• বুলবুলভাজা  খবর  টাটকা খবর  বুলবুলভাজা

  • বাজেট ও বাংলা, তড়িঘড়ি

    গুরুচণ্ডা৯
    খবর | টাটকা খবর | ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ৭৭১ বার পঠিত | ২ জন)
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • বাজেট পেশ হয়ে গিয়েছে। তাতে সম্ভবত খুবই প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্তসমূহ গৃহীত হয়েছে বলেই মনে হয়। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম সে সব বিশ্লেষণ করে চলেছে। বিশ্লেষকরা মতামত দিতে থাকবেন। সে সব পড়ে এবং দেখে শুনে বিজ্ঞ ও বিদ্বজ্জনরা মতামত নির্মাণও করবেন। তার আগে সামান্য নি জার্ক রিঅ্যাকশন, গুরুর তরফে।

    বাজেটের পর, এনডি টিভিতে প্রণয় রায় কথায় কথায় বলছিলেন, কেন সব ভোট একসঙ্গে করা উচিত নয়, তা বাজেট দেখলেই বোঝা যায়। যেসব রাজ্যে যে বছর ভোট হয়, সেখানে কেন্দ্রীয় বাজেটে কিছু না কিছু বরাদ্দ করা হয়।

    এবারেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। তামিলনাড়ু, কেরালা, বাংলা ও আসাম কিছু না কিছু পেয়েছে। প্রাপ্তির ভাঁড়ার কতটা তা বাজেটের বিভিন্ন বিশ্লেষণে চোখে পড়বে। বিশ্লেষণ তো সারা দিন চলবে, চলবে পর পর কয়েক দিনও। কিন্তু যা চোখে পড়ছে, তা হল, রাস্তা উন্নয়নের জন্য অর্থ বরা্দ্দ হয়েছে তামিলনাড়ু, কেরালা ও বাংলায়।

    কেরালার জন্য বরাদ্দের পরিমাণ ৬৫ হাজার কোটি টাকা, বাংলায় সড়ক কাজের জন্য বরাদ্দ হয়েছে ২৫ হাজার কোটি টাকা, চেন্নাই মেট্রোর নবপর্যায়ের জন্য ৬৩ হাজার ২৪৬ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে, চেন্নাইয়ে মৎস্যবন্দর ও জাতীয় সড়ক কর্মসূচির জন্য বরাদ্দ হয়েছে আরও ১.০৩ লক্ষ কোটি টাকা।

    খুব সাদা চোখে, দেখা যাচ্ছে, সবচেয়ে কম টাকা বরাদ্দ হয়েছে বাংলার জন্য, সবচেয়ে বেশি অর্থ তামিলনাড়ুতে।

    এর দু রকম ব্যাখ্যা হতে পারে। বা তিন রকম। প্রথম, যেসব জায়গায় যত পরিমাণ প্রয়োজন ততটুকু বরাদ্দ হয়েছে। তামিলনাড়ুতে উন্নয়ন, মৎস্যবন্দর তৈরি প্রয়োজন, তাই সেখানে বেশি টাকা বরাদ্দ। কেরালায় তার চেয়ে কম দরকার, তাই কেরালার স্থান দ্বিতীয়ে। আর এ রাজ্যে, সড়ক উন্নয়ন সবচেয়ে কম প্রয়োজন, তাই সবচেয়ে কম টাকা এখানে বরাদ্দ।

    আবার ব্যাপারটার এরকম ব্যাখ্যা হতে পারে, যেখানে ক্ষমতায় নেই, সেখানে কম টাকা বরাদ্দ করে, এবং যেখানে সহযোগী শক্তি ক্ষমতায়, সেখানে বেশি টাকা বরাদ্দ করে, দেখিয়ে দেওয়া যে আমাদের হাতে বঞ্চনার অধিকার রয়েছে।

    তৃতীয়ত, যেখানে ক্ষমতায় আসার সম্ভাবনা নেই, সেখানে কম অর্থ বরাদ্দ করা।

    কিন্তু এগুলি সবই কনস্পিরেসি থিওরির মধ্যে পড়ে হয়ত। সাদা চোখে তথ্য হিসেবে যেটুকু এখনও দেখা যাচ্ছে, বাংলায় যে টাকা বরাদ্দ হয়েছে, তার উল্লেখযোগ্য অংশ খরচ হবে কলকাতা-শিলিগুড়ি সড়কের জন্য।

    উত্তরবঙ্গের সঙ্গে দক্ষিণবঙ্গের যোগাযোগকারী এই রাস্তার বেহাল দশা বহুলচর্চিত। কয়েক বছর আগে পর্যন্তও, ট্রেনের টিকিট না পেলে, কলকাতা বা শিলিগুড়ি থেকে বাসে চেপে বসা ছিল জলভাত সহজ। কম ভাড়ার বাস, রকেট বাস, উত্তরবঙ্গ পরিবহণের মাঝারি মানের বাস, এসি বাস, টয়লেটসহ বাস, অজস্র রকমের বাস যাতায়াত করত এ রাস্তায়। রাস্তার হাল ক্রমশ খারাপ হওয়ায়, রাজ্য পরিবহণ নিগমের বাসের যাতায়াত কমেছে, এবং পরিবহণসূত্রে আয় সরকারের, এবং বেসরকারি উদ্যোগীদেরও ব্যাপক পরিমাণে কমেছে।

    ভোটের কয়েক মাস বাকি থাকতে এই সড়কের হাল ফেরাতে অর্থ প্রদান নির্মলা সীতারমণের বার্তা প্রদান। পাইয়ে দেবার বার্তা। পাশাপাশি খেয়াল রাখতে হবে, উত্তরবঙ্গে বিজেপির শক্ত এলাকা হয়ে উঠছে বলে দলগতভাবে তারা মনে করে। ফলে সেখানকার মানুষদের এইভাবে একটি তুষ্টি বার্তা দেওয়া হচ্ছে, এমন ব্যাখ্যাও সম্ভব।

    কথাটা আরও দৃঢ়ভাবে মনে হয়, আরেকটা আঙ্কিক হিসেব দেখলে। আসাম ও বাংলার চা বাগানের উন্নতিকল্পে ১০০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।

    উত্তরবঙ্গ, আসাম ও সন্নিহিত বাংলার দিকে এবারের বাজেটে বরাদ্দ বৃদ্ধির মধ্যে কোনও সূক্ষ্ম হিসেব নেই। এ একেবারেই বিজেপির গোদা খেলা। বিজেপিসুলভ। এর মধ্যে সরকার, কেন্দ্র-রাজ্য সম্পর্ক, কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের ধাঁচা খুঁজতে গিয়ে লাভ নেই। সময়ের অপব্যয় হবে।

  • বিভাগ : খবর | ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ৭৭১ বার পঠিত | ২ জন)
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • :-( | 42.110.139.42 | ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ২০:১২102248
  • নি জার্ক রিয়াকশনই হয়েছে বটে। কিন্তু খুব কি দরকার ছিল এরকম একটা ঘণ্ট পাকানো বিশ্লেষণের ? এও হয় ,এর ৯০ কি ১৮০ কি ২৭০ ডিগ্রি বিপরীতও হয় ,৩৬০ ডিগ্রি ঘুরে শেষমেশ গোল গোল ঘোরা ছাড়া কিছুই বোঝা গেলনা।   কনস্পিরেসি থিয়োরির নামে বিল কেটে মাইরি এরকম সব সম্ভাবনাকে হাজির করা ঘ্যাঁট কম দেখা যায়,খুব কম কনস্পিরেসি থিয়োরিতেই।   যখন যা কিছু হবে তাকেই  যেদিক দিয়ে ইচ্ছা ব্যাখ্যা করা সম্ভব ,   লেখার মধ্যে দেওয়া  'দুরকম বা তিনরকম ব্যাখ্যা' দিয়েই লেখার শেষ প্যারার সর্বশেষ সিদ্ধান্তকে নেগেট করে দেওয়া যায়, সব সম্ভাবনাই  যেখানে হরেদরে সমান, অসমান হলেও সেই নিয়ে একটি লাইনও নেই, তখন বুঝতে হবে  লেখকের বিশ্লেষণ বলে কিস্যু নাই। এর থেকে শুধু সাদা চোখে দেখা তথ্যগুলি পরিবেশন করলেই হত।  


    আর হতেই পারে ,হতেই পারে কেন,বিজেপির সরকারের বাজেট অবশ্যই বিজেপির খেলা ,কিন্তু যে যুক্তিতে বিজেপির গোদা খেলা,বিজেপিসুলভ বলা হল,তা লেখার শুরুর যুক্তি দিয়েই কেটে যায়।  যেকোন দলই যে রাজ্যে আসন্ন নির্বাচন,সেখানে কিছু বেশি টাকা ঢালবে এতে গোদা বিজেপিসুলভ খেলার আছেটা কি ?  


    আরো বড় প্রশ্ন হল, এরকম বালখিল্য তড়িঘড়ি রিয়াকশন দেওয়া লেখা নামানোর খুব দরকার ছিল কি ?

  • Dhuttor | 2405:8100:8000:5ca1::58f:4ed5 | ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ২০:৫৩102251
  • গুরু সান্ধ্য আজকাল হচ্ছে। চাট্টি  হাবিজাবি দিয়ে পাতা ভরানো

  • b | 14.139.196.12 | ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ২১:১৪102256
  • দুত্তোরের সঙ্গে একমত। 

  • বিবেক মৌলিক | 2409:4064:2ea4:eb63::2b09:e304 | ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০৮:৩৪102270
  • আমার তো এই নী-জার্ক বিশ্লেষণ টা মনঃপূত এবং যথাযথ মনে হয়েছে, হতে পারে বিজেপি দলটিকে এই প্রতিবেদক যে চোখে দেখেছেন  আমিও সেই চোখেই দেখি এবং সঠিকভাবেই দেখি, দ্বিতীয়ত আমি বাছুর নই এবং চাড্ডি তো নইই।

  • বাল্যখিল্য | 2409:4060:2000:4189:994d:ebb5:a4e6:76bc | ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৩:২৭102290
  • এখানেও চাড্ডিরা ঢুকে পড়েছে মনে হচ্ছে।  

  • শুদ্ধসত্ত্ব দাস | ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০২:৫৮102304
  • আরো বিস্তারির আলোচনার অপেক্ষায় থাকলাম

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খেলতে খেলতে মতামত দিন