• বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়।
    বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে।
  • আমেরিকার করোনা, পাবলিকের হাতে কেবল পেনসিল

    সৈকত বন্দ্যোপাধ্যায়
    বিভাগ : টুকরো খবর | ২৫ মার্চ ২০২০ | ৬৪৫ বার পঠিত
  • স্থ্যজনিত কাজকর্ম বাদ দিলে, আমেরিকায় এখন চাকরি পাওয়ার একমাত্র জায়গা হল আনএমপ্লয়মেন্ট অফিস। কথাটা ইয়ার্কি মনে হলেও আসলে ইয়ার্কি নয়। তার কারণটা একটু লম্বা করে বলা দরকার। মূল কথাটা হল, আমেরিকায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের চেয়েও সম্ভবত বেশি হারে বাড়ছে ছাঁটাইয়ের সংখ্যা। বলাবাহুল্য এটা মেটাফরিকাল কথা, অঙ্কের হিসেব করে বলা হয়নি। তবে যা ঘট্ছে, তা হল, আমেরিকান জনসংখ্যার একটা বিরাট অংশ গৃহবন্দী। ব্যবসাবাণিজ্যও প্রায় বন্ধের মুখে। বহু রাজ্যেই স্রেফ ডাক্তারখানা আর মুদির দোকান ছাড়া কিছু খোলা নেই। এয়ারলাইন্সে যাত্রী নেই, হোটেলে অতিথি নেই, রেস্তোরাঁ বন্ধ, ফলে খদ্দেরেরও ব্যাপার নেই, দোকানটোকান তো সবই বন্ধ। ফলে এই এক বিপুল কর্মীবাহিনী কোনো কাজই করছেনা। তারা কার্যত বেকার। ফলে, মুক্তবাণিজ্যের দেশে একটাই বিকল্প পড়ে থাকে, তাইই হচ্ছে। অর্থাৎ কিনা ছাঁটাই। কী পরিমানে হচ্ছে, সংখ্যাটা এই মূহুর্তে বলা মুশকিল। তবে সিএনবিসির জেফ কক্স কয়েকদিন আগে লিখেছেন,

    ১। ৫ থেকে ৫০ লক্ষ, এর মধ্যে কোনো একটি সংখ্যায় ছাঁটাইয়ের পূর্বাভাস আছে।

    ২। করোনা ভাইরাসের কারণে যে পরিমান ছাঁটাই হবে, আমেরিকার ইতিহাসে তা কখনও হয়নি।

    ৩। ছাঁটাইয়ের খবর এতই খারাপ হবার সম্ভাবনা, যে সরকারি আধিকারিকদের তথ্য দেরি করে ছাড়তে বলা হয়েছে।

    বিশেষজ্ঞদের কথায় অবশ্য কোনো ভরসা নেই, তাঁরা প্রতি মূহুর্তেই মত বদলান। কিন্তু বিভিন্ন সূত্র থেকে যা জানা যাচ্ছে, তা হল, অবস্থা একেবারেই সুবিধের নয়। বেকারিত্বের সুবিধে পাবার জন্য আনএমপ্লয়মেন্ট অফিসে লাইন পড়ছে। শুধু লোকে দাঁড়িয়ে লাইন দিচ্ছে এমন নয়, ইন্টারনেটেও প্রভূত চেষ্টা করছে। সেই সংখ্যাটা এতই বেশি, যে, বিভিন্ন রাজ্যে ওয়েবসাইট ক্র‌্যাশ করছে। নিউইয়র্ক টাইমস একটি প্রতিবেদনে লিখেছে, যে, এই অবস্থা সামলানোর পরিকাঠামো আনএমপ্লয়মেন্ট অফিসের নেই। তাই তারাই এখন বৃহৎ পরিমানে লোক নিয়োগ করা শুরু করেছে। তাই, শুনতে মজার লাগলেও, এটা একটুও মজার কথা নয়, যে, আমেরিকায় এখন চাকরি হারানোর জায়গা অনেক, কিন্তু গোটাগুটি যে কটা জায়গায় চাকরি পাবার সম্ভাবনা এখনও টিকে, তার একটি হল আনএমপ্লয়মেন্ট অফিস স্বয়ং।

    এর মধ্যে যেটা জানা, তা হল চাকরি বাকরি হারানোর মধ্যেই লাফিয়ে বাড়ছে করোনার কেসের সংখ্যা। সিএনএনএর সঞ্জয় গুপ্তার মতে, এখন যে তথ্য জানা যাচ্ছে, সেটা আসলে দুসপ্তাহ আগের। এবং কার্যত সংখ্যাটা প্রতিদিনই দ্বিগুণ হচ্ছে। ফলে সংখ্যাটা এখন কোথায়, এবং কোথায় গিয়ে ঠেকবে, বলা কঠিন। অবশ্য, এসবই খুব বেশি হলে আন্দাজ। আসল সংখ্যা কী, তার মাপ কী, কী অভিঘাত, কেউই জানেন বলে মনে হচ্ছেনা। প্রভূত রোগির আশঙ্কায় নিউ-ইয়র্কের গভর্নর জানিয়েছেন, পরীক্ষামূলকভাবে একটি ভেন্টিলেটার দিয়ে দুজন রোগির চিকিৎসা করে দেখা হবে। ব্যাপারটা নিঃসন্দেহে নতুন এবং জটিল। চিকিৎসা নিয়ে অন্যান্য জটিলতাও আছে। যথেষ্টই আছে। আমেরিকায় চিকিৎসা ব্যবস্থা সরকারি নয়, পুরোটাই বীমানির্ভর। বীমাকোম্পানিরা জানিয়েছে, যে, করোনার পরীক্ষা হবে বিনামূল্যে, কিন্তু চিকিৎসার খরচ পুরোটা তারা বহন করবেনা। এখন শোনা যাচ্ছে, সব ক্ষেত্রে পরীক্ষাও বিনামূল্যে হচ্ছেনা। অর্থাৎ কাগজেকলমে পরীক্ষা বিনামূল্যেই বটে, কিন্তু তার সঙ্গে সার্ভিস চার্জ, অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ফি, ইত্যাদি হাবিজাবি যোগ করে, কাউকে নাকি ৩০০০ ডলারও বিল করা হয়েছে। এ অবশ্য অভিযোগ মাত্র, প্রমাণিত সত্য নয়। সবক্ষেত্রে হচ্ছে তাও নয়, কিন্তু যেটা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই, তা হল, চিকিৎসার খরচ পুরোটা বীমাকোম্পানি দেবেনা। অন্যান্য চিকিৎসায় যেমন কিছুটা বীমা কোম্পানি দেয়, বাকিটা রোগিকে দিতে হয়, এখানেও সেই একই ফর্মুলা ব্যবহার কতা হবে। কোন চিকিৎসায় কতটা রোগিকে দিতে হবে, সেটা বীমা পলিসির উপর নির্ভরশীল। এখানেও সেই পলিসি প্রযোজ্য। এমনিতেই যেকোনো অজুহাতে টাকা দিতে অস্বীকার করার ব্যাপারে বীমা কোম্পানিদের যথেষ্ট সুনাম আছে। ফলে ১৪ দিনের হাসপাতালবাস হলে টাকার অঙ্ক কোথায় যেতে পারে, এ নিয়ে উদ্বেগও বাড়ছে। এছাড়াও, বহু লোকের বীমা নেই, বা থাকলেও যতটা থাকা উচিত ততটা নেই। তাদের কী হবে, কেউ জানেনা।

    করোনা এবং বেকারিত্ব, এই সাঁড়াশি আক্রমণের মধ্যে, শোনা যাচ্ছিল, একটি ট্রিলিয়ন ডলারের প্যাকেজের কথা। কিন্তু সে নিয়েও মতবিরোধের শেষ নেই। যোগানের অর্থনীতি বনাম চাহিদার অর্থনীতির সেই পুরোনো বিতর্ক, যা এই পুঁজিবাদি ব্যবস্থায় কখনও যাবেনা, সেই নিয়েই ফাটাফাটি চলছে। একদিকে দাবী, যতদিন না এই দুর্যোগ মিটছে, প্রতিটি কর্মক্ষম মানুষকে মাসিক ২০০০ ডলার ভাতা দেবার। বামপন্থীরা এর সঙ্গে যোগ করছেন একটি দীর্ঘস্থায়ী শক্তপোক্ত বেকারত্ব ভাতা এবং মেডিকেয়ার ফর অল এর দাবী। উল্টোদিকের দাবী হল বড় মেজো এবং ছোটো শিল্পসংস্থাগুলিকে ভরতুকি দেবার। তারা টিকে থাকলে কর্মসংস্থান হবে, এবং লোকজনের দুর্গতির অবসান হবে। বামপন্থীরা দাবী তুলছেন 'এবার সাধারণ মানুষের জন্য বেল-আউট, বড় ব্যাবসার জন্য নয়'। আর উল্টোদিকের দাবীটা হল, 'সকলের জন্য বেল আউট'। সেখানে কর্মক্ষমদের এককালীন ১০০০ ডলার দেবার সংস্থান আর বড় সংস্থাগুলির জন্য বিরাট সাহায্য। এই নিয়ে বিতর্ক চলছে এবং সেনেটে এই প্যাকেজের বিল দুবার চেষ্টা করেও পাশ করানো যায়নি।

    এরই মধ্যে ডোনাল্ড ট্রাম্প ইঙ্গিত দিয়েছেন, খুব শীঘ্রই সামাজিক দূরত্বের উদ্যোগ বন্ধ করে দেওয়া হতে পারে। কারণ এইভাবে চললে সবকিছুই লাটে উঠতে পারে। ট্রাম্পের কথায় অবশ্য ভরসাযোগ্য কিছুই নেই। তিনি ইতিমধ্যেই নানা রোমহর্ষক জিনিস বলেছেন, পরে জানা গেছে, কথাগুলো একেবারেই ঠিক নয়, এবং তাঁর প্রশাসনই সেগুলো অস্বীকার করেছে। ট্রাম্প ইতিপূর্বে দাবী করেছিলেন, বীমা কোম্পানিরা করোনা চিকিৎসার সম্পূর্ণ আর্থিক দায়িত্ব নিতে রাজি হয়ে গেছে, কিন্তু প্রথম সুযোগেই বীমা কোম্পানিরা বলে, এমন কোনো কথা হয়নি। ট্রাম্প দাবী করেছিলেন, করোনার কার্যকরী ওষুধ বেরিয়ে গেছে, কিন্তু তাঁর সংকটমোচন দলের দায়িত্বপ্রাপ্ত ডাক্তার সেই মঞ্চে দাঁড়িয়েই বলেন, এখনও সেই ওষুধের কোনো ট্রায়াল হয়নি।

    এইভাবে একদিকে দুর্যোগ এবং অন্যদিকে সার্কাস, এর মধ্যেই গড়িয়ে চলেছে আমেরিকার করোনা দুর্যোগ। যার শেষ কোথায়, বিশেষ কেউ জানে বলে মনে হয়না। বা কেউ হয়তো জানে, কিন্তু আপামর জনতার হাতে কেবল পেনসিল।
  • বিভাগ : টুকরো খবর | ২৫ মার্চ ২০২০ | ৬৪৫ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • π | 162.158.22.33 | ২৫ মার্চ ২০২০ ০৯:১২91732
  • এখন আনএম্পলয়মেন্ট এক্সচেঞ্জে নাম লেখালে লোকে কী কী সুবিধে পান? বেকার ভাতা আছে? কত?
  • ন্যাড়া | 172.68.132.164 | ২৫ মার্চ ২০২০ ১০:০৭91735
  • ঈশান যে বলছে, "বহু রাজ্যেই স্রেফ ডাক্তারখানা আর মুদির দোকান ছাড়া কিছু খোলা নেই। এয়ারলাইন্সে যাত্রী নেই, হোটেলে অতিথি নেই, রেস্তোরাঁ বন্ধ, ফলে খদ্দেরেরও ব্যাপার নেই, দোকানটোকান তো সবই বন্ধ।" - এ হল গিয়ে রিটেলের কথা। ব্যক্তিগত কথা বলি। আমি এবং আমার বউ, দুজনেই আইটি গাই, গেল দুহপ্তা বাড়ি থেকে কাজ করছি। এবং দুজনেই উপলব্ধি করছি কাজের পরিমাণ বেড়েছে। ইতিমধ্যে বউয়ের কোম্পানিতে লেঅফ শুরু হয়েছে। আমাদেরও রেভেনিউতে উৎরাই শুরু হয়েছে। কাজেই চাকরি কবে আছে, কবে নেই মা গঙ্গাই জানেন। অন্যান্য রিসেশনে স্লোডাউন শুরু হয় ননরিটেলে, সেখান থেকে রিটেলে ছড়ায়। এবার উল্টো।
  • S | 108.162.245.25 | ২৫ মার্চ ২০২০ ১০:২২91737
  • লেখাটা সত্যিই খুব ভালো হয়েছে।

    রাজনৈতীক অ্যাঙ্গেলও একটা আছে। ট্রাম্প ভাবছে যে রিসেশান এলে ইলেকশান হারতে পারে। আবার গরমের জন্য ভাইরাসের প্রকোপ কমে গেলে তার বাহবা কুড়াবেন এবং সঙ্গে ইলেকশান জেতার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে। কিন্তু না কমে যদি বেড়ে যায় এবং আমেরিকা বহু দিনের জন্য বন্ধ হয়ে যায় বা কমে গিয়ে আবার যদি আরো বড় ভাবে ফিরে আসে, মানে কোনোমতে এই ক্রাইসিস নভেম্বর অবধি টেনে নিতে পারলেই ইলেকশানটাই হয়ত পিছিয়ে গেল। ২০০৪ সালে এরকম একটা সম্ভাবনার কথা খতিয়ে দেখেছিল বুশ সরকার।

    এটা ২০০৪ সালের খবরঃ
    During the last four weeks, the Election Assistance Commission, the Justice Department and the Department of Homeland Security have considered asking Congress for authority to delay this year’s election if a terrorist attack were to coincide with the November vote.
  • তিথি | 162.158.167.139 | ২৫ মার্চ ২০২০ ১১:২৯91741
  • সব দেশের এক অবস্থা। ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্য, এশিয়া, দক্ষিণ এশিয়া কারোর সামর্থ্য নেই এর অভিঘাত থেকে সহজে বেরিয়ে আসা।
  • π | 162.158.167.149 | ২৫ মার্চ ২০২০ ১৩:১৯91745
  • lcm | 172.69.22.91 | ২৫ মার্চ ২০২০ ১৩:০২438931
    ইউএসএ গভর্নমেন্ট ২ ট্রিলিয়ন ডলার স্টিমুলাস প্যাকেজ ঘোষণা করছে - the largest rescue package in American history

    ডিটেইলস পরে আসবে, এখনও অবধি যা জানা যাচ্ছে
    - $250 billion set aside for direct payments to individuals and families,
    - $350 billion in small business loans,
    - $250 billion in unemployment insurance benefits and
    - $500 billion in loans for distressed companies.
  • S | 162.158.107.114 | ২৫ মার্চ ২০২০ ১৪:৪২91746
  • বোয়িং মনে হয় বেঁচে গেল।
  • lcm | 172.68.141.63 | ২৬ মার্চ ২০২০ ০৭:১৩91764
  • জব লস, ইকনমি --
    - Federal Reserve president James Bullard warns that the unemployment rate could hit 30% in the second quarter as the coronavirus freezes the U.S. economy.
    - The worst month for job losses during the financial crisis was 800,00 in March 2009. Some forecasts see April quintupling that or worse. Forecasts for that month range from 500,000 to 5 million.
    - Goldman Sachs predicted a record number of 2.25 million claims for unemployment next week.
    - Goldman Sachs forecasts 3 million jobs lost by June
    - Deutsche Bank projects 7.5 million jobs lost by this summer.
    - The leisure and hospitality sector employs about 7.4 million workers whose jobs could be affected, according to Challenger, Gray and Christmas.
    - The American Hotel & Lodging Association and the U.S. Travel Association estimated that 1 million hotel jobs, or about 45% of the industry's employment, "have either been eliminated or will be eliminated in the next few weeks."
    - CBRE Group report projects 3 million job losses
    - One of the latest companies to announce large-scale layoffs is General Electric. The company said Monday that it would lay off about 10% of the workforce at its aviation subsidiary due to the coronavirus pandemic.
    - Projection from Steven Blitz, chief U.S. economist at TS Lombard: there will be 17.9 million Americans on the unemployment line, or about 12 million more than in ফেব্রুয়ারী
    - Josh Bivens, director of research at the Economic Policy Institute. “Even with moderate fiscal stimulus, we’re likely to see 3 million jobs lost by summertime "

    + Amazon said it will hire 100,000 workers to assist with online orders in the U.S. and raise their minimum pay to at least $17 an hour through April.
  • Prativa Sarker | 141.101.99.226 | ২৬ মার্চ ২০২০ ১৬:০৬91781
  • এখানে এখনও অব্দি বাড়ি, গাড়ি বা অন্য কোনো আইটেম যার টাকা ব্যাঙ্ক অথবা অন্য সংস্থাকে মান্থলি বেসিসে শোধ করতে হয়, সেগুলো মকুব হবে বা রিয়ালাইজেশন পিছিয়ে দেওয়া হবে এমন কোনো ঘোষণা নেই। অনেকের কপালেই চিন্তার ভাঁজ।
  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • গুরুর মোবাইল অ্যাপ চান? খুব সহজ, অ্যাপ ডাউনলোড/ইনস্টল কিস্যু করার দরকার নেই । ফোনের ব্রাউজারে সাইট খুলুন, Add to Home Screen করুন, ইন্সট্রাকশন ফলো করুন, অ্যাপ-এর আইকন তৈরী হবে । খেয়াল রাখবেন, গুরুর মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করতে হলে গুরুতে লগইন করা বাঞ্ছনীয়।
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত