম্বিৎ | ০৭ জানুয়ারি ২০২১ ২২:২৯101553
  • ডিডিদার এই কলম দিন-কে-দিন বেহেতর থেকে বেটার হচ্ছে। এই লেখায় কত যে ডিডিদ্ধৃতি তৈরি হল।

    'দুন্দুভি আবার বেজে উঠেছে ডিমডিম রবে।"

  • dc | 122.178.20.149 | ০৭ জানুয়ারি ২০২১ ২৩:৩৭101555
  • ডিডিদার লেখা একেবারে মামলেটের মতো জিভে জল আনা। আর ফ্রেঞ্চ অমলেটের কথা পড়ে ডেক্সটারের অমলেট দ্য ফ্রমাজ মনে পড়ে গেল :d

  • dc | 122.178.20.149 | ০৭ জানুয়ারি ২০২১ ২৩:৪৩101556
  • য়ুটুবে এপিসোডটা আছে দেখছি।




  • r2h | 73.106.235.66 | ০৮ জানুয়ারি ২০২১ ০০:২৫101558
  • মনোনীতার অলঙ্করণ চমৎকার লাগলো!

  • অরিন | 161.65.237.26 | ০৮ জানুয়ারি ২০২১ ০২:৪২101559
  • :-), দারুণ। 


    আলুর কথায় কথায়, ইউকন গোলডের কথা লিখলেন বলে, সাহেবের আলু নিয়ে খুঁতখুঁতে ভাব চর্চার বিষয়। আমি নিউজিল্যাণ্ডের সবজির দোকানে অন্তত গোটা দশেক বিভিন্ন "জাতের" আলু দেখেছি, একেক জাতের আলু নাকি একেক রকম রান্নায় দিতে হয়। যে আলু রোস্টের, আর যে আলু স্যালাডের, তারা ভিন্ন গোত্রের। এখানকার মেলায় (Agriculture & Produce) দেখেছি একেবারে নিটোল গোল আকৃতি না হলে এবং সোনার রঙ না ধরলে সে নাকি আলু ফলনের প্রতিযোগিতার বাজারে আলু পদবাচ্যই নয় । 

  • সম্বিৎ | ০৮ জানুয়ারি ২০২১ ০৩:০৮101560
  • "সুঠাম অপিচ কুসুমকোমল চন্দ্রমুখী আলু সর্ষের তেল দিয়ে চটকে মেখে কাঁচালঙ্কা কুচিয়ে মায়াবী হাতে টেনিস বলের মতন গোল্লা পাকিয়ে দিলে, আপনারাই বলুন, কোন্‌ পাষণ্ড আছে যার চোখে জল আসবে না?"


    এটা কীরম হল ডিডিদাভাই? নো পেঁয়াজকুচো? ওটা মাস্ট। জামাই খাবে কী, ঝাঁজেই মরে যাবে।

  • &/ | 151.141.85.8 | ০৮ জানুয়ারি ২০২১ ০৪:৩৭101561
  • ওঃ, কী জিনিস! ডিডি , ডিডি, ডিডি। ঝিঙ্গালালার সেই ভাসন্ত ছায়ার উপরে দাঁড়িয়ে রান্না মনে পড়ে যায়। :-)

  • বিপ্লব রহমান | ০৮ জানুয়ারি ২০২১ ১২:১৪101563
  • ভিমড়িও যে একটি সুখাইদ্য ডিডির রেসিপি পইড়া মনে হৈল।  কাম সারছে  :)) 

  • কুমু | 122.161.102.241 | ০৮ জানুয়ারি ২০২১ ১৯:৪৬101567
  • বেশি ছোট এলাচ দিলে কেমন একটা পায়েসগন্ধ হবে না?

  • dd | 49.207.194.145 | ০৮ জানুয়ারি ২০২১ ২১:৩০101569
  • আরে বেশী এলাচ দিলে চিকেন তো বটেই গলদা চিংড়িও  পায়েসের মাতান লাগবে।  সেই জন্যেই তো স্পেসিফিকালি  বলে দিয়েছি এলাচ বেশী দিবেন না  জাস্ট গুচ্ছের দিন। 

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লাজুক না হয়ে মতামত দিন