• বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়।
    বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে।
  • সার্স-কোভ২ ভাইরাসও সম্ভবত আমাদের সঙ্গে অনেক দিন থাকবে: পিটার পিওট (১)

    অনুবাদঃ স্বাতী রায় ফলো করুন
    আলোচনা : বিবিধ | ২৬ মার্চ ২০২০ | ৩৬১১ বার পঠিত

  • ইনফ্লুয়েঞ্জার ভাইরাসের মতন সার্স-কোভ২ ভাইরাসও সম্ভবত আমাদের সঙ্গে অনেক, অনেক দিন থাকবে:
    ভাইরাস-শিকারী পিটার পিওট এর সঙ্গে আলাপচারিতা ~ প্রথম পর্ব

    সার্স-কোভ২ ভাইরাসের সঙ্গে আগামী দিনগুলোর বিষয়ে লন্ডন স্কুল অফ হাইজিন এন্ড ট্রপিক্যাল মেডিসিনের পিটার পিওট টেডমেড ফাউন্ডেশনের ডিরেক্টরের করা ভাইরাসের উপর ১০০ টি প্রশ্নের উত্তর দিলেন।
    দ্বিতীয় পর্ব >> | তৃতীয় পর্ব >>

    ১) টেডমেডঃ একদম গোড়ার থেকে শুরু করা যাক। ভাইরাস কি?
    ভাইরাস হল প্রোটিনের মোড়কের মধ্যে RNA বা DNA জেনেটিক কোডের একটা ছোট্ট কণা।

    ২) কতটা common এই ভাইরাস?
    ভাইরাস সর্বত্র আছে। শুনতে অবাক লাগবে যে পৃথিবীর সব ভাইরাস একসঙ্গে ধরলে তাদের মোট ওজন সব গাছ-পালা, প্রাণী, ব্যাক্টেরিয়া শুদ্ধু পৃথিবীর সব জীবন্ত বস্তুর মোট ওজনের থেকেও বেশি। মানুষের জিনোমের ১০% ভাইরাসের ডিএনএ’র থেকে পাওয়া। পৃথিবীটা সত্যি বলতে একটা “ভাইরাস প্ল্যানেট”।

    ৩) ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া বন্ধ করা এত কঠিন কেন ?
    ভাইরাস কণাগুলি এতই আশ্চর্যরকমের ছোট যে, মাত্র একবার কাশলেই কোটি কোটি ভাইরাস ড্রপলেটে চেপে বেরিয়ে এসে বাতাসে ভাসতে পারে।

    ৪) এই ভাইরাস ঠিক কতটা ছোট ?
    একদম ছোট্ট। এমনকি সাধারণ মাইক্রোস্কোপ দিয়েও আপনি ভাইরাস দেখতে পাবেন না। নভেল করোনাভাইরাসের ১০ কোটি ভাইরাল কণা, একটি আলপিনের মাথায় ধরে যাবে। এতটাই অবিশ্বাস্যরকমের ছোট।

    ৫. ভাইরাসের কণাগুলো কি করে ?
    ভাইরাস কণাগুলো কোন জীবিত কোষে ঢুকতে চেষ্টা করে যাতে সে নিজের সংখ্যাবৃদ্ধি করতে পারে আর অন্য কোষ বা অন্যান্য হোস্টদের সংক্রামিত করতে পারে।

    ৬) ভাইরাসেরা জীবন্ত কোষে ঢোকার চেষ্টা করে কেন ?
    ভাইরাসেরা আসলে ওইভাবেই অন্য ভাইরাসের জন্ম দেয়। ভাইরাস পরজীবীর মতো কাজ করে। প্রতিটি কোষকে আরও ভাইরাস তৈরি করতে বাধ্য করার জন্য তারা জীবন্ত কোষগুলি হাইজ্যাক করে। একটা কোষ হাইজ্যাক করলে, ভাইরাস শত শত বা হাজারে হাজারে নিজের মত ভাইরাস তৈরি করে চারপাশে পাঠিয়ে দিতে পারে। যার ফলে প্রায়ই হাইজ্যাক-হওয়া কোষটি মরে যায়।

    ৭) বিজ্ঞানীরা যাকে “ SARS-CoV2 " নাম দিয়েছেন, সেই নতুন করোনাভাইরা সে সংক্রামিত হওয়ার অর্থ কি?
    এর মানে হল, SARS-CoV2 আপনার দেহে আরও ভাইরাসের জন্ম দিতে শুরু করেছে।

    ৮) SARS-CoV2 আর COVID-19 এর মধ্যে তফাৎ কি?
    ভাইরাস হল SARS-CoV2 আর COVID-19 হল এই ভাইরাসের ছড়ানো অসুখ।

    একটি করোনা ভাইরাসের চেহারার ত্রিমাত্রিক মেডিক্যাল অ্যানিমেশন আর ভাইরাসের একটি ক্রস-সেকশনের ছবি মিলিয়ে ছবিটি তৈরি করা। এখানে স্পাইক এস প্রোটিন, এইচই প্রোটিন, ভাইরাসের আবরণ, হেলিকাল মানে স্ক্রুর মত প্যাঁচালো গড়নের আরএনএ ইত্যাদি ভাইরাসের মূল অংশগুলো দেখানো হয়েছে। Wikimedia Commons এর থেকে নেওয়া।

    ৯ ) একটা ভাইরাসের পক্ষে কোনও জীবন্ত কোষে প্রবেশ করা কি সহজ ?
    প্রথমতঃ প্রতিটা চাবির যেমন খোলার জন্য একটা নির্দিষ্ট চাবির ফুটো লাগে, ঠিক তেমন এটা নির্ভর করে, জীবকোষে ওই বিশেষ ভাইরাসটার জন্য সঠিক রিসেপ্টর আছে কিনা তার উপর । আমাদের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা বেশিরভাগ ভাইরাসকে আটকে দেয় অথবা আমাদের কোষের মধ্যে ওই সঠিক রিসেপ্টরগুলো নেই। অতএব ৯৯% ভাইরাস মানুষের পক্ষে ক্ষতিকর নয়।

    ১০ ) কত ধরণের ভাইরাস রয়েছে আর এর মধ্যে কতগুলি মানুষের পক্ষে ক্ষতিকারক ?
    লক্ষ লক্ষ ধরণের ভাইরাসের মধ্যে মাত্র কয়েক'শ ভাইরাস মানুষের ক্ষতি করে বলে জানা। নতুন ভাইরাস সব সময়ই তৈরি হচ্ছে। এদের বেশিরভাগই নিরীহ।

    ১১ ) একজনকে সংক্রামিত করতে গড়ে ভাইরাসটির কতগুলি কণা লাগে?
    SARS-CoV2 এর জন্য আমরা এখনও সত্যিই জানি না। সাধারণত খুব সামান্য সংখ্যক ভাইরাসই লাগে।

    ১২) এটি কেমন দেখতে ?
    একটা স্প্যাগেটির বা চাউএর সরু সুতলিকে গোল্লা পাকিয়ে একটা প্রোটিনের খোলের ভিতরে পুরে দিলে যেমন হয়, SARS-CoV2 ও অনেকটা সেরকম দেখতে। খোলের গায়ে আবার স্পাইকের মত বেরিয়ে আছে যাতে এটা সূর্যের গায়ের করোনার বা সৌরমুকুটের মত লাগে। এই পরিবারের সব ভাইরাসের চেহারা একই রকম; তাদের সবার করোনার মত চেহারা।

    ১৩) কতগুলো আলাদারকমের করোনা ভাইরাস আছে যারা মানুষকে সংক্রামিত করে ?
    সাত রকমের করোনভাইরাস রয়েছে যা একজন মানুষ থেকে আরেকজন মানুষে ছড়িয়ে পড়ে। তার মধ্যে চারটের জন্য হালকা সর্দি হয়। বাকী তিনটে মারাত্মক, যার মধ্যে আছে SARS আর MERS আর এই হালের করোনা ভাইরাস SARS-CoV2।

    ১৪) এটাকে “নভেল” করোনভাইরাস বলা হচ্ছে কেন ?
    “নভেল” মানে হ'ল এটা মানুষের কাছে নতুন, মানে এই বিশেষ ভাইরাসটি আমরা আগে কখনও দেখিনি। কুড়ি লক্ষ বছর ধরে আমাদের রোগপ্রতিরোধ ব্যবস্থার বিবর্তন চলছে। কিন্তু যেহেতু আমাদের দেহ এই ভাইরাসটি আগে কখনও দেখেনি, তাই মানুষের শরীরে এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধও গড়ে ওঠে নি। এই প্রতিরোধক্ষমতার অভাব, ভাইরাসটির দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার ক্ষমতা এবং এর আপেক্ষিক মারণক্ষমতা এই সব কারণগুলোর জন্য SARS-CoV2 র হাজির হওয়াটা এত গোলমেলে ।

    ১৫) আমাদের চিন্তায় ফেলার মত এক একটা নতুন ভাইরাস কত ঘনঘন আসে ?
    আসে, তবে বিরল। যেমন ধরুন HIV, SARS, MERS এবং আরও কিছু এই রকমের অসুখ ঘটানোর জন্য দায়ী ভাইরাসগুলো। আবারও নতুন ভাইরাস আসবে। তবে নতুন কোন ভাইরাস যদি খুব সহজে লোকের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে আর সেটা মানুষের জন্য ক্ষতিকর হয়, তাহলে সেটা দেখা গেলে একটা বড় সমস্যা হয়।

    ১৬) নতুন ভাইরাসটি কতটা সহজে ছড়ায় ?
    SARS-CoV2 কাশি আর ছোঁয়ার মাধ্যমে খুব সহজেই একজন থেকে আরেকজনে ছড়িয়ে পড়ে। এটা একটি শ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ( “respiratory transmitted”) ভাইরাস।

    ১৭) আর কোন উপায়ে ভাইরাস ছড়ায় কি?
    সাম্প্রতিক খবর থেকে মনে করা হচ্ছে যে এটি হয়তো মল ও মূত্রের দূষণের মাধ্যমেও ছড়াচ্ছে, তবে সে বাবদে আগে নিশ্চিত হওয়া প্রয়োজন।

    ১৮) আগের পরিচিত করোনভাইরাসগুলি যার থেকে SARS বা MERS ছড়ায় তাদের থেকে এই নতুন ভাইরাসটি কিভাবে আলাদা ?
    SARS-CoV2 মুলতঃ চারটি গুরুত্বপূর্ণ দিক দিয়ে আলাদা। প্রথমত, অনেক সংক্রামিত লোকের অনেক দিনের জন্য কোনও রোগলক্ষণ থাকে না, ফলে তারা নিজের অজান্তেই অন্যকে সংক্রামিত করতে পারে। কাদের যে আলাদা করে রাখতে হবে তাও বোঝা যায় না। এটা খুব উদ্বেগজনক কারণ SARS-CoV2 অত্যন্ত ছোঁয়াচে। দ্বিতীয়ত, ৮০% সময়ে, COVID-19 হ'ল একটি হালকা সর্দি বা কাশির মত একটা সামান্য অসুখ, তাই আমরা নিজেকে বিচ্ছিন্ন করি না আর অন্যদের সংক্রামিত করি। তৃতীয়ত, এর রোগলক্ষণগুলি সহজেই ফ্লুর সঙ্গে গুলিয়ে ফেলা যায়, তাই অনেকেই ভাবেন তাঁদের ফ্লু হয়েছে বলে আর অন্যান্য সম্ভাবনাগুলির কথা বিবেচনা করেন না। চতুর্থ এবং সম্ভবত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হল, এই ভাইরাস মানুষের থেকে মানুষের মধ্যে খুব সহজেই ছড়িয়ে পড়ে কারণ প্রাথমিক পর্যায়ে এটি গলার উপরের দিকে জমা হতে থাকে। গলা ভাইরাল কণায় ভর্তি ফলে আমরা যখন কাশি বা হাঁচি, তখন এই কোটি কোটি কণা গলা থেকে বেরিয়ে অন্যদের কাছে পৌঁছে যায়।

    ১৯) আমি ভেবেছিলাম এই ভাইরাস থেকে নিউমোনিয়ায় হয় – তাহলে এর মধ্যে গলা এল কি ভাবে ?
    এই রোগটি প্রায়শই গলায় শুরু হয় (এজন্য বেশিরভাগ পরীক্ষাগুলোতে গলা থেকে একটি সোয়াব নেওয়া হয়।) তারপরে যত রোগ বাড়ে, এটা ফুসফুসের দিকে নামে আর শ্বাসযন্ত্রের নীচের অংশে সংক্রমণ হয়।

    ২০) “এসিম্পটোমাটিক” শব্দটি প্রচুর ব্যবহার হচ্ছে দেখছি।
    এর মানে কী? এর সহজ অর্থ যার কোনও রোগলক্ষণ নেই।

    ২১) তাহলে আপনি কি বলছেন যে কেউ নতুন ভাইরাস দ্বারা সংক্রামিত হতে পারে অথচ কখনোই রোগলক্ষণগুলি না ফুটে উঠতে পারে ?
    দুর্ভাগ্যবশত হ্যাঁ। অনেক সংক্রামিত মানুষের ক্ষেত্রেই প্রথম কয়েক দিন কোনও উপসর্গ দেখা যায় না আর তারপরে হালকা কাশি বা সামান্য জ্বর দেখা দেয়। এটি SARS এর উল্টোরকম, সেখানে আপনার কয়েক দিনের জন্য পরিষ্কার রোগলক্ষণ থাকে আর শুধুই অসুস্থ থাকাকালীন সংক্রমণ ছড়ায় ।

    ২২). যদি আপনার কোনও রোগলক্ষণ না থাকে তাহলেও কি আপনি অন্য লোককে সংক্রামিত করতে পারেন ?
    দুর্ভাগ্যবশত হ্যাঁ. আর সেজন্যই এই রোগের ছড়িয়ে পড়া কমানো মুশকিল।

    ২৩) বিজ্ঞানীদের সংক্রমণ থেকে বাঁচানোর জন্য একটি টিকা তৈরির সম্ভাবনা কতটা ?
    যুক্তি বলে এটা করা যাবে, তবে কোন গ্যারান্টি নেই যে আমরা আদৌ কোন টিকা তৈরি করতে পারব। আমরা নাও পারতে পারি। যেমন ধরুন গত ৩৫ বছর ধরে আমরা HIV র টিকা খুঁজে যাচ্ছি, এখনো পাই নি। আমি আশাবাদী যে SARS-CoV2 র একটা টিকা পাওয়া যাবে। তবে তার কার্যকারিতা এবং নিরাপত্তার বিষয়ে সুনিশ্চিত হওয়ার জন্য আমাদের ব্যাপকভাবে পরীক্ষা করতে হবে। তাতে লোকবল এবং সময় দুই-ই লাগবে।

    সিয়াটলের Kaiser Permanente Washington Health Research Institute এ জেনিফার হালারকে COVID-19 র সম্ভাব্য টিকার প্রথম ধাপের নিরাপত্তা নির্ধারণের ক্লিনিক্যাল পরীক্ষার প্রথম শটটি দেওয়া হচ্ছে।

    ২৪). করোনভাইরাসটির একটি টিকা বের করা সম্ভব এটা ধরে নিয়ে আর এও ধরে নিয়ে যে এটা মোটামুটি তাড়াতাড়িই বের করে ফেলা যাবে , মোটামুটি কতদিনের মধ্যে আমরা একটা টিকা পাবো যেটা আমরা লক্ষ লক্ষ লোককে দিতে শুরু করতে পারব ?
    এক বা দুই মাসের মধ্যেই একটা ক্যান্ডিডেট টিকা আমরা পেয়ে যাব। তবে যেহেতু সেটার কার্যকারিতা ও নিরাপত্তা প্রমাণ করার জন্য বিস্তৃত পরীক্ষার দরকার, তাই কোন বড় নিয়ামক সংস্থার অনুমোদিত টিকা পেতে পেতে কমপক্ষে এক বছর। প্রকৃতপক্ষে, টিকার লক্ষ লক্ষ মাত্রা তৈরি করে উঠতে ১৮ থেকে ২৪ মাস লাগবে আর এটা খুবই আশায় ভর করে বলা।

    ২৫). এই রকম জরুরী অবস্থায় একটা টিকা তৈরি করতে এত দিন লাগবে কেন ?
    টিকা আবিষ্কার করতে সময় লাগার ব্যাপার না, তবে টিকা পরীক্ষা করতে সময়টা লাগবে। একবার "প্রার্থী" টিকা ল্যাবে তৈরি হলে, প্রথমে প্রাণীদের উপর আর তারপরে ক্রমাগতভাবে ছোট থেকে বড়, তার থেকে আরেকটু বড় গোষ্ঠীর মানুষদের উপর, একাধিক ক্লিনিকাল ট্রায়াল প্রয়োজন।

    ২৬). আমরা কি ইতিমধ্যে কিছুটা এগিয়েছি ?
    ভালো খবর এই যে ২০২০ সালের জানুয়ারির শুরুতে SARS-CoV2 ভাইরাস আবিষ্কার আর তাকে আলাদা করতে পারার কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই একটুও দেরী না করে টিকা তৈরির কাজ শুরু করা হয়েছিল। অনেক দেশের সরকার টাকা দিয়েছেন আর বিশ্বজুড়ে অনেক সংস্থা ও বিজ্ঞানীরা খুবই তৎপরতার সঙ্গে এর উপরে কাজ করছেন।

    ২৭). এই দেশগুলির বিজ্ঞানীরা কি একে অপরের সাথে সহযোগিতা করছেন , না কি তারা নিজেদের মধ্যে প্রতিযোগিতা করছেন ?
    দুটোই অল্প অল্প, আর সেটা খুব খারাপও নয়। সাধারণভাবে আন্তর্জাতিকস্তরে যথেষ্ট পারস্পরিক সহযোগিতা চলছে। এটা আশার কথা।

    ২৮) আমরা কি তাড়াতাড়ি একটা টিকা তৈরি করতে পারি না ?
    দুর্ভাগ্যক্রমে, এখানে কোনও শর্টকাট নেই। মানবদেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা জটিল আর সে নিয়ে আগে থাকতে কিছু বলা যায় না। ভাইরাল মিউটেশন হতে পারে। শিশুরা বড়দের থেকে আলাদা। মহিলাদের প্রতিক্রিয়াও পুরুষদের চেয়ে আলাদা হতে পারে। এটা নিশ্চিত হতে হবে যে কোনও টিকা যাঁদের দেওয়া হবে তাঁদের জন্য সেটা যেন ১০০% নিরাপদ হয়। সেটা নিশ্চিত করার জন্য, সযত্নে নিয়ন্ত্রিত পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবান মানুষ স্বেচ্ছাসেবীদের বিরাট দলের উপর বিভিন্ন মাত্রায় ওষুধ আর টিকা পরীক্ষা করতে হয়।

    (ক্রমশঃ)
    দ্বিতীয় পর্ব >>
    দি টেলিগ্রাফ পত্রিকায় প্রকাশিত সাক্ষাৎকার থেকে অনুমতিক্রমে অনূদিত।
    দ্বিতীয় পর্ব >> | তৃতীয় পর্ব >>
  • বিভাগ : আলোচনা | ২৬ মার্চ ২০২০ | ৩৬১১ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা

  • পাতা : 1
  • Rajkumar Raychaudhuri | 162.158.166.36 | ২৬ মার্চ ২০২০ ১৩:৪৯91778
  • দারূণ লেখা। একেবারে মনের মতো। খুব উপযোগী আর সহজ সরল।

  • b | 162.158.166.18 | ২৭ মার্চ ২০২০ ১১:৫২91807
  • একমত। খুব সময়োপযোগী।
    তবে দুটো পয়েন্ট ছিলোঃ অনুবাদের ব্যাপারে। যখন ইংঅরিজি না জানা বাংলভাষীরাই এর মূল টার্গেটঃ
    ১) মিলিয়ন ইত্যাদি সংখ্যাগুলি লাখ বা কোটিতে প্রকাশ করলে ভালো হত।
    ২) বাঙালী পাঠক স্প্র‌্যাগেটি (গুরু-র বাগ) না জানলেও নুডলস বা ম্যাগি জানবে।
    ৩) সুর্যের করোনা বা হেলিক্যাল (গুরুর বাগঃ ব্যাক্স্ল্যাশ দেয়া যাচ্ছে না) এই টার্মগুলো র বদলে বাংলা প্রতিশব্দ দিলে ভালো।
  • স্বাতী রায় | 162.158.167.139 | ২৮ মার্চ ২০২০ ০০:৫২91824
  • @b ফিডব্যাকের জন্য ধন্যবাদ। দেখছি বদলে দেওয়া যায় কিনা।
  • Rajkumar Raychaudhuri | 162.158.50.241 | ৩০ মার্চ ২০২০ ১০:৪৪91884
  • Corona = মুকুট

    Helical =  প্যাঁচালো

  • তন্বী হালদার | 162.158.165.173 | ০৫ এপ্রিল ২০২০ ১৬:১২92041
  • বাবারে কতকিছু জানিনা। লেখাটা ভাগ্যিস দিয়েছে । অনেক ধন্যবাদ। আমার তো আশপাশের মানুষগুলোকেও ভাইরাস মনে হচ্ছে।
  • করোনা

  • পাতা : 1
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত