• হরিদাস পাল  ব্লগ

  • ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি

    Tathagata Dasmjumder লেখকের গ্রাহক হোন
    ব্লগ | ৩০ মে ২০১৬ | ১৬৩ বার পঠিত
  • জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
  • কিরে অনন্যা, তোকে তো চেনাই যাচ্ছেনা, চোখে লেন্স, চুলে রঙ।
    - হ্যাঁ রে, চুলটা করালাম কাল পার্লারে, লেন্সটা কদিন আগে কিনেছি, কয়েকদিন প্র্যাকটিস করার পরে আজই প্রথম পরলাম।
    - -
    - কিন্তু তোর গায়ের রঙের সাথে চুলটা তাও ঠিক আছে, কিন্তু কটা চোখটা ঠিক মানাচ্ছেনা, যতই হোক, শ্যামবর্ণ রঙের সাথে কটা চোখটা ঠিক....
    - - ন্যাচারাল নয় বলছিস?
    - - হ্যাঁ রে
    - - কিন্তু অদ্ভুত ব্যাপার কি জানিস, যাদের কটা চোখ, তারা কিন্তু মনুষ্যইতিহাসের অধিকাংশ সময় তারা কিন্তু কালোই ছিল।
    - - ধুস, কি যে বলিস, নীল চোখ তো ইউরোপ আমেরিকার লোকেদের বৈশিষ্ট্য, তারা কেউ কালো নাকি?
    - - এখন কালো নয়, কিন্তু একসময় ছিল
    - - সেটা জানি, আফ্রিকা থেকে হোমো স্যাপিয়েন্সরা যখন সারাপৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়েছিল, তখন তাদের গায়ের রঙ নিশ্চয় কালোই ছিল, পরে পরিবর্তন হয়।
    - - হুম, কিছুটা ঠিক, কিন্তু কেন হয়েছিল?
    - - আমি শুনেছি যে যেহেতু ইউরোপে সূর্যালোক কম পৌঁছয় তাই ভিটামিন ডি সংশ্লেষ করার জন্য ত্বকের বর্ণ পাংশু হয়ে গেছে
    - - হুম, আগে সেরকমই ভাবা হত বটে, কিন্তু....
    - - কিন্তু কি?
    - - সে এক বিরাট কাহিনী
    - - বল না, আজ নাহয় তোর সাথে গল্পই করলাম একটু
    - - আচ্ছা, থাউজ্যান্ড জিনোম প্রোজেক্টটা কি জানিস?
    - - না, সেটা কি?
    - - এই প্রোজেক্টের লক্ষ্য হল অনেক মানুষের থেকে জেনেটিক ডেটা নিয়ে একটা ডেটাবেস তৈরি করা, যাতে মানুষের মধ্যেকার জেনেটিক ভ্যারিয়েশন স্টাডি করে মানুষের বিবর্তন, মাইগ্রেশন, সংস্কৃতি ও ইতিহাস সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা করা যায়।
    - - আচ্ছা, কিন্তু এটার সাথে ফর্সা হওয়ার সম্পর্ক কি?
    - - আছে, আছে, "সবুর কর, তবে তো মেওয়া ফলবে"। গেল মার্চ মাসে আমেরিকান অ্যাসোশিয়েশন অফ ফিজিকাল অ্যানথ্রোপলজিস্টদের চুরাশিতম বার্ষিক সমাবেশে এই থাউজ্যান্ড জিনোমস প্রোজেক্টের ত বিশ্লেষণ করে পাওয়া কিছু চমকপ্রদ তথ্য পাওয়া গেছে। প্রায় পঁয়তাল্লিশ হাজার বছর আগে হোমো স্যাপিয়েন্সরা প্রথম যখন ইউরোপে প্রবেশ করে, তখন তারা কালোই ছিল। সেটাই স্বাভাবিক, কারণ আফ্রিকার নিরক্ষীয় জলবায়ুতে তাদের গায়ে যে মেলানিন বেশি থাকবে, তাতে আর আশ্চর্য্য কি? কালো চামড়ার মানুষের অতিরিক্ত মেলানিন সূর্যের ক্ষতিকর অতিবেগুনী রশ্মি থেকে তাদের বাঁচায় বটে, কিন্তু এর একটা ডাউনসাইড আছে, এই অতিরিক্ত মেলানিনই আবার শরীরে সূর্যালোক দ্বারা উৎপন্ন ভিটামিন ডি তৈরিকে বেশ ইনএফিশিয়েন্ট করে দেয়।
    - - দাঁড়া দাঁড়া, তাহলে প্রথম যখন মানুষ ইউরোপে এসেছিল তখন তারা নিশ্চয় ভিটামিন ডির অভাবে ভুগত?
    - - অতটা সরল না ব্যাপারটা, সূর্যালোক ছাড়াও আরো নানান খাদ্যবস্তু থেকে ভিটামিন ডি পাওয়া যায়। সেটা পেলে সূর্যালোক থেকে ভিটামিন ডি না পেলেও কোন ক্ষতি হয়না। তুই তো সফ্টওয়্যার কোম্পানীতে সারাদিন এসিতে কাজ করিস, যাতায়াতও এসি বাসে, বাড়িতেও এসি। সারাদিন সূর্যের মুখ দেখিসনা, কিন্তু তাও তোর ভিটামিন ডি ডেফিসিয়েনশি নেই, কেন? কারণ হল তোর খাবারের সাথে যথেষ্ট পরিমাণে ভিটামিন ডি পাস তুই।
    - - বুঝলাম, তাহলে সাদা চামড়া হয়ে সুবিধা কি হয়েছিল?
    - - বলছি, এজন্যই তো থাইজ্যান্ড জিনোমের প্রসঙ্গটা আনলাম। জানিস তো, পুরোন ফসিল থেকেও জেনেটিক মেটিরিয়াল উদ্ধার করা সম্ভব?
    - - তাই নাকি? এ তো জুরাসিক পার্ক
    - - যা বলেছিস, আমরা অলরেডি তার কাছাকাছি এসে গেছি। যাই হোক, যা বলছিলাম। প্রায় তিরাশিটা ফসিল থেকে পাওয়া জেনেটিক মেটেলিয়ালের সিকোয়েন্সিং করে থাউজ্যান্ড জিনোমের ডেটার সাথে কমপেয়ার করলে কয়েকটা বিশেষ তথ্য বেরিয়ে আসছে। প্রথমদিকের ইউরোপিয়ান হান্টার গ্যাদারাররা কালোই ছিল, ৮৫০০ বছর আগে, হাঙ্গেরি, স্পেন, লুক্সেমবার্গের ইউরোপিয়ানরা সবাই ছিল কালো। ফর্সা হওয়ার যে জিন দুটো ইউরোপিয়ানদের দুধে আলতা রঙ দেয় সেই SLC24A5 আর SLC45A2 তাদের মধ্যে ছিল অনুপস্থিত।
    - - তার মানে ফর্সা রঙের ইতিহাস আটহাজার রছরের বেশি পুরোন নয়?
  • বিভাগ : ব্লগ | ৩০ মে ২০১৬ | ১৬৩ বার পঠিত
আরও পড়ুন
ভুল - Tathagata Dasmjumder
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • d | 144.159.168.72 (*) | ৩১ মে ২০১৬ ০৪:১৬54768
  • ইনটারেস্টিং
  • dd | 116.51.24.144 (*) | ৩১ মে ২০১৬ ০৫:২৬54770
  • হ্যাঁ, বেশ ইন্টেরেস্টিং তো
  • Prativa Sarker | 233.191.30.4 (*) | ৩১ মে ২০১৬ ০৫:৫১54771
  • তথ্যবহুল। আর মনোযোগ ধরে রাখে ।
  • তথাগত | 233.191.52.208 (*) | ৩১ মে ২০১৬ ০৭:১৮54769
  • প্রথম প্রচেষ্টা পড়ার জন্য ধন্যবাদ
  • শিবাংশু | 127.197.76.29 (*) | ০২ জুন ২০১৬ ০৪:১৮54773
  • ভালো লাগলো....
  • Ekak | 53.224.129.52 (*) | ০৩ জুন ২০১৬ ০৪:০৯54775
  • সচলের লেখাটাও পড়লুম । এরকম বাঙালি বা ভারতীয় দের পছন্দ কে মাপকাঠি ধরে ফর্সা -শ্যামলার থিওরি খাড়া করা ঠিক লাগলো না । ফর্সা হওয়া যদি এত এতই ভালো একসেপ্টেবল হবে তাহলে স্কিন ট্যান করার ধুম কেন ? ইন জেনেরাল লোকজন মাঝারি রং পছন্দ করে । খুব কালো বা খুব ফর্সা কোনটাই বেশি লোকের পছন্দ নয় । গায়ের রং কে ব্যান্ড ধরে সাজানো গেলে , মাঝের দিকে এক্সেপ্তিবিলিতি বেশি ,যত চূড়ান্ত ফর্সা বা কালো তে যাওয়া যায় এক্সেপ্তিবিলিতি কমতে থাকে ।
  • Ekak | 53.224.129.52 (*) | ০৩ জুন ২০১৬ ০৪:১৪54777
  • এছাড়া স্কিন টোন একটা বিশাল বড় রোল প্লে করে । খাবারের ক্ষেত্রে যেমন স্বাদ আর গন্ধ কে আলাদা করে বিচার করার প্রথা মডার্ন কুলিনারী তে নেই, বরং একসঙ্গে ফ্লেভার ক্যারেক্তারিস্তিক্স নিয়ে আলোচনা হয় ; চামড়ার ক্ষেত্রেও সেরকম স্কিন টোন । খুব ফর্সা প্লাস ডেড লুকিং স্কিন এর এক্সেপ্তিবিলিতি কম । শ্যামলা প্লাস উজ্জল টোন এর এক্সেপ্তিবিলিতি বেশি । শুধুমাত্র "রং " দিয়ে আদৌ কি সিদ্ধান্তে পৌছনো সম্ভব জানি না । ওভারল , মিডিয়াম রং এবং লাইভলি / উজ্জল স্কিন চট করে দৃষ্টি আকর্ষণ করে ।
  • সে | 198.155.168.109 (*) | ০৩ জুন ২০১৬ ০৪:১৪54776
  • স্কিন ট্যান করানোর পেছনে নানারকম ব্যাপার থাকে। গায়ের রং গাঢ় করানোটা আসল কারণ নয়, অন্ততঃ আজকাল।
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যুদ্ধ চেয়ে প্রতিক্রিয়া দিন