• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • ঘোল

    বিপ্লব রহমান
    বিভাগ : অপর বাংলা | ৩১ মার্চ ২০২০ | ৩৮৫ বার পঠিত
  • অন্যকে না খাওয়ালেও নিজে বিস্তর ঘোল খাননি, এমন বাঙালি মেলা দুস্কর। অর্থাৎ বাঙালি মাত্রই ঘাটে ঘাটে ঘোল খেয়ে থাকেন।

    আমাদের শৈশবে রূপকথার বইতেও দেখেছি, রাজা-রাজড়ার আমলে দুস্কৃতিকারীকে  জুতোর মালা পরিয়ে, উল্টো গাধায় বসিয়ে, মাথায় ঘোল ঢেলে রাজ্যের বাইরে বের করে দেওয়া হতো। ‘গুপি গাইন বাঘা বাইন’ ছবির শুরুতেও বেসুরো গান ও বেতাল ঢোলের জন্য গুপি-বাঘাকে ওইরূপ শাস্তি ভোগ করতে দেখা যাবে।

    সাতের দশকে ইস্কুলের নীচু ক্লাসের পড়ার কালে ঢাকা তখনো ছিল হাফ-মফঃস্বল, প্রধান সড়কে মটোরগাড়ি-বাস-রিকশার পাশাপাশি রীতিমতো গরুরগাড়ি চলতো। পাড়ায় পাড়ায় ছিল বানর বা সাপ খেলা, ম্যাজিক দেখানো, খোলা মাঠে বসতো মিনি সার্কাস, পুতুল নাচ, যাত্রা ইত্যাদি। ফুচকা, হট প্যাটিস বা ঘটিগরমই ছিল আমাদের ফাস্টফুড। সে সব বিস্তারিত ‌‘শিরোনামহীন’ লেখায় বলেছি, আগ্রহী পাঠক গুগল করে দেখে নেবেন।

    সে সময় আমাদের শৈশবে প্রায় একমাত্র পানীয় হিসেবে ছিল ঘোল। বাচ্চাদের চা খাওয়া ছিল বারণ। আর তখনো বোতলজাত কোল্ড ড্রিংক্স এতো পাত্তা পায়নি।

    ১৯৭১ এ স্বাধীনতার পর উর্দূভাষী আটকে পড়া পাকিস্তানীরা, যারা ‘বিহারী’ নামে এখনো পরিচিত, অনেকেই দেশবিভাগের সময় বিহার থেকে উদ্বাস্তু হয়ে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে আশ্রয় নিয়েছিলেন, তারা ঘোলকে বলতেন ‘মাঠা’।

    তো মোহাম্মাদপুরে বিহারী বসতিপূর্ণ এলাকায় বাসার গলির মুখে খুব ভোরে বিশাল এলমুনিয়ামের হাড়ি নিয়ে গাল ভাঙা, খোঁচা খোঁচা কাঁচাপাকা দাঁড়ির বিহারী ঘোলওয়ালা বসতেন। তার হাড়িতে থাকতো ঘরে তৈরি ঘোল। হাড়ির মুখটি কাঁচের চৌকা টুকরো দিয়ে ঢাকা থাকতো। ওপরে বসানো থাকতো ছোট ছোট কাঁচের গ্লাস। মাঝারি মাপের এলমুনিয়ামের মাগ দিয়ে ক্রেতাদের ওইসব সব গ্লাসে ঢেলে দেওয়া হতো সুস্বাদু ফেনা ওঠা ঘোল। আর উঁকি দিলে হাড়িতে দেখা যেত ঘোলের ওপর বিস্কুট মাপের হলুদাভ মাখন ভাসতে। প্রতি গ্লাস দুই সিকি (তখনো একে ‘চার আনা’ বলা হতো) বা পঞ্চাশ পয়সা (‘আট আনা’) মাত্র।

    ঘোল ওয়ালা মাঝে মাঝে হাঁকতেন, ‘এই মাট্টঠাআআআআ…’!

    নামাজীরা অনেকেই মসজিদে ফজরের নামাজ সেরে বাসায় ফেরার পথে দুই-এক গ্লাস ঘোল খেতেন।  আমরা কচিকাঁচারা কখনো খুচরো টাকাপয়সা নিয়ে গিয়ে মাগ বা জগে সাধ্যমত ঘোল কিনে বাসায় এনে খেতাম। বেশী করে কিনলে ঘোলওয়ালা বিশাল হাতলওয়ালা চামচে করে একটুকরো মাখন তুলে ক্রেতাকে ফ্রি দিতেন। দুটি বিশাল বোতল-কাটা গ্লাসে ওপর-নীচ দূরত্বে তার ঘোলা ঢালাঢালির কৌশল মুগ্ধ হয়ে দেখতাম!

    এখনো যেন চোখ বুজলেই দেখতে পাই সেই আধবুড়ো, তিন পকেট শার্ট, ঢোলা পায়জামা, টায়ারের স্যান্ডেল পরা শুকনো মতো ঘোলওয়ালাকে। হা শৈশব!

    তো, এই গরমে দু-এক গ্লাস ঘোল হলে মন্দ হয় না। ওপরে ভাসবে বরফ কুঁচি। এটি বানানো খুবই সহজ।

    এক গ্লাসের এক পঞ্চমাংশ টক দই, বাকিটা পানি, এক টুকরো লেবুর রস, এক চিমটি লবন দিয়ে খুব করে চামচ দিয়ে মেশাতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে যেন, ঘোলে পানির পরিমান বেশি হয়। অনেকক্ষণ মেশানোর পর গ্লাসের ওপরে ফেনার বুদবুদ ভেসে উঠলে বুঝতে হবে ঘোল তৈরি। এই অনুপাতে ব্লেন্ডারে বেশি করেও বানানো যায়।

    ঠাণ্ডা ঘোল শুধু গরমের আরাম নয়, এটি হজমে সহায়তা করে, ফ্যাট কাটাতেও সয়াহক, আর সাধারণ ডায়েরিয়ায় রীতিমতো খাবার স্যালাইনের কাজ করে।

    আর পুরনো পদ্ধতিতে ঘোল বানাতে হলে নীচের ভিডিও ক্লিপিং দেখতে পারেন, রীতিমতো গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্য, মূল রেসিপি কিন্তু একই। চিয়ার্স!  

  • বিভাগ : অপর বাংলা | ৩১ মার্চ ২০২০ | ৩৮৫ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • সম্বিৎ | 172.68.142.208 | ৩১ মার্চ ২০২০ ১২:৪৫91904
  • বাহ, অনেক কথা মনে করিয়ে দিলেন। গরমের দিনের আড়িতে পাতা দই দিয়ে ঘোলের সরবত খাওয়ানোর চেষ্টা হত, কিন্তু বিশেষ পছন্দ ছিলনা। তার থেকে ভাল লাগত লেবু-চিনির সরবত। মাঝে-সাঝে আমপোড়ার সরবতও হত। কিন্তু ফাস্ট ছিল রোববার কিসানের লেমন স্কোয়াশের সরবত। এও কিন্তু সত্তর ও আশির দশক।
  • বিপ্লব রহমান | 172.69.135.51 | ৩১ মার্চ ২০২০ ১২:৫৩91905
  • বাহ, সম্বিৎ বাবুর ঝুলিতে আরেক শৈশব কথনের আভাস পাচ্ছি যেন, এটি কোথাকার ঘটনা? নতুন করে বিস্তারিত লিখবেন? অনুরোধ রইলো।  

  • সম্বিৎ | 172.68.142.208 | ৩১ মার্চ ২০২০ ১২:৫৯91907
  • আরে না না। আপনার টপিক এ। হাত খুলে লিখুন। পড়ব আর মাঝে মাঝে টীকা লিখিব।
  • শক্তি | 162.158.50.254 | ৩১ মার্চ ২০২০ ১৫:৪৫91911
  • বিপ্লব রহমানের ঘোল পড়লাম ।ঘোলের মতোই সুস্বাদু, সহজপাচ্য ।প্রসঙ্গত বলি আমি ছোটবেলায়ও দেখেছি আগরতলা করিমগঞ্জ আসামের বিভিন্ন শহরে পূববাংলার মানুষ মাঠা বলেন পশ্চিমবঙ্গের মানুষ ঘোল ।আগরতলায় একজন জনপ্রিয় মাথাওয়ালা বিশেষ দিনে স্বাধীনতার মাঠা (মাডা ),মাধ্যমিক মাঠা, মে দিবসের মাঠা ইত্যাদি ।শুনেছি ব্রাহ্মণ বাড়িয়ার মাঠা বিখ্যাত ।তবে ঠকানো অর্থে মাঠা খাওয়ানো চলে না ঘোল খাওয়ানো হয় ।এইখানে একটা মজার কথা বলি সদ্য শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে সবাইকেই খুশি করতে চাই, একদিন নেপথ্যে শুনলাম শ্বশুর মশাই মাকে বলছেন আমাকে ঘোল খাওয়াও, কেন কখন না বুঝেই একগ্লাস দইএর শরবত হাতে হাজির হয়ে কি কেলেঙ্কারি ।
    আমার মা মাঠা করতেন অন্যভাবে ।জমানো দুধের সর আরো একটু দুধ মিশিয়ে কাঠের ঘুটনি দিয়ে মন্থন করতেন, মাখন এবং মাঠা আলাদা হয়ে যেতো ।গরমে পেটের পক্ষে ভালো ।
  • শক্তি | 162.158.50.254 | ৩১ মার্চ ২০২০ ১৫:৪৫91912
  • বিপ্লব রহমানের ঘোল পড়লাম ।ঘোলের মতোই সুস্বাদু, সহজপাচ্য ।প্রসঙ্গত বলি আমি ছোটবেলায়ও দেখেছি আগরতলা করিমগঞ্জ আসামের বিভিন্ন শহরে পূববাংলার মানুষ মাঠা বলেন পশ্চিমবঙ্গের মানুষ ঘোল ।আগরতলায় একজন জনপ্রিয় মাথাওয়ালা বিশেষ দিনে স্বাধীনতার মাঠা (মাডা ),মাধ্যমিক মাঠা, মে দিবসের মাঠা ইত্যাদি ।শুনেছি ব্রাহ্মণ বাড়িয়ার মাঠা বিখ্যাত ।তবে ঠকানো অর্থে মাঠা খাওয়ানো চলে না ঘোল খাওয়ানো হয় ।এইখানে একটা মজার কথা বলি সদ্য শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে সবাইকেই খুশি করতে চাই, একদিন নেপথ্যে শুনলাম শ্বশুর মশাই মাকে বলছেন আমাকে ঘোল খাওয়াও, কেন কখন না বুঝেই একগ্লাস দইএর শরবত হাতে হাজির হয়ে কি কেলেঙ্কারি ।
    আমার মা মাঠা করতেন অন্যভাবে ।জমানো দুধের সর আরো একটু দুধ মিশিয়ে কাঠের ঘুটনি দিয়ে মন্থন করতেন, মাখন এবং মাঠা আলাদা হয়ে যেতো ।গরমে পেটের পক্ষে ভালো ।
  • Prativa Sarker | 162.158.155.19 | ৩১ মার্চ ২০২০ ১৫:৫৩91913
  • কিন্তু বিপ্লব, পরিমাণমতো চিনি তো চাই ঘোলে।
  • বিপ্লব রহমান | 172.69.135.231 | ৩১ মার্চ ২০২০ ১৭:৪৫91916
  • "সদ্য শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে সবাইকেই খুশি করতে চাই, একদিন নেপথ্যে শুনলাম শ্বশুর মশাই মাকে বলছেন আমাকে ঘোল খাওয়াও, কেন কখন না বুঝেই একগ্লাস দইএর শরবত হাতে হাজির হয়ে কি কেলেঙ্কারি ।" 

    শক্তি দিদি,

    কি কাণ্ড! শেষে নতুন বউ সবার সামনে ঘোল খেয়ে গেল! হা হা হা....

    আর ঠিকই বলেছো, কাউকে মাঠা খাওয়ানো যায় না, ঘোলই খাওয়াতে হয়।  স্পেশাল মাঠার নানান নামের আড়ালে আদি করপোরেট বুদ্ধি আছে বোধহয়। 

    প্রতিভা দি,

    না না, এই আদি রেসিপিতে চিনি  একদম চলবে না, শুধু লবন, বিট বা খনিজ লবন হলে আরো ভাল। আর দই হবে কম, পানির পরিমান বেশি। 

    লবনের বদলে চিনি দিয়ে দই বেশি করে সরবত করলে এপারে তাকে লাস্সি বলে। ইউটিউবের শেষাংশেও তাই বলা আছে। 

  • একলহমা | 162.158.187.104 | ০৪ এপ্রিল ২০২০ ২৩:৪৭92022
  • আমাদের ছোটবেলায় বাড়িতে ঘোলের চল ছিল ভাল রকম। আবার, বাবা বেনারস হিন্দু ইউনিভার্সিটি থেকে গ্রাজুয়েশান করেছিলেন; বাবার মুখে মাঠা কথাটা শুনেছি।
    বরাবরের মতই উপাদেয় লেখা। :)
  • বিপ্লব রহমান | 162.158.187.138 | ০৭ এপ্রিল ২০২০ ০৭:৪৭92083
  • পাঠের জন্য ধন্যবাদ।  মাঠা কিন্তু খাওয়ানো যায় না,  ঘোলই খাওয়াতে হয়,  শক্তি দি মনে করালেন।  :)      

  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত