• বুলবুলভাজা  খবর  খবর্নয়

  • ঢেকলাপাড়ায় মৃত্যুমিছিল অব্যাহত

    খবরোলা লেখকের গ্রাহক হোন
    খবর | খবর্নয় | ০৮ জুলাই ২০১৩ | ৩০১ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • উৎসবের দিনেও এদের মুখে ঘনিয়ে থাকে অন্ধকার। তাদের প্রিয়জনেরা যখন তখন একের পর এক মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছে অপুষ্টি আর অনাহারের শিকার হয়ে। তারা অসহায়ের মত চুপ করে দেখে যাচ্ছে এই মৃত্যুমিছিল। কিছু সামাজিক কল্যাণ সমিতির সাহায্য আর তাদের নিজেদের হাহাকার আর অক্ষম রাগের শেষেও এই পরিস্থিতির কোনও উন্নতি হয় না, বরং গত সপ্তাহে আরও দুই শ্রমিকের মৃত্যু ঘটেছে।

    জলপাইগুড়ির ঢেকলাপাড়া চা বাগানে চলছে এই মৃত্যুর খেলা। অন্তঃসত্ত্বা ও রক্তাল্পতায় ভোগা মেয়েটির নাম ফুলমনি বেদিয়া। রাজ্য সাধারণ হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। ডাক্তারদের নিষেধ সত্ত্বেও গত রবিবার কাউকে না জানিয়ে বাড়ি ফিরে গেলেন। সোমবার ভোরেই বাড়িতে জন্ম দিলেন সন্তানের। আর তারপর সন্তান সহ মারা গেলেন।

    চল্লিশ বছর বয়স্ক গোপাল দুমহার মারা গেছেন,  চারদিন জ্বরে ভুগবার পর। আরেক শ্রমিক, বিধু তাঁতি, তার আগের সপ্তাহে মারা গেছেন। মৃত্যুর পরিসংখ্যান সম্ভবত শ্রমিকদের বসতির জনসংখ্যার প্রায় ৩০% ছুঁতে পারে, কারণ বাগানের মধ্যে চিকিৎসার কোনও ব্যবস্থা নেই। চিকিৎসার জন্য এদের যেতে হয় বীরপাড়া হাসপাতালে। এখানে অনেকে এক "রহস্যময় জ্বরে" ভোগেন। বসিন্দারের কথায়, এই জ্বর এখানে এক মহামারীর আকার ধারণ করেছে, কারণ বেশির ভাগ শ্রমিকদের পরিবারেই যথেষ্ট পুষ্টিকর খাবার জোটে না, বাগান বন্ধ হয়ে যাবার পর থেকে। বাগানের মালিক শ্রমিকদের অনিশ্চিত ভবিষ্যতের হাতে ছেড়ে দিয়ে এলাকা ছেড়ে চলে গেছেন। খাবার জোগাতে শ্রমিকদের একে একে বিক্রি করতে হয়েছে নিজেদের সমস্ত জিনিসপত্র। সেসবও যখন ফুরিয়ে গেছে, তাঁরা বেঁচে থেকেছেন গাছের মূল কন্দ ইত্যাদি খেয়ে। ফলে, তাঁদের শরীর আরও খারাপ হতে লাগল। ঢেকলাপাড়া চা বাগান প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ১৯১১ সালে, বীরপাড়ার বান্দাপানি গ্রাম পঞ্চায়েতের ৫০০ একর জমির ওপরে। ২০০২ সালে এই চা বাগানবন্ধ হয়ে যায়, সেই থেকে আজ পর্যন্ত ৮৮ জন শ্রমিক পরিবারের সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর মূল কারণ অপুষ্টি, জলাভাব আর খিদে।

    এই লাগাতার মৃত্যুর কারণ দর্শাতে গিয়ে জলপাইগুড়ির জেলাশাসক বলেছেন, "-কেউ যদি চিকিৎসা না করিয়েই ফিরে আসেন, সেই দায়টা কি প্রশাসনের? আমি খুব ভালো করে জানি, আবার অনাহারে মৃত্যুর জিগির তুলে রাজ্য জুড়ে হইচই শুরু হবে। কিন্তু আমি দায়িত্ব নিয়েই বলছি, গত ছ' মাসে  ঢেকলাপাড়ায় যে শ্রমিকদের মৃত্যু হয়েছে, তার একটির পিছনেও অনাহার দায়ী নয়।"

    শ্রমিকদের বক্তব্য অনুযায়ী, ২০০০ সালেও এই চা বাগান লাভে চলছিল। তখন সুব্রত ঘোষ নামে এক হোটেল ম্যানেজার আসেন শিলিগুড়ি থেকে, তিনি এই বাগানটা কিনে নেন। এক বছরের মধ্যেই বাগানের মালিক "বিপুল ক্ষতি" দাবি করে বাগানের সমস্ত মেশিন এবং শ্রমিকদের প্রভিডেন্ট ফান্ডের প্রায় এক কোটি টাকা নিয়ে পালিয়ে যান। সেই থেকে এই বাগান বন্ধ, আর ধীরে ধীরে এটা একটা ভূতুড়ে জায়গায় পরিণত হচ্ছে। সিপিএম নেতারা ২০০৫ সালে গোপীনাথ দাস নামে একজন ব্রোকারকে নিয়ে এসেছিল, যিনি ঢেকলাপাড়া সমেত ডুয়ার্সের ছটি চা-বাগান কিনে নেন এবং তাদের পুনরুজ্জীবিত করার জন্য ব্যাঙ্ক থেকে ১২ কোটি টাকা লোনও নেন। কিন্তু তিন মাস পরেই তিনি উধাও হয়ে যান। গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়, কিন্তু গোপীনাথ গ্রেফতার হয় না, বরং সে বহাল তবিয়তে এখন এলাকাতেই ঘুরে বেড়ায়। শুরুর দিকে এই চা বাগানে ছিল ৬০৪ জন স্থায়ী আর ১০০ জন অস্থায়ী শ্রমিক। এই চা বাগানের দৈনিক আয়ব্যয়ের সাথে পরোক্ষ ভাবে নির্ভরশীল ছিল কমবেশি ৫০০০ জন। কাজের অভাব, জলের অভাব, খাবারের অভাব, বিদ্যুতের অভাব এবং সর্বোপরি চিকিৎসা আর ওষুধের অভাবে সেই বাগানের আজ এই অবস্থা। কমবয়েসীরা প্রায় সকলেই কাজের সন্ধানে এদিক ওদিক বেরিয়ে পড়েছে, মেয়েরা তাদের পেটের জ্বালা মেটাতে গিয়ে স্থান পেয়েছে পতিতালয়ে। কিছু লোক এখন আশপাশের গ্রামে দিনমজুরি খাটে। সরকার থেকে এদের নামে কিছু সাহায্যের সংস্থান করা হয়, FAWLOI (ফিনান্সিয়াল অ্যাসিসটেন্স টু ওয়ার্কার্স অফ লকড আউট ইনডাস্ট্রিজ),  AAY এবং SGRYএর মাধ্যমে, কিন্তু স্বাভাবিকভাবেই, তা বাসিন্দারের অন্ধকার জীবনে আলো আনতে পারে না। 'ক্লোজড ইনডাস্ট্রি স্ট্যাটাস' নীতি অনুসারে, বাগানের সাড়ে চারশো স্থায়ী শ্রমিক মাসে ১৫০০ টাকা করে একটি ভাতা পান, আগে পেতেন ৫০০ টাকা করে। কিন্তু অস্থায়ী শ্রমিকদের ভাগ্যে কোনও সুবিধেই জোটে না। কাজের খোঁজে শ্রমিকদের এবং তাদের পরিবারদের পায়ে হেঁটে যেতে হয় ডিমডিমা আর রেতি নদীর পারে, পাথর ভাঙার কাজ পেতে, যেখানে দৈনিক ১০০টা পাথর ভেঙে তাদের খুব বেশি হলে ৪০-৫০ টাকা রোজগার হয়।

    বাগান বন্ধ হবার পর থেকে তারা নিজেদের মধ্যে একটা সমিতি বানিয়েছে, অপারেটিং ম্যানেজমেন্ট কমিটি নামে, যেখানে পুরনো চা গাছের পাতা কুড়িয়ে তাদের দৈনিক ৩৫ টাকা করে মেলে।

    কেন্দ্রীয় সরকারের অন্নপূর্ণা খাদ্য যোজনার মাধ্যমে ৬০-৭০টি পরিবার এখন মাসে ১০ কেজি চাল পায়, অন্ত্যোদয় অন্ন যোজনার মাধ্যমে আরও কিছু পরিবারকে প্রতি সপ্তাহে ২ কেজি করে চাল, ১ কেজি আটা আর ২০০ গ্রাম রান্নার তেল দেওয়া যায়। আর উৎসবের দিনে ২০০ গ্রাম চিনি বাড়তি।

    গত বছর, বিশ্ব খাদ্য দিবসে রাজু ওরাওঁ নামে এক শ্রমিক অপুষ্টির শিকার হয়ে মারা যান। ঠিক তার পরের দিন একই কারণে মারা যান আরও এক শ্রমিক, জয়করণ সুরি। তার ঠিক এক সপ্তাহ আগে, স্রেফ খেতে না পেয়ে, অনাহারে মারা যান ধীরেন লোহার নামে আরেক শ্রমিক। এই সব ঘটনায় বাগানের শ্রমিকদের মধ্যে তীব্র অসন্তোষ তৈরি হয়, যার ফলে খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক আর উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী গৌতম দেব এই বাগান পরিদর্শনে আসেন। তাঁদের বাগান এলাকায় ঢুকতে বাধা দেন শ্রমিকরা, এবং বাগান খোলার ব্যাপারে লিখিত প্রতিশ্রুতির দাবিতে ধর্না সমাবেশে বসেন।

    এর পরে রাজ্য সরকার তাদের নিয়মিত বরাদ্দ খাবারের পরিমাণ বাড়ায়, যদিও তাতেও পরিস্থিতির উন্নতি হয় নি কিছুই। মুকেশ সোনার নামে এক শ্রমিক জানান, সম্প্রতি পঞ্চায়েত ভোটের কারণে NREGA স্কিমের অন্তর্গত ১০০ দিনের কাজের প্রকল্প থেমে যাওয়ায় তাঁদের হাতে আর টাকা নেই। চিকিৎসা হচ্ছে না। অনাহার আবার জেঁকে বসেছে বাগানের বাসিন্দাদের ওপরে, তাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা একেবারে নষ্ট হয়ে গেছে, সামান্য ইনফ্লুয়েঞ্জাতেও এখন সেখানে লোকের প্রাণ যাচ্ছে।

    প্রশ্নের উত্তরে জলপাইগুড়ির জেলাশাসক স্মার্কি মহাপাত্র জানান যে জেলা আধিকারিক স্বাস্থ্য দফতরকে যত দ্রুত সম্ভব ব্যবস্থা নেবার অনুরোধ জানিয়েছে। একটি মেডিকাল টিম পাঠানো হবে বাগানে, এই "রহস্যময় জ্বরের" কারণ অনুসন্ধানের জন্য। এখনও পর্যন্ত সমস্ত ট্রেড ইউনিয়ন, সরকারি আধিকারিক, এবং প্ল্যান্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, এই বাগান খোলার ব্যাপারে কেউই কোনও উদ্যোগ নেয় নি। জ্বরের প্রকোপ ধীরে ধীরে সমস্ত বাসিন্দাদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ছে।

    ১৩ বছর চা বাগান বন্ধ। সরকার থেকে আসা সমস্ত রকমের ভাতা এপ্রিল থেকে বন্ধ। এবং এত কিছু বন্ধের মধ্যে অনাহারে গন্ধ না শুঁকে, লোকদেখানো চিল্লিমিল্লি না করে নীরবে সরকারি হাসপাতাল থেকে নিজেদের সরিয়ে নিয়ে (নাকি উপেক্ষা করে!) চিকিৎসাহীন মারা যাচ্ছেন শ্রমিকরা। হয়তো দয়ার বা ভিক্ষার দান আর নেবেন না মনস্থির করেছেন। বাগান শ্রমিক স্বপন মজুমদার জানিয়েছেন, ‘– কেন আমাদের সব সময় সবকিছু চেয়ে নিতে হবে। এসব কি দয়ার দান নাকি ? –’

    অধিকার সচেতন শ্রমিকদের মৃত্যু কেড়ে নিচ্ছে প্রশাসনের রাতের ঘুম।

  • বিভাগ : খবর | ০৮ জুলাই ২০১৩ | ৩০১ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন গ্রাহক পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • aranya | 154.160.226.53 (*) | ১১ জুলাই ২০১৩ ০৬:৩৬77596
  • অনেক দিন পর খবরোলা-র লেখা। আমরা যদিও, মোটের ওপর ইমিউনড হয়ে গেছি এবং যাচ্ছি - এইসব খবরে।
    আর সত্যি বলতে ইমিউনড না হয়ে ব্যাপক আলোড়িত হলেও কি যে করা যায় এ সব ক্ষেত্রে, কে তা জানে :-(((
    কিছু ফান্ড রেইজ করে এককালীন সাহায্য দেওয়া তো কোন সমাধান নয় ...
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। চটপট মতামত দিন