• হরিদাস পাল  আলোচনা  বিবিধ

    Share
  • অপর্ণা সেনের 'ঘরের বাইরে আজ'

    Nahar Trina লেখকের গ্রাহক হোন
    আলোচনা : বিবিধ | ২৬ জানুয়ারি ২০২০ | ১০৯০ বার পঠিত | ৩.৫/৫ (রেটিং করেছেন ২ জন) | জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
  • 'গহনারবাক্স' বিরতির আগে পর্যন্ত দারুণ ছিল। হুট করে সেখানে 'বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ' টেনে আনা এবং কিছু আরোপিত বিষয় খানিকটা জোর করে গুঁজে দেবার কারণে ভালো হতে হতেও শেষ পর্যন্ত সেটা ভালো লাগেনি তেমন। পরেরটা ছিল 'আরশিনগর'। ওফফ! বার বার নিশ্চিত হওয়ার আর্জি জেগেছিল 'আরশিনগর' দেখতে দেখতে, সিনেমাটা কি আসলেই অপর্ণা সেনের! পরেরটা নিয়ে আমার ব্যাপক ব্যাকুল প্রতিক্ষা আর আশা ছিল। 'সোনাটা(Sonata)'। ভাগ্যিস শাবানা আজমি ছিলেন এটাতে। নইলে পর্দার অরুণা চরিত্র, যেটা পরিচালক স্বয়ং করেছিলেন, সে চরিত্রের আরোপিত কাঠিন্য দর্শক হিসেবে এই নাদানকে কেমন একটা দমবন্ধের অনুভূতি দিয়েছে সারাক্ষণ। অথচ অপর্ণা কত পছন্দের একজন! শাবানা আজমির চরিত্রটা 'সোনাটা'র প্রাণভোমরা বিশেষ। যাঁর উপস্হিতি দর্শকের জন্য স্বস্তিময় ছিল। 

    'ইতি মৃণালিনী'র পরপর এই সিনেমাগুলোতে ধারাবাহিকভাবে হতাশ করেছেন অপর্ণা সেন। বিভিন্ন সাক্ষাতকারে যতটা বলেছেন পর্দায় ততটা যেন বর্ষায়নি মনে হয়েছে এই নাদান দর্শকের। ওঁর পরমা, পরমার একদিন, জাপানিজ ওয়াইফ, মিস্টার এণ্ড মিসেস আয়ার দেখার আনন্দ আর হয়ত পাবো না, কিন্তু তার কাছাকাছি কিছু না পাওয়ার অভিমান জমছিল মনে। আজুখাজু কেউ হলে ধুততারি বলে অন্য কারোতে মগ্ন হতাম। কিন্তু ইনি যে ঋতুপর্ণের পরম আস্হার রিংকুদি। যিনি পঠন-পাঠনে কি ভীষণ ঋদ্ধ। এমন একজন পছন্দের তুখোড় মানুষের কাছে চাওয়াটা বেশিই থাকে। পাওয়ার ক্ষেত্রে এবারও তিনি হতাশ করবেন কিনা সেটা নিয়ে মন ঘোরতর ঘোঁট পাকিয়েছে। 

    'ঘরে বাইরে আজ' দেখবার আগে ভূতের রাজা দিও বর' কয়ে দেখতে বসেছি । মনে একটা ভয় বেয়াড়ার মত মাথা উঁচিয়েই ছিল। অতিশয় মেলোড্রামার প্লাবনে ভেসে না যায় সেলুলয়েডের ফিতে। দু' দুজন তাবড় মানুষেররেখে যাওয়া কাজের ভার অপর্ণা সেন কতটা দক্ষতার সাথে সামলাতে পারলেন সেটাও আড়ালে একটা প্রশ্নচিহ্ন তৈরি করেছিল বৈকি। কিন্তু তিনি সব আশঙ্কার মুখে বেশ একটা ঝামটা দিয়ে একেবারে নিজস্ব ঢংয়ে উপস্হিত করলেন 'ঘরে বাইরে আজ' কে। সেখানে না রবীন্দ্রনাথের চোখ পাকানোর কোনো সুযোগ থাকলো, না সত্যিজিতকে ঘাড় তুলে জলদগম্ভীর গলায় বলতে দেয়া হলো- হচ্ছে টা কী! এমনটাই মনে হয়েছে বাহে আমার।

    'ঘরে বাইরে' গল্পের কাঠামোয় আজকের সময়কে দারুণ সাহসের সাথে উপস্হিত করেছেন অপর্ণা সেন। সেজন্য তাঁর সাধুবাদ পাওনা। অপর্ণার নিখিলেশ চরিত্রের সাথে যেন অদৃশ্যে যেন হেঁটে গেছেন ২০১৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারিতে প্রাণের বই মেলার সামনে স্বদেশি ঘাতকের কোপে নিহত অভিজিৎ রায় কিংবা ২০১৭সালের ৫ সেপ্টেম্বরে নিজের বাড়ির সামনে 'অজানা আততায়ীর' হাতে নিহত সাংবাদিক গৌরি লঙ্কেশ। আমাদের চারপাশে মুখোশে ঢাকা সুবেশি-জ্ঞানবান সন্দীপেরা বুকের ভেতর বিষ নিয়ে ছড়িয়ে আছে! ঘন হয়ে আসা অন্ধকার দুহাতে ঠেলে সরানোর আন্তরিকতায় শুভবুদ্ধির মানুষের প্রতিনিধি বৃন্দা কিংবা বৃন্দারা এখনও আছে বলেই হয়ত পৃথিবীটা এখনও রসাতলে যায়নি। অপর্ণা সেনের 'ঘরে বাইরে আজ' বৃন্দা চরিত্রের উত্তরণই এ সিনেমার গন্তব্য, যেখানে উগ্র ব্রাহ্মণ্যবাদী হিন্দু আগ্রাসনের বিরুদ্ধে উঠে দাঁড়ায় দলিত সমাজ, ভারতবর্ষের সংখ্যাগরিষ্ঠ। 

    সিনেমার শেষ দৃশ্যটা অবাস্তব এবং ক্লিশে মনে হলেও অপর্ণা কেন ওরকম একটা দৃশ্য রাখলেন সেটা নিয়ে মনটা ভাবিত হয়েছে খানিক। দৃশ্যটা কি তিনি প্রতীকী হিসেবে দেখালেন, যেখানে নিজেদের কৌলিন্যে অন্ধ শ্রেণিটাকে জব্দ করতে উঠে দাঁড়াচ্ছে দলিত হিন্দু শ্রেণি..গ্লাসভরা পানি এগিয়ে দিতে দিতে তার প্রতি সর্মথন জানাচ্ছে কোনঠাসা মুসলিম প্রতিনিধির একজন? কিজানি হবে হয়ত। আজকে ভারতে(গোটা পৃথিবীই আসলে) চলমান অন্ধকার সময়টার সামনে দাঁড়িয়ে ধর্মান্ধ শোষক শ্রেণির চোখে চোখ রেখে অন্যায় কে অন্যায় বলে উচ্চারণ করতে পারাটা সাহসের কাজ। অপর্ণা সেন সেই সাহসের কাজটাই করে দেখালেন। 

     

  • বিভাগ : আলোচনা | ২৬ জানুয়ারি ২০২০ | ১০৯০ বার পঠিত | ৩.৫/৫ (রেটিং করেছেন ২ জন) | জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
    Share
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • বিপ্লব রহমান | 162.158.167.11 | ২৬ জানুয়ারি ২০২০ ০৮:৫৪90854
  • ছবিটি দেখার ইচ্ছে রইল। 

    আসলে একজন খ্যাতনামা অভিনেতা পরিচালক হিসেবে পর পর ভাল ছবি বানালে বোধহয় দর্শকের মনে মাপকাঠি তৈরি হয়। সেটিকে টপকাতে না পারলেও ধরে রাখাই মুন্সিয়ানা। ঋতুপর্ণ রিংকুদি ইত্যাদি বাই লাইন মাত্র। 

    লেখাটি বেশ প্রাণবন্ত। উড়ুক               

  • Pagla Dashu | 162.158.62.184 | ২৭ জানুয়ারি ২০২০ ০৫:১৪90865
  • ভাল লাগেনি। ঘোলা জল,মাছ ধরলে কেমন হয়, এর মতো। দেখে বলুন আপনাদের কেমন মনে হলো।
    এই জল কবে পরিষ্কার হবে,কি করে হবে, কে করবে -কে জানে। কিন্তু সে অন্য আলোচনা, এই ছবি র সাথে কোনো যোগ নেই। নমস্কার।
  • Dolon | 141.101.99.172 | ২৮ জানুয়ারি ২০২০ ০৩:২৯90871
  • ভালো লাগেনি।বেশ প্রেডিকটেবল আর নায়িকার অভিনয় ক্লিশে আর ম্যানরিজম ময়। অনির্বাণ কে ভালো অভিনয় করার জন্য আজকাল আর নতুন কিছু বলার নেই।
  • de | 162.158.158.134 | ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১২:৪২90875
  • কালকেই দেখলাম আমাজন প্রাইমে

    বেশ ভালো - অনেক দিন পর একটা ভালো সিনেমা দেখলাম - কিছু জায়গায় আরো ভালো হোতে পারতো-

    দ্বিতীয় পুরুষ দেখে প্রচুর ঘেন্টে গেছিলাম - এটা ভালো লেগেছে
  • একলহমা | 162.158.186.155 | ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১১:৫৩90901
  • অপর্ণা আজকের যুগের কথা বলতে পেরেছেন। মূল গল্পের সাথে অনেকেই সহমত ছিলেননা। এই রূপান্তরের সাথেও অনেকে দ্বিমত তথা বৈরিতা পোষণ করবেন। কিন্তু অপ্ররণা তার কাজটা ভালভাবেই করেছেন।

    আপনার আলোচনা ভালো লেগেছে।
  • ঐশিকা | 162.158.167.143 | ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৭:০০90904
  • জানিনা কেন আমার কোথাও মনে হয়েছে যে সিনেমাটিকে খুব ঘোলাটে করা হয়েছে। মনে হয়েছে যেন ইন্টারনেট থেকে কিছু ট্রেন্ডিং টপিকস তুলে সিনেমার পর্দায় দেখানো হয়েছে। অনেকটা আর্টিকেল 15 এর মত করার চেষ্টা কিন্তু তাতে রবিঠাকুরের গল্প নিয়ে খেলা করে তাঁকে অপমান করা হয়েছে। নায়িকা সুন্দরী কিন্তু গল্পের জন্য একদম ফাঁপা আর কাঠ। হয়তো ছোট বলে খুব ভুল ভাবছি, কিন্তু এই নিম্নমানের চবি হয়তো ওনার থেকে আসা করি না।
  • Yashodhara Raychaudhuri | 172.69.134.248 | ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২৩:০২90944
  • ঐশিকার সঙ্গে একদম একমত।

    আমার যা যা মনে হয়েছে।
    ১। বিষয় সাহসী, হ্যা জয় শ্রী রাম বলেনি বলে জুনেইদ আক্রান্ত বা খুন এরকম ঘটনা খোলাখুলি আজ ভারতের কোন প্রান্তে কটা সিনেমায় দেখান হয় বা হচ্ছে? কিন্তু বিষয় বাদ দিলে সিনেমার নির্মাণ? সেখানে আমার অতৃপ্তি থাকল। ওঁর দেখানোর মধ্যে একটা ক্লিশে আছে। নিউজ আইটেম ছবিতে গল্প করে দেখালেন। গোল গোল করে শেষ করলেন। শেষে সবকিছু মিলিয়ে দিতে পারব আমি এত্ত স্মার্ট, গোছের। এবং ওর ছবি ইতি মৃণালিনীর শেষটাও এরকম ছিল।
    ২। ঘরের ভেতরের সমস্যাটা বরং ভাল দেখিয়েছেন, বাইরে টা ঘেঁটে ফেলেছেন। ঘরের , মানে দাম্পত্যের সম্পর্কের ঝামেলা, বা অবৈধ প্রেম, এগুলো সবই দেখাতে পারেন এঁরা ভাল। বহুযুত আগেই পরমা তে উনি এসব আরো অনেক শৈল্পিক ভাবে দেখিয়েছেন। তাই সন্দীপের বাহুবন্ধনে বিমলার ধরা দেওয়া টা ভালই লাগে দেখতে। পরে নিখিলেশের কাছে ফেরার চেষ্টাও। নিখিলেশের দ্বন্দ্বটাও।
    ৩। কিন্তু, বাইরেটা আরো ঘেঁটেছে কারণ সন্দীপের মত বিশ্বাসযোগ্য আর আকর্ষক চরিত্র বোধ হয় রবীন্দ্রনাথের আর কোন উপন্যাসে নেই। বাংলা উপন্যাসের আর কোন চরিত্রই বা এমন, যারা ভিলেন কখনও হয়না, ভিলেনি করেও আসলে মানুষ থেকে যায়, পুরোপুরি বাস্তব রক্তমাংসের ভালমন্দ মেশানো মানুশ। আবার ঘরে বাইরে টা পড়ে দেখুন, সন্দীপের কথা অংশটা। সন্দীপ কী ভীষণ জীবন্ত। সেই সন্দীপকে পেলাম কই। একজন ফ্ল্যাট হিন্দুত্ববাদী কেন হবে সে। তার কনট্রাডিকশন কোথায়? যদিও যিশু দারুণ অভিনয় করেছেন এ ছবিতে তাও তাঁর চরিত্রকে আরো কত ভালভাবে যে এক্সপ্লোর করা যেত।

    নিখিলেশকেও শুধু ভাল মানুশ বলে দেখালে চলবে না। সে সব বুঝতে পারবে তাও কিছু করতে পারবে না সেই দ্বন্দ্ব তবু , অনির্বাণ যথাসাধ্য ফোটালেও, স্ক্রিপ্টেই মোটাদাগ থেকে গেল।

    ৪। সবচেয়ে জঘন্য, অবাস্তব, বিমলা বা বৃন্দা। শুধু সুন্দর এথনিক সাজ ভাল ফিগার ছাড়া আর কিছু নেই । সে প্রচন্ড কনফিউজড, এদিকে বলছে তার এডিটিং এর চাকরি আছে কিন্তু সে সারাদিন ত ঘুরে বেড়ায়। তাকে কখনো কাজ করতে দেখা যায়না। সে দলিত এটা বলে কী লাভ হল। একটা শুকনো ফ্যাক্ট থেকে গেল । তার উত্তরণ নেই, তার নিজেকে এক্সপ্লোর করা নেই। আর অদ্ভুত লাগল, বছর নয় দশ থেকে সে বাঙালি পরিবারটিতে মানুষ হল অথচ তার বাংলা এখনো হিন্দুস্থানীদের মত। ইচ্ছাকৃত? এরকম বাজে অবাঙালি উচ্চারণে বাংলা বলা বাংলা সিনেমার নায়িকাকে দেখলে চোখ চড়চড় করে কান কটকট করে।
  • Nahar Trina | 98.227.19.5 | ২১ মে ২০২০ ০৮:৫৯93521
  • পক্ষে বিপক্ষে চমৎকার আলোচনা চলেছে দেখি! পোস্ট পড়ে প্রাণবন্ত মন্তব্য রাখবার জন্য সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত