এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • শোলে সিনেমার অজানা কাহিনী

    সৈকত বন্দ্যোপাধ্যায় লেখকের গ্রাহক হোন
    ১০ মে ২০২৪ | ৩৮৬ বার পঠিত | রেটিং ৫ (১ জন)
  • গব্বর সিং ছিল এলাকার বস। সে স্বয়ং পুলিশের জেলার তথা ঠাকুর সায়েবের হাত কচাং করে কেটে নিয়েছিল। তারপরও তিনি  রবীন্দ্রনাথের মতো আলখাল্লা পরতেন, কিন্তু তার হাতগুলো হাওয়ায় উড়ত। তাতেও ঠাকুর হাল ছাড়েননি। কারণ পেটকাটা মূর্ধণ্য ষও ব্যঞ্জনবর্ণ, আর হাতকাটা পুলিশও পুলিশও। 

    এইরকম সময় একদিন জানা গেল, গব্বর রাতের অন্ধকারে বাসন্তীর বেডরুমে উঁকি দিয়েছে। বাসন্তী চিল্লে পাড়া মাথায় করছে। কিন্তু পড়শীরা কেউ নেই, তারা খুব সংস্কৃতিবান। বাসন্তীকে ফেলে সব মমতাশঙ্করের নৃত্যনাট্য দেখতে চলে গেছে। কী আর করেন, জেলার সায়েব নিজেই গেলেন গব্বরের প্রাসাদে। সে এক এলাহি খানদানি ব্রিটিশ স্থাপত্যের তাজমহল। সামনে সিকিউরিটি ভর্তি। গব্বরকে খুঁজে বার করাই মুশকিল। ভাগিয়েই দিতে পারত, কিন্তু খবর পেয়ে সে নিজেই এল। এক গাল হেসে বলল, হাত-কাটা ঠাকুর সায়েব আবার এয়েছেন। বলুন কী করতে পারি।

    ঠাকুর সায়েব হাত-কাটা হলেও এলেবেলে লোক না। হেবি তেরিয়া মেজাজ। তিনি হাতা দুলিয়ে চিৎকার করে বললেন, কী আর করবি।  এতদিন ডাকাতি করতিস, এবার ব্যাটা মেয়েদের ঘরেও উঁকি দিচ্ছিস?

    গব্বর শুনে মাথা দুলিয়ে বলল, ধুর, হতেই পারেনা। আমার নাম গব্বরপাল সিং, সান অফ লেট জব্বরলাল সিং। আমার ঘোড়ার নাম পক্ষীরাজ, মামার নাম জাম্বুবান। আমার কেরিয়ারও হেবি ভালো। দ্বারভাঙা ইউনিভার্সিটির এমএ। ডাকাত না হলে জজ হতুম। বিশ্বাস না হলে উকিলবাবুকে জিজ্ঞাসা করুন। 

    কীসের সঙ্গে কী। শুনে তো ঠাকুরের পিত্তি চটে গেল। তিনি আরও চিল্লিয়ে বললেন, তবে কি বাসন্তী মিছে কথা বলছে?

    আব্বার  কী? গব্বর বলল, আমার কাছে প্রুফ আছে। নিজের চোখেই দেখে যান। অ্যাই শম্ভু টিভি চালা তো। 

    গব্বরের এলাহি প্রাসাদ। দেয়াল জোড়া ছাপ্পান্ন ইঞ্চি টিভি। হাইফাই গ্যাজেট। শম্ভূ রিমোট টিপে চালিয়ে দিল। দেয়াল ভর্তি করে সিনেমা শুরু হল। প্রথমেই দেখা গেল, একটা চড়াইপাখিকে তাড়া করেছে এক বাজপাখি। তারপর দেখা গেল গব্বরকে। সে  হাসিমুখে দাঁড়িয়ে বহুদূর থেকে বন্দুক ছুঁড়ছে। বাজপাখিটা ছিটকে পড়ে গেল। স্ক্রিনে ভেসে উঠল  "আজকের রবিনহুড গব্বরপাল। দুষ্টের যম, শিষ্টের মম।"

    ঠাকুর তাতে আরও খচে গিয়ে বললেন, এটা কী দেখালি? এটা প্রমাণ না ছাতার মাথা? 

    - না না। গব্বর জিভ কেটে বলল, এটা আমার মার্কেটিং ক্যাম্পেন, এজেন্সি বানিয়েছে। অ্যাই শম্ভূ, এটা চালালি কেন? ওইটা চালা। পরের বার এই জিনিস দেখলে এখানেই মুন্ডু নিয়ে নেব। 

    শম্ভূ, জি ওস্তাদ, সরি মাস্টার এইসব বলে মাফ-টাফ চেয়ে আবার কী সব টেপাটেপি করল। এবার নতুন সিনেমা শুরু হল। টিভিতে দেখা গেল বাসন্তীর বাড়ি। রৌদ্রকরোজ্জ্বল দিন। বাসন্তী গুণগুণ করে গান গাইতে গাইতে কাপড় মেলছে। বলিউডি গানের সঙ্গে নাচছে। এইসব। শেষ হবার পর গব্বর বলল, দেখলেন? 

    ঠাকুর সায়েব প্রযুক্তি দেখেই হাঁ। রাগ আর করবেন কী। জিজ্ঞাসা করলেন - এটা কী? 

    গব্বর গম্ভীর ভাবে বলল, এটা হল ওই পাড়ার সিসিটিভি ফুটেজ। দিনকাল বদলে গেছে ঠাকুর সায়েব। বদনাম দিয়ে আর কেউ পার পাবেনা। সব ক্লাউডে রাখা থাকে। আমাকে কোথাও দেখলেন উঁকি দিচ্ছি? 

    জেলার সায়েব পুরোনো আমলের লোক। রিটায়ার করার আগে ডিজিটাল ট্রেনিং হয়নি। কিন্তু বুঝতে পারলেন, এ হল ক্যামেরায় তোলা ছবি। ভুল হবার উপায় নেই। তাহলে নির্ঘাত বাসন্তীরই কিছু ভুল হয়েছে। তিনি বললেন, অ।

    গব্বর বলল, এসেছেন যখন দু পাত্তর ঘোল খেয়ে যান। যা গরম।

    জেলার সায়েব খেয়ে-দেয়ে মাথা ঠান্ডা করলেন। গব্বর লোকটাকে যত বদ ভাবা হয়েছিল, ততটা হয়তো না। এইসব সাতপাঁচ ভেবে বাড়ি যাবেন বলে তৈরি হচ্ছেন, হঠাৎ একটা  জিনিস মাথায় এল। খুবই তুচ্ছ, কিন্তু না জিজ্ঞাসা করে গেলে মনটা খুঁতখুঁত করবে। তিনি গব্বরকে বললেন, হ্যাঁরে ব্যাটা, এগুলো তো দিনের বেলার ছবি। পিছনে সূর্য দেখলাম। আর তুই তো উঁকি দিয়েছিস বলছে রাত্তিরবেলা।

    নিজের রাজভবনের দরজার সামনে দাঁড়িয়ে গব্বর একগাল হেসে বলল, আপনিও যেমন। রাতে ছবি উঠবে কীকরে কত্তা? অন্ধকার তো। যখন ছবি তোলার সুবিধে তখনই তো তুলতে হবে,  নাকি? **

    -------- 
    ** এরপরই গব্বরপালকে দমন করতে দুজন অসাংবিধানিক ব্যক্তিকে নিয়োগ করেন ঠাকুরদা। সিনেমায় সেটা দেখিয়েছে, কিন্তু আসল কারণটা দেখায়নি।  
    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • dc | 2402:e280:2141:1e8:a0eb:473d:d1b4:9319 | ১০ মে ২০২৪ ০৭:৫৫531544
  • টেকনোলজির কথা পড়ে খুব আনন্দ পেলাম।  
  • Tanima Hazra | ১০ মে ২০২৪ ০৯:৪৪531546
  • জব্বর গব্বর
  • রমিত চট্টোপাধ্যায় | ১০ মে ২০২৪ ১০:১২531547
  • মোল্লা নাসিরউদ্দিন এর সেই বাগানে এসে চাবি খোঁজার গল্পটা আজো রেলভ্যান্ট। লোক ডেকে এনে এরকম নাটক জাস্ট ভাবা যায়না। 
    যারা ফোন করে রেজিস্টার করিয়েছিল নাম, দেখতে যাবে বলে, তাদের কে জানায়নি পর্যন্ত আপনি ফুটেজ দেখার জন্য সিলেক্টেড কিনা, যারা সেই অপেক্ষায় না থেকে সোজা রাজভবনে চলে গিয়েছিল, একমাত্র তারাই দেখতে পেয়েছে। অবশ্য দেখেও লাভ কি।
  • সুদীপ্ত | ১০ মে ২০২৪ ১০:৫৮531548
  • 'গব্বরপাল' লব্জটা দুরন্ত হয়েছে, আর যদুবাবু-র ছবিটা :))
     
    সত্যি বটে, পেটে পানি প্রচুর পরিমাণে না পড়লে এমন ফুটেজ লোক ডেকে দেখানো যায়, বিশ্বাস হয় না! 
  • :|: | 174.251.161.118 | ১১ মে ২০২৪ ০০:০২531587
  • সে যাই হোক, যাঁরা যাঁরা গব্বরপালকে অবিশ্বাস করে ফুটেজকে বিশ্বাস করতে চান তাঁদের নাম ঠিকানা ফোন্নং কিন্তু নোট হয়ে গেলো। HHB.
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা মনে চায় মতামত দিন